আ.লীগ ক্ষমতায় এলেই সাংবাদিক নির্যাতন : মির্জা ফখরুল
আ.লীগ ক্ষমতায় এলেই সাংবাদিক নির্যাতন : মির্জা ফখরুল

আ.লীগ ক্ষমতায় এলেই সাংবাদিক নির্যাতন : মির্জা ফখরুল

অনলাইন ডেস্ক

আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে সব সময়ই সাংবাদিক নির্যাতন ও সংবাদপত্রের স্বাধীনতা ক্ষুন্ন হয় বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ বৃহস্পতিবার এক ভার্চুয়াল আলোচনায় তিনি এ অভিযোগ করেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এই আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই একের পর এক সাংবাদিকদের ওপর অত্যাচার-নির্যাতন নেমে এসেছে। সংবাদপত্রের ওপর অত্যাচার-নির্যাতন নেমে এসেছে এবং সংবাদপত্র বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

সাংবাদিকদের দেশ থেকে চলে যেতে বাধ্য করা হচ্ছে। হত্যা পর্যন্ত করা হচ্ছে।

রোজিনা ইসলামের ঘটনার প্রসঙ্গ টেনে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘যখন আমাদের লোকজনদেরকে ধরে নিয়ে যায়, যখন রিমান্ডে দেয়, যখন মারদোর করে নির্যাতন করে, গুম করে, খুন করে তখন আমরা দেখি যে, দুর্ভাগ্যভাবে অনেক সংবাদ মাধ্যমে সেগুলো সম্পর্কে নিরব থাকে। কেউ কেউ আবার আপনার ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াতে সেটাকে ডিফেন্ড করে সরকারের ভুমিকাটা কী। এই জিনিসগুলো কিন্তু ডা্বল স্ট্যান্ডা্র্ড। আজকে কেনো এই অবস্থা?’

‘রোজিনা ইসলামের পক্ষে সব সাংবাদিকরা ঐক্যবদ্ধ হয়েছেন শুনলাম। আমি মনে করি-এই ঐক্য কতক্ষন টিকবে? সাগর-রুনির হত্যাকান্ডের পর দুই পক্ষই তারা এক সাথে রাস্তায় নেমেছিলেন। ৪/৫ দিনও যায়নি। একজন আপনার উপদেষ্টা হয়ে গেছেন সরকারের, আর কয়েকজন হালুয়া-রুটি দিয়ে তাদেরকে টেনে নিয়ে যাওয়া হয়। আমার কথাগুলো দুঃখিত আমি স্পষ্ট করে বলছি। ” 

তিনি বলেন, ‘‘ যতক্ষন পর্যন্ত আমরা হালুয়া-রুটির সন্ধানে থাকবো, যতক্ষন পর্যন্ত আমরা এই ফেভারের সন্ধানে থাকবে, ততক্ষন পর্যন্ত এই যে, রোজিনা ইসলামের মতো সাহসী সাংবাদিক যারা নিজের জীবন বিপন্ন করে আজকে সত্য কথাগুলো তুলে ধরে তাদেরকে রক্ষা করতে পারবে না –এটাই বাস্তবতা। ”

মির্জা ফখরুলের সভাপতিত্বে ও প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানির পরিচালনায় ‘অবরুদ্ধ গণতন্ত্র, শৃঙ্খলিত গণমাধ্যম, মুক্তির পথ কী’ শীর্ষক সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, মানবাধিকার সম্পাদক অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান বক্তব্য দেন।

সাংবাদিকদের মধ্যে জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি কামাল উদ্দিন সবুজ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি আবদুল হাই শিকদার, বর্তমান সভাপতি কাদের গনি চৌধুরী, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান ও মানবাধিকারকর্মী অ্যাডভোকেট এলিনা খান ভার্চুয়াল আলোচনায় অংশ নেন।

news24bd.tv/আলী 

;