হরকাতুল জিহাদের অপারেশন শাখার প্রধানসহ ৩ সদস্য গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক

হরকাতুল জিহাদের অপারেশন শাখার প্রধানসহ ৩ সদস্য গ্রেপ্তার

রাজধানীতে যাত্রাবাড়ী থানা এলাকা থেকে হরকাতুল জিহাদ আল ইসলামী (হুজি) এর অপারেশন শাখার প্রধানসহ ৩ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের কাউন্টার টেরােরিজম ইনভেস্টিগেশন বিভাগ।

বৃহস্পতিবার (৪ মার্চ) বিকাল ৫ ১৫ টায় যাত্রাবাড়ী থানার সায়েদাবাদ এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, মাে. মাইনুল ইসলাম ওরফে মাহিন ওরফে মিঠু ওরফে হাসান, শেখ সােহান স্বাদ ওরফে বারা আব্দুল্লাহ ও মুরাদ হােসেন কবির। এ সময় তাদের কাছ থেকে ১ টি প্রাইভেটকার, ৫ টি মােবাইল ফোন, ১ টি মাইক্রোফোন, ১ টি চাপাতি, ২ টি ছােড়া, ১০ টি ডেটোনেটর, ১৭০ টি বিয়ারিং লােহার বল, ১ টি স্কচটেপ, ৫ লিটার এসিড, ৩ টি আইডি কার্ড ও ১ টি জিহাদি বই উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃতরা জানায়, তারা হরকাতুল জিহাদ আল ইসলামীর সক্রিয় সদস্য। তারা মাইনুল ইসলামের নেতৃত্বে হরকাতুল জিহাদ আল ইসলামী পুনর্গঠন, পূর্ণাঙ্গ শুরা কমিটি প্রস্তুত করণ, সংগঠনের অর্থ দাতা এবং সদস্যদের নিকট থেকে অর্থের যােগান নিশ্চিতকরণ, ব্যাপক হারে সংগঠনের রিক্রুটমেন্ট করণ, অস্ত্র সংগ্রহ, বােমা তৈরির সরঞ্জাম সংগ্রহ, কারাগারে আটক সংগঠনের গুরুত্বপূর্ণ সদস্যদের জামিনের ব্যবস্থাকরণ, বান্দরবান-নাইক্ষ্যংছড়ি পাহাড়ি দুর্গম এলাকায় জমি লিজ নিয়ে ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করার কাজে নিয়ােজিত ছিলাে। 

তারা বাংলাদেশের ৬৪ জেলায় তাদের সংগঠনের বিস্তার ও সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সাংবাদিকতাসহ বিভিন্ন পরিচয়ে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছিল। তারা কারাগারে আটক ২১ শে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত আসামি মাওলানা আবু সাঈদ ওরফে ডাক্তার জাফর ও ২০০০ সালের কোটালিপাড়ায় তৎকালীন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হত্যাচেষ্টা মামলার যাবজ্জীবন দন্ডপ্রাপ্ত আসামি মেহেদী হাসান ওরফে আব্দুল ওয়াদুদ ওরফে গাজী খানের নির্দেশে সাংগঠনিক কাজ করছিলাে।

আরও পড়ুন:


দেশে আরেকটি ১৫ আগষ্ট ঘটানোর ষড়যন্ত্র চলছে: ওবায়দুল কাদের

মানুষের কাতারে পড়ে না আওয়ামী লীগ: গয়েশ্বর

মহাখালী বাসস্ট্যান্ডে সারারাতই থাকে ছিন্নমূল মানুষের আনাগোনা

২৫শে মার্চের ভয়াবহ সেই রাতের বর্ণনা দিলেন মওদুদ (ভিডিও)


গ্রেপ্তারকৃত মাইনুল ইসলাম দীর্ঘদিন যাবত নিষিদ্ধ সংগঠন মুজি'র প্রধান অপারেশন সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করছিলাে। সে সাংবাদিকতার বেশ ধারণ করে সংগঠনের দাওয়াতি কাজ, অর্থ সংগ্রহ বােমা তৈরির সরঞ্জাম সংগ্রহ করে আসছিলাে। তার পরিকল্পনা ছিলাে ঢাকা শহরে বড় ধরনের নাশকতা করে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করা। সে ২০১৫ সালে তুজি'র শীর্ষ নেতা কারাবন্দি মুফতি মঈনউদ্দিন ওরফে আবু জান্দালকে ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযােগে গ্রেপ্তার হয়েছিলাে।

অপর গ্রেপ্তারকৃত সােহান স্বাদ সুনামগঞ্জ’র বিবিয়ানা কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করে। সে ঢাকায় মিরপুর বাংলা কলেজে পড়ার পাশাপাশি একটি মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করতাে। ২০১৬ সালে একুশে বই মেলায় নাশকতার ঘটনায় গ্রেপ্তার হয়। এছাড়াও সে ২০১৭ সালে বিস্ফোরক মামলায় এবং ২০১৯ সালে সন্ত্রাস বিরােধী আইনের একটি মামলায় গ্রেপ্তার হয়। জামিনে বের হয়ে সে মাইনুলের নেতৃত্বে হুজির সক্রিয় সদস্য হিসেবে কাজ করতাে। গ্রেপ্তারকৃত মুরাদ হরকাতুল জিহাদ আল ইসলামী’র সক্রিয় সদস্য। সে ব্যবসার আড়ালে তুজি সংগঠনের দাওয়াতি ও বায়তুল মালের দেখভালের দায়িত্ব পালন করতাে।

গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে যাত্রাবাড়ী থানায় সন্ত্রাস বিরােধী আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে। অন্যান্য সহযােগীদের গ্রেপ্তারের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

থানা থেকে পালিয়ে আবারও পুলিশের হাতে ধরা আসামি

অনলাইন ডেস্ক

থানা থেকে পালিয়ে আবারও পুলিশের হাতে ধরা আসামি

মোটরসাইকেল চুরির মামলার আসামী শাহজালাল ইসলাম (৩২)কে আটক করে থানায় নিয়ে আসে রংপুরের পীরগাছা থানা পুলিশ। কিন্তু আটকের পর থানা থেকে পালিয়ে যায় শাহজালাল। 

শুক্রবার (২৩ এপ্রিল) দুপুর ১টার দিকে পীরগাছা থানা থেকে ওই আসামিকে আদালতে পাঠানোর সময় এ ঘটনা ঘটে।

কিন্তু পালিয়েও শেষ রক্ষা হয়নি শাহজালাল ইসলামের। পালানোর তিন ঘন্টা পর আবারও তাকে আটক করে পুলিশ।

পীরগাছা থানা পুলিশ জানায়, শুক্রবার ভোরে পীরগাছা উপজেলার পারুল এলাকা থেকে মোটরসাইকেল চুরির মামলায় শাহজালাল ও শরিফুল নামের দুইজনকে আটক করে পুলিশ। পরে দুপুর ১টার দিকে পীরগাছা থানা থেকে আটকদের জেলহাজতে পাঠানোর জন্য প্রস্তুতি নেওয়া হয়। এ সময় দুই আসামিকে একটি হ্যান্ডকাপ লাগানো হয়। কিন্তু শাহজালালের হাতে থাকা হ্যান্ডকাপটি লুজ থাকায় সবার অজান্তে হ্যান্ডকাপ খুলে পালিয়ে যান তিনি। পরে তিন ঘণ্টা অভিযান চালিয়ে পীরগাছা উপজেলার কদমতলা নামক স্থান থেকে তাকে আটক করা হয়।

পীরগাছা থানার ওসি (তদন্ত) শাহীনুর ইসলাম তালুকদার বলেন, হ্যান্ডকাপ লুজ থাকায় হাত খুলে আসামি শাহজালাল পালিয়ে যায়। পরে তাকে অভিযান চালিয়ে আবার আটক করা হয়েছে।

শাহজালাল ইসলাম রংপুর জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার মির্জাপুর গ্রামের ছাইফুল ইসলামের ছেলে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

কোর্টের হাজতখানায় স্বামীকে ইয়াবা দিতে গিয়ে ধরা স্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

কোর্টের হাজতখানায় স্বামীকে ইয়াবা দিতে গিয়ে ধরা স্ত্রী

দিনাজপুরের পুলিশ কোর্টের হাজতখানায় আনা হয় চুরির মামলার আসামি মিলন রহমান (২৭)কে। সেখানে তার স্ত্রী রুজিনা বেগম রিক্তা স্বামীকে খাবারের সঙ্গে ১৬ পিস ইয়াবা দেওয়ার সময় পুলিশের কাছে গ্রেফতার হন। ঘটনাটি ঘঠেছে বৃহস্পতিবার দিনাজপুরের পুলিশ কোর্টের হাজতখানায়।

পুলিশ জানিয়েছে, হাজতখানায় স্বামীকে শুকনা খাবারের সঙ্গে ইয়াবা দেওয়ার সময় পুলিশের হাতে গ্রেফতান হন রিক্তা।হাজতখানায় ইয়াবা দেওয়ার অভিযোগে পুলিশ বাদী হয়ে মাদক আইনে কোতয়ালি থানায় মামলা দায়ের করেছে  তার বিরুদ্ধে। 

কোতয়ালি থানার ওসি আবু ইমাম জাফর গণমাধ্যমকে জানান, একটি চুরি মামলার আসামি মিলন রহমান (২৭) পুলিশ কোর্টের হাজতখানায় নিয়ে আসা হয়। এ সময় তার স্ত্রী রুজিনা বেগম রিক্তা শুকনা খাবার দেওয়ার জন্য পুলিশের কাছে যান। হাজতখানায় ডিউটিতে থাকা পুলিশ ওই শুকনা খাবার দিতে না চাইলে রুজিনা কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক শফিকুল ইসলামের কাছে যান এবং তার স্বামীকে খাবার দেওয়ার জন্য অনুরোধ জানান। এ সময় শুকনা খাবারগুলো যাচাই করতে গিয়ে তার মধ্যে ১৬ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট পাওয়া যাওয়া। 

ওসি আরও জানান, এই ঘটনায় রুজিনাকে ডিবি পুলিশের নিকট হস্তান্তর করা হয়। ডিবি পুলিশের এসআই আলমগীর হোসেন বাদী হয়ে কোতয়ালি থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। রুজিনাকে দুপুর আড়াইটার দিকে সিনিয়ার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. ইসলমাইল হোসেনের আদালতে হাজির করা হয়। বিচারক তার জবানবন্দি গ্রহণ করে বিকেল ৪টায় জেলহাজতে প্রেরণ করেন।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

রাজশাহীতে নকল ওষুধ জব্দ, আটক ১

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী

রাজশাহীতে নকল ওষুধ জব্দ, আটক ১

রাজশাহীর চন্দিমা থানা এলাকা থেকে বিপুল পরিমাণ বিভিন্ন কোম্পানীর নকল ওষুধ জব্দ করেছে ডিবি পুলিশ। শুক্রবার রাত ৮টার দিকে পুলিশ এই অভিযান চালায়। দীর্ঘদিন ধরে বাড়িটিতে নকল ওষুধ তৈরি করা হতো।


লকডাউনে শপিংমলে যেতে লাগবে মুভমেন্ট পাস

মালয়েশিয়ায় অবৈধ অভিবাসীদের বৈধ হওয়ার সুযোগ

করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত কমল চট্টগ্রামে

হিরো আলম বললেন, এইটা মরুভূমি না, যমুনা নদীর চর


এ ঘটনায় জড়িত থাকায় পুলিশ আনিস নামের একজনকে আটক করেছে।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আনিস জানিয়েছে, নকল ওষুধগুলো বিভিন্ন উপজেলা পর্যায়ের ফার্মেসিগুলোতে সরবরাহ করতো।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে তিন লাশ, মিলল রক্তাক্ত ধারাল অস্ত্র

অনলাইন ডেস্ক

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে তিন লাশ, মিলল রক্তাক্ত ধারাল অস্ত্র

কক্সবাজারের উখিয়া আশ্রয় শিবিরে স্বামী, স্ত্রী ও শ্যালিকার রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন)।

শুক্রবার (২৩ এপ্রিল) সন্ধ্যায় উখিয়ার বালুর মাঠ ক্যাম্প থেকে তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

তারা হলেন- কুতুপালং মেগা ক্যাম্পের ২/ইস্ট ক্যাম্পের ডি-৭ ব্লকের আলী হোসেনের ছেলে নুরুল ইসলাম (৩২), নুরুলের স্ত্রী মরিয়ম বেগম (২৬) ও শ্যালিকা হালিমা খাতুন (২২)।

এ তথ্য নিশ্চিত করে ১৪ এপিবিএন এর অধিনায়ক মো. নাঈমুল হক বলেন, উখিয়ার বালুর মাঠ ক্যাম্প এলাকার একটি ঘর থেকে স্বামী-স্ত্রী ও শ্যালিকার রক্তাক্ত মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।


লকডাউনে শপিংমলে যেতে লাগবে মুভমেন্ট পাস

মালয়েশিয়ায় অবৈধ অভিবাসীদের বৈধ হওয়ার সুযোগ

করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত কমল চট্টগ্রামে

হিরো আলম বললেন, এইটা মরুভূমি না, যমুনা নদীর চর


প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে পারিবারিক কলহের জেরে এ হত্যার ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাস্থল থেকে রক্তাক্ত ধারাল অস্ত্রও উদ্ধার করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে উখিয়ার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহমেদ সঞ্জুর মোরশেদ বলেন, উখিয়ার আশ্রয় শিবিরে একটি হত্যাকাণ্ডের সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে রওনা হয়েছি।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মোবাই‌লে প্রেম: রাতে দেখা কর‌তে এসে গণধর্ষণের শিকার তরুণী

অনলাইন ডেস্ক

মোবাই‌লে প্রেম: রাতে দেখা কর‌তে এসে গণধর্ষণের শিকার তরুণী

মোবাইল ফোনে পরিচয়ের সুত্রে ভালোবাসার সম্পর্ক গড়ে উঠে মো. মিরা‌জের (২৫) সাথে এক তরুণীর। অপরিচিত সেই প্রেমিকের সাথে রাতে দেখা করতে গেলে গণধর্ষণ করে ২০ বছর বয়সী সেই তরুণীকে মিরা‌জ ও তার বন্ধুরা। গণধর্ষণের অভিযোগে ভোলার বোরহানউ‌দ্দিন থানায় ৫ জন‌কে আসামি ক‌রে মামলা দা‌য়ের করেছেন তরুণীটি।

ভোলা সাচড়ার এই ঘটনা ঘটে। গতকাল বৃহস্প‌তিবার দুই আসামিকে গ্রেফতার ক‌রেছে পু‌লিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হ‌লেন মো. রা‌কিব (২৫) ও মো. মিজান (২৩)। মামলা সূ‌ত্রে জানা গেছে, ভিকটিমের সা‌থে প্রায় ৫/৬ মাস আগে মো. মিরা‌জের (২৫) মোবাইল ফো‌নে প্রেমের সম্পর্ক গ‌ড়ে উ‌ঠে। দীর্ঘদিন প্রেম চলার পর গত সোমবার রা‌তে ওই নারীকে দেখা কর‌তে ব‌লে মিরাজ। প‌রে রা‌তে দেখা কর‌তে আ‌সলে প্রথমে মিরাজ প‌রে তার বন্ধু রাকিব ও মিজানসহ মোট ৫ জন গণধর্ষণ ক‌রেন ওই তরুণী‌কে।

বোরহানউ‌দ্দিন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাজহারুল আমিন গণমাধ্যমকে খবরের সত্যতা নি‌শ্চিত করেছেন। তিনি জানান, ওই তরুণী বৃহস্প‌তিবার দুপু‌রে থানায় এস সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ এনে মামলা দা‌য়ের ক‌রেন। প‌রে রা‌তেই উপ‌জেলার সাচড়া এলাকা থে‌কে রা‌কিব ও মিজান না‌মে দুই আসামিকে গ্রেফতার ক‌রা হয়।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর