হাতে নেই ছবি, তবুও কারিশমার বিলাসবহুল জীবনযাপন?

অনলাইন ডেস্ক

হাতে নেই ছবি, তবুও কারিশমার বিলাসবহুল জীবনযাপন?

কারিশমা কাপুর

কারিশমা কাপুর, নব্বইয়ের দশকে রুপালি পর্দা কাঁপানো নায়িকা তিনি। কাপুর পরিবারের সদস্য হিসেবে তিনি অভিনেতা রণধীর কাপুর এবং ববিতার প্রথম কন্যা।

কাপুর পরিবারে বৌ এবং মেয়েদের অভিনয় জগতে আসার উপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। কিন্তু মা ববিতার হাত ধরে সেই নিষেধাজ্ঞা উড়িয়ে অভিনয় জগতে পা রাখেন কারিশমা।

অভিনয় দিয়ে তিনি নিজেকে প্রমাণও করেন। তিনি ১৯৯১ সালে, সতের বছর বয়সে অভিনয়ে আত্মপ্রকাশ ঘটান ভারত ভূষণের বিপরীতে প্রেম কয়েদি চলচ্চিত্রের মাধ্যমে।

পরবর্তীকালে তিনি বিভিন্ন বাণিজ্যিকভাবে সফল চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন, এর মধ্যে রয়েছে, জিগর (১৯৯২), আনাড়ি (১৯৯৩), রাজা বাবু (১৯৯৪), সুহাগ (১৯৯৪), কুলি ন. ১, গোপী কিষাণ (১৯৯৪), সাজান চালে শাশুড়াল (১৯৯৬) এবং জীত (১৯৯৬)।

১৯৯৬ সালে, কাপুর তার সর্বাধিক বাণিজ্যিক সাফল্য রাজা হিন্দুস্তানী চলচ্চিত্রের জন্যে প্রথম শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর ফিল্মফেয়ার পুরস্কার অর্জন করেন, এবং পরবর্তীতে দিল তো পাগল হ্যায় (১৯৯৭) রোমান্টিক নাট্য চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্যে শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রীর জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন। তিনি সমালোচকদের দ্বারা বহুল প্রশংসিত হন ফিজা (২০০০) চলচ্চিত্রে কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয়ের জন্যে এবং জুবেইদা (২০০১) চলচ্চিত্রের জন্যে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী এবং শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী (সমালোচক) ফিল্মফেয়ার পুরস্কার অর্জন করেন। ফলে, কাপুর হিন্দি চলচ্চিত্রের একজন নেতৃস্থানীয় অভিনেত্রী হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। তাকে বলিউডের সবচেয়ে সুন্দর নারী হিসেবেও বিবেচনা করা হয়।

সোজা বাংলায় এই তারকা-কন্যা চূড়ান্ত সফল হন পেশাগত জীবনে। সাফল্যের একেবারে শীর্ষে থাকার সময়ই তিনি ব্যবসায়ী সঞ্জয় কাপুরকে ২০০৩ সালে বিয়ে করেন।

তার পর সংসার নিয়ে এতটাই ব্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন যে, অভিনয় থেকে বিরতি নিয়ে নেন। পরে নতুন করে অভিনয় জগতে ফিরতে চাইলেও দর্শক তাঁকে আর আগের মতো পছন্দ করেননি।

মূলত কোনও ছবিই তাঁর হাতে এখন নেই। অন্য দিকে ২০১৬ সালে স্বামী সঞ্জয় কাপুরের সঙ্গেও তাঁর বিচ্ছেদ হয়ে যায়। তার পর থেকে ২ সন্তানকে একাই বড় করে তুলছেন কারিশমা।

তারকাদের মানানসই পোশাক, খাবার, ছেলে মেয়েদের স্কুল এবং টিউশন খরচ-কোনও কিছুর সঙ্গেই আপস করতে হয়নি তাঁকে। আগের মতোই বিলাসিতাকে সঙ্গী করে জীবন কাটাচ্ছেন তিনি।

বিলাসবহুল জীবন কাটানোর জন্য বড় অঙ্কের উপার্জনের প্রয়োজন। অথচ খরচ বহন করার জন্য কোনও ছবিই তাঁর হাতে নেই। তাহলে কী ভাবে এই বিশাল খরচের ভার কারিশমা বহন করছেন?

এমনিতেই কাপুর পরিবারের বৈভব নিয়ে আলাদা করে কিছু বলার নেই। মা ববিতা এবং বাবা রণধীর কাপুরের যথেষ্ট সম্পত্তি রয়েছে। যা কারিশমা এবং কারিনা, ২ বোনের মধ্যেই ভাগ হবে পরবর্তীকালে।

তার উপর ২০১৬ সালে স্বামী সঞ্জয়ের সঙ্গে বিচ্ছেদের পর ভরনপোষণের মামলা করেছিলেন কারিশমা। ২ ছেলেমেয়ের জন্য সঞ্জয়কে আলাদা করে ১৪ কোটি টাকা দিতে হয়েছিল।

এ ছাড়া কারিশমার থাকা-খাওয়ার খরচ হিসাবে প্রতি মাসে ১০ লাখ টাকা করে সঞ্জয়কে দিতে হয়।

এ ছাড়া কারিশমা নিজেকে সব সময় কাজের মধ্যে ব্যস্ত রাখেন। কারিশমা অভিনয় জগতে সক্রিয় না থাকলেও বোন করিনার থেকেও তাঁর ব্যস্ততা অনেক বেশি। একটি শো-য়ে করিনা নিজেই এ কথা জানিয়েছিলেন।

কারিশমা আসলে বিভিন্ন সংস্থার সঙ্গে যুক্ত। সেই সমস্ত সংস্থার বিজ্ঞাপনী প্রচারের মুখ কারিশমাই। সেখান থেকেও বড় অঙ্কের টাকা প্রতি মাসে অ্যাকাউন্টে চলে আসে তাঁর।


ক্রাইস্টচার্চে পৌঁছেছে টাইগাররা

স্পেনে ঢুকতে অভিবাসীর অভিনব পন্থা

গোয়েন্দাদের ব্যর্থতাতেই ক্যাপিটলে হামলা

মিয়ানমারের ১০৮৬ নাগরিককে ফেরত পাঠালো মালয়েশিয়া


এছাড়া জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক মঞ্চে বিভিন্ন ডিজাইনারের হয়ে র‍্যাম্প ওয়াক করেন তিনি। এই কাজেও বড় অঙ্কের পারিশ্রমিক নেন।

কারিশমার ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে খবর, এ সব করে প্রতি বছর অন্তত ৭২ কোটি টাকা উপার্জন করেন তিনি।

স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদের পর থেকেই মুম্বাইয়ে থাকেন কারিশমা। বোন কারিনার পোতৌদি বাড়ির কাছেই একটি বাড়িতে ২ সন্তানকে নিয়ে থাকেন তিনি। সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

জীবিকা নির্বাহের উপায় আরো কঠিন হয়ে গেছে : শ্রীলেখা

অনলাইন ডেস্ক

জীবিকা নির্বাহের উপায় আরো কঠিন হয়ে গেছে : শ্রীলেখা

কিছুদিন পরপরই আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে থাকেন ওপার বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র। প্রতিবারই বিতর্কিত কোনো মন্তব্য বা সাহসী কোনো বক্তব্য দিয়ে আলোচনার কেন্দ্রেই থাকতে ভালোবাসেন এই অভিনেত্রী।

ব্যক্তিগত জীবন থেকে শুরু করে বিভিন্ন কারণে প্রায়ই খবরের শিরোনাম হন টালিউডের এই তারকা।

বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনকে ঘিরে ভীষণ ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন তিনি।

একনিষ্ঠ বাম সমর্থক হলেও মানবিক সত্বা বলে মানুষ হয়ে মানুষের পাশে দাঁড়াতে রাজনীতির রঙ দেখেননি শ্রীলেখা।

এই যেমন কামারহাটির তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী তথা রাজ্যের সাবেক ক্রীড়ামন্ত্রী মদন মিত্রের জন্য দ্রুত আরোগ্য কামনা করলেন অভিনেত্রী।

অভিনেত্রী লিখলেন, ‘মদনদা সেরে উঠুন। আরও অনেকদিন খেলতে হবে তো। রাজনৈতিক পার্থক্য থাকবেই তবু চাইব সেরে উঠুন।’

গেলো এক মাস ধরে সিপিআইএম-এর সমর্থক শ্রীলেখা নির্বাচনী প্রচার মঞ্চ থেকে পলিটিক্যাল মিছিলে হেঁটেছেন।

এছাড়া ফেসবুক ওয়ালে ভরিয়ে দিয়েছেন রাজনৈতিক প্রচারে আবার কখনও এক হাত নিয়েছেন শাসকদলের নেতা-নেত্রীদের।

আজ থেকে ব্যাক টু প্যভিলিয়ন কী শ্রীলেখা? অর্থাৎ আবার অ্যাকশন-কাটের স্পটলাইটে? তার ফেসবুক পোস্ট অন্তত তা-ই বুঝিয়ে দিলো।


লকডাউনে শপিংমলে যেতে লাগবে মুভমেন্ট পাস

মালয়েশিয়ায় অবৈধ অভিবাসীদের বৈধ হওয়ার সুযোগ

করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত কমল চট্টগ্রামে

হিরো আলম বললেন, এইটা মরুভূমি না, যমুনা নদীর চর

সম্প্রতি এক ফেসবুক পোস্টে নিজের সেলফি শেয়ার করেন শ্রীলেখা। সেখানে দেখা যায়, চোখে সানগ্লাস, মুখে মাস্ক, তবে যে সে মাস্ক নয়। এক ধরনের ট্রান্সপারেন্ট মাস্ক। তার ভেতর দিয়ে শ্রীলেখার রেড লিপস্ট্রিক দেয়া ঠোঁটও দেখা যাচ্ছে পরিষ্কার।

ক্যাপশনে শ্রীলেখা লেখেন, ‘আমার পেশাগত চাহিদা সম্পূর্ণরূপে দূরে সরিয়ে রেখে গেলো একমাস ধরে একের পর এক মিছিল ও জনসভাগুলোয় অংশ নিয়েছি। তবে এখন আমার জীবিকা নির্বাহের উপায় এখনও আরও কঠিন হয়ে গিয়েছে (বাড়ি থেকে কাজ করা সম্ভব নয়, বুঝছেনই)। কোভিড প্রোটোকল মেনে আজ থেকে অংশুমান প্রত্যুশের পরিচালিত নতুন প্রোজেক্ট ‘নির্ভয়’এর সঙ্গে যুক্ত হলাম।’

এ সময় ফেসবুক পোস্টের মাধ্যমে তার ভক্তদেরসুস্থতাও কামনা করেন শ্রীলেখা।

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সড়ক দুর্ঘটনায় রাস্তাটি গুরুতরভাবে আহত হয়েছে: নোবেল

অনলাইন ডেস্ক

সড়ক দুর্ঘটনায় রাস্তাটি গুরুতরভাবে আহত হয়েছে: নোবেল

সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন ভারতের ‘সারেগামাপা’ থেকে উঠে আসা বাংলাদেশের কণ্ঠশিল্পী নোবেল। বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) রাতে এই দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে নোবেলের ঘনিষ্ঠ সূত্রে।

তবে দুর্ঘটনাটির স্থান ও বাহন নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে এটি বাইক দুর্ঘটনা বলে ধারণা করা যাচ্ছে।

তবে নোবেল ঘটনার কারণ সম্পর্কে বলেন, এক বয়স্ক মানুষকে বাঁচাতেই তার এই দুর্ঘটনা। তার ভাষায়, ‘এক বয়স্ক লোক অসতর্কভাবে রাস্তা পার হচ্ছিলো। তাকে বাঁচাতে গিয়ে আমার এই অবস্থা। তবুও মনে তৃপ্তি অনুভব করছি, কারণ লোকটা নিরাপদ আছে। আর আমি আপনাদের দোয়ায় ভালো আছি।’

তবে এই ঘটনায় নোবেলের মাথায় ১২টা ও ভ্রু-তে ১৮টাসহ মোট ৩০টা সেলাই পড়েছে! ব্যান্ডেজের আগে ও পরের ছবি তিনি ফেসবুকে প্রকাশ করেছেন।


আরও পড়ুনঃ


বাঙ্গি: বিনা দোষে রোষের শিকার যে ফল

৫৩ জন নাবিকসহ নিখোঁজ ইন্দোনেশিয়ার সাবমেরিন

ভিক্ষা করে হলেও অক্সিজেন সরবরাহের নির্দেশ ভারতে

১৫ বছর ধরে কাজে যান না, বেতন তুললেন সাড়ে ৫ কোটি টাকা!


বৃহস্পতিবার রাত ১২টায় তিনি একটি ছবি শেয়ার করেন। চোখে ব্যান্ডেজ করা ছবিটির ক্যাপশনে তিনি লেখেন, ‘আসসালামু আলাইকুম। শুভ রাত্রি। সড়ক দুর্ঘটনায় রাস্তাটি গুরুতরভাবে আহত হয়েছে। রাস্তাটির জন্য দোয়া করবেন।’

তবে আশ্চর্যের বিষয়, সেই ছবির নিচে শুক্রবার সকাল নাগাদ হাহা রিঅ্যাক্ট পড়েছে ৩৩ হাজার, লাইক পড়েছে ১৩ হাজার। অন্যদিকে কান্নার রিঅ্যাক্ট পড়েছে মাত্র ৯ হাজার ৩শ!

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

পুরোপুরি সুস্থ হয়েই দেশে আসবেন ফারুক

অনলাইন ডেস্ক

পুরোপুরি সুস্থ হয়েই দেশে আসবেন ফারুক

সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন চিত্রনায়ক ও সাংসদ আকবর হোসেন পাঠান ফারুকের শারীরিক অবস্থার আরও উন্নতি হয়েছে। তবে পুরোপুরি সেরে উঠতে আরও কিছুদিন সময় লাগবে। বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) দুপুরে জানান ফারুকের ছেলে রোশান হোসেন পাঠান।

দেশীয় একটি গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, ‘বাবার শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে আরও একটু ভালোর দিকে। ধীরে ধীরে শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে। এখন একটু করে খাওয়াদাওয়া করছেন, কথা বলার চেষ্টা করছেন।’

দেশের আনার ব্যাপারে জানতে চাইলে রোশান বলেন, ‘এখনও সিদ্ধান্ত নিইনি। সেখানে এক রকমের ট্রিটমেন্ট চলছে। এই অবস্থায় দেশে নিয়ে এলে আবার এখানেও এক ধরনের ট্রিটমেন্ট চালাতে হবে। সে ক্ষেত্রে ঝামেলা হতে পারে। তাই পুরোপুরি সুস্থ হওয়ার পর্যন্ত দেশে না নিয়ে আসার কথাই ভাবছি আমরা।’

গত ২১ মার্চ থেকে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালের আইসিইউতে আছেন ফারুক। সেখানে ডাক্তার লি’র অধীনে তার চিকিৎসা চলছে।

গত ১৫ মার্চ খিচুনি হওয়ার পর ফারুকের মস্তিস্কে একটি সিজার করা হয়েছিল। তারপর তার নড়াচড়া এবং কথা বলা সীমিত হয়ে পড়েছিল। এরপর আইসিইউতে পাঠানো হয়। ১৮ মার্চ অবস্থার উন্নতি হলে কেবিনে পাঠানো হয়।


আরও পড়ুনঃ


বাঙ্গি: বিনা দোষে রোষের শিকার যে ফল

৫৩ জন নাবিকসহ নিখোঁজ ইন্দোনেশিয়ার সাবমেরিন

ভিক্ষা করে হলেও অক্সিজেন সরবরাহের নির্দেশ ভারতে

১৫ বছর ধরে কাজে যান না, বেতন তুললেন সাড়ে ৫ কোটি টাকা!


তবে ২১ মার্চ অচেতন হয়ে পড়লে আবারও আইসিইউতে পাঠানো হয় তাকে। বিভিন্ন শারীরিক জটিলতায় ভোগার পাশাপাশি সবশেষে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি।

বাংলা সিনেমার অন্যতম জনপ্রিয় এ অভিনেতা বর্তমানে ঢাকা-১৭ আসন থেকে সাংসদ নির্বাচিত হয়েছেন। নিয়মিত চেকআপের জন্য ৪ মার্চ সিঙ্গাপুর গিয়েছিলেন তিনি।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

'রিফ্রেশ' হতে ঘোড়ায় চড়া শিখেছেন মোনালি ঠাকুর

অনলাইন ডেস্ক

'রিফ্রেশ' হতে ঘোড়ায় চড়া শিখেছেন মোনালি ঠাকুর

তিনি পেশায় গায়িকা, অভিনয়শিল্পী। দুটো দিয়েই জয় করেছেন মানুষের মন। তিনি মোনালি ঠাকুর। ভারতের প্রখ্যাত বাঙালি গায়িকা।

সাধারণত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ সরব থাকেন এই গায়িকা। তবে কিছুদিন ধরে যেন পাওয়াই যাচ্ছে না তাকে। ভারতীয় গণমাধ্যম খোঁজ নিয়ে জানতে পারে, নেটজগত থেকে উধাও হয়ে গেছেন তিনি।

কয়েক মাস আগে প্রয়াত হয়েছেন মোনালির বাবা শক্তি ঠাকুর। ফলে ব্যক্তি জীবনে গত কিছুদিন ভালো সময় কাটাননি তিনি। তবে এখন শোক অনেকটাই সামলে উঠেছেন বলে জানান তিনি।

সম্প্রতি বিরতি কাটিয়ে নেট দুনিয়ায় ফিরেছেন মোনালি। ফিরেই জানিয়েছেন তার ‘উধাও’ হওয়ার কারণ। নিজের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন এ গায়িকা।


আরও পড়ুনঃ


বাঙ্গি: বিনা দোষে রোষের শিকার যে ফল

৫৩ জন নাবিকসহ নিখোঁজ ইন্দোনেশিয়ার সাবমেরিন

ভিক্ষা করে হলেও অক্সিজেন সরবরাহের নির্দেশ ভারতে

১৫ বছর ধরে কাজে যান না, বেতন তুললেন সাড়ে ৫ কোটি টাকা!


ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকে একটা বড় বিরতি নিয়েছিলাম। কিন্তু সব সময়ই নিজের মস্তিষ্ক, নিজের দক্ষতাকে রিফ্রেশ করতে চেয়েছি। আশা করছি এই সময়টা আপনারাও নিজেদের রিফ্রেশ করেছেন।’

এছাড়া তার পোষ্ট থেকে জানা গেছে, এই সময়টাতে ঘোড়ায় চড়া শিখেছেন মোনালি। পশুরাই তাকে মানবতার শিক্ষা দিয়েছে বলেও মনে করেন এই গায়িকা।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

করোনা মুক্ত হয়ে স্ত্রীকে যা বললেন রিয়াজ

অনলাইন ডেস্ক

করোনা মুক্ত হয়ে স্ত্রীকে যা বললেন রিয়াজ

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন জনপ্রিয় চিত্রনায়ক রিয়াজ। ২১ দিন পর করোনা থেকে মুক্ত হলেন তিনি।

করোনাভাইরাস থেকে মুক্ত হওয়ার খবর নিজেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানিয়েছেন তিনি। বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) দিবাগত রাতে নিজের করোনা মুক্তির খবর নিশ্চিত করেন রিয়াজ।

তিনি লেখেন, ‘দীর্ঘ ২১ দিন পর করোনা নেগেটিভ হলাম আলহামদুলিল্লাহ। মহান আল্লাহ পাকের কাছে অনেক শুকরিয়া।’

এছাড়া তিনি ধন্যবাদ দিয়েছেন নিজের স্ত্রী তিনাকে। তিনি লিখেছেন, ‘ধন্যবাদ তিনা, গভীর মমতা নিয়ে পাশে থাকার জন্য। আমার ছোট্ট মেয়েটা, আমার বুকে ঝাপ দিতে না পেরে, সারাক্ষণ আল্লাহকে বলেছে তার বাবাকে সুস্থ করে দিতে। ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা পরিবারের সদস্য যারা নিয়মিত খোঁজ নিয়েছেন, খাবার পাঠিয়েছেন, দোয়া করেছেন। প্রিয় ভক্ত, বন্ধু, সহকর্মী, সাংবাদিক ভাই আপনাদের সবার ভালোবাসার কাছে আবারও ঋণী হয়ে রইলাম।’


আরও পড়ুনঃ


বাঙ্গি: বিনা দোষে রোষের শিকার যে ফল

৫৩ জন নাবিকসহ নিখোঁজ ইন্দোনেশিয়ার সাবমেরিন

ভিক্ষা করে হলেও অক্সিজেন সরবরাহের নির্দেশ ভারতে

১৫ বছর ধরে কাজে যান না, বেতন তুললেন সাড়ে ৫ কোটি টাকা!


তিনি আরও লিখেছেন, ‘সকল আক্রান্ত মানুষ দ্রুত আরোগ্য লাভ করুক, স্বজনহারা পরিবারকে সমবেদনা। করুণাময়, এই ভাইরাস থেকে মানবজাতি দ্রুত মুক্তি পাক, এই কামনা।’

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর