অবশেষে মুখ খুললেন সদ্য বিদায়ী খালেদা জিয়ার প্রেস সচিব মারুফ কামাল

অনলাইন ডেস্ক

অবশেষে মুখ খুললেন সদ্য বিদায়ী খালেদা জিয়ার প্রেস সচিব মারুফ কামাল

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পেছনে বসা তার সদ্য বিদায়ী প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান সোহেল। ফাইল ছবি

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান সোহেলকে তার দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয় গত সোমবার। ওই দিন এ সংক্রান্ত একটি খবরের লিংক এবং পরদিন মঙ্গলবার অব্যাহতি পাওয়ার চিঠিটি ফেসবুকে শেয়ার করেন তিনি।  এ নিয়ে প্রথম দিকে কোনো প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেননি এই সাংবাদিক।  পরে ফেসবুক স্ট্যাটাস দিয়ে নিজের বক্তব্য উপস্থাপন করেন।  

বুধবার নিজের ফেসবুকে মারুফ কামাল খান জানান, তিনি খালেদা জিয়ার প্রেস সচিবের দায়িত্ব পালনের বিনিময়ে কোনো পারিশ্রমিক কিংবা সম্মানী নেননি। তাকে এই পদে নিয়োগের সময় কোনো নিয়োগপত্রও দেওয়া হয়নি।  বিএনপির কোনো পদেও তিনি নেই।  

আপনার নিয়োগ তো খালেদা জিয়ার হাতেই হয়েছিল সম্ভবত তাহলে আপনাকে কিভাবে বিএনপির স্থায়ী কমিটি পদচ্যুত করে সেই প্রশ্নের উওরে মারুফ কামাল  বলেন, আমার যা বক্তব্য বলেছি। এর বাইরে এ মুহূর্তে আর কিছুই বলতে চাইছি না।

মারুফ কামালের স্ট্যাটাসটি পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো-

‘দেশনেত্রীখালেদা জিয়ার প্রেসসচিবের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়ে আমাকে বিএনপির তরফ থেকে যে চিঠি দেওয়া হয়েছে, সে সম্পর্কে সোশ্যাল মিডিয়ায় কোনো মন্তব্য বা প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করার ব্যাপারে আমি নিরুৎসাহিত করেছিলাম। তবু অনেকে মন্তব্য করেছেন। আবেগের আতিশয্যে কেউ কেউ এ সিদ্ধান্তের ব্যাপারে কিছুটা কটাক্ষপূর্ণ মন্তব্যও করেছেন। মানুষ পাথর নয়। তার ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া থাকে, আবেগাক্রান্ত হয়। সময়ে এটা থিতিয়ে যাবে আশা করি।

আমি সবার ভালোবাসায় অভিভূত। আলাদা করে সবার মন্তব্যের জবাব দিতে না পারায় দুঃখিত। খুব অস্বাভাবিক এক সময়ে ম্যাডাম খালেদা জিয়ার প্রেসসচিব হিসেবে আমার দায়িত্ব গ্রহণ ও দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালনের গল্প সুযোগ পেলে আগামীতে কখনো বলব। তবে একটা কথা বলে রাখি, এটা কোনো চাকরি নয়, দলীয় পদও নয়, স্রেফ ম্যাডামের ইচ্ছাধীন একটা রাজনৈতিক সিলেকশন ছিল। আমাকে কেউ কোনো নিয়োগপত্র দেয় নি, শর্তও নির্ধারণ করে দেয় নি। সব ছিল মুখে মুখে, বিশ্বাস ও আস্থার ভিত্তিতে। আমি এই দায়িত্বপালনের বিনিময়ে কখনো কোনো পারিশ্রমিক, মায়না বা সম্মানি নিই নি।

আমি একজন সামান্য লেখক-সাংবাদিক। আমার আগে আহমেদ নজির, আনোয়ার জাহিদ ও রিয়াজউদ্দীন আহমদের মতন বিশিষ্ট ব্যক্তিরা একইভাবে এই রাজনৈতিক দায়িত্ব পালন করে গেছেন। তাদের কারো পরিচিতি ছিল সচিব, আবার কারো পরিচিতি উপদেষ্টা হিসেবে ছিল। এই দায়িত্বের বাইরে তাদের কেউ দলীয় পদে ছিলেন, কেউ ছিলেন না। আমাকে প্রেসসচিব পদের বাইরে দলীয় পদ নেওয়ার কথা বললেও আমি তা নিইনি।  আমার নিজের সীমাবদ্ধতার কথা বুঝেই আমি নির্দিষ্ট দায়িত্বের মধ্যেই নিজেকে সীমিত রেখেছি।

খালেদা জিয়ার মিডিয়া কাভারেজ দেখভাল এবং তার বক্তব্য-বিবৃতি ও লিখিত ইন্টারভিউর জবাবের মুসাবিদা করার ব্যাপারে আমার ওপর অর্পিত এই দায়িত্ব পালনে আমার সাফল্য-ব্যর্থতার মূল্যায়ন অন্যরা করছেন, করবেন। এ নিয়ে আমার মন্তব্য করা অনুচিত হবে। আমি নিজের ঢোল নিজেই পেটানোকে খুব অরুচিকর প্র্যাকটিস বলে মনে করি। ১/১১এর সময় আমি বিবেকের তাড়নায় ও আদর্শবোধের তাগিদ থেকে যেটুকু করেছি, সে ব্যাপারেও নিজের কৃতিত্ব জাহির করাটাকে আমি অনুচিত মনে করি। তবে সময় সুযোগ হলে সে সময়কার অপ্রকাশিত অনেক ঘটনাবলী কখনও লিখে জানাব।

আমাকে দেওয়া বিএনপির চিঠির টেকনিক্যাল ও পদ্ধতিগত দিক এবং এতে চয়ন করা শব্দ ও বাক্য নিয়েও আমার কোনো আপত্তি নেই। কারণ আমি একটি ক্লোজড চ্যাপ্টারকে ডিসেকশন না করাই উচিত বলে মনে করি। আমি এর পুনর্বিবেচনাও চাই না এবং ব্যক্তির মূল্যায়নের চেয়ে দল-রাজনীতির সাফল্যকেই বেশি গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচনা করি।

আমি আন্তরিকভাবেই বিশ্বাস করি, কোথাও কেউ অপরিহার্য নয়। এক দায়িত্বে কেউ অনন্ত কাল থাকেও না। আমি প্রত্যাশা করি, এই পরিবর্তন রাজনীতি ও দলের জন্য কাঙ্ক্ষিত সাফল্য ও কল্যাণ বয়ে আনবে। কারো প্রতি কোনো ব্যাপারেই আমার কোনো অভিযোগ বা অনুযোগ নেই। আমার মতন একটা সামান্য মানুষের প্রতি অপরিসীম আস্থা রেখে আমাকে অপ্রাপ্য সম্মানে ভূষিত করায় আমি বেগম খালেদা জিয়ার প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতাপাশে আবদ্ধ। আমি দায়িত্বপালন কালে যাদের আন্তরিক সহযোগিতা, সহমর্মিতা ও ভালোবাসা পেয়েছি দলের সর্বস্তরের সেই সকল নেতা-কর্মী, সমর্থক ও শুভানুধ্যায়ী এবং চেয়ারপার্সন অফিসের নিবেদিত প্রতিটি কর্মীকে আমি আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। বিশেষ করে, স্বাভাবিক সময়ে তো বটেই, ক্ষমতাসীনদের দ্বারা চরম ভাবে আক্রান্ত হবার দিনগুলোতেও আমার প্রিয় সাংবাদিক বন্ধুরা ও আমার সহকর্মীরা মস্ত ঝুঁকি নিয়ে রাত-দিন পরিশ্রম করে আমাকে পরম ধন্য ও কৃতার্থ করেছেন। তাদের ভূমিকার কথা আমার পক্ষে আমৃত্যু ভোলা সম্ভব নয়।

আমি আবারো বলি, অব্যাহতির ব্যাপারটাকে আমি দারুণ পজিটিভলি নিয়েছি। আমার মন একরত্তিও খারাপ হয়নি। আমি মনে করি অনেক সময় আশীর্বাদ আসে অভিশাপের মুখোশ পরে। আমার কাছে এটা পুরোই আশীর্বাদ বলেই মনে হচ্ছে। মানবিক দায়বোধ থেকে অনেক সময় অনেক দায়িত্ব নিজে থেকে ছাড়া যায় না। সেখান থেকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে অব্যাহতি মিললে সে তো এক পরম স্বস্তির মুক্তি। আমি সেভাবেই দেখছি। এ এক অনুপম স্বাধীনতা।

আমি যার জন্য কাজ করতাম, তিনিই বেড়াজালে পড়ে বাধ্যতামূলকভাবে আজ সম্পূর্ণ নিষ্ক্রীয় হয়ে আছেন। কাজেই আমার এমনিতেই কাজ ছিলনা। এ অবস্থায় আদর্শগত বিশ্বাস থেকে যা করা দরকার ও সম্ভব, সে লেখালেখিটুকু তো করছিই। বাড়তি যে 'প্রেসসচিব' স্টিকারটি আমার গায়ে সেঁটে ছিল, বর্তমান অবস্থায় আমার স্বাধীনতা হরণ ছাড়া সেটির আর তেমন কোনো কার্যকারিতাই ছিল না। স্বাধীনতাপ্রিয় একজন মানুষ হিসেবে এটা খুব স্বস্তিকর ছিলনা আমার জন্য। তাছাড়া এটি হয়ে উঠেছিল কোনো কোনো মহলের চরম ঈর্ষা ও বিদ্বেষের উৎস। এ পরিস্থিতি থেকে আমাকে নিষ্কৃতি দেয়ায় আমি সত্যিই আনন্দিত।

মনোদৈহিক স্বাস্থ্যের নানান জটিলতা ও রাজনৈতিক প্রতিহিংসা থেকে দায়ের করা অসংখ্য মিথ্যা মামলায় আমি জর্জরিত। আর্থিক দৈন্য আমার বরাবরই ছিল, সেটাকে কখনো গ্রাহ্য করিনি, আজও করিনা। তবে শাসকের ক্রোধে আমার পারিবারিক জীবন ছত্রখান হয়ে গিয়েছে। এই সংকট অতিক্রমের লড়াইটা এখন আমাকে একলাই চালাতে হবে, হারজিত অনিশ্চিত। আমি শুধু আপনাদের কাছে দোয়া চাই। কখনো মাথা না নুইয়ে যেভাবে জীবনভর আদর্শিক সংগ্রাম চালিয়েছি, জীবনের বাকি দিনগুলোতে ব্যক্তিগত লড়াইটাও যেন সে ভাবেই চালিয়ে যেতে পারি।’

প্রসঙ্গত,২০০৯ সাল থেকে মারুফ কামাল খান বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস সচিবের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। এর আগে ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত চারদলীয় জোট ক্ষমতায় থাকাকালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর উপ-প্রেস সচিবের দায়িত্বেও ছিলেন। একই সময়ে মুশফিকুল ফজল আনসারীও ওই পদে কর্মরত ছিলেন। গত সোমবার বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার প্রেস সচিবের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয় তাকে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

হেফাজত নেতা আতাউল্লাহ আমীন গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক

হেফাজত নেতা আতাউল্লাহ আমীন গ্রেপ্তার

হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় সহকারী মহাসচিব ও বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের যুগ্ম-মহাসচিব মাওলানা আতাউল্লাহ আমীনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে রাজধানীর মোহাম্মদপুর জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

র‍্যাবের গোয়েন্দা শাখার পরিচালক লে. কর্নেল খায়রুল ইসলাম তার গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, বুধবার তাকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হবে।


করোনা সচেতনতা: যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশ স্টাইল

জিততে এসেছি, ইনশাআল্লাহ জয় পাব: মুমিনুল

বৈঠকতো দূরের কথা, বাবুনগরী কখনোই খালেদা জিয়াকে সামনাসামনি দেখেননি: হেফাজতে ইসলাম

কানাডার শীর্ষ নেতাদের সবাই অস্ট্রেজেনেকার ভ্যাকসিন নিচ্ছেন


এ নিয়ে হেফাজতের ১১ জন কেন্দ্রীয় ও ঢাকা মহানগরীর নেতাকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব ও পুলিশ।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

নতুন নেতৃত্ব খুঁজছে হেফাজত!

অনলাইন ডেস্ক

নতুন নেতৃত্ব খুঁজছে হেফাজত!

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সাম্প্রতিক সফরকে কেন্দ্র করে সরকারের সঙ্গে চরম বিরোধে জড়িয়ে পড়ে হেফাজতে ইসলাম। দেশজুড়ে চলে ব্যাপক হামলা, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও সহিংসতা। আর এই তাণ্ডবের জন্য অভিযোগের আঙ্গুল উঠে হেফাজতে ইসলামের বিরুদ্ধে। এরপরই সরকার সংগঠনটির নেতা-কর্মীদের বিভিন্ন মামলায় গ্রেপ্তার অভিযান শুরু করে। গ্রেপ্তার করা হয় বেশ কয়েকজন শীর্ষ স্থানীয় নেতাকে। ধরপাকড়ের মুখে পড়ে 'কঠোর পথ' ছেড়ে সরকারের সঙ্গে সমঝোতা করার মরিয়া চেষ্টা চালাচ্ছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ।

ইতোমধ্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান এবং একটি গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন তারা। 

দায়িত্বশীল সূত্র জানিয়েছে, হেফাজতকে 'ভুল বোঝা' হচ্ছে। রাজনীতির সঙ্গে তাদের সম্পর্ক নেই, সরকারের বিরুদ্ধেও নন তারা- এটাই তারা সরকারকে বোঝানোর চেষ্টা করছেন।

তবে সরকারের নীতিনির্ধারণী মহলের কয়েকজন জানিয়েছেন, এজাহারভুক্তদের গ্রেপ্তার এবং সহিংসতায় জড়িতদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়া হবে। এক্ষেত্রে কোনো ছাড় দেওয়া হবে না।

এই যখন অবস্থা তখন দলে নতুন নেতৃত্ব খুঁজছে হেফাজতে ইসলাম। দেশের শীর্ষস্থানীয় অনলাইন বাংলানিউজ২৪.কম-এর এক প্রতিবেদন থেকে এ খবর জানা যায়।

প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, দেশজুড়ে তাণ্ডবের পর ব্যাপক সমালোচিত হেফাজতে ইসলামের বর্তমান কমিটিকে যেকোন সময় ভেঙে দেওয়া হতে পারে। সর্বস্তরে গ্রহণযোগ্য কাউকে নেতৃত্বে আনার পাশাপাশি কওমি মাদরাসার ওপর থেকে দলটির একক কর্তৃত্ব বন্ধের বিষয়টিও ভাবা হচ্ছে।

নতুন পরিকল্পনা অনুযায়ী, কওমি মাদরাসা পরিচালনার ক্ষেত্রে সব সিদ্ধান্ত নেবে নির্ধারিত বোর্ড ‘আল-হাইআতুল উলয়া লিল-জামি’আতিল কওমিয়া বাংলাদেশ’। মাদরাসা পরিচালনায় কোনধরনের হস্তক্ষেপ করতে পারবে না হেফাজতে ইসলাম।

প্রতিবেদনটিতে আরও বলা হয়, সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২০১০ সালে হেফাজতে ইসলাম একটি অরাজনৈতিক দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। কিন্তু দলটির সাবেক আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফীর মৃত্যুর পর হেফাজতে ইসলাম রাজনৈতিক দলের দিকে মোড় নেয়। পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ হেফাজতের কমিটিতে যুক্ত হতে থাকেন। যার ফলশ্রুতিতে নতুন নেতৃবৃন্দ সরকারবিরোধী নানা কর্মকাণ্ড শুরু করেন। এ অবস্থায় হেফাজতে ইসলামের বর্তমান কমিটি যেকোন সময় ভেঙে দেওয়া হতে পারে। 


করোনা সচেতনতা: যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশ স্টাইল

জিততে এসেছি, ইনশাআল্লাহ জয় পাব: মুমিনুল

বৈঠকতো দূরের কথা, বাবুনগরী কখনোই খালেদা জিয়াকে সামনাসামনি দেখেননি: হেফাজতে ইসলাম

কানাডার শীর্ষ নেতাদের সবাই অস্ট্রেজেনেকার ভ্যাকসিন নিচ্ছেন


নতুন নেতৃত্বে দুটি বিষয়কে প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যমটি। দুটির একটি হলো- নেতৃত্বে এমন একজন ব্যক্তিকে খোঁজা হচ্ছে যিনি সব মহলে গ্রহণযোগ্য। আর দ্বিতীয়টি হচ্ছে-আল্লামা শফীর অনুসারী। 

নতুন কমিটিতে কারা স্থান পেতে পারেন সে বিষয়টিও সংবাদমাধ্যমটির প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে। সেখানে বলা হচ্ছে- অন্য কোনো রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ বা দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত কেউ হেফাজতে ইসলামের কমিটিতে থাকতে পারবেন না, তাদের অবশ্যই হেফাজতের পদ ছাড়তে হবে।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বৈঠকতো দূরের কথা, বাবুনগরী কখনোই খালেদা জিয়াকে সামনাসামনি দেখেননি: হেফাজতে ইসলাম

অনলাইন ডেস্ক

বৈঠকতো দূরের কথা, বাবুনগরী কখনোই খালেদা জিয়াকে সামনাসামনি দেখেননি: হেফাজতে ইসলাম

(ছবি বাঁ-দিক থেকে) খালেদা জিয়া, আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী

২০১৩ সালের ৫ মে শাপলা চত্বরে হেফাজতে ইসলাম অবরোধ কর্মসূচি পালন করতে যাওয়ার ঠিক এক সপ্তাহ আগে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে গোপন বৈঠক করেছিলেন সংগঠনটির তৎকালীন মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। 

সোমবার (১৯ এপ্রিল) ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম দেবদাস চন্দ্র অধিকারীর আদালতে দেওয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে চাঞ্চল্যকর এই তথ্য জানিয়েছেন সংগঠনের ঢাকা মহানগর কমিটির তৎকালীন প্রচার সম্পাদক মুফতি ফখরুল ইসলাম। তিনি বর্তমানে বাংলাদেশ জনসেবা আন্দোলনের চেয়ারম্যান।

তার এই জবানবন্দিকে উদ্ধৃত করে দেশের গণমাধ্যমগুলো সংবাদটি প্রকাশিত হয়েছে। আর এই জবানবন্দি ও প্রকাশিত সংবাদকে মিথ্যাচার উল্লেখ করে এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ।

আজ ভোররাতে গণমাধ্যমে পাঠানো এক প্রতিবাদ পত্রে এসব কথা বলা হয়।

প্রতিবাদপত্রে হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর হাফেজ মাওলানা তাজুল ইসলাম বলেন, হেফাজতের শীর্ষ নেতৃত্বকে কলংকিত করতে মুফতি ফখরুল ইসলামের কাছ থেকে পুলিশ মিথ্যা স্বীকারোক্তি আদায় করেছে। এই স্বীকারোক্তি একজন সর্বজন শ্রদ্ধেয় শীর্ষ আলেমের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র ছাড়া কিছু নয়। দেশবাসী এমন মিথ্যা স্বীকারোক্তি ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে। এই মিথ্যাদাবির স্বপক্ষে কেউই কখনো কোনো প্রমাণ হাজির করতে পারবে না।

তিনি বলেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার সঙ্গে এ যাবত কোনো বৈঠক তো দূরের কথা, বাবুনগরী সামনাসামনি বেগম জিয়াকে কখনোই দেখেননি।


কানাডার শীর্ষ নেতাদের সবাই অস্ট্রেজেনেকার ভ্যাকসিন নিচ্ছেন

ফজিলতপূর্ণ ইবাদত তাহাজ্জুদের নামাজ

বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে যা বললেন হেফাজত নেতারা

কবরের আজাব থেকে মুক্তি লাভের দোয়া


মাওলানা তাজুল ইসলাম অভিযোগ করেন, ইবাদত-বন্দেগীর মাসে হেফাজতের নেতাকর্মী ও হক্কানী উলামায়ে কেরামের উপর পুরনো মিথ্যা মামলা সচল করে দমন-পীড়ন চালানো হচ্ছে। গুটিকয়েক নীতি-আদর্শচ্যুত সাবেক নেতাকে এতে দাবার গুটি হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। অথচ ২০১৩ সাল বেশি দিন আগের ঘটনা নয়।

সরকার ও প্রশাসনের প্রতি হক্কানী উলামায়ে কেরামের উপর দমন-পীড়ন ও ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা এবং অপবাদ আরোপ বন্ধের দাবি জানান তিনি।

news24bd.tv নাজিম

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

বিএনপি, জামায়াত ও হেফাজত একই সূত্রে গাঁথা: ১৪ দল

অনলাইন ডেস্ক

বিএনপি, জামায়াত ও হেফাজত একই সূত্রে গাঁথা: ১৪ দল

বিএনপি, জামায়াত ও হেফাজত একই সূত্রে গাঁথা। এই সাম্প্রদায়িক অপশক্তি দমনে কোনো আপস নয়। দুধ দিয়ে সাপ পুষলে তার ফল কখনও শুভ হয় না বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় ১৪ দল আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তরা।

ঐতিহাসিক মুজিব নগর দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) সকালে কেন্দ্রীয় ১৪ দলের ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় বক্তরা এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য এবং কেন্দ্রীয় ১৪ দলের সমন্বয়ক ও মুখপাত্র আমির হোসেন আমু সভাপতির বক্তব্যে বলেন, ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর সরকার গঠনের মধ্য দিয়ে বাংলার স্বাধীনতার সূর্য উদিত হয়েছিল, আর বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে মুজিবনগর সরকারের অধীনেই বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ পরিচালিত হয়েছিল।

তিনি বলেন, অসহযোগ আন্দোলনের সময় বঙ্গবন্ধু আওয়ামী লীগের যে হাই কমান্ডকে জাতির সামনে উপস্থাপন করেছেন তাদের নিয়ে গঠন করা হয় মুজিবনগর সরকার। আর এই সরকারের অধীনেই কাজ করেছেন সকল সেক্টর ও সাবসেক্টর কমান্ডারসহ বিভিন্ন ফোর্স। আজ যে যত কথাই বলুক না কেন এরা সবাই ছিলেন মুজিবনগর সরকারের বেতনভুক্ত।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য তোফায়েল আহমেদ বলেন, নীতির প্রশ্নে শক্তভাবে দাঁড়ালে কোনো অশুভ শক্তি মাথা চাড়া দিয়ে উঠতে পারে না। ২০১৩ সালের ৫ মে তাণ্ডবের পরই হেফাজত প্রশ্নে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত ছিল।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরি বলেন, বঙ্গবন্ধুর অসাম্প্রদায়িক, চেতনাবোধ ও দেশপ্রেম সঠিকভাবে জাতীয় জীবনে প্রতিফলনের মধ্য দিয়ে তাঁর কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে হবে।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেন, বিএনপি, জামায়াত ও হেফাজত একই সূত্রে গাঁথা। সাম্প্রদায়িক অপশক্তি দমনে কোনো আপস নয়। দুধ দিয়ে সাপ পুষলে তার ফল কখনও শুভ হয় না।

আওয়ামী লীগের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মৃনাল কান্তি দাসের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, জাতীয় পার্টি-জেপির সাধারণ সম্পাদক শেখ শহীদুল ইসলাম, তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজ ভাণ্ডারি, গণ আজাদী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট এস কে সিকদার, গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক ডা. শাহাদাত হোসেন, ন্যাপের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন প্রমুখ।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর

মাছ ছিনতাই : থানায় অভিযোগ ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে

অনলাইন ডেস্ক

মাছ ছিনতাই : থানায় অভিযোগ ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় চাঁদা না পেয়ে জেলেদের মাছ ছিনতাই করার অভিযোগ পাওয়া গেছে জিয়াউর রহমান (৩৩) নামে এক ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে। সেই ঘটনায় ভুক্তভোগী জেলে  জিয়াউর রহমানকে আসামী করে থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।  

শনিবার দুপুরে হাতীবান্ধা উপজেলায় অবস্থিত দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারাজের এলাকার ৩ নং ওয়ার্ডের তিস্তা নদীতে মাছ ছিনতাইয়ের এই এ ঘটনাটি ঘটে।  

এ ঘটনায় ১৯ এপ্রিল রাতে ভুক্তভোগী জেলে রহমত আলী বাদী হয়ে জিয়াকে প্রধান আসামি করে আরও একজনকে আসামি করে থানায় লিখিত অভিযোগ দেন।  

অভিযুক্ত জিয়াউর রহমান উপজেলার দোয়ানী পিত্তিফাটা এলাকার ২ নং ওয়ার্ডের মৃত লিয়াকত আলীর ছেলে। এছাড়া সে উপজেলা ছাত্রলীগের দোয়ানী ইউনিটের সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি। তবে সে ছাত্রলীগের কেউ নন বলে দাবি করেন হাতীবান্ধা উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি।

থানায় দায়েরকৃত লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারাজ এলাকায় অসহায় গরীব ২২ জন জেলেদের নিয়ে গঠিত দোয়ানী তিস্তা ব্যারাজ মৎসজীবী সমবায় সমিতি। সেই সমিতির সভাপতি জেলে রহমত আলীর নেতৃত্বে ব্যারাজের পিছনের তিস্তা নদী থেকে জাল দিয়ে মাছ ধরে বিক্রি করেই জীবিকা নির্বাহ করেন সমিতির সকলে। প্রায় বছর দুয়েক আগ থেকে চাঁদার জন্য জেলেদের নদী থেকে মাছ ধরতে বাধা দিয়ে আসছেন জিয়া গং। এরই মাঝে বেশ কয়েকবার চাঁদার টাকা না পেয়ে ঝামেলা করে জোর পূর্বক ২-৩ কেজি বৈরালী মাছ নিয়ে চলে যায়। টাকাতো দেননা উল্টো ১০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেন তিনি।

গত ১৯ এপ্রিল জেলেরা তিস্তা ব্যারাজ এলাকার ৩ নং ওয়ার্ডের তিস্তা নদীতে জাল দিয়ে মাছ ধরছিলো। এ সময় জিয়াসহ কয়েকজন সেখানে গিয়ে মাছ ধরতে বাধা দেন। যদি দশ হাজার টাকা না দেয় তাহলে মাছ ধরতে পারবে না বলে জানান। এতে রহমত আলীসহ অন্যান্যরা চাঁদা দিকে অপরাগতা প্রকাশ করেন। এতে জিয়া ক্ষিপ্ত হয়ে জেলেদের ধরা ৮শত টাকা মূল্যের বৈরালী মাছ জোরপূর্বক নিয়ে চলে যাওয়ার চেষ্টা করলে এতে বাধা দেন রহমত। ফলে জিয়া গং রহমের উপর হামলা চালিয়ে মারধর শুরু করে।

এ সময় গড্ডিমারী ইউপি সদস্য মতিয়ার রহমান ছুটে এসে রহমতকে রক্ষা করে জিয়াকে চলে যেতে বলে। কিন্ত জিয়া চলে না গিয়ে আরও ক্ষিপ্ত হয়ে ইউপি সদস্যের উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে বেধড়ক পিটিয়ে আহত করেন। এ সময় স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গিয়ে ভর্তি করান।  

এ বিষয়ে উপজেলার দোয়ানী ইউনিট শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জিয়াউর রহমান বলেন, ওরা নিজেরাই চলতে পারে না। কোন রকম মাছ ধরে দিন পার করে। ওরা দশ হাজার টাকা কই পাইবে। আমি তাদের কাছে কোন চাঁদা দাবি করিনি। এটা সম্পূর্ন মিথ্যা বানোয়াট ভিত্তিহীন।

এ বিষয়ে আহত ইউপি সদস্য মতিয়ার রহমান বলেন, ওই জিয়া প্রায় জেলেদের উপর অবিচার করে। জেলেরা অনেক কষ্টে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করেন। তারা দশ হাজার টাকা কই পাবে। উল্টো টাকা ছাড়া মাছ নিয়ে যায়। বাধা দেয়ায় রহমতকে মারধর করে। আমিও বাধা দিতে গিয়ে জিয়ার মারধরের স্বীকার হই। আমি জিয়ার বিচার চাই।

এ বিষয়ে হাতীবান্ধা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এরশাদুল আলম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি,  তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

news24bd.tv/আলী

মন্তব্য

পরবর্তী খবর