মডেলের প্রতারণার ফাঁদে পড়ে নিঃস্ব অনেকেই

অনলাইন ডেস্ক

মডেলের প্রতারণার ফাঁদে পড়ে নিঃস্ব অনেকেই

একজন মডেল এতো বড় ভয়ংকর প্রতারক হতে পারে তা বিশ্বাস হওয়ায় কঠিন। ছদ্মনাম সুরাইয়া নীল। বয়স মাত্র ২০। এই অল্প বয়সেই ভয়ংকর প্রতারক হয়ে ওঠেন। ক্রাইম প্যাট্রল দেখেই তার প্রতারণার হাতেখড়ি। প্রতারণার ফাঁদে ফেলে অপহরণ করেন। 

এরপর ভুক্তভোগীকে জিম্মি করে টাকা হাতিয়ে নেওয়াই লক্ষ্য। এসব কাজে তার সহযোগী স্বামী হাবিব মলিন ওরফে রাজ এবং রাজের বন্ধু আবদুস সালাম। মডেল কন্যা সুরাইয়ার ফিল্মিস্টাইলে অপহরণ নাটক বা সিনেমার গল্পকেও হার মানিয়েছে। পুলিশকে জানিয়েছেন প্রতারণার আদ্যোপান্ত। সুরাইয়াসহ এই চক্রের তিন সদস্যকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

এরপরই বেরিয়ে আসে তাদের প্রতারণার ঘটনা। যা শুনে পুলিশ কর্মকর্তারাও হতবাক। মঙ্গলবার যশোরের অভয়নগর থানার একতাপুর গ্রাম থেকে মডেল কন্যা সুরাইয়াসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। অন্য দুজন হলেন - মো. আবদুস সালাম ও মো. শাহিন শিকদার। সাতক্ষীরার তালা থানার অভিযোগের সূত্র ধরে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানায় পিবিআই।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, আবু হেনা মোস্তফা ওরফে মলিন নামে এক আইনজীবীর সঙ্গে সাতক্ষীরার আশাশুনির মেয়ে রাবেয়া সুলতানা রিতুর বিয়ে ঠিক হয়। এরই সূত্র ধরে ৬ ফেব্রুয়ারি দুপুরে মলিন খুলনা পাইওনিয়ার কলেজের সামনে রিতুর সঙ্গে দেখা করেন। পরে তারা জাহানাবাদ ক্যান্টনমেন্ট  পার্কে ঘুরতে যায়। এ সময় রিতুর বান্ধবী সুরাইয়ার সঙ্গে তাদের দেখা। এ সময় সুরাইয়া নিজেকে মডেল হিসেবে উপস্থাপন করে বিভিন্ন অঙ্গভঙ্গির মাধ্যমে মলিনের সঙ্গে সখ্য তৈরি করে।

এরপর কৌশলে সুরাইয়া মলিনকে যশোরের অভয়নগর থানার একতারপুরে নিয়ে আসেন। সেখানে আইনজীবী মলিন কিছু বুঝে উঠার আগেই তার হাত-পা বেঁধে জিম্মি করে ফেলে। শুরু হয় শারীরিক নির্যাতন। এরপর তার বিভিন্ন স্বজনের কাছে মুক্তিপণ দাবি করতে থাকেন তারা। অপহরণকারীদের কথায় মলিন তার বন্ধু হাফিজকে ফোন করে বলেন, তিনি খুব বিপদে আছেন এবং তার টাকা প্রয়োজন।

আরও পড়ুন:


সেনাবাহিনীর হাতে আটক সু চির আরেক ঘনিষ্ঠ সহযোগী

বিএনপির ডাকা চট্টগ্রামের সমাবেশ স্থগিত

বাঙালীদের আত্মপরিচয় ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে: মহাদেব সাহা

সেবা বৈষম্য নিয়ে ক্ষুব্ধ নতুন যুক্ত ওয়ার্ডের বাসিন্দারা


এসব বললে, হাফিজ তাকে বিকাশের মাধ্যমে ১০ হাজার টাকা পাঠায়। পরে নিজেদের পরিচয় গোপন করে মলিনের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন দিয়ে পর্যায়ক্রমে তার বাবা এবং দুলাভাইকে ফোন করে ৩০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। মলিনকে মারপিট করে তাদের কান্নার আওয়াজ শুনায়। মুক্তিপণ না দিলে অপহরণকারীরা মলিনকে হত্যা করবে বলে জানায়। তাৎক্ষণিকভাবে দুই লাখ টাকা দেওয়ার কথা মলিনের পরিবারের। মলিন মুক্তির পর বাকি টাকা দেওয়ার আশ্বাস দেয় অপহরণকারীদের। এরপর মুক্তিপণের ওই দুই লাখ টাকা আনতে গিয়ে ধরা পড়ে অপহরণ চক্রের সদস্য শাহিন। পরে শাহিনের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সুরাইয়া ও আবদুস সালামকে গ্রেফতার করা হয়। পরে ভুক্তভোগী আইনজীবী মলিনকে যশোরের অভয়নগর থানার একতাপুর গ্রামের রাবেয়া খাতুনের বাড়ি থেকে উদ্ধার করে পিবিআই।

বাড়িওয়ালা রাবেয়া জানায়, প্রায় এক মাস আগে মডেল সুরাইয়া ও আবদুস সালাম স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে তার বাড়ি ভাড়া নেয়। পিবিআই সদর দফতরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আবু ইউছুফ বলেন, অপহরণের ঘটনায় আইনজীবী মলিনের দুলাভাই শরিফুল ইসলাম সাতক্ষীরার তালা থানায় অভিযোগ করেন। ওই অভিযোগের সূত্র ধরে পিবিআই যশোর জেলার ইনচার্জ এসপি রেশমা শারমিনের নেতৃত্বে একটি দল অপহরণকারীদের শনাক্ত করে। পরে মলিনকে অপরহণের পরিকল্পনাকারী মডেল সুরাইয়াসহ তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়।

পাশাপাশি ভুক্তভোগী মলিনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় মডেল সুরাইয়ার স্বামী হাবিব ও ভুক্তভোগী মলিনের হবু স্ত্রী রিতুকে ধরতে অভিযান চলছে। পিবিআই প্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার বলেন, কোথাও অপরাধের সংবাদ পাওয়া মাত্র আমরা টিম ওয়ার্কের মাধ্যমে কাজ শুরু করি। কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত লেগে থাকি। পিবিআই যশোর জেলার ইনচার্জ এসপি রেশমা শারমিন বলেন, ‘আমরা ভুক্তভোগী মলিনকে দ্রুত উদ্ধার এবং জড়িতদের আইনের আওতায় এনেছি। অর্থের লোভে আইনজীবী মলিনের হবু স্ত্রী রিতু ও তার বান্ধবী সুরাইয়া এসব ঘটনা ঘটিয়েছে।’ সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

তুচ্ছ ঘটনায় বাবাকে হত্যা, র‍্যাবের হাতে ধরা সেই ঘাতক ছেলে

অনলাইন ডেস্ক

তুচ্ছ ঘটনায় বাবাকে হত্যা, র‍্যাবের হাতে ধরা সেই ঘাতক ছেলে

ময়মনসিংহ ফুলবাড়িয়া উপজেলার আছিম পাটুলী ইউনিয়নের পাটুলী টানপাড়া গ্রামে তুচ্ছ ঘটনায় বৃদ্ধ বাবা চান মিয়া (৬০)কে হত্যার ঘটনায় ঘাতক ছেলে গোলাম ফারুক (৩৫) কে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব।

ময়মনসিংহ র‍্যাব-১৪ আজ  বুধবার দুপুরে ফুলবাড়িয়া থানায় সোপর্দ করেছে। গত শনিবার সকালে বাবা-ছেলের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হলে এক পর্যায়ে বাঁশ দিয়ে মাথায় আঘাত করলে গুরুতর আহত হয়। মচিমহায় নিয়ে ভর্তি করা হলে রাতেই মারা যান তিনি। ঘটনার পর থেকে ছেলে পলাতক ছিল।


কাদের মির্জার অশালীন ফোনালাপ ফাঁস (অডিওসহ)

নিজের সব সন্তানকে চেনেন না পেলে!

বাংলাদেশ বিমান বহরে যোগ হল 'আকাশতরী'

বঙ্গবন্ধুর খুনিকে ফেরত চেয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে আবারও অনুরোধ


বাবাকে হত্যার ঘটনায় বড় ছেলে মুছা মিয়া বাদী হয়ে গোলাম ফারুককে আসামি করে ফুলবাড়িয়া থানায় মামলা করেন। তাঁকে গ্রেপ্তার করতে র‍্যাব, পুলিশের একাধিক টিম বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালায়। গত রাতে র‍্যাব ভালুকা উপজেলার জামিদিয়া গ্রামে এক খালা শাশুড়ির বাড়ি থেকে গোলাম ফারুককে গ্রেপ্তার করেন।

মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা ফুলবাড়িয়া থানার এস আই রুবেল খান জানান, হত্যা মামলায় গ্রেপ্তারকৃত ছেলেকে বৃহস্পতিবার সকালে আদালতে নেওয়া হবে।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মসজিদে দাঁড়িয়ে কোরআন হাতে নিজেকে নির্দোষ দাবি করে সে

অনলাইন ডেস্ক

মসজিদে দাঁড়িয়ে কোরআন হাতে নিজেকে নির্দোষ দাবি করে সে

প্রাইভেট থেকে ফেরার পথে চেতনানাশক দিয়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনার দশদিনেও অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। এ নিয়ে ভুক্তভোগি পরিবার ও স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি (রোববার) গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া উপজেলার নতুন বাজার বটতলা থেকে তিন যুবক নবম শ্রেণির ওই ছাত্রীকে ইজিবাইকে করে অন্যত্র তুলে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) স্কুল ছাত্রীর বাবা বাদি হয়ে মামলা দায়ের করেন।

মামলায় অভিযুক্তরা হলেন- মিতুল মল্লিক (২২), তার বন্ধু রাজিব শেখ (২৩) ও রসুল খান (২১)।

আরও পড়ুন:


স্ত্রীকে সৌদি পাঠিয়ে ৮ বছরের মেয়েকে নিয়মিত ধর্ষণ করে বাবা

বন্ধুর স্ত্রীর ‘গোপন ভিডিও’ ধারণ, ভয় দেখিয়ে আটমাস ধরে ‘ধর্ষণ’

কুমিল্লাগামী বাসে দরজা-জানালা বন্ধ করে তরুণীকে ধর্ষণ!

কলাইক্ষেতে নারীর অর্ধনগ্ন মরদেহ, পাশে পাজামা-ছাতা-স্যান্ডেল


এরপর ধর্ষণের ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার অভিযোগ ওঠায় সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) তার সহপাঠীরা মানববন্ধন করে। মানববন্ধনে বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন ও স্থানীয় এলাকাবাসীরা যোগ দেন।

এ সময় টুঙ্গীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ বাবুল হোসেন ও পৌরমেয়র শেখ মোজাম্মেল হক টুটুল ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আসামিদের গ্রেফতারের প্রতিশ্রুতি দেন।

এদিকে ধর্ষকের সহযোগী রাজিব শেখ অজ্ঞাত স্থান থেকে তার ফেসবুকে একটি ভিডিও প্রকাশ করে। মসজিদে দাঁড়িয়ে কোরআন শরীফ হাতে কান্না করে নিজেকে নির্দোষ দাবি করে সে।

টুঙ্গীপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এফএম নাসিম বলেন, আসামিদের গ্রেফতারে বিভিন্ন স্থানে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। খুব তাড়াতাড়ি অভিযুক্তদের ধরতে পারব।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

তামিমাকে নিয়ে নাসিরের ‘ভয়’

অনলাইন ডেস্ক

তামিমাকে নিয়ে নাসিরের ‘ভয়’

বনানীতে এক সংবাদ সম্মেলনে ক্রিকেটার নাসির হোসেন হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, মিথ্যা প্রচারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেবেন। তামিমাকে নিয়ে ভয়ে আছেন জানিয়ে তিনি বলেছেন, ‘আমার এখন ভয় লাগছে, তামিমা যেকোনো সময় ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে নিতে পারে। এখন তামিমা আর তামিমা নয়। তামিমা হোসাইন। সুতরাং তার নামে কেউ কিছু বললে আমি মেনে নেব না।’

বুধবার বনানীতে এক সংবাদ সম্মেলনে স্ত্রী তামিমা তাম্মিকে সঙ্গ নিয়ে নাসির হোসেন এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ধর্মীয় রীতিনীতি এবং দেশের প্রচলিত আইন মেনেই আমি তামিমাকে বিয়ে করেছি। আমি তাই সকলের প্রতি আহ্বান করছি যেন এমন কিছু না করা হয় যাতে তার স্ত্রীর কোন অসুবিধা হয়। তামিমাকে আমি চিনি চার, সাড়ে চার বছর ধরে। আমি ওকে খুব কাছ থেকে চিনি। আমরা দু'জনই প্রাপ্ত বয়স্ক। আমরা আইনগতভাবে, ধর্ম অনুযায়ী বিয়ে করেছি। কোন সমস্যা থাকলে এভাবে লোক জানিয়ে বিয়ে করতাম না।

তিনি আরও বলেন, ‘আমি ওর ব্যাপারে আমি সব জানতাম। ওর আগে বিয়ে হয়েছে, বাচ্চা আছে। ডিভোর্স হয়েছে। বিয়ের আগে আমরা লিগ্যাল ডিভোর্স পেপার দেখেই বিয়ে করেছি। আমি চাইলে ডিভোর্স পেপার ফেসবুকে এসে দেখাতে পারতাম। কিন্তু দেখাইনি।’

নাসির বলেন, ‘মিস্টার রাকিব আমাদের নিয়ে যা বলেছেন সেসব কথা সব মিথ্যা। তার কথার মধ্যে সত্য হলো রাকিবের সাথে আমার বিয়ে হয়েছিলো এবং আমাদের একটি বাচ্চা আছে। উনি যেটা করছেন সেটা এখন সবারই জানা হয়ে গেছে। তিনি যেসব মিথ্যে কথা বলেছেন তার প্রমাণ আমার কাছে আছে।’

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

৯৯৯ এ ফোন, প্রতিবন্ধী তরুণী ধর্ষণের দায়ে আটক ১

অনলাইন ডেস্ক

৯৯৯ এ ফোন, প্রতিবন্ধী তরুণী ধর্ষণের দায়ে আটক ১

৯৯৯ নম্বরে এক কলারের ফোন থেকে এক প্রতিবন্ধী তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে শেরপুরের শ্রীবর্দী থানার পুলিশ।

আজ বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে নয়টায় বাংলাদেশ পুলিশ পরিচালিত 'জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এ একজন কলার শেরপুরের শ্রীবর্দী থানার শিমুল ছড়া থেকে ফোন করে জানায় তার বাড়ির পাশে এক প্রতিবন্ধী তরুণীকে (২৩) গ্রামের এক লোক বেশ কিছুদিন ধরে ধর্ষণ করে আসছিল। মেয়েটি এতদিন ভয়ে কাউকে জানায়নি। মেয়েটি আজ অসুস্থ হয়ে পড়লে সে তখন ধর্ষণের ব্যাপারটি জানায়।

৯৯৯ তাৎক্ষণিকভাবে কলারের সাথে শ্রীবর্দী থানার ডিউটি অফিসারের কথা বলিয়ে দেয়। সংবাদ পেয়ে শ্রীবর্দী থানার একটি দল অবিলম্বে ঘটনাস্থলে যায়।


ক্রাইস্টচার্চে পৌঁছেছে টাইগাররা

স্পেনে ঢুকতে অভিবাসীর অভিনব পন্থা

গোয়েন্দাদের ব্যর্থতাতেই ক্যাপিটলে হামলা

মিয়ানমারের ১০৮৬ নাগরিককে ফেরত পাঠালো মালয়েশিয়া


পরে শ্রীবর্দী থানার এস আই শফিক ৯৯৯ কে ফোনে জানান তার ভিকটিমকে উদ্ধার করে চিকিৎসা ও ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে প্রেরণ করেছেন।

অপরাধীকে ধরার জন্য তারা তাৎক্ষনিকভাবে অভিযান শুরু করেন। অবশেষে বিভিন্ন সূত্রে প্রাপ্ত সংবাদের ভিত্তিতে ভিকটিমের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ধর্ষণের অভিযোগে একই গ্রামের বেলাল (৩২) কে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন। এ সংক্রান্তে থানায় মামলা রুজু প্রক্রিয়াধীন আছে। 

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

১৩ বছর পর স্কুলছাত্রী ধর্ষক মামলার আসামির যাবজ্জীবন

অনলাইন ডেস্ক

১৩ বছর পর স্কুলছাত্রী ধর্ষক মামলার আসামির যাবজ্জীবন

নোয়াখালীর চাটখিলে রামনারায়ণপুরে স্কুলছাত্রীকে (১৬) ধর্ষণের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় পলাতক আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড, ২০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও তিন মাস কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে নোয়াখালীর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক (জেলা জজ) জয়নাল আবদীন এ রায় দিয়েছেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি মো. শহীদ (৩০) ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছেন।

আদালতের পিপি মামুনুর রশিদ লাভলু জানান, ২০০৭ সালের ২ মার্চ দশম শ্রেণির ছাত্রী (১৬) ধর্ষণের শিকার হন। চাটখিল উপজেলার রামনারায়ণপুর গ্রামের মো. শহীদ তাকে ডাক্তার দেখানোর কথা বলে কৌশলে তার বাড়িতে নিয়ে যায় এবং জোরপূর্বক বিয়ে করার চেষ্টা করে। তাতে ছাত্রী রাজি না হওয়ায় রাতে ছাত্রীকে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ করে শহীদ। 


ক্রাইস্টচার্চে পৌঁছেছে টাইগাররা

স্পেনে ঢুকতে অভিবাসীর অভিনব পন্থা

গোয়েন্দাদের ব্যর্থতাতেই ক্যাপিটলে হামলা

মিয়ানমারের ১০৮৬ নাগরিককে ফেরত পাঠালো মালয়েশিয়া


ঘটনাটি স্থানীয়ভাবে একাধিকবার মীমাংসার চেষ্টা করা হয়। পরে বিচার না পেয়ে ছাত্রী নিজেই বাদী হয়ে প্রায় তিন মাস পর ২৪ জুন চাটখিল থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করে।

পিপি আরও জানান, একই বছরের ২০ আগস্ট চাটখিল থানার এসআই ফারুক মৃধা অভিযুক্ত শহীদের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ এর ৯ (১) ধারায় আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। এরপর দীর্ঘ ১৩ বছরের বেশি সময় ধরে আদালতে মামলাটির সাক্ষ্যগ্রহণ ও যুক্তিতর্ক চলে। সবশেষে মঙ্গলবার রায় ঘোষণা করেন বিচারক।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর