ঈদের দিনের ১৩টি সুন্নাত

অনলাইন ডেস্ক

ঈদের দিনের ১৩টি সুন্নাত

ঈদুল ফিতর, ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের দুটো সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসবের একটি। যারা এক মাস ধরে সিয়াম সাধনা করেছেন, তাদের জন্যই আনন্দ ও উৎসবের দিন হচ্ছে ঈদুল ফিতর। এ দিনটি আল্লাহর কাছ থেকে পুরস্কার লাভেরও দিন।

ঈদের দিনে রয়েছে ১৩টি সুন্নাত । যা রাসূল (সা.) করতেন। আসুন সেগুলো একটু জেনে নেই।

১. অন্যদিনের তুলনায় সকালে ঘুম থেকে জাগ্রত হওয়া।

২. মিসওয়াক করা। 

৩. গোসল করা। 

৪. শরীয়তসম্মত সাজসজ্জা করা।

৫. সামর্থ অনুপাতে উত্তম পোশাক পরিধান করা। 

৬. সুগন্ধি ব্যবহার করা। 

৭. ঈদুল ফিতরে ঈদগাহে যাবার আগে মিষ্টি জাতীয় যেমন খেজুর ইত্যাদি খাওয়া। 

৮. সকাল সকাল ঈদগাহে যাওয়া।

৯. ঈদুল ফিতরে ঈদগাহে যাওয়ার পূর্বে সদকায়ে ফিতর আদায় করা।


ছাদে মিলল মাদ্রসাছাত্রীর গলাকাটা মরদেহ

রাশিয়ায় এক ডোজের স্পুটনিক টিকার অনুমোদন

জুমাতুল বিদাকে ‘আল-কুদস দিবস’ বলা হয় কেন?

মধ্যরাতে হেফাজতের নেতা শাহীনুর পাশা গ্রেপ্তার


১০. ঈদের নামাজ ঈদগাহে আদায় করা, বিনা অপরাগতায় মসজিদে আদায় না করা। 

১১. যে রাস্তায় ঈদগাহে যাবে, সম্ভব হলে ফেরার সময় অন্য রাস্তা দিয়ে ফেরা। 

১২. পায়ে হেঁটে যাওয়া। 

১৩. ঈদুল ফিতরে ঈদগাহে যাবার সময় আস্তে আস্তে তাকবীর পড়তে থাকা।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

কোরআনের কবুল হওয়া গুরুত্বপূর্ণ ৩টি দোয়া

অনলাইন ডেস্ক

কোরআনের কবুল হওয়া গুরুত্বপূর্ণ ৩টি দোয়া

গুরুত্বপূর্ণ ৩টি দোয়া প্রথমটি রোগমুক্তির দোয়া, দ্বিতীয়টি বিপদমুক্তির জন্য আর তৃতীয়টি সন্তান লাভের জন্য।

আল্লাহর নবী হজরত আইয়ুব (আ.) দোয়া করেছিলেন-

আরবি উচ্চারণ : আন্নী মাচ্ছানিয়াদ্দুররু ওয়া আনতা আরহামুর রাহিমীন।

অর্থ : (হে আমার প্রতিপালক!) আমাকে দুঃখ-ক্লেশ (ব্যাধি) স্পর্শ করেছে, আর তুমি তো শ্রেষ্ঠ দয়ালু। -সূরা আম্বিয়া : ৮৩

এই দোয়া প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘অতঃপর আমি তার (সেই) আহ্বানে সাড়া দিলাম এবং তার দুঃখ-কষ্ট দূর করে দিলাম এবং তার পরিবরাবর্গ ফিরিয়ে দিলাম, আর তাদের সঙ্গে তাদের সমপরিমাণ আরও দিলাম আমার পক্ষ থেকে কৃপাবশতঃ আর এটা ইবাদতকারীদের জন্য উপদেশস্বরূপ।’ -সূরা আম্বিয়া : ৮৪

২. হজরত ইউনুস (আ.) দোয়া করেছিলেন-

আরবি উচ্চারণ : লা ইলাহা ইল্লা আনতা সুবহানাকা ইন্নী কুনতু মিনাজ জোয়ালিমীন।

অর্থ : তুমি ব্যতীত কোনো উপাস্য নেই; তুমি নির্দোষ আমি গোনাহগার। -সূরা আম্বিয়া : ৮৭

এই দোয়া বর্ণনার পর আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘অতঃপর আমি তার (সেই) আহ্বানে সাড়া দিলাম এবং তাকে দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তি দিলাম। আমি এমনিভাবে বিশ্বাসীদেরকে মুক্তি দিয়ে থাকি।’ -সূরা আম্বিয়া : ৮৮

হজরত জাকারিয়া (আ.) দোয়া করেছিলেন-

আরবি উচ্চারণ : রাব্বী লা তাযারনী ফারদান ওয়া আনতা খাইরুল ওয়ারিসীন।

অর্থ : হে আমার পালনকর্তা! আমাকে একা রেখ না। তুমি তো উত্তম ওয়ারিস। -সূরা আম্বিয়া : ৮৯

এই দোয়া কবুল হওয়া প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘অতঃপর আমি তার দোয়া কবুল করেছিলাম, তাকে দান করেছিলাম ইয়াহইয়া এবং তার জন্য তার স্ত্রীকে প্রসবযোগ্য করেছিলাম।’ -সূরা আম্বিয়া : ৯০

ওপরে এ তিনটি দোয়া পরীক্ষিত ও গ্রহণযোগ্য, সুতরাং রোগমু্ক্তি, বিপদমুক্তি কিংবা সন্তান লাভের জন্য এসব দোয়ার মাধ্যমে আল্লাহর কাছে সাহায্য চাওয়া মুমিনের দায়িত্ব।

------------------------------------------------------------

চাকরির জন্য আল্লাহর কাছে যে দোয়া পড়বেন

যে দোয়া পড়লে মনের আসা কবুল হয়

যারা বিনা হিসাবে জান্নাতে যাবে

যে দোয়া পড়লে কখনো বিফলে যায় না!

যে সময় দোয়া পড়লে দ্রুত কবুল হয়

কঠিন বিপদ থেকে রক্ষা পেতে যে দোয়া পড়বেন!

যাদের দোয়া দ্রুত কবুল হয়

-----------------------------------------------------------------

news24bd.tv / কামরুল

পরবর্তী খবর

সূরা ফাতিহার ফজিলত

অনলাইন ডেস্ক

সূরা ফাতিহার ফজিলত

সূরা আল ফাতেহা পবিত্র আল কোরআনের প্রথম সূরা। আয়াত সাতটি। মক্কায় অবতীর্ণ। প্রথম তিনটি আয়াত মহান আল্লাহতায়ালার প্রশংসা এবং শেষ তিন আয়াত মানুষের পক্ষ হতে আল্লাহপাকের কাছে প্রার্থনা ও দরখাস্তের বিষয়বস্তুর সংমিশ্রণ। মধ্যের একটি আয়াত প্রশংসা ও দোয়া মিশ্রিত। এ সূরা দ্বারা চিরতরে আল্লাহপাক ছাড়া অন্য কারও ইবাদত নিষিদ্ধ করা হয়েছে। 

‘ফাতিহা’ শব্দের অর্থ শুরু, আরম্ভ, উদ্বোধন, উদঘাটন প্রভৃতি। কুরআনুল কারিমের ১১৪টি সূরার মধ্যে প্রথম সূরাটি হলো সূরাতুল ফাতিহা। আর এ জন্য সূরা ফাতিহাকে ‘ফাতিহাতুল কুরআন’ বা কুরআনের শুরু বলে অভিহিত করা হয়। সূরা ফাতিহাকে সূরাতুল হামদ, উম্মুল কুরআন, আসসাবউল মাছানি, ওয়াকিয়াহ, সূরাতুল কাফিয়্যাহ, সূরাতুল কানয, সূরাতুশ শিফা ও সূরাতুল আসাস নামেও অভিহিত করা হয়।

সূরা ফাতিহার ফজিলতের কথা বর্ণনা করে শেষ করা যাবে না। ‘খাজিনাতুল আসরার’ কিতাবে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘ফজরের সুন্নত নামাজ আদায় করে ফরজ নামাজ আদায়ের আগে কেউ যদি বিসমিল্লাহসহ সূরা ফাতিহা ৪০ বার পাঠ করে তাহলে ওই ব্যক্তি নিঃসন্তান থাকলে সন্তান হবে, বেকার থাকলে চাকরি হবে, ঋণ থাকলে ঋণ পরিশোধের উপায় হয়ে যাবে, সম্পদহীন থাকলে সম্পদ লাভ হবে, অসুস্থ থাকলে সুস্থ হয়ে যাবে ও বিপদাপন্ন হলে উদ্ধার পেয়ে যাবে’। 

হজরত আলী রা: বলেছেন, কোনো বিপদে পতিত ব্যক্তি এক হাজার বার সূরা ফাতিহা পাঠ করলে ওই ব্যক্তির আর বিপদ থাকতে পারে না। হজরত ইমাম জাফর সাদেক রা: বলেছেন, ‘৪১ বার সূরা ফাতিহা পাঠ করে পানিতে ফুঁক দিয়ে কোনো অসুস্থ ব্যক্তিকে খাওয়ালে অসুস্থ ব্যক্তি সুস্থ হয়ে যাবে’। (তাওয়ারিখে মদিনা)। 

হজরত আবু সাঈদ খুদরী (রা.) বলেন, একবার এক সফরে আমাদের এক সাথি জনৈক গোত্রপতিকে শুধু সূরা আল ফাতেহা পড়ে ফুঁ দিয়ে সাপের বিষ ঝাড়েন এবং তিনি সুস্থ হয়ে যান (বুখারী শরীফ :৫৪০৫)। এ দেখে রাসূল (সা.) তাকে জিজ্ঞেস করেছিলেন, এটা যে রকিয়্যাহ (অর্থাৎ পড়ে ফুঁ দেয়ার সূরা) তা তুমি কেমন করে জানলে? (তাফসীরে ইবনে কাসীর)।

হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, রাসূল (সা.) ফরমিয়েছেন, তোমরা সূরা ফাতেহা পড়। কোনো বান্দা যখন বলে আলহামদুলিল্লাহি রাবি্বল আলামিন, তখন আল্লাহপাক বলেন, আমার বান্দা আমার প্রশংসা করেছেন। যখন আমার বান্দা বলে, আররাহমানির রাহিম, তখন আল্লাহপাক বলেন, আমার বান্দা আমার গুণ বর্ণনা করেছে। 

আরও পড়ুন:


বেতন বাড়ছে ক্রিকেটারদের, কত পান সাকিব-তামিম-মুশফিকরা

রিজার্ভের সব রেকর্ড ভেঙে ৪৫.৪৬ বিলিয়ন ডলার

বাব-মা-বোনকে হত্যার পর ৯৯৯-এ ফোন দিয়ে যা বলেছিলো মেহজাবিন


বান্দা যখন বলে, মালিকি ইয়াওমিদ্দীন, তখন আল্লাহপাক বলেন, আমার বান্দা আমার মর্যাদা বর্ণনা করেছে। বান্দা যখন বলে, ইয়্যাকানাবুদু ওয় ইয়্যা কানাস্তাইন, তখন আল্লাহপাক বলেন, এ হচ্ছে আমার ও আমার বান্দার মাঝে কথা। আমার বান্দার জন্য তাই রয়েছে যা সে চায়। বান্দা যখন বলে, ইহদিনাস সিরাতল মুস্তাকিম...শেষ পর্যন্ত। আল্লাহপাক বলেন, এসব হচ্ছে আমার বান্দার জন্য, তাই রয়েছে, যা সে চায় (মুসলিম শরীফ :৩৯৫)। 

এ ছাড়া কুরআনের একটি হরফ বুঝে পাঠ করলে ১০টি নেকি লাভ হয়। সূরা ফাতিহায় ১২৫টি হরফ রয়েছে। ১২৫টি হরফ যিনি পাঠ করবেন তার আমল নামায় ১২৫০টি নেকি দান করা হয়।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

ওজুর তারতিব ও সুন্নাতসমূহ

অনলাইন ডেস্ক

ওজুর তারতিব ও সুন্নাতসমূহ

পবিত্রতা অর্জন ও সালাত আদায়ের মূল শর্ত হল ওজু। আল্লাহ তাআলা ওজুকে ফরজ করেছেন। পাক-পবিত্রতা অর্জনে ওজুর রয়েছে অত্যাধিক গুরুত্ব। এছাড়া ওজু ছাড়া ইবাদত-বন্দেগি করা যায় না। সুন্দরভাবে ওজু করাও একটি ইবাদত। কী ভাবে সুন্নাতি কায়দায় ওজু করা যায় সে ব্যাপারে অনেক হাদিস ও ওলামায়ে কেরামগণ দিয়েছেন সুন্দর সুন্দর পন্থা। ওজুর ফরজগুলো ইতোপূর্বে তুলে ধরা হয়েছে। ওজুর সুন্নাতি তারতিব ও সুন্নাতসমূহ তুলে ধরা হলো-

ওজুর তারতিবসমূহ-

ক. ওজুতে নিয়্যাতে একটু উঁচু জায়গায় বসা যাতে ওজুর পানির ছিটা নিজের শরীরে না আসে।
খ. বিসমিল্লাহ তথা (বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম) বলে ওজু শুরু করা।
গ. উভয় হাতে কবজি পর্যন্ত তিনবার ধৌত করা।
ঘ. মিসওয়াক করা। যদি মিসওয়াক না থাকে তবে মোটা কাপড় বা হাতের আঙ্গুল বা অন্য কিছুর দ্বারা উত্তমরূপে দাঁত পরিষ্কার করা।
ঙ. তিনবার কুলি করা। রোযা না থাকলে গড়গড়া করে কুলি করা।
চ. তিনবার নাকে পানি দেয়া। বাম হাতে কণিষ্ঠা ও বৃদ্ধাঙ্গুলি দ্বারা নাক পরিষ্কার করা। (রোজাদার না হলে নাকের নরম অংশে পানি পৌঁছানো)
ছ. সমস্ত মুখ অর্থাৎ চুলের গোড়া হতে থুতনির নিচ পর্যন্ত এবং এক কানের লতি হতে অন্য কানের লতি পর্যন্ত তিনবার ধৌত করা।
জ. দাড়ি ঘন হলে খিলাল করা।
ঝ. উভয় হাতের কনুইসহ তিন বার ধৌত করা। প্রথমে ডান তারপর বাম হাত। এসম উভয় হাতের আঙ্গুল খিলাল করা।
ঞ. সম্পূর্ণ মাথা একবার মাসেহ করা।
ট. কান মাসেহ করা। অর্থাৎ শাহাদাত আঙ্গুল দিয়ে কানের ভিতর এবং বৃদ্ধাঙ্গুলি দিয়ে কানের বাহির অংশ মাসেহ করা
ঠ. ঘাড় বা গর্দান হাতের আঙ্গুলের পিঠ দিয়ে মাসেহ করা। কান ও গর্দান মাসেহের ক্ষেত্রে নতুন করে পানি নেয়ার দরকার নেই। মাথা মাসেহ করার পানি দিয়ে করলেই চলবে।
ড. উভয় পায়ের টাখনুসহ তিনবার ধৌত করা। প্রথমে ডান পা এবং পরে বাম পা ধৌত করা। পায়েল আঙ্গুলি খিলাল করার ক্ষেত্রে ডান পায়ের কণিষ্ঠা আঙ্গুল হতে শুরু করে বাম পায়ের কনিষ্ঠাঙ্গুলিতে এসে শেষ করা এবং বাম হাতের কণিষ্ঠাঙ্গুলি দিয়ে খিলাল করা।

আরও পড়ুন


সূরা ইয়াসিন: আয়াত ২৮-৩৫, নবীদের অবমাননার শাস্তি

দেশজুড়ে ভারি বর্ষণের আভাস, পাহাড় ধসের শঙ্কা

ত্ব-হা ও দুই সফরসঙ্গীর জবানবন্দির পর পরিবারের কাছে হস্তান্তর

নওমুসলিম ইমামকে ডেকে নিয়ে মসজিদের সামনে গুলি করে হত্যা


অজুর সুন্নতসমূহ

১. বিসমিল্লাহ বলা, ২. কবজিসহ উভয় তিন বার ধৌত করা, ৩. মিসওয়াক করা, ৪. তিনবার কুলি করা, ৫. নাকে তিন বার পানি দেয়া, ৬. সমস্ত মাথা একবার মাসেহ করা, ৭. প্রত্যেক অঙ্গকে তিনবার করে ধৌত করা, ৮. কান মাসেহ করা, ৯. উভয় হাত এবং পায়ের আঙ্গুলগুলো খিলাল করা, ১০. নিয়্যাত করা, ১১. ধারবাহিকভাবে ওজু করা, ১২. এক অঙ্গ শুকানোর পূর্বেই পরবর্তী অঙ্গ ধৌত করা, ১৩. ডান থেকে শুরু করা। এগুলো ওজুর করার সুন্নাত।

ইবাদত-বন্দেগি কবুলের জন্য আল্লাহ শিখানো পদ্ধতিতে আদায়ের ক্ষেত্রে ওজু ফরজ থেকে শুরু করে মোস্তাহাব পর্যায়ে এসে শেষ হয়েছে। সুতরাং আমরা উত্তমরূপে ওজুর করে আল্লাহর ইবাদত বন্দেগিতে মনোনিবেশ করবো। আল্লাহে তা’আলা সবােইকে ওজুর ফরজ ও সুন্নাত সমূহ শিখে ইবাদত-বন্দেগি করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

সূরা ইয়াসিন: আয়াত ২৮-৩৫, নবীদের অবমাননার শাস্তি

অনলাইন ডেস্ক

সূরা ইয়াসিন: আয়াত ২৮-৩৫, নবীদের অবমাননার শাস্তি

সূরা ইয়াসিন পবিত্র কুরআনের মর্যাদাপূর্ণ একটি সূরা। এটি মক্কায় অবতীর্ণ। এই সূরার প্রথমে বর্ণিত দুই মুকাত্তায়াত হরফের নামে এটির নামকরণ করা হয়েছে। এই সূরায় রয়েছে ৮৩টি আয়াত। আজ এই সূরার ২৮ থেকে ৩৫ নম্বর আয়াতের ব্যাখ্যা উপস্থাপন করা হবে। এই সূরার ২৮ থেকে ৩০ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে:

وَمَا أَنْزَلْنَا عَلَى قَوْمِهِ مِنْ بَعْدِهِ مِنْ جُنْدٍ مِنَ السَّمَاءِ وَمَا كُنَّا مُنْزِلِينَ (28) إِنْ كَانَتْ إِلَّا صَيْحَةً وَاحِدَةً فَإِذَا هُمْ خَامِدُونَ (29) يَا حَسْرَةً عَلَى الْعِبَادِ مَا يَأْتِيهِمْ مِنْ رَسُولٍ إِلَّا كَانُوا بِهِ يَسْتَهْزِئُونَ (30)

“এবং তারপর আমি তার সম্প্রদায়ের উপর আকাশ থেকে কোন বাহিনী অবতীর্ণ করিনি এবং (এর আগেও) আমি (বাহিনী) অবতরণকারী ছিলাম না। (অর্থাৎ আমার রীতি এর আগেও এরূপ ছিল না।)” (৩৬:২৮)

“বস্তুতঃ এ ছিল এক মহানাদ। অতঃপর হঠাৎ সবাই স্তদ্ধ হয়ে যায়।” (৩৬:২৯)

“বান্দাদের জন্যে আক্ষেপ যে, তাদের কাছে এমন কোন রাসূলই (হেদায়েতের জন্য) আগমন করেননি যাকে তারা বিদ্রুপ করে নি।” (৩৬:৩০)

গত আসরে আমরা বলেছি, শাম অঞ্চলের আনতাকিয়া শহরের জনগণকে হেদায়েতের জন্য কয়েকজন নবী আগমন করলে সেখানকার লোকজন তাদেরক লাঞ্ছনা করে এবং তাদের নবুওয়াত মেনে নিতে অস্বীকার করে। এ সময় নবীদেরকে রক্ষা করার জন্য হাবিবে নাজ্জার নামক এক ব্যক্তি এগিয়ে এলে কাফেররা তাকে হত্যা করে। এরপর এই আয়াতে আল্লাহ তায়ালা বলছেন, যে জাতি নবীদের অস্বীকার করে এবং এক ব্যক্তিকে শহীদ করে ফেলে তাদের ওপর ঐশী আজাব অবধারিত হয়ে যায়। আল্লাহর আদেশে এমন গগনবিদারী আওয়াজ হয়ে যার ফলে ওই জাতির সব লোক মৃত্যুবরণ করে। এই আজাব ছিল পার্থিব শাস্তি এবং কিয়ামতে তাদের জন্য আরো কঠিন শাস্তি অপেক্ষা করছে।

প্রকৃতপক্ষে কাফের ও গোনাহগার ব্যক্তিদের ধ্বংস করে ফেলা আল্লাহ তায়ালার জন্য অত্যন্ত সহজ কাজ। এই কাজের জন্য ঢাক-ঢোল পিটিয়ে আসমান থেকে কোনো বাহিনী প্রেরণের প্রয়োজন নেই। বরং, আল্লাহর ইচ্ছায় আসমান ও জমিন থেকে এমন বিকট শব্দ হয় যে, এর ফলে সবাই নিস্তব্ধ হয়ে যায়।  পরের আয়াতে আল্লাহ তাঁর এ ধরনের বান্দাদের জন্য আক্ষেপ করে বলছেন, তারা আল্লাহর হেদায়েতের বাণী গ্রহণ না করে এমন আচরণ করে যা তাদের ধ্বংস ডেকে আনে। নবী-রাসূলদের ঠাট্টা করা থেকে এই আচরণ শুরু হয় এবং তাদেরকে লাঞ্ছনা করে শেষ পর্যন্ত অনেক নবীকে মেরে ফেলা হয়।

এই তিন আয়াতের শিক্ষণীয় দিকগুলো হলো:

১. কোন সমাজ যদি আল্লাহর ওলীদেরকে ব্যাঙ্গ-বিদ্রূপ করে বা তাদেরকে লাঞ্ছিত করে তাহলে সেই সমাজ আল্লাহর শাস্তিতে নিপতিত হতে পারে; যে শাস্তি আসে হঠাৎ করে।
২. দাম্ভিক ও অত্যাচারী ব্যক্তিদের হুমকিতে ভয় পাওয়া বা সত্য ত্যাগ করা যাবে না। আল্লাহ চাইলে অত্যাচারীরা অচিরেই ধ্বংস হয়ে যাবে।
৩. অন্যরা সত্যকে বিদ্রূপ করলে আমাদের ঈমান যেন দুর্বল হয়ে না যায় এবং আমরা যেন ধর্মীয় দায়িত্ব পালনে পিছ-পা না হই। সমস্ত নবী-রাসূল বিদ্রূপের শিকার হওয়া সত্ত্বেও সত্যের পথে অটল থেকেছেন। 

সূরা ইয়াসিনের ৩১ ও ৩২ নম্বর আয়াতে মহান আল্লাহ বলেছেন:

  أَلَمْ يَرَوْا كَمْ أَهْلَكْنَا قَبْلَهُمْ مِنَ الْقُرُونِ أَنَّهُمْ إِلَيْهِمْ لَا يَرْجِعُونَ (31) وَإِنْ كُلٌّ لَمَّا جَمِيعٌ لَدَيْنَا مُحْضَرُونَ (32)

“তারা কি প্রত্যক্ষ করে না, তাদের পূর্বে আমি কত সম্প্রদায়কে ধ্বংস করেছি, যারা আর তাদের (অর্থাৎ কাফেরদের) কাছে ফিরে আসবে না?” (৩৬: ৩১)

“এবং ওদের সবাইকে (কিয়ামতের দিন) আমার কাছে উপস্থিত হতেই হবে।” (৩৬:৩২)

আগের কয়েকটি আয়াতের সূত্র ধরে এই দুই আয়াতে সব মানুষকে উদ্দেশ করে আল্লাহ তায়ালা বলছেন: তোমরা কেন অতীত জাতিগুলোর ইতিহাস ও তাদের পরিণতি সম্পর্কে ভেবে দেখছ না? তোমরা কেন দেখছ না যে, তোমাদের পূর্বে কত শত জাতি এই পৃথিবীতে এসেছিল যাদের অস্তিত্ব বিলীন হয়ে গেছে? তাদের মধ্যে অনেক জাতির ছিল সমৃদ্ধ সভ্যতা; ধনে-জ্ঞানে তাদের কোনো তুলনা ছিল না। কিন্তু আজ তাদের কোনো চিহ্ন এই পৃথিবীতে অবশিষ্ট নেই। আজকের সমাজে ফিরে আসার কোনো ক্ষমতাও তাদের নেই।

এই দুই আয়াতের শিক্ষণীয় দিকগুলো হলো:

১. পবিত্র কুরআন বারবার অতীত জাতিগুলোর ইতিহাস জানার ও তা নিয়ে চিন্তা-গবেষণা করার নির্দেশ দিয়েছে। শুধু বিনোদনের জন্য ইতিহাস জানা যথেষ্ট নয়।

২. পৃথিবী পরিচালনায় আল্লাহর রীতি অভিন্ন এবং অতীত জাতিগুলোর পরিণতি প্রায় একই রকম। কাজেই যে জাতি মুক্তি পেতে চায় তার উচিত এসব জাতির পরিণতি থেকে শিক্ষা নিয়ে নিজের চলার পথ সংশোধন করা।

আরও পড়ুন


দেশজুড়ে ভারি বর্ষণের আভাস, পাহাড় ধসের শঙ্কা

ত্ব-হা ও দুই সফরসঙ্গীর জবানবন্দির পর পরিবারের কাছে হস্তান্তর

নওমুসলিম ইমামকে ডেকে নিয়ে মসজিদের সামনে গুলি করে হত্যা

আবু ত্ব-হাসহ সঙ্গীদের রাতেই আদালতে নিল পুলিশ


সূরা ইয়াসিনের ৩৩ থেকে ৩৫ নম্বর পর্যন্ত আয়াতে মহান আল্লাহ বলেছেন:

وَآَيَةٌ لَهُمُ الْأَرْضُ الْمَيْتَةُ أَحْيَيْنَاهَا وَأَخْرَجْنَا مِنْهَا حَبًّا فَمِنْهُ يَأْكُلُونَ (33) وَجَعَلْنَا فِيهَا جَنَّاتٍ مِنْ نَخِيلٍ وَأَعْنَابٍ وَفَجَّرْنَا فِيهَا مِنَ الْعُيُونِ (34) لِيَأْكُلُوا مِنْ ثَمَرِهِ وَمَا عَمِلَتْهُ أَيْدِيهِمْ أَفَلَا يَشْكُرُونَ (35)   

“এবং তাদের জন্যে একটি নিদর্শন মৃত পৃথিবী। আমি একে সঞ্জীবিত করি এবং তা থেকে উৎপন্ন করি শস্য, তারা তা থেকে ভক্ষণ করে। (৩৬:৩৩)

“এবং আমি তাতে সৃষ্টি করি খেজুর ও আঙ্গুরের বাগান এবং তাতে প্রবাহিত করি ঝরনাধারা।” (৩৬:৩৪)

“যাতে তারা তার ফল এবং নিজেদের হাতে উৎপাদিত শস্য খেতে পারে। সুতরাং তাদের কি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা উচিত নয়?” (৩৬:৩৫)

এই তিন আয়াতে বলা হচ্ছে: আখিরাতের একটি উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হচ্ছে মৃত ভূমির প্রাণ ফিরে পাওয়া। শীতকালে মাটি এমনভাবে শুকিয়ে যায় যাতে মনে হয় এখানে আর কোনোদিন শষ্য উৎপাদিত হবে না। কিন্তু গ্রীষ্মকালে বৃষ্টির পানি পড়ার সঙ্গে সঙ্গে সেই মৃত ভূমি আবার সতেজ হয়ে ওঠে এবং তাতে নানারকম শস্য ও ফলমূল উৎপাদিত হয়। প্রতি বছর মানুষ তার চোখের সামনে এই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হতে দেখে।

আল্লাহর দেয়া খাদ্যদ্রব্যের মধ্যে পবিত্র কুরআনে খোরমা ও আঙ্গুরের প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হয়েছে এবং এই দুই ফলকে আল্লাহ তায়ালার বিশেষ নেয়ামত বলে উল্লেখ করা হয়েছে। হয়ত এ কারণে একথা বলা হয়েছে যে, এই দুই ফলে যেমন মানুষের দেহের জন্য প্রয়োজনীয় সব খাদ্যগুণ রয়েছে তেমনি মানবদেহের জন্য প্রয়োজনীয় সব ভিটামিনের সমাহার এই দুই ফলে ঘটেছে।

এই তিন আয়াতের শিক্ষণীয় দিকগুলো হলো:

১. প্রকৃতি হচ্ছে আল্লাহকে উপলব্ধি করার কিতাব যার প্রতিটি পৃষ্ঠা অধ্যয়নের মাধ্যমে মানুষ তার স্রষ্টাকে আরো ভালোভাবে চিনতে ও বুঝতে পারে।
২. মানুষের পক্ষে পার্থিব জগতে বসে তার মৃত্যু পরবর্তী জীবন উপলব্ধি করা সম্ভব নয়। কিন্তু আখিরাত দিবসের সত্যতা উপলব্ধি করার জন্য আল্লাহ তায়ালা মাটি, গাছ ও গুল্মলতার জীবন ও মৃত্যু মানুষের সামনে বারবার দেখিয়ে দিয়েছেন।
৩. নানারকম খাদ্য ও ফলমূল ভক্ষণ করার কারণে মানুষের উচিত এসব খাদ্যের স্রষ্টা আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানানো। কিন্তু দুঃখজনকভাবে বেশিরভাগ মানুষ অকৃতজ্ঞ হয়।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

ইস্তেগফারের গুরুত্ব ও ফজিলত

অনলাইন ডেস্ক

ইস্তেগফারের গুরুত্ব ও ফজিলত

‘ইস্তেগফার’ শব্দের অর্থ কৃত পাপকর্মের জন্য আল্লাহর দরবারে ক্ষমা প্রার্থনা করা। আল্লাহর অসংখ্য মহান গুণাবলির একটি হলো ক্ষমা। আল্লাহ তাআলা ঘোষণা করেন, ‘আমি অবশ্যই ক্ষমাশীল তার প্রতি, যে তওবা করে, ইমান আনে, সৎকর্ম করে ও সৎপথে অবিচলিত থাকে।’ (সূরা তাহা, আয়াত: ৮২)

মানবজাতিকে শিক্ষা দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে, ‘তুমি তোমার প্রতিপালকের প্রশংসাসহ তাঁর পবিত্রতা ও মহিমা ঘোষণা করো এবং তাঁর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করো, নিশ্চয়ই তিনি তওবা কবুলকারী।’ (সূরা নাসর, আয়াত: ৩)

ইস্তেগফারের গুরুত্ব:

রাসূল (সা.) ইস্তেগফারের প্রতি উৎসাহ প্রদান করে বলেন (অথচ তিনি মা’সুম-নিষ্পাপ), হে লোক সকল! তোমরা আল্লাহর কাছে ইস্তেগফার ও তাওবা করো। কারণ আমি নিজেও দৈনিক শতবার তাওবা-ইস্তেগফার করি। 

অন্য হাদীসে বর্ণিত আছে, রাসূল (সা.) বলেন, যার আমলনামায় ইস্তেগফার অধিক সংখ্যায় পাওয়া যাবে তার জন্য রইল সুসংবাদ।

হযরত লোকমান হাকীম তাঁর সন্তানকে উপদেশ দান করে বলেন, হে আমার পুত্র! ‘আল্লাহুম্মাগ ফিরলী’ বলাকে অভ্যাসে পরিণত করে নাও। কারণ এমন কিছু সময় আছে যখন আল্লাহ তা’আলা যেকোনো দু’আকারীর দু’আ কবুল করেন।

হযরত আবু মূসা (রা.) বলেন, আমাদের সুরক্ষাদানকারী দুটি জিনিস ছিল, তন্মধ্যে হতে একটি চিরদিনের জন্য হারিয়ে গেছে। সেটা হলো আমাদের মাঝে রাসূল (সা.)-এর উপস্থিতি। আর দ্বিতীয় জিনিস ইস্তেগফার যা এখনো আমাদের মাঝে রয়ে গেছে। যেদিন এটিও চলে যাবে (করার মতো কেউ থাকবে না) তখন আমাদের ধ্বংস অনিবার্য। 

হযরত হাসান (রহ.) বলেন, তোমরা ঘরে-দুয়ারে, দস্তরখানে, রাস্তা-ঘাটে, হাটে-বাজারে, সভা-সমাবেশে বেশি বেশি ইস্তেগফার করো। কারণ ইস্তেগফার কবুল হওয়ার সময় তোমাদের জানা নেই।

ইস্তেগফারের ফজিলত:

ইস্তেগফারের ফজিলত অনেক। কোরআন-হাদীসের আলোকে কিছু উপকারের কথা নিচে তুলে ধরা হলো।

এক. গোনাহখাতা মাফ হয়। 
কোরআনে ইরশাদ হচ্ছে : তোমরা তোমাদের রবের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করো। নিশ্চয়ই তিনি অতিশয় ক্ষমাশীল। (সূরা নূহ-১০)

দুই. অনাবৃষ্টি দূর হবে।
ইরশাদ হচ্ছে : তিনি (আল্লাহ) আকাশ থেকে প্রচুর বৃষ্টি বর্ষণ করবেন। (নূহ-১১)

তিন. সন্তান ও সম্পদ লাভ হবে।
ইরশাদ হচ্ছে :  তোমাদের ধন-সম্পদ ও সন্তান-সন্ততিতে উন্নতি দান করবেন। (নূহ-১২)

চার. সবুজ-শ্যামল পরিবেশ লাভ হবে।
ইরশাদ হচ্ছে : তোমাদের জন্য সৃষ্টি করবেন উদ্যান। (নূহ-১২)

পাঁচ. নদ-নদীর ব্যবস্থা হবে। 
ইরশাদ হচ্ছে : তোমাদের জন্য নদ-নদীর ব্যবস্থা করে দেবেন। (নূহ-১২)

ছয়. উপভোগ্য জীবন লাভ হবে।
ইরশাদ হচ্ছে : তোমরা তোমাদের রবের কাছে গোনাহের ক্ষমা প্রার্থনা করো। অতঃপর তাঁর অভিমুখী হও (ভবিষ্যতে গোনাহা না করার এবং আল্লাহর হুকুম-আহকাম পালন করার দৃঢ় সংকল্প করো)। তিনি তোমাদের নির্দিষ্ট কাল পর্যন্ত উত্তম জীবন উপভোগ করতে দেবেন। (সূরা হুদ-৩)

সাত. শক্তি-সামর্থ্য বাড়বে।
ইরশাদ হচ্ছে : তোমাদের শক্তির সাথে বাড়তি আরো শক্তি জোগাবেন। (হুদ-৫২)

আরও পড়ুন:


বাঁচবো কিনা জানি না, সবাই ক্ষমা করে দিয়েন

দুদককে পরীমণির সম্পদের হিসাব চাওয়ার আহ্বান হেলেনা জাহাঙ্গীরের

গণপরিবহনে অবাধে যাতায়াত করায় করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ব্যক্তিগত কারণে আত্মগোপেনে ছিলেন আবু ত্ব-হা: পুলিশ


আট. আল্লাহর আযাব থেকে নিরাপত্তা দান করবে। 

ইরশাদ হচ্ছে : তারা ইস্তেগফারে রত থাকাবস্থায় আল্লাহ তা’আলা তাদের শাস্তি দেবেন না। (আনফাল-৩৩)

নয়. সংকট থেকে উত্তরণের পথ বের হবে। 
রাসূল (সা.) বলেন : যে ব্যক্তি নিয়মিত ইস্তেগফার করবে আল্লাহ তা’আলা তার সর্বপ্রকার সংকট থেকে উত্তরণের পথ খুলে দেবেন।

দশ. উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা, দুঃখ-চিন্তা দূর হবে। 
রাসূল (সা.) বলেন : সর্বপ্রকার উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা, দুঃখ-চিন্তা লাঘব করে স্বস্তি ও আনন্দ দান করবেন।

এগারো. অকল্পনীয় রিযিকের ব্যবস্থা হবে। 
রাসূল (সা.) বলেন :তাকে কল্পনাতীত রিযিকের ব্যবস্থা করে দেবেন। (আবু দাউদ)

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর