দুই দফা বৃষ্টিতে নিভল সুন্দরবনের আগুন

শেখ আহসানুল করিম, বাগেরহাট

দুই দফা বৃষ্টিতে নিভল সুন্দরবনের আগুন

সুন্দরবনের শরণখোলা রেঞ্জের দাসের ভারনী এলাকার বনে লাগা আগুন প্রায় ৩০ ঘণ্টা পর নিয়ন্ত্রণে এসেছে। তবে, দুই দফা বৃষ্টিতে হয়নি বড় ধরনের কোনো ক্ষয়ক্ষতির। সোমবার রাতে ও মঙ্গলবার বিকেলে দুদফা বৃষ্টির কারণে ছড়িয়ে পড়া আগুনের তেজ কমে আসলে ফায়ার সার্ভিসের ৩টি ইউনিট ও বন বিভাগ ও সুন্দরবন সুরক্ষায় ভিটিআরসি টিমের সদস্যরা মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪ টার দিকে আগুন নেভাতে সক্ষম হয়েছে।

স্থানটি দুর্গম হওয়ায় দ্বিতীয় দিনে এসেও আগুন নেভাবে বেগ পেতে হয়েছে বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস। আগুন যাবে বনের মধ্যে ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য কাটা হয় ফায়ার লাইন। আগুনে বিক্ষিপ্ত ভাবে প্রায় ১০ একর গাছপালা ও লতাগুল্ম পুড়েগেছে বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস।

তবে, সুন্দরবন বিভাগ বলছে আগুন লাগার কারণ অনুসন্ধানে গঠিত ৩ সদস্যে কাজ শুরু করেছে। ওই কমিটি ৭ কার্যদিবসের মধ্যে তাদের তদন্ত রিপোর্ট জমা দিলেই আগুন লাগার কারণ ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানা সম্ভব হবে। প্রাথমিক ভাবে ধারণা করছে জেলে, বাওয়ালী ও মৌয়ালদের ফেলে দেওয়া আগুন থেকে এই আগুনের সূত্রপাত হয়ে থাকতে পারে। আগের আগুনগুলোর মতো এই আগুনটিও নাশকতার কি না সে বিষয়টিও বন বিভাগ ক্ষতিয়ে দেখছে। লোকালয় থেকে প্রায় ৩ কিলোমিটার গহীন বনের দাসের ভারানী এলাকায় সোমবার সকাল ১১টায় এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

এদিকে সুন্দরবন বিভাগের তথ্য মতে, সুন্দরবনে ১৫ বছরে ২৮ বার আগুন লেগে পুড়ে যায় প্রায় ৮০ একর বনভূমি। ২০১৭ সালের ২৬ মে পূর্ব সুন্দরবনে চাঁদপাই রেঞ্জের ধানসাগর স্টেশনের নাংলী ফরেস্ট ক্যাম্পের আওতাধীন আবদুল্লাহর ছিলায় বড় ধরনের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ওই আগুনে প্রায় পাঁচ একর বনভূমির ছোট গাছপালা, লতাগুল্ম পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

নাটোরের সিংড়ায় ৪ লাখ টাকা দামের একজোড়া মহিষ ছিনতাই

পায়েল ভোটে হেরে বললেন, এটা আমার শেষ নয়, শুরু

খালেদা জিয়া স্বাভাবিক শ্বাস প্রশ্বাস নিচ্ছেন: চিকিৎসক

হেফাজতের কেন্দ্রীয় নেতাসহ দুইজনের রিমান্ড

বাগেরহাট ফায়ার সার্ভিসের সহকারী উপপরিচালক মো. সরোয়ার হোসেন জানান, সোমবার সকাল ১১ টায় পূর্ব সুন্দরবন বিভাগ থেকে ফায়ার সার্ভিসকে জানানো হয় শরণখোলা রেঞ্জের দাশের ভারনী টহল ফাঁড়ি এলাকার বনে আগুন লেগেছে। প্রথমে শরণখোলা ও মোরেলগঞ্জ ও বিকেলে বাগেরহাটের ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিটসহ বন বিভাগ ও সুন্দরবন সুরক্ষায় ভিটিআরসি টিমের সদস্যরা গতকাল সোমবার সন্ধ্যা ৭ টা পর্যন্ত দূর্গম বনের ভেতর ফায়ার সার্ভিসের পানির পাইপ টেনেও ঘটনাস্থলে পৌছাতে পারেনি। এরপর রাতের কারনে আগুন নেভানোর পাইপ টানার কাজ বন্ধ করে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯ টায় লোকালয় থেকে ঘটনাস্থলে পৌঁছান ফায়ার সার্ভিসের কর্মীসহ অন্যরা। আগুন লাগার যায়গাটা বেশ দূর্গম বনের মধ্যে হওয়ায় পানি বেশ খানিকা দূরে থাকায় আমাদের কর্মীরা পানির পাইপ টানার কাজ শেষ করে আগুন নেভানো শুরু করেছে। প্রায় পাঁচ একর এলাকায় আগুন ছড়িয়ে পড়ে। তবে সোমবার রাতে ও মঙ্গলবার বিকেলে দুদফা বৃষ্টির কারনে ছড়িয়ে পড়া আগুনের তেজ কমে আসলে আগুন প্রায় ৩০ ঘন্টা পর নিয়ন্ত্রণে আসেছে। দুই দফা বৃষ্টি এবার আগুনে বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতির হাত থেকে সুন্দরবনকে রক্ষা করেছে।

সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মুহাম্মদ বেলায়েত হোসেন বলেন, সুন্দরবনের কতটুকু এলাকায় আগুনে গাছপালা পুড়ছে তা এখনই বলা যাচ্ছে না। তদন্ত কমিটি ক্ষয়ক্ষতির হিসাব নিরূপণ ও আগুন লাগার সঠিক কারণ জানা সম্ভব হবে। তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি ইতিমধ্যেই কাজ শুরু করেছে। কমিটিকে আগামী ৭ কার্যদিবসের মধ্যে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

টাঙ্গাইলে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক

টাঙ্গাইলে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় তিনজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও অনেকে। 

বিস্তারিত আসছে...

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

চার ঘণ্টায় গেল ১৮ প্রাণ

অনলাইন ডেস্ক

চার ঘণ্টায় গেল ১৮ প্রাণ

দেশের ছয় জেলায় মাত্র চার ঘণ্টার মধ্যে ১৮ জনের প্রাণ গেছে বজ্রপাতে। এর মধ্যে নেত্রকোনায় নয়জন, ফরিদপুরে চারজন, মানিকগঞ্জে দুজন এবং সুনামগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ ও ময়মনসিংহে একজন করে মারা গেছেন। মঙ্গলবার (১৮ মে) বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এসব ঘটনা ঘটেছে। আমাদের প্রতিনিধিরা জানায়, মারা যাওয়া ব্যক্তিদের কেউ কৃষিকাজে, কেউবা মাছ ধরার কাজে থাকা অবস্থায় বজ্রপাতের এ ঘটনা ঘটে।

প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর তুলে ধরা হলো-

নেত্রকোনা : নেত্রকোনার চার উপজেলায় হাওরে কাজ করতে গিয়ে বজ্রপাতে ৯ জন নিহত হয়েছেন। এদের মধ্যে কেন্দুয়া উপজেলায় দুজন, মদনে দুজন, খালিয়াজুরীতে চারজন কৃষক ও পূর্বধলায় এক শিশু রয়েছে।

এছাড়া বজ্রপাতে খালিয়াজুরীতে পাঁচজন ও মদনে চারজন আহত হয়েছেন। মঙ্গলবার বিকেল পৌনে ৩টায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, কেন্দুয়ার পাইকুড়া ইউনিয়নের বৈরাটী গ্রামের মো. বায়েজিদ মিয়া (৪২) ও কান্দিউড়া ইউনিয়নের কুণ্ডলী গ্রামের মো. ফজলুর রহমান (৫৫), খালিয়াজুরীর মেন্দিপুর ইউনিয়নের জগন্নাথপুর গ্রামের খেলু ফকিরের ছেলে কৃষক অছেক মিয়া (৩২) একই গ্রামের আমির সরকারের ছেলে কৃষক বিপুল মিয়া (২৮), বাতুয়াইল গ্রামের মঞ্জুরুল হকের ছেলে মনির হোসেন, মদন উপজেলার পশ্চিম ফতেপুর গ্রামের মৃত আব্দুল কাদেরের ছেলে হাফেজ মো. শরীফ (১৮) ও একই গ্রামের মৃত আব্দুল মন্নাফের ছেলে মাওলানা আতাবুর রহমান (১৯), পূর্বধলার দলামূলগাঁও ইউনিয়নের টাকলি গ্রামের ইছাক মিয়ার ছেলে জুনাইদ (৮) ও বাজিতপুর উপজেলার সুতারপাড়া দীঘিরপাড় গ্রামের শিশু মিয়ার ছেলে নৌ শ্রমিক বাছন মিয়া (২২)।

মানিকগঞ্জ : মঙ্গলবার বিকেলে জেলার সদর উপজেলার গিলন্ডে ঘুড়ি উড়াতে গিয়ে এক স্কুলছাত্র ও পৌরসভার পৌলী এলাকায় ধান কাটতে গিয়ে এক শ্রমিক বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন আরও দুজন।

নিহতরা হলেন-সদর উপজেলার গিলন্ড গ্রামের মাসুদ মোল্লার ছেলে দশম শ্রেণির ছাত্র আসিফ (১৫) এবং ঘিওর উপজেলার বড়টিয়া গ্রামের বাসিন্দা আজমত আলী (৫০)। আহতদের মধ্যে অনিক নামে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

মানিকগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

ফরিদপুর : জেলায় বজ্রপাতে নারীসহ চারজন নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার বিকেল ৪টা ও সাড়ে ৫টার দিকে ফরিদপুর পৌরসভার পশ্চিম গঙ্গাবর্দী, পাঁচ নম্বর ওয়ার্ডের মোল্লা ডাঙ্গী মহল্লায়, সদর উপজেলার নর্থ চ্যানেল ও মধুখালী উপজেলার চাঁদপুরে এ ঘটনা ঘটে।

ধান নিয়ে বাড়িতে ফেরার সময় বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ফরিদপুর পৌরসভার ১১ নম্বর ওয়ার্ডের মোল্লাডাঙ্গী মহল্লায় বজ্রপাতে নিহত হন আনোয়ারা বেগম (৪৫) নামে এক নারী। আনোয়ারা বেগম মোল্লা ডাঙ্গী গ্রামের বাসিন্দা কৃষক কাবুল শেখের স্ত্রী।

এদিকে, বিকেল ৪টার দিকে ধান নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে ফরিদপুর পৌরসভার পাঁচ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম গঙ্গাবর্দী মহল্লায় বজ্রপাতে কৃষক কবির মোল্লা (৪৮) নিহত হয়েছেন।

এছাড়া বিকেলে বজ্রপাতে সদর উপজেলার নথ চ্যানেল ইউনিয়নে মারা যান দুলাল খান (৫৮) নামের এক কৃষক।

মধুখালী উপজেলায় বৃষ্টির মধ্যে পাটক্ষেতে কাজ করার সময় বজ্রপাতে কবির শেখ (৪১) নামের এক কৃষক নিহত হয়েছেন। বিকেল সাড়ে ৫টায় এ ঘটনা ঘটে। তিনি উপজেলার কামালদিয়া ইউনিয়নের চানপুর গ্রামের নবিন শেখের ছেলে।

ময়মনসিংহ : তারাকান্দা উপজেলায় ফুটবল খেলার সময় বজ্রপাতে আতিকুল ইসলাম নামের এক যুবক নিহত হয়েছেন। এসময় আহত হয়েছেন আরও একজন। দুপুর ২টায় উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের খলিশাজান গ্রামে খোলা মাঠে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত আজিজুল উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের খলিশাজান গ্রামের আজমত আলীর ছেলে।

সুনামগঞ্জ: দোয়ারাবাজা উপজেলায় বজ্রপাতে আবু তাহের (৩৫) নামের এক যুবক নিহত হয়েছেন। বিকেলে উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত আবু তাহের দোয়ারাবাজার সদর ইউনিয়নের তেগাঙ্গা গ্রামের তাজউদ্দিনের ছেলে।

কিশোরগঞ্জ : নিকলীতে বজ্রপাতে মো. আরিফুল ইসলাম (১৭) নামের এক কিশোর গরু আনতে গিয়ে বজ্রপাতে নিহত হয়েছে। দুপুরে উপজেলার গুরুই ইউনিয়নের পার্শ্ববর্তী বিয়াতিরচর হাওরে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত আরিফুল গুরুই ইউনিয়নের বেতি নোওয়াগাঁও এলাকার মিয়া চাঁনের ছেলে।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

নেত্রকোনার তিন উপজেলায় বজ্রপাতে ঝরল ৭ প্রাণ

অনলাইন ডেস্ক

নেত্রকোনার তিন উপজেলায় বজ্রপাতে ঝরল ৭ প্রাণ

নেত্রকোনার কেন্দুয়া, খালিয়াজুরি ও মদন উপজেলায় ঝড়–বৃষ্টির সময় বজ্রপাতে দুই কৃষকসহ সাতজন নিহত হয়েছেন। আজ মঙ্গলবার এ ঘটনা ঘটে।

মৃত ব্যক্তিরা হলেন- কেন্দুয়ার পাইকুড়া ইউনিয়নের বৈরাটী গ্রামের মো. বায়েজিদ মিয়া (৪২) ও কান্দিউড়া ইউনিয়নের কুণ্ডলী গ্রামের মো. ফজলুর রহমান (৫৫), খালিয়াজুরির মেন্দিপুর ইউনিয়নের জগন্নাথপুর গ্রামের আছেক মিয়া (৩২), বিপুল মিয়া (২৮) ও গাজিপুর ইউনিয়নের বাতুয়াল গ্রামের এক যুবক (৩৫)। এ প্রতিবেদন লেখা পযন্ত তাঁর নাম জানা যায়নি। আর মদনের পশ্চিম ফতেপুর গ্রামের মৃত মো. আবদুর মন্নাফের ছেলে মো. আতাউর রহমান (২২) ও মৃত আবদুল কাদিরের ছেলে মো. শরিফ মিয়া (১৭)।

এলাকাবাসী ও প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, আজ দুপুরে কৃষক বায়েজিদ মিয়া ও ফজলুর রহমান তাঁদের নিজ নিজ বাড়ির সামনে সবজিখেত ও ধানখেতে কাজ করছিলেন। এ সময় হঠাৎ মুষলধারে বৃষ্টি শুরু হয়। একপর্যায়ে বজ্রপাতে তাঁদের শরীর ঝলসে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন উদ্ধার করে কেন্দুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাঁদের মৃত ঘোষণা করেন। একই সময় খালিয়াজুরির বাতুয়াল এলাকায় সাত যুবক বৃষ্টির মধ্যে হাওরে মাছ ধরছিলেন। এ সময় বজ্রপাতে তাঁরা আহত হন। পরে স্থানীয় লোকজন পাশের মদন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তিনজনকে মৃত ঘোষণা করেন। আর চার যুবককে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। বেলা সোয়া তিনটার দিকে মদনের পশ্চিম ফতেপুর গ্রামের সামনে মাঠে বৃষ্টির মধ্যে কয়েকজন কিশোর ও যুবক ফুটবল খেলছিলেন। হঠাৎ বজ্রপাতে দুজন মারা যান। আর চারজন আহত হন। আহত ব্যক্তিদের মদন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসক কাজী মো. আবদুর রহমান বলেন, ‘স্বজনেরা নিহত ব্যক্তিদের মরদেহ বাড়িতে নিয়ে গেছেন। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দাফনের জন্য প্রতি পরিবারকে নগদ ১০ হাজার টাকা প্রদান করা হবে।’

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

যমুনায় ডুবে গেল তিন কলেজছাত্রীর প্রাণ

অনলাইন ডেস্ক

যমুনায় ডুবে গেল তিন কলেজছাত্রীর প্রাণ

গাইবান্ধার সাঘাটায় যমুনা নদীতে ডুবে দুই বোনসহ তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। আজ মঙ্গলবার এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা কলেজছাত্রী বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার (১৮ মে) বিকেলে এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছে সাঘাটার ফায়ার সার্ভিস।

সাঘাটার ফায়ার সার্ভিস কর্মী জানান, বিকেলে সাঘাটা থানার সামনে চকপাড়া গ্রামে যমুনা নদী থেকে তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

নিহতরা হলেন- বিথি, রিতু, ও ফাতেমা। বিথি ও রিতু আপন দুই বোন এবং তাদের মামাতো বোন ফাতেমা রংপুরের বাবুপাড়া থেকে সাঘাটার কচুয়ায় আত্মীয়ের বাড়ি বেড়াতে আসে। তারা তিনজনই কলেজছাত্রী। তারা শখ করে যমুনা নদীতে গোসল করতে নেমে নিখোঁজ হয়েছেন।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

সন্তানকে বাঁচিয়ে যেভাবে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হলেন মা

নাসিম উদ্দীন নাসিম, নাটোর

সন্তানকে বাঁচিয়ে যেভাবে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হলেন মা

নাটোরের বড়াইগ্রামে সড়ক দুর্ঘটনায় নুরজাহান (৩২) নামের এক গৃহবধূ নিহত হয়েছেন। তিনি উপজেলার গড়মাটি মুচিপাড়া গ্রামের মিলন উদ্দিনের স্ত্রী।

আজ মঙ্গলবার (১৮ মে) সকাল ৭টার দিকে নাটোর-পাবনামহাসড়কে উপজেলার গড়মাটি মুচিপাড়া এলাকায় পাবনাগামী আলুবোঝাই ট্রাকের (খুলনা মেট্রো ট-১১-১৬৩২) চাকায় পিষ্ট হয়ে তিনি ঘটনাস্থলেই নিহত হন।

নিহতের স্বামী মিলনের চোখের সামনেই এ দুর্ঘটনা ঘটে। তিনি বলেন,‘সকালে স্ত্রী ও দুই সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে মহাসড়কের পাশে ক্ষেত থেকে সবজি তোলার জন্য যাচ্ছিলাম। সে সময় আমি ও ছেলে মোহিন (১৪) মহাসড়ক পার হয়ে গেলেও স্ত্রী নুরজাহান ও মেয়ে জান্নাতুল (৪) পার না হয়ে মহাসড়কের পাশে কাঁচামাটিতে পারাপারের অপেক্ষায় দাঁড়িয়েছিল। হঠাৎ ট্রাকটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে স্ত্রী ও মেয়ে জান্নাতুলের দিকে যাচ্ছিল।

ওই সময় মৃত্যু নিশ্চিত ধারণা করে স্ত্রী নুরজাহান মেয়ে জান্নাতুলের হাত ধরে দূরে ফেলে দেয় এবং সঙ্গে সঙ্গে সে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়।

এ ঘটনায় নাটোর-পাবনা মহাসড়কে প্রায় দুই ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ থাকে।

বনপাড়া হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খন্দকার শফিকুল ইসলাম জানান, নুরজাহান নামের এক নারী ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে মারা গেছেন। ট্রাকটি আটক করা হয়েছে।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর