যে আমল করলে আল্লাহ রিজিক বাড়িয়ে দেন

অনলাইন ডেস্ক

যে আমল করলে আল্লাহ রিজিক বাড়িয়ে দেন

রিজিকের মালিক শুধু আল্লাহ তাআলা। তিনি যাকে চান রিজিক দান করেন। আমাদের কাজ হল তার নির্দেশ অনুযায়ী পরিশ্রম করে হালাল উপার্জন করা। পবিত্র কুরআনের আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন-

‘সুতরাং তোমরা আল্লাহর কাছে রিজিক তালাশ কর, তার ইবাদত কর এবং তার কৃতজ্ঞতা প্রকাশ কর। তারই কাছে তোমাদের ফিরে যেতে হবে।’ (সূরা আনকাবুত: আয়াত ১৭)

যারা হালাল উপার্জনের চেষ্টা করে আর এ লক্ষ্যে কাজ করে তাদের রিজিকে আল্লাহ তাআলা বেশি বরকত দেন। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন-

‘তুমি বল, নিশ্চয়ই আমার রব যার জন্য চান রিজিক সম্প্রসারিত করে দেন এবং সংকুচিতও করে দেন কিন্তু অধিকাংশ লোক তা জানে না।’ (সূরা সাবা: আয়াত ৩৬)

হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘আল্লাহ তাআলা বলেন- হে আদম সন্তান! আমার ইবাদতের জন্য তুমি ঝামেলামুক্ত হও, আমি তোমার অন্তরকে প্রাচুর্য দিয়ে ভরে দেব এবং তোমার দারিদ্র ঘুচিয়ে দেব। আর যদি তা না কর, তবে তোমার হাত ব্যস্ততায় ভরে দেব এবং তোমার অভাব দূর করব না।’ (তিরমিজি)

যেহেতু রিজিকে বরকতের মালিক আল্লাহ, তাই আমাদের কাজ হল হালাল উপার্জনের জন্য চেষ্টা-প্রচেষ্টা করা আর আল্লাহর কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করা। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন-
‘আর যখন তোমাদের রব ঘোষণা দিলেন, ‘যদি তোমরা শুকরিয়া আদায় কর, তবে আমি অবশ্যই তোমাদের বাড়িয়ে দেব, আর যদি তোমরা অকৃতজ্ঞ হও, নিশ্চয়ই আমার আজাব বড় কঠিন।’ (সূরা ইবরাহিম : আয়াত ৭)

অভাবমুক্ত থাকতে করণীয়

অভাবমুক্ত থাকার জন্য আল্লাহ তাআলা আমাদের একটি দোয়া শিখিয়েছেন। অভাব মোচনে যে দোয়াটি আমরা বেশি বেশি পড়বে; তাহলো-
اللَّهُمَّ رَبَّنَا أَنزِلْ عَلَيْنَا مَآئِدَةً مِّنَ السَّمَاء تَكُونُ لَنَا عِيداً لِّأَوَّلِنَا وَآخِرِنَا وَآيَةً مِّنكَ وَارْزُقْنَا وَأَنتَ خَيْرُ الرَّازِقِينَ উচ্চারণ : ‘আল্লাহুম্মা রাব্বানা আনযিল আলাইনা মায়িদাতাম মিনাস সামায়ি তাকুনু লানা ঈদাল্লি আওওয়ালিনা ওয়া আখিরিনা ওয়া আয়াতাম মিনকা ওয়ারযুকনা ওয়া আনতা খায়রুর রাযিকিন।’ (সূরা মায়েদা: আয়াত ১১৪)

অর্থ: ‘হে আমাদের প্রভু-প্রতিপালক আল্লাহ! তুমি আকাশ থেকে আমাদের জন্য খাবার ভরতি খাঞ্চা অবতীর্ণ কর যেন তা আমাদের প্রথম অংশের জন্য আর আমাদের শেষ অংশের জন্য আনন্দোৎসব হবে এবং তোমার পক্ষ থেকে একটি নিদর্শন হয়। তুমি আমাদেরকে রিযিক দান কর। প্রকৃতপক্ষে তুমিই উত্তম রিযিকদাতা।’

হজরত মাকহুল রাহমাতুল্লাহি আলাইহি বলেন, ‘যে ব্যক্তি এ বাক্যগুলো সাতবার বলবে আল্লাহ তাআলা তার সত্তরটি অভাব দূর করবেন। (তন্মধ্যে) সবচেয়ে হাল্কা বিপদ হলো মানুষের অভাব। তাহলো-
لَا حَوْلَ وَ لَا قُوَّةَ اِلَّا بِاللهِ – لَا مَلْجَأ مِنَ اللهِ إِلَّا إِلَيْهِ
উচ্চারণ : ‘লা হাওলা ওয়ালা কুওয়্যাতা ইল্লা বিল্লাহি - লা মালঝাআ মিনাল্লাহি ইল্লা ইলাইহি।’
অর্থ : আল্লাহর সাহায্য ছাড়া গুনাহ থেকে বিরত থাকা এবং নেক আমলে মশগুল হওয়া সম্ভব না। আল্লাহতায়ালার কাছ থেকে পালিয়ে যাওয়ার কোনো জায়গা নেই। তার কাছেই আশ্রয় গ্রহণ করতে হবে।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম অভাব ও প্রাচুর্যের ব্যাপারে আল্লাহর কাছে পানাহ চাইতেন।’ (আবু দাউদ)

হজরত আবদুল্লাহ ইবন মাসউদ রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, ‘যে ব্যক্তি অভাবে পতিত হয়, অতঃপর তা সে মানুষের কাছে সোপর্দ করে (অভাব দূরিকরণে মানুষের ওপর নির্ভরশীল হয়), তার অভাব মোচন করা হয় না। পক্ষান্তরে যে অভাবে পতিত হয়ে এর প্রতিকারে আল্লাহর ওপর নির্ভরশীল হয় তবে অনিতবিলম্বে আল্লাহ তাকে দ্রুত বা ধীর রিজিক দেবেন।’ (তিরমিজি ও মুসনাদে আহমাদ)

আরও পড়ুন


সূরা ইয়াসিন পাঠের ফজিলত ও গুরুত্ব

বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকীতে বিশ্বনেতাদের শুভেচ্ছা

রাজনীতিকে পেশা বানিয়ে ফেলেছেন সুবিধাবাদীরা: রাষ্ট্রপতি

দেশকে সোনার বাংলাদেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করবই: প্রধানমন্ত্রী


হজরত আনাস ইবনে মালেক রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, আমি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলতে শুনেছি তিনি ইরশাদ করেন, ‘যে ব্যক্তি কামনা করে তার রিজিক প্রশস্ত করে দেয়া হোক এবং তার আয়ু দীর্ঘ করা হোক সে যেন তার আত্মীয়দের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখে।’ (বুখারি ও মুসলিম)

আমাদের রিজিক তখনই সম্প্রসারিত হবে যখন আল্লাহর হক যথাযথভাবে আদায় করব। আমরা যদি ইবাদতের সময় ইবাদত করি আর বাকী সময় রিজিকের সন্ধান করি তাহলে তিনি আমাদের রিজিকে বরকত দেবেন।

সুতরাং মানুষের উচিত আল্লাহর হক আদায়ের পাশাপাশি বান্দার হকও যথাযথ আদায় করা। যেভাবে আল্লাহ তাআলা দিকনির্দেশনা দিয়েছেন-
‘অতঃপর নামাজ শেষ হলে তোমরা দুনিয়ায় ছড়িয়ে পড় এবং আল্লাহর অনুগ্রহ (রিজিক) তালাশ কর ও আল্লাহকে অধিক স্মরণ কর, যাতে তোমরা সফলকাম হতে পার।’ (সূরা জুমআ: আয়াত ১০)

তাই আমরা যদি আল্লাহর হক পুরোপুরি আদায় করতে পারি তবেই তিনি আমাদের রিজিকে বরকত দান করবেন এবং রিজিককে সম্প্রসারিত করবেন। আর আল্লাহ তাআলা কোথা থেকে রিজিক দান করবেন তা আমরা কল্পনাও করতে পারব না।

আল্লাহ তাআলার দরবারে আমাদের প্রার্থনা- হে দয়াময় প্রভূ! আপনি আমাদের রিজিকে প্রভূত বরকত দিন আর আমাদেরকে হালাল রিজিক উপার্জন ও খাওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর

ঈদের দিনের ১৩টি সুন্নাত

অনলাইন ডেস্ক

ঈদের দিনের ১৩টি সুন্নাত

ঈদুল ফিতর, ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের দুটো সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসবের একটি। যারা এক মাস ধরে সিয়াম সাধনা করেছেন, তাদের জন্যই আনন্দ ও উৎসবের দিন হচ্ছে ঈদুল ফিতর। এ দিনটি আল্লাহর কাছ থেকে পুরস্কার লাভেরও দিন।

ঈদের দিনে রয়েছে ১৩টি সুন্নাত । যা রাসূল (সা.) করতেন। আসুন সেগুলো একটু জেনে নেই।

১. অন্যদিনের তুলনায় সকালে ঘুম থেকে জাগ্রত হওয়া।

২. মিসওয়াক করা। 

৩. গোসল করা। 

৪. শরীয়তসম্মত সাজসজ্জা করা।

৫. সামর্থ অনুপাতে উত্তম পোশাক পরিধান করা। 

৬. সুগন্ধি ব্যবহার করা। 

৭. ঈদুল ফিতরে ঈদগাহে যাবার আগে মিষ্টি জাতীয় যেমন খেজুর ইত্যাদি খাওয়া। 

৮. সকাল সকাল ঈদগাহে যাওয়া।

৯. ঈদুল ফিতরে ঈদগাহে যাওয়ার পূর্বে সদকায়ে ফিতর আদায় করা।


ছাদে মিলল মাদ্রসাছাত্রীর গলাকাটা মরদেহ

রাশিয়ায় এক ডোজের স্পুটনিক টিকার অনুমোদন

জুমাতুল বিদাকে ‘আল-কুদস দিবস’ বলা হয় কেন?

মধ্যরাতে হেফাজতের নেতা শাহীনুর পাশা গ্রেপ্তার


১০. ঈদের নামাজ ঈদগাহে আদায় করা, বিনা অপরাগতায় মসজিদে আদায় না করা। 

১১. যে রাস্তায় ঈদগাহে যাবে, সম্ভব হলে ফেরার সময় অন্য রাস্তা দিয়ে ফেরা। 

১২. পায়ে হেঁটে যাওয়া। 

১৩. ঈদুল ফিতরে ঈদগাহে যাবার সময় আস্তে আস্তে তাকবীর পড়তে থাকা।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

৭ বছরের শিশু ধর্ষণ

অনলাইন ডেস্ক

৭ বছরের শিশু ধর্ষণ

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার চর সিতাইঝাড় এলাকায় ৭ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় আলম মিয়া (৪০) নামে চায়ের দোকানের এক কর্মচারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

শিশুটি অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাকে জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শুক্রবার (৭ মে) সকালে শিশুটির মা বাদী হয়ে আলম মিয়াকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। এরপর দুপুরের দিকে অভিযুক্তকে গ্রেফতারের পর আদালতে সোপর্দ করা হয়।

আলম মিয়া বিবাহিত এবং চর সিতাইঝাড় গ্রামের মৃত ওমর আলীর ছেলে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত সোমবার (৩ মে) শিশুটিকে ধর্ষণ করে স্থানীয় চায়ের দোকানের কর্মচারী আলম মিয়া। ধর্ষণের পর নানা ধরনের ভয়ভীতি দেখানোয় শিশুটি ভয়ে এ ঘটনা কাউকে জানায়নি। ওই ঘটনার ৩ দিন পর বৃহস্পতিবার (৬ মে) প্রচণ্ড ব্যথা ও রক্তপাত শুরু হলে শিশুটি তার মাকে সব কিছু জানায়। সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয় চিকিৎসক দিয়ে চিকিৎসা করানো হলেও তার অবস্থার অবনতি হওয়ায় জেনারেল হাসপাতালে এনে ভর্তি করা হয়েছে।

শিশুটির বাবা দ্বিতীয় বিয়ে করে তার মাকে ছেড়ে অন্যত্র চলে যাওয়ায় মায়ের সাথে নানা-নানীর বাড়িতে থাকে। তার মা শহরের দর্জির দোকানে কাজ করে। এ অবস্থায় ঘটনার দিন ভিকটিমকে বাড়িতে রেখে নানা-নানী রাস্তায় মাটি কাটার কাজ করতে যাওয়ার সুযোগে বাড়ি সংলগ্ন চায়ের দোকানের কর্মচারি আলম মিয়া শিশুটিকে একা পেয়ে ধর্ষণ করে।

সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খান মো. শাহরিয়ার বলেন, শিশুটির মায়ের অভিযোগ মামলা হিসেবে রেকর্ড করার পরপর অভিযান চালিয়ে আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। শনিবার (০৮ মে) জেনারেল হাসপাতালে ভিকটিমের ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করা হবে।

গাছ উপড়ে পড়ল ঘরের ওপর, গেল স্বামী-স্ত্রীর প্রাণ

ঢাবি শিক্ষক-কর্মচারীদের ঈদ কর্মস্থলেই

এরা মানুষ না, অমানুষ: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

করোনা মুক্তিতে জুমাতুল বিদায়ে দোয়া

অনলাইন ডেস্ক

করোনা মুক্তিতে জুমাতুল বিদায়ে দোয়া

রমজান মাসের আজ শেষ জুমা। পবিত্র জুমাতুল বিদা। এ দিনকে ইবাদতের মর্যাদাপূর্ণ দিন হিসেবে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়। এদিন জুমা আদায়ের জন্য এলাকার মসজিদে আগেভাগে গিয়ে উপস্থিত হন মুসল্লিরা। 

নামাজে শরিক হতে আগেভাগেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে মসজিদে প্রবেশ করেন মুসল্লিরা। এরপরই ইমাম সাহেবের সংক্ষিপ্ত বয়ানে আবারও মনে করে দেওয়া হয় স্বাস্থ্যবিধির কথা। 

নামাজ আদায়ের পর আল্লাহর দরবারে মাগফিরাত কামনা করে কান্নায় ভেঙে পড়েন অনেকেই। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে দেশের মসজিদে মসজিদে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া করা হয় ভয়াবহ প্রাদুর্ভাব হতে বাংলাদেশ সহ সারা বিশ্বের সকল মানুষের সুরক্ষা, অসুস্থদের দ্রুত আরোগ্য লাভ, মহামারি পরিস্থিতির দ্রুত উন্নতির জন্য।

করোনা মহামারি থেকে রক্ষা দেশের অন্যান্য ধর্মীয় উপাসনালয়ে নিজ নিজ ধর্ম মতে সুবিধাজনক সময়ে বিশেষ প্রার্থনার আয়োজন করা হবে।

news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

জুমাতুল বিদাকে ‘আল-কুদস দিবস’ বলা হয় কেন?

অনলাইন ডেস্ক

জুমাতুল বিদাকে ‘আল-কুদস দিবস’ বলা হয় কেন?

আজ পবিত্র জুমাতুল বিদা বা মাহে রমজানের শেষ শুক্রবার। দিনটি মুসলিম বিশ্বের কাছে জুমাতুল বিদা নামে পরিচিত। এ দিনটি আল-কুদস দিবস হিসেবেও পালিত হয়।

‘আল-কুদস দিবস’ বলার কারণ:

প্রতিবছর রমজান মাসের শেষ শুক্রবার সারা বিশ্বের ধর্মপ্রাণ মুসলমান বায়তুল মোকাদ্দাসে ইহুদিদের অবৈধ দখলের বিরুদ্ধে ঘৃণা প্রকাশ করেন এবং ইহুদি রাষ্ট্র ইসরায়েলের কবল থেকে পবিত্র ভূমি ফিলিস্তিন রাষ্ট্রকে মুক্ত করার জন্য নতুন শপথ গ্রহণ করে থাকেন। তাই মাহে রমজানের ‘জুমাতুল বিদা’ তথা শেষ শুক্রবারকে ‘আল-কুদস দিবস’ বলা হয়।

মাহে রমজানের বিদায়ী শুক্রবার ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের জন্য অতি মূল্যবান। এদিন সিয়াম শেষ হয়ে যাওয়ার সতর্কতামূলক দিবস। জুমাতুল বিদা স্মরণ করিয়ে দেয় যে রোজার শেষ প্রান্তে এর চেয়ে ভালো দিবস আর পাওয়া যাবে না। রোজার শুরু থেকে যেসব ইবাদত ব্যস্ততাবশত ফেলে রাখা হয়েছে, যে গুনাহখাতা মাফের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করতে ভুল হয়েছে, জুমাতুল বিদার দিনে দোয়া কবুল হওয়ার সময়ে এর বরকত হাসিল করা বাঞ্ছনীয়।


মধ্যরাতে হেফাজতের নেতা শাহীনুর পাশা গ্রেপ্তার

পবিত্র জুমাতুল বিদা আজ

কোভিড সার্টিফিকেট জাল, ধ্যাত তাও কি হয় নাকি!

জাতীয় অধ্যাপক হলেন তিন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ


জুমাতুল বিদা এবং শেষ শুক্রবার ‘আল-কুদস দিবস’। জুমাতুল বিদার বিশেষ তাৎপর্য এই যে রমজান মাসের শেষ শুক্রবার আল্লাহর নবী হজরত দাউদ (আ.)-এর পুত্র মহামতি হজরত সুলায়মান (আ.) জেরুজালেম নগর প্রতিষ্ঠা করেন এবং আল্লাহর মহিমা তুলে ধরতে সেখানে পুনর্নির্মাণ করে গড়ে তোলেন মুসলমানদের প্রথম কিবলা ‘মসজিদ আল-আকসা’। মক্কার মসজিদুল হারাম ও মদিনার মসজিদে নববির পর তৃতীয় পবিত্রতম স্থান হচ্ছে ‘বায়তুল মোকাদ্দাস’ বা ‘মসজিদ আল-আকসা’।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

বিশ্বের সকল মসজিদের পূর্বসূরী ‌‘উকবা বিন নাফে মসজিদ’

অনলাইন ডেস্ক

এ মসজিদটির প্রতিষ্ঠাতা মুসলিম দিগ্বিজয়ী উকবা বিন নাফের নামানুসারে একে উকবা বিন নাফে মসজিদ নামেও ডাকা হয়।

বিশ্বব্যাপী সমাদৃত এই স্থাপত্য নিদর্শনকে পশ্চিমা ইসলামী বিশ্বের সকল মসজিদের পূর্বসূরী হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ৯ হাজার বর্গমিটার আয়তনের ভূমিতে বিশাল এ মসজিদটি অবস্থিত।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর