'খালেদা জিয়া দেশের যেকোনো জায়গায় চিকিৎসা নিতে পারবেন'
'খালেদা জিয়া দেশের যেকোনো জায়গায় চিকিৎসা নিতে পারবেন'

'খালেদা জিয়া দেশের যেকোনো জায়গায় চিকিৎসা নিতে পারবেন'

অনলাইন ডেস্ক

বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া দেশের যেকোনো হাসপাতালে বিশেষায়িত চিকিৎসা নিতে পারবেন বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

সোমবার (০৮ মার্চ) দুপুরে সচিবালয় সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান।

আইনমন্ত্রী বলেন, আবেদনে তারা একটা কথা লিখেছিলেন বিশেষায়িত চিকিৎসার ব্যাপারে। মতামতে বলা হয়েছে দেশের ভিতরে তিনি যদি বিশেষায়িত চিকিৎসা নেন সরকারের তাতে কোনো আপত্তি নেই।

তিনি বলেন বলেন, খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের সময়সীমা বাড়ানো এবং বিশেষায়িত চিকিৎসার জন্য যে আবেদন, সেটি আমাদের কাছে মতামতের জন্য পাঠানো হয়েছিল। আমরা যে মতামত দিয়েছি সেটি হলো- আগের মতো তার সাজা স্থগিতের সময়সীমা আরও ছয় মাস বাড়ানো হয়েছে। যে শর্তগুলো আগে ছিল সেই শর্ত সাপেক্ষে এটা বাড়ানো হয়েছে।

দণ্ড মওকুফ করে বিদেশে যাওয়ার আবেদনের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, আমরা আবেদনপত্র পড়ে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি এবং এই মতামত দিয়েছি। তবে তার হাসপাতাল কোনো নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়নি। তিনি স্পেশালিস্ট কাকে রাখবেন সেই স্বাধীনতা তার রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আগে যে দুটি শর্ত ছিল সেই দুটি শর্তই রয়েছে। তারা বিশেষায়িত চিকিৎসার ব্যাপারে উল্লেখ করেছেন, এক্ষেত্রে কোন চিকিৎসকে তিনি রাখবেন ‘দ্য চয়েজ উইল বি হার’। স্পেশালিস্ট হিসাবে দেখাতে চান, সেজন্যেই বলা হয়েছে বিশেষায়িত চিকিৎসার ব্যাপারে তিনি যদি দেশের ভেতরে পদক্ষেপ নেন তবে সরকার কোনো আপত্তি থাকবে না।


সমালোচনা আমাদের কাজের সফলতা : কবীর চৌধুরী তন্ময়

পাবনায় থাকছেন শাকিব খান

সাধ্যের মধ্যে ৮ জিবি র‍্যামের রেডমি ফোন

কমেন্টের কারণ নিয়ে যা বললেন কবীর চৌধুরী তন্ময়


প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দিয়েছেন কি-না জানতে চাইলে আনিসুল হক বলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এটি এখন গেছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে নিশ্চয়ই প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুমোদনের জন্য যাবে। কারণ আগেও এভাবেই হয়েছিল।

এর আগে শর্তসাপেক্ষে অন্তর্বর্তীকালীন মুক্তিতে থাকা খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের মেয়াদ আরো ৬ মাস বাড়ানোর সুপারিশ করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে নথি পাঠিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়। আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এসম্পর্কিত নথিতে অনুমোদন দেওয়ার পর সোমবার দুপুরে ওই নথি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।

করোনা মহামারি পরিস্থিতিতে বেগম জিয়ার চিকিৎসা যথাযথভাবে করতে না পারায় তার পরিবারের পক্ষ থেকে সাজা স্থগিতের মেয়াদ বৃদ্ধির জন্য গত ২ মার্চ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বরাবর আবেদন করা হয়েছিল।

news24bd.tv/আলী