দেশের ৬ বিভাগসহ বেশ কিছু এলাকায় ঝড়সহ বজ্রবৃষ্টির পূর্বাভাস

অনলাইন ডেস্ক

দেশের ৬ বিভাগসহ বেশ কিছু এলাকায় ঝড়সহ বজ্রবৃষ্টির পূর্বাভাস

৬ বিভাগ, দুই জেলা ও দুই অঞ্চলে ঝড়ো হাওয়াসহ বজ্রবৃষ্টি হতে পারে বলে জানয়েছে আওহাওয়া অধিদপ্তর। বুধবার (১০ মার্চ) সন্ধ্যা ৬টা থেকে বৃহস্পতিবার (১১ মার্চ) সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে এ বৃষ্টি হতে পারে বলে জানায় প্রতিষ্ঠানটি।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, খাগড়াছড়ি ও রাঙ্গামাটি জেলা এবং কুমিল্লা ও নোয়াখালী অঞ্চলসহ রাজশাহী, রংপুর, ঢাকা, ময়মনসিংহ, খুলনা ও সিলেট বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ দেশের অন্যত্র আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।

আরও পড়ুন


উষ্ণতা ছড়িয়ে আমির খান-এলি আব্রামের রোমান্স (ভিডিও)

আজ পবিত্র শবে মিরাজ

যাদু দেখাতে পারলো না মেসি, শেষ ষোলো থেকেই বার্সার বিদায়

‘আতঙ্ক থেকেই ইসরাইল ইরানের বিরুদ্ধে গলাবাজি করছে’


সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি পেতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ হিমালয়ের পাদদেশীয় পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে।

আবহাওয়া অফিস আরও জানিয়েছে, আগামী দুই দিনে আবহাওয়ার সামান্য পরিবর্তন হতে পারে। তার পরের পাঁচ দিনে তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেতে পারে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

কালবৈশাখী ঝড় হতে পারে আজও

অনলাইন ডেস্ক

কালবৈশাখী ঝড় হতে পারে আজও

রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে আজও হতে পারে কালবৈশাখী ঝড় বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। গতকাল শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) দিবাগত রাতে কালবৈশাখী ঝড় ও বৃষ্টি হয়েছে।

আজ শনিবার (১৭ এপ্রিল) সকাল ৯ টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে আবহাওয়া অধিদফতর থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রাজশাহী, রংপুর, ঢাকা, ময়মনসিংহ, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা/ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

তাপ প্রবাহের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, ঢাকা, রাজশাহী, খুলনা, যশোর ও কুষ্টিয়া অঞ্চলের ওপর দিয়ে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা কিছু কিছু এলাকায় প্রশমিত হতে পারে।

আরও পড়ুন:


২৮ হাজার লিটার দুধ নিয়ে নদীতে ট্যাঙ্কার!

গালি ভেবে গ্রামের নাম মুছে দিলো ফেসবুক

ভারতে যেতে আর বাধা নেই পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের

করোনায় কাজ না থাকলেও কর্মীদের পুরো বেতন দিচ্ছেন নেইমার


সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা ১ থেকে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।

আবহাওয়ার সিনপটিক অবস্থায় বলা হয়েছে, পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ হিমালয়ের পাদদেশীয় পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

তিমি মৃত্যুর সঠিক কারণ দ্রুত চিহ্নিত করতে হবে: সেভ আওয়ার সি

অনলাইন ডেস্ক

তিমি মৃত্যুর সঠিক কারণ দ্রুত চিহ্নিত করতে হবে: সেভ আওয়ার সি

কক্সবাজার সৈকতে গত ৯ এবং ১০ এপ্রিল পরপর দু’দিন জোয়ারের পানিতে ভেসে আসা দুইটি (Bryde's whale) ব্রাইড প্রজাতির তিমির মৃত দেহ পাওয়া গেছে। যা সাগরের জীববৈচিত্র্য রক্ষায় উদ্বেগজনক বার্তা বহন করে।

এই প্রজাতির তিমির খাদ্যাভাস এবং স্বভাবসূলব বিচরণ ক্ষেত্রটা অনেক গভীর সমূদ্রে। স্বাভাবিকভাবে অল্প পানিতে আসে না। বাংলাদেশে সোয়াচ অব নোবটম থেকে শুরু করে শ্রীলংকা, মাদাগাস্কা এবং এদিকে আন্দামান সাগর হয়ে ওশানিয়া এবং প্যাসিফিক সাগরের গভীর এবং উষ্ঞ অঞ্চলে চলাচল করে।

এগুলো মরার কারণ হতে পারে গোস্টনেটের ফাঁদে পড়া, পেটে প্লাস্টিক ও অচনশীল দ্রব্যের উপস্থিতি অথবা পানির নিচে সাবমেরিন বিধ্বংসী বিস্ফোরণ। এছাড়া ব্যাকটেরিয়া, ফাঙ্গাস, ভাইরাস, প্যারাসাইড, বণ্য  অথবা যান্ত্রিক সংঘর্ষ ও মৃত্যুর কারণ হতে পারে।


খালেদা জিয়াসহ ফিরোজা বাসভবনের সবাই করোনায় আক্রান্ত, চলছে চিকিৎসা

ভ্যাকসিন নিয়ে পাইলট-কেবিন ক্রুরা ৪৮ ঘণ্টা ফ্লাইটে যেতে পারবেন না

মাদরাসা ও মসজিদ লকডাউনের আওতামুক্ত রাখার দাবি


তিমি ফিল্টার ফিডিং পদ্দতিতে ছোট প্রজাতির মাছের ঝাঁক এবং অন্যান্য ছোট কিছু প্রাণী খেয়ে বাঁচে। সূর্যের আলোতে গভীর পানির নিচে এদের খাবারগুলো থাকলেও চাঁদের আলোতে খাবারগুলো আবার উপরিভাগে চলে আসে। সে সময় জাহাজের সঙ্গেও সংঘর্ষ হতে পারে।

ময়নাতদন্ত করে প্রতিনিয়ত মৃত্যুর সঠিক কারণ উদঘাটন করা জরুরি। মৃত্যুর কারণ আমাদের জলসীমা অথবা আমাদের জলসীমার বাহিরেও হতে পারে। যদি আমাদের জলসীমায় হয়ে থাকে তাহলে আমাদের সেই অনুযায়ী প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে। আর যদি অন্য দেশে ঘটে থাকে তাহলে বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও সমস্যাগুলোকে প্রতিকার করার জন্য সচেষ্ট হতে হবে।

সমূদ্রের জীববৈচিত্র্য রক্ষায় সেভ আওয়ার সি’র ভবিষ্যত পরিকল্পনায় রয়েছে- ভেটেনারি, আন্ডারওয়াটার এক্সপ্লোরার, ওশান সায়েন্টিস্টদের সঙ্গে নিয়ে সমূদ্রের অসঙ্গতি দূর করার জন্য একটি দল কাজ করা। আহত সামূদ্রিক প্রাণীদের উদ্ধার,  চিকিৎসা ও আহতের কারণ উদঘাটন করা এবং সমূদ্র দূষণ দূরীকরণ ও সমূদ্রের জীববৈচিত্র সংরক্ষনের আইনগত বিষয়ে কাজ করা।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

আজ আবারো হিমছড়ি সৈকতে ভেসে এলো আরেকটি মৃত নীল তিমি

অনলাইন ডেস্ক

আজ আবারো হিমছড়ি সৈকতে ভেসে এলো আরেকটি মৃত নীল তিমি

পরপর দু’দিন কক্সবাজর সৈকতে দুটি মৃত নীল তিমি ভেসে এলো। হিমছড়ি সৈকতে আজ আরও একটি মৃত তিমি ভেসে এসেছে। শনিবার (১০ এপ্রিল) ভোর ৬টায় সৈকতের বালিতে আটকে থাকতে দেখা যায় এই মৃত তিমিকে।

এর আগে গতকাল জোয়ারের সঙ্গে ভেসে আসে বিশাল আকৃতির একটি মৃত নীল তিমি। গতকাল রাতেই সেটিকে মাটিতে পুঁতে ফেলা হয়। গবেষণার জন্য হাড় ও অন্য প্রত্যঙ্গ সংগ্রহের জন্য পুঁতে ফেলা স্থানটি সংরক্ষণ করছে সমুদ্র ও মৎস্য গবেষণা ইন্সটিটিউট।

শুক্রবারের মৃত তিমির পাওয়া যায় যে স্থান থেকে তা থেকে প্রায় ৫০০ মিটার দক্ষিণে ক্ষুদ্র তিমির মরদেহটি পাওয়া যায়। ২৫-৩০ ফুট লম্বা এ তিমিটিও অর্ধগলিত অবস্থায় রয়েছে বলে জানিয়েছেন কক্সবাজার দক্ষিণ বন বিভাগের সদর রেঞ্জের রেঞ্জ কর্মকর্তা সমীর কুমার সাহা।

এসময় তিনি জানান, শুক্রবার ভেসে আসা মৃত তিমির দেহাবশেষ সৈকতের বালিয়াড়িতে পুঁতে ফেলা হয়েছে। জোয়ারের পানিতে আবার ভেসে যাওয়া থেকে দেহটি আটকাতে বন বিভাগের শতাধিক কর্মী চেষ্টা চালায়। এসময় প্রশাসনের বিভিন্ন বিভাগের কর্মী এবং উৎসুক জনতাও এতে সামিল হয়। এরপর ভেটেনারি সার্জনগণ ময়নাতদন্তের পর এক্সকেভেটরের সাহায্যে মরদেহটি পুঁতে ফেলা হয়।

আরও পড়ুন


লকডাউনের মধ্যেই নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে চট্রলা মেয়রের ভ্রমণ!

করোনা আক্রান্ত আকরাম খান আইসোলেশনে আছেন

করোনায় পরিবেশ অধিদফতরের মহাপরিচালকের মৃত্যু

পুরুষশূন্য সালথার কয়েক গ্রাম


রেঞ্জ কর্মকর্তা আরো জানান, শনিবার ভোর ৬টায় একই সৈকতের ভিন্ন পয়েন্টে আরো একটি মৃত তিমির দেহাবশেষ বালিয়াড়িতে উঠে আসে। ধারণা করা হচ্ছে, এটিও আগের তিমিটির মতো মরে ভাসতে ভাসতে তীরে উঠে এসেছে। দুর্গন্ধ বেশি ছড়ানোর আগেই গতকালের মতো এটিও পুঁতে ফেলার উদ্যোগ চলছে।

তিমি সাধারণত দলবেধে চলে। কোনো কারণে দলছুট হলে অনেক সময় তিমি মারা যায়। শুক্রবার এবং শনিবারে তীরে আসা তিমি দুটির ক্ষেত্রেও একই ঘটনা ঘটে থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এসব তিমি অন্তত ১০-১২দিন আগে মারা গেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কিন্তু তিমিগুলোর মৃত্যুর সঠিক কারণ এখনও অজানা রয়েছে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ঝিনাইদহে মানুষের হাতে হাতে ঘুরছে পলিথিনের ব্যাগ

শেখ রুহুল আমিন, ঝিনাইদহ

ঝিনাইদহে মানুষের হাতে হাতে ঘুরছে পলিথিনের ব্যাগ

ঝিনাইদহের ৬টি উপজেলার সর্বত্র মানুষের হাতে হাতে ঘুরছে পলিথিন। এখন বাজারে গেলে ব্যাগ নিয়ে যেতে হয় না। মাছ, মাংস, সবজিসহ সব ধরণের পণ্য বিক্রেতারা পলিথিনের ব্যাগে ভরে দেয়। আর ক্রেতারা বাড়ি এনে পলিথিন যত্রতত্র ফেলছে।  এত দুষিত হচ্ছে পরিবেশ।

পলিথিন বিক্রি ও ব্যবহার বন্ধে প্রশাসনের তৎপরতা থিতিয়ে গেছে। বেড়ে গেছে পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর এ পলিথিনের ব্যবহার। পরিবেশবাদীদের দাবি অবিলম্বে পলিথিনের উৎপাদন, বিক্রি ও ব্যবহার বন্ধে কঠোর হোক প্রশাসন।

জানা গেছে ১৯৯৫ সালে পরিবেশ সংরক্ষণ আইনে পলিথিনের বিক্রি ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়। তারপরও কিছু দিন পলিথিন ব্যবহার হতে দেখা যায়। পরে প্রশাসন পলিথিনের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে। পলিথিন বিক্রেতাদের ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে জরিমানা করা হয়। বিভিন্ন গুদাম থেকে উদ্ধার করা হয় বিপুল পরিমান পলিথিন। পরে এসব পলিথিন ধ্বংস করা হয়। নিয়ন্ত্রণে আসে পলিথিনের বিক্রি ও ব্যবহার। 


রাতে প্রেমিকের সঙ্গে দেখা করে বাড়ি যাওয়ার পথে ধর্ষণের শিকার প্রেমিকা

ছোট ভাইয়ের মৃত্যুর পর তার স্ত্রীকে অন্তঃসত্ত্বা করলো ভাসুর!

কিশোরকে ধর্ষণ করে অন্তঃসত্ত্বা তরুণী!

অশ্লীল ভিডিও চ্যাটিং ইসলামে ব্যভিচারের অন্তর্ভুক্ত


পলিথিনের পরিবর্তে পাট, কাপড় ও কাগজের তৈরি ব্যাগের প্রচলন শুরু হয়। এরপর ধীরে ধীরে পলিথিনের বিরুদ্ধে পরিচালিত অভিযান শিথিল হয়ে আসে। বাড়তে থাকে পলিথিনের ব্যবহার। এসব পলিথিন ব্যবহারের পর যত্রতত্র ফেলা হচ্ছে। নদী খালের পানিতে ফেলার পর পানি দূষণ ঘটছে। শহরের ড্রেনে ফেলার পর পয়ঃনিষ্কাষণ ব্যবস্থা বাঁধা প্রাপ্ত হচ্ছে। বৃষ্টি হলে শহরে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি করে। মানুষের মাঝে পলিথিন ব্যবহার না করার বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টির উদ্যোগ লক্ষ্য করা যায় না। 

ঝিনাইদহ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ( রাজস্ব) মোঃ সেলিম রেজা জানান পলিখিন বিক্রি ও ব্যবহার বন্ধের জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসায়ে জরিমানা করা হয়। তবে শতভাগ পলিথিন বিক্রি ও ব্যবহার বন্ধ করা সম্ভব হয়নি।

news24bd.tv/আয়শা

 


  

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সুন্দরবন সুরক্ষায় এবার ব্যবহার হবে ৪টি ড্রোন

শেখ আহসানুল করিম, বাগেরহাট

সুন্দরবন সুরক্ষায় এবার ব্যবহার হবে ৪টি ড্রোন

ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ সাইড সুন্দরবন সুরক্ষা ও পরিবীক্ষণ কাজে এবার ড্রোন ব্যবহার করা হবে। এজন্য সুন্দরবনের ৪টি রেঞ্জে একটি করে সর্বমোট ৪টি ড্রোন দেয়া হয়েছে।

পশ্চিম সুন্দরবনের কালাবগী ষ্টেশনে পূর্ব ও পশ্চিম সুন্দরবন বিভাগের ১২ জন বন কর্মকর্তা নিয়ে ৪ দিনব্যাপী এসব ড্রোনের উড্ডয়ন প্রশিক্ষণের উদ্বোধন করেছেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার।
 
উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার জানান, ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ সাইড সুন্দরবন সুরক্ষা ও পরিবীক্ষণ কাজে এবার ড্রোন ব্যবহারের কোন বিকল্প নেই। প্রাথমিক ভাবে বন মন্ত্রনালয় থেকে সুন্দরবনের ৪টি রেঞ্জে একটি করে সর্বমোট ৪টি ড্রোন দেয়া হয়েছে। বন বিভাগের প্রশিক্ষিতরা ড্রোন উড়িয়ে বনের এবার বিভিন্ন তথ্য উপাথ্য সংগ্রহ করবেন।

আরও পড়ুন


প্রত্যেকটি ইউনিয়নে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল বানানো হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

রাজধানীতে চোলাই মদসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার

ভোলায় পুকুরে পাওয়া গেল ১ কেজি ওজনের ৮টি ইলিশ

এবার ইমরানের গানে সুযোগ পেলেন পনি চাকমা


তিনি আরও জানান, যে কোন ষ্টেশন থেকে উড্ডয়নের পর আশপাশের তিন কিলোমিটারের মধ্যকার সকল চিত্র তাৎক্ষণিক দেখতে পারবেন এবং সেই অনুযায়ী দ্রুত ব্যবস্থাও নিতে পারবে সুন্দরবন বিভাগ। সুন্দরবনের দুর্গম এলাকায় টহল দিতে না পারা এলাকার চিত্রও ড্রোনের মাধ্যমে দেখতে পারবেন বন কর্মকর্তারা। এতে করে বনজ সম্পদের সুরক্ষা ও বন অপরাধ সনাক্ত এবং দমনে সহায়ক হবে।

৪ দিনব্যাপী ড্রোন উড্ডয়ন প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বন বিভাগের খুলনাঞ্চলের বন সংরক্ষক মো. মঈনউদ্দিন খান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পশ্চিম সুন্দরবনের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আবু নাসের মহসিন হোসেন ও পূর্ব সুন্দরবনের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেনসহ ৪ জন প্রশিক্ষক।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর