লাউয়ের ডাল রান্নার রেসিপি

অনলাইন ডেস্ক

লাউয়ের ডাল রান্নার রেসিপি

লাউ আমাদের দেশের একটি জনপ্রিয় সবজি যা অনেকের কাছেই প্রিয় একটি খাবার। লাউ সাধারণত শীতকালে বসতবাড়ির আশপাশে চাষ হয় তবে এখন প্রায় সারা বছরই লাউ চাষ করা হয়। লাউ একই সঙ্গে সুস্বাদু এবং পুষ্টিকর একটি সবজি।

কারণ লাউয়ে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন, গুরুত্বপূর্ণ খনিজ উপাদান ও পানি থাকার পাশাপাশি এতে উপকারি ফাইবার থাকে। লাউ মাছের তরকারি হিসেবে, লাবড়া, নিরামিষ, ভাজি, বড়া কিংবা সালাদ হিসেবেও খাওয়া যায়।

উপকরণ: মুগ ডাল ১ কাপ। লাউ ছোট টুকরা করা ২ কাপ। টমেটো কুচি আধা কাপ। হলুদ ও মরিচ গুঁড়া আধা চা-চামচ করে। কাঁচা-মরিচ ৪টি। পেঁয়াজ-কুচি ৩ টেবিল-চামচ। রসুন-কুচি ২ টেবিল-চামচ। শুকনা মরিচ কয়েকটা। ধনেপাতা কুচি পরিমাণ মতো। টালা জিরা-গুঁড়া ১ চা-চামচ। পানি ৫ কাপ। লবণ স্বাদ মতো। তেল পরিমাণ মতো।


বরিশালে বিএনপির মহাসমাবেশ আজ

বরিশালে সমাবেশের উদ্দেশে ইশরাকের বিশাল গাড়িবহর

সোনালী ও জনতা ব্যাংকের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

যে কারণে থানায় অভিযোগ করলেন সৌরভের স্ত্রী ডোনা!


পদ্ধতি: মুগ ডাল প্যানে হালকা ভেজে নিন। একটি পাত্রে পানি দিয়ে আঁচে বসান।

ফুটতে শুরু করলে ভাজা ডাল, মরিচ, হলুদ ও লবণ দিন। আধা সিদ্ধ হলে লাউ ও কাঁচামরিচ দিয়ে দিন। লাউ সেদ্ধ হয়ে এলে টমেটো দিয়ে নেড়ে দিন। কিছুক্ষণ পর জিরার গুঁড়া ও ধনেপাতা কুচি দিয়ে নামিয়ে রাখুন।

ফ্রাইপ্যানে তেল গরম করে প্রথমে পেঁয়াজ-কুচি দিয়ে হালকা ভেজে শুকনা মরিচ ও রসুন কুচি দিয়ে ভেজে নিন। পেঁয়াজ ও রসুন বাদামি করে ভাজা হলে তা লাউ-ডালে ঢেলে দিন।

মৃদু আঁচে এক মিনিট রেখে নামিয়ে পরিবেশন বাটিতে ঢেলে গরম ভাত বা রুটির সঙ্গে পরিবেশন করুন।

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

পাবদা মাছের ঝোল

অনলাইন ডেস্ক

পাবদা মাছের ঝোল

পাবদা একটি খাল বিলের দেশিয় মাছ। এই মাছ খেতে প্রচুর স্বাদ। পাবদা মাছের ঝোল খুবই জনপ্রিয় একটি খাবার। ভোজনরসিক বাঙ্গালিদের ফচন্দের তালিকায় মাছ সব সময়ই বেশি প্রিয়। আজ আমাদের রেসিপিতে থাকছে পাবদা মাছের ঝোল। 

উপকরণ : পাবদা মাছ ৩০০ গ্রাম, পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ, পেঁয়াজ বাটা ২ টেবিল চামচ, রসুন বাটা ১ চা চামচ, আদা বাটা আধা চা চামচ, লাল মরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, হলুদ গুঁড়া ১ চা চামচ, লবণ স্বাদ অনুযায়ী, আস্ত কাঁচামরিচ ৪-৫টি, ধনে পাতা কুচি ২ টেবিল চামচ, ১টি আলু পাতলা, লম্বা করে কাটা, তেল পরিমাণমতো।


সাই পল্লবীর ফাঁস হওয়া ভিডিও ভাইরাল (ভিডিও)

আনুশকাকে ধর্ষণের পর হত্যা দিহানের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন পেছাল

ডিভোর্সের গুঞ্জনের মধ্যেই নতুন প্রেমে জড়ালেন শ্রাবন্তী!

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন স্থগিতের আহ্বান জাতিসংঘের


প্রস্তুত প্রণালি : কড়াইয়ে তেল গরম করে তাতে কুচি করা পেঁয়াজ ও ফালি করা কাঁচামরিচ হালকা করে ভেজে নিয়ে বাটা ও গুঁড়া মসলা এবং স্বাদ অনুযায়ী লবণ ও পরিমাণমতো পানি দিয়ে মসলা ভালো করে কষিয়ে আলুর টুকরা দিয়ে আবার কিছুক্ষণ রান্না করে তার ওপর পাবদা মাছ সাজিয়ে ধনে পাতা কুচি দিয়ে কিছুক্ষণ চুলায় রেখে রান্না করে নামিয়ে একটি সার্ভিং প্লেটে সাজিয়ে পরিবেশন করুন পাবদা মাছের ঝোল।

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

তাওয়া পোলাও রান্না

অনলাইন ডেস্ক

তাওয়া পোলাও রান্না

সপ্তাহে একদিন অত্যন্ত পোলাও খেতে ভালো লাগে সবার। কিন্ত সবসময় একই পোলাও খেতে খেতে অনেকেই ক্লান্ত হয়ে যান। তারা চাইলেই একটু 

ভিন্ন স্বাদের তাওয়া পোলাও রান্না শিখব আজকে। তাওয়া পোলাও রান্নার উপকরণ:

১। বাসমতী চাল- ১ কাপ,

২। পেঁয়াজ কুঁচি- বড় ১ টি,

৩। টমেটো কুঁচি- ২ টি,

৪। ক্যাপসিকাম কুঁচি- ১ টি,

৫। সবুজ মটর- ১ কাপ,

৬। কাঁচামরিচ কুঁচি- ১ টি,

৭। পাওভাঁজি মশলা ( যে কোনো বড় সুপার স্টোরে পাবেন),

৮। লবণ- স্বাদমত, চিনি- ১/২ চা চামচ, মাখন- ৪ টেবিল চামচ, ধনেপাতা কুঁচি

৯। মরিচ ও রসুন পেস্ট-এর জন্য: লাল শুকনো মরিচ- ৪০ টি, রসুন- ২০ টি, লবণ- ৩ টেবিল চামচ

প্রণালী: চুলোয় ২ কাপ পানি সিদ্ধ করে নিন। একটি বোলে মরিচ নিয়ে তাতে সিদ্ধ পানি দিয়ে রেখে দিন ১০ মিনিটের জন্য। এবার পানি ঝরিয়ে নিন। এরপর ব্লেন্ডারে মরিচ ও রসুন একসাথে নিয়ে ব্লেন্ড করে নিন। প্রয়োজনমত পানি দিন মিহি পেস্ট তৈরি করার জন্য। হয়ে গেলে একটি বাটিতে নিয়ে তাতে লবণ মিশিয়ে নিন। ফ্রিজে রেখে দিলে এটি অনেকদিন ব্যবহার করতে পারবেন।


গুলি ছুড়ে ইয়েমেনের ক্ষেপণাস্ত্র আকাশেই ধ্বংস করেছে সৌদি

জানা গেল আসল রহস্য, ১৩-১৪ বছরের দুই বোনের সঙ্গেই শরীরিক মেলামেশা ছিল তার

আবাহনীকে ৪-১ গোলে উড়িয়ে দিল বসুন্ধরা কিংস

৬৬ নারীকে ধর্ষণ


তাওয়া পোলাও রান্না করতে:
বাসমতী চাল ধুয়ে ৩০ মিনিট পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। তারপর চাল রান্না করে নিন। রান্না করার সময় অল্প লবণ দিয়ে নিবেন। খেয়াল রাখবেন যাতে ভাত ঝরঝরে হয়। হয়ে যাওয়ার পর নামিয়ে এক পাশে রেখে ঠাণ্ডা হতে দিন।

একটি তাওয়ায় বাটার দিয়ে নিন। চিলি-গারলিক পেস্ট দিয়ে দিন। কিছুক্ষণ রান্না করুন। তারপর পেঁয়াজ কুঁচি, কাঁচামরিচ কুঁচি, টমেটো দিয়ে দিন। সব একসাথে মিক্স করে রান্না করতে থাকুন।

লবণ ও চিনি দিয়ে দিন। পাওভাঁজি মশলা দিয়ে দিন। মটর ও ক্যাপসিকাম দিয়ে ভালো করে নাড়াচাড়া দিয়ে দিন। সব শেষে রান্না করা ভাত দিয়ে দিন। ৫-৮ মিনিট রান্না করুন।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

চিতল মাছের মুইঠ্যা রেসিপি

অনলাইন ডেস্ক

চিতল মাছের মুইঠ্যা রেসিপি

চিতল একটি সুস্বাদু মাছ। চিতল মাছের ঝোল বেশ জনপ্রিয় মাছ প্রেমি মানুষের কাছে। চিতল মাছেরে নতুন একটি রেসিপি ’চিতল মাছের মুইঠ্যা’। এই মাছটি খেতে অনেকেই পছন্দ করেন বেশ। 

অন্যান্য মাছের মতো চিতলও বেশ সুস্বাদু একটি মাছ। এতে কাঁটার পরিমাণ বেশি থাকার কারণে অনেকেই এটি খেতে অপছন্দ করেন, বিশেষ করে বাচ্চারা। তবে এই মাছের স্বাস্থ্য উপকারিতা অনেকগুণ বেশি। প্রত্যেক মাছ প্রেমী মানুষের কাছে ইলিশ, চিংড়ি, রুই-কাতলা মাছের মতো চিতলও বেশ পছন্দের ও প্রথম সারির মাছ।

উপকরণ:
কাঁটা বার করা চিতল মাছ - ৫০০ গ্রাম

সেদ্ধ আলু - ৩টে মাঝারি সাইজের

৪টে কাঁচালঙ্কা চেরা

এক চা চামচ কাশ্মীরি লঙ্কা গুঁড়ো

হলুদ গুঁড়ো পরিমাণমতো

পেঁয়াজ বাটা এক কাপ

জিরে বাটা - ১ টেবিল চামচ

ধনে গুঁড়ো - ১ চা চামচ

গরম মশলা গুঁড়ো - ১ চা চামচ

আদা বাটা - দেড় টেবিল চামচ

রসুন বাটা - ১ টেবিল চামচ

টমেটো কুচোনো - ১টা

তেজপাতা - ২টো

চিনি ও নুন স্বাদমতো

রান্নার জন্য সর্ষের তেল


ঋণ থেকে মুক্তির দু’টি দোয়া

মেসি ম্যাজিকে সহজেই জিতল বার্সা

দোয়া কবুলের উত্তম সময়

প্রবাসী স্বামীকে তালাক দিয়ে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন!


তৈরির পদ্ধতি:

১) প্রথমেই কড়াইতে জল গরম করতে বসিয়ে দিন।

২) জল গরম হতে হতে আপনি কাঁটা বার করা চিতল মাছের সঙ্গে পরিমানমতো পেঁয়াজ বাটা, আদা বাটা, রসুন বাটা, জিরে বাটা, ধনে গুঁড়ো, শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো, নুন, একটু চিনি ও সেদ্ধ করা আলু নিয়ে সমস্ত উপকরণগুলো ভালো করে মাখিয়ে নিন। খেয়াল রাখবেন আলু যাতে গোটা গোটা না থেকে যায়।

৩) হাতে একটু সরষের তেল মাখিয়ে মিশ্রণটিকে মুঠোর সাহায্যে গোল গোল লেচি বানিয়ে নিন। সরষের তেল দেওয়ার কারণ, মিশ্রণটি যাতে হাতে জড়িয়ে না যায়।

৪) এবার ফুটতে থাকা গরম জলে লেচিগুলো দিয়ে দিন সেদ্ধ করার জন্য। ৭-১০ মিনিট চাপা দিয়ে রেখে দিলে সেদ্ধ হয়ে যাবে মাছের লেচিগুলো।

৫) এরপর সেগুলো একটি পাত্রে তুলে রাখুন।

৬) এবার কড়াইয়ে তেল গরম করুন। গরম হওয়া তেলে সেদ্ধ হয়ে যাওয়া লেচিগুলো ভালো করে ভেজে তুলে নিন। তবে খুব কড়া করে ভাজবেন না।

৭) এরপর সেই তেলেই পেঁয়াজ বাটা ও টমেটো কুচোনো দিয়ে অল্প একটু ভেজে নিন।

৮) এবার আদা বাটা, রসুন বাটা, তেজ পাতা, জিরে বাটা, ধনে গুঁড়ো, কাঁচালঙ্কা চেরা, কাশ্মীরি লঙ্কা গুঁড়ো, হলুদ গুঁড়ো, দিয়ে কষতে থাকুন মশলা।

৯) কষে এলে অল্প জল দিয়ে ভেজে রাখা মাছের লেচিগুলো দিয়ে দিন। গ্রেভি খানিকক্ষণ ফুটে গেলে উপর থেকে গরম মশলা ছড়িয়ে দিন। ব্যস, তৈরি আপনার চিতল মাছের মুইঠ্যা।

news24bd.tv/আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

খাসির রেজালা রেসিপি

অনলাইন ডেস্ক

খাসির রেজালা রেসিপি

খাসির মাংসের স্বাদ অন্যরকম। খাসির রেজালা কথাটা শুনলেই জিভে জল এসে যায়। আমাদের দেশে এক রকম, আবার অন্য দেশে আরেক রকম রান্না করে। এ দেশের রাজা বা নবাবদের জন্য এক স্টাইলে রান্না করা হত। আর রেস্টুরেন্টে অন্য স্টাইলে রান্না করা হয়। তাই আজকে দেখে নিন, বাদশাহী এবং রেস্টুরেন্টে কিভাবে ভিন্ন স্বাদে খাসির রেজালা রান্না করে। রেস্টুরেন্টের স্বাদে খাসির রেজালা রান্নার রেসিপি।  

উপকরণ: লবন, আদা, পিয়াজ, মরিচ, হলুদ, গোল মরিচ, তেজপাতা, খাসির মাংস, দারুচিনি, লবঙ্গ, টক দই ইত্যাদি। 

প্রাণালী: দেড় কেজি খাসির মাংস জন্য স্বাদ মতো লবন, ২ টেবিল চামচ আদা বাটা, ১ টেবিল চামচ রসুন বাটা, ১ চা চামচ মরিচের গুঁড়ো, ২ চা চামচ হলুদের গুঁড়ো, ২ টি তেজপাতা , সাদা গোল মরিচের গুঁড়ো ১ চা চামচ , সাহি জিরার গুঁড়ো এক চিমটি, দারুচিনি ২ টুকরা, ৪টি লবঙ্গ, ১/৩ কাপ তেল, ২ কাপ পেয়াজ কুঁচি এবং এলাচ ২ থেকে ৩টি  দিয়ে মাংস মাখাতে হবে। 


মহাসমাবেশে যোগ দিতে খুলনায় ইশরাক, পথে বাধার অভিযোগ

ইহুদিদের উৎসব উপলক্ষে ইব্রাহিমি মসজিদের আজানে ইসরায়েলের নিষেধাজ্ঞা

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে সন্ধ্যায় বৈঠকে বসবে ৬ মন্ত্রণালয়

নির্বাচনি পরিবেশ নষ্ট করে অতি উৎসাহী প্রার্থী ও নেতারা: ইসি শাহাদাত


এবার এর সঙ্গে ১ কাপ পানি দিয়ে ঢেকে আধ ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হবে। তারপর ১ চা চামচ গরম মসলার গুঁড়া, ১ চা চামচ জয়ফলের গুঁড়া, ১ চা চামচ জয়ত্রীর গুঁড়া দিয়ে ভালো ভাবে মিশিয়ে দিবেন। আরও দিতে হবে ৩ টেবিল চামচের মতো টক দই। ২ থেকে ৩ মিনিট পর কেউড়া জল দিতে হবে ১ চা চামচ এবং সঙ্গে ১ কাপ পানি দিয়ে ৫ মিনিটের জন্য ঢেকে দিবেন। 

৬ থেকে ৭ টি কাঁচা মরিচ, ১ টেবিল চামচের মতো মাখন, দেড় টেবিল চামচ মাওয়া, দেড় টেবিল চামচ গুড়া দুধ, এক চা চামচ ঘি দিয়ে ভালো ভাবে মিশিয়ে দিবেন। চুলার আঁচ এক দম কমিয়ে আরও ৫ থেকে ৬ মিনিট রান্না করতে হবে। এ ভাবেই তৈরি হয়ে যাবে রেস্টুরেন্টের স্টাইলে খাসির রেজালা। 

খাসির রেজালা রান্নার এই পদ্ধতি খুবই সহজ। এবার সুন্দর একটি পাত্রে পরিবেশন করুন। 

news24bd.tv/আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

চটপটি রেসিপি

অনলাইন ডেস্ক

চটপটি রেসিপি

চটপটি খেতে কার না ভালো লাগে। কিন্তু ইয়াম্মি চটপটি খেতে সবসময়ই কি বাইরে যাওয়া যায়? রাস্তার পাশের চটপটির ভ্যান থেকে খাওয়ার মজা অন্যরকম হলেও স্বাস্থ্যের জন্য যে তা ভালো না জানি সবাই। কিন্তু জিভকে সামাল দেয়া যে দুষ্কর! তবে এই মজার খাবারটির রেসিপি জানা থাকলে কিন্তু মন্দ হয় না! চটপটি খাওয়ার ক্রেভিং হলে চট করে যেন নিজেই বানিয়ে খেতে পারেন তার জন্যই আজকে সবচেয়ে সহজ করে ঘরে বানানো চটপটি রেসিপি দেয়া হলো। তাহলে বানিয়ে ফেলুন দারুণ ইয়াম্মি চটপটি!

ঘরে বানানো চটপটি যেভাবে করতে হয়
উপকরণ
ডাবলি বুট- ২ কাপ
আলু মাঝারি সাইজের- ২-৩ টা
পেঁয়াজ কুঁচি- ১/২ কাপ
মরিচ গুঁড়া- ১/২ চা চামচ
জিরা গুঁড়া- ২ চা চামচ
ধনিয়া গুঁড়া- ১.৫ চা চামচ
বেকিং সোডা- ১ চা চামচ
লবণ- স্বাদমতো
সয়াবিন তেল- ২ টেবিল চামচ
পাকা তেঁতুল- ১/২ কাপ
শুকনামরিচ- ২ টা
ভাজা জিরা গুঁড়া- ১/২ চা চামচ
বিট লবণ- ১ চা চামচ
লবণ- স্বাদমতো
চিনি- স্বাদমতো
সরিষার তেল- ২ চা চামচ
পানি- প্রয়োজন মত
সিদ্ধ ডিমের ঝুরি- ১ কাপ
শসা কুঁচি- ১ কাপ
ধনিয়া পাতা কুঁচি- ১ কাপ
কাঁচা মরিচ কুঁচি- ১/২ কাপ
পেঁয়াজ কুঁচি- ১/২ কাপ
নিমকি- পছন্দমতো


হাতে নেই ছবি, তবুও বিলাসবহুল জীবনযাপন?

হৃদরোগে মৃত্যুর পরও ফাঁসিতে ঝুলানো হল নিথর দেহ

টিকা নেয়ার ১২ দিন পর করোনায় আক্রান্ত ত্রাণ সচিব

যমজ ভাই অস্ত্রোপচার করে পরিণত হলেন যমজ বোনে


প্রণালী:

(১) প্রথমে ডাবলি বুট একটি বড় বাটিতে নিয়ে বেশি করে পানি দিয়ে ৫-৬ ঘন্টা ভিজিয়ে রাখতে হবে। ডিম ও আলু ভালোভাবে সিদ্ধ করে আলু ছিলে হাত দিয়ে ভেঙ্গে ছোটছোট দানা করে রেখে দিতে হবে। আলু শুধু ভেঙ্গে দিবেন, পেস্ট করবেন না।

(২) ডাবলি বুট ভেজানো হলে ভালোভাবে ধুয়ে একটি বড় পাত্রে নিয়ে এর সাথে পেঁয়াজ কুচি, মরিচগুঁড়া, জিরা, ধনিয়া, বেকিং সোডা, লবণ, তেল ও প্রয়োজনমতো পানি দিয়ে সিদ্ধ করতে হবে। চাইলে প্রেশার কুকার-এ সিদ্ধ করে নিতে পারেন, তাড়াতাড়ি হবে।

(৩) ডাল সিদ্ধ হলে তারপর হলুদ দিতে হবে, আর সিদ্ধ করে ভেঙ্গে রাখা আলুগুলোও এখন দিয়ে নেড়ে দিন। ডালের পানি পছন্দমতো ঘন হয়ে এলে লবণ দেখে (লাগলে দিয়ে) নামিয়ে ফেলুন । চটপটির জন্য ডাল রেডি, এবার তেতুলের টক তৈরির পালা।

(৪) এখন তেঁতুলগুলো ১ কাপ পানিতে ভিজিয়ে রেখে হাত দিয়ে কচলে তেঁতুলের ক্বাথ বের করে নিতে হবে। তেঁতুলগুলো নরম হয়ে পানিতে মিশে গেলে তেঁতুলের বীচি ও আঁশ বেছে ফেলে দিয়ে তারপর ছেঁকে নিতে হবে। এবার টক তৈরির জন্য তেঁতুলের ক্বাথ রেডি।

(৫) এবার একটি পাত্রে তেল গরম করে শুকনা মরিচ ছিড়ে কুঁচি করে তেলে দিয়ে ভাজতে হবে। মরিচ পুড়িয়ে ফেলবেন না, ভাজা হলে জিরা গুড়া দিয়ে তেঁতুলের ক্বাথ দিয়ে নাড়তে থাকুন।

(৬) এরপর এতে বিট লবণ, লবণ ও চিনি দিয়ে নাড়তে থাকুন। চটপটির জন্য যে তেঁতুলের টক বানানো হয় তা একটু ঘন হয় আর ফুচকার টক একটু পাতলা হয়। আপনি আপনার প্রয়োজন মত পানি মিশিয়ে পাতলা বা ঘন তেঁতুলের টক তৈরি করতে পারেন। টেষ্ট করে দেখুন, লবণ বা চিনি লাগলে দিন। ২-৩ মিনিট পরেই নামিয়ে ফেলুন, সহজেই তৈরি হয়ে গেল তেঁতুলের টক। এবার আপনি চটপটি পরিবেশনের জন্য রেডি।

পরিবেশন:
একটি পরিবেশন পাত্রে প্রথমে ডালের মিশ্রণ নিয়ে তার উপর ধনিয়া পাতা কুঁচি, কাঁচা মরিচ কুঁচি, পেঁয়াজ কুঁচি, শসা কুঁচি, সিদ্ধ ডিমের ঝুরি এবং সবশেষে ফুচকার ঠোসা বা নিমকপারা ভেঙ্গে দিয়ে তেঁতুলের টকের সাথে পরিবেশন করুন দারুণ মজার চটপটি।

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর