কুয়েতে পরকীয়ার কারণে বাংলাদেশ দূতাবাসের দুই কর্মী প্রত্যাহার

অনলাইন ডেস্ক

কুয়েতে পরকীয়ার কারণে বাংলাদেশ দূতাবাসের দুই কর্মী প্রত্যাহার

কুয়েতস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের পাসপোর্ট ও ভিসা উইংয়ে কর্মরত এক প্রশাসনিক কর্মকর্তা এবং একজন অফিস সহকারীকে পরকীয়ার কারণে প্রত্যাহারের আদেশ জারি করেছে সরকার। 

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সিনিয়র সহকারী সচিব ইকবাল আখতার গত ১৮ই ফেব্রুয়ারি পৃথক আদেশ জারি করেন। কুয়েতের বাংলাদেশ দূতাবাসের সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়।

সূত্রে জানা যায়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা কেএনএম জিল্লুর রহমান ও অফিস সহকারী কাম-কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক মো. ওবায়দুর রহমান কুয়েতের বাংলাদেশ দূতাবাসে কাজ করার সুবাদে দুই পরিবারের মধ্যে বেশ ঘনিষ্ঠতা গড়ে ওঠে। সেই সুযোগে প্রশাসনিক কর্মকর্তা জিল্লুর রহমানের সঙ্গে ওবায়দুরের স্ত্রীর পরকীয়ার সম্পর্ক তৈরি হয়। বিষয়টি জানাজানি হলে জিল্লুর রহমানের স্ত্রী কুয়েত পুলিশ প্রশাসনে নালিশ জানান। 


পাপুলের আসনে উপনির্বাচনের তারিখ ঘোষণা

বিক্রি হওয়া সেই শিশু ফিরে পেলেন মা

হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামীণ সৌন্দর্য

১২ তলা থেকে পড়েও বেঁচে আছেন তিন বছরের শিশু (ভিডিও)


যার ভিত্তিতে কুয়েত প্রশাসন বাংলাদেশ হাইকমিশনে গিয়ে অভিযোগ তদন্ত করে এবং ঘটনার সত্যতা পায়। এরপর কুয়েতের বাংলাদেশ হাইকমিশনকে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ জানায় কুয়েত প্রশাসন। যার ভিত্তিতে তাদেরকে প্রত্যাহার করা হয়।

এদিকে পরকীয়ার ঘটনা জানাজানি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে জিল্লুর ও ওবায়দুর তাদের পরিবারকে ঢাকায় পাঠিয়ে দেন। এখন তাদের দু’জনকে দেশে ফিরতে হচ্ছে।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

স্পেনে আরও সহজ হল বৈধভাবে বসবাসের উপায়

ইসমাইল হোসাইন রায়হান, স্পেন প্রতিনিধি

স্পেনে আরও সহজ হল বৈধভাবে বসবাসের উপায়

ইউরোপের দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ স্পেন বরাবরই অদিবাসীদের কাছে পছন্দের একটি দেশ। বিশেষ করে সহজ শর্তে বৈধ হওয়ার সুযোগ থাকায় দেশটিতে অভিবাসীরা ভিড় জমান। অভিবাসীদের স্বাধীনভাবে স্পেনে প্রবেশের অনুমতি দান করার ক্ষেত্রে ইউরোপিয়ান দেশগুলোর মধ্যে স্পেন প্রথম।

বর্তমানে স্পেনে অভিবাসীদের জন্য নাগরিকত্ব আইন আরো সহজ হল। টানা দুই বছর স্পেনে বসবাসের ডকুমেন্টেসহ ছয় মাস বৈধভাবে কাজ করার প্রয়জনীয় কাগজপত্র জমা দিলে মিলবে এই বৈধতা। সম্প্রতি স্পেনের একটি আদালত নাগরিকত্ব আইন সংশোধন করে নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়েছে। গত ২৫ মার্চ স্পেনের গ্রানাডার একটি আদালত একজন অভিবাসী মহিলার আবেদনের প্রেক্ষিতে এই রায় দেন।

ইউরোপের একমাত্র দেশ স্পেন যেখানে ইউরোপের বাইরের তৃতীয় দেশের ক্ষেত্রে মাইগ্রেশন প্রক্রিয়াটা খুবই সহজ এবং নমনীয় যে কেউই খুব সহজেই এখানে থাকার ইচ্ছা পোষণ করলে ন্যূনতম শর্তে বসবাস করার সুযোগ পায়।

এখানে বিদেশিরা ১০ বছর নিয়মিত থাকার পর নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করতে পারে এবং তিন বছর নিয়মিত থাকার পর যদি তাদের সন্তান জন্মগ্রহণ করে তাহলে সে স্প্যানিশ নাগরিকত্ব পায়।

এই আইন অনুযায়ী এখন অনিয়মিতভাবে বসবাসকারী পিতা মাতার সন্তান জন্ম হলেও সে স্প্যানিশ নাগরিকত্ব পাবে বা দুজনের মধ্যে একজন স্পেনে নিয়মিতভাবে বসবাস করলে তাদের সন্তান ও স্প্যানিশ নাগরিকত্ব পাবে।

নতুন আইন অনুযায়ী এক সাথে টানা দুই বছর স্পেনে বসবাসের ডকুমেন্টের সাথে ৬ মাস বৈধভাবে কাজ করার প্রয়জনীয় কাগজপত্র জমা দিয়ে বৈধ হওয়া যাবে। এজন্য কোনো কোম্পানির কিংবা শপের অনুমতি পেপারও লাগবে না, আগে যা প্রযোজ্য ছিল।

আবেদনের নতুন নিয়ম

স্পেন দুইবছর থেকে বসবাস করছেন এবং বিভিন্ন এসাইলাম নিয়ে কাজের পারমিশন পেয়ে কমপক্ষে ছয়মাস কাজ করেছেন এবং তার বিরুদ্ধে কোনো ক্রাইমে জড়িত থাকার প্রমাণ না থাকে। শুধুমাত্র তারাই এই আবেদন করতে পারবেন। এছাড়া যাদের পূর্বে স্পেনের রেসিডেন্স কার্ড ছিলো কোনো কারণে তাদের কার্ড বাতিল হয়ে গিয়াছে। এরকম যারা আছেন তাদের কর্মসংস্থান রেকর্ড প্রতিবেদন (বিদালাবোরাল) ছয় মাসের যদি থাকে তারা এ সুবিধার আওতায় পড়বেন।

এই জন্য কোনো কাজের কন্ট্রাকের প্রয়োজন হবে না বা আরাইগো সার্টিফিকেটের প্রয়োজন হবে না। শুধু বিদালাবেরালের কপি এবং বাংলাদেশের পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট হলেই স্পেনে বৈধতা পেতে পারে'। এ জন্য যে কেউ চাইলে সরাসরি বৈধতার জন্য আবেদন করতে পারবেন। এই নিয়মের বাইরে অন্যানরা এই নিয়মে বৈধতার জন্য আবেদন করতে পারবেন না। তবে আবার যারা এসাইলাম কিংবা কাজের পারমিশন ছাড়া স্পেনে বসবাস করছেন তারাও স্পেনের অভিবাসী হওয়ার জন্য আবেদন করতে পারবেন। তবে এই ক্ষেত্রে সময় একটু বেশি লাগবে। এ ছাড়া এশিয়ার বিভিন্ন দেশের অধিবাসীদের জন্যও একইরকম সুযোগ রয়েছে।

তাছাড়া বৈবাহিক সূত্রে স্পেনের নাগরিকত্ব পেতে হলে পূর্বে তিন বছর সময় লাগতো। কিন্তু বর্তমান আইনে তা দুই বছর করা হয়েছে এবং আরও বিভিন্ন অনুচ্ছেদে সময় উপযোগী কিছু সংশোধন করা হয়েছে।


আরও পড়ুনঃ


বাঙ্গি: বিনা দোষে রোষের শিকার যে ফল

৫৩ জন নাবিকসহ নিখোঁজ ইন্দোনেশিয়ার সাবমেরিন

ভিক্ষা করে হলেও অক্সিজেন সরবরাহের নির্দেশ ভারতে

১৫ বছর ধরে কাজে যান না, বেতন তুললেন সাড়ে ৫ কোটি টাকা!


এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রথম সচিব (শ্রম) মুতাসিমুল ইসলাম বলেন, ‘নতুন এই আইনে বাংলাদেশিদের বৈধ হওয়ার সুযোগ তৈরি হলে বাংলাদেশের পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেটসহ দূতাবাসের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করা হবে।’

এ ব্যাপারে মানবাধিকার সংগঠন ভালিয়েন্তে বাংলার সভাপতি মো. ফজলে এলাহী বলেন, ‘স্পেনে বিভিন্ন এসাইলাম নিয়ে স্পেনে প্রায় ৫ হাজার বাংলাদেশি অভিবাসী রয়েছেন। তারা অধিকাংশ এর আওতায় বৈধ হওয়ার সুযোগ রয়েছে। তিনি এজন্য কাউকে কোনো দালাল কিংবা উকিলের শরণাপন্ন হয়ে সর্বস্বান্ত না হওয়ার আহ্বান জানান।’

ইউরোপের অন্যান্য দেশ যেমন ইতালি, গ্রিস, ফ্রান্স, বেলজিয়াম, জার্মানিসহ অন্যান্য দেশে যেহেতু নাগরিকত্ব পাওয়াটা অনেক জটিল এবং অনেক দীর্ঘ প্রক্রিয়া কাজেই যারা ইউরোপে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে চায় তারা সাধারণত স্পেনকেই বেছে নেয়'। স্প্যানিশ পাসপোর্টধারী বাঙালিদের সংখ্যা অনেক যারা এখন পরিবার নিয়ে যুক্তরাজ্য, সুইজারল্যান্ড, নরওয়ে, সুইডেনসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বসবাস করছেন। তা ছাড়া ব্যবসা বাণিজ্য করাটা ও এখানে অনেক সহজ বিধায় বাংলাদেশিরা এখানে সহজেই নাগরিকত্ব পাওয়ার আগ পর্যন্ত থাকতে পারে আর এই কারণেই মূলত এখানে বাংলাদেশিরা অভিবাসী হয়।

news24bd.tv / নকিব

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সিঙ্গাপুর প্রবাসী ছেলের মৃত্যুর খবর এখনও জানেন না মা

অনলাইন ডেস্ক

সিঙ্গাপুর প্রবাসী ছেলের মৃত্যুর খবর এখনও জানেন না মা

সিঙ্গাপুর প্রবাসী বাংলাদেশি শ্রমিক তোফাজ্জল হোসেন সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছেন। তার বাড়ি লক্ষ্মীপুর জেলায়। বয়স কেবল ৩৩ পেরিয়েছে। তোফাজ্জলের উপার্জনেই সংসার চলতো। বাড়িতে তার দুই বছরের ছেলে, বিধবা স্ত্রী এবং মাসহ আরও কয়েকজন সদস্য রয়েছে।

তোফাজ্জলের ভাই আব্দুল হাজিজ বলেন, তোফাজ্জল ভাই মায়ের খুব আদরের ছিল। ২৭ বছর বয়সী হাজিজ বলেন, মাকে এখনও ভাইয়ের মৃত্যুর খবর জানাইনি। কারণ ভাইয়ের মৃত্যুর খবর শুনলে মা হয়তো বাঁচবে না। তোফাজ্জলের ৫৭ বয়সী মায়ের কিছুদিন আগে হার্টের সার্জারি হয়েছিল।

হাজাজ আরও জানান, মাকে আমরা শুধু বলেছি যে, ভাইয়ের অ্যাক্সিডেন্ট হয়েছে। তোফাজ্জল ২০০৯ সাল থেকে সিঙ্গাপুরে কাজ করেন। গত মঙ্গলবার সকালে তোফাজ্জলসহ আরও ১৭ জনকে বহনকারী একটি লরি একটি স্টেশনারি টিপার ট্রাককে ধাক্কা দেয়। এ ঘটনায় তোফাজ্জলের মৃত্যু হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, তারা দুর্ঘটনার খরব পেয়ে ঘটনাস্থলে যান। এসময় লরি ড্রাইভারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনার তদন্ত করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। মাইগ্রান্ট ওয়ার্কার্স সেন্টার (এমডব্লিউসি) এক ফেসবুক পোস্টে জানায়, আহত হওয়া ৯ জন কর্মী হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছে। আর সাতজন হাসপাতালে রয়েছে। তাদের মধ্যে দুইজন আইসিইউতে রয়েছে।

আরও পড়ুন


অস্ত্র-গুলিসহ শাহজালাল বিমানবন্দরে চিকিৎসক দম্পতি আটক

ভ্যাকসিনের জন্য ভারত-বাংলাদেশ সুসম্পর্ক নষ্ট হবে না: দোরাইস্বামী

হরিণের ১৫ কেজি মাংসসহ ২ পাচারকারী আটক

প্রেমের প্রস্তাবে সাড়া না দিয়ে অন্যত্র বিয়ে, যুবকের গোপনাঙ্গ কর্তন


তোফাজ্জলের ৬৩ বছর বয়সী বাবা ছেলের মৃত্যুর খবর জানেন। তিনি বলেন, আমার ছেলে খুব ভালো ছিল। ওর মন অনেক ভালো ছিল। তিনি বলেন, সবকিছু শেষ হয়ে গেছে। দয়া করে আমাদের সাহায্য করুন। হাজাজ জানান, তার বাবার ডায়বেটিস রয়েছে। সম্প্রতি তিনি করোনা থেকে সেরে উঠেছেন। এক মাস আগে তার দাদা করোনায় মারা গেছে বলেও জানান হাজাজ।

হাজাজ জানান, সবশেষ ২০১৮ সালে দেশে এসেছিল তার ভাই। ওই বছরই সে বিয়ে করে। তিনি জানান, মৃত্যুর দুই আগেও তার সঙ্গে আমাদের কথা হয়েছে। তবে তার ছেলের সঙ্গে কথা বলতে পারেননি তোফাজ্জল। রমজানের জন্য পরিবারকে ৩৫ হাজার টাকা দিয়েছিল তোফাজ্জল। এছাড়া মায়ের অপারেশনের জন্য ২ লাখ টাকাও পাঠিয়েছিলেন তিনি।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বাংলাদেশিদের ওমানে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশিদের ওমানে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

বাংলাদেশিদের ওমানে প্রবেশের উপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে দেশটির করোনাভাইরাস প্রতিরোধে গঠিত সুপ্রিম কমিটি।বাংলাদেশ ছাড়া ভারত-পাকিস্তানও এই নিষেধাজ্ঞার আওতায় রয়েছে ।

পরবর্তী নির্দেশনা না আসা পর্যন্ত বাংলাদেশের প্রবাসীরা ওমানে প্রবেশ করতে পারবেন না বলেও জানানো হয় নিষেধাজ্ঞায়। 

বুধবার ওমানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হাম্মুদ বিন ফয়সাল আল বুসাইদির নেতৃত্বে করোনা সংক্রমণ বিস্তার রোধে সুপ্রিম কমিটি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এতে বলা হয়, আগামী ২৪ এপ্রিল সন্ধ্যা ৬টার পর থেকে পরবর্তী ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত ওমানে বাংলাদেশি, ভারতীয় ও পাকিস্তানি নাগরিকদের প্রবেশ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ওমানে সড়ক দুর্ঘটনায় তিন বাংলাদেশি নিহত

অনলাইন ডেস্ক

ওমানে সড়ক দুর্ঘটনায় তিন বাংলাদেশি নিহত

ওমানে সড়ক দুর্ঘটনায় তিন বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। রোববার (১৮ এপ্রিল) স্থানীয় সময় সকাল ১০টার দিকে সালালাহ থেকে মাস্কাটগামী সড়কের আল তামরিত এলাকায় দ্রুতগামী প্রাইভেটকার নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে।

নিহতরা সবাই চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার বাসিন্দা।

নিহতদের মধ্যে জাহেদ (৪২) পোমরা ইউনিয়নের মাইজপাড়া গ্রামের সরফভাটা ইউনিয়নের আসকার আলী রোড এলাকার বাসিন্দা। এছাড়াও নিহত সালাউদ্দিন (৪০) এবং আবছারের (৪৫) বাড়ি বেতাগী ইউনিয়নের বালুরচর গ্রামে।

নিহতরা মাস্কট মডার্ন রোজ ট্রেডিং ইন্টারপ্রাইজ এলএলসি নামক একটি কোম্পানির পর্দার সেকশনে চাকরি করতেন।

কোম্পানিটির সত্ত্বাধিকারী মোহাম্মদ রেজাউল করিম দুর্ঘটনায় নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘তারা রাজাধানী থেকে ১ হাজার কিলোমিটার দূরে সালালাহ নামক অপর এক সিটিতে এক সপ্তাহ আগে পর্দার কাজ করতে গিয়েছিল। কাজ শেষ করে সকালে মাস্কটে ফিরছিল। পথে তামরিত নামক স্থানে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাড়িটি সড়ক থেকে অনেক দূরে গিয়ে পড়ে। ঘটনাস্থলেই তারা প্রাণ হারায়। নিহতদের মধ্যে গাড়িচালক জাহেদ আমার আপন ভাগিনা।


পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে যে ৩ প্রশ্নে নিশ্চুপ ছিলেন মাওলানা মামুনুল

একজন ডাক্তারের ব্যবহার নিয়ে রঙ্গ-রসিকতা নয়

মাওলানা মামুনুলকে আদালতে হাজির করা হবে আজ

সুরা আরাফ ও সুরা আনফালের বাংলা অনুবাদ


জানা গেছে, মরদেহগুলো পুলিশ উদ্ধার করে সালালাহ’র একটি হাসপাতালের মর্গে রেখেছে। সোমবার মাস্কাটে নিয়ে আসার কথা রয়েছে।

এ ঘটনায় ওমানে বাংলাদেশি কমিউনিটির মাঝে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

কানাডার অন্টারিও প্রদেশে নতুন বিধিনিষেধ আরোপ

লায়লা নুসরাত, কানাডা

কানাডার অন্টারিও প্রদেশে নতুন বিধিনিষেধ আরোপ

কানাডার অন্টারিও প্রদেশে আন্তঃপ্রদেশ ভ্রমণকে সীমাবদ্ধ করা হয়েছে। জরুরি অবস্থা এবং স্টে হোম অর্ডার দুই সপ্তাহ বাড়ানো হয়েছে। এছাড়াও করোনা সংক্রমণের হার বৃদ্ধি পাওয়ায় বিনোদনমূলক ক্রিয়াকলাপগুলিতে নতুন বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে।

প্রিমিয়ার ডগ ফোর্ড শুক্রবার এক ঘোষণায় জানিয়েছেন যে- প্রদেশের জন্য "কয়েকটি বিকল্প বাকী রয়েছে" কারণ সংক্রমণ এবং হাসপাতালে ভর্তি রেকর্ডের হার উচ্চতায় রয়েছে।

কানাডায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে।কানাডার প্রধান চারটি প্রদেশ ব্রিটিশ কলাম্বিয়া, অন্টারিও, কুইবেক এবং আলবার্টায় করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছে যা জনমনে আতঙ্কের সৃষ্টি করছে। প্রতিদিনই আক্রান্তের সংখ্যা অস্বাভাবিকভাবে বেড়েই চলেছে। শনিবার থেকে প্রদেশে কারফিউ জারী করার কথা বলা হয়েছে।

কানাডার বিভিন্ন প্রদেশে ইতিমধ্যেই মাস্ক ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ বিভিন্ন কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। কানাডার বৃহত্তম চারটি প্রদেশের মধ্যে সবচেয়ে বড় প্রদেশ হলো অন্টারিও। অন্টারিওর করোনা পরিস্হিতি ক্রমেই খারাপ থেকে ভয়াবহ খারাপের দিকে যাচ্ছে। প্রদেশের স্থানীয় পাবলিক হেলথের ডাক্তাররা করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় হতাশা প্রকাশ করেছেন, স্থানীয়রা অনেকেই তাদের মাস্ক না পরায় ও ক্রমাগত সামাজিক গ্যাদারিং করে যাওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

এদিকে অন্টারিও প্রদেশে করোনা সংক্রমণ ব্যাপকভাবে বেড়ে যাওয়ায় বিশেষ করে তরুণদের মধ্যে সংক্রমণ ব্যাপকভাবে বেড়ে যাওয়ার কারণে গত ৭ এপ্রিল যে জরুরি জনস্বাস্থ্য বিধি নিষেধ বা "স্টে হোম লকডাউন" অন্টারিও প্রদেশের জন্য জারী করা হয়েছিল জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ অনুসারে তা আরও কঠোর লকডাউনের ঘোষণা করা হয়েছে।

গত (১৬ এপ্রিল) শুক্রবার সন্ধ্যায় অন্টারিও প্রিমিয়ার ডগ ফোর্ড অন্টারিওর জরুরী অবস্থা এবং "স্টে এট হোম" অর্ডার এখন কমপক্ষে ২০ মে পর্যন্ত কার্যকর থাকবে। অন্টারিও আন্তঃপ্রদেশ ভ্রমণকে সীমাবদ্ধ করছেন ডগ ফোর্ড। অন্টারিওর সলিসিটার জেনারেল সিলভিয়া জোনস বলেছেন, পুলিশ এখন কোনও লোককে তাদের বাসস্থান ত্যাগ বা ব্যক্তিগত বিনা প্রয়োজনে তাদের বাসস্থান ত্যাগ করার কারণ অনুসন্ধান করার জন্য থামানোর কর্তৃত্ব থাকবে।

অন্টারিও প্রদেশে যে হারে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে, তার ট্রেন্ড অব্যাহত থাকলে ধারনা করা হচ্ছে, আগামী এক মাসের মধ্যে তা ভয়াবহ রূপ ধারণ করবে।

আরও পড়ুন


ভাল মানুষগুলো একে একে চলে যাচ্ছে

রাজনীতিতে ভুল হলে খেসারত দিতে হয়

দিনমজুরের ছেলের হার্ট অপারেশনের ব্যবস্থা করলেন শামীম ওসমানের স্ত্রী

করোনায় ঢাবি অধ্যাপক নজরুল ইসলামের মৃত্যু


উল্লেখ্য গতবছর যখন করোনা শুরু হয় তখন প্রতিদিন আক্রান্ত হতো হাজার খানেক। তখন সমস্ত নন ইমার্জেন্সী ও নন এসেনশিয়াল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও মানুষের চলাফেরা বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল। অথচ এখন পরিস্হিতি তার চেয়ে পাঁচগুণ বৃদ্ধি পেলেও নানাভাবে তা ঢিলে ঢালা কায়দায় নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করা হচ্ছে।

অন্যদিকে শুক্রবার (১৬ ই এপ্রিল) কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো এক ঘোষণায় বলেন, ফেডারেল সরকার আরও অতিরিক্ত আট মিলিয়ন ডোজ ফাইজার-বায়োএনটেক ভ্যাকসিন সুরক্ষিত করেছে। কানাডা ইতিমধ্যে যে ভ্যাকসিন ডোজ কিনে নিয়েছে এখনকার ফাইজার-বায়োএনটেক শটগুলি বিদ্যমান ডোজের অতিরিক্ত থাকবে এবং মে মাসে আরও চার মিলিয়ন ডোজ, জুনে দুই মিলিয়ন অতিরিক্ত শট এবং তৃতীয় কোয়ার্টারে থেকে ৪ লাখ ডোজ কানাডা ইতিমধ্যে কিনে নিয়েছে যুক্ত হবে। জুলাই বিতরণে অতিরিক্ত আরও দুই মিলিয়ন ডোজ যুক্ত করা হবে।

উল্লেখ্য দেশের নাগরিকদের সুস্বাস্থ্য ও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডকে আরও শক্তিশালী করতে ইতোমধ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে কানাডা সরকার। তাছাড়াও নাগরিকরা যেন দ্রুত ভ্যাকসিনেশনের আওতায় আসে সেদিকেও কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছে দেশের সরকার।

সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, কানাডায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১১ লাখ ১৩ হাজার ৯ শত ৭ জন, মৃত্যুবরণ করেছেন ২৩ হাজার ৫শ' ৯১ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ১০ লাখ ৩ হাজার ৫শত ৫৩ জন।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর