কিছুতেই কান্না থামছিলো না বুবলির

অনলাইন ডেস্ক

কিছুতেই কান্না থামছিলো না বুবলির

ঈদ নিয়ে আনন্দ-বেদনার স্মৃতি সবারই থাকে। ব্যতিক্রম নন চিত্রনায়িকা বুবলি ও। সম্প্রতি ঈদ নিয়ে নিজের আবেগঘন একটি স্মৃতি শেয়ার করেছেন তিনি।

সেই স্মৃতি নিয়ে বুবলী বলেন, একেবারে ছোটবেলার একটা ঘটনা মনে পড়ছে এখন। ড্রেসের জন্য খুব কান্না করেছি। তখনকার সময়ে ঈদের আগে আমরা কাউকে ড্রেস দেখাতাম না।

ঈদের দিন সকাল বেলা আমার তিনজন বান্ধবী আসে। দরজা খুলতেই দেখি ওদের একজনের ড্রেসের রংয়ের সঙ্গে আমার ড্রেসের রং মিলে গেছে। দেখে আমার খুব খারাপ লেগেছে। আম্মুকে বললাম আমার ড্রেসের কালার মিলে গেছে। এটা আমি পরতে পারব না।

একথা শুনে আম্মু আমাকে বোঝানোর চেষ্টা করলেন ঈদের দিন দোকান বন্ধ থাকে। কিন্তু আমার কান্না কিছুতেই থামছে না। প্রচন্ড কান্না করলাম। এর মধ্যে আব্বু আসলো। আমার কান্না থামাতে মার্কেটে বের হলাম। দেখলাম সমস্ত দোকান বন্ধ। একটা দোকান খোলা ছিল।


আরও পড়ুনঃ


গ্রহাণু ঠেকাতে অন্তত পাঁচ বছর সময় লাগবে: নাসা

তাহসান-মিথিলার ‘সারপ্রাইজ’-এর রহস্য উন্মোচন, আড়ালে অন্য কেউ

ইসরায়েলের হামলা নিয়ে নোয়াম চমস্কির টুইট

ইসরায়েলের হামলা মানবতাবিরোধী অপরাধ: মিয়া খলিফা


আব্বু দোকানদারকে বললো মেরুন কালার বাদ দিয়ে যত কালার আছে দেখান। উনারাও দেখছেন আমি তখনো কান্না করছি। উপস্থিত সবাই তখন হাসছিলেন। ওখান থেকে পিংক কালারের একটা ড্রেস কিনে নিই। ভাবতেই অবাক লাগে আমরা কতটা এক্সাইটেড ছিলাম।

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর

ক্লাবে ঢুকে মদ না পেয়ে তারা ভাঙ্গচুড় চালায় : ক্লাব কর্তৃপক্ষ (ভিডিও)

নাঈম আল জিকো

বোট ক্লাবে যাবার আগের রাতে, মাতাল অবস্থায় গুলশানের অল কমিউনিটি ক্লাবে গিয়ে মদের দাবিতে ভাংচুর চালানোর অভিযোগ উঠেছে আলোচিত নায়িকা পরিমণির বিরুদ্ধে। 

সিসিটিভি ফুটেজ সরবরাহ করে, সংবাদ সম্মেলনে ক্লাব কর্তৃপক্ষ জানায়, পরিমণি এবং তার সাথে থাকা বন্ধুরা, ৮ জুন মধ্যরাতে ক্লাবের গ্লাস ও প্লেট ভাংচুর করে। পুলিশ জানায়, এ বিষয়ে গুলশান থানায় একটি জিডিও করা হয়েছিল।

৮ জুন মধ্যরাত গুলশানের অল কমিউনিটি ক্লাব। ঘটির কাঁটায় রাত ১ টা ৪১ মিনিট। সিসিটিভির ফুটেজে দেখা যায় চিত্রনায়িকা পরীমনিসহ চারজন টলতে টলতে চাপেন লিফটের বাটন। চলতে চলতে লাথিও মারেন সঙ্গে থাকা মেকাপ আর্টিস্টকে। ক্লাবের নিয়ম ভঙ্গ করে হাফপ্যান্ট পরে ঢোকার কারনে উপস্থিত এক পরিচালকের সাথে কিছু বচসাও হয় বলে জানাযায়। তার আপত্তি উপেক্ষা করে জোর করে ক্লাবে ঢোকেন।

ক্লাবে ঢুকে তারা মদ খোঁজ করতে থাকেন। না পেয়ে তারা ভাঙ্গচুড় চালান। নিজেরাই ৯৯৯ নম্বরে কল করে পুলিশ ডাকেন। পুলিশও তাদের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়। রাত ২টা ৪১ মিনিটে তারা ক্লাব ছাড়েন। বোটক্লাবে যে চারজন তার সঙ্গি ছিল, তারাই এদিনও সঙ্গে ছিল। পরীমনির সাথে তার এক প্রাক্তন প্রেমিকও ছিল বলে জানায় ক্লাব কর্তৃপক্ষ। পরে তার প্রভাব প্রতিপত্তির কথা জেনে বিষয়টি আপশ করার চিন্তা করেছিল তারা। তবে বোট ক্লাবের ঘটনার পর বিষয়টি তারা জনগণের সামনে আনার সিদ্ধান্ত নেয়।

আরও পড়ুন

 


পরীমনি কেনো এতো রাতে বোট ক্লাবে যাবে: সোহান (ভিডিও)

অল কমিউনিটি ক্লাবে ভাঙচুরের অভিযোগ অস্বীকার করলেন পরীমনি (ভিডিও)

মদ পানে গভীর রাতে যুবক-যুবতী নিয়ে ক্লাবে যেতেন পরীমনি


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

পরীমনিকে সতর্ক করা হবে

পরীমনি কেনো এতো রাতে বোট ক্লাবে যাবে: সোহান (ভিডিও)

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি সোহানুর রহমান সোহান বলেছেন, আমরা ব্যবস্থা নিব। তাকে সতর্ক করা হবে। সে কেনো এতো রাতে বোট ক্লাবে যাবে, তার এতো বড় বাসা সে বাসায়ই করতে পারত।

পরীমনির ঘটনায় প্রতিক্রিয়া জানিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, চলচ্চিত্র শিল্পের স্বার্থে শিগগিরই পরীমনিকে সতর্ক করা হবে।

news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

অল কমিউনিটি ক্লাবে ভাঙচুরের অভিযোগ অস্বীকার করলেন পরীমনি (ভিডিও)

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর গুলশানের অল কমিউনিটি ক্লাবে চিত্র নায়িকা পরীমনির বিরুদ্ধে ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে। গত ৭ জুন পরীমনি ও তার সঙ্গে আরও কয়েকজন ওই ক্লাবে গিয়ে গ্লাস ভাঙচুর করেছেন বলে এই অভিযোগ তোলা হয়েছে।

তবে অল কমিউনিটি ক্লাবে ভাঙচুরের অভিযোগ অস্বীকার করেন আলোচিত এই নায়িকা।

বুধবার রাতে বনানী বাসায় সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন পরীমনি। সিসিটিভির ফুটেজও মিথ্যা বলেন তিনি। এ সময় এতোদিন পর বিষয়টি নিয়ে কথা বলছে অল কমিউনিটি ক্লাব কতৃপক্ষ এমন প্রশ্নও তোলেন তিনি।

news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

এবার আবু ত্ব-হা আদনানের সন্ধান চাইলেন আসিফ আকবর

নিজস্ব প্রতিবেদক

এবার আবু ত্ব-হা আদনানের সন্ধান চাইলেন আসিফ আকবর

গত ১০ তারিখে নিখোঁজ হন ইসলামি বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান। আজ সপ্তম দিনেও খোঁজ মেলেনি তার। পরিবারের পক্ষ থেকে তার সন্ধান চেয়ে জিডিও করা হয়েছে। এর আগে তার সন্ধান চেয়ে ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছিলেন জাতীয় দলের ক্রিকেটার সোহরাওয়ার্দী শুভ।

এবার দেশের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী আসিফ আকবর ইসলামি বক্তা আবু ত্ব-হা আদনানের সন্ধান চেয়ে আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়েছেন।
বৃহস্পতিবার নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুকে আবু ত্ব-হার সন্ধান চেয়ে পোস্ট দেন এই সংগীতশিল্পী।

পাঠকদের উদ্দেশে আবু ত্ব-হা আদনানকে নিয়ে আফিস আকবরের ফেসবুক স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো -

‘আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান সাহেবকে আমি চিনি না। কখনও উনার নামও শুনিনি, এটি হয়তো আমার অজ্ঞতা। নিউজে দেখলাম তিনি একজন মেধাবী তরুণ ক্রিকেটার ছিলেন। আগে গিটারও বাজাতেন টুকটাক। একসময় ইসলামের পথে নিজেকে উজাড় করে দিয়ে একজন তরুণ ইসলামি বক্তা হয়ে ওঠেন। গত আট দিন ধরে তিনি নিখোঁজ। মিডিয়ায় আদনান সাহেবের স্ত্রীর বক্তব্য শুনে মনটা খুব খারাপ হয়ে গেল। একজন স্ত্রী হিসেবে ভদ্রমহিলা শুধু তার স্বামীর সন্ধান চান। আদনান সাহেব রাষ্ট্রবিরোধী কোনো কাজ করে থাকলে সেটিরও বিচার চান। প্রয়োজনে দেশ ছেড়ে চলে যাওয়ার কথাও বলেছেন।’

আসিফ আরও লিখেছেন - ‘জন্ম থেকে এসব দেখেই যাচ্ছি শুধু। আমার আর বাংলাদেশের বয়স সমান। মানুষ হারিয়ে যাওয়া অনেক কষ্টের। একটা স্বাধীন দেশে এ ধরনের অনিয়ম মানা খুবই কষ্টকর। মাঝেমধ্যে নিজেও ভাবি - কখন যে উধাও হয়ে যাই। একটা সাধারণ গৃহপালিত প্রাণী হারিয়ে গেলেও অনেক এলোমেলো হয়ে যায় মন। সেখানে জ্বলজ্যান্ত মানুষ হারিয়ে গেলে পরিবারের যন্ত্রণা কী হতে পারে, সেটি সহজেই অনুমেয়। আধুনিক প্রযুক্তির যুগে এ ধরনের নিখোঁজ হওয়া ভিকটিমদের ব্যাপারে দেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যথেষ্ট স্মার্ট। আশা করি প্রশাসন আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানের সন্ধান পাবেন এবং তিনিও তার পরিবারের কাছে ফিরে যেতে পারবেন।'

আরও পড়ুন


সিলেটে মা ও ভাই-বোনকে হত্যা: নানাবাড়িতে থাকায় বেঁচে যায় আফসান

নওগাঁয় ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার শাস্তি তিন থাপ্পড়, জরিমানার টাকাও মাতব্বরের পকেটে

যানজট থেকে মুক্তি দিতে জয়দেবপুর-কমলাপুর বিশেষ ট্রেন

পরমাণু যুদ্ধ এড়িয়ে চলতে পুতিন-বাইডেনের যৌথ বিবৃতি


এই সংগীতশিল্পী লেখেন - ‘একজন খেলোয়াড় ও সংগীতপ্রেমী সব জাগতিক খায়েস ছেড়ে ইসলামের খেদমতে নিজের জীবন উৎস্বর্গ করেছেন। সংস্কৃতিমনা মানুষ যত কিছুই করুক না কেন, কখনও নৃশংস হতে পারে না, মানুষ খুন করতে পারে না। শুধু আদনান সাহেব নয়, এই ধরনের ঘটনা যেন কখনই না ঘটে, সে বিষয়ে সামাজিক, রাজনৈতিক এবং রাষ্ট্রীয় সচেতনতা খুব প্রয়োজন। আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান এবং তার নিখোঁজ সঙ্গীরা সহিসালামত আমাদের মাঝে ফিরে আসুন, এই দোয়া করি, রাষ্ট্রের কাছেও দারি রইল। মহান আল্লাহ তাদের পরিবারকে ধৈর্য ধরার শক্তি দিন।’

প্রসঙ্গত গত বৃহস্পতিবার (১০ জুন) বিকেল ৪টার দিকে তিন সঙ্গীসহ আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান রংপুর থেকে ভাড়া করা একটি প্রাইভেটকারে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন। ওই দিন রাত আড়াইটার দিকে গাবতলী এলাকা থেকে তারা নিখোঁজ হন। 

নিখোঁজের সময় আদনানের সঙ্গে আব্দুল মুকিত, মোহাম্মদ ফিরোজ ও গাড়িচালক আমির উদ্দিন ফয়েজ ছিলেন। এখন পর্যন্ত তাদের কারোরই সন্ধান পাওয়া যায়নি। এমনকি ওই গাড়িরও কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

মদ পানে গভীর রাতে যুবক-যুবতী নিয়ে ক্লাবে যেতেন পরীমনি

নিজস্ব প্রতিবেদক

মদ পানে গভীর রাতে যুবক-যুবতী নিয়ে ক্লাবে যেতেন পরীমনি

প্রায়শই মাঝ রাতে রাজধানীর বিভিন্ন ক্লাবে যেতেন বর্তমানের আলোচিত চিত্রনায়িকা পরীমনি। কিন্তু মানতেন না কোনো নিয়ম কানুন। নিজের খেয়াল খুশিমত গভীর রাতে বিভিন্ন যুবক-যুবতী নিয়ে মদ্যপান করতেন।  

পুলিশ ও গোয়েন্দারা জানিয়েছেন, পরীমনি তার কস্টিউম ডিজাইনার জিমিসহ কয়েকজন যুবক-যুবতী নিয়ে প্রায়রাতেই অভিজাত ক্লাব ও তারকা হোটেলে ঘুরে বেড়াতেন। তাদের সঙ্গে নিয়ে মদ পান করতেন মধ্যরাত পর্যন্ত। এক্ষেত্রে প্রায় রাতেই তার কারণে ক্লাবের আইন ভাঙা হতো। বিশেষ করে হাফপ্যান্ট পড়ে তার সঙ্গী হওয়া জিমি ড্রেসকোডের তোয়াক্কা করতেন না কখনোই। এক ক্লাবে সময় কাটিয়ে তিনি যেতেন আরেক ক্লাবে।

ঢাকা বোট ক্লাবের ঘটনার আগের রাতে রাজধানীর হাতিরঝিলের পুলিশ প্লাজা সংলগ্ন অল কমিউনিটি ক্লাবে ভাঙচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। 

বুধবার (১৬ জুন) রাত সাড়ে ৭টার দিকে অল কমিউনিটি ক্লাবের সভাপতি কে এম আলমগীর গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে ৮ জুন রাতে পরী মনির ভাঙচুরের ঘটনা তুলে ধরেন।

ক্লাবের সভাপতি বলেন, নিয়ম অনুযায়ী রাত ১১টায় ক্লাব বন্ধ করে দেওয়া হয়। কিন্তু রাত প্রায় ১টা ৪০ মিনিটের দিকে পরী মনি এক সদস্যের মাধ্যমে ক্লাবের বারে প্রবেশ করে মদ অর্ডার করেন। মদের একটি বোতল তার টেবিলেও দেওয়া হয়। কিন্তু ওয়েটাররা পরিবেশন করতে রাজি না হওয়ায় ক্ষীপ্ত হয়ে ওঠেন পরীমনি। এক পর্যায়ে ১৫টি গ্লাস, ৯টি স্ট্রে ও বেশ কিছু গ্লাস ভাঙচুর করে বেরিয়ে যান। এ সময় তার সঙ্গে দুইজন পুরুষ ও একজন নারী ছিলেন।

বুধবার (১৬ জুন) অল কমিউনিটি ক্লাবে ভাঙচুরের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গুলশান বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) সুদীপ কুমার চক্রবর্তী।

তিনি বলেন, পরীমণি ওই ক্লাবের সদস্য নন। ৮ জুন (মঙ্গলবার) রাতে তিনি ক্লাবে অনুপ্রবেশ করেন। তারপর ক্লাবের সদস্যদের সঙ্গে তার বাগবিতণ্ডা ও তর্কবিতর্ক হয়। ঘটনাস্থল থেকে একজন জরুরি সেবা ৯৯৯ এ ফোন দেয়। ফোন পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ।

তিনি আরও বলেন, ৯৯৯ থেকে গুলশান থানায় ফোন করলে সেখানে পুলিশ পাঠানো হয়। পুলিশ গিয়ে তাদের মধ্যে বাকবিতণ্ডা দেখতে পায়। এরপর পুলিশ থানায় ফিরে এসে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) আকারে গোটা বিষয়টি থানায় অবগত করে।

গুলশান থানা জানায়, সাধারণত ৯৯৯ থেকে কোনো ডাক পেলে সেই ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ কী পেল না পেল ইত্যাদি অবগত করতে হয়। তার অংশ হিসেবেই সেদিনের ক্লাবের ঘটনাটি পুলিশ জিডি আকারে লিখে রাখে।

জানতে চাইলে পরীমনি বলেন, এটা ফালতু একটা অভিযোগ। এত দিন পরে কেন এই অভিযোগ?

গুলশান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম বলেন, ৭ জুন গভীর রাতে ৯৯৯–এর একটি কলে গুলশান থানা-পুলিশের একটি দল অল কমিউনিটি ক্লাবে যায়। সেখানে গিয়ে দেখা যায়, কথা-কাটাকাটির জেরে ক্লাবে গ্লাস ভাঙচুর করেছেন পরীমনি। পরে আর এ ঘটনায় কেউ অভিযোগ করেননি।

৮ জুন পরীমনি ঢাকা বোট ক্লাবে গেলে সেখানে তাকে ধর্ষণ ও হত্যার চেষ্টা হয় বলে অভিযোগ করেন। এই ঘটনায় গত সোমবার ৬ জনকে আসামি করে মামলা করেন ঢাকাই সিনেমার আলোচিত এই নায়িকা। মামলার পর পুলিশ প্রধান দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর