হেফাজতের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতিসহ গ্রেপ্তার ২

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি:

হেফাজতের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতিসহ গ্রেপ্তার ২

হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভপাতি মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহ সাদীকে (৬৪) গ্রেপ্তার করেছে ময়মনসিংহ জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

তিনি ইত্তেফাকুল উলামা বৃহত্তর মোমেনশাহীর সভাপতি পদেও দায়িত্ব পালন করছিলেন। এছাড়াও ইত্তেফাকুল উলামা বৃহত্তর মোমেনশাহীর কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক ও ময়মনসিংহ জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক হাফেজ মাওলানা মনজুরুল হককেও  (৫২) গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

আরও পড়ুন


পদ্মা সেতুর পুরো স্ট্রাকচারের কাজ শেষ হয়েছে: ওবায়দুল কাদের

মামুনুল হকের ২৪ দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ

লঙ্কানদের দেয়া ৪৩৭ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিংয়ে টাইগাররা

নওগাঁয় ইথেন এন্টারপ্রাইজের উদ্যোগে সেলাই মেশিন বিতরণ


আজ রোববার বিকেলে পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। খালেদ সাইফল্লাহ সাদীকে সদরের মাইজভারী মাদরাসা থেকে ও হাফেজ মাওলানা মনজুরুল হককে নগরীর ছোটবাজার এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। ডিবি’র ওসি শাহ কামাল আকন্দ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গত ২৮ মার্চ হেফাজতে ইসলামের হরতালের নামে ময়মনসিংহ নগরীর চরপাড়া মোড়ে পুলিশ বক্স ভাঙচুর, বাইপাস সড়কে বাসে আগুন, পুলিশের ওপর হামলাসহ নাশকতার ঘটনায় কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা হয়। ওই মামলায় তাদের দু’জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এদিকে কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি ফিরোজ তালুকদার জানান, আগের মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হলেও সন্ত্রাসবিরোধী আইনে তাদের বিরুদ্ধে নতুন আরও একটি মামলার প্রস্তুতি চলছে। সোমবার রিমান্ড চেয়ে তাদের আদালতে সোপর্দ করা হবে।

news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

সাংবাদিক রোজিনার মুক্তির দাবি জানাল ন্যাপ

অনলাইন ডেস্ক

সাংবাদিক রোজিনার মুক্তির দাবি জানাল ন্যাপ

দৈনিক প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তার ঘটনায় নিরপেক্ষ তদন্ত দাবি এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য সচিবের পদত্যাগ চেয়েছে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (বাংলাদেশ ন্যাপ)। 

আজ সকালে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে দলটির চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানি ও মহাসচিব এম গোলাম মোস্তফা ভুইয়া এ দাবি জানান।

বিবৃতিতে তারা বলেন, রোজিনা ইসলাম বাংলাদেশের একজন সাহসী এবং জনপ্রিয় সাংবাদিক, যিনি বিভিন্ন অনুসন্ধানী রিপোর্ট করে ইতোমধ্যে বাংলাদেশের গণমানুষের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন। সচিবালয়ের মতো একটি সুরক্ষিত জায়গায় একজন নারী সাংবাদিককে এভাবে ৫ ঘণ্টা বন্দি রেখে নির্যাতনের ঘটনা একটা লজ্জাজনক অধ্যায় এবং মধ্যযুগীয় বর্বরতার শামিল। এ ঘটনা স্বাধীন গণমাধ্যমের ইতিহাসে একটি কলঙ্কজনক অধ্যায়। অবিলম্বে রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তি চাই এবং দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হওয়া এই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও সচিবের পদত্যাগ দাবি করছি।

নেতৃদ্বয় বলেন, সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের সঙ্গে যে মধ্যযুগীয় বর্বর আচরণ করা হয়েছে তা ন্যাক্কারজনক। এ ঘটনায় আমরা উদ্বিগ্ন, ক্ষুব্ধ ও বিস্মিত। এটা স্বাধীন ও অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা এবং মুক্ত গণমাধ্যমের প্রতি ধারাবাহিক আক্রোশেরই প্রতিফলন।


স্বাস্থ্য বিভাগের পিয়ন থেকে শুরু করে ওপরের সবাই কোটি কোটি টাকার মালিক

যুদ্ধবিরতির জন্য ফিলিস্তিনিদের শর্ত মেনে নিতে বাধ্য হবে ইসরাইল: হামাস

রোজিনার মুক্তির দাবিতে শাহবাগ থানার সামনে সাংবাদিকদের বিক্ষোভ

আরশের ছায়াতলে আশ্রয় পাবেন যে সাত ব্যক্তি


তারা বলেন, মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করার ঘটনায় নিরপেক্ষ তদন্ত প্রয়োজন। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে জনগণের তথ্য পাওয়ার অধিকার নিশ্চিত করতে রোজিনা ইসলাম কাজ করছেন। তিনি তার প্রতিবেদনে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন দুর্নীতি ও অনিয়ম তুলে এনেছেন। এছাড়া করোনাকালীন জনগণের স্বাস্থ্য অধিকার রক্ষায় মন্ত্রণালয়ের দুর্বলতাগুলোও তার প্রতিবেদনে পরিষ্কারভাবে উঠে এসেছে। এসব প্রতিবেদন নিঃসন্দেহে স্বাস্থ্যখাতে সুশাসন ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। এমন একজন সাংবাদিককে পেশাগত কাজের সময় এভাবে আটক করা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। রোজিনাকে আটকের এ ঘটনা গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে একটি অত্যন্ত বাজে দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে, যা কোনোভাবেই প্রত্যাশিত নয়।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের মুক্তির দাবি জানাল বিএনপি

অনলাইন ডেস্ক

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের মুক্তির দাবি জানাল বিএনপি

প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে তার মুক্তির দাবি জানিয়েছে বিএনপি।

মঙ্গলবার (১৮ মে) দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম এক বিবৃতিতে এ দাবি জানান।

বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে প্রথম আলোর সিনিয়র সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে ৫ ঘণ্টা আটক রেখে পুলিশের কাছে হস্তান্তর ও তার বিরুদ্ধে জিডি করার ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়ে অবিলম্বে তার মুক্তি দাবি করেন।


যুদ্ধবিরতির জন্য ফিলিস্তিনিদের শর্ত মেনে নিতে বাধ্য হবে ইসরাইল: হামাস

রোজিনার মুক্তির দাবিতে শাহবাগ থানার সামনে সাংবাদিকদের বিক্ষোভ

আরশের ছায়াতলে আশ্রয় পাবেন যে সাত ব্যক্তি

আমলাতন্ত্রের দম্ভের হাত সাংবাদিক সমাজের গলা ধরেছে


# সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে আদালতে নেওয়া হয়েছে

রোজিনার মুক্তির দাবিতে শাহবাগ থানার সামনে সাংবাদিকদের বিক্ষোভ

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

পুলিশ কী করবে আমরা জানি: ফখরুল

অনলাইন ডেস্ক

পুলিশ কী করবে আমরা জানি: ফখরুল

করোনা মহামারীতে ঘোষিত প্রণোদনার টাকা সরকার লুটপাট করে খাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। করোনা মোকাবিলায় সরকার ব্যর্থ হয়েছে বলেও মন্তব্য তার।

তিনি বলেছেন, শুধু দুর্নীতি ও লুটপাটের জন্যই তারা আজ জনগণকে দুর্ভোগে ফেলেছে।

সোমবার ঠাকুরগাঁও কালিবাড়িস্থ নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি দাবি করেন, সরকারের করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধ করার কোনো ইচ্ছা নেই। এখানে দুটি সুবিধা পায় তারা। একটা হলো- মানুষ যদি মরে যায় মরুক আর অন্যটা হলো- সরকারি হাসপাতাল বা স্বাস্থ্যখাতে বিরাট দুর্নীতির সুযোগ সৃষ্টি করা।

মির্জা ফখরুল বলেন, সরকার যে প্রণোদনা ঘোষণা করেছে, সেই প্রণোদনার টাকা তারা লুটপাট করে খায়। আমরা প্রথম থেকে বলে আসছি- এখানে জনসাধারণকে সম্পৃক্ত করতে হবে। এখানে রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠন ও এনজিওদের সম্পৃক্ত করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, ঈদের জন্য সরকার মাত্র তিন দিন ছুটি ঘোষণা করেছে। কিন্তু মানুষ তো থেমে নেই। দুর্ভোগের মধ্যে অতিরিক্ত টাকা খরচ করে তারা বাড়িতে রওনা হয়েছে। ছুটি শেষে তাড়াহুড়ো করে ঢাকায় ফিরছে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, যাদের নিজেদের গাড়ি আছে তাদের কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়েছে সাধারণ জনগণ। সকারের ব্যর্থতার কারণেই আজকে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। সরকার নামে মাত্র লকডাউন দিয়েছে। কিন্তু এর আড়ালে তারা ক্র্যাকডাউন চালিয়েছে।

তিনি আরও দাবি করেন, ২৬ মার্চ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরকে কেন্দ্র করে সরকার নিজেরাই বিভিন্ন ঘটনা ঘটিয়ে সেটি বিরোধীদের ওপর চাপাচ্ছে। বিরোধীদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে গণগ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃতদের ঈদের মধ্যেও জামিন দেওয়া হয়নি।

এ সময় মির্জা ফখরুল বলেন, করোনা বিধিনিষেধ মানাতে পুলিশকে বিচারিক ক্ষমতা দেওয়া আরেকটা বুমেরাং। পুলিশ কী করবে আমরা জানি। মাঝখান থেকে যেটা হবে সাধারণ জনগণের হয়রানি আরও বাড়বে।

তিনি বলেন, মানুষ খেতে পায় না, অথচ তাকে আপনারা ঘরের মধ্যে বসে থাকতে বলছেন। বসে থাকবে আগে তাদের খাবারের ব্যবস্থা করে দিন। আমরা সরকারকে তাদেরকে এককালীন ৩ মাসে ১৫ হাজার করে টাকা দেওয়ার প্রস্তাবনা দিয়েছিলাম।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, বর্তমানে প্রায় ২ কোটি মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করছে। আর বিভিন্ন সেক্টরে কাজ করে সবমিলিয়ে প্রায় ৬ কোটি মানুষ কর্মহীন। এই ছয় কোটি মানুষের জন্য কিন্তু প্রণোদনা দেয়নি সরকার। প্রণোদনা গেছে গার্মেন্টস, ইন্ডাস্ট্রির মালিকদের জন্য।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

করোনা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হয়ে সেখানেও দুর্নীতি করেছে সরকার: মির্জা ফখরুল

আব্দুল লতিফ লিটু, ঠাকুরগাঁও

করোনা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হয়ে সেখানেও দুর্নীতি করেছে সরকার: মির্জা ফখরুল

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগ সরকারের করোনা নিয়ন্ত্রণে উদাসীনতা, অজ্ঞতা ও দুর্নীতির জন্য করোনা মোকাবিলাই ব্যর্থ হয়েছে। সরকার সব কিছুতেই দুর্নীতি করতে চায়। করোনা নিয়ন্ত্রণেও চরম দুর্নীতি করেছে। লকডাউনের নাম করে বিএনপির উপর দমন নিপিড়ন চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

সোমবার (১৭ মে) সকালে ঠাকুরগাঁও শহরের কালিবাড়ি নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এসব কথা বলেন তিনি।

মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, করোনা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়ে সরকার প্রমাণ করেছে এই সরকার একটি ব্যর্থ সরকার। এই সরকার দুর্নীতির জন্য, লুটপাটের জন্য জনগনকে দূর্ভোগের স্বীকার করাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, এই ঈদে লকডাউনের কারণে ৫ জন সাধারণ মানুষ ফেরিতে উঠতে গিয়ে মারা গেল। সরকার কোন পরিকল্পনা গ্রহণ করলো না কেন? সমস্যা তো হচ্ছে সাধারণ মানুষের, যাদের গাড়ি আছে তারা ঠিকই চলাচল করছে। সবসময় সরকার জনগনের প্রতি নিজেদের উদাসীনতার পরিচয় দিচ্ছে।

বিএনপি মহাসচিব অভিযোগ করে বলেন, লকডাউনের নাম করে সরকার দমন নিপিড়ন চালিয়েছে। সরকার লকডাউনের সুযোগ নিয়ে বিএনপি ও বাম দলের প্রায় শতশত নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে। সকলে একসাথে মিলে করোনা মোকাবিলা না করে সরকার দমন নিপিড়নে ব্যস্ত। সরকার একনায়কতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য এই দুর্যোগেও কোন দলের সাথে মতবিনিময় করছে না।

আরও পড়ুন

  নারদকাণ্ডে মমতার তৃণমূলের ৪ হেভিওয়েট নেতা গ্রেপ্তার

  করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি কবি জয় গোস্বামী

  ফিলিস্তিনিদের বাঁচাতে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান বাংলাদেশের

  ধ্বংসস্তূপে ওপর দাঁড়িয়ে র‍্যাপ গাইল ফিলিস্তিনি শিশু (ভিডিও)

প্রণোদনা দেয়ার নাম করে দুর্নীতি করা হয়েছে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, এই সরকার প্রণোদনা দিচ্ছে বড় বড় গার্মেন্টস মালিকদের। সাধারণ মানুষ বা বিদেশি রেমিটেন্স যারা নিয়ে আসে তাদের কোন প্রকার প্রণোদনা সরকার দেয় নাই। আর আমাদের কথা তো কোনদিন সরকার শুনেই নাই। পরিকল্পনা আর অব্যবস্থাপনার কারণে এই সরকার করোনা নিয়ন্ত্রণে ও জনগনের সমস্যা নিরসনে ব্যর্থ।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান, সহ-সভাপতি আল মামুন আলম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পয়গাম আলী, আনসারুল হক, অর্থ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম শরিফসহ বিএনপির বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর

ঈদের দিনে ইসরায়েলের হামলা জঘন্যতম অপরাধ: ফখরুল

অনলাইন ডেস্ক

ঈদের দিনে ইসরায়েলের হামলা জঘন্যতম অপরাধ: ফখরুল

মুসলমানদের প্রথম কিবলা আল আকসা মসজিদসহ গাজা এবং অন্যান্য এলাকায় ইসরায়েলি বাহিনীর ভয়াবহ ব্যাপক বোমা হামলা মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন বলে মন্তব্য করেছে বিএনপি। এ ব্যাপারে দলটির পক্ষ থেকে বিবৃতিও দেওয়া হয়েছে।

রোববার গণমাধ্যমে পাঠানো ওই বিবৃতিতে দেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, বিএনপির পক্ষ থেকে আমি মুসলমানদের প্রথম কিবলা আল আকসা মসজিদসহ গাজা এবং অন্যান্য এলাকায় ইসরায়েলি বাহিনীর ভয়াবহ ব্যাপক বোমা হামলা ও নিষ্ঠুর হত্যাযজ্ঞের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে নিহতদের পরিবার ও পরিজনদের প্রতি গভীর শোক ও সমবেদনা জ্ঞাপন করছি। ইসরায়েলের এই বর্বরোচিত হামলা বিশ্বের কোটি কোটি মুসলমানের অনুভূতিতে চরম আঘাত হেনেছে। শুধু মুসলমান নয়, মানবিক বিবেকসম্পন্ন যেকোনো ধর্মের মানুষের মনে এই অমানবিক হামলা তাদের হৃদয়কে নাড়া দিয়েছে।

তিনি বলেন, এই হামলা মানবাধিকারের চরম লঙ্ঘন। ফিলিস্তিনিদের এই দুঃসময়ে তাদের বেদনার্ত জনগণের সাথে বাংলাদেশের জনগণ ও বিএনপি সমব্যথী ও ক্ষুব্ধ।

ফখরুল বলেন, বিশ্বব্যাপী চলমান মহামারি করোনার এই কঠিন সময়ে পবিত্র রমজানে শবে কদর, জুমাতুল বিদা ও পবিত্র ঈদুল ফিতরের দিনসহ এখনো ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরায়েলের ন্যক্কারজনক ও নৃশংস হামলা মানবতার বিরুদ্ধে এক জঘন্যতম অপরাধ। এই ঘটনা বিশ্বব্যাপী চলমান বর্বরতার আরেকটি জঘন্যতম উদাহরণ হয়ে থাকবে।

ইসরায়েলের সর্বগ্রাসী এই হামলায় ফিলিস্তিন আজ এক মৃত্যু উপত্যকায় পরিণত হয়েছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, শরণার্থীশিবির, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, আল জাজিরা, এপিসহ বিভিন্ন গণমাধ্যম কার্যালয়-কোন কিছুই বাদ যাচ্ছে না এই সর্বগ্রাসী হামলার ছোবল থেকে।

ফখরুল বলেন, ইসরায়েলি বাহিনীর এই অমানবিক হামলা ও হত্যাযজ্ঞ ফিলিস্তিনিদের অধিকার ও মধ্যপ্রাচ্যের শান্তি প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করবে। আমরা মনে করি, একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার অধিকার ফিলিস্তিনিদের ন্যায্য ও জন্মগত অধিকার। তাদের এই অধিকার হরণের ধৃষ্টতা কোনোভাবেই সহ্য করবে না বিবেকবান মানুষ ও বিশ্ব মুসলিম সম্প্রদায়।

তিনি ফিলিস্তিনিদের স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় বাস্তবসম্মত স্থায়ী পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য বিএনপির পক্ষ থেকে আমরা জাতিসংঘ, ওআইসি, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি জোর আহ্বান জানান।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর