বিবিসি বাংলার প্রতিবেদন

প্রতিশোধমূলক পর্ন কী, এটি কীভাবে একটি মেয়ের জীবন ধ্বংস করে দিচ্ছে?

অনলাইন ডেস্ক

প্রতিশোধমূলক পর্ন কী, এটি কীভাবে একটি মেয়ের জীবন ধ্বংস করে দিচ্ছে?

“আমি চেয়েছিলাম সবার প্রিয় হতে, নিজেকে আরও জনপ্রিয় করে তুলতে চেয়েছিলাম।

“কিন্তু ফল হয়েছিল একেবারে উল্টো।”

এভাবেই জীবনের একটা কঠিন ও অন্ধকার সময়ের কথা বলেছেন ব্রিটেনের রিয়ালিটি টিভি তারকা জারা ম্যাকডারমট।
যখন তার বয়স ১৪, তখন স্কুলের একটি ছেলের পীড়াপীড়িতে জারা তাকে তার দেহের অন্তরঙ্গ কিছু ছবি পাঠাতে রাজি হয়।

স্কুল জীবনটা জারার জন্য মোটেও আনন্দের ছিল না। অন্যরা তাকে হেয় করত, সবসময় তার ওপর চড়াও হত। সে খুব নিঃসঙ্গ ছিল। তাই তার মনে হয়েছিল ওই ছেলেটি যদি তাকে পছন্দ করে, তাহলে স্কুলের সহপাঠীদের কাছে তার সামাজিক গ্রহণযোগ্যতা বাড়বে। সহপাঠীরা তাকে অন্য চোখে দেখবে।

কিন্তু ছেলেটি তার ওই অন্তরঙ্গ ছবিগুলো সারা স্কুলে ছড়িয়ে দিল এবং অবস্থার উন্নতি তো হলই না, বরং পরিস্থিতি আরও খারাপ হল।

“আমি কোনওরকম যুক্তি দিয়ে নিজেকে বোঝাতে পারছিলাম না কেন আমি সেটা করলাম,” ব্রিটেনের জনপ্রিয় রিয়ালিটি শো ‘লাভ আইল্যান্ড’ খ্যাত অনুষ্ঠানে বলছিলেন জারা ।

“আমার জীবনের একটা গুরুত্বপূর্ণ সময় তখন। আমি তখন নিজেকে কিছুটা প্রাপ্তবয়স্ক মনে করতে শুরু করেছি। নিজেকে জানছি।”

“খুবই অন্ধকার একটা সময় সেটা। আমি নিজেকে পুরো গুটিয়ে নিয়েছিলাম। ছবিগুলো সবার কাছে তখন ঘুরছে। মনে আছে আমি ভাল করে খেতাম না, ঘুমাতাম না। সবসময় বিপর্যস্ত আর অবসন্ন থাকতাম।

“একসময় আত্মহত্যা করার কথাও ভাবলাম। অবস্থা এতটাই খারাপ হয়েছিল। মনে হচ্ছিল ছবিগুলো দেখার পর সবাই আমাকে নিয়ে আরও ঠাট্টা মস্করা করবে, আমাকে হেনস্থা করবে, টিটকিরি দেবে। এই ভাবনা থেকে আমি বের হতে পারতাম না। আজও ওই ছবিগুলোর স্মৃতি আমাকে তাড়িয়ে বেড়ায়।”

কিন্তু এ ধরনের অন্তরঙ্গ ছবি একজনকে পুরো আস্থায় নিয়ে দেবার ঘটনা জারার জীবনে আবার ঘটে ২০১৮ সালে যখন তার বয়স ২১ এবং তিনি ‘লাভ আইল্যান্ড’ শো-তে অংশ নেন।

তার অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবিগুলো বেশ কিছু হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে শেয়ার করা হয়। তবে ওই টিভি শো’র কারণে তাদের যেহেতু তখন জনবিচ্ছিন্ন একটা আলাদা বাসায় রাখা হয়েছিল এবং যেখানে ফোন রাখার অনুমতি ছিল না, তাই জারা বিষয়টা তখন জানতেই পারেননি।

শো শেষ হবার পর অনুষ্ঠানের প্রচার বিষয়ক একজন কর্মকর্তা তার হোটেলে গিয়ে তাকে খবরটা দেন। তিনি জানান তার ছবি ক্ষিপ্রতার সাথে শেয়ার হচ্ছে এবং ততক্ষণে সংবাদমাধ্যমেও খবরটা ছাপা হয়ে গেছে।

“আমার মানসিক অবস্থা আমি বলে বোঝাতে পারব না,” অনুষ্ঠানে কান্নায় ভেঙে পড়ে জারা বলেন, “আমার মনে হয়েছিল আমার বাবা-মা’র কথা, তাদের লজ্জায় মাথা হেঁট হয়ে যাবার কথা। তারা কি আমাকে আর আগের মত নিতে পারবেন? লজ্জায় আমার মাথা কাটা যাচ্ছিল। আমি মরতে চেয়েছিলাম।”

জারা অভিযোগ করেন লাভ আইল্যান্ড টিভি শো-তে অংশ নেবার আগে একজন পুরুষের সাথে তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক হয়েছিল, সেই এই ছবিগুলো শেয়ার করেছে।

জারার সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ বান্ধবী ওই পুরুষকে হোয়াটসঅ্যাপে মেসেজ করে যখন জানতে চান কেন তিনি একাজ করেছেন, ওই পুরুষ তার সংশ্লিষ্টতা অস্বীকার করেন।

ভুক্তভোগীদেরই দোষারোপ

জারা ম্যাকডারমট: রিভেঞ্জ পর্ন শিরোনামে বিবিসি থ্রি চ্যানেল, একটি তথ্যচিত্র প্রচার করেছে যাতে রিভেঞ্জ পর্ন বা প্রতিশোধমূলক পর্নছবির প্রভাব তুলে ধরা হয়েছে।

রিভেঞ্জ পর্ণ বলতে বোঝায়, যেখানে বিনা সম্মতিতে কারো অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি ও ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়া হয় সবার দেখার জন্য- যার বেশিরভাগই ছড়ানো হয় অনলাইনে।

আর এসবের উদ্দেশ্য থাকে ভুক্তভোগীদের চরম দুর্দশার মধ্যে ফেলা, বিব্রত এবং হেনস্থা করা।

জারার একান্ত ব্যক্তিগত মুহূর্তের ছবি একবার নয়, দু’ দুবার এভাবে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দেওয়ায় তিনি স্বভাবতই ক্রুদ্ধ।

যারা এসব ছবি ছড়িয়েছে তার রাগ শুধু তাদের ওপরেই নয়, কিন্তু এরপরে তিনি যে পরিস্থিতির শিকার হয়েছেন তাতেও তিনি ক্ষুব্ধ।

তাকে সামাজিক মাধ্যমে, অনলাইনে ব্যাপক ট্রোলিংয়ের শিকার হতে হয়েছে। এসবের জন্য দোষারোপ করা হয়েছে তাকেই। তিনি বলেছেন তিনি যে ছবিগুলো কাউকে পাঠিয়েছেন, লোকে শুধু সেটা নিয়েই কথা বলেছে। কিন্তু তার সম্মতি না নিয়ে যে আরেকজন এসব ছবি শেয়ার করেছে, সেই মানসিকতা নিয়ে কেউ কথা বলেনি।

“সমস্যাটা হল লোকে অনলাইনে একটাই প্রশ্ন করে, ‘সে এরকম ছবি কেন তুলতে গেল?

“এমন মন্তব্যও এসেছে যে ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করার জন্য সে এরকম ছবি কেন তুলেছে বুঝতে পারছি না!”

জারা বলেছেন, “আমাকে যে কতটা অসম্মান করা হয়েছে, আমার আস্থার জায়গাটা যে আরেকজন ভেঙে চুরমার করে দিয়েছে, এখানে একজন যে আইন লংঘন করেছে, সেটাকে কেউ সামনে আনেনি।”

‘ইনস্টাগ্রামে আমার ব্যক্তিগত মুহূর্তের ছবি’

জারা একা নন। রিভেঞ্জ পর্নের ঘটনা বিশেষ করে ঘটছে বহু কিশোরী মেয়ের জীবনে এবং যাদের বয়স বিশ থেকে পঁচিশের মধ্যে তাদের ক্ষেত্রে। ব্রিটেনে যৌন নির্যাতন নিয়ে কাজ করে সেফলাইন নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান এই তথ্য দিয়েছে।

শ্লো নামে এক নারী জানিয়েছেন, তিনি যখন কিশোরী তখন একদিন কাজ থেকে বাসে করে বাসায় ফেরার সময় তিনি স্ন্যাপচ্যাটে একটি মেসেজ পান। যে অ্যাকাউন্ট থেকে মেসেজ এসেছিল তাকে তিনি চিনতেন না।

মেসেজ খুলে তিনি স্তম্ভিত হয়ে যান। সেখানে পোস্ট করা তার একটি ব্যক্তিগত মুহূর্তের ছবি, সেই সঙ্গে হুমকি দেওয়া বার্তা যে ওইদিনই রাত আটটার মধ্যে সে যদি তার এ ধরনের আরও ছবি শেয়ার না করে, তাহলে অন্য আপত্তিকর ছবিগুলো “সব জায়গায় পোস্ট করা হবে”।

আরও পড়ুন


মরিয়মের কিছু হলে ইমরান ও পাকিস্তান সেনাবাহিনী দায়ী: নওয়াজ শরিফ

আমেরিকার চাপের কাছে নতি স্বীকার করবে না তুরস্ক: রাশিয়া

লরির ধাক্কায় দুই সহকর্মীর মৃত্যু, গায়িকা বিউটির অবস্থা আশঙ্কাজনক

আবারো লকডাউনের পথে ইতালি


ওই অ্যাকাউন্ট থেকে এরপর তার আরও ব্যক্তিগত মুহূর্তের ছবি পাঠানো হতে থাকে, যেগুলো সে শুধুমাত্র তার প্রাক্তন প্রেমিককে দিয়েছিল।

কয়েক ঘণ্টা পর তার এক বান্ধবী তাকে ফোন করে, “শ্লো- তোমার ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে তুমি তোমার কীসব ছবি পোস্ট করছ?”

শ্লো বলেন, তার প্রাক্তন প্রেমিক তাকে মানসিকভাবে প্রচুর নির্যাতন করত। তার কাছে সম্ভবত শ্লো-র অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড ছিল, যা ব্যবহার করে সে শ্লোর ব্যক্তিগত ছবিগুলো শ্লো-র ইনস্টাগ্রাম আকাউন্টে তুলেছে।

“আমার প্রথম দুশ্চিন্তা ছিল আমার পরিবারের লোকজন যদি এসব দেখে? আমার বন্ধুরা যদি দেখে! এটা তো শেয়ার করা হবে, আমার কর্মস্থলের লোকেরা দেখবে, তারপর আমাকে চাকরি খোয়াতে হবে।”

“হাজার খানেক চিন্তা আমার মাথার মধ্যে,” শ্লো জানান, “সে রাতে বাসায় ফিরে আমি একা বসে ভাবছিলাম কী করব! ‘বেঁচে থাকার কোনও মানে হয় না!’ জীবনে কাউকে কি আর কোনও দিন বিশ্বাস করতে পারব?”

তিনি বলেছেন, তার জীবনের একটা কালো মুহূর্ত ছিল সেটা। মনে হয়েছিল তার জীবনের কোনও মূল্য নেই। নিজের ক্ষতি করার চেষ্টা করেছিলেন তিনি।

“কয়েক সপ্তাহ আমি বের হইনি, কাউকে মুখ দেখাইনি। এরপর এক বান্ধবী জোর করে আমাকে এক সন্ধ্যেয় বাইরে নিয়ে গেল। আমরা পানশালায় গিয়েছিলাম। সেখানে একদল অপরিচিত ছেলে এসে “আমার বুক” নিয়ে মস্করা শুরু করল, বলল তারা হোয়াটসঅ্যাপে আমার ব্যক্তিগত মুহূর্তের ছবি দেখেছে।

“আমি কখনও এমন ছোট হইনি, এমন ঘৃণ্য পরিস্থিতির মুখে পড়িনি।”

শ্লো চান এ ধরনের প্রতিশোধমূলক পর্ন ছবি ছড়ানো ভুক্তভোগীর জীবন কীভাবে বিপর্যস্ত করে দিতে পারে তা মানুষকে জানাতে।

ব্যক্তিগত মুহূর্তের ছবি শেয়ার অপরাধ

কারো ব্যক্তিগত মুহূর্তের ছবি বা ভিডিও আরেকজনের কাছে বিনা সম্মতিতে পাঠানো ব্রিটেনে অপরাধ। কিন্তু সেটা তখনই অপরাধ বলে গণ্য হবে যদি প্রমাণ করা যায় যে কাউকে বিব্রত বা বিপর্যস্ত করতে সেই ছবি অন্য কেউ পাঠিয়েছে।

এই আইন প্রণয়ন করা হয়েছিল ২০১৫ সালে এবং এর জন্য দু’ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডের বিধান রয়েছে।

“কিন্তু এই আইনের প্রয়োগ খুবই কঠিন,” ব্যাখ্যা করেছেন নট ইওর পর্ন নামে একটি আন্দোলনকারী সংস্থার কেট আইজ্যাক। তারা এই আইনে বদল চাইছে। তারা বলছে: “বর্তমান আইনে আপনাকে প্রমাণ করতে হবে যে অসৎ উদ্দেশ্যে এই ছবি বা ভিডিও শেয়ার করা হয়েছে- আদালতে এর স্বপক্ষে প্রমাণ হাজির করা খুবই কঠিন।”

“জারার ক্ষেত্রে যেমনটা ঘটেছিল অর্থাৎ তার ব্যক্তিগত মুহূর্তের ছবিগুলো যেভাবে স্কুলে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল, সেখানে শিক্ষার্থীদের আশ্বস্ত করতে হবে যে তারা যদি এধরনের আচরণের শিকার হয়, তাহলে ওই ছবি তোলার জন্য তাকে দোষারোপ করা হবে না। তাদের জানতে হবে যে বিষয়টি স্কুল কর্তৃপক্ষ বা পুলিশকে জানালে তারা বিপদে পড়বে না,”বলেন কেট আইজ্যাক।

উদ্বেগ বাড়ছে

প্রতিহিংসা নিতে বা সম্মানহানির লক্ষ্যে যখন কারো ব্যক্তিগত মুহূর্তের ছবি সকলের দেখার জন্য ছড়িয়ে দেওয়া হয় যা রিভেঞ্জ পর্ন বা প্রতিশোধমূলক পর্ন বলে পরিচিত, তা একজন ভুক্তভোগীর জীবন সবদিক থেকে বিপর্যস্ত করে দিতে পারে।

যারা এধরনের ঘটনার শিকার হয়েছেন তারা বলেছেন এর লজ্জা, গ্লানি তাদের জীবন কীভাবে বিধ্বস্ত করে দিয়েছে। একজনকে অতি বিশ্বাস থেকে যখন এই ধরনের ছবি দেওয়া হয়, সে যখন সেসব ছবি প্রতিহিংসা নিতে সবার সামনে প্রকাশ করে দেয়, তখন মনে হয় পুরো পৃথিবী তার জন্য ভেঙে পড়েছে।

তারা বলেছে মানুষের চোখে চোখ তুলে তাকানোর ক্ষমতা তারা হারিয়ে ফেলে। আশপাশের প্রত্যেকটা মানুষকে দেখলে মনে হয় সেও বুঝি তার শরীরের সেই ছবিগুলো দেখেছে। এই সমস্যা বড়ধরনের মানসিক বিপর্যয় তৈরি করছে, এমনকি অনেককে আত্মহত্যার পথে ঠেলে দিচ্ছে বলে বলছে এই সমস্যা নিয়ে কাজ করছে এমন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাগুলো।

রিভেঞ্জ পর্ন হেল্প লাইন নামে ব্রিটেনে কাজ করছে যে সহায়তাদানকারী সংস্থা তার পরিচালক সোফি মর্টিমার বিবিসি থ্রি-র এই অনুষ্ঠানে বলেছেন এই সমস্যা উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে।

জারা বা শ্লোর মত অনেকেই কিশোরী বয়সে এধরনের ছবি তুলে প্রেমিক বা ছেলে বন্ধুদের হাতে তুলে দিয়েছে বলে আইনি ঝামেলায় জড়িয়ে পড়ার ভয়েও এসব ক্ষেত্রে কিশোরীরা আইনের সাহায্য নিতে এগিয়ে আসতে ভয় পায়।

ঘটনার শিকার হবার পর গ্লানি ও মানসিক বিপর্যয়ের পাশাপাশি ব্যাপারটা জানাজানি হবার ভয়ও তাদের থাকে।

স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাগুলো বলছে বর্তমান ইন্টারনেটের যুগে যেখানে এধরনের ছবি ও ভিডিও দ্রুত ছড়িয়ে দেবার সহজ প্রযুক্তি তৈরি হয়েছে, সেখানে শিশুদের বড় হয়ে ওঠার সময় এই ঝুঁকি সম্পর্কে তাদের সচেতন করে তোলার ওপরেও জোর দেয়া প্রয়োজন।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর

১২ মে, ইতিহাসের এই দিনে

অনলাইন ডেস্ক

১২ মে, ইতিহাসের এই দিনে

আজ ১২ মে, গ্রেগরীয় বর্ষপঞ্জী অনুসারে বছরের ১৩২তম (অধিবর্ষে ১৩৩তম) দিন। বছর শেষ হতে আরো ২৩৩ দিন বাকি রয়েছে। এক নজরে দেখে নিন ইতিহাসের এ দিনে ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য ঘটনা, বিশিষ্টজনের জন্ম-মৃত্যুদিনসহ গুরুত্বপূর্ণ আরও কিছু বিষয়।

ঘটনাবলি:

১৬৬৬ - মুঘল সম্রাট আওরঙ্গজেবের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরের জন্য শিবাজি আগ্রায় আসেন

১৬৬৬ - আওরঙ্গজেবের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষরের জন্য শিবাজি আগ্রায় আসেন।

১৮৭৭ - ভারতীয় মুসলমানদের প্রথম রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান সেন্ট্রাল ন্যাশনাল মোহামেডানের প্রতিষ্ঠা হয়।

১৯১৫ - ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম ব্যক্তিত্ব রাসবিহারী বসু বৃটিশের শ্যেন চক্ষু ফাঁকি দিয়ে জাপানি একটি স্টীমারে করে ভারত ত্যাগ করেন।

১৯৪১ - এডলফ হিটলার ইরাকের স্বাধীনতা সংগ্রামী রশীদ আলি গিলানির জন্য দুইটি বোমারু বিমান প্রেরণ করেছিলেন।

১৯৪৯ - পশ্চিম বার্লিনের বিরুদ্ধে সোভিয়েত ইউনিয়ন আরোপিত অবরোধের অবসান ঘটে ।

১৯৫৫ - সিলেটের হরিপুরে প্রাকৃতিক গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কৃত হয়।

১৯৬৫ - বাংলাদেশে ঘূর্ণিঝড়ে ১৭ হাজার লোকের প্রাণহানি ঘটে।
১৯৯৪ - আজারাইজান প্রজাতন্ত্র এবং আর্মেনিয়ার মধ্যে যুদ্ধ বিরতি হয়।

জন্ম:

১৮২০ - ‘লেডি উইথ দ্য ল্যাম্প’খ্যাত ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গেলের জন্ম।

১৮৬৩ - শিশুসাহিত্যের বিশিষ্ট লেখক ও সন্দেশ পত্রিকার সম্পাদক উপেন্দ্রকিশোর রায় চৌধুরীর জন্ম।

১৮৪৫ - আউগুস্ট ভিলহেল্ম ফন শ্লেগেল, জার্মান কবি, অনুবাদক ও সমালোচক এর মৃত্যু।

১৯২৪ - নোবেলজয়ী (১৯৭৪) ব্রিটিশ মহাকাশ বিজ্ঞানী অ্যান্টনি হিউসিসের জন্ম।


ইসরায়েলের লড শহরে জরুরি অবস্থা জারি

দেশে পৌঁছেছে চীনের ৫ লাখ টিকা

করোনা পরবর্তী জটিলতায় মারা গেলেন মুক্তিযোদ্ধা রিয়াজুল হক

ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ‘কংক্রিট অ্যাকশন’ নিতে এরদোয়ানের ফোনালাপ


মৃত্যু:

১৯৪১ - কল্লোল পত্রিকার অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক দীনেশরঞ্জন দাশের মৃত্যু।

১৯৫৭ - এরিক ভন স্ট্রোহেইম, মার্কিন চলচ্চিত্র পরিচালক এবং অভিনেতা এর মৃত্যু।

১৯৭১ - লেখক সাদত আলী আখন্দের মৃত্যু।

২০০১ - ডিডি, ব্রাজিলীয় ফুটবলার এর মৃত্যু।

দিবস:

আন্তর্জাতিক নার্স দিবস আজ

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

ভারতে তরুণীকে শ্লীলতাহানির প্রতিবাদ করায় সংঘর্ষ

অনলাইন ডেস্ক

ভারতে তরুণীকে শ্লীলতাহানির প্রতিবাদ করায় সংঘর্ষ

ঘটনা ভারতের হাওড়ার শিবপুরে। গতকাল সোমবার রাতে প্রকাশ্য রাস্তায় এক তরুণীকে শ্লীলতাহানির প্রতিবাদ করায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে, সেখান থেকে পুলিশ লাইনের সামনেই দুই পক্ষের মধ্যে শুরু হয় হাতাহাতি। ভাঙচুর চালানো হয় দোকান এবং গাড়িতেও। পুলিশের বিশাল বাহিনী পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

আনন্দবাজার সূত্রে পুলিশ জানায়, এক তরুণীকে ফোনে নানা ভাবে উত্যক্ত করছিল শিবপুরের কয়েক জন যুবক। বেশ কিছু দিন ধরেই এই ঘটনা ঘটছিল। শেষে বাধ্য হয়েই তরুণী বিষয়টি তার পরিবারে জানান। সোমবার ওই তরুণীর বোন শিবপুর থানায় অভিযোগ জানাতে যান। থানায় অভিযোগ জানাতে গিয়েছেন এই খবর পেয়ে বিষয়টি মিটিয়ে নেওয়ার জন্য তরুণীর বোনকেই ডেকে পাঠান অভিযুক্ত ওই যুবকেরা।

শিবপুরের এক অভিজাত শপিং মলের সামনে তরুণীর বোন অভিযুক্তদের সঙ্গে দেখা করতে যান। সেখানে তার সঙ্গেও তারা দুর্ব্যবহার করেন বলে অভিযোগ। তাকে গালিগালাজ করে এবং শ্লীলতাহানিও করেন বলে অভিযোগ। পুরো ঘটনাই প্রকাশ্য রাস্তাতে ঘটতে থাকে। এই ঘটনা ঘটতে দেখে তরুণীর বোনের পাশে দাড়িয়ে প্রতিবাদ করেন কয়েকজন যুবক। এর পরই প্রতিবাদীদের উপর চড়াও হন অভিযুক্তেরা। তাদের মারধর করা হয় বলে অভিযোগ।


আরও পড়ুনঃ


ফ্রান্সের ইকুইহেন বিচ: উল্টানো নৌকার নিচে বসবাস

ভারতে শ্মশান থেকে মৃতদের কাপড় চুরি, আটক ৭

মৃত্যুর আগে বাবাকে ফোনে জানালেন ধর্ষণের কথা!

ভারতে বাতিল হল গো-রক্ষা হেল্প ডেস্ক


এরপর দু’পক্ষের প্রায় শ’খানেক লোক শিবপুর পুলিশ লাইনের কাছে জড়ো হন। দু’পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়, শিবপুর পুলিশ লাইনের কাছে একাধিক দোকানে ভাঙচুর চালানো হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। পুলিশের বিশাল বাহিনী পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। দু’পক্ষেরই কয়েকজন গ্রেফতারও হয়েছেন।

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর

১১ মে, ইতিহাসের এই দিনে

অনলাইন ডেস্ক

১১ মে, ইতিহাসের এই দিনে

আজ ১১ মে, গ্রেগরীয় বর্ষপঞ্জী অনুসারে বছরের ১৩১তম (অধিবর্ষে ১৩২তম) দিন। বছর শেষ হতে আরো ২৩৪ দিন বাকি রয়েছে।  এক নজরে দেখে নিন ইতিহাসের এ দিনে ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য ঘটনা, বিশিষ্টজনের জন্ম-মৃত্যুদিনসহ গুরুত্বপূর্ণ আরও কিছু বিষয়।

ঘটনাবলি :
৩৩০ - কনস্তানতিপল রোম সাম্রাজ্যের নতুন রাজধানী হয়।
৯১২ - আলেকজান্ডার বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যের সম্রাট হন।
১৭৪৫ - অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড ও হল্যান্ডের মিত্রশক্তির বিরুদ্ধে যুদ্ধে ফরাসি বাহিনী জয়যুক্ত হয়।
১৮৫৭ - সিপাহী বিদ্রোহ: সৈনিকরা ব্রিটিশদের কাছ থেকে দিল্লি অধিকার করে নেয়।
১৮৬৭ - লুক্সেমবার্গ স্বাধীনতা অর্জন করে।
১৯৩৫ - জার্মানীর বার্লিন শহরে প্রথম টেলিভিশন প্রেরণ যন্ত্র আনুষ্ঠানিকভাবে কাজ শুরু করে এবং এর মাধ্যমে প্রথমবারের মত পৃথিবীতে টেলিভিশনের অনুষ্ঠান সম্প্রচার শুরু হয়।
১৯৪০ - জার্মান বাহিনীর আগ্রাসনের শিকার বেলজিয়ামকে রক্ষা করার জন্য বৃটিশ ও ফরাসী সেনাদের যৌথ বাহিনী বেলজিয়ামে প্রবেশ করে।
১৯৪৯ - ইসরায়েল জাতিসংঘে যোগ দেয়।
১৯৯৪ - ফিলিস্তিনি পুলিশ গাজায় এলে ২৭ বছরের ইজরায়েলি দখলদারির অবসান ঘটে।
১৯৯৭ - দাবাখেলুড়ে কম্পিউটার ডীপ ব্লু প্রথমবারের মতো বিশ্বজয়ী দাবাড়ু হিসেবে গ্যারি কাসপারভকে পরাজিত করে।
১৯৯৮ - ভারত সরকার দেশটির মরুরাজ্য রাজস্থানের ভূগর্ভে ৩টি পারমাণবিক অস্ত্রের পরীক্ষা চালায়।
২০১৬ - বাংলদেশের শীর্ষ যুদ্ধাপরাধী মতিউর রহমান নিজামীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।


ফিতরা দেয়ার গুরুত্ব ও ফজিলত

ঝুম বৃষ্টিতে ভিজলো রাজধানী

নদীতে ভেসে এল ৪০টির বেশি লাশ

ইসরায়েলের বিমান হামলায় হামাসের কমান্ডার নিহত


জন্ম :

১৮৫৪ - জ্যাক ব্ল্যাকহাম, বিখ্যাত অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার।
১৯০৪ - সালভাদর দালি, খ্যাতিমান স্পেনীয় চিত্রকর।
১৯১৬ - চিত্রশিল্পী নিরদ মজুমদারের জন্ম।
১৯১৬ - নোবেলজয়ী (১৯৮৯) স্পেনীয় ঔপন্যাসিক ক্যামিলো হোসে সেলোর জন্ম।
১৯১৮ - রিচার্ড ফাইনম্যান, নোবেল পুরস্কার বিজয়ী মার্কিন পদার্থবিজ্ঞানী।
১৯৩০ - এড্সগার ডাইকস্ট্রা, ওলন্দাজ কম্পিউটার বিজ্ঞানী।

মৃত্যু:
১৯১৫ - শহীদ বসন্তকুমার বিশ্বাস, ভারতীয় স্বাধীনতা সংগ্রামী এবং অগ্নিযুগের বীর বিপ্লবী।
১৯৮১ - বব মার্লে, জামাইকান রেগে শিল্পী, গীটার বাদক ও গীতিকার।
২০০৪ - আল্ফ ভ্যালেন্টাইন, বিখ্যাত ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ক্রিকেটার।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

মাস্কের ওপরেই গয়না পরে বিয়ে, ভিডিও ভাইরাল

অনলাইন ডেস্ক

মাস্কের ওপরেই গয়না পরে বিয়ে, ভিডিও ভাইরাল

করোনার মধ্যেও থেমে নেই বিয়ে। তবে বাধ্যতামূলক মাস্ক পরে বিয়ে করতে গেলে আবার বিয়ের সাজগোজ ঢাকা পড়ে যাবে। আবার মাস্কে মুখ ঢাকা থাকলে সাধের গয়নাগুলোও পরা যায় না। তাহলে উপায়?

এর সমাধান নিয়ে এলেন ভারতের উত্তরাখণ্ডের নৈনিতালের কবিতা যোশী। সম্প্রতি মধ্যবয়সী এই নারীর একটি ছবি ইন্টারনেটে ভাইরাল। তাতে মাস্কের ওপরেই বিশাল নথ পরতে দেখা গেছে তাকে। ভাইঝির বিয়েতে কবিতা এমন কাণ্ড ঘটিয়েছেন। তবে তিনিই শুধু নন, কনের মাসহ ওই বিয়ে বাড়িতে আরও অনেক নারীকেই মাস্কের ওপর বিশাল নথ পরা অবস্থায় দেখা গেছে।

মাস্কের ওপর নথ পরার সুবিধা নিয়েও কথা বলেছেন তিনি। কবিতা বলেছেন, নাকের চেয়ে মাস্কের ওপর নথ পরা আরও সহজ এবং স্বস্তির। খাবার ও পানি পানের সময় কোনো ঝামেলা হয় না! 


আরও পড়ুনঃ


বিক্ষোভে বাড়ল ঈদের ছুটি

ফ্রান্সের ইকুইহেন বিচ: উল্টানো নৌকার নিচে বসবাস

ভারতে শ্মশান থেকে মৃতদের কাপড় চুরি, আটক ৭

মৃত্যুর আগে বাবাকে ফোনে জানালেন ধর্ষণের কথা!


কবিতা আরও জানান, আমার ভাইঝির বিয়ে ছিল। আমি তার বড় মামি। পারিবারিকভাবে আমরা খুবই ঘনিষ্ঠ। করোনায় স্বাস্থ্যবিধি মানার পাশাপাশি আমরা সাজে ঐতিহ্যটাও ধরে রাখতে চেয়েছি। আমি ঠিকঠাকভাবে বিয়েতে যাওয়ার চেষ্টা করেছি। এখানে কাউকে দেখানোর কিছু নেই। নথ বিবাহিত নারীদের জন্য খুবই শুভ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। মাস্কের নিচে পরলে ব্যথা লাগতো। তাই পিন দিয়ে আমি সেটা মাস্কের ওপর পরেছি।

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর

কোভিড উপসর্গে হাসপাতালে

মৃত্যুর আগে বাবাকে ফোনে জানালেন ধর্ষণের কথা!

অনলাইন ডেস্ক

মৃত্যুর আগে বাবাকে ফোনে জানালেন ধর্ষণের কথা!

দিল্লির টিকরি সীমান্তে কৃষক আন্দোলনে যোগ দিতে যাওয়া এক মহিলা সমাজকর্মীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই সমাজকর্মীর বাড়ি পশ্চিমবাংলায়।

আনন্দবাজার জানায়, তরুণীর বাবা বাহাদুরগড় থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। চার অভিযুক্তের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করেছে পুলিশ। এফআইআর-এ নাম রয়েছে অনুপ মালিক ও অনিল মালিক নামে দুই যুবকের। এরা ‘কিষাণ সোশ্যাল আর্মি’ নামে একটি সংগঠন চালায়। পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্তদের খোঁজে তল্লাশি চলছে।

গত ৩০ এপ্রিল কোভিডে আক্রান্ত হয়ে ওই তরুণীর মৃত্যু হয়। ২৬ বছরের ওই তরুণীকে হরিয়ানার শিবম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। চার দিন পর তার মৃত্যু হয়।

থানায় যে অভিযোগ দায়ের হয়েছে তা অনুসারে, ওই তরুণী বাংলা থেকে টিকরি সীমান্তে গিয়েছিলেন একটি দলের সঙ্গে। ২৬ এপ্রিল তাকে ঝাঝর জেলার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কোভিডের উপসর্গ ছিল। ৩০ এপ্রিল তার মৃত্যু হয়।


আরও পড়ুনঃ


বিক্ষোভে বাড়ল ঈদের ছুটি

ফ্রান্সের ইকুইহেন বিচ: উল্টানো নৌকার নিচে বসবাস

ইফতারি না পাঠানোয় বউ-শ্বশুরকে খাটের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন

ভারতে শ্মশান থেকে মৃতদের কাপড় চুরি, আটক ৭


বাহাদুরগড় থানার পুলিশ আধিকারিক বিজয় কুমার জানিয়েছেন, তরুণীর বাবা দু’জনের নামে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করেছেন। তিনি আরও জানান, তরুণীর বাবা অভিযোগ করেছেন যে ওই দলেরই দুই ব্যক্তি তার মেয়েকে ধর্ষণ করেছে। আর ঘটনাটি মৃত্যুর আগে মেয়ে তাকে ফোনে জানিয়েছিলেন।

বিজয় কুমার জানান, তারা হাসপাতালের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন। হাসপাতালের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ওই তরুণীকে কোভিডের জন্য চিকিৎসা করেছিল। হাসপাতাল থেকে এই সংক্রান্ত নথি চেয়েছে পুলিশ। সেগুলি মেলার পরেই বলা যাবে করোনা আক্রান্ত হয়ে তরুণীর মৃত্যু হয়েছিল কি না।

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর