ঝালকাঠিতে আলোচিত শাহাদাৎ হত্যা মামলায় তিনজনের যাবজ্জীবন

এস এম রেজাউল করিম, ঝালকাঠি।

ঝালকাঠিতে আলোচিত শাহাদাৎ হত্যা মামলায় তিনজনের যাবজ্জীবন

ঝালকাঠি শহরের আলোচিত শাহাদাৎ হোসেন হত্যা মামলায় তিনজনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার দুপুরে ঝালকাঠির জেলা ও দায়রা জজ মো. শহিদুল্লাহ এ রায় দেন করেন। 

দন্ডপ্রাপ্তরা হলেন সদর উপজেলার পোনাবালিয়া ইউনিয়নের দেউরি গ্রামের গিয়াস মল্লিক (৪৫), কিস্তাকাঠি গ্রামের শাহীন ভূইয়া (৩৫) ও মির্জাপুর গ্রামের জয়নাল কাদি (৪৬)। অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় ছোহরাব হোসেন নামে একজনকে খালাস দেয়া হয়। রায় ঘোষণার সময় যাবজ্জীবন সাজা প্রাপ্ত শাহীন ও জয়নাল আদালতে উপস্থিত থাকলেও গিয়াস মল্লিক পলাতক ছিলেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, পূর্ব শত্রতার কারনে ২০১৪ সালের ২১ এপ্রিল ঝালকাঠি শহরের স্টেশন রোডের একটি টিনের দোকানের ম্যানেজার শাহাদাৎ হোসেনকে নেশা জাতীয় দ্রব্য খাইয়ে লঞ্চঘাট এলাকার জয়নাল কাদির বাসায় নিয়ে গলাকেটে হত্যা করে আসামীরা। পরে তাঁর মস্তকবিহীন লাশ সুগন্ধা নদীতে ফেলে দেওয়া হয়। 


জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থগিত পরীক্ষার নতুন সূচি ঘোষণা

লেবানন বিএনপির ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত

বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় কেটে ফেলা হল কিষানীর তিন হাজার গাছ

তামিমার পাসপোর্ট আসল কিনা মুখ খুললেন নাসিরের সাবেক প্রেমিকা


২৩ এপ্রিল দুপুরে নদীতে ভাসমান অবস্থায় মাথাবিহীন শাহাদাতের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় ওইদিন ঝালকাঠি থানার পিএসআই আবদুর রহিম বাদী হয়ে অজ্ঞাত ব্যাক্তিদের আসামী করে মামলা দায়ের করেন। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে জয়নাল কাদ্বীকে ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। 

তাঁর স্বীকারোক্তি অনুযায়ী হত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচিত হয়। সাজাপ্রাপ্ত গিয়াস মল্লিকের বাবা দেউরি গ্রামের মোকছেদ আলী মল্লিককে ১৯৮০ সালে হত্যা করে প্রতিপক্ষরা। এ মামলায় আসামি ছিলেন শাহাদাৎ হোসেন। এ মামলায় সকল আসামী খালাশ পায়। 

বাবাকে হত্যার প্রতিশোধ নিতে গিয়াস মল্লিক তাঁর সহযোগিদের নিয়ে শাহাদাৎকে হত্যা করে। ঝালকাঠি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শীল মণি চাকমা তদন্ত শেষে ২৮ অক্টোবর ২০১৪ আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। আদালত ৩৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে রায় দেন। 

 news24bd.tv আয়শা
 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

হেফাজতের যুগ্ম-মহাসচিব খালেদ সাইফুল্লাহ ৫ দিনের রিমান্ডে

নিজস্ব প্রতিবেদক

হেফাজতের যুগ্ম-মহাসচিব খালেদ সাইফুল্লাহ ৫ দিনের রিমান্ডে

হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম-মহাসচিব খালেদ সাইফুল্লাহ আইয়ূবী ৫ দিনের রিমান্ডে। গতকাল বৃহস্পতিবার ভোররাতে তাকে মানিকগঞ্জের সিংগাইর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

বিস্তারিত আসছে...

আরও পড়ুন:


ওবায়দুল কাদেরকে পদত্যাগের আহ্বান ভাগ্নে মঞ্জুর

২৫ এপ্রিল থেকে দোকানপাট ও শপিংমল খোলা

বান্দরবান সীমান্তে বিজিবির সঙ্গে 'বন্দুকযুদ্ধে' রোহিঙ্গা নিহত

বাগেরহাটে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার ২


news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

এবার ময়মনসিংহে সাবেক ভিপি নুরের বিরুদ্ধে মামলা

সৈয়দ নোমান, ময়মনসিংহ

এবার ময়মনসিংহে সাবেক ভিপি নুরের বিরুদ্ধে মামলা

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরের বিরুদ্ধে এবার ময়মনসিংহে মামলা হয়েছে। জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. সোহেল গনি বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

বৃহস্পতিবার বিকালে ময়মনসিংহের কোতোয়ালী মডেল থানায় তিনি এ মামলা দায়ের করেন।

কোতোয়ালী মডেল থানার ওসি ফিরোজ তালুকদার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় মামলাটি নথিভুক্ত করা হয়েছে।


মুহাম্মাদ (স.) এর জীবনের ঘটনাগুলো আমাকে আলোড়িত করে 

সকাল থেকে মার্কেট খুলেছেন রাজশাহীর ব্যবসায়ীরা

অনেকে মনে করে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ৫/৬ বছরের গ্যাপ ভালো

৪ দিনের পর আবারও ৭ দিনের রিমান্ডে রফিকুল মাদানী

এ মামালার বরাত দিয়ে ওসি জানান, গত ১৪ এপ্রিল প্রথম রমজানে নুরুল হক নুর তার নিজ নামীয় ফেসবুক আইডি থেকে লাইভে বলেন ‘কোনো মুসলমান আওয়ামী লীগ করতে পারে না, যারা আওয়ামী লীগ করে তারা ধান্দাবাজ, চাঁদাবাজ, মাদক ব্যবসায়ী, চিটার বাটপার, প্রকৃত কোনো মুসলমান আওয়ামী লীগ করতে পারে না, এদের কোনো ঈমান নাই, শুক্রবার একদিন নামাজ পড়তে যাবে, আর পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের কোনো খবর নাই, আওয়ামী উগ্রবাদীরা আলেম ওলামাদের চরিত্র হরণ করে, আওয়ামী উগ্রবাদীরা আলেম ওলামাদের নিয়ে যে বিদ্বেষ ছড়াচ্ছে, ফেসবুকে লেখালেখি করছে, তারা কখনও মুসলমান হতে পারে না, এদের কোনো ঈমান নেই।’

মামলার বাদী সোহেল গনি বলেন, ‘এমন বক্তব্য ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত এবং বিভিন্ন শ্রেণি পেশা সম্প্রাদায়ের মধ্যে শত্রুতা, ঘৃণা, বিক্ষোভ সৃষ্টি করছে। মানহানিকর এ বক্তব্য প্রকাশ ও প্রচার করায় আমি মর্মাহত ও মনে আঘাতপ্রাপ্ত। তাই ময়মনসিংহ কোতোয়ালী মডেল থানায় তার বিরুদ্ধে ডি‌জিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলাটি করেছি।’

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

এবার রাজশাহীতে ডিজিটাল আইনে নুরের বিরুদ্ধে মামলা

অনলাইন ডেস্ক

এবার রাজশাহীতে ডিজিটাল আইনে নুরের বিরুদ্ধে মামলা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু)-এর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরের বিরুদ্ধে ঢাকা, সিলেট ও চট্রগ্রামের পর এবার রাজশাহীতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে। ফেসবুক লাইভে এসে  ধর্মীয় মূল্যবোধে আঘাত করে উসকানিমূলক বক্তব্য দেওয়ার অভিযোগে এই মামলা করা হয়।

রাজশাহী মহানগর যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক তোরিদ আল মাসুদ রনি বুধবার দুপুরে বাদী হয়ে আরএমপির বোয়ালিয়া মডেল থানায় মামলাটি করেন।

বোয়ালিয়া থানার ওসি নিবারণ চন্দ্র বর্মণ বলেন, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ধর্মীয় মূল্যবোধে আঘাত করে উসকানিমূলক বক্তব্য দেওয়ার অভিযোগে মামলাটি করা হয়েছে। তদন্ত  করে পরে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মামলার এজাহারে বাদী বলেন, ১৪ এপ্রিল ফেসবুক লাইভে এসে ডাকসুর সাবেক ভিপি নূরুল হক নূর যে বক্তব্য দিয়েছিলেন সেটা আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীসহ দেশের মানুষের ধর্মীয় মূল্যবোধে আঘাত দিয়েছে। তিনি আক্রমণাত্মক ও মানহানিকর বক্তব্য দিয়েছেন।

গত ১৪ এপ্রিল বিকেলে ফেইসবুক লাইভে এসে নূর বলেন, ‘কোনো মুসলমান আওয়ামী লীগ করতে পারে না। যারা এই আওয়ামী লীগ করে তারা চাঁদাবাজ, ধান্ধাবাজ, মাদক ব্যবসায়ী, চিটার-বাটপার এই ধরনের মুসলমান।’

উল্লেখ্য, গত ১৪ এপ্রিল নিজের ফেসবুক পেজে লাইভে এসে ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর ‘আওয়ামী লীগের কেউ প্রকৃত মুসলমান না’ বলে মন্তব্য করেন। একই ঘটনায় ঢাকা, সিলেট ও চট্রগ্রামের পর  রাজশাহীতে মামলা হলো নুরের বিরুদ্ধে। 

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় কারাগারে সাংবাদিক তৈয়ব

অনলাইন ডেস্ক

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় কারাগারে সাংবাদিক তৈয়ব

খুলনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলায় আবু তৈয়ব নামের এক সাংবাদিককে গ্রেপ্তারের পর কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তিনি টিভি চ্যানেল এনটিভির খুলনা ব্যুরোপ্রধান হিসেবে কর্মরত আছেন। গতকাল মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে খুলনা নগরের নূরনগর এলাকায় অবস্থিত তার বাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে সদর থানা পুলিশ।

আবু তৈয়বকে বুধবার (২১ এপ্রিল) সকালে আদালতে হাজির করা হয়। পরে শুনানি শেষে ম্যাজিস্ট্রেট তরিকুল ইসলাম তাকে জেলহাজতে পাঠান। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই আবু সাইদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

খুলনা থানা পুলিশ জানায়, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সাংবাদিক আবু তৈয়বকে মহানগর হাকিম আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর আদালতের নির্দেশে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের (কেএমপি) সহকারী কমিশনার (খুলনা জোন) বায়েজিত ইবনে আকবর জানান, সাংবাদিক আবু তৈয়বকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় আটক করে থানায় আনা হয়। বুধবার সকালে তাকে ওই মামলায় আদালতে হাজির করা হয়। এরপর ম্যাজিস্ট্রেট তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

খুলনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশরাফুল আলম  জানান, মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) রাত সাড়ে ১০টার দিকে খুলনার নূরনগর এলাকার বাসা থেকে সাংবাদিক আবু তৈয়বকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি তালুকদার আবদুল খালেক বাদী হয়ে মঙ্গলবার বিকেলে খুলনা থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করেন।

তিনি জানান, সাংবাদিক আবু তৈয়ব সম্প্রতি খুলনা সিটি মেয়র তালুকদার আবদুল খালেকের বিরুদ্ধে ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন। ওই পোস্টে তার বিরুদ্ধে মোংলা কাস্টমসের শুল্ক ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগ উত্থাপন করা হয়।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

তিন মামলায় ২১ দিনের রিমান্ডে মুফতি সাখাওয়াত ও মাওলানা মঞ্জুরুল

অনলাইন ডেস্ক

তিন মামলায় ২১ দিনের রিমান্ডে মুফতি সাখাওয়াত ও মাওলানা মঞ্জুরুল

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব মুফতি সাখাওয়াত হোসাইন রাজী ও মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দির ২১ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

বুধবার পৃথক তিন মামলার শুনানি শেষে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মামুনুর রশিদ এ আদেশ দেন। 

মতিঝিল থানার দুটি ও পল্টন থানার একটি মামলায় তদন্ত কর্মকর্তা ১০ দিন করে রিমান্ড চেয়ে তাদের আদালতে হাজির করেন। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারক প্রত্যেক মামলায় সাত দিন করে মোট ২১ দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন।

গত ১৪ এপ্রিল রাজধানীর লালবাগ এলাকা থেকে ডিবির একটি টিম সাখাওয়াত হোসাইন রাজীকে গ্রেফতার করে। একই দিন রাত ১০টা ৫০ মিনিটে হাতিরপুলের নিজ বাসা থেকে মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দিকে গ্রেফতার করা হয়।

পরদিন পল্টন থানার নাশকতার এক মামলায় এই দুই নেতাকে পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। রিমান্ড শেষে বুধবার তাদের আদালতে হাজির করে পুলিশ।

গত ২৬ মার্চ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফর ঘিরে দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ করেন হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীরা। সেই বিক্ষোভ সহিংসতায় রূপ নেয়। ওই সংঘাতে প্রাণ হারান অন্তত ১৮ জন। সেসব ঘটনায় একাধিক মামলা হয়। মামলার আসামিদের ধরতে অভিযান শুরু করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর