স্বামীকে রক্ষায় এগিয়ে আসা স্ত্রীকে এলোপাতাড়ি মারপিটের ভিডিও ভাইরাল

অনলাইন ডেস্ক

স্বামীকে রক্ষায় এগিয়ে আসা স্ত্রীকে এলোপাতাড়ি মারপিটের ভিডিও ভাইরাল

স্বামীকে রক্ষায় এগিয়ে আসা স্ত্রীকে নির্যাতনের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওতে দেখা যায়, এক নারীকে এক যুবক লাঠি দিয়ে শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাত করছেন। আর ওই নারী চিৎকার করছেন। পাশে আরও কয়েকজন লাঠি নিয়ে আছেন। এর মধ্যে ওই নারী অচেতন হয়ে পড়েন। অচেতন হয়ে পড়ার পরেও এক যুবক এসে ওই নারীকে লাথি মারছেন।

জানা গেছে, ওই নারীর নাম আকলিমা বেগম (২০)। তাঁর স্বামীর নাম মো. কালু হাওলাদার। বাড়ি পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়নের দক্ষিণ চরমিয়াজ গ্রামে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার আকলিমার শ্বশুর আবদুস ছালাম হাওলাদার বাদী হয়ে ১৮ জনের নাম উল্লেখ করে ২০ জনকে অজ্ঞাত করে বাউফল থানায় মামলা করেছেন।


আল্লাহ ফেরআউনকেও সুযোগ দিয়েছিলেন ছেড়ে দেননি: বাবুনগরী

ইফতারের আগে দোয়া কবুলের জন্য যে আমল করা উচিত

কখন রোজা ভাঙলে গোনাহ হবে না

আল্লাহ ছাড় দেন, ছেড়ে দেন না


স্থানীয় সূত্র জানায়, ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন নিয়ে চন্দ্রদ্বীপ ইউপির ৫ নম্বর ওয়ার্ডের দুই ইউপি সদস্য প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে গতকাল বৃহস্পতিবার সংঘর্ষ হয়। এতে দুই পক্ষের কমপক্ষে ২৫ জন আহত হয়েছেন। ওই সংঘর্ষের সময় আকলিমা তাঁর স্বামীকে বাঁচাতে গেলে তাঁর ওপর বর্বর হামলা করে সন্ত্রাসীরা। যার কিছু অংশ ভিডিও করেন স্থানীয় এক যুবক। ২৫ সেকেন্ডের ওই ভিডিও আজ ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে।

আকলিমা ও তাঁর স্বামী কালুকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে বৃহস্পতিবার বিকেলে দুজনকেই বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, আকলিমার শরীরের বিভিন্ন অংশে গুরুতর জখম হয়েছে। তাঁর ডান পা ভেঙে গেছে। বৃহস্পতিবার রাতে তাঁর ডান পায়ে অস্ত্রোপচার হয়েছে। তাঁর স্বামী কালুরও হাড় ভেঙে জখম রয়েছে।

এ ব্যাপারে বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) দায়িত্বে থাকা পরিদর্শক (তদন্ত) আল মামুন বলেন, ভিডিওটি দেখলাম। এটি একটি ন্যক্কারজনক ঘটনা। ঘটনার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিরা পলাতক। আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

নাটোরে বৃদ্ধের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার

নাসিম উদ্দীন নাসিম, নাটোর

নাটোরে বৃদ্ধের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার

নাটোরের বড়াইগ্রামে আব্দুল করিম সরকার (৬৫) নামের এক বৃদ্ধের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার উপজেলার গোপালপুর সরকারপাড়া গ্রাম থেকে এই লাশ উদ্ধার করা হয়। বৃদ্ধ উপজেলার গোপালপুর সরকারপাড়া গ্রামের মৃত হোসেন আলী সরকারের ছেলে।

রতন সরকার জানান, তার বাবা মানসিক প্রতিবন্ধী। বাড়িতে একাই বসবাস করত। বেশির ভাগ সময়ই আমাদের ভাই-বোনদের বাড়িতে বেড়াতে যেত। গত ৫ মে আমার বোনের বাড়ি থেকে ভাইয়ের বাসায় যাবে বলে চলে আসে। মঙ্গলবার সকালে ভগ্নিপতি মিলন তার শ্বশুরকে দেখার জন্য বাড়িতে গেলে পঁচা লাশের গন্ধ পায়।

দরজা ভেতর থেকে চাপানো ছিল। দরজা খুলে ভেতরে গিয়ে দেখা যায় তীরের সঙ্গে গলায় রশি পেঁচানো অবস্থায় ঝুলছেন তিনি। এ অবস্থা দেখে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।

বড়াইগ্রাম থানার পরিদর্শক আব্দুর জব্বার বলেন, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে এটি আত্মহত্যা।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

বিদ্যুৎ কর্মকর্তাকে ভাই বলায় একি করলেন তিনি

অনলাইন ডেস্ক

বিদ্যুৎ কর্মকর্তাকে ভাই বলায় একি করলেন তিনি

'আমার সম্পর্কে আপনি কতটুকু জানেন, আমি ডিসির সমমান পদমর্যাদায় আছি। আমি ২০তম বিসিএসে ক্যাডার হিসেবে যোগদান করার পর ৫ম গ্রেডে কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত আছি। আমাকে আগে স্যার বলে সম্মোধন করে পরে কথা বলুন' বলেই ফোন কেটে দেন ত্রিশাল বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী ফারুক হোসেন।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে বিদ্যুৎ বিভাগের নানা অনিয়ম ও হয়রানি শিকার হয়ে কয়েকজন ভুক্তভোগী অভিযোগ করতে ত্রিশাল প্রেস ক্লাব কার্যালয়ে আসলে এসব বিষয়ে জানতে দৈনিক সমকাল প্রতিনিধি মতিউর রহমান সেলিম নির্বাহী প্রকৌশলী ফারুক হোসেনকে ফোন দিলে তিনি এমন দাপুটে কথা বলেন।

জানা যায়, চলতি বছরের ৩ আগস্ট নির্বাহী প্রকৌশলী হিসেবে ত্রিশাল বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রে যোগদান করেন ফারুক হোসেন। তিনি যোগদানের পর থেকেই উপজেলায় চলছে ঘনঘন লোডশেডিং, আর ভুতুরে বিল তো আছেই। দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন গ্রামের গ্রাহকরা গাছ ও বাঁশের খুঁটির মাধ্যমে ঝুঁকিপূর্ণ সংযোগের পরিবর্তে পিলারের আবেদন করলেও তা আমলে নিচ্ছেন না ওই কর্মকর্তা।

এ ছাড়া বাড়িতে মিটার না থাকলেও প্রায় অর্ধলাখ টাকার ভুতুরে বিল দিয়ে হয়রানির শিকার গিয়াস উদ্দিন নামের এক ভুক্তভোগী একাধিকবার নির্বাহী প্রকৌশলীর দপ্তরে গিয়ে কোনো সুরাহা না পেয়ে গত ৩ সেপ্টেম্বর ত্রিশাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ করেন। ওই ঘটনায় বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে একটি উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠন হয়। কমিটি সরেজমিনে তদন্ত করার পর রেহায় পান ভুক্তভোগী গিয়াস উদ্দিন। 

গ্রাহক হয়রানি আর লোডশেডিংয়ের বিষয়ে বিদ্যুৎ অফিসে গেলে ভুক্তভোগীরা তার অসদাচরণের শিকার হন। বৃহস্পতিবার কয়েকজন ভুক্তভোগী আসেন ত্রিশাল প্রেস ক্লাবে। বিষয়গুলো জানতে নির্বাহী প্রকেীশলী ফারুক হোসেনকে দৈনিক সমকাল প্রতিনিধি ফোন দিয়ে ভাই বলে সম্বোধন করলে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন, আমি ডিসিদের সমমর্যাদার। আগে আমাকে স্যার বলে সম্বোধন করেন পরে কোনো প্রশ্ন থাকলে করুন। এই বলে তিনি ফোন কেটে দেন।

স্যার ডাকার বিষয়টি সাংবিধানিক কোনো বাধ্যবাধকতা বা প্রজ্ঞাপন আছে কিনা জানতে চাইলে নির্বাহী প্রকেীশলী ফারুক হোসেন বলেন, আমি ২০তম বিসিএসে সহকারী প্রকৌশলী ক্যাডার হিসেবে বিদ্যুৎ বিভাগে যোগদান করি। ৫ম গ্রেডের কর্মকর্তা হিসেবে আমরা তো ডিসিদের পদমর্যাদার। তাদের স্যার ডাকলে আমাদের স্যার ডাকতে অসুবিধে কোথায়। আপনাদের ইউনিয়ন পর্যায়ে একটা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিকে যদি স্যার ডাকতে পারেন আমরা কেন স্যার ডাক শুনতে পারি না।

বিদ্যুৎ বিভাগের এই অসাধু কর্মকর্তা নিজেকে বিসিএস ক্যাডার দাবি করলেও বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের ওয়েবসাইডে গিয়ে ১৯৮২ সালের পর থেকে বিদ্যুতের আলাদা কোনো ক্যাডারের তথ্য পাওয়া যায়নি। ২০তম বিসিএস দাবি করলেও সেই তালিকাতেও তার নাম দেখা যায়নি।

উপজেলার একাধিক বিসিএস কর্মকর্তার সাথে কথা বলে জানা যায়, বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনে ৮২ সালের পর থেকে বিদ্যুৎ বিভাগে আলাদা ক্যাডার আছে বলে আমাদের জানা নেই। তিনি নিজেকে কেন ২০তম বিসিএস কর্মকর্তা দাবি করলেন সেটা তিনি বলতে পারবেন।

সূত্র- কালের কণ্ঠ

পরবর্তী খবর

এ কেমন প্রতারণা, চিংড়ির মধ্যে ম্যাজিক বল

এস এম রেজাউল করিম, ঝালকাঠি

এ কেমন প্রতারণা, চিংড়ির মধ্যে ম্যাজিক বল

ঝালকাঠিতে চিংড়ির মধ্যে ম্যাজিক বল ঢুকিয়ে বিক্রির দায়ে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। সোমবার দুপুরে ঝালকাঠি পৌরসভার বড় বাজারে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাবেকুন নাহার ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন।

এ সময়ে বাজারের মাছ বিক্রেতা খানজু মিয়াকে চিংড়ি মাছের ভেতরে ক্ষতিকর বিষাক্ত কৃত্রিম ম্যাজিক বল ভেজাল দেওয়ার অপরাধে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে এক বছরের কারাদণ্ড প্রদান করেন। অভিযুক্ত খানজু মিয়া জরিমানার টাকা পরিশোধ করে আদালত থেকে মুক্তি লাভ করে।

এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার বাজারে অবস্থানরত সকল মাছ বিক্রেতাকে সঠিকভাবে ভেজালমুক্ত মাছ বিক্রি করার জন্য সচেতনমূলক নির্দেশনা প্রদান করেন।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

হেফাজতের তাণ্ডব : ওসি নাজমুলকে বদলি

অনলাইন ডেস্ক

হেফাজতের তাণ্ডব : ওসি নাজমুলকে বদলি

হেফাজতে ইসলামের তাণ্ডবের জেরে এবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাজমুল আহমেদকেও বদলি করা হয়েছে। 

গতকাল রবিবার (৯ মে) বিকেলে পুলিশ সদর দফতরের এক আদেশে তাকে বরিশাল রেঞ্জে যুক্ত করা হয়েছে। 

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) মো. রইছ উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

তিনি জানান, ওসি নাজমুলকে সরাইল থেকে বদলি করে বরিশাল রেঞ্জে যুক্ত করা হয়েছে। 

এর আগে হেফাজতের সহিংস ঘটনায় পুলিশ সদর দপ্তরের পৃথক আদেশে পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার আলাউদ্দিন চৌধুরীকে সিলেট রেঞ্জের রিজার্ভ ফোর্সে, সদর থানার ওসি মো. আবদুর রহিমকে রংপুর রেঞ্জে ও বিশ্বরোড মোড় খাঁটিহাতা হাইওয়ে থানার ওসি গাজী শাখাওয়াৎ হোসেনকে হাইওয়ে পুলিশের গাজীপুর রেঞ্জে সংযুক্ত করা হয়।

news24bd.tv/আলী 

পরবর্তী খবর

শবে কদরের রাতে চাচাতো ভাইয়ের হাতে খুন ভাই-ভাবি

মো.বুরহান উদ্দিন সুনামগঞ্জ

শবে কদরের রাতে চাচাতো ভাইয়ের হাতে খুন ভাই-ভাবি

সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জে বিদ্যুতের খুঁটি বসানো নিয়ে ঝগড়া বিবাদের জের ধরে চাচাতো ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে খুন হয়েছেন এক দম্পতি।

নিহতের নাম আলমগীর হোসেন (৩২) এবং তার স্ত্রীর নাম মোর্শেদা বেগম (২৮)।

উপজেলার বেহেলী ইউনিয়নের আলীপুর গ্রামে রোববার (০৯ মে) রাতে এ ঘটনা ঘটে।

এই দম্পতির চার সন্তান রয়েছে। বড় ছেলের বয়স ৯ বছর। নিহতদের লাশ জামালগঞ্জ থানা-পুলিশের হেফাজতে রয়েছে। 

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আলীপুর গ্রামের তাহের আলীর ছেলে আলমগীর হোসেনের সঙ্গে বাড়ির পাশের জায়গা বিক্রয় নিয়ে কিছুদিন হয় চাচাতো ভাই ঝনর মিয়ার ছেলে রাসেল মিয়ার দ্বন্দ্ব চলে আসছে। বিক্রয় করা জায়গায় বিদ্যুতের খুঁটি বসানো নিয়ে দুই ভাইয়ের পরিবারের মধে ২-৩ দিন হয় ঝগড়া বিবাদ চলছিল। এর জের ধরে রোববার রাত আটটায় রাসেল মিয়া আলমগীর হোসেনের ঘরে ঢুকে তাকে ছুরিকাঘাত করে। এসময় আলমগীরের স্ত্রী মোর্শেদা বেগম ফেরানোর চেষ্টা করলে তাকেও ছুরিকাঘাত করে রাসেল মিয়া। গুরুতর আহত দুইজনকে জামালগঞ্জ হাসপাতালে নিয়ে আসার সময় পথেই তাদের মৃত্যু হয়। রাত পৌঁনে ৯ টায় জামালগঞ্জ হাসপাতালে নিয়ে আসলে ডাক্তাররা দুজনকেই মৃত ঘোষণা করেন।

জামালগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইফুল ইসলাম জানান, খুন হওয়া দম্পত্তির লাশ পুলিশের হেফাজতে রয়েছে। খুনীকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে পুলিশ।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর