অন্তরঙ্গ অবস্থায় দেখে ফেলায় শাশুড়িকে হত্যা করল পুত্রবধূ

অনলাইন ডেস্ক

অন্তরঙ্গ অবস্থায় দেখে ফেলায় শাশুড়িকে হত্যা করল পুত্রবধূ

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলায় প্রেমিকের সঙ্গে ছেলের বউয়ের পরকীয়া দেখে ফেলায় শাশুড়িকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগ উঠেছে পুত্রবধূর বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় নিহতের পুত্রবধূসহ দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

নিহত নারীর নাম যমুনা পাল। গ্রেপ্তার দুজন হচ্ছে- যমুনা পালের পুত্রবধূ পলি রানী পাল ও তার কথিত প্রেমিক সদর উপজেলার গোবরাতলা মহিপুরের গুলজার হোসেনের ছেলে মেহেদী হাসান।

বুধবার রাতে শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফরিদ হোসেন গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, শাশুড়ি যমুনা পালকে গলা কেটে হত্যার ঘটনায় দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এদের মধ্যে পুত্রবধূ পলি রানী পাল হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছেন। পরকীয়া দেখে ফেলায় এ হত্যার ঘটনা ঘটেছে বলে তথ্য পাওয়া গেছে।

আরও পড়ুন


মমতাকে থাকতে হবে ৪৮ ঘণ্টার পর্যবেক্ষণে, বাম পায়ের চোট গুরুতর

নিয়োগ দেবে শিল্প মন্ত্রণালয়

দেশের ৬ বিভাগসহ বেশ কিছু এলাকায় ঝড়সহ বজ্রবৃষ্টির পূর্বাভাস

উষ্ণতা ছড়িয়ে আমির খান-এলি আব্রামের রোমান্স (ভিডিও)


অন্যদিকে গ্রেপ্তার মেহেদীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বুধবার বিকালে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।  

প্রসঙ্গত ৩ মার্চ দিবাগত রাতে শিবগঞ্জ পৌর এলাকার কুমারপাড়া-বাবুপাড়ার একটি ভাড়াবাসায় ওই নারীকে গলা কেটে হত্যা করা হয়। পরদিন ৪ মার্চ বৃহস্পতিবার ভোরে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় ৫ মার্চ নিহতের ভাই কবির বাদী হয়ে শিবগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। পরে তদন্ত করে জানা যায়- শাশুড়ি তার পুত্রবধূর পরকীয়া দেখে ফেলায় এ হত্যার ঘটনা ঘটেছে।

news24bd.tv আহমেদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বাসার বাবুর্চিকে মালিক সাজিয়ে অন্যের জমি আত্মসাতের অভিযোগ হুইপ শামসুল হক চৌধুরীর বিরুদ্ধে

নিজস্ব প্রতিবেদক

নিজের বাসার বাবুর্চিকে মালিক সাজিয়ে জালিয়াতির মাধ্যমে অন্যের জমি আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে চট্টগ্রামের পটিয়া আসনের এমপি ও হুইপ শামসুল হক চৌধুরীর বিরুদ্ধে। অনুসন্ধানে জানা গেছে, বাকলিয়া কর্ণফুলী আবাসিক প্রকল্পের তিন গন্ডা দুই কড়া জমি তিনি আত্মসাৎ করেন। নিজের ভুল বুঝতে সোলেমান বাবুর্চি প্রথম শ্রেণির হাকিম আদালতে হলফনামা দিয়ে জালিয়াতির বিষয়ে নিজের অবস্থান পরিষ্কার করেছেন। এদিকে ১০ দিনেও গ্রেপ্তার হয়নি ব্যাংক কর্মকর্তা মোর্শেদ চৌধুরীর আত্মহত্যার প্ররোচণাকারীরা। 

অনুসন্ধানে জানা যায়, ১৯৮৯ সালের ২৫ এপ্রিল বাকলিয়া কর্ণফুলী আবাসিক প্রকল্পের তিন গণ্ডা দুই কড়া জমির বরাদ্দ পান আনোয়ারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শফিকুল হায়দার মজুমদার। ১৯৯৭ সালের সেপ্টেম্বরে তিনি ওই জমি বিক্রি করে দেন হাজি মোহাম্মদ শফিক আহমেদ নামে এক ব্যবসায়ীর কাছে। কিন্তু শফিকের জমির ওপর নজর পড়ে বর্তমান জাতীয় সংসদের হুইপ সামশুল হক চৌধুরীর। জমি গ্রাসের কাজে সামশুল হক চৌধুরী ২০০১ সালে সোলেমান বাবুর্চিকে মোহাম্মদ শফিক আহমেদ সাজিয়ে প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ পরিবারের সদস্য খুরশিদা খানম নামে এক নারীকে রেজিস্ট্রি দেন। ওই দলিলের শনাক্তকারী ছিলেন তিনি নিজে। 

২০০২ সালের মাঝামাঝি জালিয়াতির বিষয়টি বুঝতে পারেন সোলেমান বাবুর্চি। নিজের ভুল বুঝতে পেরে ২০০২ সালের ২৪ নভেম্বর চট্টগ্রামের প্রথম শ্রেণির হাকিম আদালতে হলফনামা দিয়ে জালিয়াতির বিষয়ে নিজের অবস্থান পরিষ্কার করেন তিনি। 

স্থানীয়দের মতে, পিতার চেয়েও এগিয়ে হুইপপুত্র নাজমুল করিম চৌধুরী শারুন। একে-৪৭ আর সিনিয়র নেতাদের মারধরের হুমকির পরে, এবার আত্মহত্যার প্ররোচনাকারীদের পৃষ্ঠপোষকতার অভিযোগ উঠেছে। গত ৭ এপ্রিল, চট্টগ্রামের নিজ বাসায় আত্মহত্যা করেন, বেসরকারি ব্যাংকের ব্রাঞ্চ ম্যানেজার আব্দুল মোর্শেদ চৌধুরী। তার নেপথ্যে আছে শারুন এন্ড গং।

ইশরাত জাহান বলছেন, প্রভাবশালীদের চাপেই এখনো অধরা আসামীরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, আসামীরা লাপাত্তা হলেও তাদের নামে রাজনৈতিক প্রচার-প্রচারণা থেমে নেই। তাই ভুক্তভোগী পরিবারের দাবি, দ্রুত তাদের আইনের আওতায় আনতে হবে দোষীদের ।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বাগেরহাটে স্কুলছাত্রীর কুরুচিপূর্ণ ছবি ফেজবুকে, যুবক আটক

বাগেরহাট প্রতিনিধি:

বাগেরহাটে স্কুলছাত্রীর কুরুচিপূর্ণ ছবি ফেজবুকে, যুবক আটক

বাগেরহাটের ফকিরহাটে স্কুলছাত্রীর কুরুচিপূর্ণ ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেজবুকে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় অনিক বসু (২০) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। আটক যুবক অনিক বসু মূলঘর ইউনিয়নের সোনাখালী গ্রামের অমল বসুর ছেলে। শনিবার দুপুরে অনিক বসুকে পুলিশ বাগেরহাট আদালতে পাঠালে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। 

ফকিরহাট মডেল থানা অফিসার ইনচার্জ আবু সাঈদ মো. খাইরুল আনাম জানান, উপজেলার সোনাখালী গ্রামের এক স্কুলছাত্রীর সাথে আসামি অনিক বসুর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এই সম্পর্কে থাকা অবস্থায় সরল বিশ্বাসে ওই স্কুলছাত্রী তার ফেসবুকের আইডি পাসওয়ার্ড প্রেমিক অনিক বসুকে দিয়ে দেন। প্রেমে ভাটা পড়লে প্রেমিক অনিক বসু ওই স্কুলছাত্রীর ফেসবুকের পাসওয়াড ব্যবহার করে কুরুচিপূর্ণ কিছু ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ছড়িয়ে দেয়া। অনিক বসু তার প্রেমিকার ফেসবুক আইডি থেকেই বিভিন্ন রকম অশ্লীল পোস্ট করায় ওই স্কুল ছাত্রী ও তার পরিবারকে সামাজিক ভাবে হেয় করার চেষ্টা করে।

আরও পড়ুন:


ইলিয়াস আলী গুম নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য মির্জা আব্বাসের

বাংলাদেশকে করোনার ৬০ লাখ ডোজ টিকা দিতে চীনের সিনোফার্ম : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

চট্টগ্রামে পুলিশ-শ্রমিক সংঘর্ষে নিহত বেড়ে ৫

দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে আজও ১০১ জনের মৃত্যু


এ ঘটনায় ওই স্কুলছাত্রী বাদী হয়ে ফকিরহাট মডেল থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইননে (পর্ণগ্রাফি) মামলা দায়ের করার পর পুলিশ সকালে অভিযান চালিয়ে অনিক বসুকে আটক করে।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

স্কুলছাত্রীকে অপহরণের পর ধর্ষণের অভিযোগ

মাদারীপুর প্রতিনিধি:

স্কুলছাত্রীকে অপহরণের পর ধর্ষণের অভিযোগ

মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার আমগ্রামে ৬ষ্ঠ শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে অপহরণের পর ধষর্ণের অভিযোগ উঠেছে। ধর্ষণের শিকার ওই শিক্ষার্থীকে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করেছে পরিবারের লোকজন। ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে অভিযুক্ত চিরঞ্জিত। 

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার আমগ্রামের নিজ বাড়ি থেকে গত ১২ এপ্রিল কৌশলে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ওই শিক্ষার্থীকে অপহরণ করে নিয়ে যায় প্রতিবেশি কৃষ্ণ মোড়লের ছেলে চিরঞ্জিত মোড়ল (২৫)। পরে একটি ঘরে আটকে রেখে তাকে ধর্ষণ করা হয় বলে অভিযোগ করেছে নির্যাতিতা। এ সময় তাকে মারধরও করা হয়। সবশেষ শুক্রবার রাত ১০টার দিকে কিশোরীর মুখ ও হাত-পা বেঁধে বিষয়টি ধামাচাপা দিতে হত্যার উদ্দেশ্যে বাড়ির পাশে পুকুর পাড়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

শিক্ষার্থীর ধস্তাধস্তির আওয়াজ শুনে পরিবারের লোকজন এগিয়ে আসলে পালিয়ে যায় চিরঞ্জিতসহ তার সহযোগিরা। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় নির্যাতিতাকে উদ্ধার করে রাতেই ভর্তি করা হয় মাদারীপুর সদর হাসপাতালে। শনিবার সকালে হাসপাতালে প্রাথমিক মেডিকেল পরীক্ষা সম্পন্ন হয়। এখন হসাপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। 

শিক্ষার্থীর মা বলেন, মেয়েকে অপহরণের পর ধর্ষণ করে চিরঞ্জিত। পরে ঘটনা ধামাচাপা দিতে হত্যা করে লাশ গুম করার পরিকল্পনা করা হয়। এ ঘটনার কঠির বিচার চাই।

আরও পড়ুন:


চট্টগ্রামে পুলিশ-শ্রমিক সংঘর্ষে নিহত বেড়ে ৫

গালি ভেবে গ্রামের নাম মুছে দিলো ফেসবুক

ভারতে যেতে আর বাধা নেই পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের

করোনায় কাজ না থাকলেও কর্মীদের পুরো বেতন দিচ্ছেন নেইমার


মাদারীপুর সদর হসাপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. মো. নুরুল ইসলাম বলেন, রাত দুইটার দিকে এক স্কুলছাত্রীকে তার পরিবারের লোকজন হাসপাতালে নিয়ে আসে। তার প্রাথমিক মেডিকেল পরীক্ষা করা হয়েছে। ওই শিক্ষার্থী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। 

রাজৈর থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ সাদী বলেন, শিক্ষার্থী অপহরণ ও ধর্ষণের ঘটনায় মামলা হলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এর আগে শিক্ষার্থী নিখোঁজ হবার পর পরিবারের পক্ষ থেকে জিডি করা হয়েছিল। তারপর থেকেই পুলিশ বিষয়টি নিয়ে কাজ শুরু করে। শুক্রবার রাতে নিখোঁজ শিক্ষার্থী উদ্ধারের পর হাসপাতালে ভর্তি করে পরিবারের লোকজন। 

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

কাজের কথা বলে তরুণীকে গণধর্ষণ, গ্রেফতার ৩

অনলাইন ডেস্ক

কাজের কথা বলে তরুণীকে গণধর্ষণ, গ্রেফতার ৩

কাজের সন্ধানে আসা স্বামী পরিত্যক্তা এক তরুণীকে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে তিন ব্যক্তির বিরুদ্ধে। বগুড়ার শেরপুরে  ওই তরুণীকে কাজের কথা বলে বাড়িতে না নিয়ে তাকে একটি পুকুরপাড়ে নিয়ে যায় তারা।  সেখানে তাকে প্রাণনাশের ভয় দেখিয়ে জোরপূর্বক ওই নারীকে ধর্ষণ করতে থাকে। এসময় তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে তাদের হাতেনাতে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

এ ঘটনায় শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) দুপুরে শেরপুর থানায় ভুক্তভোগী ওই নারী বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- উপজেলার কুসুম্বী ইউনিয়নের বাগড়া হঠাৎপাড়া গ্রামের আব্দুস সামাদের ছেলে মামুন প্রামাণিক (৩৫), একই গ্রামের আবুল সেখের ছেলে আব্দুল খালেক (২৮) ও পৌরশহরের উত্তরসাহাপাড়া এলাকার সাইফুল সরকারের ছেলে সোহাগ সরকার (২২)।

মামলা সূত্রে জানা যায়, জেলার ধুনট উপজেলার গোসাইবাড়ী ইউনিয়নের গোসাইবাড়ী চিতুলিয়া গ্রামের আবিন সরকারের স্বামী পরিত্যক্তা ওই নারী বাসা-বাড়িতে কাজের খোঁজে বৃহস্পতিবার বিকেলে শেরপুর শহরে আসেন। এরপর শহরের একাধিক বাড়িতে কাজের খোঁজ করেন। এক পর্যায়ে রাত নেমে এলে বাড়ি ফেরার উদ্দেশে ধুনটমোড়স্থ সিএনজি অটোরিকশা স্ট্যান্ডে গাড়ির জন্য অপেক্ষা করছিলেন।

তখন রাত আটটা বাজে। এসময় আটক ব্যক্তিরা বাগড়া হঠাৎপাড়া গ্রামের একটি বাড়িতে কাজের সন্ধান দেন। সেইসঙ্গে ব্যাটারি চালিত একটি অটোরিকশায় সেখানে তাকে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু সেখানে পৌঁছার পর ওই বাড়িতে তাকে না নিয়ে একটি পুকুরপাড়ে নিয়ে যায় তারা। এমনকি প্রাণনাশের ভয় দেখিয়ে জোরপূর্বক ওই নারীকে ধর্ষণ করতে থাকে। এসময় তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে তাদের হাতেনাতে আটক করেন। 

শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, গণধর্ষণের শিকার ওই নারী বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছেন। 

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

স্বামীকে রক্ষায় এগিয়ে আসা স্ত্রীকে এলোপাতাড়ি মারপিটের ভিডিও ভাইরাল

অনলাইন ডেস্ক

স্বামীকে রক্ষায় এগিয়ে আসা স্ত্রীকে এলোপাতাড়ি মারপিটের ভিডিও ভাইরাল

স্বামীকে রক্ষায় এগিয়ে আসা স্ত্রীকে নির্যাতনের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওতে দেখা যায়, এক নারীকে এক যুবক লাঠি দিয়ে শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাত করছেন। আর ওই নারী চিৎকার করছেন। পাশে আরও কয়েকজন লাঠি নিয়ে আছেন। এর মধ্যে ওই নারী অচেতন হয়ে পড়েন। অচেতন হয়ে পড়ার পরেও এক যুবক এসে ওই নারীকে লাথি মারছেন।

জানা গেছে, ওই নারীর নাম আকলিমা বেগম (২০)। তাঁর স্বামীর নাম মো. কালু হাওলাদার। বাড়ি পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়নের দক্ষিণ চরমিয়াজ গ্রামে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার আকলিমার শ্বশুর আবদুস ছালাম হাওলাদার বাদী হয়ে ১৮ জনের নাম উল্লেখ করে ২০ জনকে অজ্ঞাত করে বাউফল থানায় মামলা করেছেন।


আল্লাহ ফেরআউনকেও সুযোগ দিয়েছিলেন ছেড়ে দেননি: বাবুনগরী

ইফতারের আগে দোয়া কবুলের জন্য যে আমল করা উচিত

কখন রোজা ভাঙলে গোনাহ হবে না

আল্লাহ ছাড় দেন, ছেড়ে দেন না


স্থানীয় সূত্র জানায়, ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন নিয়ে চন্দ্রদ্বীপ ইউপির ৫ নম্বর ওয়ার্ডের দুই ইউপি সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার সংঘর্ষ হয়। এতে দুই পক্ষের কমপক্ষে ২৫ জন আহত হয়েছেন। ওই সংঘর্ষের সময় আকলিমা তাঁর স্বামীকে বাঁচাতে গেলে তাঁর ওপর বর্বর হামলা করে সন্ত্রাসীরা। যার কিছু অংশ ভিডিও করেন স্থানীয় এক যুবক। ২৫ সেকেন্ডের ওই ভিডিও আজ ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে।

আকলিমা ও তাঁর স্বামী কালুকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে বৃহস্পতিবার বিকেলে দুজনকেই বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, আকলিমার শরীরের বিভিন্ন অংশে গুরুতর জখম হয়েছে। তাঁর ডান পা ভেঙে গেছে। বৃহস্পতিবার রাতে তাঁর ডান পায়ে অস্ত্রোপচার হয়েছে। তাঁর স্বামী কালুরও হাড় ভেঙে জখম রয়েছে।

এ ব্যাপারে বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) দায়িত্বে থাকা পরিদর্শক (তদন্ত) আল মামুন বলেন, ভিডিওটি দেখলাম। এটি একটি ন্যক্কারজনক ঘটনা। ঘটনার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিরা পলাতক। আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

news24bd.tv তৌহিদ

মন্তব্য

পরবর্তী খবর