রাজনীতি এবং কর্মক্ষেত্রে কানাডায়ও নারী পুরুষের বৈষম্য আছে

লায়লা নুসরাত, কানাডা

রাজনীতি এবং কর্মক্ষেত্রে কানাডায়ও নারী পুরুষের বৈষম্য আছে

পশ্চিমের উদার উন্নত দেশ হওয়া সত্ত্বেও কর্মক্ষেত্র এবং নেতৃত্বের পর্যায়ে কানাডায় নারী পুরুষের মধ্যে বৈষম্য রয়েছে। অভিবাসী এবং প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর নারীরা সবচেয়ে বেশি বৈষম্যের শিকার হন বলে কানাডার রাজনীতি, কর্পোরেট এবং সাংস্কৃতিক অঙ্গনের প্রতিনিধিত্বকারী তিনজন নারী বিশেষজ্ঞ মত দিয়েছেন।

তাঁরা অভিবাসী বিশেষ করে কানাডায় বসবাসরত বাংলাদেশি নারীদের নিজেদের স্বাচ্ছ্যন্দের বৃত্ত থেকে বেরিয়ে মূলধারায় জায়গা করে নেয়ার চেষ্টা চালানোর আহ্বান জানান। তারা বলেন, কেবলমাত্র নিজেদের কমিউনিটির ভেতর বৃত্তাবদ্ধ হয়ে থাকলে কোনোভাবেই সাফল্য অর্জন করা যাবে না। 

কানাডার বাংলা পত্রিকা ’নতুনদেশ’ এর প্রধান সম্পাদক শওগাত আলী সাগরের সঞ্চালনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সম্প্রচারিত ‘শওগাত আলী সাগর লাইভ’ অনুষ্ঠানে তারা এ মতামত দেন।

স্থানীয় সময় বুধবার রাতে ‘কানাডা কি এখনো বয়েজ ক্লাব” শিরোনামে এই আলোচনায় অংশ নেন উইনিপেগ ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক এবং ম্যানিটোবা এনডিপি’র স্ট্যাটাস অব উইম্যান কমিটির চেয়ারপার্সন ড. দুরদানা ইসলাম, রয়্যাল ব্যাংক অব কানাডার সিনিয়র পরিচালক, ইউনিভার্সিটি অব টরন্টোর অধ্যাপক নাজিয়া শাহরিন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সহকারি অধ্যাপক,লেখক ও অনুবাদক ফারহানা আজিম শিউলি। 

আলোচকরা কানাডার রাজনীতি, অর্থনীতিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে পুরুষ আধিপত্য ‘বয়েজ ক্লাব সংস্কৃতির জন্ম দিয়েছে বলে মত প্রকাশ করে বলেন,সমাজের নেতৃত্বে নারীরা এগিয়ে এলে,সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ায় নারীদের প্রাধান্য থাকলে পুরো সমাজই তাতে উপকৃত হয়। কেননা, নারীদের সিদ্ধান্তে শিশু, নারী পুরুষ সবারই মঙ্গলাকাংখা গুরুত্ব পায়। 

কানাডার মূলধারার নারী কর্পোরেট নির্বাহীদের সংগঠন ’উইম্যান এক্সিকিউটিভ নেটওয়ার্কে’র ‘কানাডার ১০০ শক্তিশালী নারী’ পদকে ভূষিত হওয়া নাজিয়া শাহরিন বলেন, কেবল শিক্ষাগত যোগ্যতায় কোনো দেশেই কর্পোরেট জগতের নেতৃত্বস্থানীয় পর্যায়ে যাওয়া যায় না।এমনকি উচ্চ পর্যায়ের চাকরীতেও শিক্ষাগত যোগ্যতার পাশাপাশি নেটওয়ার্ক বা যোগাযোগ একটি অপরিহার্য শর্ত হিসেবে বিবেচিত হয়। 

তিনি বলেন, কর্পোরেট জগতে নারীদের আগমন ঘটেছে অনেক পরে। ফলে এখানে একটি বয়েজ ক্লাব সংস্কৃতি গড়ে উঠেছে। ’নেতৃত্ব’ নির্ধারণ করার যোগ্যতা এবং শর্তগুলোও তৈরি করা হয়েছে পুরুষদের বিবেচনা অনুসারে। ফলে সেই বিবেচনায় নারীরা নেতৃত্ব পর্যায়ে এগিয়ে যেতে পারে না।


মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নৃশংস আচরণ, হাঁটু মুড়ে সন্ন্যাসিনীর আবেদন

সারাদেশে নিয়োগ দেবে ইবনে সিনা ট্রাস্ট

কাকে উদ্দেশ্য করে তাহসানের ৫ শব্দের এমন স্ট্যাটাস

জিতেও বিদায় নিতে হলো রোনালদোর জুভেন্টাসকে


নাজিয়া শাহরিন কানাডায় বসবাসরত বাংলাদেশি মেয়েদের নানা পর্যায়ে যোগাযোগ বাড়ানোর পরামর্শ দিয়ে বলেন, দক্ষিণ এশিয়ার মেয়েরা পড়াশোনা শেষ করে, ডিগ্রী নিয়ে চাকুরীতে ঢুকে কঠোর পরিশ্রম করে কিন্তু ব্যবস্থাপনা পর্যায়ে পৌছুতে পারে না। কর্মক্ষেত্রে নেটওয়ার্ককে তারা বিবেচনায় নেন না বলে সবসময়ই পিছিয়ে পরেন। 

 
ড. দুরদানা ইসলাম তার আলোচনায় কানাডায় রাজনীতিতে নারী এবং অন্যান্য প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর যথাযথ প্রতিনিধিত্ব নেই বলে মন্তব্য করে বলেন নারীদের আরো বেশি রাজনীতি এবং সামাজিক কর্মকান্ডে এগিয়ে আসতে হবে। তিনি বাংলাদেশি কানাডীয়ান নারীদের নিজেদের স্বচ্ছন্দ্যের পরিবেশের বাইরে বৃহত্তর পরিবেশে নিজেদের তুলে ধরার পরামর্শ দিয়ে বলেন, আমরা নিশ্চয়ই বাংলাদেশ, বাংলাদেশের রাজনীতি নিয়ে উদ্বিগ্ন হবো। 

কিন্তু কানাডার রাজনীতি, সমাজনীতি এবং ঘটনাপ্রবাহের সঙ্গেও আমাদের পরিচয় ঘটতে হবে।তিনি বিভিন্ন রাজনৈতিক দল বা সংগঠনের সাথে ভলান্টিয়ার হিসেবে কাজ করে নিজেদের যোগ্য করে তোলার পরামর্শ দেন। 

ড. দুরদানা ইসলাম বলেন, রাজনীতি কিংবা কর্মক্ষেত্রে একজন নারীকে সবসময় সংসার ও কর্মক্ষেত্রে কিভাবে ভারসাম্য রাখেন- এই প্রশ্ন শুনতে হয়।কিন্তু কোনো পুরুষকে এই প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হয় না। এটি দীর্ঘদিনের চলে আসা স্টেরিও টাইপ মানসিকতা।

তিনি সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারে সতর্কতার পরামর্শ দিয়ে বলেন, রাজনীতি কিংবা কর্মক্ষেত্রে যারা নেতৃত্ব পর্যায়ে যেতে চান, তাদের সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারের ক্ষেত্রে অত্যন্ত সতর্ক হতে হবে। সোশ্যাল মিডিয়ায় আপনি কি পোস্ট করেন, কি ভাষায় আচরণ করেন- সেগুলো দিয়েই আপনার প্রোফাইল তৈরি করা হয। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপনি নিজেকে কিভাবে উপস্থাপন করছেন- সেটি আপনার ভবিষ্যতকে প্রভাবিত করবে।
 
লেখক ও অনুবাদক ফারহানা আজিম শিউলি কোভিডে নারীদের চাকুরী হারানোসহ সহিংসতা বেড়ে যাওয়ার পরিসংখ্যানের পাশাপাশি কানাডার নারীদের অধিকার আদায়ের সংগ্রামী আন্দোলনের ইতিবৃত্ত তুলে ধরেন। তিনি বলেন, কোভিড কানাডীয়ান সমাজের ভেতরকার বৈষম্যটাকে নগ্নভাবে সবার সামনে নিয়ে এসেছে।

ফারহানা আজিম শিউলি বলেন,কানাডা নিসেন্দেহে একটি মানবিক রাষ্ট্র এবং নারীবান্ধব রাষ্ট্র। বাংলাদেশ বা বিশ্বের অন্য যে কোনো দেশ থেকে আসা নাগরিকরা কানাডায় এসে রাষ্ট্রের এই ইতিবাচক সিস্টেমের সুফল ভোগ করেন। কিন্তু দেশ থেকে নিয়ে আসা মানসিকতা এবং এখানকার নানা পরিস্থিতিতে সহিংসতার হলেও সেগুলো নিয়ে তারা মুখ খুলেন না।অভিবাসী নারীরা আরো বেশি মুখ বন্ধ করে রাখেন।

’নতুনদেশ’ এর প্রধান সম্পাদক শওগাত আলী সাগর তার বক্তব্যে কানাডার মূলধারার কর্মকান্ডে বাংলাদেশি নারী-পুরুষদের সম্পৃক্ত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, কানাডীয়ান সমাজে বাংলাদেশি কানাডীয়ানরা বেশি সংখ্যায় নেতৃত্ব পর্যায়ে জায়গা করে নিতে পারলে কেবল কমিউনিটিই নয়, কানাডার কাছে বাংলাদেশ্ও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠে।

news24bd.tv আয়শা

পরবর্তী খবর

কাতার বাংলা প্রেসক্লাবের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

অনলাইন ডেস্ক

কাতার বাংলা প্রেসক্লাবের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত

কাতার বাংলা প্রেসক্লাবের আয়োজনে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত। সংগঠনের সভাপতি ই এম আকাশের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন দোহা মহানগর বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি আলহাজ্ব হাসান মাবুদ।

শনিবার রাজধানী দোহার লামিজন মিলনায়তনে কাতার বাংলা প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক আমিন ব্যাপারীর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা ছিলেন কাতার বাংলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আকবর হোসেন বাচ্চু।

বিশেষ অতিথি ছিলেন অধ্যাপক তপন মহাজন, বাংলাদেশ স্যোশাল ক্লাবের সভাপতি মোহাম্মদ হারুন, সাধারণ সম্পাদক দিদারুল ইসলাম, কাতার যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নাছির উদ্দিন চৌধুরী, সাংবাদিক গোলাম মাওলা হাজারি।

সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম এ সালাম, প্রচার সম্পাদক আবু হানিফ রানা।আরো উপস্থিত ছিলেন ফখরুল ইসলাম, শেখ ফারুক, আহসান উল্লাহ সজিব, সবুজ মল্লিকসহ অন্যান্যরা।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফয়ছল চৌধুরী স্কটিশ পার্লামেন্টে নির্বাচিত

অনলাইন ডেস্ক

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ফয়ছল চৌধুরী স্কটিশ পার্লামেন্টে নির্বাচিত

স্কটল্যান্ডের পার্লামেন্টে সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এডিনবরার ফয়ছল চৌধুরী এমবিই। লেবার পার্টি থেকে লোদিয়ান রিজিওন্যাল লিস্ট প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। দেশটির পার্লামেন্টে এই প্রথম কোনো বাংলাদেশি নির্বাচিত হলো। তার বাড়ি হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ থানার বদরদি গ্রামে। তার বাবার নাম গোলাম রব্বানী চৌধুরী।

এবারের নির্বাচনে ১২৯টি আসনের মধ্যে ৬৩ সিট পেয়ে সর্বোচ্চ আসন নিয়েছে এসএনপি। তবে সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজন আরো এক আসন। সেক্ষেত্রে স্বতন্ত্র বা অন্য কোনো দলের সাথে কোয়ালিশন করতে হবে স্কটিশ ন্যাশনাল পার্টির।

ইকুয়ালিটি অ্যান্ড হিউম্যান রাইট অ্যাকটিভিস্ট ফয়ছল চৌধুরী দীর্ঘদিন ধরে লেবার পার্টির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। লেবার পার্টি থেকে ২০১৭ সালে অনুষ্ঠিত ওয়েস্ট মিনস্টার পার্লামেন্ট নির্বাচনে এডিনবরা সাউথওয়েস্ট আসনে লড়াই করেন ফয়ছল চৌধুরী।

এছাড়া ২০১৪ সালে স্কটিশ রেফারেন্ডাম চলাকালীন ‘বাংলাদেশিজ ফর বেটার টুগেদার ক্যাম্পেইন’-এর সমন্বয়কারী ছিলেন তিনি। ঐতিহাসিক গণভোট এবং অন্যান্য মূলধারায় রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে স্থানীয় বাংলাদেশি কমিউনিটিকে যুক্ত করতে রয়েছে তার উল্লেখযোগ্য ভূমিকা।

ফয়ছল হোসেন চৌধুরী মা-বাবার সঙ্গে তরুণ বয়সে পাড়ি জমান ইংল্যান্ডে। প্রথমে ম্যানচেস্টার এবং পরে এডিনবরায় বসবাস শুরু করেন। বাবা শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়লে বড় ছেলে হিসেবে সেই তরুণ বয়সেই পরিবারের হাল ধরেন ফয়ছল চৌধুরী। তখন থেকেই যুক্ত রয়েছেন পারিবারিক ক্যাটারিং ব্যবসায়। ব্যবসার পাশাপাশি পারিবারিক ঐতিহ্য অনুযায়ী তরুণ বয়সেই শুরু করেন স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রম।


অবশেষে করোনামুক্ত হলেন খালেদা জিয়া

পৃথিবীতে আছড়ে পড়তে যাচ্ছে চীনা রকেট, দেখা যাচ্ছে লাইভে

পবিত্র শবে কদর আজ

কাবুলে স্কুলের পাশে বোমা বিস্ফোরণে নিহত ৫৫


মামা ড. ওয়ালী তসর উদ্দিন এমবিইর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে তার কাছেই কমিউনিটি ওয়ার্কের হাতেখড়ি হয় ফয়ছল চৌধুরীর। দীর্ঘদিন ধরে এডিনবরা অ্যান্ড লোদিয়ান রিজিওন্যাল ইকুয়ালিটি কাউন্সিলের (এলরেক) চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। বিভিন্ন সংখ্যালঘু কমিউনিটির মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখার জন্য ২০০৪ সালে ব্রিটেনের রানি কর্তৃক ‘এমবিই’ খেতাবে ভূষিত হন তিনি।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

লন্ডনে টাওয়ার ব্রিজে আজান দিয়ে মুগ্ধতা ছড়ালেন ব্রিটিশ বাংলাদেশি শফিকুর (ভিডিও)

আ স ম মাসুম, যুক্তরাজ্য

লন্ডনে টাওয়ার ব্রিজে আজান দিয়ে মুগ্ধতা ছড়ালেন ব্রিটিশ বাংলাদেশি শফিকুর (ভিডিও)

লন্ডনের ঐতিহ্যবাহী টাওয়ার ব্রিজে আয়োজিত যুক্তরাজ্যে একটি সর্ব ধর্মীয় অনুষ্ঠানে শুক্রবার ইফতারির আগে আজান দিয়ে সবাইকে মুগ্ধ করেন বাংলাদেশি-বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক কাজি শফিকুর রহমান (৩৫)। এ নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে মধ্যপ্রাচ্যের প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম আরব নিউজ।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, মক্কার পবিত্র মসজিদের মুয়াজ্জিন শেখ আলী আহমাদ মোল্লার অবিকল সুরে শফিকুরের আজানের ধ্বনি শোনে সবাই অবাক হয়ে যান।১৯৭৫ সাল থেকেই পবিত্র মক্কা নগরীর মসজিদে আজান দিচ্ছেন মুয়াজ্জিন শেখ আলী আহমাদ মোল্লা। তার কণ্ঠ সারা বিশ্বে প্রশংসিত।

ছোটবেলা থেকেই আজান দেয়ার অভ্যাস কাজি শফিকুর রহমানের।শুক্রবার টাওয়ার হ্যামলেটস হোমস, ইস্ট লন্ডন মস্ক, লন্ডন মুসলিম সেন্টার ও টাওয়ার হ্যামলেটস ইন্টারফেইথ ফোরাম যৌথভাবে ওই ইফতার পার্টির আয়োজন করে।বাংলাদেশি-বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক কাজি শফিকুর রহমান মূলত ব্যবসায়ী।

ইফতারির আগে অনুষ্ঠানে হঠাৎ করেই তাকে আজান দিতে বলা হয়।এ সময় তার আজানের সুর অনুষ্ঠানে মুগ্ধতা ছড়ায়। অনেকেই তা ভিডিও করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও ছড়িয়ে দিয়েছেন।টাওয়ার ব্রিজে আজান দিতে পেরে যারপরনাই খুশি শফিকুর রহমানও।

 ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন 

news24bd.tv/আলী 

পরবর্তী খবর

লন্ডন এসেম্বলীর সদস্য নির্বাচিত হলেন বাংলাদেশের মেয়ে মেরিনা

আ স ম মাসুম, যুক্তরাজ্য

লন্ডন এসেম্বলীর সদস্য নির্বাচিত হলেন বাংলাদেশের মেয়ে মেরিনা

বাংলাদেশে জন্ম নেওয়া রাজনী‌তি‌বিদ মে‌রিনা মাসুমা আহমেদ যুক্তরাজ্যের লেবার পার্টি থেকে লন্ডন অ্যাসেম্বলি মেম্বার নির্বাচিত হ‌য়ে‌ছেন। শুক্রবার (৮ মে) বিকালে সাউথওয়াক ও ল্যামবেথ এলাকার এই রেজাল্ট ঘোষণা করা হয়‌।

ব্রিটে‌নের গত সংসদ নির্বাচ‌নে সাউথ ইস্ট লন্ড‌নের বেকেনহাম আসন থে‌কে লেবার পা‌র্টির প্রার্থী ছি‌লেন ব্যা‌রিস্টার মে‌রিনা মাসুমা আহমেদ।

তার জন্ম নারায়ণগঞ্জে। দুই মেয়ে সন্তা‌নের মা মে‌রিনা লন্ড‌নের ব্রমলি কাউ‌ন্সি‌লের কাউ‌ন্সিলার। তার স্বামী পাবনার সন্তান ডা. ইমরুল কায়েস স্থানীয় জি‌পি (জেনারেল প্র্যাক‌টিশনার)। তার বড় মেয়ে রেবেকা বিশ্ব‌বিদ্যালয়ে আর ছোট মেয়ে এ‌লিজা হাইস্কু‌লে অধ্যয়নরত।

‌মেরিনা জানান,‌ তি‌নি যখন ছয় মাসের শিশু তখন মা-বাবার সঙ্গে ব্রি‌টে‌নে আসেন। বাবা মারা গে‌ছেন, মা মমতাজ বেগম বসবাস করেন ঢাকায়। মেরিনার চার ভাই ব্রিটেনে উচ্চ‌শিক্ষা শেষে সেখানেই কর্ম‌রত আছেন।

নিজের সম্পর্কে তিনি ব‌লেন, ‘বাংলাদেশের সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের জন্যও কাজ করেছি। দেশের পথশিশুদের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, খাদ্য ও ক্ষমতায়নের পেছনে অবদান রাখার চেষ্টা করেছি। সেভ দ্য চিলড্রেনের অর্থায়নে একটি উন্নয়ন-সহযোগী সংস্থায় কাজ ক‌রে‌ছি। গত ত্রিশ বছরের বে‌শি সময় ধ‌রে লেবার পা‌র্টির সক্রিয় সদস্য হি‌সে‌বে রাজনী‌তি করে‌ছি।’

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

নারায়ণগ‌ঞ্জের মে‌রিনা লন্ড‌নের অ্যাসেম্বলি মেম্বার নির্বাচিত

অনলাইন ডেস্ক

নারায়ণগ‌ঞ্জের মে‌রিনা লন্ড‌নের অ্যাসেম্বলি মেম্বার নির্বাচিত

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত রাজনী‌তি‌বিদ মেরিনা আহমদ যুক্তরাজ্যের লেবার পার্টি থেকে লন্ডন অ্যাসেম্বলি মেম্বার নির্বাচিত হ‌য়ে‌ছেন। শুক্রবার (৮ মে) বিকেলে সাউথওয়াক ও লামব‌্যাথ এলাকার এ ফল ঘোষণা করা হয়‌।

মেরিনা আহমদের জন্ম বাংলাদেশের নারায়ণগঞ্জে। মাত্র ছয় মাস বয়সে মা-বাবার সঙ্গে তিনি যুক্তরাজ্যে পাড়ি দেন। দীর্ঘ ৩০ বছরেরও বেশি সময় ধরে লেবার পার্টির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত তিনি। ব্রিটে‌নের গত সংসদ নির্বাচ‌নে সাউথ ইস্ট লন্ড‌নের বেকেনহাম আসন থে‌কে লেবার পা‌র্টির প্রার্থী ছি‌লেন ব্যা‌রিস্টার মে‌রিনা। কনজারভেটিভের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত ওই আসনে জয় না পেলেও মেরিনা দলের ভোট বাড়াতে সক্ষম হন।

 দুই মেয়ে সন্তা‌নের মা মে‌রিনা লন্ড‌নের ব্রমলি কাউ‌ন্সি‌লের কাউ‌ন্সিলার। তার স্বামী পাবনার সন্তান ডা. ইমরুল কায়েস স্থানীয় জি‌পি (জেনারেল প্র্যাক‌টিশনার)। তার বড় মেয়ে রেবেকা বিশ্ব‌বিদ্যালয়ে আর ছোট মেয়ে এ‌লিজা হাইস্কু‌লে অধ্যয়নরত।
‌মেরিনা জানান,‌ তি‌নি যখন ছয় মাসের শিশু, তখন মা-বাবার সঙ্গে ব্রি‌টে‌নে আসেন। বাবা মারা গে‌ছেন, মা মমতাজ বেগম বসবাস করেন ঢাকায়। মেরিনার চার ভাই ব্রিটেনে উচ্চ‌শিক্ষা শেষে সেখানেই কর্ম‌রত আছেন।


সূরা আর-রাহমানের ফজিলত

দিনে ফেরি চলাচল বন্ধ

টিকা বিক্রি করে ফাইজারের মুনাফা ৪৯০ কোটি ডলার

প্রধানমন্ত্রী সময় মতো তাহাজ্জুত নামাজ পড়েন, কোরআন পড়েন : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী


নিজের সম্পর্কে তিনি ব‌লেন, ‘বাংলাদেশের সুবিধাবঞ্চিত মানুষদের জন্যও কাজ করেছি। দেশের পথশিশুদের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, খাদ্য ও ক্ষমতায়নের পেছনে অবদান রাখার চেষ্টা করেছি। সেভ দ্য চিলড্রেনের অর্থায়নে একটি উন্নয়ন-সহযোগী সংস্থায় কাজ ক‌রে‌ছি। গত ৩০ বছরের বে‌শি সময় ধ‌রে লেবার পা‌র্টির সক্রিয় সদস্য হি‌সে‌বে রাজনী‌তি করে‌ছি।’

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর