প্রেসক্লাবে পুলিশ চরম ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রেসক্লাবে পুলিশ চরম ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাব এলাকায় পুলিশ ও ছাত্রদলের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, পুলিশ ওই সময় চরম ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছে।

তিনি বলেন, আমি আধা ঘণ্টা সাংবাদিকদের প্রচারিত খবর ও ছবি দেখেছি। তাতে দেখা যাচ্ছিল, একজন পুলিশ সদস্য এক জায়গায় একা দাঁড়িয়ে ছিলেন। তাকে বড় বড় লাঠি দিয়ে পেটানোর হচ্ছে। চরম ধৈর্যের সঙ্গে পুলিশ পরিস্থিতি মোকাবিলা করেছে।

আজ দুপুরে রাজধানীর মিরপুরে পুলিশ স্টাফ কলেজে ‘পুলিশ মেমোরিয়াল ডে-২০২১’ উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাব এলাকায় গতকাল রোববার পুলিশের সঙ্গে ছাত্রদল নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষের বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, পুলিশ ওই সময় চরম ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রেসক্লাবে সচরাচর পুলিশ ঢোকে না। রোববার প্রেসক্লাবের ভেতর থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুড়ছিল। এতে দু’একজন পুলিশ হয়তো ঢুকেছে।

‘সেখানে পরিস্থিতি অতিমাত্রায় চলে যাওয়ায় তা নিয়ন্ত্রণে আনতে টিয়ারশেল ছুড়েছে পুলিশ। এটা একটা কৌশল। ’


পুলিশকে কেন প্রতিপক্ষ বানানো হয়, প্রশ্ন আইজিপির

আমাকে ‘বলির পাঁঠা’ বানানো হয়েছে: সামিয়া রহমান

বিমা খাতে সচেতনতা সৃষ্টির ক্ষেত্রে আরও প্রচার প্রয়োজন: প্রধানমন্ত্রী

পোশাক খাতে ভিয়েতনামকে পেছনে ফেললো বাংলাদেশ

৩০ মার্চের মধ্যে শিক্ষকদের টিকা নিতে হবে: শিক্ষামন্ত্রী


স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিতরে যেন বহিরাগত কেউ প্রবেশ করতে না পারে সে বিষয় প্রেসক্লাব কর্তৃপক্ষকে দায়িত্ব নিতে হবে।

সাংবাদিকদের উদ্দেশ করে তিনি বলেন, প্রেসক্লাবতো আপনাদের। আপনারাই এ দায়িত্বটি নিশ্চিত করুন।

সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ‘বীর উত্তম’ খেতাব বাতিল করার সিদ্ধান্ত এবং কারাগারে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনার প্রতিবাদে গতকাল সকাল সাড়ে ১১টার দিকে বিএনপির ছাত্রদল আয়োজিত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। নেতাকর্মীরা প্রেসক্লাবের সামনে অবন্থান নেয়। এতে পুলিশ সদস্যরা বাধা দিলে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে টিয়ারশেল ছোড়ে পুলিশ। বিক্ষুব্ধ হয়ে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা প্রেসক্লাবের পাশের অস্থায়ী পুলিশ বক্সের জানালা ভাঙচুর করে। তারা প্রেসক্লাবের ভেতরে প্রবেশ করে। এতে পুলিশও প্রেসক্লাবের ভেতরে গিয়ে লাঠিচার্জ করে।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

হেফাজতের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিবকে আটকের অভিযোগ

অনলাইন ডেস্ক

হেফাজতের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিবকে আটকের অভিযোগ

ঢাকার ইসলামবাগ মাদ্রাসার শাইখুল হাদিস ও প্রিন্সিপাল, জমিয়ত মহাসচিব ও হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দীকে আটকের অভিযোগ করেছে সংগঠনটি।

গণমাধ্যমকে বিষয়টি জানান বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্র সমাজের কেন্দ্রীয় মহাসচিব এহতশামুল হক সাকি।

তিনি বলেন, বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে রাজধানীর ইসলামবাগ এলাকা থেকে মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দীকে আটক করে নিয়ে যায় ডিবি পুলিশ। 

এর আগে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব মুফতি শাখাওয়াত হোসাইন রাজীকে গ্রেফতার করে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপির) গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি)।

এ নিয়ে গত চার দিনে হেফাজতের চার কেন্দ্রীয় নেতাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তারা হলেন - হেফাজতে ইসলামের সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক ইসলামাবাদী, সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-প্রচার সম্পাদক মুফতি শরিফ উল্লাহ, নারায়ণগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদক মুফতি বশির উল্লাহ।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

হেফাজতের সহকারী মহাসচিব গ্রেফতার

অনলাইন ডেস্ক

হেফাজতের সহকারী মহাসচিব গ্রেফতার

হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব মুফতি শাখাওয়াত হোসাইন রাজীকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপির) গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি)।

বুধবার (১৪ এপ্রিল) সন্ধ্যায় ডিএমপির গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি) তাকে গ্রেফতার করে। বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন ডিবির যুগ্ম কমিশনার মো. মাহবুব আলম। 

মাহবুব আলম জানিয়েছেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সন্ধ্যায় লালবাগ থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। সম্প্রতি রাজধানীতে সংহিংসতার ঘটনায় পল্টন ও মতিঝিল থানায় দায়ের করা একাধিক মামলার তিনি এজাহারভুক্ত আসামি।  

এর আগে, মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) যাত্রাবাড়ীর মীর হাজিরবাগ থেকে হেফাজতের সহসাংগঠনিক সম্পাদক মুফতি শরিফউল্লাহকে গ্রেফতার করে যাত্রাবাড়ী থানায় সোপর্দ করে ডিএমপির গোয়েন্দা বিভাগ। 

এদিকে, বুধবার (১৫ এপ্রিল) এক দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে মুফতি শরিফউল্লাহকে। 

এ নিয়ে গত চার দিনে হেফাজতের চার কেন্দ্রীয় নেতাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তারা হলেন - হেফাজতে ইসলামের সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক ইসলামাবাদী, সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-প্রচার সম্পাদক মুফতি শরিফ উল্লাহ, নারায়ণগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদক মুফতি বশির উল্লাহ।

উল্লেখ্য, মুফতি শরিফউল্লাহ ২০১৩ সালের ৫ মে মতিঝিলের শাপলা চত্বরে সহিংস ঘটনার পরদিন যাত্রাবাড়ী থানায় হওয়া বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলার এজাহারভুক্ত আসামি। সেই মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়। 

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

খালেদা জিয়াকে জাপানের রাষ্ট্রদূত ও পাকিস্তান হাইকমিশনারের চিঠি

অনলাইন ডেস্ক

খালেদা জিয়াকে জাপানের রাষ্ট্রদূত ও পাকিস্তান হাইকমিশনারের চিঠি

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত বিএনপি চেয়ারপরসন বেগম খালেদা জিয়ার সুস্থতা কামনা করে পত্র পাঠিয়েছেন জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি এবং পাকিস্তানের হাইকমিশনার ইমরান আহমেদ সিদ্দিকী।

মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) জাপানের রাষ্ট্রদূত এবং বুধবার (১৪ এপ্রিল) পাকিস্তানের হাইকমিশনার এ পত্র পাঠান।

বিএনপি চেয়ারপারসনের একান্ত সচিব এ বি এম আব্দুর সাত্তারের বরাত দিয়ে চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শায়রুল কবির খান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, খালেদা জিয়ার কোভিড-১৯ সংবাদ পেয়ে তার শারীরিক সুস্থতা কামনা করে জাপানের রাষ্ট্রদূত এবং পাকিস্তানের হাইকমিশনার পত্র পাঠিয়েছেন।

গত শনিবার খালেদা জিয়ার নমুনা পরীক্ষা শেষে রোববার তার করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়। চিকিৎসক এফএম সিদ্দিকীর নেতৃত্বে তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক টিম বিএনপি চেয়ারপারসনের চিকিৎসা শুরু করে।  লন্ডন থেকে চিকিৎসক পূত্রবধূ জোবাইদা রহমানও চিকিৎসার বিষয়ে পরামর্শ দিচ্ছেন।

লন্ডনে থেকেই পুত্রবধূ ডা. জোবায়দা রহমান দেশে-বিদেশে বিভিন্ন চিকিৎসকদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে বেগম জিয়ার সুচিকিৎসার তদারকি করছেন। এছাড়া তার চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেল বোর্ডের সমন্বয়ও করছেন ডা. জোবায়দা রহমান।

৭৫ বছল বয়সী সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া দুর্নীতির দুই মামলায় দণ্ডিত। দণ্ড নিয়ে তিন বছর আগে তাকে কারাগারে যেতে হয়। 

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরুর পর পরিবারের আবেদনে সরকার গত বছরের ২৫ মার্চ ‘মানবিক বিবেচনায়; শর্তসাপেক্ষে তাকে সাময়িক মুক্তি দেয়। তখন থেকে তিনি গুলশানে নিজের ভাড়া বাসা ফিরোজায় থেকে ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধায়নে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তার সঙ্গে বাইরের কারও যোগাযোগ সীমিত।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

লকডাউনে ৭ ঘণ্টা গ্যাস থাকবে না যেসব এলাকায়

অনলাইন ডেস্ক

লকডাউনে ৭ ঘণ্টা গ্যাস থাকবে না যেসব এলাকায়

লকডাউনের মধ্যেই শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) ভোর থেকে সাড়ে ৭ ঘণ্টার জন্য গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সিগঞ্জের বড় একটি অংশে। একই সময়ে গ্যাসের চাপ কম থাকবে ঢাকার বেশকিছু এলাকায়।

বুধবার (১৪ এপ্রিল) সন্ধ্যায় বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপ-প্রধান তথ্য অফিসার মীর মোহাম্মদ আসলাম উদ্দিনের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। 

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, নারায়ণগঞ্জের হরিপুরে ভালভ প্রতিস্থাপনের কাজ করবে গ্যাস সঞ্চালন কোম্পানি জিটিসিএল ও বিতরণ কোম্পানি তিতাস গ্যাস। আর এ কারণে শুক্রবার ভোর সাড়ে ৪টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ ও মুন্সিগঞ্জের বড় একটি এলাকায় গ্যাস সরবরাহ করতে পারবে না তিতাস।

উল্লিখিত সময়ে শীতলক্ষ্যা নদীর পশ্চিম পাশে নারায়ণগঞ্জ শহর, সিদ্ধিরগঞ্জ, আদমজী ইপিজেড, গোদনাইল, পাগলা, ফতুল্লা, নারায়ণগঞ্জ বিসিক, পঞ্চবটি থেকে মুক্তারপুর পর্যন্ত, মুন্সিগঞ্জ সদর, মুন্সিগঞ্জ বিসিক, রেকাবী বাজার ও আশেপাশের এলাকায় সব শ্রেণির গ্রাহকদের গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে।

এছাড়া শীতলক্ষ্যা নদীর পূর্ব পাশে গ্যাস থাকবে না কাঁচপুর, হরিপুর, কুতুবপুর, মদনপুর, বন্দর, কেওডালা, নাঙ্গলবন্দ ও আশপাশের এলাকায়।

একই সময়ে গ্যাসের চাপ কম থাকবে ঢাকার কেরানীগঞ্জ ও শ্যামপুর এলাকায়।

গ্রাহকদের 'সাময়িক অসুবিধার' জন্য 'আন্তরিকভাবে' দুঃখ প্রকাশ করেছে ঢাকা ও আশপাশের এলাকায় গ্যাস বিতরণ প্রতিষ্ঠান তিতাস গ্যাস কোম্পানি।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

নতুন কৌশলে হেফজাত, আইনি সহায়তা সেল

অনলাইন ডেস্ক

নতুন কৌশলে হেফজাত, আইনি সহায়তা সেল

হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের রিসোর্ট কাণ্ডের পর থেকেই গ্রেফতার হচ্ছেন শীর্ষ স্থানীয় নেতারা। নতুন নতুন মামলায় গ্রেফতার হচ্ছেন  সংগঠনটির সকল স্তরের নেতাকর্মী। গ্রেফতার আতঙ্কে ভুগছেন অনেকেই।  এমতাবস্থায় সাংগঠনিক স্থবিরতা কাটাতে উদ্যোগী হয়েছে হেফাজত। ধরপাকড়, মামলা, গ্রেফতার ও সরকারের চাপ মোকাবিলায় নানা তৎপরতা শুরু করেছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। তারা দেশের প্রতিটি ওয়ার্ডে কমিটি গঠন, জেলায় জেলায় আইনি সহায়তা সেল গঠন এবং বিভিন্ন দূতাবাসে স্মারকলিপি দেওয়াসহ বিভিন্ন সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এছাড়া সমমনা ইসলামী দলগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ করবে হেফাজত।

রবিবার হাটহাজারী মাদ্রাসায় হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় কমিটির রুদ্ধদ্বার বৈঠক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

হেফাজতের সহকারী মহাসচিব মুফতী শাখাওয়াত হোসাইন রাজী জানান, সরকার চাইলে তো গ্রেফতার এড়ানো যাবে না। তবে সবকিছু আইনীভাবে মোকাবিলার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় দুই থেকে তিন সদস্যের আইনি সহায়তা সেল গঠন করা হবে আইনজীবীদের নিয়ে। হেফাজতের কার্যক্রম, মামলা ও গ্রেফতারের বিষয়ে তারা কাজ করবেন।

ঢাকা, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন জেলা ও মহানগরে হেফাজতের কমিটি রয়েছে। এর বাইরে সারাদেশে ওয়ার্ড পর্যায়ে কমিটি গঠন করাসহ সংগঠনকে এগিয়ে নিতে ‘সাংগঠনিক সেল’ গঠিত হয়। এই সেলের দায়িত্ব দেওয়া হয় যুগ্ম-মহাসচিব জুনায়েদ আল হাবিব, সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক ইসলামাবাদী ও সহকারী মহাসচিব মুফতি শাখাওয়াত হোসেনকে। তাদের মধ্যে ইসলামাবাদী বৈঠক শেষে বাড়ি ফেরার পর গ্রেফতার হন।

জুনায়েদ আল হাবিব বৈঠকের বিষয়ে গণমাধ্যমকে বলেন, সাংগঠনিক সেলের মাধ্যমে এক থেকে দেড় মাসের মধ্যে সারা দেশের কমিটিগুলোর কার্যক্রমকে আরও শক্তিশালী করা হবে। এ জন্য রোববারের সভায় তিনজনকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর