উড়তে পারে যে মাছ

হারুন আল নাসিফ

উড়তে পারে যে মাছ

বিশ্বাস করুন আর নাই করুন উড়তে পারে এমন মাছও আছে। মাছটির নাম ‘উড়ুক্কু মাছ’। ইংরেজিতে বলে Flyingfish। সাগরের পানি থেকে লাফ দিয়ে পাখির মতই দ্রুতগতিতে অনেক দূর উড়তে পারে এই মাছ। আর অদ্ভুত বিষয় এই পৃথিবীতে তাদের অস্তিত্ব আমাদের চিরচেনা উড়তে পারা পাখিদেরও অনেক অনেক আগে থেকে। এদের বক্ষ পাখনা (Pectoral fin) এবং কোনো কোনো ক্ষেত্রে শ্রোণী পাখনাও (Pelvic fin) প্রসারিত হয়ে ডানার মতন গঠন তৈরি করে।

ডলফিন, স্কুইড ও বড় মাছের তাড়া খেয়ে পালিয়ে বাঁচার জন্য অতি দ্রুত সাঁতার কাটতে গিয়ে এ মাছ পানির একেবারে উপরিভাগে চলে আসে এবং পাখনা মেলে বাতাসে উড়াল দেয়। উড়াল দেয় বললে আসলে ভুল হবে। প্রকৃত ওড়া বলতে যেটা বোঝায় এটা ঠিক সেরকম ওড়া নয়। একে বলে গ্লাইডিং। এরা মূলত পানি থেকে লাফ দিয়ে তাদের পাখনার সাহায্যে বাতাসে ভেসে চলে।

পানির নিচে গড়পড়তা উড়–ক্কু মাছের বেগ হয় ঘণ্টায় ৬০ কিলোমিটারের কাছাঁকাছি। সুগঠিত পাখনা বিশিষ্ট এসব মাছের কোনো কোনোটি জলের উপরিভাগ ৮-১০ মিটারের বেশি ওপর দিয়ে শূনে ভেসে চলে অনায়াসে ২০০ মিটার দূরত্ব অতিক্রম করতে পারে। তখন এদের ওড়ার গতি ঘণ্টায় ৭০ কিমি বা ৪৫ মাইলেরও বেশি হয়।

এ কারণে অনেক সময় এই মাছ আচমকা সমুদ্রগামী জাহাজের ডেকের ওপর আছড়ে পড়ে। জলের শত্রু থেকে বাঁচতে গিয়ে বাতাসে উড়াল দিয়ে এদের কখনো-কখনো শিকারি পাখির কবলেও পড়তে হয়।


মঙ্গলবার রাজধানীর যেসব এলাকার মার্কেট বন্ধ থাকবে

বিএনপির সমাবেশকে ঘিরে পরিবহন বন্ধ রাখায় বিচ্ছিন্ন রাজশাহী

শিক্ষাবিদ প্রফেসর মো. হানিফ আর নেই

নামাজের পূর্বের ৭টি ফরজ কাজ সম্পর্কে জানুন


১০ থেকে ৩০ সেমি অব্দি লম্বা এই উড়ন্ত মাছটির মোট চারটি পাখনা আছে। এ পাখনার মধ্যে দুটি বড় বক্ষপাখনা এবং পেছনে দুটি ছোট পাখনা। পাখনার ভেতরে হাওয়া ভরা থাকায় ওজনেও হালকা এই বক্ষপাখনাগুলো প্রসারিত করেই এরা বাতাসে ভেসে থাকে। লেজও তুলনামূলকভাবে অনেক লম্বা যা এরা পানি থেকে ওপরে উঠতে ব্যবহার করে। 

গ্রীষ্মমণ্ডলীয় সাগরে উড়ুক্কু মাছেরা নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রেখেছে দীর্ঘদিন ধরে। পাখি ও ডাইনোসরদের আগে থেকেই এ মাছের অস্তিত্ব ছিল পৃথিবীতে। সম্প্রতি চীনের জাদুঘরে থাকা উড়ুক্কু মাছের ফসিল বা জীবাশ্ম গবেষণা করে গবেষকেরা বলছেন প্রায় ২৩ থেকে ২৪ কোটি বছর আগের মধ্য ট্রায়াসিক যুগে ‘পোটানিক্সাস কিংজিনসাস’ নামের উড়ুক্কু মাছের প্রজাতির অস্তিত্ব ছিল পৃথিবীতে, যা জুরাসিক যুগের ডাইনোসরদের চেয়েও ৫কোটি বছর আগেকার। 

মাছটির আদি নিবাস ভারত মহাসাগরে হলেও উষ্ণমন্ডলের সব সাগরেই এই মাছ দেখা যায়। খুজে পাওয়া প্রায় ৭১টি প্রজাতির এ মাছের অধিকাংশই সামুদ্রিক এবং সাধারণত বড় ঝাঁক বেঁধে চলে।


 
রঙ-বেরঙের আলোর প্রতি উড়ুক্কু মাছের রয়েছে মারাত্মক দুর্বলতা। এই আলোর নেশাকে কাজে লাগায় মাছ শিকারিরা। নজরকাড়া নানা রকম আলোর ফাঁদে সুকৌশলে ছড়ানো জালের মধ্যে আটকে ফেলে এদের। তখন সাঁতার হোক কিংবা ওড়া, সব জারিজুরি খতম হয়ে মানুষের খাদ্যে পরিণত হয়।

উড়ুক্কু মাছ খেতে সুস্বাদু। বাণিজ্যিকভাবে জাপান, ভিয়েতনাম, বার্বাডোস ও ভারতে খাওয়ার জন্য এ মাছ প্রচুর ধরা হয়। ক্যারিবীয় দ্বীপরাষ্ট্র বার্বাডোসের জাতীয় মাছ এটি। বাংলাদেশে ৩টি প্রজাতি পাওয়া যায়। আপনি খেতে চাইলে সেন্ট মার্টিন দ্বীপসহ আমাদের দেশের সমুদ্র তীরবর্তী অনেক খাবারের দোকানে খেতে পারবেন ফ্লাইংফিশ।

হারুন আল নাসিফ : কবি, ছড়াকার, সাংবাদিক

news24bd.tv আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

লঙ্গরখানা: গুরু নানকের আসল ব্যবসা!

হারুন আল নাসিফ

লঙ্গরখানা: গুরু নানকের আসল ব্যবসা!

লঙ্গরখানা শব্দটির অর্থ আমরা জানি। আর্তদের বিনামূল্যে খাদ্য বিতরণের জন্য আপৎকালে লঙ্গরখানা খোলা হয়। লঙ্গরখানা শিখধর্মের সঙ্গে ওতোপ্রোতভাবে জড়িত। অবশ্য শিখরা লঙ্গরখানা শব্দ ব্যবহার করেন না, তারা কেবল লঙ্গর শব্দটি ব্যবহার করেন।

শিখদের উপাসনালয়কে বলা হয় গুরুদুয়ারা, লঙ্গর তারই অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। লঙ্গর ব্যতীত গুরুদুয়ারা সম্ভব নয়। লঙ্গরের মানবিক বৈশিষ্ট্য আমাদের কৌতূহলকে উসকে দেয়। লঙ্গর শব্দটি ফারসি। এর অর্থ: সমাজের দুঃস্থ ও নিঃস্বদের সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান। সুফি-দরবেশদের খানকা বা আস্তানাকেও ফারসি ঐতিহ্যের সুবাদে লঙ্গর বলা হয়।

শিখদের বিশ্বাস নানকের যখন কুড়ি বছর বয়স, তখন তাঁর বাবা তাকে কিছু টাকা দিয়ে ব্যবসা-বাণিজ্য করতে বলেন। নানক দরিদ্র মানুষ দেখে বিচলিত ছিলেন। তাই তিনি টাকা দিয়ে গরীব-দুঃস্থদের আহারের ব্যবস্থা করলেন। বাবা জিজ্ঞেস করলেন, টাকা দিয়ে কী ব্যবসা করলে শুনি? নানক বললেন, টাকা দিয়ে দরিদ্র মানুষকে খাইয়েছি। এ-ই হল আসল ব্যবসা! এটি লঙ্গরের আদিকথা।

শিখরা বিশ্বাস করেন ক্ষুধার্ত থেকে ঈশ্বরের সাধনা-আরাধনা সম্ভব না। যে কারণে লঙ্গর ছাড়া গুরুদুয়ারা হয় না। কেবল প্রার্থনাসভা শিখদের কাছে মূল্যহীন। লঙ্গরে খেতে দেওয়া হয় রুটি, ডাল ও নিরামিষ। গুরু অঙ্গদের সময়ে অবশ্য মাংস দেওয়া হত। পরে মাংস বাদ দেওয়া হয়। এর কারণ, লঙ্গরে বৈষ্ণব সম্প্রদায়ের লোকজন যেন আসতে পারে। লঙ্গর কেবল শিখদের জন্য নয়, ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে সবারই জন্য।

লঙ্গরকে ‘গুরু কা লঙ্গর’ বলা হয়। গুরু মানে গুরু নানক। ঢাকায় যে গুরুদুয়ারা রয়েছে, সেখানেও প্রতি শুক্রবার লঙ্গরের ব্যবস্থা করা হয়। লঙ্গরের মূল উদ্দেশ্য মানবজাতির সেবা। লঙ্গরের রান্নাঘরকে বলা হয় ‘পবিত্র রান্নাঘর’ বা ‘হলি কিচেন। রান্নাবান্নার কাজটি করে শিখরাই, ‘হলি কিচেনে’ পেশাদার বাবুর্চির প্রবেশ নিষেধ।

রান্না ও খাবার পরিবেশনে এমনকি ছোট ছোট শিখ শিশুরাও অংশ নেয়।

দিল্লির গুরুদুয়ারার লঙ্গরে বছরের প্রতিটি দিনই দু’বার করে খাবার পরিবেশন করা হয়। প্রতিদিন এখানে ৫০,০০০ থেকে ৭০,০০০ মানুষের খাবার আয়োজন করা হয়। প্রতি সপ্তাহে এক কিংবা একাধিক শিখ পরিবার লঙ্গরের দায়িত্ব নেয়। পরিবারের সদস্যরা স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে কাজ করেন। তারা বাজার, রান্নাবান্না থেকে শুরু করে খাবার পরিবেশনা, এমনকি ধোয়া মোছার কাজ পর্যন্ত করেন।

পাঞ্জাবের অমৃতসরের স্বর্ণ মন্দিরে প্রতিদিন একলাখ লোকের খাবারের আয়োজন করা হয়। প্রতিদিন ২ লাখ রুটি ১৫০০ কেজি ডাল রান্না হয় আগতদের জন্য। পৃথিবীর সবচে বড় ফ্রি খাবার সার্ভিস এটি। প্রতিটি গুরুদুয়ারায় লঙ্গর আছে কিন্তু অমৃতসরের স্বর্ণ মন্দিরের লঙ্গর একটি আলাদা ব্যাপার। সাপ্তাহিক ছুটি ও অন্যান্য বন্ধের দিনে খাবারের পরিমান দ্বিগুণ হয়। লঙ্গর কখনো বন্ধ থাকে না।


আরও পড়ুনঃ


২৮ হাজার লিটার দুধ নিয়ে নদীতে ট্যাঙ্কার!

গালি ভেবে গ্রামের নাম মুছে দিলো ফেসবুক

ভারতে যেতে আর বাধা নেই পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের

করোনায় কাজ না থাকলেও কর্মীদের পুরো বেতন দিচ্ছেন নেইমার


অমৃতসরের স্বর্ণ মন্দিরের লঙ্গরে এক লাখ লোকের জন্য ৭০০০ কেজি আটা, ১২০০ কেজি চাল, ১৩০০ কেজি ডাল ৫০০ কেজি ঘি ব্যাবহার হয় খাবার তৈরিতে। এতে ১০০ এল পি জি সিলিন্ডার, ৫০০০ কেজি লাকড়ি আর রুটি তৈরিতে বৈদ্যুতিক মেশিন ব্যাবহার হয়।

এই সুবিশাল রান্না ঘর চালায় ৪৫০ জন কর্মী এবং মন্দির পরিদর্শনে আসা কয়েকশ স্বেচ্ছাবেী। এরা তিনলাখ প্লেট, চামচ, বাটি ধুয়ে দেন। এর অর্থ সারা পৃথিবী থেকে স্বেচ্ছায় দান হিসাবে পাঠানো হয়। এই বিশাল কর্মযজ্ঞে বছরে ১০ কোটি ডলার খরচ হয়।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বিলুপ্তির পথে বিরল প্রাণী বনরুই

হারুন আল নাসিফ

বিলুপ্তির পথে বিরল প্রাণী বনরুই

বনরুই আঁশযুক্ত পিপীলিকাভুক দন্তহীন স্তন্যপায়ী প্রাণী। অনেকে এদের পাতালপুরী রুইও বলে। আঁশযুক্ত শরীর ও মৎসাকৃতি গঠনে বনজঙ্গলে চলাফেরা করা এই প্রাণীটিকে দেখতে রুই মাছের মতো লাগার কারণে বনরুই বলা হয়ে থাকে। এরা বিপদের আভাস পেলে নিজের শরীর গুটিয়ে নেয় বলে মালয় ভাষায় এদের বলে ‘পেঙ্গুলিং’- যেখান থেকে এসেছে এদের ইংরেজি নাম প্যাঙ্গোলিন।

এই স্তন্যপায়ী প্রাণীটি বাংলাদেশে মহাবিপন্ন। লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান, পার্বত্য চট্টগ্রামের বনাঞ্চল ও উত্তরবঙ্গের কিছু এলাকায় অল্পসংখ্যক বনরুই অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই করছে। ভারত, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কায়ও বনরুই আছে।

পৃথিবীর ৮ প্রজাতির বনরুইয়ের মধ্যে বাংলাদেশে তিনটির অস্তিত্ব ছিল। বর্তমানে কেবল ভারতীয় বনরুই (Indian Pangolin) ও চায়না বনরুই (Chinese Pangolin) পাওয়া যায়। এশীয় বৃহৎ বনরুই (Asian Giant Pangolin) নামে অপর একটি বনরুই চিরতরে বিলুপ্ত হয়ে গেছে।

এদের শরীর ও লেজ গাঢ় বাদামি রঙের। বুক ও পেটে সামান্য লোম; আঁশের ফাঁকে ফাঁকেও লোম দেখা যায়। নাক সরু ও চোখা। জিভ লম্বা ও আঠালো। চোখ ও কান সরু। সামনের নখরগুলি পেছনের নখরের তুলনায় দ্বিগুণ লম্বা।

মাথাসহ শরীরের দৈর্ঘ্য ৬০-৭৫ সেমি, লেজ ৪৫ সেমি। শরীর নিচু ও প্রায় মাটি-ছোঁয়া। পিঠ, পাশ, হাত-পায়ের উপরদিক ও গোটা লেজ বড় বড় ত্রিকোণ শক্ত আঁশে ঢাকা। নিচের চামড়া থেকে আঁশ গজায় এবং বুকের দিক ছাড়া গোটা শরীর রক্ষা করে। আঁশ একেকটি করে ঝরে পড়ে ও নতুন করে গজায়।

এরা ভয় পেয়ে বলের মতো শরীর গুটিয়ে ফেলে, আঁশগুলো খাড়া করলে বনরুইকে সজারুর মতো দেখায়। এরা দুর্গন্ধযুক্ত এক ধরনের তরল নিঃসরণ ঘটাতে পারে।

 

বনরুই বড় ও মজবুত নখর দিয়ে কাঠের শক্ত গুঁড়ি ফেড়ে ফেলে এবং লম্বা ও আঠালো জিভ দিয়ে পোকামাকড় চেটে খায়। বুকে অবস্থিত গ্রন্থি পর্যাপ্ত লালা যুগিয়ে জিভ ভিজিয়ে রাখে। পিঁপড়া ও উইয়ের ঢিবি ভাঙার জন্য ওরা অগ্রপদের বাঁকা নখরগুলো কাজে লাগায়।

এদর নাকে ঢাকনি রয়েছে এবং পিঁপড়া খাওয়ার সময় পুরু চোখের পাতা পিঁপড়ার কামড় থেকে চোখগুলো বাঁচায়। এরা নখর গুটিয়ে অগ্রপদের ওপর ভর দিয়ে শরীর টেনে টেনে হাঁটে, কিন্তু শুধু পিছনের পায়ে ভর দিয়ে লেজের সাহায্যে ভারসাম্য রেখে দৌড়াতে পারে।

এরা নিশাচর, দিনের বেলায় নিজের খোঁড়া ২০০-৫০০ সেমি গভীর গর্তে কিংবা পাথরের মাঝখানে শরীর গুটিয়ে লুকিয়ে থাকে।বছরে একটি বা দৈবাৎ দুটি বাচ্চা প্রসব করে।

১৯৭৪ সালের বন্যপ্রাণী আইনে বনরুইকে সংরক্ষিত ঘোষণা করা হয়েছে। প্রাণীটি এতোটাই হুমকির সম্মুখীন যে, আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ সংঘ (আইইউসিএন) বনরুইকে লাল তালিকায় স্থান দিয়েছে।

বন্যপ্রাণী পাচারের ওপর নজরদারি করা বেসরকারি আন্তর্জাতিক সংস্থা ‘ট্রাফিক’-এর এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, পৃথিবীতে যত প্রকার স্তন্যপায়ী বন্যপ্রাণী রয়েছে তারমধ্যে মধ্যে বনরুই সবচেয়ে বেশি পাচারের শিকার হয়।


আরও পড়ুনঃ


গালি ভেবে গ্রামের নাম মুছে দিলো ফেসবুক

পাঁচ দেশের সঙ্গে বিশেষ ফ্লাইট শুরুর ঘোষণা

এ বছর ৩৬ লাখেরও বেশি দরিদ্র পরিবার পাবে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার

প্রকৃত কোন মুসলমান আওয়ামী লীগ করতে পারে না: ভিপি নুর


প্রতিবেদন অনুযায়ী, সারা বিশ্বে প্রতিবছর কমপক্ষে ২০ টন বনরুইয়ের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ পাচার হয়। এরমধ্যে বাংলাদেশসহ এশিয়া ও আফ্রিকার দেশগুলো থেকে গত ১৬ বছরে অন্তত ১৬ লাখ বনরুই পাচারের ঘটনা ঘটেছে। যা বন্যপ্রাণী পাচারের সংখ্যার দিক দিয়ে সবার শীর্ষে।

২০১৬ সালে সাইটিসের কপ (CITES Conference of Parties) সম্মেলনে আইইউসিএন এক প্রতিবেদনে জানায়, ২০১৪ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত, শুধু এই তিন বছরেই বিশ্বব্যাপী পাঁচ লাখ বনরুই পাচারের শিকার হয়েছে।

গবেষকদের মতে, আশু পদক্ষেপ না নিলে এই বন্যপ্রাণীটি অচিরেই বাংলাদেশ থেকে চিরতরে হারিয়ে যাবে।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

পৃথিবীর দুই বিরল সাদা জিরাফ

হারুন আল নাসিফ

পৃথিবীর দুই বিরল সাদা জিরাফ
কিছুদিন আগেও পৃথিবীতে চারটি সাদা জিরাফ ছিলো। তিনটি কেনিয়ায়, একটি তানজানিয়ায়। কিন্তু চোরাশিকারিরা ২০২০ সালের মার্চে কেনিয়ার দক্ষিণ-পূর্ব অংশে একটি সাদা মা জিরাফ ও তার বাচ্চাকে মেরে ফেলায় সেখানে এখন মাত্র একটি সাদা জিরাফ অবশিষ্ট রয়েছে।
 
২০১৭ সালে এই মা জিরাফ ও তার বাচ্চাকে কেনিয়ার ইশাকবিনি হিলোরা কনজারভেন্সিতে অন্য জিরাফদের সঙ্গে ঘুরতে দেখা যায়। তখন তাদের বেশ কিছু ছবি ও একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল।

কলকাতায় বর্ষবরণে মঙ্গল শোভাযাত্রা

যন্ত্রাংশের প্যাকেটে রাখা বোমার বিস্ফোরণে শিশু নিহত

লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে করোনা শনাক্ত ৪১৯২


কেনিয়ার অবশিষ্ট জিরাফটির সুরক্ষার জন্য ২০২০ সালের নভেম্বরে এর একটি শিংয়ে একটি ট্রেকিং ডিভাইস সংযুক্ত করা হয়েছে। এই ডিভাইসটির মাধ্যমে ঘণ্টায় ঘণ্টায় জিরাফটির অবস্থান সম্পর্কে আপডেট পাওয়া যাবে। ফলে চলাফেরা পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে চোরাশিকারিদের হাত থেকে একে বাঁচানোর চেষ্টা করা সম্ভব হবে।

 
তানজানিয়ার তারাংগির ন্যাশনাল পার্কের রয়েছে অপর একটি সাদা জিরাফ। এটি দলের অন্য জিরাফদের সঙ্গে মিলেমিশেই থাকে। এর সঙ্গীরাও তার ব্যতিক্রম রঙে মোটেই বিচলিত নয়। তবে সাদা রঙের কারণে শিকারিরা আকৃষ্ট হয় বেশি। যেমনটি হয়েছে কেনিয়ার মা জিরাফ ও এর বাচ্চার বেলায়।
 
লুসিজম নামক একটি জিনগত সমস্যার কারণে প্রাণীদের ত্বকের কিছু কোষ ছাড়া বাকি কোষগুলো রঞ্জক উপাদান তৈরি করতে পারে না। তাই এদের গায়ের রং সাদাটে ধরনের হয়। তবে এদের সম্পূর্ণ আলবিনো বা ধবলগ্রস্ত প্রাণীদের মতো একেবারেই সাদা দেহ আর নীল বা লাল রঙের চোখ হয় না। আলবিনো প্রাণীদের ত্বকে মেলানিন উৎপন্ন হয় না। এদের দৃষ্টিশক্তি নষ্ট হয়ে যায়, কিন্তু লুসিস্টিকদের হয় না। ফলে তাদের বেঁচে থাকতে সমস্যা হয় না।
 
এই দুই সাদা জিরাফের মধ্যে কেনিয়ার জিরাফটি একটু বেশি সাদা। আর তানজানিয়ারটি একটু কম। বিশেষ করে এর পায়ের দিকে রঙের ছোপ দেখা যায়। স্বাভাবিক জিরাফের মতো না হলেও তা একবারে সাদাও নয়। কিন্তু শিকারির হাতে মারা পড়া জিরাফদুটো আরো বেশি সাদা ছিলো।
 
news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

করোনায় ম্লান বৈসাবি উৎসব

অনলাইন ডেস্ক

করোনায় ম্লান বৈসাবি উৎসব

বৈসাবি পাহাড়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎসব। ত্রিপুরাদের বৈসু, মারমাদের সাংগ্রাই আর চাকমাদের বিঝু- এ তিন উৎসবের আদ্যাক্ষর নিয়ে তৈরি বৈসাবি শব্দটি।

বৈশ্বিক মহামারী কোভিড-১৯ সংক্রমণ আতঙ্কের মধ্যেও শুরু হয়েছে পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর তিন দিনব্যাপী বৈসাবী উৎসব। সোমবার (১২ এপ্রিল) কাপ্তাই হ্রদের গঙ্গা দেবীর উদ্দেশ্যে ফুল ভাসানোর মধ্যদিয়ে শুরু হয় এই উৎসবের।

সোমবার সকালে বড় কোনো আনুষ্ঠানিকতা ছাড়াই স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভগবানের আশীর্বাদ প্রার্থনা করে কাপ্তাই হ্রদে গঙ্গা দেবীর উদ্দেশে পানিতে ফুল ভাসিয়ে উৎসবের সূচনা করেন। এসময় করোনা থেকে মুক্তির প্রার্থনা করা হয়।

ফুল ভাসানোর মধ্য দিয়েই শুরু হয় পাহাড়ি জনগোষ্ঠীগুলোর ৩ দিনব্যাপী প্রধান এই উৎসব। আগামীকাল মঙ্গলবার মূলবিজু পালিত হবে। বুধবার গোজ্যেপোজ্যে দিন পালিত হবে যার যার ঘরে।


আরও পড়ুনঃ


শুধুমাত্র পরিবারের সদস্যদের নিয়েই হবে প্রিন্স ফিলিপের শেষকৃত্য

বাংলাদেশের জিহাদি সমাজে 'তসলিমা নাসরিন' একটি গালির নাম

করোনা আক্রান্ত প্রতি তিনজনের একজন মস্তিষ্কের সমস্যায় ভুগছেন: গবেষণা

কুমারীত্ব পরীক্ষায় 'ফেল' করায় নববধূকে বিবাহবিচ্ছেদের নির্দেশ


এ বিষয়ে বিজু, বৈসু, সাংগ্রাইং-২০২১ উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব ইন্টু মনি চাকমা জানান, বৈসাবির উৎসবকে কেন্দ্র করে প্রতি বছর এই ৩ দিনে আনন্দ উৎসবে মেতে থাকলেও এবছরও করোনা মহামারী পাহাড়ের ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মানুষের আনন্দ ম্লান করে দিয়েছে। সরকারের নির্দেশনা ও নিজেদের বাঁচিয়ে রাখতে সামাজিক দূরত্ব মেনে পালন করছে বৈসাবি উৎসব।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

শ্রীমুখ: এক ঘর-এক বাড়ি-এক গ্রাম

হারুন আল নাসিফ

শ্রীমুখ: এক ঘর-এক বাড়ি-এক গ্রাম

এশিয়ার সবচেয়ে বড় গ্রাম বাংলাদেশেই। হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং। এটি প্রায় সবাই জানেন। কিন্তু এশিয়ার সবচেয়ে ছোট গ্রামও যে বাংলাদেশে অবস্থিত এ কথা সম্ভবত খুব কম লোকই জানেন।

প্রাপ্ত তথ্য মতে সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার ‘শ্রীমুখ’ গ্রামটিই এশিয়ার সবচেয়ে ছোট গ্রাম! ৬০ শতক জায়গাজুড়ে ‘এক ঘর-এক বাড়ি-এক গ্রাম’ খ্যাত এই শ্রীমুখ গ্রাম।

এর আগে এশিয়ার সবচেয়ে ছোট গ্রাম হিসেবে আলোচিত হওয়া কুমিল্লা জেলার লালমাই উপজেলার বেলঘর ইউপির ‘তিলইন’ গ্রামের জনসংখ্যা ৪০ জন। তাদের সবাই সনাতন ধর্মের বলে জানা গেছে।

শতাব্দী-প্রাচীন শ্রীমুখ গ্রামের বর্তমান জনসংখ্যা পাঁচজন। তাদের মধ্যে রয়েছেন একজন পুরুষ, তিনজন নারী ও একজন শিশু। এদের সবাই একই পরিবারের সদস্য।

শ্রীমুখ গ্রামটি সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার খাজাঞ্চি ইউনিয়নে অবস্থিত। সরকারি গেজেটভুক্ত এই গ্রামটিতে দীর্ঘদিন থেকেই একটি মাত্র পরিবার বসবাস করে আসছে।

উপজেলা সদর থেকে নয় কিলোমিটার দূরে অবস্থিত খাজাঞ্চি ইউনিয়ন। এর ৫ নম্বর ওয়ার্ডের অর্ন্তগত তেলিকোনা ও পশ্চিম নোয়াগাঁওয়ের মধ্যবর্তী স্থানে শ্রীমুখ অবস্থিত।

 

শ্রীমুখ গ্রামে এক সময় ছিল একটি হিন্দু পরিবারের বসবাস। ১৯৬৪ সালে দাঙ্গার সময় পরিবারটি তাদের বাড়ি বর্তমান বাসিন্দা আলতাফ আলীর পূর্ব-পুরুষের কাছে বিক্রি করে অন্যত্র চলে যান। এরপর থেকে আলতাফ আলীর পরিবার এ বাড়িতেই বসবাস করে আসছেন। বর্তমানে আলতাফ আলী সৌদি প্রবাসী। বাড়িতে বসবাস করছেন তার দুই বোন ও স্ত্রী-কন্যা।

গ্রামটির চারদিকে ফসলি জমি, বাঁশ ঝাড়, জঙ্গল ও কাদামাটিতে পরিবেষ্টিত। কাদামাটি ও পানি পেরিয়ে কোনো রকমে ঢুকতে হয় রাস্তাবিহীন এ গ্রামে।

সৌদি প্রবাসী আফতাব আলীর স্ত্রী রাহিমা বেগম। তাদের একমাত্র মেয়ে প্রতিদিন কাদামাটি-পানি পেরিয়ে একটি কিন্ডারগার্টেনে যায়। আর্থিক দুরবস্থার কারণে তাদের ব্যবহার করতে হয় কাঁচা শৌচাগার। একমাত্র টিউবওয়েলটি নষ্ট থাকায় পুকুরের পানি পান করতে হচ্ছে।


আরও পড়ুনঃ


সন্তানদের লড়াই করা শেখান

নিউইয়র্ককে টপকে এখন বিলিয়নিয়ারদের শহর বেইজিং

শুধুমাত্র পরিবারের সদস্যদের নিয়েই হবে প্রিন্স ফিলিপের শেষকৃত্য

করোনা আক্রান্ত প্রতি তিনজনের একজন মস্তিষ্কের সমস্যায় ভুগছেন: গবেষণা


শ্রীমুখ গ্রামের জনসংখ্যা মাত্র পাঁচজন হওয়ায় তারা পার্শ্ববর্তী পশ্চিম নোয়াগাঁওপঞ্চায়েতের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন। ছোট একটি আইলই চলাচলের একমাত্র অবলম্বন। বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে নৌকা ছাড়া বাড়ি থেকে কোথাও যাওয়া যায় না। শুকনো মৌসুমেও কাদা মাড়িয়ে চলাচল করতে হয়।

শ্রীমুখের পার্শ্ববর্তী জায়গার মালিকেরা জমি দিয়ে সহযোগিতা করলে রাস্তা নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে বলে জানায় স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সূত্র।

পর্যবেক্ষক মহল মনে করে, সঠিকভাবে যাচাই-বাছাই করা হলে শ্রীমুখ গ্রামটি বিশ্বের সবচেয়ে ছোট গ্রাম হিসেবে স্বীকৃতি পেতে পারে। এমনকি গিনেজ বুকে নাম লেখাতে পারে ‘শ্রীমুখ’।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর