কোন ছাত্রের গায়ে লাগার আগে তা আমার গায়ে লাগবে

শরিফুল হাসান

কোন ছাত্রের গায়ে লাগার আগে তা আমার গায়ে লাগবে

“আমি বলছি গুলিবর্ষণ হবে না। আর যদি গুলি করা হয় তবে কোন ছাত্রের গায়ে লাগার আগে তা আমার গায়ে লাগবে”। না কথাগুলো তি‌নি শুধু বলার জন্য বলেননি, স‌ত্যি স‌ত্যি যখন উর্দি পরা বাহিনী ছাত্রদের উপর গু‌লি চালালো তি‌নি বুক পেতে দিলেন। 

বল‌ছি শহীদ ‌শিক্ষক শামসুজ্জোহার কথা। যতোবার আমি জোহা স্যারের কথা ভাবি আমার গা শিউরে ওঠে। চোখ ভিজে যায়। জাতীয় জ্ঞানকোষ বাংলা‌পি‌ডিয়ার তথ্য বলছে, ১৯৩৪ সালে জন্ম শামসুজ্জোহার। ১৯৪৮ সালে ম্যাট্রিক এবং ১৯৫০ সালে উচ্চ মাধ্য‌মিক পাস করেন। 

দেশ বিভাগের পর ১৯৫০ সালের প্রথমদিকে পূর্ব ও পশ্চিমবঙ্গে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা শুরু হলে শামসুজ্জোহা তার পরিবার নিয়ে পূর্ব বাংলায় চলে আসেন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রসায়নে বিভাগে স্নাতকে ভর্তি হন। এসময় ভাষা আন্দোলনের সাথে তিনি প্রত্যক্ষভাবে জড়িয়ে পড়েন।

১৯৫৩ সালে তি‌নি রসায়‌নে বি.এসসি (সম্মান) এবং ১৯৫৪ সালে এম.এসসি ডিগ্রি লাভ করেন। এরপর তিনি রসায়নবিদ ড. মোকাররম হোসেন খন্দকারের তত্ত্বাবধানে স্নাতকোত্তর ডিগ্রীর জন্য গবেষণা শুরু করেন। ১৯৫৫ থে‌কে ১৯৬১ এই সম‌য়ে পাকিস্তান অর্ডন্যান্স কারখানার সহযোগী কারখানা পরিচালক, সেখান থে‌কে যুক্তরাজ্যের সাউথ ওয়েলসে রয়্যাল অর্ডিনেন্স কারখানা। কিন্তু ১৯৬১ সালে রয়্যাল অর্ডিনেন্স থেকে ইস্তফা নিয়ে দেশে ফেরার সিদ্ধান্ত নিলেন।  

এরপর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ডেভেলপমেন্ট অফিসার হিসেবে যোগ দিলেন। ওই বছরই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের লেকচারার পদে যোগদান করেন। রাজশাহী‌তে অধ্যাপনাকালে তিনি বৃত্তি নিয়ে পুনরায় লন্ডন ইম্পেরিয়াল কলেজে চলে যান এবং ১৯৬৪ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিরে এসে পুনরায় অধ্যাপনা শুরু করেন। 

এরপর শুরু এক নতুন ইতিহাস। ১৯৬৫ সালে তিনি শাহ মখদুম হলের আবাসিক শিক্ষক এবং ১৯৬৬ সালে প্রাধ্যক্ষ পদে নিযুক্ত হন। ১৯৬৮ সালের ১ মে তাকে বিশ্ব‌বিদ্যাল‌য়ের প্রক্টর করা হয়।

অধ্যাপক শামসু‌জ্জোহা ছিলেন মুক্তিকামী মানুষ। ১৯৫২ সা‌লে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র থাকাকালীন ভাষা আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন। ১৯৬৮ সালের শেষ দিক থেকে আইয়ুব সরকারের বিরুদ্ধে গণআন্দোলন দানা বাঁধে।আন্দোলনের এক পর্যায়ে ১৯৬৯ সা‌লের ২০ জানুয়ারি পাকিস্তানী বাহিনী ঢাকায় ছাত্রনেতা আসাদকে হত্যা করে। ১৫ ফেব্রুয়ারি ঢাকা ক্যান্টনমেন্টে হত্যা করা হয় তথাকথিত আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামি সার্জেন্ট জহুরুল হককে। এসব ঘটনায় সারা দেশে আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে দাবানলের মতো। বাদ থাকেনি রাজশাহীও।

ছাত্রনেতা আসাদ ও সার্জেন্ট জহুরুল হক হত্যার প্রতিবাদে সারা দেশের মতো রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররাও বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। ১৭ ফেব্রুয়ারি ওই বিক্ষোভে পুলিশ হামলা চালালে বহু ছাত্র আহত হয়। সেদিন শিক্ষক সভায় শামসুজ্জোহা বলেছিলেন, আজ আমরা ছাত্রদের রক্তে রঞ্জিত। এরপর কোন গুলি হলে তা ছাত্রের গায়ে না লেগে যেন আমার লাগে। 

হয়েছিলোও তাই। ১৭ ফেব্রুয়ারির হামলার প্র‌তিবা‌দে পরদিন ১৮ ফেব্রুয়ারি রাজশাহীর ছাত্ররা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে বিক্ষোভ শুরু করে। কিন্তু সেই বি‌ক্ষোভ দমা‌তে স্থানীয় প্রশাসন বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন নাটোর-রাজশাহী মহাসড়কে ১৪৪ ধারা জারি করে। বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা সামরিক বাঁধা উপেক্ষা করে ১৪৪ ধারা ভাঙার সিদ্ধান্ত নেয়। প্রস্তুত সেনা-পুলিশও। 

খবর পে‌য়ে ড. জোহা তখুনি ছুটে গেলেন সেখানে। তি‌নি যে শুধু শিক্ষকই নন, ছাত্ররা যে সব তাঁর সন্তানের মতো। তিনি ঘটনাস্থলে গি‌য়ে সেখানকার সামরিক কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেন এবং ছাত্রদের উপর গুলি না চালানোর অনুরোধ করেন। তিনি বলেন, গুলি করলে তার বুকের উপর দিয়ে করতে হবে। কাজেই যেন গুলি যেন না হয়। 


বরিশালে বিএনপির মহাসমাবেশ আজ

বরিশালে সমাবেশের উদ্দেশে ইশরাকের বিশাল গাড়িবহর

সোনালী ও জনতা ব্যাংকের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

যে কারণে থানায় অভিযোগ করলেন সৌরভের স্ত্রী ডোনা!


ড.জোহার সেই অনুরোধ উপেক্ষা করেই সেনাবাহিনী ছাত্রদের মিছিলের উপর গুলিবর্ষণ করার সিদ্ধান্ত নেয়। সেই গু‌লি লা‌গে ড. জোহার বুকে যেমনটা তিনি বলেছিলেন, তার বুকের উপর দিয়ে গুলি করতে হবে। আর এভাবেই ছাত্র‌দের জীবন রক্ষায় শহীদ হন এক শিক্ষক। পরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে সমাহিত করা হয়। 

সেদিন যারা ঘটনাস্থলে ছিলো সেই পু‌লিশ, ছাত্র, রাজশাহীবাসী সবাই দেখ‌লো অন্য এক দৃশ্য। গুলিবিদ্ধ হওয়ার আগে ড. জোহা তাঁর ছাত্রদের উদ্দেশ্যে বলেছিলেন, আমি ‌তোমাদের  বলছি গুলিবর্ষণ হবে না। আর যদি গুলি করা হয় তবে কোন ছাত্রের গায়ে লাগার আগে আমার গায়ে লাগবে। স‌ত্যি স‌ত্যি ছাত্রদের ওপর গু‌লি শুরু হ‌লে তি‌নি বুক দিয়ে প্রতিরোধ করেন। 

ড. জোহার এই সাহসী মৃত্যু আইয়ুব বিরোধী গণআন্দোলনে নতুন মাত্রা যোগ করে। তাঁর মৃত্যুতে সমগ্র দেশে বিক্ষোভের জোয়ার প্রবাহিত হয়। আইয়ুব সরকারের মসনদ কেঁ‌পে উঠে। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ দেশের জন্য শামসুজ্জোহার সর্বোচ্চ ত্যাগের সম্মানে তাঁর নামানুসারে বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি হলের নামকরণ করে জোহা হল।  
 
অধ্যাপক শামসুজ্জোহা ছিলেন ১৯৪৭ থেকে ১৯৬৯-এর ভেতরে শহীদ হওয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম শিক্ষক। নিজের জীবন বিসর্জন দিয়ে তিনি তাঁর ছাত্রদের রক্ষার চেষ্টা করেছেন। কথাটা আমি যতোবার ভা‌বি, য‌তোবার কল্পনা ক‌রি ছাত্রদের বাঁচাতে বুক পে‌তে দি‌চ্ছেন এক শিক্ষক আমার চোখ ভিজে যায়। এই যেমন লিখ‌তে লিখতে এখন আমি কাঁদছি। 

৫২ আগে আজকের এই ১৮ ফেব্রুয়ারি এই ঘটনা ঘটেছিল। গত কয়েকবছর ধরে এই দিনে জোহা স্যারকে নিয়ে লিখছি। ভাবতেই  গা শিউরে ওঠে। আজকের যুগে ব্যতিক্রম বাদ দিলে বিশ্ব‌বিদ্যাল‌য়ের শিক্ষক মানেই যেখানে  শিক্ষার্থী‌দের স্বার্থ ভুলে সরকার-প্রশাসনের তেলবা‌জি করা, তারা একবার রাজশাহী বিশ্ব‌বিদ্যালয়ের শিক্ষক শামসুজ্জোহার নাম‌টি স্মরণ করে নিজেদের বিবেক জাগ্রত কর‌তে পারেন। 

আমার মনে হয় শুধু রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় নয়, দেশের প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শামসুজ্জোহা দিবস পালন করা উচিত। আমি এই দেশের নীতি নির্ধারক হলে আজকের দিনটা জোহা দিবস কিংবা শিক্ষক দিবস পা‌লন করতাম। আজকের এই সকালে শহীদ শামসুজ্জোহাকে স্যালুট। স্যালুট এক শিক্ষককে। আপনারা মতো শিক্ষকরা আজীবন বেঁচে থাকবেন কোটি ছাত্রের স্যার হয়ে। স্যালুট স্যার।

শরিফুল হাসান, উন্নয়ন কর্মী

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

পাঠক সবসময় নিজেকেই সবচেয়ে বেশি জ্ঞানী ভাবে

শওগাত আলী সাগর

পাঠক সবসময় নিজেকেই সবচেয়ে বেশি জ্ঞানী ভাবে

শওগাত আলী সাগর

১. সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমন অনেকেই আছেন, যাদের বক্তব্যে নতুন চিন্তার সুযোগ তৈরি হয়। অনেক কিছুকেই নতুন করে, নতুন অ্যাঙ্গেলে দেখার একটা  আগ্রহ তৈরি করে। এঁদের আমি মনোযোগের সাথে অনুসরণ করি, কখনো কখনো অনুকরণও করি। 

ভার্চুয়াল কিংবা রিয়েল, সবক্ষেত্রেই আমার মনোযোগ থাকে নতুন কিছু জানা, নতুন কিছু শেখা।যার সঙ্গ আমাকে নতুন কিছু শেখায় না, নিদেনপক্ষে আনন্দ দেয় না- সেই সঙ্গ আমাকে বেশিক্ষণ টানতে পারে না।

২. ফেসবুক নিয়ে মুশফিক ওয়াদুদ একটা পোষ্ট দিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, “আমার একটা হাইপোথিসিস হচ্ছে, স্যোসাল মিডিয়া একটিভিজম নিপীড়ক শাসকগোষ্ঠীর জন্য কোনো চ্যালেঞ্জ তৈরি করে না। বরং উপকার করে। উপকার করে এ অর্থে  যে, মানুষের ক্ষোভের ভেন্টিলেশন হয় এবং তারপর এই ক্ষোভ কিছুদিন পর হারিয়ে যায়।”

তার পরপরই মুরাদুল ইসলাম তার নিজের একটি পোষ্টে লিখেছেন, যখন ফেসবুকে কেউ কোন বিষয়ে মত দেন, তার ফ্রেন্ড লিস্টে থাকা অনেকে এই বিষয়ে সেকন্ড থট দেন। এভাবে, মত প্রকাশ, চিন্তা, আরো মত প্রকাশ ইত্যাদির মাধ্যমে সমাজের ন্যারেটিভ নির্মাণ হয়।কোন সমাজের ন্যারেটিভ বাজে হইলে বুঝতে হবে, এই সমাজে বাজে লোক বেশি এটাই না, এই সমাজে ন্যায় ন্যারেটিভে কথা বলার মত অল্প লোকও নাই “

মুশফিক এবং মুরাদুলকে আমি ফেসবুকে নিবিড়ভাবে ফলো করি। মুরাদুলের প্রতি আগ্রহ তৈরি হয়েছিলো বেশ কয়েক বছর আগে তার অণুগল্প পড়ে। মুশফিকের প্রতি আগ্রহ তৈরি হয়েছে তার ফেসবুকের পোষ্ট  পড়ে। এদের দুজনের কেউই আমার চিন্তার শতভাগ সমর্থক কিংবা আমি তাদের চিন্তার সমর্থক- বিষয়টা এমন না। কিন্তু এদের চিন্তার স্টাইল এবং দেখার চোখটা আমার পছন্দ।

৩. সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, ফেসবুক নিয়ে সারা দুনিয়ায় এখন বড় বড় গবেষণা হচ্ছে। এসব নিয়ে পশ্চিমের বড় বড় বিশ্ববিদ্যালয়ের পন্ডিতদের লেখা বইয়ে পাবলিক লাইব্রেরীর সেল্ফ ঠাসা। ফেসবুক এখন কেবল নিজের বক্তব্য দেয়ার প্লাটফরমই না,  ফেসবুক এখন পড়াশোনার, জ্ঞানার্জনের একটি সাবজেক্টও।


দেখে মনে হয়েছে বিসিএস-এর প্রশ্নপত্রের করোনা হয়েছে

বিরোধীতার রকমফের

স্কুল-কলেজ যদি ৩০ মার্চ খুলে, বিশ্ববিদ্যালয় কেন ২৪ মে?


৪. মুশফিকের  ‘স্যোসাল মিডিয়া একটিভিজম নিপীড়ক শাসকগোষ্ঠীর জন্য কোনো চ্যালেঞ্জ তৈরি করে না’ এবং মুরাদুলের ‘মত প্রকাশ, চিন্তা, আরো মত প্রকাশ ইত্যাদির মাধ্যমে সমাজের ন্যারেটিভ নির্মান হয়’- এই দুটি বক্তব্য নিয়েই আলোচনার সুযোগ আছে। আমি নিজে মনে করি, এগুলো নিয়ে আলোচনা হওয়া দরকারও।

একই সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়া আমরা আসলে কিভাবে ব্যবহার করছি- সেই আলোচনাও প্রয়োজনীয়। ব্যক্তিজীবনে আপনার বাড়ীঘর, বাড়ীর্ চারপাশ এবং আপনার মেলামেশা বা আত্মীয়তা করার ক্ষেত্রে যে বিষয়গুলো গুরুত্ব পায়, ভার্চুয়াল জগতকে সাজানোর ক্ষেত্রেও এই বিষয়গুলো মাথায় রাখা দরকার বলে আমার নিজের মনে হয়। 

৫. সোশ্যাল মিডিয়া সম্পর্কে মুশফিক এবং মুরাদুলের বক্তব্যের প্রেক্ষিতে আমার নিজের কিছু বক্তব্য আছে। সেগুলো আলাদাভাবে কখনো বলা যাবে। আপাতত সাংবাদিকতায় আমার প্রথম সম্পাদক আলম রায়হানের একটা কথা এখানে উল্লেখ করি। 

সাংবাদিকতায় প্রথম কর্মস্থল ‘সাপ্তাহিক সুগন্ধা’র সম্পাদক ছিলেন আলম রায়হান। তিনি একটা কথা প্রায়ই বলতেন, ‘শুনেন, পাঠক সবসময় নিজেকেই সবচেয়ে বেশি জ্ঞানী ভাবে। কারো লেখা যদি তার নিজের ভাবনার সাথে, চিন্তার সাথে মিলে যায়- তা হলে সেই লেখক, সাংবাদিককেও সে জ্ঞানী লোক মনে করে। নিজের চিন্তার বিপরীত হলে তাকে নানা উপাধীতে ভূষিত করে গালাগালি করে।’

আলম রায়হানের এই কথাটাই আজকাল সবচেয়ে সত্য বলে আমার কাছে মনে হয়।বিশেষ করে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

শওগাত আলী সাগর, প্রধান সম্পাদক, নতুনদেশ

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

দেখে মনে হয়েছে বিসিএস-এর প্রশ্নপত্রের করোনা হয়েছে

আব্দুন নূর তুষার

দেখে মনে হয়েছে বিসিএস-এর প্রশ্নপত্রের করোনা হয়েছে

আব্দুন নূর তুষার

বিসিএস দেশের সেরা মেধাবীদের বেছে নেয়ার পরীক্ষা। সেখানে কলাম্বিয়ার শহর Cartagena এর নাম বাংলায় লিখেছে কার্টাগেনা। ভাইরে এটার উচ্চারণ হবে কার্টাহেনা। 

কার্টাহেনা। Proper Noun যেভাবে উচ্চারিত হয় সেভাবেই লিখতে হয়। মুক্তিযুদ্ধের সময় অ্যালান গিন্সবার্গের কবিতার নাম লিখেছে September on The Jessore Road.

এই The আমদানী হলো কি করে? কবিতাটার নাম September on Jessore Road. 

ড. জিভাগো এর সঠিক বানান হলো Zhivago আর লেখকের নাম Pasternak. দুটো বানানই ভুল লেখা হয়েছে।

উপন্যাসকে নভেল বলার মধ্যে কি নভেলটি (Novelty) সেটা বুঝতে পারি নাই। মার্কিন তালিবান চুক্তির তারিখ কত এটা কি মনে রাখার জিনিষ? এটা কি পৃথিবীর ইতিহাসের কোন তাৎপর্যপূর্ণ তারিখ?

মোবাইল ফোনের বিল নিয়ে একটা অংক দিয়েছে। সবগুলি উত্তর ভুল। ৪২০ টাকার মোবাইল বিল বারোমাস/ একবছর পরে ১০% বাড়লে,১৩ তম মাসে এটা হবে । ৪২০ + ৪২ = ৪৬২ টাকা।

৬ মাস পরে এটা আরো ২০% বাড়লে এটা ১৮ মাস পরে কত হবে?


স্কুল-কলেজ যদি ৩০ মার্চ খুলে, বিশ্ববিদ্যালয় কেন ২৪ মে?

চরমোনাই মাহফিল থেকে ফেরার পথে দুই নৌকা ডুবি

রমজান মাসেও খুলা থাকবে স্কুল-কলেজ: শিক্ষামন্ত্রী

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে আগুন


৬ মাস পরে এটা যদি বাড়ে তবে বিল হবে ১৯ তম মাসে। তাই ৬ মাস পরে ২০% বাড়লেও বিল কিন্তু ১২+৬ =  ১৮ মাস শেষ হলে ৪৬২ টাকাই থাকবে। ১৯ তম মাসে এটা হবে ৪৬২+৪৬.২০  =  ৫০৮.২০

১৯ তম মাসে তো বিল কত জানতে চায় নাই। ১৮ মাস শেষ হবার পরে বিল ২০% বাড়বে। উত্তর হওয়া উচিত ৪৬২ টাকা। কিন্তু অপশন আছে ৪৬০.২০/৫৫৪.৪০/৬২০.৬০/৭৩০.৮০.

হয়তো এগুলোর মধ্যে একটা ঠিক। আমি অংকে খুবই কাঁচা। তাই এই উত্তরগুলির ব্যাখ্যা কি সেটা জানার বড় ইচ্ছা। এরকম আরো কিছু বিষয় আছে যা দেখে মনে হয়েছে বিসিএস এর প্রশ্নপত্রের করোনা হয়েছে।

এই সব প্রশ্ন কেউ মডারেট বা তদারক করে কি?

আব্দুন নূর তুষার, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব। 

(মত ভিন্ন মত বিভাগের লেখার আইনগত ও অন্যান্য দায় লেখকের নিজস্ব। এই বিভাগের কোনো লেখা সম্পাদকীয় নীতির প্রতিফলন নয়।)

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বিরোধীতার রকমফের

আশরাফুল আলম খোকন

বিরোধীতার রকমফের

কেউ যদি এজেন্ডা নিয়ে কারো বিরোধিতা করে তার সাথে যুদ্ধটা নৈতিকতার মানদন্ডে বিচার করা যাবে না। এই এজেন্ডাবাজরা রাষ্ট্র ও সমাজের শত্রু। তারা বিভিন্ন স্বার্থান্বেষী মহলের দ্বারা প্ররোচিত হয়ে দেশ বিরোধী অপকর্মে লিপ্ত হয়। এটাই তাদের পেশা, রুটি রুজির পথ। কিন্তু কেউ যদি আদর্শগত কারণে বিরোধিতা করেন তার সাথে যুদ্ধটা আদর্শিকই হওয়া উচিত। আদর্শিক যুদ্ধের মধ্যে দিয়েই রাষ্ট্র এগিয়ে যাবে। সমাজ আরও বেশি শিক্ষিত হবে। 

আবার আরেকগ্ৰুপ আছেন, যারা “সবসময় সব সরকার”এর দোষত্রুটি তুলে ধরেন। তাদের অবস্থা দেখলে মনে হবে তারা বিরোধী পক্ষের চেয়েও কট্টর। খুব শক্তভাবে কথা বলেন কারণ তাদের নৈতিকতার ভিত্তিটা অনেক শক্ত। তারা বিরোধিতা করেন আবার সরকারের ভালো কাজের পক্ষেও কথা বলেন। যা যেকোনো রাষ্ট্রের জন্যই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ কেউ বিপথে গেলে তারা সেখানে একটা ঝাকুনি দিয়ে সঠিক পথে রাখার চেষ্টা করেন। তাদেরকে রাষ্ট্রের প্রয়োজনেই দরকার। 

দেশের সবাই আপনার আমার পক্ষের হবে না। কারণ সবাই একই আদর্শের মানুষ না। বিপক্ষ গ্ৰুপ থাকবেই। এখন কে কোন কারণে বিরোধীতা করেন তা বিশ্লেষণের দাবি রাখে। সবার ক্ষেত্রে একরকমের প্রতিক্রিয়া হওয়া উচিত নয়।


স্কুল-কলেজ যদি ৩০ মার্চ খুলে, বিশ্ববিদ্যালয় কেন ২৪ মে?

চরমোনাই মাহফিল থেকে ফেরার পথে দুই নৌকা ডুবি

রমজান মাসেও খুলা থাকবে স্কুল-কলেজ: শিক্ষামন্ত্রী

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে আগুন


লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় কারা কর্তৃপক্ষের কোনো ধরনের গাফিলতি ছিল কি না, তা খুঁজে বের করে দায়ী ব্যক্তিদের চিহ্নিত করতে তদন্ত কমিটি গঠন করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। মজার বিষয় হচ্ছে, যারা জেল খানায় জাতীয় চার নেতা হত্যাকাণ্ডের সমর্থনে কথা বলেন এবং হত্যাকারীদের আদর্শকে লালন করেন তারাও এখন সোচ্চার।

(ফেসবুক থেকে)

news24bd.tv কামরুল

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

স্কুল-কলেজ যদি ৩০ মার্চ খুলে, বিশ্ববিদ্যালয় কেন ২৪ মে?

শরিফুল হাসান

স্কুল-কলেজ যদি ৩০ মার্চ খুলে, বিশ্ববিদ্যালয় কেন ২৪ মে?

৩০ মার্চ দেশের প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবে। ইতিবাচক সিদ্ধান্ত। কিন্তু আমার প্রশ্ন হলো স্কুল-কলেজ যদি ৩০ মার্চ খুলে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো কেন ২৪ মে খুলবে? 

ছোট বাচ্চাদের চেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছেলেমেয়েদের বোধ কী কম? আর উচ্চমাধ্যমিক আর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম-দ্বিতীয় বর্ষের ছেলেমেয়েদের বয়সের পার্থক্য তো ১-২ বছর। কলেজ খুললে বিশ্ববিদ্যালয় খুলতে সমস্যা কোথায়?


চরমোনাই মাহফিল থেকে ফেরার পথে দুই নৌকা ডুবি

চুয়াডাঙ্গায় নারীর রহস্যজন মৃত্যু, শাশুড়ি আটক

অতিরিক্ত পাথর বোঝাই ট্রাকের চাপে বেইলী ব্রিজ ভেঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

অন্য পুরুষের সাথে সম্পর্ক নিয়ে সন্দেহ, স্ত্রীকে খুন


কাজেই স্কুল-কলেজের মতো বিশ্ববিদ্যালয়গুলোও ৩০ মার্চ খোলার দাবি জানাচ্ছি। অন্তত হলগুলো খোলা যেতে পারে। ক্লাস দরকার হলে পরে খোলা হোক। আমার বিশ্বাস ক্লাস ১৭ মে থেকে যদি হয়, হল যদি এর আগেও খুলে দেয়া হয় অধিকাংশ ছেলেমেয়ে হলে আসবে না, গাদাগাদিও হবে না হলে। কিন্তু যাদের থাকার কোন জায়গা নেই, ঢাকায় টিউশনি করে চলতে হয়, হল খুলে দিলে তাদের অন্তত থাকার জায়গাটা হবে। এই বিবেচনাতেও হল খুলে দেয়া উচিত।

(ফেসবুক থেকে)

লেখক: শরিফুল হাসান, গণমাধ্যম ও উন্নয়ন কর্মী

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মানুষের ভালোবাসাটা এভাবেই ভালো থাক চিরকাল

অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান চৌধুরী

মানুষের ভালোবাসাটা এভাবেই ভালো থাক চিরকাল

অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান চৌধুরী

পৃথিবীতে সবাই ভালোবাসার মূল্য দিতে পারে না। কারণ ভালোবাসার মূল্য দিতে হলে একটা ভালো মন থাকতে হয়। যে মনটা স্বচ্ছ স্ফটিকের মতো হতে হয়। স্বার্থরা যখন ভালো মনকে আক্রমণ করে তখন সে ভালো মনের  স্বার্থদের সাথে জীবনবাজি রেখে লড়াই করার মতো শক্তি অর্জন করতে হয়। মানুষের তো মন থাকে। মানুষের স্বার্থও থাকে। 

তবে স্বার্থপরতা মানুষের অস্তিত্বের একটা অংশ। কোথাও কম কোথাও বেশি। এটা কি শূন্যে নামিয়ে আনা সম্ভব। মনস্তত্বের গবেষণা এটা নিয়ে ভাবতে পারে তবে সেটার সংখ্যাগত মান পরিমান করা হয়তো কঠিন। মনের ভালো মন্দ থাকলেও স্বার্থের ভালো নেই,  মন্দ আছে। যদিও ব্যাপক অর্থে বিবেচনা করলে স্বার্থেরও হয়তো ভালো একটা দিক কোনো না কোনো জায়গায় থাকে। যেমন একটা নতুন আবিষ্কারের পর বিজ্ঞানীরা বিনীতভাবে বলেন মানুষের কল্যাণের স্বার্থে আমাদের এই নতুন আবিষ্কার। তাহলে স্বার্থটা যখন নিজের না হয়ে অন্যের ভালোর জন্য হয় তখন সেটা স্বার্থ না হয়ে  ভালোবাসা হয়ে যায়। কি অদ্ভুত রূপান্তর। ভাবতেও শরীর শিহরিত হয়ে যায়।

অন্যের স্বার্থে যদি কেউ ত্যাগ করে তবে তা ভালোবাসা, নিজের স্বার্থে কেউ যদি ভোগ করে  তবে তা স্বার্থপরতা। রক্তের সম্পর্কের বাইরেও ভালোবাসা বাসা বাধে। অচিনপুরের অদেখা একটা মানুষের প্রতিও ভালোবাসা তৈরী হতে পারে। আবার যোজন যোজন দূরের দুই ভুবনের দুই বাসিন্দার মধ্যেও ভালোবাসা গড়ে উঠতে পারে। সেই মানুষটা যখন কাছে আসে তখন একটা ভালোবাসার টান মনকে আকুলি বিকুলি করে। সবটাই হয়তো কল্পনা, তারপরও মনে হয় কল্পনাটা স্বপ্নের ঘুম ভাঙিয়ে বাস্তবতাকে টেনে হেঁচড়ে এনেছে ভালোবাসার কাঙাল মানুষটার কাছে।

প্রাণের আকুলতা ও মনের ব্যাকুলতা দিয়ে যে মানুষটাকে মানুষ ভালোবাসে তার কাল্পনিক কিংবা বাস্তব উপস্থিতি মানুষের হৃদয়ের শূন্যতাকে  অপার আনন্দের ঝিকিমিকি আলোয় ভরিয়ে দেয়। চোখের পলকেই ভালোবাসার প্রার্থনায় বসে থাকা মানুষটার অসম্পূর্ণ সত্ত্বাকে ভালোবাসার আকাঙ্খিত মানুষটা  সঙ্গ দিয়ে  করে তোলে পরিপূর্ণ।  এ মানুষটিকেই প্লেটোর দর্শন নাম দিয়েছে  সোলমেট। 

সোলমেটের সান্নিধ্য কেন মানুষের  হৃদয়কে উদ্বেলিত করে তোলে। বিন্দু বিন্দু জলকণা আগুনের তীব্র দহনে যেমন বুদ্ বুদ্ করে উঠে তেমনি তা মানুষের মনে শ্রাবনের বৃষ্টি হয়ে পরিপূর্ণতার অনুভূতি জাগ্রত করে। সোলমেটকে মানুষ  কেন বেটার হাফ হিসেবে পেতে আগ্রহী হয়? এ প্রশ্নগুলোর উত্তর দর্শনতত্ত্বের ভিত্তিতে দিয়েছেন  গ্রিক দার্শনিক প্লেটো।  এই সোলমেটকে খুঁজতে গিয়ে প্লেটো  বলেছেন আরো বিচক্ষণতার সাথে আমাদের ভালোবাসতে হবে। প্লেটো মানবিক  সম্পর্কগুলোকে তাত্ত্বিকভাবে বিচার করার চেষ্টা করেছে। তার সিম্পোজিয়াম বইটিতে  ভালোবাসা আসলে কি  সেটা তিনি বুঝানোর চেষ্টা করেছেন। একটি গল্পকে উপজীব্য করে তিনি এটির  ব্যাখ্যা দিয়েছেন। প্লেটো মানবিক সম্পর্কগুলোকে তাত্ত্বিকভাবে বিচার করার চেষ্টা করেছে | তার সিম্পোজিয়াম বইটিতে ভালোবাসা আসলে কি সেটা তিনি বুঝানোর চেষ্টা করেছেন। একটি গল্পকে উপজীব্য করে তিনি এটির ব্যাখ্যা দিয়েছেন। এখানে সুদর্শন কবি আগাথনের একটি নৈশভোজের দৃশ্যের অবতারণা করা হয়েছে। মূলত আগাথন এই ভোজে বন্ধুদের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন খাওয়া, পান করা ও ভালোবাসা সম্পর্কে তাদের দৃষ্টিভঙ্গি বোঝার জন্য। মূলত আগাথন এই ভোজে বন্ধুদের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন খাওয়া, পান করা ও ভালোবাসা সম্পর্কে তাদের দৃষ্টিভঙ্গি বোঝার জন্য। 

ভালোবাসা কি সে বিষয়ে একেকজনের দৃষ্টিভঙ্গি একেকরকম ছিল। সেখানে প্লেটোর শিক্ষক সক্রেটিসের ভালোবাসা সংক্রান্ত দর্শন তত্ত্বটি অন্যদের চিন্তাধারা থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন ছিল। সক্রেটিস ভালোবাসা সমন্ধে যা বলতে চেয়েছেন তা হলো একজন মানুষ আরেকজন মানুষকে তখনই ভালোবাসে যখন সে মানুষটির মধ্যে ভালো কিছু গুণাবলী লক্ষ্য করে যা তার মধ্যে অনুপস্থিত থাকে। ভালোবাসার অন্তর্নিহিত সত্যটি  হচ্ছে সেই  মানুষটির সংস্পর্শে আসার মাধ্যমে যে মানুষটি তাকে ভালোবাসে সে  কিছুটা তার মতো হয়ে উঠতে পারে। সে মানুষটির গুণাবলী ভালোবাসার জড়তায় আক্রান্ত অপূর্ণ মানুষটির বিকাশের সম্ভাবনাকে বাস্তবে পরিণত করে।

অন্যদিকে প্লেটো ভালোবাসাকে একধরণের শিক্ষা বলেছেন। মানুষ তখনই আরেকটি মানুষকে ভালোবাসতে পারে যখন সে তার দ্বারা নিজের ঘাটতিগুলো পুষিয়ে উঠে চায় এবং ক্রমান্বয়ে নিজের বিকাশকে নিশ্চিত করতে আগ্রহী হয়। ভালোবাসা হওয়া দরকার দুটি মানুষের  একে অন্যকে সহযোগিতা করার মাধ্যমে একসাথে বেড়ে উঠার প্রচেষ্টা। এর অর্থ হচ্ছে মানুষকে এমন কোনো মানুষের কাছাকাছি আসতে হবে যে কিনা তার বিবর্তন  বা পরিবর্তনের জন্য প্রয়োজন অনুপস্থিত অংশটিকে ধারণ করে। যেমন একজন মানুষের নতুন ধারণা তৈরির সক্ষমতা আছে কিন্তু সেটি আরেকজন মানুষের মধ্যে নেই। যে মানুষটির নতুন ধারণা তৈরির গুণাবলী নেই সে মানুষটি যে মানুষটির এই গুণাবলী আছে  তাকে ভালোবেসে বা তার সান্নিধ্যে এসে এই গুণাবলীটি অর্জনের চেষ্টা করবে।


নাসিরের স্ত্রীকে ‘জাতীয় ভাবী’ আখ্যা দিয়ে সুবাহ'র স্ট্যাটাস

বিএনপির সমাবেশ ঘিরে খুলনায় পরিবহন চলাচল বন্ধ

১৩৮ বছরের পুরনো পরিত্যক্ত আদালত ভবনে চলে বিচার কাজ

নাইজেরিয়ায় হোস্টেল থেকে কয়েকশ ছাত্রীকে অপহরণ


আবার যে মানুষটির জীবনবোধ নেই, সে মানুষটি যে মানুষটির জীবনবোধ আছে তাকে ভালোবেসে তার জীবনবোধের ঘাটতি পূরণের প্রচেষ্টা চালাবে। এমন অসংখ্য উদাহরণ দেওয়া যেতে পারে। তবে সব মানুষ সব বিষয়ে পূর্ণতা অর্জন করতে পারেনা। এই সীমাবদ্ধতার জায়গাটিতে এসে মানুষ তার প্রয়োজনের পরস্পর পরস্পরকে ভালোবেসে ও সাহচর্যে এসে নিজেদের মধ্যকার অনুপস্থিত গুণাবলীকে অর্জনের চেষ্টা চালিয়ে পরস্পরের উন্নতি সাধনে ভূমিকা রাখবে। প্লেটো সম্পর্কে জড়ানোর ক্ষেত্রে সহনশীল হবার কথা বলেছেন। যেখানে অহংকার ও আগ্রাসী মনোভাব পরিত্যাগ করাকে উপযুক্ত উপাদান হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে। কোনো মানুষই সম্পূর্ণ নয়। যে মানুষটাকে মানুষ ভালোবাসবে তার কাছ থেকে শেখার মতো একটা সৃজনশীল মন থাকতে হবে। সেটা থাকলে  মানুষ তার অপূর্ণতাকে পূরণ করতে সক্ষম হবে। 

মানুষ ভালোবাসার মানুষটির কাছ থেকে শিখতে শিখতে একদিন তার সেরা সংস্করণে পরিণত হবে। এটি সহজে অর্জিত হবেনা বরং ভালোবাসার মানুষটির সাথে প্রতিযোগিতায় অবতীর্ণ হয়ে তা অর্জন করতে হবে। এ যাত্রাপথ খুব জটিল ও বিপদসংকুল। তবে তা অসাধ্য নয়। মানুষ মানুষকে ভালোবাসবে মানুষের প্রয়োজনে।  মানুষ মানুষকে ভালোবাসবে মানুষের নিজের  প্রয়োজনে।  সক্রেটিস ও প্লেটোর ভালোবাসার দর্শনেও তাই স্বার্থের পায়ের আওয়াজ পাওয়া যায়। তবে সে স্বার্থের ভিতরে নিঃস্বার্থ শক্তি  হচ্ছে ভালোবাসার উদার মানুষটি। যে জানেনা তাকে যে ভালোবেসেছে সে ভালোবাসার অন্তরালে তার কোনো কোনো ভালো গুনকে চুরি করে নিচ্ছে।

মানুষ যদি মানুষকে ভালোবেসে তার কাছ থেকে শিখতে পারে তবে তা দোষের কিছু নয়। বরং তা অনেক মহত্বের। তবে অসম্পূর্ণ মানুষটি যখন সব শিখে গিয়ে সম্পূর্ণ হয়ে উঠে তখন যদি সে ভালোবাসার মানুষটিকে আঘাত দেয় তখন সে ভালোবাসার আর মূল্য থাকেনা। ভালোবাসায় কৃতজ্ঞতা থাকতে হয়। ভালোবাসায় প্রতিদান থাকতে হয়। কাটার সাথে ফুল থাকতে হয়। ফুলের সাথে ফুলের সুগন্ধ থাকতে হয়। 

ভালোবাসাকে ঘাতকেরা যতবার আঘাত করে ভালোবাসা তত মৃত্যুঞ্জয়ী হয়ে উঠে। প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ বলেছেন, বাস্তবতা এতই কঠিন যে কখনও কখনও বুকের ভিতর গড়ে তোলা বিন্দু বিন্দু ভালবাসাও অসহায় হয়ে পড়ে। যেমন অসহায় হয় সময়। যেমন অসহায় হয় প্রকৃতি। যেমন অসহায় হয় মানুষ। তবুও দর্শন, মনস্তত্ব, বিজ্ঞান, অর্থনীতি সব পরীক্ষায় জিততে জিততে ভালোবাসা শক্ত শেকড়ের উপর মেরুদন্ড শক্ত করে দাঁড়াক।

মা আর প্রেয়সীর বাস্তবতার টানাপোড়েন ভালোবাসার শক্তির  কাছে পরাভূত হোক। ভোগবাদী চরিত্র ভালোবাসার শক্তিতে ত্যাগের কাছে আত্মসমর্পণ করুক। সূর্যের আলো ভালোবাসার শক্তিতে নেমে আসুক পৃথিবীতে। মাটির গন্ধে সে সূর্যের আলো  মোহিত হয়ে মানুষের অন্তরে ঢেলে দিক অলৌকিক চিন্তার আনন্দ। যে চিন্তার আনন্দ ভালোবাসা হয়ে মানুষকে আবার মানুষ করে তুলবে। নগরের ইট পাথর ভেঙে গড়ে তুলবে  ভালোবাসার এক মাটির পৃথিবী। যার জন্ম আছে মৃত্যু নেই। মানুষের ভালোবাসাটা এভাবেই ভালো থাক চিরকাল।

লেখক: সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিস্ট

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর