শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | আপডেট ১৬ ঘন্টা ৫৪ মিনিট আগে

বিষয়টি মেনে নেয়া ছিল পীড়াদায়ক: মৌসুমী

নিউজ টোয়েন্টিফোর ডেস্ক

বিষয়টি মেনে নেয়া ছিল পীড়াদায়ক: মৌসুমী

সম্প্রতি একটি টেলিভিশন টক-শো ব্যাপক আলোড়ন তোলে। ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। যেখানে সঞ্চালক ছিলেন ঢাকাই ছবির নায়িকা পূর্ণিমা। অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খলনায়ক মিশা সওদাগর। সঞ্চালক অতিথিকে জিজ্ঞাসা করেন, আপনি চলচ্চিত্রে কতবার ধর্ষণ করেছেন। উত্তরে খলনায়ক বলেন, 'যতবার ডিরেক্টর বলেছেন। এরপরই সঞ্চালকের আসনে থাকা নায়িকা প্রশ্ন করেন, 'আপনি কার সঙ্গে ধর্ষণের দৃশ্য করতে স্বাচ্ছন্দ বোধ করতেন।' জবাবে অতিথি দুইজন নায়িকার নাম বলেন যার মধ্যে একজন সঞ্চালক নিজেই। অপরজন চিত্রনায়িকা মৌসুমী। বিষয়টি নিয়ে কয়েকদিন যাবত গরম বাতাস বইছে মিডিয়াপাড়ায়। চলছে আলোচনা-সমালোচনা। ঘটনার পরপরই লাইভে এসে এর সমালোচনা করেন চিত্রনায়ক ও মৌসুমীর স্বামী ওমর সানি। গতকাল ওমর সানির ফেসবুক পেজে একটি স্ট্যাটাসের মাধ্যমে এ নিয়ে নিজের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন মৌসুমি। নিচে সেটি পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো-

 
''প্রিয় দর্শক, আজ একজন অভিনেত্রী হয়ে নয়, একজন নারী হিসেবে আপনাদের কিছু কথা বলতে চাই। আপনারা জানেন কয়েকদিন আগে একটি স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেলের একটি অনুষ্ঠানে 'ধর্ষণ' নিয়ে ঠাট্টা করা হয়েছিল। বিষয়টি হাসি তামাশা করার নয়।

সঞ্চালিকা যেভাবে প্রশ্ন করলেন অতিথিকে আর তিনি যেভাবে উত্তর দিলেন তাতে মনে হলো আমরা যেন বোকার স্বর্গে বাস করছি। পরবর্তীতে ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গেল এবং বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রচার হতে শুরু করলো। পুরো বিষয়টি একজন নারী হিসেবে মেনে নেয়া ছিল পীড়াদায়ক।

আমরা চলচ্চিত্রে নানানরকম অভিনয় করে দর্শককে বার্তা দিয়ে থাকি। যাতে ভালো-মন্দ দুটোই থাকে, শেষে জয় হয় ভালোর; পরাজয় ঘটে মন্দের। সেসব ইতিবাচক বার্তা তুলে না ধরে সমাজের নেতিবাচক দিকগুলো টক-শোতে এনে শুধু একজন বা দুজনকে নয় পুরো নারী জাতিকে অপমান করা হয়েছে।

শুধু আমার নয়, অন্যান্য অনেকের ভক্ত, দর্শক বিষয়টি মেনে নিতে পারেনি, সকলেই যার যার অবস্থান হতে প্রতিবাদ জানিয়েছে। আমি তাদের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে, তাদের সঙ্গে সুর মিলিয়ে এমন বক্তব্যের নিন্দা জানাচ্ছি।

আমি প্রত্যাশা করবো এ অনুষ্ঠানের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলে ভবিষ্যতের কোন একটি পর্বে এ ধরনের আচরণের জন্য ক্ষমা চেয়ে নেবেন।

আপনাদেরই প্রিয় মৌসুমী।''

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

মন্তব্য