ছাত্রীকে অপহরণের পর বিয়ে, কারাগারে শিক্ষক
ছাত্রীকে অপহরণের পর বিয়ে, কারাগারে শিক্ষক

ছাত্রীকে অপহরণের পর বিয়ে, কারাগারে শিক্ষক

অনলাইন ডেস্ক

হিন্দু সম্প্রদায়ের এক কলেজছাত্রীকে ‘অপহরণের পর ধর্মান্তরিত করে বিয়ে’ করার অভিযোগে সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার এক মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এদিকে একটি সূত্র জানায়, এটি প্রধান শিক্ষক শামীম আহমেদের চতুর্থ বিয়ে। এ ঘটনায় তাকে স্কুল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) খুলনা জেলার ডুমুরিয়া এলাকা থেকে শামীম আহমেদকে গ্রেফতার করা হয়।

  শামীম আহমেদ শ্যামনগর উপজেলার নুরনগরের আলী আহসান গাজীর ছেলে।

গত ৩ এপ্রিল প্রধান শিক্ষক শামীম আহমেদ কাটুনিয়া রাজবাড়ি ডিগ্রি কলেজের এইচএসসি ১ম বর্ষের এক শিক্ষার্থীকে অপহরণ করে। ৭ই এপ্রিল ফেসবুকে প্রধান শিক্ষক শামীম আহমেদ ও ওই কলেজ ছাত্রীকে খুলনার এক নোটারি পাবলিকের কার্যালয়ে বসে ধর্মান্তরিত হওয়া ও বিয়ে সংক্রান্ত নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করছেন এমন ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে।

ওই রাতেই মেয়েটির বাবা শামীম আহমেদ এর বিরুদ্ধে শ্যামনগর থানায় মেয়েকে অপহরণ ও ধর্মান্তরিত করার অভিযোগে মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে খুলনার ডুমুরিয়া থেকে শামীম আহমেদকে গ্রেপ্তার ও অপহৃত কলেজ ছাত্রীকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার দুপুরে শ্যামনগর থানায় সাংবাদিকদের বিফ্রিংকালে কালিগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ এমএম মোহাইমেনুর রশিদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

news24bd.tv/আলী