আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহার শুরু আমেরিকার

অনলাইন ডেস্ক

আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহার শুরু আমেরিকার

মার্কিন আগ্রাসনের প্রায় ২০ বছর পর আফগানিস্তানে থেকে সেনা প্রত্যাহার করে নিচ্ছে আমেরিকা। গতকাল বৃহস্পতিবার মার্কিন টেলিভিশন চ্যানেল সিএনএন জানিয়েছেন, অস্ত্রসহ কয়েক ডজন সেনাকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন মে মাস শুরুর আগেই আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহার শুরু করবেন বলে কিছুদিন আগে ঘোষণা দিয়েছিলেন। তার অংশ হিসেবে এসব সেনা প্রত্যাহার করা হলো। 

মার্কিন নিউজ নেটওয়ার্ককে দেশটির সেনা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বেসরকারি নিরাপত্তা ঠিকাদার ও মার্কিন সরকারি কর্মীরাও আফগানিস্তান ছাড়তে শুরু করেছে।

আরও পড়ুন


রংপুরে ট্রাক খাদে পড়ে নিহত ২

মমতাই থাকছেন ক্ষমতায়, বলছে বুথফেরত জরিপ

চট্টগ্রামে ছোট ভাইয়ের হাতে বড় ভাই খুন

ইসরায়েলে ধর্মীয় অনুষ্ঠানে পদদলিত হয়ে নিহত ৩৮


গত সপ্তাহে সিএনএন জানিয়েছিল, সামরিক সরঞ্জামাদি আফগানিস্তানের বাইরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সাম্প্রতিক ঘোষণা অনুযায়ী, আগামী ১১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহার সম্পন্ন হবে।

২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর আমেরিকার নিউ ইয়র্ক শহরের টুইন টাওয়ারে কথিত সন্ত্রাসী হামলার অজুহাত তুলে অক্টোবর মাসে সন্ত্রাস-বিরোধী যুদ্ধের নামে আমেরিকা ও ব্রিটেন আফগানিস্তানে সামরিক আগ্রাসন শুরু করে। তালেবানকে উৎখাতের লক্ষ্য নিয়ে আগ্রাসন শুরু করলেও আজ পর্যন্ত তা সম্ভব হয় নি বরং তালেবানের শক্তি মেনে নিয়ে তাদের সঙ্গে শান্তি চুক্তি করে আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহার করতে হচ্ছে। সূত্র: পার্সটুডে।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর

ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করুন আরব দেশগুলোকে মুক্তাদা সাদর

অনলাইন ডেস্ক

ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করুন আরব দেশগুলোকে মুক্তাদা সাদর

ফিলিস্তিনের নিরীহ জনগণের ওপর নির্বিচার হামলা চালিয়ে যাচ্ছে ইসরায়েল। এ নিয়ে টানা ৮দিনের মতো দখলদার বাহিনীর হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২০০ ছাড়িয়েছে।  রক্তপিপাসু দখলদার ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করতে আরব দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ইরাকের প্রভাবশালী সাদর আন্দোলনের প্রধান মুক্তাদা সাদর।

তিনি বলেন, যেসব আরব শাসক ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করেছে তাদের উচিৎ এখনই সম্পর্ক ছিন্ন করা।
আরব শাসকদের উদ্দেশে তিনি আরও বলেন, আপনারা যে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার চুক্তি করেছেন তা বাতিল করুন এবং ইসরায়েলি রাষ্ট্রদূতদের বহিষ্কারে পদক্ষেপ গ্রহণ করুন। একইসঙ্গে দখলদার ইসরায়েলের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অবরোধ আরোপ করুন।

এদিকে, ইরাকের সংসদ সদস্য হাসান সালিম বলেছেন, যেসব দেশ ইসরায়েলের সঙ্গে আপোষ করেছে এবং সম্পর্ক স্থাপন করেছে তাদের সঙ্গে ইরাকের সম্পর্ক ছিন্ন করতে হবে। এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে প্রধানমন্ত্রী মোস্তাফা আল কাজেমির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

গাজা উপত্যকায় এক সপ্তাহ ধরে ব্যাপক হামলা চালাচ্ছে দখলদার ইসরায়েল। এ পর্যন্ত ইসরায়েলি হামলায় দুই শতাধিক ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন।

চলমান এ সহিংসতা থামাতে রোববার (১৬ মে) জাতিসংঘের নিরাপত্তা কাউন্সিল বৈঠকে বসেছিল। ফিলিস্তিন ও ইসরায়েলের মধ্যকার সংঘাত বন্ধের আহ্বান সংবলিত ঘোষণা দেওয়ার লক্ষ্যে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের তৃতীয় বৈঠকটিও ব্যর্থ হয়েছে। এর আগে রুদ্ধদ্বার দুটি বৈঠকও ব্যর্থ হয়। সর্বশেষ বৈঠকে ইসরায়েলি বিমান হামলায় গাজায় বিভিন্ন ভবনের ধ্বংসস্তূপ থেকে মানুষকে জীবিত ও মৃত উদ্ধারে ইসরায়েলের সঙ্গে সাময়িক অনুমতির চুক্তিতেও পৌঁছাতে পারেনি নিরাপত্তা পরিষদ।

news24bd.tv/আলী 

পরবর্তী খবর

যুদ্ধজাহাজে ও তেল-গ্যাস উত্তোলন কেন্দ্রে হামাসের ক্ষেপণাস্ত্র হামলা

অনলাইন ডেস্ক

যুদ্ধজাহাজে ও তেল-গ্যাস উত্তোলন কেন্দ্রে হামাসের ক্ষেপণাস্ত্র হামলা

ফিলিস্তিনের নিরীহ জনগণের ওপর নির্বিচার হামলা চালিয়ে যাচ্ছে ইসরায়েল। এ নিয়ে টানা ৮দিনের মতো দখলদার বাহিনীর হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২০০ ছাড়িয়েছে। ইসরায়েলের নৃশংস আগ্রাসনের জবাবে ফিলিস্তিন থেকে ব্যাপক হারে রকেট হামলা চালানো হচ্ছে। যা ২০১৯ ও ২০০৬ সালের চাইতে বেশি।  এদিকে দখলদার ইসরাইলের একটি যুদ্ধজাহাজে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ যোদ্ধারা।

সোমবার এক বিবৃতিতে হামাসের সামরিক শাখা ইজ্জুদ্দীন আল কাসসাম বিগ্রেড এ হামলার দাবি করেছে বলে ইরানের প্রেস টিভি জানিয়েছে।  

খবরে বলা হয়, সোমবার বিকালে কাসসাম ব্রিগেডের সেনারা সাগরে ইসরাইলি যুদ্ধজাহাজ লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়েছে। এছাড়া, কাসসাম ব্রিগেড আজ ইহুদি উপশহর ‘হার্টসলিয়া’-তে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে।  তবে এ হামলায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ সম্পর্কে কিছু জানা যায়নি। 

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, সোমবার ভোরে ইসরাইলি সামরিক বাহিনী গাজা উপত্যকায় নতুন করে সিরিজ বিমান হামলা চালানোর পর এই ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়েছে।  এর আগে হামাসের যোদ্ধারা ইসরাইলের আশকেলান উপকূলে তেল ও গ্যাস উত্তোলন কেন্দ্রে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে।

চলমান এ সহিংসতা থামাতে রোববার (১৬ মে) জাতিসংঘের নিরাপত্তা কাউন্সিল বৈঠকে বসেছিল। ফিলিস্তিন ও ইসরায়েলের মধ্যকার সংঘাত বন্ধের আহ্বান সংবলিত ঘোষণা দেওয়ার লক্ষ্যে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের তৃতীয় বৈঠকটিও ব্যর্থ হয়েছে। এর আগে রুদ্ধদ্বার দুটি বৈঠকও ব্যর্থ হয়। সর্বশেষ বৈঠকে ইসরায়েলি বিমান হামলায় গাজায় বিভিন্ন ভবনের ধ্বংসস্তূপ থেকে মানুষকে জীবিত ও মৃত উদ্ধারে ইসরায়েলের সঙ্গে সাময়িক অনুমতির চুক্তিতেও পৌঁছাতে পারেনি নিরাপত্তা পরিষদ।

news24bd.tv/আলী 

পরবর্তী খবর

মুম্বাইয়ে রুদ্রমূর্তি ধারণ করেছে ঘূর্ণিঝড় তকতে

অনলাইন ডেস্ক

মুম্বাইয়ে রুদ্রমূর্তি ধারণ করেছে ঘূর্ণিঝড় তকতে

ঘূর্ণিঝড় তকতে মুম্বাইয়ে আঘাত হেনেছে। সেখানে এসে রুদ্রমূর্তি ধারণ করেছে ঝড়টি। এই শহরে ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে প্রবল বৃষ্টি হচ্ছে। সেখানে প্রতি ঘণ্টায় বাতাসের গতিবেগ ১৮৫ কিলোমিটার।

ঘূর্ণিঝড়ের কারণে আজ সোমবার মুম্বাই, থানে, পালঘর, রায়গড়, সিন্ধুদুর্গ জেলায় করোনাভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচি বন্ধ রাখা হয়েছে।

আর তাঁবু খাটিয়ে যেসব স্থানে করোনা রোগীদের চিকিৎসা চলছিল, তাঁদের হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে।

আজ সোমবার বেলা ১১টা থেকে ২টা পর্যন্ত মুম্বাই বিমানবন্দর বন্ধ ছিল। এ ছাড়া উচ্চ জোয়ারের সম্ভাবনা আছে। তাই মুম্বাই-ওয়ার্লি সি-লিংক বন্ধ রাখা হয়েছে বলে জানা গেছে।

আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, ঘূর্ণিঝড়ের কারণে মুম্বাই, থানে, রায়গড়, সিন্ধুদুর্গ, পালঘর সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছে। মুম্বাইয়ে ‘জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা দলের’ (এনডিআরএফ) তিনটি ইউনিট মোতায়েন করা হয়েছে। পাঁচটি অস্থায়ী আশ্রয় নির্মাণ করা হয়েছে। দাদর, ওয়ার্লি, মাতুংগা, মাহিম, লোয়ার পারেল, থানেসহ বিভিন্ন স্থানে ভারী বৃষ্টি হচ্ছে।

ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় মহারাষ্ট্র সরকার আগে থেকে প্রস্তুতি নিয়েছিল। বোম্বে মিউনিসিপ্যাল করপোরেশন ‘ফিল্ড কোভিড সেন্টার’–এর করোনা রোগীদের অন্য হাসপাতালে স্থানান্তরিত করেছে।

রাজ্য সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এই রাজ্যের তিনটি জেলার উপকূলবর্তী অঞ্চলের ৬ হাজার ৫০০ জনকে সুরক্ষিত স্থানে রাখা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের দাপটে মহারাষ্ট্রের রত্নাগিরির উপকূলবর্তী অঞ্চলের ৪০টি বাড়ির প্রবল ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তিনটি বিদ্যালয় পুরোপুরি ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে। পুনের নিকটবর্তী অঞ্চলের ৭০টি বাড়ির প্রভূত ক্ষতি হয়েছে।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

জাতিসংঘকে যেখানে হামলা চালানোর কথা জানালো ইসরায়েল

অনলাইন ডেস্ক

জাতিসংঘকে যেখানে হামলা চালানোর কথা জানালো ইসরায়েল

ফিলিস্তিনের নিরীহ জনগণের ওপর নির্বিচার হামলা চালিয়ে যাচ্ছে ইসরায়েল। এ নিয়ে টানা ৮দিনের মতো দখলদার বাহিনীর হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২০০ ছাড়িয়েছে। এদিকে ইসরায়েলি সামরিক বাহিনী গাজা উপত্যকায় দুটি স্কুল উড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়েছে, যেখানে অভ্যন্তরীণ বাস্তুচ্যুত ব্যক্তিদের রাখার প্রস্তুতি চলছিল। জাতিসংঘকে ইসরায়েল তাদের পরিকল্পনার বিষয়ে অবহিত করেছে বলে সোমবার (১৭ মে) সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে।

আরাবি২১নিউজের বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়, ঘনবসতিপূর্ণ পশ্চিম গাজায় অবস্থিত আল আকসা ও আল বোরাক স্কুলে হামলা চালানোর হুমকি দিয়েছে ইসরায়েল।

ফিলিস্তিনের সংবাদমাধ্যম বলছে, হামলার হুমকিটি খুবই মারাত্মক, কেননা সেখানে ইসরায়েলি বর্বরতায় বাস্তুচ্যুতদের রাখার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।

গাজায় ইসরাইলের সর্বাত্মক সন্ত্রাসী হামলার মধ্যেই দেশটিকে আরও অস্ত্র দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। এরই মধ্যে প্রায় ৭৩.৫ কোটি ডলারের অস্ত্র বিক্রির প্রস্তাব অনুমোদন করেছে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন। 

অন্যদিকে  ইসরায়েলে রকেট নিক্ষেপ বন্ধে গাজা উপত্যকার ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল হামাসের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন। 

অ্যান্টনি ব্লিনকেন বলেন, ফিলিস্তিনের হামলা থেকে বাঁচতে ‌ইসরায়েলের আত্মরক্ষার অধিকার আছে।

চলমান এ সহিংসতা থামাতে রোববার (১৬ মে) জাতিসংঘের নিরাপত্তা কাউন্সিল বৈঠকে বসেছিল। ফিলিস্তিন ও ইসরায়েলের মধ্যকার সংঘাত বন্ধের আহ্বান সংবলিত ঘোষণা দেওয়ার লক্ষ্যে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের তৃতীয় বৈঠকটিও ব্যর্থ হয়েছে। এর আগে রুদ্ধদ্বার দুটি বৈঠকও ব্যর্থ হয়। সর্বশেষ বৈঠকে ইসরায়েলি বিমান হামলায় গাজায় বিভিন্ন ভবনের ধ্বংসস্তূপ থেকে মানুষকে জীবিত ও মৃত উদ্ধারে ইসরায়েলের সঙ্গে সাময়িক অনুমতির চুক্তিতেও পৌঁছাতে পারেনি নিরাপত্তা পরিষদ।

news24bd.tv/আলী 

পরবর্তী খবর

প্রশ্নের মুখে সিবিআই

সকালে গ্রেপ্তার, সন্ধ্যায় জামিন তৃণমূলের চার নেতার

অনলাইন ডেস্ক

সকালে গ্রেপ্তার, সন্ধ্যায় জামিন তৃণমূলের চার নেতার

নারদ মামলায় গ্রেফতার হওয়া রাজ্যের সাবেক ও বর্তমান ৪ মন্ত্রীকে জামিন দিয়েছে ভারতের কলকাতা নগর দায়রা আদালতের বিশেষ আদালত। 

সোমবার সকালে তাদের গ্রেফতারের পর দুপুরে ভার্চুয়াল মাধ্যমে চারজনকে আদালতে পেশ করেন তদন্তকারীরা। এরপর গ্রেফতারদের জেল হেফাজতে পাঠানোর আবেদন জানান তারা। তখনই আদালত সিবিআইকে কঠিন প্রশ্নের মুখোমুখি করে। আদালতের প্রশ্ন- তদন্ত শেষ হয়ে গেলে কেন অভিযুক্তদের জেল হেফাজতে পাঠানোর দরকার?

এর সদুত্তর দিতে পারেনি সিবিআই। যার ফলে বিকালে বর্তমান দুই মন্ত্রী ও সাবেক দুই মন্ত্রীর জামিন মঞ্জুর করে আদালত। 
প্রাথমিকভাবে সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের আইনজীবী জানিয়েছেন, সম্ভবত ৫০ হাজার টাকার ব্যক্তিগত বন্ডে জামিন পেয়েছেন চারজন। পুরো রায়ের কপি পুরো বিষয়টা বলা যাবে।

সোমবার ব্যাঙ্কশাল আদালতের বিশেষ সিবিআই আদালতে গ্রেফতার ফিরহাদ হাকিম, সুব্রত মুখোপাধ্যায়, মদন মিত্র ও শোভন চট্টোপাধ্যায়কে হাজির করে সিবিআই। গ্রেফতারদের জেল হেফাজত চেয়ে আবেদন জানান সিবিআইয়ের আইনজীবী।

পালটা গ্রেফতারকৃতদের পক্ষ থেকে প্রশ্ন করা হয়, তদন্ত শেষ হলেই পেশ করা হয় চার্জশিট। তাহলে এখন অভিযুক্তদের কী কারণে জেল হেফাজত দরকার? সিবিআইয়ের আইনজীবীকে একই প্রশ্ন করেন বিচারকও। 

সিবিআইয়ের তরফে জানানো হয়, গ্রেফতারকৃতরা প্রত্যেকেই প্রভাবশালী। তাদের জেল হেফাজতে না রাখলে তথ্যপ্রমাণ নষ্ট করতে পারে। তাই জেল হেফাজত চেয়েছে তারা। 

গ্রেফতারদের পক্ষের আইনজীবী শুনানিতে বলেন, কলকাতায় করোনা মোকাবিলার কাণ্ডারি ফিরহাদ হাকিম। তিনি করোনা থেকে সদ্য সেরে উঠেছেন। গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়। তার বয়স ৭৫ ছুঁই ছুঁই। এই পরিস্থিতিতে তাদের হেফাজতে রাখার প্রয়োজন নেই। 

news24bd.tv/আলী 

পরবর্তী খবর