হেফাজত নিষিদ্ধের দাবি তুলল ইসলামী ফ্রন্ট

অনলাইন ডেস্ক

হেফাজত নিষিদ্ধের দাবি তুলল ইসলামী ফ্রন্ট

হেফাজতে ইসলাম নিষিদ্ধের দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট। একই সঙ্গে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ এনে ট্রাইব্যুনালে তাদের বিচারসহ ৭ দফা দাবি তুলে ধরে সংগঠনটি।

সংগঠনটি বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) সকালে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে দেশব্যাপী নাশকতায় জড়িয়ে পড়ে হেফাজতে ইসলাম। এরপর মামুনুলকাণ্ডসহ একের পর এক নানা বিতর্কের জন্ম দেয় দলটি। অবশেষে সমালোচনার মুখে ২৬ এপ্রিল কেন্দ্রীয় কমিটি বিলুপ্তির কয়েক ঘণ্টার মধ্যে বাবুনগরীকে প্রধান করে গঠন করা হয় আহ্বায়ক কমিটি। এমন বাস্তবতায় বৃহস্পতিবার সকালে চট্টগ্রামের প্রেসক্লাবের হেফাজতের নৈরাজ্য সৃষ্টির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করে বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট।


গাজীপুরে শিশু ধর্ষণ, অভিযুক্ত গ্রেপ্তার

সরকারের শেকড় মাটির গভীরে, বিএনপির অন্য কোথাও: কাদের

হেফাজত নেতা মুফতি ফয়সাল ও কাশেমী রিমান্ডে

যৌন উত্তেজক সিরাপের কারখানার সন্ধান, যুবলীগের ২ নেতা আটক


হেফাজতে ইসলামকে নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়ে বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব স. ম আবদু সামাদ বলেন, নৈতিক স্খলন জঙ্গিবাদে কর্মকাণ্ডে যুক্ত হেফাজতকে অবশ্যই নিষিদ্ধ করতে হবে। তাদের কমিটি বিলুপ্ত বা নতুন করে কমিটি করে ইতোপূর্বে সংগঠিত জঙ্গিবাদ অপরাধকে মার্জনা করা যাবে না।

আর ইসলামি শিক্ষাব্যবস্থাকে একই স্রোতে আনার পাশাপাশি কওমি সনদ বাতিলের দাবি জানিয়ে বাংলাদেশ ইসলামি ফ্রন্টের মহাসচিব মাওলানা এম এ মতিন জঙ্গিবাদের অভিযোগও তোলেন হেফাজতের বিরুদ্ধে।

তিনি বলেন, এ দেশের মধ্যে একটা সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা হতে পারে, মুসলমানদের মধ্যে বিভক্তি হতে পারে, যে কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে। এ কারণে আমরা মনে করছি, একটা দেশের মধ্যে দুই ধরনের ইসলামি শিক্ষাব্যবস্থা থাকতে পারে না।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

অবৈধ সরকার গদি হারানোর ভয়ে নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করে : নুর

অনলাইন ডেস্ক

অবৈধ সরকার গদি হারানোর ভয়ে নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করে : নুর

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ আগমনের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করায় আমাদের এখন পর্যন্ত ৫৩ জন সহযোদ্ধাদের কারাগারে আটকে রেখেছে জানিয়ে ডাকসুর সাবেক ভিপি ও ছাত্র, যুব শ্রমিক পরিষদের সমন্বয়ক নুর বলেছেন, গণতান্ত্রিক দেশে যেকোনো সভা সমাবেশ, বিক্ষোভ করা নাগরিক অধিকার। কিন্তু এই বিনা ভোটের স্বৈরাচারী সরকার ভিন্ন মত ও দলের নেতাকর্মীদের দমন নিপীড়ন করে যাচ্ছে। যখন দেশের মানুষের অধিকারের কথা বলে ছাত্র, যুব পরিষদ। সাধারণ মানুষ ও নিপীড়িত জনতার কণ্ঠস্বর হয়ে লড়াই সংগ্রাম অব্যহত রেখেছে। তখন অবৈধ সরকার তার গদি হারানোর ভয়ে আমাদের নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার শুরু করেছে।

মোদিবিরোধী বিক্ষোভে গ্রেপ্তার বাংলাদেশ ছাত্র, যুব ও শ্রমিক অধিকার পরিষদ এর নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবিতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সাবেক ভিপি নুরের নেতৃত্বে বিক্ষোভ সমাবেশ তিনি এসব কথা বলেন। আজ শুক্রবার ঈদের দিন সকাল ১১টা থেকে ১২টা পর্যন্ত বিক্ষোভ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। বিক্ষোভ সমাবেশে ছাত্র যুব, শ্রমিক পরিষদের প্রায় ২০০ নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

নুর বলেন, আমার কোনো নেতাকর্মীর যদি অপরাধ প্রমাণ করতে পারেন তাহলে স্বেচ্ছায় কারাবরণ করবো। আমরা ভয় পাওয়ার জন্য রাজপথে নামিনি। আমাদের জেল জুলুম দিয়ে দমিয়ে রাখা যাবে না। বরং ৫৩ জন নেতাকর্মী আটক হওয়ায় সাধারণ মানুষের আরো ঢল এসেছে এই লড়াইয়ে। আমরা হুঁশিয়ারি দিয়ে বলতে চাই অবিলম্বে সকল নেতাকর্মীদের মুক্তি দিতে হবে অন্যথায় পরিষদ জনগণকে নিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে বৃহত্তর আন্দোলনে নামবে।

নুর  আরও বলেন, আমার কোনো নেতাকর্মীর যদি অপরাধ প্রমাণ করতে পারেন তাহলে স্বেচ্ছায় কারাবরণ করবো। আমরা ভয় পাওয়ার জন্য রাজপথে নামিনি। আমাদের জেল জুলুম দিয়ে দমিয়ে রাখা যাবে না। বরং ৫৩ জন নেতাকর্মী আটক হওয়ায় সাধারণ মানুষের আরো ঢল এসেছে এই লড়াইয়ে। আমরা হুঁশিয়ারি দিয়ে বলতে চাই অবিলম্বে সকল নেতাকর্মীদের মুক্তি দিতে হবে অন্যথায় পরিষদ জনগণকে নিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে বৃহত্তর আন্দোলনে নামবে।

সমাবেশে আরো উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন ছাত্র পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক আবু হানিফ, আরিফুল ইসলাম আদীব, মোল্লা রহমতুল্লাহ। যুব পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক তারেক রহমান, অলক আহমেদ সদস্য সচিব মঞ্জুর মোর্শেদ। শ্রমিক পরিষদের আহ্বায়ক আব্দুর রহমান ও সদস্য সচিব আরিফ হোসেন এবং পেশাজীবী পরিষদের সমন্বয়ক অ্যাডভোকেট তৌফিক শাহরিয়ারসহ ঢাকা মহানগর এর অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

এর পূর্বে পরিষদের নেতা-কর্মীদের মুক্তির দাবিতে প্রধান বিচারপতি বরাবর আবেদন দিয়েছেন ড. কামাল হোসেন, ডা. জাফরুল্লাহ, মাহামুদুর রহমান মান্না, আ স ম আবদুর রব, আধ্যাপক আসিফ নজরুল, রেহনুমা আহমেদ, শহীদুল আলম, জোনায়েদ সাকীসহ বিশিষ্ট ১৮ নাগরিক।

news24bd.tv/আলী 

পরবর্তী খবর

স্বাস্থ্যবিধি মেনে শান্তিপূর্ণভাবে ঈদ উদযাপনের আহ্বান ওবায়দুল কাদেরের

নিজস্ব প্রতিবেদক

স্বাস্থ্যবিধি মেনে শান্তিপূর্ণভাবে ঈদ উদযাপনের আহ্বান ওবায়দুল কাদেরের

দেশবাসী তথা মুসলিম জাহানের প্রতি পবিত্র ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এসময় তিনি বলেন, করােনা আক্রান্তদের নিরাময় ও সুস্বাস্থ্য প্রত্যাশা এবং  নিরবচ্ছিন্ন শান্তি, অগ্রগতি ও সমৃদ্ধি কামনা করছি। 

সৌহার্দ্য-সম্প্রীতি সহমর্মিতা ও ভ্রাতৃত্বের চেতনায় পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরে আমাদের মাঝে গড়ে উঠুক মহামারী করােনাসহ সকল সংকট জয়ের সুসংহত বন্ধন উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, পারস্পারিক ভাতৃত্ববােধ, সামাজিক দায়বদ্ধতা ও করােনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে শারীরিক দূরত্বও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার মধ্য দিয়ে শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হােক পবিত্র ঈদুল ফিতর।

ওবায়দুল কাদের বলেন, দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অতীতে বাংলাদেশ যেভাবে সংকট পেরিয়ে আশার সুবর্ণ প্রদীপ জ্বালিয়েছে ঠিক একইভাবে করােনা সংকট জয় করে আবারাে নব উদ্যমে কাঙ্খিত উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ বলেও জানান তিনি।

তিনি আরও বলেন, মনের গহীনের আলাে জ্বেলে অমানিশার আঁধার দূর করি এবং সহমর্মিতার সহজাত বাঙালি চেতনায় জাগিয়ে তুলি নিজেকে, সমাজকে, দেশকে। এবারের ঈদ, শেষ ঈদ নয়, অপেক্ষা করি পরবর্তী সকালের, বর্ণময় ঈদের।

এ দুঃসময়ে বিশেষ করে করােনাযুদ্ধে যারা সম্মুখ সারিতে থেকে যুদ্ধ করছেন, পরিবারের সদস্যদের দূরে রেখে সেবাকে করেছেন ব্রত। সেসকল ত্যাগী সম্মুখসারির যােদ্ধাদের আন্তরিক অভিনন্দন ও ঈদ মােবারক জানান আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।

চলমান করােনা সংকটে সকলকে সাহস ও মনােবল নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, করােনা কাউকেই ছাড় দেয় না, তাই আসুন দলমত নির্বিশেষে এ করােনা  সংকট উত্তরণে ঐক্যবদ্ধ হই এবং সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করি।

আরও পড়ুন


লকডাউন প্রত্যাহারের পর ঢাকায় ফিরুন: তাপস

ফিলিস্তিনে ইসরাইলি হামলায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১১৩

ফিলিস্তিনে শান্তি, দেশ-জাতি ও করোনা থেকে মুক্তি চেয়ে দোয়া

‘ঘরে ঈদ সুপার হিট’- এটাই হোক আমাদের শ্লোগান


স্বাস্থ্যবিধি প্রতি পালনের মাধ্যমে দল-মতের ঊর্ধ্বে উঠে সকলে মিলে অভিন্ন শত্রু করােনাকে প্রতিরােধ করারও আহবান জানান ওবায়দুল কাদের। শেখ হাসিনার সাহসী ও মানবিক নেতৃত্বে অতীতের মতাে এবারও সংকটের সাগর পেরিয়ে তীরে পৌঁছাবে ইনশাল্লাহ এমনটাই আশা তার।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ঈদে গ্রামমুখী মানুষের বাধভাঙ্গা জনস্রোত দেখা যাওয়ায় বিশেষজ্ঞরা সংক্রমণ ও মৃত্যুর হারে নতুন ধাক্কা লাগার আশঙ্কা করছেন। ঈদ পরবর্তী কালে শহরমুখী জনস্রোত উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে বলেও মনে করেন ওবায়দুল কাদের। 

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞগণ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরামর্শকে উপেক্ষা করার মাশুল গুনতে হতে পারে,তাই ওবায়দুল কাদের সবাইকে এ বিষয়ে স্মরণ করে দেন। বলেন জনসমাগম এড়িয়ে চলতে হবে এবং স্বাস্থ্যবিধি ও শতভাগ মাস্ক পড়তেই হবে।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর

খালেদা জিয়ার ‘ভূয়া’ জন্মদিন নিয়ে আজও বিএনপির জবাব পাইনি: কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক

খালেদা জিয়ার ‘ভূয়া’ জন্মদিন নিয়ে আজও বিএনপির জবাব পাইনি: কাদের

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার ভূয়া জন্মদিবস নিয়ে জাতির কাছে যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে, তার সঠিক জবাব বিএনপির পক্ষ থেকে আজও পাওয়া যায়নি। খালেদা জিয়া এখন অসুস্থ তাই ১৫ আগস্টের মত নৃশংস হত্যা দিবসে তাঁর ভূয়া জন্মদিন পালনের জন্য মির্জা ফখরুল ইসলাম জাতির কাছে ক্ষমা চাইবেন, এটাই মানুষ আশা করেছিলো বলেও মনে করেন ওবায়দুল কাদের।

বৃহস্পতিবার সকালে তাঁর সরকারি বাসভবনে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ঈদকে সামনে রেখে করোনাকালীন এই সংকটে রাজনৈতিক ব্লেম গেইম থেকে বিরত থাকা সকলের দায়িত্ব ও কর্তব্য। বিএনপি মহাসচিব সরকারের সমালোচনার নামে এমন সব বিষয়ে অবতারণ করেন, যার জবাব আওয়ামী লীগকে দিতে হয় উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন যদিও যা জানতে চাই, তার জবাব তাদের কাছে পাইনা।


তিনি আরও বলেন, বিএনপি মহাসচিব তা না করে প্রতিদিনই এক একটা বিষয় নিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার করে যাচ্ছেন। সরকার নাকি বাংলাদেশে ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করছে, বিএনপি মহাসচিবের এই বক্তব্য প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, সরকার নয়, ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টি করছে বিএনপি। যেমনটি তারা ২০০১ সালে করেছিলো।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, ২০০১ সালে ক্ষমতায় আসার পর দেশের মানুষের উপর নির্যাতনের স্টিমরোলার চালিয়েছিল বিএনপি সরকার। ২১ হাজার আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের হত্যা করেছে। বিএনপির জামায়াত জোট সরকারের শাসনামলে আওয়ামী লীগের হাজারো নেতাকর্মীর রক্তে দেশকে মৃত্যু উপত্যকায় বানিয়েছিলো উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, গুম, হত্যা, খুন, ধর্ষণ ও নির্যাতনের রূপান্তর করেছিলে তারা।

ওবায়দুল কাদের বিএনপি নেতাদের স্মরণ করে দিয়ে বলেন, মাহিমা, রহিমা, পূর্ণিমাসহ শত শত নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছিলো তা কি ভুলে গেছে বিএনপি? তিনি আরও বলেন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর নির্যাতন ৭১'এর পাক-হানাদারের নির্যাতনকেও হার মানিয়েছিলো।

আরও পড়ুন


সৌদি আরবে উদযাপিত হচ্ছে ঈদুল ফিতর

সৌদির সাথে মিল রেখে নোয়াখালীর ৩টি গ্রামে ঈদুল ফিতর পালন

রাজধানীতে ঈদুল ফিতরের জামাত কোথায় কখন

সৌদির সঙ্গে মিল রেখে শেরপুরের ৭ গ্রামে ঈদ উদযাপন


আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বিএনপি নেতাদের আয়নায় নিজেদের চেহারা দেখার আহবান জানিয়ে বলেন, কলঙ্কিত ইতিহাস আর বিকৃত অবয়ব ছাড়া আর কিছুই দেখতে পারবেন না আয়নায়। দেশকে অস্থিতিশীল করার লক্ষ্যে ২৬ মার্চ দেশের বিভিন্ন স্থানে হেফাজত যে ত্রাস ও তান্ডব চালিয়েছিলো তার সাথে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত ছিল বিএনপি বলেও জানান ওবায়দুল কাদের। 

তিনি বলেন, এর আগেও ভাস্কর্য ইস্যুতেও দেশকে অস্থিতিশীল করার লক্ষ্যে ত্রাস সৃষ্টিতে হেফাজতকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে মদদ দিয়েছিল বিএনপি। দেশের স্থিতিশীলতা নষ্ট করার যত প্রয়াস তার সবগুলোর সাথেই বিএনপি প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত বলে মনে করেন। তাই বিএনপি নেতাদের মুখে এসব কথা শুনলে হাসি পায় বলেও মন্তব্য ওবায়দুল কাদেরের।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর

ফিলিস্তিনদের ওপর ইসরায়েলি হামলায় রওশন এরশাদের নিন্দা

অনলাইন ডেস্ক

ফিলিস্তিনদের ওপর ইসরায়েলি হামলায় রওশন এরশাদের নিন্দা

ঐতিহাসিক আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গনে সহিংসতা ও অধিকৃত পশ্চিম তীর এবং গাজা থেকে ফিলিস্তিনিদের উচ্ছেদে জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। বুধবার এক বিবৃতিতে এ খবর জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, গত কয়েকদিন ধরে মুসল্লীদের ওপর হামলার পর আল-আকসা মসজিদ কম্পাউন্ডে অভিযান চালায় ইসরায়েলি বাহিনী। যা মানবাধিকার, মানবিক মানদণ্ড এবং আন্তর্জাতিক আইন ও চুক্তির সুস্পষ্ট লঙ্ঘন।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, জাতিসংঘের রেজুলেশন অনুযায়ী ফিলিস্তিনিদের সার্বভৌমত্ব ও স্বাধীন রাষ্ট্র গঠনের অধিকার থাকলেও উপাসনার সময় রাষ্ট্রীয় কোনো বাহিনীর এভাবে হামলার নজির কেবল ইসরায়েলই সম্ভব। 

news24bd.tv / কামরুল  

পরবর্তী খবর

গণমাধ্যমের শৃঙ্খলা ফেরাতে ঈদের পরই ব্যবস্থা: তথ্যমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

গণমাধ্যমের শৃঙ্খলা ফেরাতে ঈদের পরই ব্যবস্থা: তথ্যমন্ত্রী

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, কোন গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠান নিয়োগ দেবে অথচ সাংবাদিকদের বেতন-ভাতা দেওয়া হবে না এমনটি চলতে পারে না। ঈদের পরই এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বুধবার (১২ মে) সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর কাকরাইলে প্রেস ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের চেক প্রদান অনুষ্ঠান এসব কথা বলেন তিনি।

তথ্যমন্ত্রী আরও বলেন, সংবাদকর্মীদের বেতন-ভাতা নিশ্চিত করতে ঈদের পরই গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানগুলোকে শৃঙ্খলায় আনার কাজ শুরু হবে। সংবাদকর্মীর নিরাপত্তায়, সব প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় ইনস্যুরেন্স বাধ্যতামূলক করা হবে বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন


গাজীপুরে র‍্যাবের গাড়িতে মাইক্রোবাসের ধাক্কা, র‍্যাব সদস্যসহ নিহত ২

শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে ফেরিতে যাত্রীদের চাপে ৫ জনের মৃত্যু

ধর্ষণসহ ৫ মামলায় হেফাজত নেতা মামুনুল হক ১৫ দিনের রিমান্ডে

নতুন গান নিয়ে এলো প্রবাসী ব্যান্ড ‘এস অ্যান্ড আর’


ড. হাছান মাহমুদ বলেন, যেসব মিডিয়া হাউসে বেতন-ভাতা দেয়া হবে না, অকারণে সংবাদকর্মীকে চাকরিচ্যুত করা হবে সেসব গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানে সরকারি সুযোগ-সুবিধা বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর