মাস্ক পরাতে ৮ নির্দেশনা

অনলাইন ডেস্ক

মাস্ক পরাতে ৮ নির্দেশনা

করোনা মহামারিকালে ঘরের বাইরে মাস্ক পরার বিষয়ে আটটি নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। বৃহস্পতিবার (৬ মে) সরকারি তথ্য বিবরণীতে এ নির্দেশনা দেয়া হয়।

এতে বলা হয়, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে ঘরের বাইরে মাস্ক ব্যবহারের ক্ষেত্রে সরকার কঠোর অবস্থানে রয়েছে। এক্ষেত্রে ইতোমধ্যে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ শুরু করেছে।

মাস্ক ব্যবহারের ক্ষেত্রে নির্দেশনাগুলো অনুসরণ করার জন্য সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে বলে তথ্য বিবরণীতে উল্লেখ করা হয়েছে। এতে বলা হয়, করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে ঘরের বাইরে মাস্ক ব্যবহারের ক্ষেত্রে সরকার কঠোর অবস্থানে রয়েছে। 

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, মাস্ক হচ্ছে অন্যতম মাধ্যম বা উপকরণ, যেটি করোনার সংক্রমণ ঝুঁকি হ্রাস করতে পারে। কোনো জরুরি কাজে কেউ ঘরের বাইরে গেলে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে মাস্ক ব্যবহারের জন্য সরকারের নির্দেশনা সবাইকে বাধ্যতামূলকভাবে মেনে চলতে হবে।

মাস্ক পরার বিষয়ে সরকারের ৮ নির্দেশনা

> কয়েকস্তরবিশিষ্ট সার্জিক্যাল মাস্ক ব্যবহার করা সবচেয়ে ভালো, যা এককালীন ব্যবহার করতে হবে।

> অনেকে মাস্ক পরার সময় নাক খোলা রেখে শুধু মুখ ঢেকে রাখে, যা সঠিক নয়। বরং উপরের মেটাল অংশটাকে নাকের সঙ্গে চেপে ও নিচের অংশটাকে থুঁতনির নিচে নিয়ে উভয়ই ঢেকে রাখতে হবে। সম্পূর্ণ মুখমণ্ডল ঢেকে রেখে মাস্ক পরতে হবে।

> অনেকে মাস্ক থুঁতনি পর্যন্ত খুলে রেখে কথাবার্তা বলেন। এটাও ঠিক নয়। এতে লেগে থাকা জীবাণু সহজেই ছড়িয়ে পড়ে।

> সার্জিক্যাল মাস্ক ঘরে রেখে দিয়ে দীর্ঘদিন ব্যবহার করা উচিত নয়। একটি মাস্ক সর্বোচ্চ একদিন ব্যবহার করে সেটাকে ধ্বংস করে দিতে হবে।

> যেসব স্থানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা মুশকিল, যেমন- গণপরিবহন ও বাজার বা দোকানপাট, সেসব জায়গায় মাস্ক পরতেই হবে। পাশাপাশি সামাজিক দূরত্ব বজায় ও হাত জীবাণুমুক্ত রাখতে হবে।

> সাধারণ কাপড়ের মাস্ক ব্যবহারের পর অবশ্যই পরিষ্কার করতে হবে। অপরিষ্কার মাস্ক পরলে রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। ব্যবহার করা মাস্ক জীবাণুমুক্ত করতে পরামর্শ দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। মাস্ক সাবান পানিতে ভিজিয়ে ধুয়ে রোদে শুকিয়ে জীবাণুমুক্ত করতে হবে।

> ভেজা মাস্ক পরিধান উচিত নয়। এতে সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে।

> বাইরে গেলে দুটি মাস্ক ব্যাগে রাখা দরকার। মুখে বাঁধা মাস্ক কোনো কারণে নষ্ট হলে বা ভিজে গেলে অন্যটি ব্যবহার করতে হবে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

ফোন করলে ১০ মিনিটেই বিনামূল্যে অক্সিজেন দেবে পুলিশ

নাসিম উদ্দীন নাসিম, নাটোর

ফোন করলে ১০ মিনিটেই বিনামূল্যে অক্সিজেন দেবে পুলিশ

ফোন করলেই ১০ মিনিটে মধ্যে বিনামূল্যে অক্সিজেন পৌঁছে দেবে পুলিশ।

বিস্তারিত আসছে...

news24bd.tv / তৌহিদ

পরবর্তী খবর

তদন্তের প্রয়োজনেই হুইপ সামশুলসহ ৬ জনের বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা: দুদক

অনলাইন ডেস্ক

তদন্তের প্রয়োজনেই হুইপ সামশুলসহ ৬ জনের বিদেশযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা: দুদক

দুর্নীতির অভিযোগের তদন্তের প্রয়োজনে চট্টগ্রামের পটিয়া থেকে নির্বাচিত এমপি ও জাতীয় সংসদের হুইপ সামশুল হক চৌধুরী, ভোলার এমপি নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন ও সুনামগঞ্জের এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতনসহ ছয়জনের বিদেশ যাত্রায় নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সচিব মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার।

তিনি বলেন, নিষেধাজ্ঞা আগেই ছিল, গতকাল আদালত অনুমোদন দিয়েছেন।

মঙ্গলবার (২২ জুন) সেগুনবাগিচায় দুদক কার্যালয়ের সামনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন দুদক সচিব।

মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার জানান, একটি রিটের প্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালত একটি আদেশ দিয়েছিলেন। দুদক বিদেশযাত্রায় কোনো লোককে রহিত করতে পারবেন না কোর্টের অনুমোদন ছাড়া। পরবর্তীতে আমরা আরেকটি আবেদনের প্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালত সিদ্ধান্ত দিয়েছেন, যেকোনো তদন্ত বা যেকোনো পর্যায়ে যদি প্রয়োজন হয় কাউকে বিদেশযাত্রায় রহিতকরণ করতে দুদক কার্যক্রমের স্বার্থে দুদক সেটা করতে পারবে।

তবে সেটা করার পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে আদালত থেকে অনুমোদন করতে হবে। কী কারণে বিদেশ যাত্রায় রহিতকরণ, কেন করা হলো, কেন পাসপোর্ট জব্দ করা হলো-এই তিন কারণ উল্লেখ করে আদালতকে জানালে আদালত অনুমোদন দেবেন বলে তিনি জানান।

দুর্নীতির এবং অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ তদন্তের প্রয়োজনে চট্টগ্রামের পটিয়া থেকে নির্বাচিত এমপি ও জাতীয় সংসদের হুইপ সামশুল হক চৌধুরী, ভোলার এমপি নূরুন্নবী চৌধুরী শাওন ও সুনামগঞ্জের এমপি মোয়াজ্জেম হোসেন রতনসহ ছয়জনের বিদেশযাত্রায় সোমবার (২১ জুন) নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয় বলে জানান দুদক সচিব।

বিদেশযাত্রা নিষেধাজ্ঞা দেওয়া অন্য তিনজন হলেন-গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম প্রধান সাজ্জাদুল ইসলাম, গণপূর্ত অধিদপ্তরের সাবেক অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (বর্তমানে অবসরপ্রাপ্ত) মো. আব্দুল হাই এবং ঢাকার ওয়ান্ডারার্স ক্লাবের কর্মচারী আবুল কালাম আজাদ।

দুদকের আগের বিদেশ গমনের নিষেধাজ্ঞার চিঠিতে হুইপ সামশুল হকসহ ২২ জনের নাম ছিল। সেখানেও ছিল সংসদ সদস্য শাওন, প্রকৌশলী আব্দুল হাই ও ওয়ান্ডারার্স ক্লাবের আজাদের নাম। অনুসন্ধান চলাকালে এই ব্যক্তিরা বিদেশে পালিয়ে যেতে পারেন বলে গত ৭ জুন নিষেধাজ্ঞা জারির জন্য আদালতে আবেদন করেন দুদকের অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা। এর পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ ও মহানগর সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতের হাকিম কে এম ইমরুল কায়েশ এই ছয়জনের বিদেশ গমনে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন।

হুইপসহ ৬ জনের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

এবার নগরবাসীকে জলজট সমস্যায় ভুগতে হচ্ছেনা : মেয়র আতিকুল

অনলাইন ডেস্ক

এবার নগরবাসীকে জলজট সমস্যায় ভুগতে হচ্ছেনা : মেয়র আতিকুল

সকলের আন্তরিক প্রচেষ্টার ফলেই প্রবল বৃষ্টিপাতেও জলজটের ভোগান্তি থেকে নগরবাসীকে মুক্ত রাখা সম্ভব হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন(ডিএনসিসি) মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম।

মঙ্গলবার ২২শে জুন দিনভর প্রবল বৃষ্টিপাতে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন এলাকার সার্বিক অবস্থা সম্পর্কে খোঁজখবর নিতে গিয়ে ডিএনসিসি মেয়র একথা বলেন।

তিনি বলেন, অন্যান্য বছর সামান্য বৃষ্টিতেই ডিএনসিসির বিভিন্ন এলাকায় রাস্তা-ঘাট ডুবে যেতো, জলজটে নগরবাসীকে অনেক ভোগান্তি পোহাতে হতো। কিন্তু এবার রেকর্ড পরিমাণ বৃষ্টিতেও নগরবাসীকে জলজট সমস্যায় ভুগতে হচ্ছেনা।

মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, আজ ২৫ মিলিমিটার পরিমাণ বৃষ্টিপাত হলেও নৌবাহিনী সদর দপ্তর প্রধান সড়ক, গলফ হাইট প্রধান সড়ক, সেতু ভবন প্রধান সড়ক, নাখাল পাড়া, কালা চাঁদপুর, বারিধারা, বেগম রোকেয়া সরণি, কচুক্ষেত, আনসার ক্যাম্প-দারুস সালাম রোড, মগবাজার, বেপারি পাড়া, উত্তরা ৪ নম্বর সেক্টরসহ ডিএনসিসির প্রায় সকল এলাকাই জলজট মুক্ত ছিল।

ডিএনসিসি মেয়র বলেন, তিনি কথায় নয় কাজে বিশ্বাসী বলেই পহেলা জুন ঢাকায় দীর্ঘ সময় ধরে রেকর্ড ৮৫ মিলিমিটার পরিমাণ বৃষ্টিপাত হলেও দ্রুততম সময়ের মধ্যেই নগরবাসীকে জলজট থেকে মুক্ত করা সম্ভব হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, গত ১৬ই জুন মিরপুর কাজীপাড়া ও শেওড়াপাড়া এলাকায় সড়কসমূহ পরিদর্শনকালে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষকে মেট্রোরেল সংলগ্ন রাস্তা ও ড্রেন নিয়মিত পরিষ্কার করার পাশাপাশি সঠিকভাবে কাজ করার জন্য প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছিল বলেই আজ দিনভর বৃষ্টিপাতের পরও সংশ্লিষ্ট এলাকাবাসীকে জলজটের ভোগান্তি পোহাতে হয়নি।

আতিকুল ইসলাম বলেন, নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসন এবং দূষণ নিয়ন্ত্রণে স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা নিয়ে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন কাজ করে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে বিভিন্ন জায়গায় খাল উদ্ধার ও পরিস্কার কার্যক্রম শুরু হয়েছে, জনগণের সহায়তায় তা অব্যাহত থাকবে।

ডিএনসিসি মেয়র বলেন, একটি সুস্থ, সুন্দর নগরী গড়ে তোলার জন্য সকলকে দায়িত্ববান হতে হবে, নিজ নিজ অবস্থানে থেকে জনকল্যাণে আন্তরিকভাবে কাজ করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ঢাকাকে দখল, দূষণ ও দুষ্ট লোকের কবল থেকে মুক্ত করে সবার বাসযোগ্য একটি সুস্থ, সচল ও আধুনিক ঢাকায় রুপান্তরিত করতে হবে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

দক্ষিণ বিশিউড়া ও হালইসার গ্রামকে ‘মৎস্য গ্রাম’ ঘোষণা

অনলাইন ডেস্ক

দক্ষিণ বিশিউড়া ও হালইসার গ্রামকে ‘মৎস্য গ্রাম’ ঘোষণা

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে মুজিববর্ষ উদযাপন উপলক্ষ্যে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় গৃহীত কার্যক্রমের আওতায় নেত্রকোণা জেলার সদর উপজেলার ‘দক্ষিণ বিশিউড়া’ ও শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলার ‘হালইসার’ গ্রামকে ‘ফিশার ভিলেজ’ বা ‘মৎস্য গ্রাম’ ঘোষণা করা হয়েছে।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় সোমবার (২১ জুন) এ ঘোষণা সংক্রান্ত পত্র জারি করেছে মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন মৎস্য অধিদপ্তর। 

মঙ্গলবার মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা ইফতেখার হোসেন এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানান।
 
প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বর্তমান সরকারের বিশেষ কর্মসূচি ‘আমার গ্রাম, আমার শহর’ বাস্তবায়নে মৎস্য অধিদপ্তরের ‘মৎস্য গ্রাম’ কার্যক্রম মূলত সমৃদ্ধ গ্রাম গড়ে তোলার উদ্যোগ। 

এ কার্যক্রমের আওতায় গ্রামাঞ্চলে অবকাঠামো উন্নয়ন, মৎস্য চাষ, কৃষিনির্ভর শিল্প, কৃষি যান্ত্রিকীকরণ, কৃষির বহুমুখীকরণ ও বাজার ব্যবস্থাপনাসহ নানারকম সুবিধা সম্প্রসারণের মাধ্যমে স্থানীয়ভাবে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি ও জীবনমান উন্নয়নের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। 

মৎস্য অধিদপ্তর এ গ্রাম দুটিতে ব্যাপক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো-গ্রামের সকল পুকুর ও দিঘীতে বিজ্ঞানসম্মত মাছ চাষ কার্যক্রম বাস্তবায়ন ও পুষ্টির চাহিদা পূরণে ব্যবস্থা গ্রহণ, মাছ চাষিদের দল গঠন, প্রশিক্ষণ ও প্যাকেজভিত্তিক পুকুরে মাছ চাষ প্রদর্শনী, জেলেদের দল গঠন, প্রশিক্ষণ, বিকল্প কর্মসংস্থান ও ঋণ সহায়তা প্রদান, উন্মুক্ত জলাশয় তথা বিল ও প্লাবনভূমিতে সমাজভিত্তিক মৎস্য ব্যবস্থাপনা দল গঠন, বিল নার্সারি স্থাপন ও পোনা অবমুক্তকরণ, জলাশয় সংস্কার ও মাছের অভয়াশ্রম স্থাপন এবং কমিউনিটি সঞ্চয় দল গঠনের মাধ্যমে নারীর ক্ষমতায়ন। 

এছাড়া গ্রাম দুটিতে সরকারের অন্যান্য দপ্তরের সহায়তায় যে কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে তা হলো, গভীর নলকূপ ও স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা স্থাপন, যানবাহন চলাচল উপযোগী রাস্তা নির্মাণ, বৃক্ষরোপণ, সুফলভোগীদের হাঁস-মুরগি ও গবাদিপশুর চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ এবং গ্রামের অধিবাসীদের সন্তানদের শতভাগ শিক্ষা কর্মসূচি নিশ্চিতকরণ ও অন্যান্য শিক্ষা কার্যক্রম গ্রহণ। 

আরও পড়ুন:


লন্ডনে রানির বাড়ির সামনে থেকেও ফোন চুরি হয়: পরিকল্পনামন্ত্রী

ফরিদপুরে লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে ৩ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত শতাধিক

ফোনালাপে আড়িপাতা রোধের পদক্ষেপের বিষয়ে জানতে বিটিআরসিকে নোটিশ

উল্লেখ্য ‘মৎস্য গ্রাম’ হবে একটি আদর্শ গ্রাম যে গ্রামের সকল উন্নয়নমূলক কার্যক্রম এবং অর্জিত সাফল্য অন্যান্য গ্রামের জন্য অনুকরণীয় হবে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

করোনার টিকা না দেওয়ায় পদ্মার ইলিশ থেকে বঞ্চিত ভারত

অনলাইন ডেস্ক

করোনার টিকা না দেওয়ায় পদ্মার ইলিশ থেকে বঞ্চিত ভারত

মহামারী করোনা ভাইরাসের টিকা সরবরাহ না করায় এ বছর বাংলাদেশ থেকে পদ্মার ইলিশ থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে ভারতকে। সেপ্টেম্বর-অক্টোবর মাসকে ইলিশের ‘ভরা মৌসুম’ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। সেই হিসাব করলে ইলিশের মৌসুম এখনো আসেনি। ফলে বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশ সরকারের চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানার সময়ও এখনো হয়নি বলেই জানিয়েছে কলকাতাভিত্তিক সংবাদমাধ্যম।

আজ মঙ্গলবার ‘কোভিড-টিকা পাঠায়নি দিল্লি, ইলিশও আসছে না ঢাকা থেকে, প্রশ্নের মুখে মোদীর সোনালি অধ্যায়’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। সেখানে বলা হয়েছে, বর্তমানে দুপক্ষের সম্পর্ক এতটাই আড়ষ্ট হয়ে গিয়েছে, ইলিশ-কূটনীতির আবহাওয়াটাই আর নেই।

পত্রিকার প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও তার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বহু বিজ্ঞাপিত ‘ভারত-বাংলাদেশ সোনালি অধ্যায়’-এর রং এই মুহূর্তে যথেষ্ট ফিকে। বাংলাদেশের প্রায় ১৬ লাখ মানুষ ভারতীয় করোনা প্রতিষেধকের প্রথম ডোজ নিয়ে বসে রয়েছেন। অনেক সময় পেরিয়ে গেছে।

সূত্র: আনন্দবাজার

news24bd.tv/এমিজান্নাত

পরবর্তী খবর