ডাক্তার বনাম পুলিশ!

শামিম আনোয়ার

ডাক্তার বনাম পুলিশ!

সারাদিন মনে খুব দুঃখ নিয়ে দেখছি, একটা ভিডিওকে কেন্দ্র করে ফেসবুকে ডাক্তার ও পুলিশদের বাকযুদ্ধ, যুক্তি- পাল্টাযুক্তির খেলা। এই দু'পেশার বাইরের লোকেরাও থেমে নেই। কেউ এপক্ষে কেউ ওপক্ষে গিয়ে নানা মত- প্রতিমত তাদেরও। কিন্তু একজনও বলছেন না যে, এক-দুইটা বিচ্ছিন্ন ঘটনাকে সামনে এনে মানুষের বিপদের মুহূর্তে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজনের, দেশের জন্য সবচেয়ে বেশি ত্যাগ স্বীকারকারী দুটি পেশার লোকদেরকে মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে দেওয়াটা ভীষণ অন্যায্য কাজ হচ্ছে। জাতির এই ক্রান্তিলগ্নে ডাক্তার ও পুলিশের সমন্বয় ও পরিপূরক সহযোগিতা যখন সবচেয়ে বেশি দরকার, তখন এই পারস্পরিক ছিদ্রান্নেষণ, দোষারোপ- পাল্টা দোষারোপের  খেলা বন্ধ করা, এই মুহূর্তে বন্ধ করা ভীষণ জরুরি।

যা হোক, ঘটনা একটা ঘটেছে। মিডিয়ার কল্যানে সেটার ভিডিওচিত্র আমরা সবাই দেখেছিও। সেখানে একজন ম্যাজিস্ট্রেট থাকলেও অনেকের উপস্থাপনায় এটি ইতোমধ্যে ডাক্তার-পুলিশ যুদ্ধে পরিণত। আচ্ছা, এক সাথে বসবাসকারী দুই ভাইয়ের মধ্যেও তো ঝগড়া মারামারি ঘটে! যদি এখানে কোন পক্ষে কোন অন্যায় হয়েও থাকে, প্রয়োজনে সঠিক তদন্ত করে দায়ী ব্যক্তিকে শাস্তির মুখোমুখি করা হোক। তিনি ডাক্তার হন বা পুলিশ, তাতে কিছুই এসে যায় না। কিন্তু এই করোনা-ময় দিনে দেশবাসীর সবচেয়ে আস্থার দুটি জায়গাকে বিতর্কিত করা, ডাক্তার এবং পুলিশ সদস্যদের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পারস্পরিক কাঁদা ছোড়াছুড়ি বন্ধ করা হোক।


পুলিশের হাতে চিকিৎসক হয়রানি, প্রতিবাদ এফডিএসআরের

সুরা আরাফ ও সুরা আনফালের বাংলা অনুবাদ

নারী ফুটবল দলে করোনার হানা

নিখোঁজের ১১২ দিন পর সেপটিক ট্যাঙ্কে মিলল নারীর লাশ

‘মামুনুলকে গ্রেপ্তারে সরকারের লকডাউন’ যারা বলছেন, তাদের বলছি


ভিডিওতে ওই নারী ডাক্তারের প্রতি পুলিশ সদস্যদের আচরণ এবং বিপরীতক্রমে ডাক্তারের আচরণের সমালোচনায় জ্ঞানগর্ভ মন্তব্য করে আত্মপ্রসাদের ঢেকুর তোলার আগে দয়া করে জেনে নিন-

এমন হতে পারে ওই নারী ডাক্তার হয়তো সারারাত করোনা ওয়ার্ডে নাইট ডিউটি করে ফিরছিলেন। নির্ঘুম রাত আর ক্ষেত্র বিশেষে রোগীর অ্যাটেন্ডেন্টদের অন্যায্য আচরণ/দাবি সহ্য করে আসা একজন মানুষের সামান্য রুক্ষ আচরণ নিয়ে  সারারাত নাক ডেকে ঘুমানো এই আপনি  কোন বিবেকে প্রশ্ন তোলেন! ভোর থেকে শুরু করে বিকেল পর্যন্ত ৩৬ ডিগ্রি তাপমাত্রার  তপ্ত রোদে পুড়ে ডিউটি করা পুলিশ সদস্যের আচরণ নিয়ে প্রশ্ন তোলার আগে আয়নায় নিজের চেহারাটাও একবার দেখুন না, ব্রো! এমন পরিস্থিতিতে থাকলে আপনার আচরণ কেমন হতো!!

জানি, অনেকেই থানায় বা পথঘাটে অতি প্রয়োজনের মুহূর্তে পুলিশি সেবা চেয়েও পাননি, মৃত্যুপথযাত্রী স্বজনের প্রতি কোন ডাক্তারের অন্যায্য আচরণ অনেকের মনে কষ্টের ক্ষত সৃষ্টি করেছে ভীষণ, কিন্তু বলুন তো- আপনার আমার নিত্যদিনের সম্ভাব্য বিপদ, দুর্যোগ,দুঃসময়ে যাওয়ার মতো, সবসময় সবজায়গায় সাহায্য চাওয়ার মতো আর কোন ডিপার্টমেন্ট কি আছে? বিপদের মুহূর্তে সাড়া দিলেও এরা, না দিলেও এই দুই পেশাজীবীই কিন্তু। সরকারি - বেসরকারি চাকুরিতে নিয়োজিত সকল পেশাজীবীই দেশ ও জনগনের জন্য গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে চলেছেন এটা ঠিক। তাদের সবার কাজের গুরুত্ব এবং মহত্ত্বের প্রতি পূর্ণ সম্মান জানিয়ে বলতে চাই নিজের চরম বিপদের মুহূর্তে, বিপন্ন সময়ে আপনি আপনার পাশে কাকে খুঁজে পান? (কাজের ধরনের কারণে)  রাস্তার মোড়ের ওই টহল পুলিশ  কিংবা হাসপাতালের জরুরি ওয়ার্ডে ঘুমঘুম চোখে দায়িত্ব পালন করে চলা ডাক্তারই তো!

অনেক ডাক্তার বা পুলিশের আচরণ আপনার মনে তীব্র ক্ষোভ, অসন্তোষ  সৃষ্টি করলেও এটাই সত্যি যে, রাতের আঁধার নামলে অন্য সকল পেশাজীবী যখন শান্তির ঘুম ঘুমোতে যান, তখন আপনার সম্ভাব্য বিপদের মুহূর্তে সাড়া দেওয়ার জন্য এই ডাক্তার আর পুলিশ সদস্যরাই রোস্টার খুলে রাতের শিফটের ডিউটির হিসেব মেলাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। কখন আপনার শ্বাসকষ্ট ওঠে, কিংবা আপনার স্ত্রীর ডেলিভারির ব্যথা। আপনার এলাকায় অদৃশ্য আততায়ী ঘুরছে, নাকি দাগী ডাকাতদল প্রস্তুত হচ্ছে জোরপূর্বক সর্বস্ব লুটে নেওয়ার। কিছু অপেশাদার পুলিশ সদস্যের আচরণে ক্ষুব্ধ হয়ে অনেকে অনেক সময় বলে ফেলেন - 'আমি কখনো কোন পুলিশের হেল্প চাইব না কিংবা  'পুলিশের সাহায্য আমার দরকার নেই'। কিন্তু বাস্তবতা উনি নিজেও জানেন, এক রাত, শুধু এক রাত পুলিশ ডিউটি করা বন্ধ করে দিলেই, যখন দেখা যাবে তাঁর সহায়সম্পদ, স্ত্রীকন্যার ইজ্জত, নিজের মানসম্মান সব লুণ্ঠিত হয়ে গেছে, তখন, কেবল তখনই বুঝা যাবে যে, আমরা সবাই আসলে নিজের অজ্ঞাতসারে প্রতিমুহূর্তেই পুলিশের সেবা নিয়ে চলেছি। তেমনি কশাই বলে গালি দিলেও গভীর রাতে বাবার বুকে ব্যথা শুরু হলে পরিচিত কোন ডাক্তারের শরণ নেওয়ার চিন্তাই আগে মনে আসে সবার।

অন্য পেশার মানুষদের কর্মপরিবেশে সামান্য এদিক- ওদিক হলেই যেখানে হরতাল ধর্মঘট শুরু হবার শঙ্কা তৈরি হয়, সেখানে এই দুই পেশার লোকেদেরকে প্রতিমুহূর্তে অন্যায্য সব আচরণ সহ্য করে, কখনো উদ্যত লাঠির নিচেই দায়িত্ব পালন করে যেতে হয়। কখনো সহকর্মীর আহত শরীর এক পাশে সরিয়ে রেখে  ব্রতী হতে হয় অর্পিত দায়িত্ব পালনে। তপ্ত রোদে দিনভর ডিউটির প্রশংসাপত্র না জুটলেও কিছু সদস্যের অপেশাদারিত্বের দায় নিয়ে তারাই জাতীয় ঘুষখোর।জীবনের ঝুঁকি নিয়ে করোনা রোগীদের চিকিৎসা ও রাত জেগে ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে ছোটাছুটির স্বীকৃতি পত্র না পেলেও অবসর সময়ে ঘাম ঝরানো প্রাইভেট প্র‍্যাকটিসে কামানো পয়সাকেও মহাদুর্নীতি আখ্যা দিতে কসুর করেন না কেউ। (এখানে বলে রাখি, আমি কোন ঘুষ দুর্নীতিকে জাস্টিফাই করছি না। ছোট-বড় যেমনই হোক, সকল দুর্নীতির বিরুদ্ধে আমার দৃঢ় অবস্থান  ছিল, আছে এবং ইনশাআল্লাহ থাকবে সবসময়)।

বলতে থাকলে তালিকা ফুরোবে না।  সবাই  শুধু ডাক্তার এবং পুলিশদের রূক্ষ আচরনের কথাই বলেন, কিন্তু সারাদিন রোদে পুড়ে আর রাতের ঘুম বাদ দিয়ে, অনেকের অন্যায় আচরণ হজম করা হার্শ ওয়ার্কিং এনভায়রনমেন্ট যে তাদেরকে রূক্ষ করে রাখে - এই বাস্তবতা কেউ বুঝতে চান না।  সবাই শুধু সিঙ্গাপুর, ভারত, থাইল্যান্ডের ডাক্তারদের সাথে আর যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জাপানের পুলিশের সাথে তুলনা করে এদেশীয় ডাক্তার পুলিশের অদক্ষতা প্রমাণ  করতে চান, কিন্তু নিজেরা সেসব দেশের মানুষের মতো আন্তরিক, সহযোগিতাপরায়ন ও সৎ কিনা কিংবা সেসব দেশের মতো কর্মপরিবেশ, উন্নত প্রশিক্ষণ এদেশের ডাক্তার- পুলিশদেরকে কখনো  দেওয়া হয়েছে কিনা, সেই প্রশ্নে যেতে আগ্রহী হন না।

সবশেষে বলবো, বিপদাপন্ন মানুষের কল্যানে এই দুই পেশাজীবীর চেয়ে বেশি কাজে আসে, রাত জেগে আপনার বিপদের মুহূর্তে সাড়া দেওয়ার অপেক্ষায় থাকেন, এমন আর একটা পেশাও যদি খুঁজে না পান, জীবনে একবার হলেও কোন ডাক্তার বা পুলিশের আন্তরিক সেবা যদি পেয়ে থাকেন, তাহলে পক্ষে-বিপক্ষ নিতে গিয়ে মানবতার সেবামূলক এই দুই পেশা সম্পর্কে  মানহানিকর কটু মন্তব্য করার বদলে আসুন আমরা সবাই একটি হ্যাশট্যাগ চালু করি - 
#Love_doctor_love_police 
এই হ্যাশট্যাগ এর নিচে সংক্ষেপে লিখুন-
>>ডাক্তার কিংবা পুলিশের কাছ থেকে আপনি কখনো কোন হেল্প পেয়ে থাকলে সেটা, কিংবা
>> দেশের দুর্দিনে  এই দুই পেশাজীবীর অনন্য ভূমিকাকে স্বীকৃতি জানিয়ে আপনার কোন মতামত থাকলে সেটা।
সকলের শুভবোধ জাগ্রত হোক, শুভবুদ্ধির উদয় হোক।

মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন (শামীম আনোয়ার)
এএসপি (রাঙ্গুনিয়া সার্কেল)।
চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ। (লেখা:-ফেসবুক থেকে নেওয়া)

(মত ভিন্ন মত বিভাগের লেখার আইনগত ও অন্যান্য দায় লেখকের নিজস্ব। এই বিভাগের কোনো লেখা সম্পাদকীয় নীতির প্রতিফলন নয়।)

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

শুনেছি রোজিনার বিরুদ্ধে মামলার আগে সাংবাদিক ইউনিয়নের নেতারা দেনদরবার করেছেন

শওগাত আলী সাগর

শুনেছি রোজিনার বিরুদ্ধে মামলার আগে সাংবাদিক ইউনিয়নের নেতারা দেনদরবার করেছেন

শওগাত আলী সাগর

সরকার কি তা হলে সাংবাদিকদের তথা গণমাধ্যমের কোনো প্রয়োজনীয়তা আর অনুভব করছে না! সরকার আর সাংবাদিকদের মধ্যে একটা দুরত্ব তৈরি হোক- সেটা কি সরকার নিজেও চাচ্ছে! রোজিনার জামিন মঞ্জুর না হওয়ার খবর শোনার পর প্রথম আমার এই কথাটাই মনে পড়লো। 

সচিবালয়ে পাঁচ ঘন্টা আটকে রেখে শারীরিক, মানসিক নির্যাতন, থানায় সোপর্দ করা, মামলা দায়ের এবং সর্বশেষ জামিন না দিয়ে জেলখানায় পাঠিয়ে দেয়ার মধ্যে সুষ্পষ্ট একটা বার্তা আছে। এটি কেবল স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের কয়েকজন কর্মকর্তার ক্ষোভের বিষয় হলে ব্যাপারটা এতোটা গড়াতে পারতো বলে আমার বিশ্বাস হচ্ছে না।

রোজিনার বিরুদ্ধে মামলা হওয়ার আগে সাংবাদিক ইউনিয়নের নেতারা দেনদরবার করেছেন বলে শুনেছি। বেশ কয়েকজন নেতা রাত পর্যন্ত শাহবাগে থানায় উপস্থিত ছিলেন। 

এঁদের সবাই বর্তমান সরকারের সমর্থক। ক্ষোভে বিক্ষোভে সবচেয়ে বেশি যে সাংবাদিকরা সোচ্চার তাদের সিংহভাগই এই সরকারের সমর্থক। রোজিনার স্বামীও সরকার সমর্থক রাজনীতির একজন নেতা। 

রোজিনা যতো নিপীড়নের শিকার হচ্ছেন বা হবেন- তা এই সরকারের সমর্থক সাংবাদিকদেরই সবচেয়ে বেশি আহত করছে, তাদের অনুভুতি অপমানিত হচ্ছে। নিজের সমর্থকদের অনুভূতিতে আঘাত দিয়ে রোজিনাকে নিপীড়নের মাধ্যমে কতিপয় আমলার ব্যক্তিগত ক্ষোভ প্রশমনের ঝুঁকিপূর্ণ প্রজেক্ট এতোক্ষণ চলতে পারার কথা না। 

কিন্তু রোজিনাকে জেল হাজতে পাঠানোর পর মনে হলো - সরকার এইসব আবেগ অনুভূতিকে পাত্তা দিচ্ছে না। আমি মনেপ্রাণে চাইবো আমার এই ব্যাখ্যা ভুল প্রমাণিত হোক। 
এই ঘটনাটি স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়েই শেষ হতে পারতো বলে আমি বিশ্বাস করি। হওয়াই উচিৎ ছিলো। এখনো সময় শেষ হয়ে যায়নি। 


স্বাস্থ্য বিভাগের পিয়ন থেকে শুরু করে ওপরের সবাই কোটি কোটি টাকার মালিক

যুদ্ধবিরতির জন্য ফিলিস্তিনিদের শর্ত মেনে নিতে বাধ্য হবে ইসরাইল: হামাস

রোজিনার মুক্তির দাবিতে শাহবাগ থানার সামনে সাংবাদিকদের বিক্ষোভ

আরশের ছায়াতলে আশ্রয় পাবেন যে সাত ব্যক্তি


সরকারে, আ্ওয়ামী লীগে বিবেচনাবোধ সম্পন্ন মানুষের একেবারে আকাল পরে গেছে- এই কথা কিভাবে বিশ্বাস করি! তারা এগিয়ে আসতে পারেন। তথ্যমন্ত্রী নিজেও একটা ভূমিকা নিতে পারেন। রোজিনার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাটি উঠিয়ে নেয়া, তাকে সসম্মানে মুক্তি দেয়া, স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের যারা তাকে নিপীড়ন করেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া -এটি আমার দাবি এবং প্রস্তাব।  

সরকারের মধ্যে যাদের যুক্তিবোধ, বিবেচনাবোধ আছে- তাদের একটু সক্রিয় হতে বলবো। ’রোজিনাকে জেলখানায় পাঠিয়ে আপনারা আপনাদের সমর্থক সাংবাদিকদেরই আসলে পীড়ন করছেন’- এই বাস্তবতাটা আপনাদের বোধে কাজ করুক।

শওগাত আলী সাগর, প্রধান সম্পাদক, নতুনদেশ

(মত ভিন্ন মত বিভাগের লেখার আইনগত ও অন্যান্য দায় লেখকের নিজস্ব। এই বিভাগের কোনো লেখা সম্পাদকীয় নীতির প্রতিফলন নয়।)

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

রোজিনার মুক্তি চাই, কোনো শর্ত ছাড়াই

জুলহাস আলম

রোজিনার মুক্তি চাই, কোনো শর্ত ছাড়াই

জুলহাস আলম

সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম দেশকে ভালোবাসেন। রোজিনা আমাদের বন্ধু, আমরা একই ব্যাচের শিক্ষার্থী। 

একবার আমাকে নক করে বললেন: ‘জুলহাস ভাই, বিদেশে যাবার জন্য আপনার কাছ থেকে একটা রিকমেন্ডেশন লাগবে, যদি সম্ভব হয় তাহলে কৃতজ্ঞ থাকবো।’ 

আমি ভাবলাম হয়তো বিদেশ চলে যাবেন একেবারে। অনেকেই যাচ্ছেন। উত্তরে রোজিনা বললেন: ‘না, না, ভাই, নর্থ আমেরিকায় একটা সাংবাদিকতার উপর একটা স্কলারশীপের চেষ্টা করবো, সেজন্য একটা রিকমেন্ডেশন দরকার, আপনার কাছ থেকে পেলে ভালো হয়।’ 

বললাম: ‘কোনো সমস্যা নেই, অবশ্যই দিব।’ 

তার বক্তব্যে পরিষ্কার আবেগ ছিল যে তিনি দেশকে ভালোবাসেন। বলছিনা যে, কেউ বিদেশে চলে গেলে তিনি দেশকে ভালোবাসেন না। 

আমার কাছে মনে হয়, দেশের মধ্যে বিদ্যমান সকল অরাজকতা, অন্যায়, দুর্নীতি, যা ইচ্ছা তাই থাকার পরও এবং বাইরে চলে যাবার সুযোগ থাকার পরও যারা এখানেই পড়ে থাকতে চান এবং থাকেন, তারা একটু বেশিই দেশপ্রেমিক। 

রোজিনাও সেই দলেই পড়েন। তাছাড়া নারী হয়ে এমন শক্তভাবে সাংবাদিকতা করার সাহস দেখানো অতো সহজ নয়। তার সকল চেষ্টা প্রশাসনের বড় কর্তাদের নানা অস্বচ্ছতা ও দুর্নীতির ভেতরে আঘাত করা। জনগণের সামনে তাদের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা। সেটাকে তিনি দায়িত্ব হিসেবে নিয়েছেন। তার যে সাহস সেই সাহস আমাদের অনেকের আছে কি না সন্দেহ আছে আমার। 

সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম প্রশাসনের অনেক কর্তা ব্যক্তির কমফোর্ট জোন এলোমেলো করে দেবার একজন সৈনিক। আর তার কাজের ফলে আমার ধারণা সবচেয়ে বেশি সুবিধা হয় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর। 


সাংবাদিক রোজিনার পাঁচ দিনের রিমান্ড চাইবে পুলিশ 

যুদ্ধবিরতির জন্য ফিলিস্তিনিদের শর্ত মেনে নিতে বাধ্য হবে ইসরাইল: হামাস

রোজিনার মুক্তির দাবিতে শাহবাগ থানার সামনে সাংবাদিকদের বিক্ষোভ

আরশের ছায়াতলে আশ্রয় পাবেন যে সাত ব্যক্তি


যারা উনার চোখের সামনে পর্দা তুলে রাখতে চান যেনো সবকিছু তিনি দেখতে না পান, জানতে না পারেন, তারা একজন রোজিনা ইসলামকে সহ্য করতে পারবেননা, সেটাই কি স্বাভাবিক না? তাই তাকে শায়েস্তা করতে না পারলে বড় বড় নানা দুর্নীতির অভিযোগে নিমজ্জিত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সেই দুষ্টচক্র শান্তি পায় কি করে? করোনা শুরু হবার পর থেকে এই মন্ত্রণালয় নিয়ে যত রকমের খবর বেরিয়েছে সেগুলোর পোস্ট মর্টেম করলেতো আর কিছুই বাকি থাকেনা। 

রোজিনার মুক্তি চাই, কোনো শর্ত ছাড়াই।

জুলহাস আলম, ব্যুরো চিফ, এপি

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

রোজিনা আপার মুক্তি চাই

আশরাফুল আলম খোকন

রোজিনা আপার মুক্তি চাই

আজকের ঘটনাটা খুবই দুঃখজনক। দোষ কার, কে দায়ী তা জানিনা। তবে মনে হয়েছে, একজন পেশাদার সাংবাদিকের সাথে অন্যভাবে আচরণ করেও বিষয়টি সমাধান করা যেত। গুটি কয়েক কর্মকর্তার জন্য সবসময় সাংবাদিক বান্ধব শেখ হাসিনার সরকার আজ সমালোচনার মুখে। 

সাড়ে সাত বছর মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইংয়ে কাজ করেছি। নিজে চোখে দেখেছি তিনি নিজে কতটা সাংবাদিক বান্ধব। সাংবাদিকদের কল্যাণের জন্য নিজে উদ্যোগী হয়ে কত কত কাজ করেছেন। 

এই রকম পরিস্থিতি আগেও হয়েছে। দুই পক্ষের সাথে কথা বলেই সমাধান হয়েছে। এমন অনেক সমাধান নিজেও করেছি। হয়তো কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলেছি অথবা সাংবাদিকের সাথে কথা বলেছি। “পেশাদার” আবারো বলছি পেশাদার সাংবাদিকদের চেষ্টা করেছি ঝামেলামুক্ত রাখতে। 


সাংবাদিক রোজিনার পাঁচ দিনের রিমান্ড চাইবে পুলিশ 

যুদ্ধবিরতির জন্য ফিলিস্তিনিদের শর্ত মেনে নিতে বাধ্য হবে ইসরাইল: হামাস

রোজিনার মুক্তির দাবিতে শাহবাগ থানার সামনে সাংবাদিকদের বিক্ষোভ

আরশের ছায়াতলে আশ্রয় পাবেন যে সাত ব্যক্তি


সদিচ্ছা থাকলে অ-সমাধানযোগ্য কোন কিছুই পৃথিবীতে নাই। পেশাদার আর অ-পেশাদারদের সাথে আচরণ একরকম হওয়া উচিত না। রোজিনা আপার মুক্তি চাই।

(মত ভিন্ন মত বিভাগের লেখার আইনগত ও অন্যান্য দায় লেখকের নিজস্ব। এই বিভাগের কোনো লেখা সম্পাদকীয় নীতির প্রতিফলন নয়।)

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

এক রিপোর্টারকে লাঞ্ছিত করেছি তাও সচিবালয়ে! ধিক, শত ধিক!

রউফল আলম

এক রিপোর্টারকে লাঞ্ছিত করেছি তাও সচিবালয়ে! ধিক, শত ধিক!

রউফল আলম

আমরা ছোট জিনিস চোখে দেখি না। তাই ব্যবহার করি মাইক্রোস্কোপ। খালি চোখে যা দেখা যায় না, মাইক্রোস্কোপের নিচে সেটা কি দারুণ দৃশ্যমান হয়ে উঠে। 

অনুসন্ধানী রিপোর্টগুলো মাইক্রোস্কোপের মতো কাজ করে। সমাজের সাধারণ মানুষ যেটা দেখে না, জানে না—অনুসন্ধান করে তৈরি করা রিপোর্টগুলো আমাদেরকে তা দেখতে, অনুধাবন করতে ও জানতে সাহায্য করে। এজন্যই মনে হয় বলা হয়—Fake news is cheap to produce. Genuine journalism is expensive. 

করোনার মহামারিতে দেশের স্বাস্থ্যখাতের বিভিন্ন অনিয়ম, অব্যবস্থাপনা নিয়ে প্রথম আলোয় রোজিনা ইসলামের রিপোর্ট পড়তাম! ভাবতাম এই মানুষটার সাহস অনেক। জাঁদরেল সাংবাদিক। 

যে সমাজে কথা বলাই সবচেয়ে বড়ো অপরাধ, সেখানে এমন রিপোর্ট করতে পারা মানুষটিকে নিশ্চয় অনেক ধকল পোহাতে হয়। রিপোর্টারকে না চিনেও তার প্রতি একটা শ্রদ্ধা জাগতো। 

এমন রিপোর্টারকে দুনিয়ার বহু সমাজ সম্মানিত করে। পুরস্কার দেয়! কারণ তারা যোদ্ধা। তারা আলোকিত দেশের স্বপ্নে যুদ্ধ করে। সর্বগ্রাসের হাত থেকে মানুষকে বাঁচাতে কলম নিয়ে সংগ্রাম করে। কিন্তু এমন এক রিপোর্টারকে আমরা লাঞ্ছিত করেছি। তাও সচিবালয়ে! কী ভয়ংকর! কী বিভৎস! 


সাংবাদিক রোজিনার পাঁচ দিনের রিমান্ড চাইবে পুলিশ 

যুদ্ধবিরতির জন্য ফিলিস্তিনিদের শর্ত মেনে নিতে বাধ্য হবে ইসরাইল: হামাস

রোজিনার মুক্তির দাবিতে শাহবাগ থানার সামনে সাংবাদিকদের বিক্ষোভ

আরশের ছায়াতলে আশ্রয় পাবেন যে সাত ব্যক্তি


দেশের সাংবাদিকদের সততা নিয়ে যখন অনেক অভিযোগ, তখন এমন সাহসী রিপোর্টারকে লাঞ্ছিত করা মানে হলো সমাজকে আরো অন্ধকারে ঢেলে দেয়া। অনিয়ম, দুর্নীতি, অব্যবস্থাপনাকে উৎসাহিত করা। সমাজের উপর গজবকে আরো তরান্বিত করা। ধিক, শত ধিক! 

রউফল আলম, নিউজার্সি, যুক্তরাষ্ট্র।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

রোজিনার ঘটনা অন্য সাংবাদিকদের জন্যে সুস্পষ্ট বার্তা

আলী রিয়াজ

রোজিনার ঘটনা অন্য সাংবাদিকদের জন্যে সুস্পষ্ট বার্তা

একজন সাংবাদিককে সচিবালয়ে পাঁচ ঘণ্টা ধরে আটক করে, হেনস্তা করার পরে অসুস্থ অবস্থায় তাঁকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে। প্রথম আলো’র সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় হেনস্তা করা, তাঁকে আটক করার ঘটনা বিষয়ে স্বাস্থ্য সচিব সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা পর্যন্ত বলেননি। 

এই ঘটনার নিন্দা জানানোই যথেষ্ট নয়, এর বিরুদ্ধে গণমাধ্যম কর্মীদের প্রতিবাদ এবং এই ধরণের নিপীড়নমূলক আচরণের জন্যে যারা দায়ী তাঁদের বিচার নিশ্চিত করার জন্যে এখনই পদক্ষেপ নেয়া জরুরি। 

দলীয় পরিচয়ে বিভক্ত সাংবাদিক ইউনিয়নগুলো এই বিষয়ে কিছু করবেন, বা বিবৃতি দেয়ার বেশি কোন ধরণের পদক্ষেপ নেবেন তেমন আশা করার কারণ নেই। কিন্ত সাংবাদিকতার সঙ্গে যুক্তদের সকলেরই এই মুহূর্তে দরকার সম্মিলিত পদক্ষেপ নেবার কথা বিবেচনা করা। 

দেশের সম্পাদকদের সংগঠন সম্পাদক পরিষদের দায়িত্ব ও কর্তব্য হচ্ছে অবিলম্বে এই বিষয়ে সরকারের কাছে ব্যাখ্যা দাবি, রোজিনা ইসলামের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, তাঁর চিকিৎসার ব্যবস্থা করা এবং এই ধরণের আচরণ বন্ধের নিশ্চয়তা আদায় করা। 

রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করার ঘটনা সাংবাদিকদের ওপরে হামলার নতুন অধ্যায়, কিন্ত নতুন ঘটনা নয়। দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন সময়েই সাংবাদিকরা বিভিন্নভাবে আক্রান্ত হচ্ছে, নির্যাতিত হচ্ছেন। তাঁদের পাশে দাড়ানোর লোক পর্যন্ত নেই। সাংবাদিকদের অনৈক্য, দলীয় বিভক্তি এবং পেশাদারী মনোভাবের অনুপস্থিতি এই ধরণের নির্যাতন নিপীড়নকে ক্রমাগতভাবে স্বাভাবিক ঘটনায় পরিণত করেছে।


সাংবাদিক রোজিনার পাঁচ দিনের রিমান্ড চাইবে পুলিশ 

যুদ্ধবিরতির জন্য ফিলিস্তিনিদের শর্ত মেনে নিতে বাধ্য হবে ইসরাইল: হামাস

রোজিনার মুক্তির দাবিতে শাহবাগ থানার সামনে সাংবাদিকদের বিক্ষোভ

আরশের ছায়াতলে আশ্রয় পাবেন যে সাত ব্যক্তি


এই ঘটনা এবং আগেও অসংখ্য ঘটনায় সাংবাদিকদের ওপরে নির্যাতনের কারণ স্পষ্ট – যখনই কোনও সাংবাদিক ক্ষমতাসীনদের – স্থানীয় বা জাতীয় পর্যায়ে–জবাবদিহির মুখোমুখির চেষ্টা করেছেন সেই সময়েই তাঁদেরকে হয়রানি, নির্যাতনের মুখোমুখি হতে হয়েছে। জবাবদিহির অনুপস্থিত রাজনৈতিক ব্যবস্থায় যে কোনও ধরণের জবাবদিহি দাবি করলেই তার পরিণতি হয় নির্যাতন, নিপীড়ন। এই ঘটনা অন্য সাংবাদিকদের জন্যে সুস্পষ্ট বার্তা – তাঁরা সেটা শুনতে/বুঝতে পারছেন কিনা সেটাই আমার প্রশ্ন।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর