৪৪ সন্তানের জন্ম দেয়ার পর বদমাশ ব্যাটা পালিয়ে যায়

রাখি নাহিদ

৪৪ সন্তানের জন্ম দেয়ার পর বদমাশ ব্যাটা পালিয়ে যায়

আফ্রিকার উগান্ডার অধিবাসী মারিয়াম নবট্যানজি বিয়ের পর টানা পাঁচ বার যমজ সন্তানের জন্ম দেবার পর বুঝতে পারেন তার কোন শারীরিক সমস্যা আছে। পরীক্ষা নিরিক্ষার পরে জানতে পারেন তাঁর ডিম্বাশয়ের আকার বেশ বড় এবং তিনি অত্যন্ত ফার্টাইল। কিন্তু কোনও রকম গর্ভনিয়ন্ত্রণের ওষুধ বা অপারেশন তাঁর ক্ষেত্রে প্রাণঘাতী হতে পারে!

মারিয়ম তাঁর স্বামীর সঙ্গে আলোচনা করেন, তাঁকে বোঝানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু মারিয়মের কথায় কান দেননি তাঁর স্বামী। ফলে এর পর চার বার ত্রিপলেট ও পাঁচ বার কোয়াড্রুপলেট জন্ম দেন মারিয়ম।

সর্বমোট ৪৪ সন্তানের জন্ম দেয়ার পর ব্যাটা বদমাশ মরিয়ম এবং সন্তানদের ফেলে আরেকজনকে বিয়ে করে পালিয়ে যায়। ৪৪ জনের মধ্যে শেষ পর্যন্ত বেঁচে যাওয়া ৩৮ সন্তানের ভরণ পোষনের পুরো দায়িত্ব তারপর থেকে ৩৯ বছর বয়সী মরিয়মই পালন করছেন। শত অভাবের মাঝেও সন্তানদের খাইয়ে বাঁচিয়ে রেখেছেন মারিয়াম। এটা একটা রেয়ার ঘটনা। কোটিতে হয়ত এক জনের এরকম হয়। 

তবুও বললাম একটা বিশেষ কারণে। জংলী, অশিক্ষিতা, আদিবাসী হোক আর শিক্ষিতা সফস্টিকেটেড সিভিলাইজড হোক, মা এর পরিচয় মা ই। এক মায়ের দায়িত্ব নিতে ১০ সন্তানেরও মাঝে মাঝে কষ্ট হয় কিন্তু মা একাই ৩৮ সন্তানের দায়িত্বও হাসিমুখে নেন।

ভারতের তামিলনাড়ু রাজ্যের ৩১ বছর বয়সী প্রেমা সেলভাম সম্প্রতি তার তিন সন্তানকে এক বেলা খাওয়ানোর জন্যে ১৫০ রুপিতে নিজের মাথার চুল বিক্রি করে দেন। চুল বিক্রী করে ৬০ রুপি দিয়ে তিন প্যাকেট ভাত আর অন্যান্য খাবার কিনে সন্তানদেরকে খেতে দিয়ে সেই দৃশ্য চোখ ভরে দেখেন প্রেমা। আহারে মা। 

আমার পরিচিতা এক ভদ্রমহিলা মাত্র ৩২ /৩৩ বছর বয়সে ক্যান্সারে মারা যান। তিন সন্তানের জননী যখন প্রথম প্রথম শারীরীক অসুবিধা বোধ করতেন, তখনও কিছু নয়, মেয়েদের এত নরম হলে চলে না বলে নিজের অসুবিধাকে পাত্তাই দেন নি।

উপসর্গ যখন আরও বেড়েছে তখন সংসারের কাজ থেকে ফুরসত নিয়ে ডাক্তার দেখালেন, ডাক্তার গাদা গাদা টেস্ট ধরিয়ে দিলেন। তারপর বাচ্চাদের ক্লাস টেস্ট, মিড টার্ম নইলে ফাইনাল এই করে করে আর যাওয়াই হয়নি টেস্ট করাতে। বাচ্চাদের পরীক্ষায় সাফল্যের সাথে পাশ করিয়ে যখন উনি নিজের শরীর পরীক্ষা করালেন তখন তার ক্যান্সারের লাস্ট স্টেজ। মাত্র মাস ছয়েক যুদ্ধ করেই তিন সন্তানকে জীবনের পরীক্ষায় একা ফেলে চলে যান সেই মা। মায়েরা এতই নিঃস্বার্থ যে মাঝে মাঝে এটাও ভুলে যান যে সন্তানের জন্যই তার সুস্থ থাকা, বেঁচে থাকা প্রয়োজন।

আরও পড়ুন


সেই স্পিডবোট মালিক চান মিয়া র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার

সূরা বালাদের ফজিলত, আলোচিত প্রধান দু’টি বিষয়

পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত সাদিক খান আবারও লন্ডনের মেয়র

পবিত্র মসজিদ আল-আকসায় আবারও সংঘর্ষ, আহত অনেক


বছর দুয়েক আগে একটা ছবি ভাইরাল হয় যেখানে দেখা যায় ৪৪ বছর বয়সী সীমা রানী সরকার তার ১৮ বছর বয়সী প্রতিবন্ধী পুত্র হৃদয়কে কোলে করে ঢাকা ইউনিভারসিটির ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করাতে নিয়ে যাচ্ছেন। হৃদয় সে বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগে ভর্তি হয়। মায়ের অনেক রূপ,অনেক ত্যাগের কথা যুগে যুগে শুনেছি কিন্তু সীমা রানী মাতৃত্বের নতুন দৃষ্টান্ত রেখেছেন।

২০১৮ সালে বিবিসির হানড্রেড মোস্ট ইন্সপিরেশনাল এন্ড ইনফ্লুয়েনশিয়াল নারীর লিস্টে সেবার সীমা রানীর নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয় এবং মজার ব্যাপার হল, সীমা রানীই সেই একমাত্র ফুল টাইম মা যে এই রিকগনিশন পেয়েছেন। সীমা রানী প্রমাণ করেছেন একটা শিক্ষিত সমাজের জন্য একটা মা প্রয়োজন। কিন্তু একজন মা এর কাউকে লাগে না।

সম্প্রতি ঢাকারই আরেক মায়ের ঘটনা পড়লাম যিনি তার প্রতিবন্ধী পুত্রের দেখভালের জন্য গত ১৫ বছর বাড়ির বাইরে পা রাখেন নি। ১৫ বছর কোথাও বেড়াতে যান নি। এই মাকে জিজ্ঞেস করেন লকডাউন কত প্রকার ও কি কি? পুত্রের কারণে পনের বছর ধরে হাসি মুখে লকডাউন হয়ে আছেন উনি ।

মায়েরা এমনই। তারা কোন মানুষের পর্যায়ে পড়েনা,কারণ কোন মানুষ এত নিঃস্বার্থ হতে পারে না। মাকে নিশ্চয়ই আল্লাহ তায়ালা মাটির বদলে অন্য কোন ইনগ্রেডিয়েন্ট দিয়ে বানিয়েছেন। মায়ের এই ত্যাগের সামনে একটা কার্ড, একটা ফুল কিছু শুভেচ্ছাবানী, সেলফি তুলে ফেসবুকে পোষ্ট করাটা হল মহাসাগরে এক ফোটা পানি ফেলার মত। তবুও পৃথিবীর সব মাকে "মাদারস ডে" র শুভেচ্ছা।

কারণ ৩৬৫ দিনই মা দিবস এই কথা বলে ৩৬৫ দিনই বঞ্চিত করার থেকে একদিনই না হয় ঢাক ঢোল পিটিয়ে বলি "ভালোবাসি"। উনারা এমনই অদ্ভুত, নিজেদের পাহাড় সমান ত্যাগের বিপরীতে শুধু এইটুকু শুনলেও তারা আনন্দে কেঁদে কেটে ছ্যারাব্যারা করে ফেলেন......।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর

আপু আপনি হেটারস ডিল করেন কিভাবে?

রাখী নাহিদ

আপু আপনি হেটারস ডিল করেন কিভাবে?

- আপু আপনি হেটারস ডিল করেন কিভাবে?

- হেটারস নানা পদের হয়। একেটার জন্য এক এক পদ্ধতি। সব অসুখ যেমন প্যারাসিটামল খেলে সারে না সব হেটারসকেও তেমন এক ট্রিটমেন্ট দিলে হয়না।অবস্থা বুঝে ব্যাবস্থা।

ধরেন কিছু হেটারস আছে যারা মুখে কিছু বলবেনা কিন্তু আপনার সমস্ত পোষ্টে এংরি রিয়েক্ট দিবে।

আপনি ধরে নিবেন এরা নিজের জীবন এবং এই জগত সংসার সবকিছুর উপর বিরক্ত। এরা কোন কিছুতেই ভাল দেখতে পায়না। আপনিও এদের দেখবেন না। জাস্ট ইগ্নোর।

একদল আছে সমস্ত আশাবাদী পোষ্টেও হতাশার কথা বলবে।

মনে রাখবেন An individual’s comment is the reflection of his or her personality. Not yours. সে দুনিয়াকে যেভাবে দেখে সেভাবেই তো বলবে। সেটা নিয়ে চিন্তিত হবার কিছু নেই। আপনার ধৈর্য থাকলে তার কমেন্টে একটা স্মাইলি দিয়ে দেন। ইচ্ছা না হলে তাও দিয়েন না।

তিন নম্বর প্রজাতী অর্থাৎ সবচেয়ে ভয়ংকর প্রজাতী, যারা বাজে কমেন্ট করে।they are the ultimate losers and sick people. তারা মানসিক রোগী। অন্যকে বাজে কথা বলার মধ্যে দিয়ে তারা বিকৃত আনন্দ লাভ করে।

তাদের নিজেদের life এ কোন life নাই, happiness নাই, achievement নাই। তাই তারা অন্যদের ভালো সহ্য করতে পারে না।এরা ফেসবুকের ইবলিশ শয়তান। এদের সাথে কখনো পাল্লা দিতে যাবেন না, বোঝাতে যাবেন না, কমেন্ট এর রিপ্লাই দিতে যাবেন না। শয়তান এর কুমন্ত্রণা থেকে যেমন দূরে থাকতে হয়, এদের তেমন দূরে রাখেন। Just block them.

সবচেয়ে বড় বিষয় কোন মানুষের পক্ষে সবাইকে সুখী করা সম্ভব না।

আপনি মহান আল্লাহর স্তুতি গাইলেও একদল হা হা দিবে, আল্লাহর existence নিয়ে তর্ক করবে। আপনি ধর্ম নিরপেক্ষ পোষ্ট দিলে একদল বলবে শিরক করতেসেন।

রাজনৈতিক পোষ্ট দিলে কেউ বলবে আওয়ামীলীগের দালাল কেউ বলবে বিএনপির।মেয়েদের পক্ষে দিলে বলবে নারীবাদী, পুরুষদের পক্ষে দিলে বলবে পুরুষদের তেল দিতেসেন।

সুখের স্ট্যাটাস দিলে বলবে, সব লোক দেখানো। দুঃখের স্ট্যাটাস দিলে বলবে ভণ্ডামি।

আপনি যাই বলেন না কেন একদল কুকুরের মত ঘেউ ঘেউ করবেই।

ধরেন এখনই একদল বলবে আপনি মানুষকে কুকুরের সাথে তুলনা করলেন কেন?

আমার উত্তর হলো, যারা ঘেউ ঘেউ করবে তাদের আমি এর থেকে ভালো উপমা দিতে পারছিনা।এতে কুকুরের সামান্য অপমান যদিও হয়েছে কিন্তু কিছু করার নাই।

আমি ইদানিং জিরো টলারেন্স নীতি হাতে নিয়েছি।শুধু আমার পোষ্টে না অন্যের পোষ্টেও কারো খারাপ কমেন্ট দেখলেও, স্বপ্রনোদিত হয়ে সেই খারাপ কমেন্টকারীর প্রোফাইলে ঢুকে তাকে ব্লক দিয়ে আসি।


আরও পড়ুনঃ

জম্মু-কাশ্মীরে সংঘর্ষ: লস্কর-ই-তাইয়্যেবার কমান্ডারসহ নিহত ৩

যদি নারী অল্প পোশাক পরে ঘোরে তার প্রভাব পুরুষের উপর পড়তে বাধ্য: ইমরান

পুলিশ বিনা ওয়ারেন্টে সাইফুলকে ধরে বন্দুক ঠেকিয়ে গুলি করে: ফখরুল

ফেসবুকে ‘হা-হা’ রিঅ্যাক্ট নিয়ে যা বললেন শায়খ আহমাদুল্লাহ


কারন, যাকে তার বাবা মা, শিক্ষক, স্কুল কলেজ এমনকি সমাজ কোন সুশিক্ষা দিতে পারে নাই, তাকে এই বয়সে আর কারো পক্ষেই মানুষ করা সম্ভব না।

যারা সমাজে নেগেটিভিটি ছড়ানো ছাড়া আর কোন অবদান রাখতে পারেনি তাদের জন্য জাতীয় স্লোগান হোক।

"বন্যেরা বনে সুন্দর, অসুস্থরা ব্লক লিস্টে"

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর

৫ জুলাই থেকে এই নিয়ম কার্যকর

শওগাত আলী সাগর

৫ জুলাই থেকে এই নিয়ম কার্যকর

হেলথ কানাডা অনুমোদিত দুটি ভ্যাকসিনই নিয়েছেন এমন কানাডীয়ান নাগরিক, স্থায়ী বাসিন্দাদের (পিআর) কানাডায় ফিরে এসে বিমানবন্দরে বাধ্যতামূলক হোটেল কোয়ারিন্টিনে থাকতে হবে না।

আরও পড়ুন:


জম্মু-কাশ্মীরে সংঘর্ষ: লস্কর-ই-তাইয়্যেবার কমান্ডারসহ নিহত ৩

যদি নারী অল্প পোশাক পরে ঘোরে তার প্রভাব পুরুষের উপর পড়তে বাধ্য: ইমরান

পুলিশ বিনা ওয়ারেন্টে সাইফুলকে ধরে বন্দুক ঠেকিয়ে গুলি করে: ফখরুল

২ হাত ও টুকরো করা পা এক নারীর, ধারণা পুলিশের


তবে তাদের কানাডার উদ্দেশ্যে যাত্রার আগে এবং কানাডায় পৌঁছার পর কোভিড টেস্ট করতে হবে। ৫ জুলাই থেকে এই নিয়ম কার্যকর হবে।

news24bd.tv / তৌহিদ

পরবর্তী খবর

কাল থেকে মানিকগঞ্জসহ কয়েকটি জেলায় লকডাউন, কি তাজ্জবকাণ্ড!

সাইফউদ্দিন আহমেদ নান্নু

কাল থেকে মানিকগঞ্জসহ কয়েকটি জেলায় লকডাউন, কি তাজ্জবকাণ্ড!

সাইফউদ্দিন আহমেদ নান্নু

বিকেলে কর্মস্থল থেকে বাসায় ঢুকতেই গৃহপ্রধান বললেন,‘কাল থেকে মানিকগঞ্জে লকডাউন, সত্যি নাকি?’ আমি তাঁর কথা শুনে রীতিমত আকাশ থেকে পরলাম। বলে কি!  চিন্তায় পরে গেলাম, তাঁর মাথায় কোন গোলমাল হয়নিতো!

আমি অবিশ্বাসভরা বিস্ময় নিয়ে বললাম,‘বুঝলাম না’। এবার তিনি দৃঢ়তার সাথে বললেন, ‘কাল থেকে মানিকগঞ্জে লকডাউন, টিভিতে দেখাচ্ছে, দ্যাখো।’

এবার মনে হল ঘটনা বোধ হয় সত্য। টিভির টিকার দেখে নিশ্চিত হলাম, আগামীকাল থেকে মানিকগঞ্জসহ কয়েকটি জেলায় লকডাউন! কি তাজ্জবকাণ্ড!!! 

এবার বলি লকডাউন শুনে আকাশ থেকে কেন পড়লাম, আর বিস্মিতইবা হলাম কেন।

আজসহ গত দুমাসে পেশাগত কাজে আগের যেকোন সময়ের চেয়ে শহরে বেশী গেছি। বাজারে গেছি, কর্মস্থলে গেছি। শহর, শহরের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, অফিসে, শপিংমলে, মানুষের চলাচল দেখে আমার একবারও মনে হয়নি দেশে করোনা নামের কোন মহামারীকাল চলছে। 

কেবল আমার মত শতকরা ৫ ভাগ উজবুক নাকমুখ ঢেকে মাস্ক পরে চলেছে। আরও ১০ ভাগের মুখে মাস্ক দেখেছি, তবে তা থুতনীর নীচে ছাগলের দাঁড়ির মত ঝুঁলছে। আর সামাজিক দূরত্ব বলতে যা বোঝায় তার চৌদ্দগুষ্ঠির বালাই ছিলনা কোথাও। সম্পূর্ণ স্বাভাবিক একটি শহর। করোনা নিয়ে কোন ভয়, দুশ্চিন্তা কোত্থাও কিচ্ছু ছিল না, সব স্বাভাবিক।

করোনার প্রথম ঢেউয়েরকালে স্থানীয় পত্রিকা, তাদের অনলাইন ভার্সনে প্রতিদিন জেলার করোনা পরিস্থিতির আপডেট দিতো। গত ৬ মাস ধরে তাও কেউ দেয় না। 

এমন শান্ত, উদ্বেগহীন নিস্তরঙ্গ শহরে হটাৎ করে লকডাউন নামবে বলে কেউ যখন বলে, তখন বিস্মিত হয়ে আকাশ থেকে পরাটাই স্বাভাবিক। 

‘বিধিনিষেধে’র কাল ডিঙিয়ে নামা লকডাউনের ড্রামাটা কেমন জমে।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

আমেরিকার নাগরিকদের হ্যান্ডগান কেনার অনুমতি থাকার ফল তারা পাচ্ছে

শওগাত আলী সাগর

আমেরিকার নাগরিকদের হ্যান্ডগান কেনার অনুমতি থাকার ফল তারা পাচ্ছে

পাঁচ বছরের, ১১ বছরের বাচ্চা যদি গুলিবিদ্ধ হয়, তাও আবার কোনো জন্মদিনের উৎসবে আনন্দ করত গিয়ে, কেমন লাগবে আপনার! আর যদি এক বছরের একটি শিশু গুলিবিদ্ধ হয়! শনিবার সন্ধ্যায় মর্মান্তিক এই ঘটনা ঘটেছে শহরের ইটোবিকো এলাকায়।

২৩ বছরের এক যুবক বাদে ওই ঘটনায় গুলিবিদ্ধ পাঁচজনের চারজনই বিভিন্ন বয়সের শিশু, যারা একটি জন্মদিনের পার্টিতে আনন্দমগ্ন ছিলো। জন্মদিনটা গুলিবিদ্ধ এক বছর বয়সীর শিশুরই ছিলো কী না তা এখনো জানা যায়নি। সত্যি বলতে কি পুলিশ এখন পর্যন্ত ঘটনার কারণ সম্পর্কে কোনো তথ্যই প্রকাশ করেনি।

আরও পড়ুন:


ইরানের নতুন প্রেসিডেন্টের সংবাদ সম্মেলন কাল

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল পরীক্ষা স্থগিত

‘ড্যাব’কে অনুরোধ জানাব ফখরুলের মানসিক পরীক্ষা করাতে: তথ্যমন্ত্রী


ইটোবিকো এবং তৎসংলগ্ন এলাকাসহ শহরের বেশ কিছু এলাকায় প্রায় প্রতিদিনই গুলি, ছুরিকাহতের ঘটনা ঘটে। এক বছরের কম সময় হাতে থাকা নির্বাচন নিয়ে প্রভিন্সিয়াল রাজনীতিকরা ভীষন ব্যস্ত, কিন্তু তাদের কেউ এই বিষয় নিয়ে তেমন কোনো কথা বলেন না। এখন পর্যন্ত কেউ শহরের এই উৎপাত নিয়ে কথা বলছেন বলে শোনা যায়নি। ‘এইগুলো শহরের অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে থাকা এলাকার ব্যাপার’- রাজনীতিকদের মনে এই ভাবনা কাজ করছে কী না জানি না। কিন্তু ‘অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে থাকা নেইবারহুডের সহিংসতা অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে থাকা নেইবারহুডে’ যেতে কতোক্ষণ!

ক্ষুব্দ মেয়র জন টরি প্রশ্ন তুলেছেন, এই শহরে মানুষের হাতে হ্যান্ডগান থাকার অনুমোদন কেন থাকতে হবে! এই প্রশ্নটা আমিও করি। প্রতিবেশী আমেরিকায় নাগরিকদের হ্যান্ডগান কেনার অনুমতি থাকার ফলাফল তারা পাচ্ছে। কানাডা কেন ভিন্নভাবে ভাববে না! কানাডার রাজনীতিকরা কেন মানুষ নিয়ে ভাববে না!

শওগাত আলী সাগর, প্রধান সম্পাদক, নতুনদেশ, কানাডা।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

পুরুষেরা প্রেমিকাকে সব অঙ্গ স্পর্শ করতে দিলেও সম্পত্তি মোটেও স্পর্শ করতে দেয় না

তসলিমা নাসরিন

পুরুষেরা প্রেমিকাকে সব অঙ্গ স্পর্শ করতে দিলেও সম্পত্তি  মোটেও স্পর্শ করতে  দেয় না

কিছু খবর দেখতে না চাইলেও ফেসবুক দেখিয়ে ছাড়ে।  খবরগুলো, বলতেই হবে,   চোখের সামনে বড্ড  নাচানাচি করে।   শোভন-বৈশাখী-রত্না নিয়ে খবরের পর খবর। শোভনবাবু তাঁর প্রেমিকাকে নিজের সব সম্পত্তি লিখে দিয়েছেন!  পুরুষেরা  তো প্রেমিকাকে শরীরের সব অঙ্গ স্পর্শ করতে দিলেও নিজের  স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তি  মোটেও স্পর্শ করতে  দেয় না।

 প্রেমিকা নিয়ে দিন রাত পড়ে থাকলেও  নিজের যা আছে তা স্ত্রী পুত্রর জন্যই রাখে। এর অন্যথা তো হয়না।  কোনও লোক যদি অবিশ্বাস্য এবং অভিনব ঘটনা ঘটায়, ঘটাক না। আজকাল তো ব্যতিক্রম জিনিসটা উঠে গেছে। সবাই সবার মতো দেখতে। সবাই সবার মতো ভাবছে, কথা বলছে, কাজ করছে। একটু ভিন্ন কিছু দেখলে চোখ জুড়োয়।

তসলিমা নাসরিন

news24bd.tv/এমিজান্নাত 

 

পরবর্তী খবর