কাগজে মৃত আওয়াল ৯ বছর ঘুরেও জীবিত হতে পারেননি!
কাগজে মৃত আওয়াল ৯ বছর ঘুরেও জীবিত হতে পারেননি!

কাগজে মৃত আওয়াল ৯ বছর ঘুরেও জীবিত হতে পারেননি!

অনলাইন ডেস্ক

সাংবাদিক আব্দুল আওয়ালের বয়স এখন ৩১। কিন্ত গত ৯ বছর ধরে আব্দুল আওয়াল যে এখনও জীবিত সেটিই প্রমাণ করতে ঘুরতে হচ্ছে সরকারের এই দপ্তর থেকে ওই দপ্তরে। আব্দুল আওয়ালের জীবনের দুর্বিষহ দিনের শুরু ২০১২ সালের ভোটার তালিকা হালনাগাদ থেকে। সেই সময়ের ভোটার তালিকা হালনাগাদে আব্দুল আওয়ালকে মৃত উল্লেখ করা হয়।

সেই থেকে  চাকরির আবেদনের পাশাপাশি সরকারি সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন আব্দুল আওয়াল। এমনকি জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য করোনার টিকা পর্যন্ত দিতে পারেননি তিনি। এ নিয়ে খুবই দুর্বিষহ দিন অতিবাহিত করছেন তিনি।

আব্দুল আওয়াল নেত্রকোণার মদন পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের মৃত ফজলুর রহমানের ছেলে। তিনি ঢাকা থেকে প্রকাশিত একটি পত্রিকার প্রতিনিধি ও মদন উপজেলার করোনা বিষয়ক কমিটির সমন্বয়ক।

আওয়াল আক্ষেপ করে বলেন, নিজেকে জীবিত প্রমাণ করতে গত ৯ বছর ধরে আবেদন করে উপজেলার নির্বাচন অফিসে ঘুরছি। নির্বাচন অফিসাররা আশ্বাস দিলেও এখনও জীবিত হতে পারলাম না। আমি জানি না কবে জীবিত হতে পারব।  

২০১৪ সালে পৌরসভার মেয়রের কাছ থেকে আমি যে জীবিত আছি এ বিষয়ে একটি প্রত্যয়ন নিয়ে কোনোভাবে সাধারণ কাজ কর্ম করছি।

তিনি বলেন, আমি সরকারি আবেদনসহ কোনো ধরনের আবেদন করতে পারছি না। আমার সরকারি চাকরির বয়স শেষ হয়ে গেছে। আমার বাড়িটি খারিজ করা একান্ত প্রয়োজন। কিন্তু কিছুই করতে পারছি না। আমি আজ সমাজে জীবিত থাকলেও কাগজে মৃত আছি।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাচন অফিসার মো. হামিদ ইকবাল বলেন, ২০১২ সালে ভোটার তালিকা হালনাগাদের সময় তথ্য সংগ্রহকারী সাংবাদিক আওয়ালকে হয়তো মৃত উল্লেখ করেছেন। বিষয়টি খুবই দুঃখজনক।

news24bd.tv/আলী