পালং শাক রান্নার রেসিপি

অনলাইন ডেস্ক

পালং শাক রান্নার রেসিপি

পালং শাক এমারান্থাসি পরিবারভুক্ত এক প্রকার সপুষ্পক উদ্ভিদ। এটি জনপ্রিয় শাক ও সবজি। এর আদিবাস মধ্য ও দক্ষিণ-পশ্চিম এশিয়া। এটি একবর্ষজীবি উদ্ভিদ, তবে দ্বিবর্ষজীবি পালং গাছ হতে পারে যদিও বিরল। পালং গাছ ৩০ সেমি পর্যন্ত লম্বা হয়। বাংলাদেশে শীতকালে এর চাষ হয়। এর পাতা একান্তর, সরল, ডিম্বাকার বা ত্রিভূজাকার। 

এই পাতার আকার ২-৩০ সেমি লম্বা ও ১-১৫ সেমি চওড়া হতে পারে। গাছের গোড়ার দিকের পাতাগুলো বড় বড় এবং উপরের দিকের পাতাগুলো ছোট হয়। এর ফুল হলদেটে সাদা, ৩-৪ মিমি ব্যাসবিশিষ্ট হয়। এর ফল ছোট, শক্ত, দানাকৃতির ও গুচ্ছাকার। ফলের আকার আড়াআড়ি ৫-১০ মিমি; এতে বেশ কয়েকটি বীজ থাকে।

উপকরণ:
পালং শাক- ১ আঁটি (মোটা কুচি)
মসুরের ডাল- আধা কাপ
পেঁয়াজ কুচি- ১ টেবিল চামচ
রসুন কুচি- ১ টেবিল চামচ
শুকনা মরিচ- ২টি
তেজপাতা- ১টি
কাঁচামরিচ- ২টি  
লবণ- স্বাদ মতো
মরিচ গুঁড়া- ১/৪ চা চামচ
ধনে গুঁড়া- ১/৪ চা চামচ
হলুদ গুঁড়া- ১/৪ চা চামচ
পাঁচফোড়ন- আধা চা চামচ
তেল- ২ টেবিল চামচ


মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নৃশংস আচরণ, হাঁটু মুড়ে সন্ন্যাসিনীর আবেদন

সারাদেশে নিয়োগ দেবে ইবনে সিনা ট্রাস্ট

কাকে উদ্দেশ্য করে তাহসানের ৫ শব্দের এমন স্ট্যাটাস

জিতেও বিদায় নিতে হলো রোনালদোর জুভেন্টাসকে


প্রস্তুত প্রণালি:

ডাল আধা ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখুন পানিতে। পানিতে ডাল ভালো করে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। হাড়িতে পানি নিয়ে চুলায় দিন। বলক আসলে ডাল ও আধা চা চামচ লবণ দিয়ে দিন। ডাল সেদ্ধ না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। আধা ঘণ্টা পর হলুদ, মরিচ ও ধনে গুঁড়া দিয়ে নেড়ে নিন। পালং শাক কুচি দিয়ে ঢেকে দিন পাত্র। ২ মিনিট পর দেখুন শাক সেদ্ধ হয়েছে কিনা। সেদ্ধ হয়ে গেলে টমেটোর টুকরা দিয়ে নেড়ে হাড়ি নামিয়ে নিন।

চুলায় আরেকটি কড়াই দিয়ে তেল গরম করুন। এবার পাঁচফোড়ন দিয়ে নাড়তে থাকুন। ফেনা উঠলে শুকনা মরিচ ও তেজপাতা দিয়ে দিন। পেঁয়াজ কুচি দিয়ে লাল না হওয়া পর্যন্ত নাড়তে থাকুন। পেঁয়াজ লাল হয়ে গেলে রসুন কুচি দিয়ে দিন। সেদ্ধ করা পালং শাক থেকে খানিকটা অংশ দিয়ে দিন বাগারের কড়াইয়ে।

সুন্দর গন্ধ বের হলে কড়াইয়ের মিশ্রণ পালং শাক ও ডালের সঙ্গে মিশিয়ে নিন। আস্ত কাঁচামরিচ দিয়ে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে চুলা বন্ধ করে দিন। ২ মিনিট পর গরম গরম পরিবেশন করুন ডাল দিয়ে পালং শাক। 

news24bd.tv আয়শা 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

সহজেই ঘরে রান্না করতে পারেন বিরিয়ানি

অনলাইন ডেস্ক

সহজেই ঘরে রান্না করতে পারেন বিরিয়ানি

অনেকেই আছেন যারা বিরিয়ানি খেতে ভালোবাসেন। তবে সময় ও রান্নার ঝামেলার কারণে বিরিয়ানি রান্নাটা করতে চান না। কিন্তু তাই বলে ভালো খাবার খাওয়া হবে না? নিশ্চয়ই হবে। চলুন জেনে নেয়া যাক সহজেই ঝটপট বিরিয়ানি রান্নার রেসিপি।

উপকরণ: গরুর মাংস বা খাসির মাংস ২ কেজি, পোলাওর চাল ১ কেজি, তেল পরিমাণ মত, পেঁয়াজকুচি ৩ কাপ, পেঁয়াজ বাটা ১কাপ, কাঁচা মরিচ ১৪/১৫টি, আলু বোখারা ৪/৫টি, দারুচিনি ,এলাচি, তেজপাতা, বড় বড় করে কাটা আলু, বিরিয়ানি মসলা ২ টেবিল চামচ, আদা বাটা ১ টেবিল চামচ, রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, ধনে গুঁড়ো ও জিরা গুঁড়ো, লাল মরিচ গুঁড়ো ২ চা চামচ করে, এক কাপ ঘন দুধ (পাউডার দুধ পানিতে গুলিয়ে নিতে পারেন)

প্রণালি: মাংস ধুয়ে নিন। এবার প্রেশার কুকারে তেল দারুচিনি, এলাচ, তেজপাতা, পেঁয়াজ কুচি ২ কাপ ও পেঁয়াজ বাটা এককাপ, আদাবাটা, রসুন বাটা, ধনে গুঁড়ো, জিরা গুঁড়ো, লবণ, ২চা চামচ লাল মরিচ গুঁড়ো, বিরিয়ানি মশলা সব দিয়ে মাখিয়ে প্রেসার কুকারে রান্না করুন। এরপর আলুগুলো দিয়ে দিন। ঝোল মাখা মাখা হলে নামিয়ে রাখুন।


সোমবার থেকে সারাদেশে লকডাউন

লকডাউনে যা বন্ধ ও খোলা থাকবে

বাড়ছে করোনা, সড়কে স্বাস্থ্যবিধি মানছে না অধিকাংশ মানুষ

বিএনপির দলীয় হুইপ হলেন ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা


এককাপ পেঁয়াজ কুচি, দারুচিনি, এলাচ, তেজপাতা চাল দিয়ে ভাল করে ভেজে আদাবাটা ও রান্নাকরা মাংস ও বিরিয়ানি মশল্লা মিশিয়ে পরিমাণ মত গরম পানি দিয়ে ঢাকনা দিয়ে দিন। প্রেসার কুক করতে চাইলে একটা সিটি দিয়েই নামিয়ে ফেলবেন।

চুলায় করলে পানি কমে এলে চুলার আচঁ কমিয়ে দিন কাচাঁ মরিচ, আলু বোখারা ও দুধ দিয়ে দিন। প্রেসার কুকারে সব আগেই দিয়ে দেবেন। এক সিটি দিয়ে কুকার বণ্ড করে রাখুন ১৫ মিনিট। এটাই দম দেয়ার কাজ করবে। ঝরঝরে হয়ে নামিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন ঝটপট বিরিয়ানি।

news24bd.tv / কামরুল 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মালাই লাড্ডু তৈরির রেসিপি

অনলাইন ডেস্ক

মালাই লাড্ডু তৈরির রেসিপি

লাড্ডু নামটি শুনলেই মনে যেন ল্ড্ডু ফুটে! ছোট ছোট গোল গোল মিষ্টান্নটি যেন চোখের সামনে ভাসে। ছোট বড় সবারই পছন্দ লাড্ডু। যেকোনো উৎসবেও তেমনি লাড্ডু হতে পারে বিশেষ চমক। এছাড়া অতিথিদের মিষ্টিমুখ করাতেও ঘরেই তৈরি করতে পারেন মজাদার মালাই লাড্ডু। এই লাড্ডু খেতে যেমন মজার তেমনই তৈরি করাও খুব সহজ।

উপকরণ

২৫০ গ্রাম ছানা, ১/২ ( ১০০ গ্রাম ) কাপ কনডেন্সড মিল্ক, ২টি এলাচ গুঁড়া ( সাজাবার জন্য), ২-৩ ফোঁটা গোলাপ জল, ৫-৪ দানা জাফরান ( সাজাবার জন্য)


আগামী ১১ এপ্রিল থেকে ট্রেনের টিকিট বিক্রি ব্ন্ধ

এবার ঈদে কোটি পরিবার পাবে সরকারি সহায়তা

এমপি রিমি করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি

হিন্দু ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মাদরাসা ছাত্র গ্রেপ্তার


যেভাবে তৈরি করবেন

প্রথমে ঘরে তৈরি ছানা খুব ভাল করে হাতের তালু দিয়ে ভর্তা করে নিন। এরপর একটি নন-স্টিক প্যানে পনির দিয়ে দিন। এবার ছানার মধ্যে কনডেন্সডমিল্ক দিয়ে দিন।

অল্প আঁচে ছানা, কনডেন্সডমিল্ক ভাল করে নাড়ুন। কিছুক্ষণ পর মিশ্রণটি আঠালো হয়ে গেলে চুলা বন্ধ করে দিন।

নামানোর আগে গোলাপ জল দিয়ে দিন। হালকা ঠাণ্ডা হলে ছানার মিশ্রণটি হাত দিয়ে লাড্ডু মত গোল গোল করে নিন।

লাড্ডুর ওপর এলাচ গুঁড়া এবং জাফরান দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করুন মজাদার মালাই লাড্ডু।

news24bd.tv/আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

ঘরেই তৈরি করুণ চিকেন মেমো

অনলাইন ডেস্ক

ঘরেই তৈরি করুণ চিকেন মেমো

মোমো বিদেশি খাবার হলেও বাংলাদেশে এর বেশ জনপ্রিয়তা রয়েছে। ‘মোমো’ খেতে ইচ্ছে করলে যে আয়োজন করে রেষ্টুরেন্টে যেতে হবে তা কিন্তু নয়। আপনার ঝটপট ও স্বাস্থ্যকর রান্নার তালিকায় রাখতে পারেন এই চীনা খাবার। করোনা ভাইরাসের দীর্ঘ ছুটিতে যখন মানুষ গৃহবন্দী, তখন বাইরে রেস্টুরেন্টে না গিয়ে ঘরে বসে নিজেই বানাতে পারনে সুস্বাদু চিকেন মেমো। বিভিন্ন উপাদান দিয়ে বানাতে পারেন ভিন্নস্বাদের মোমো। জেনে নিন স্বাস্থ্যকর চিকেন মোমোর রেসিপি।

উপকরণ:

মুরগির কিমা: ১৫০ গ্রাম (সেদ্ধ করে নিন)
মিহি করে কুচনো পেঁয়াজ: ১০০ গ্রাম
কুচোনো আদা: ২ ইঞ্চি মতো
মিহি করে কুচোনো রসুন: চার কোয়া
কুচোনো কাঁচালঙ্কা: স্বাদ অনুযায়ী
সয়া সস: ২ চামচ
ময়দা: এক কাপ
লবণ: স্বাদ মতো
তেল: পরিমান মতো

প্রণালী: 

প্যানে তেল দিয়ে তাতে সেদ্ধ করে রাখা চিকেন কিমা, আদা-রসুন-পেঁয়াজ কুচোনো, সয়া সস ও স্বাদ অনুযায়ী কাঁচা লঙ্কা কুচোনো হালকা করে ভেজে নিন। এটাই মোমোর ভিতরের পুর। লবণ, তেল ও পানি দিয়ে ময়দা মেখে নিন আগে। একটু পাতলা ও নরম করে মাখতে হবে ময়দাটা। 


বিতর্ক এড়াতে মামলায় হেফাজতের উর্ধ্বতন কারো নাম দেয়া হয়নি: আইজিপি

মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রন করতে ব্যর্থ হওয়ায় বরখাস্ত

আসন যদি ৫০ ভাগ কমে, ভাড়া কেন ৬০ শতাংশ বাড়বে?

করোনা আক্রান্ত হয়ে তরুণ ব্যাংক কর্মকর্তার মৃত্যু


ময়দার লেচি কেটে তা বেলে নিন পাতলা করে। বেলা হলে মাঝখানে কিছুটা পুর দিন। এবার তাতে চিকেনের পুর দিয়ে পুলি পিঠের আকারে গড়ে নিন। আপনি চাইলে ইচ্ছেমতো অন্য আকারও দিতে পারেন। 

এবার চুলায় স্টিমার বসিয়ে তার গায়ে হালকা করে তেল মাখান। স্টিমার না থাকলে পানি ভর্তি বড় পাত্রের মুখে কাপড় বেঁধে তার মধ্যে মোমোগুলি রেখে ঢাকা দিয়ে দিন। মিনিট দশ-পনেরো সেদ্ধ হলেই তৈরি আপনার প্রিয় মোমো।
সুপ বা সসের সঙ্গে পরিবেশন করুন।

চাইলে এই মোমো আপনি তেলে মুচমুচে করে ভেজেও খেতে পারেন। সেক্ষেত্রে মোমোগুলো আর সেদ্ধ করতে হবে না।

মুচমুচে মোমো বানাতে চাইলে ময়দার রুটিতে চিকেনের পুর ভরে পছন্দমতো আকারে তৈরি করে নেয়ার পর ২৫০ গ্রাম কর্নফেক্স গ্রিন্ডারে গুঁড়ো করে নিন।

 এবার আরেকটি পাত্রে ডিম ফেটিয়ে তাতে লবণ আর সামান্য গোলমরিচ গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। মোমোগুলি একে একে ডিমের মিশ্রণে ডুবিয়ে কর্নফ্লেক্সের গুঁড়োতে কোট করে নিন। কড়াইতে তেল গরম করে মোমোগুলি ডোবা তেলে ভেজে নিন। মেয়োনিজ বা ঝাল চাটনির সঙ্গে গরম গরম পরিবেশন করুন ‘কুড়কুড়ে মোমো’।

news24bd.tv/আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মসুর ডালের চচ্চড়ি

অনলাইন ডেস্ক

মসুর ডালের চচ্চড়ি

মসুর ডাল বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান খাদ্যশস্য। এর ইংরেজি নাম Red lentil। এ ডালকে পানিতে সেদ্ধ করে তেল-মশলা সহযোগে রান্না করা হয় এবং রান্না করা ডাল মিশিয়ে ভাত খাওয়া হয়। মানব দেহে আমিষের প্রয়োজনীয়তার নিরিখে বলা হয়ে থাকে মসুর ডাল গরিবের জন্য মাংস।

রান্নার যেসব উপকরণ লাগবে:

১. তেল (পরিমাণমতো), ২. তেজপাতা (তিনটি) ৩. রসুন কুচি (দুই টেবিল চামচ), ৪. মরিচ গুঁড়া (আধা চা চামচ), ৫. হলুদ গুঁড়া (আধা চা চামচ), ৬. আদা বাটা (এক চা চামচ), ৭. জিরার গুঁড়া (এক টেবিল চামচ), ৮. ধনিয়া গুঁড়া (দুই টেবিল চামচ), ৯. পানি (পরিমাণমতো), ১০. লবণ (স্বাদমতো), ১১. মসুর  ডাল (এক কাপ), ১২. কাঁচামরিচ (পাঁচ-ছয়টি), ১৩. ঘি (দুই টেবিল চামচ)।


রাতে প্রেমিকের সঙ্গে দেখা করে বাড়ি যাওয়ার পথে ধর্ষণের শিকার প্রেমিকা

ছোট ভাইয়ের মৃত্যুর পর তার স্ত্রীকে অন্তঃসত্ত্বা করলো ভাসুর!

কিশোরকে ধর্ষণ করে অন্তঃসত্ত্বা তরুণী!

অশ্লীল ভিডিও চ্যাটিং ইসলামে ব্যভিচারের অন্তর্ভুক্ত


যেভাবে রান্না করবেন

চচ্চড়ি আমাদের খুব কমন খাবার। ডালের চচ্চড়ি, মাছের চচ্চড়ি সবাই খেতে পছন্দ করেন। তবে বাসায় অতিথি এলে তখন অনেকেই পাতলা ডাল না রান্না করে ডালটাকে স্পেশাল করার জন্য চচ্চড়ি রান্না করেন।

প্রথমে প্যানে তেল গরম করে পেঁয়াজ কুচি, রসুন কুচি, তেজপাতা ভেজে নিন। পেঁয়াজ ভাজা হয়ে এলে সব মসলা দিয়ে সামান্য পানি দিয়ে দিন। প্যানে মসলা দিয়ে ডেকে দু-তিন মিনিট কষিয়ে  নিন। মসলা কষে এলে তাতে ডাল দিয়ে দিন।

এরপর ডাল একটু নেড়ে তাতে পানি দিয়ে দিন। ডালের সমপরিমাণ পানি দিতে হবে, যাতে ডালটা গলে না যায়। রান্না হয়ে এলে কাঁচামরিচ দিন। সব শেষে তাতে ঘি দিয়ে নেড়ে তুলে নিন। তবে মনে রাখবেন, ঘি দিলে ধনেপাতা দেওয়া যাবে না।

news24bd.tv/আয়শা

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

কবুতরের মাংস রান্নার রেসিপি

অনলাইন ডেস্ক

কবুতরের মাংস রান্নার রেসিপি

কবুতর ভুনার স্বাদ যারা পেয়েছেন তারা নিশ্চয়ই আবার তা খেতে চাইবেন। রেসিপিটা তো জানাবোই তার আগে কবুতরের মাংসের পুষ্টিগুণ সম্পর্কে একটু ধারণা দিয়ে রাখি। কবুতরের মাংস অত্যন্ত সুস্বাদু এবং বিশেষজ্ঞরা বলেন, কবুতরের মাংসে সাধারণ অন্যান্য পাখির মাংসের চাইতে প্রোটিনের পরিমান বেশি।

ফলে শরীরে আমিষের ঘাটতি পূরণের জন্য কবুতরের মাংস খুব কার্যকর। শরীরের বাড়তি আমিষের যোগান দেওয়া কবুতরের এই মজাদার রান্নার রেসিপি দিয়েছেন রন্ধনশিল্পী সানজিদা ইসলাম

পুষ্টিকর কবুতরের মাংসপ্রথমে কবুতরের পালক তুলে পরিষ্কার করে নিন। অথবা কবুতরের চামড়া ছুলে নিন। ছোট টুকরা করে কেটে ভালো করে ধুয়ে নিন।

উপকরণ :কবুতর দুইটা, সরিষার তেল তিন টেবিল চামচ পেঁয়াজ কুঁচি আধা কাপ, আদা-রসুন বাটা এক টেবিল চামচ, হলুদ গুঁড়া এক চা-চামচ, মরিচ গুঁড়া এক দুই চা-চামচ, কাঁচামরিচ পাঁচ/ ছয়টি অথবা ঝাল পছন্দ অনুযায়ী, ধনে গুঁড়া এক চা চামচ, গোলমরিচ চার/পাঁচটি, ভাজা জিরা গুঁড়া আধা চা চামচ, তেজপাতা একটি, এলাচ তিন/চারটি , লবঙ্গ চারটি, রসুনের আস্ত কোয়া পাঁচ/ ছয়টি দারুচিনি একটি, পছন্দ অনুযায়ী আলু এবং লবন স্বাদমতো।


ইন্দোনেশিয়ায় তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাস শোধনাগারে বিস্ফোরণ (ভিডিও)

মহাসড়কে একটি বাস, চারটি ট্রাক ও চারটি পিক-আপে আগুন

শবে বরাতে আতশবাজি-পটকা ফাটানোর ওপর নিষেধাজ্ঞা

দুই দিন পর চট্টগ্রামের-হাটহাজারী সড়ক সচল


পুষ্টিকর কবুতরের মাংস রান্নার প্রণালী :প্যানে তেল গরম করে পেঁয়াজ কুঁচি দিন পেঁয়াজ বাদামী কালার হয়ে এলে একে একে সব মসল্লা এলাচ, তেজপাতা ও দারুচিনি দিয়ে একটু ভেজে নিন। এবার এতে দিন আদা-রসুন বাটা, হলুদ গুঁড়া, মরিচ গুঁড়া, ধনে গুঁড়া ও লবণ দিয়ে দিন।

পুষ্টিকর কবুতরের মাংসএবার অল্প অল্প পানি দিয়ে ৩/৪ মিনিট মসলা কষিয়ে নিন। মসলা কষানো হলে কবুতরের মাংস, আলু দিয়ে নাড়াচাড়া করে মাংস কষিয়ে নিন। মাংস সেদ্ধ হওয়ার জন্য আরেকটু পানি দিয়ে ঢেকে রান্না করুন। এরপর কয়েকটি কাঁচামরিচ, ভাজা জিরা গুঁড়া দিয়ে নামিয়ে রাখুন। ফাইনালি রেডি হয়ে গেল সুস্বাদু কবুতরের মাংস ভুনা।

মজাদার কবুতরের মাংস গরম গরম ভাতের সাথে পরিবেশন করুন। খেতে দারুন সুস্বাদু লাগবে। আর পেয়ে যাবেন শরীরের বাড়তি আমিষ।

news24bd.tv আয়শা 

মন্তব্য

পরবর্তী খবর