সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ: পত্রিকার বিকল্প কখনোই ফেসবুক না
সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ: পত্রিকার বিকল্প কখনোই ফেসবুক না

সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ: পত্রিকার বিকল্প কখনোই ফেসবুক না

Other

ফেসবুকে লিখতেই আমি পছন্দ করি। আগ্রহও বেশি। অনেকেই জিজ্ঞেস করেন পত্রিকায় কেন লিখি না? পত্রিকাতে লিখলেতো আর্কাইভ থাকে। পরে সম্পাদনা করে বইও বের করা যায়।

নিজের ঝুলিতে অনেক কিছু জমাও হয়।

কথা সত্য। নিজের ঝুলি আমার বরাবরই শূন্য। শূন্য ঝুলি পূর্ণ করতেও চাই না। পত্রিকার জন্য বড় বড় লেখা আমার ধৈর্যে কুলায় না। কয়েক প্যারা লেখার পরই আর মনের ভাব সম্প্রসারণ হয় না। আর আমি লেখা শুধুই বড় করার জন্য আজাইরা প্যাচালও করতে পারিনা।

আর আমার লেখা ছাপাবেই বা কে। কাউকে অনুরোধ করতেও ইগোতে লাগে।

আরো একটা কারণ আছে। পত্রিকার লেখা হয় এক তরফা। পাঠকের মতামত খুব একটা জানা যায় না। ফেসবুকে লেখার সুবিধা হচ্ছে সহমত-অসহমত-বিক্ষুব্ধতা সব বুঝা যায়। অনেকে তথ্যের অনেক নতুন সংযুক্তিও দেন। এই আইডিয়া নিয়েও নিজেকে অনেক সমৃদ্ধ করা যায়।


আরও পড়ুন


ফিলিস্তিনে নিপীড়ন নিয়ে সাবেক ইসরায়েলি পাইলটের স্বীকারোক্তি

ইসরায়েলকে বিভ্রান্ত করতে হামাসের নতুন কৌশল

রাশিয়ার সামরিক বাহিনীতে যোগ হচ্ছে যুদ্ধ-রোবট, গণ উৎপাদন শুরু

নাগরিকদের সিনোফার্ম টিকার তৃতীয় ডোজ দেয়ার ঘোষণা আমিরাত-বাহরাইনের


এরপর সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ হচ্ছে, পত্রিকার বিকল্প কখনোই ফেসবুক না। পত্রিকাতে দায়বদ্ধতা থাকে ফেসবুকে থাকে না। তাই ভুল শুদ্ধ মিলিয়ে যে যা ইচ্ছা লিখতে পারে। দ্যাখেন না, ফেসবুকে ভুলভাল তথ্য দিয়ে লিখে ও টকশো করে আলতু ফালতু কত সেলিব্রেটি হয়ে গেছে??

news24bd.tv / নকিব