১৬৫ কিমি গতিতে বুধবার ভোরেই আঘাত হানতে পারে ইয়াস

অনলাইন ডেস্ক

১৬৫ কিমি গতিতে বুধবার ভোরেই আঘাত হানতে পারে ইয়াস

অবশেষে সব পূর্বাভাস সত্যি করে দিয়ে অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিলো ইয়াস। আবহাওয়াবিদরা ক’দিন ধরেই বলে আসছিলেন, মঙ্গলবার (২৫ মে) রাতে ভয়ঙ্ককর রূপ ধারণ করবে সামুদ্রিক এ ঝড়টি। মঙ্গলবার ভারতের স্থানীয় সময় রাত সাড়ে ৮টায় সেখান আবহাওয়া অফিসের এক বুলেটিনে বলা হয়, গত সাড়ে ৫ ঘণ্টায় স্থলভাগের আরও কাছে চলে এসেছে ইয়াস। এখন ইয়াসের অবস্থান পূর্ব মেদিনীপুরের দিঘা সৈকত থেকে মাত্র ২৪০ কিলোমিটার দূরে উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে। বুধবার ভোরেই তা স্থলভাগে পৌঁছে যেতে পারে। তাই পশ্চিমবঙ্গ এবং ওড়িশা উপকূলে লাল সতর্কতা জারি করেছে আবহাওয়া অফিস।

বুধবার ভোরেই সেখানে হানা দিতে পারে ‘অতি শক্তিশালী’ ইয়াস। বুধবার দুপুর পর্যন্ত সেখানে প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের সম্ভাবনা রয়েছে। দীর্ঘ সময় ধরে অতি শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় বইতে থাকার পূর্বাভাস ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কাও বাড়াচ্ছে। এর আগে মঙ্গলবার দুপুর ১২টা ১৫ মিনিটে ঘূর্ণঝড়ের গতিবেগ ঘণ্টায় ১৭ কিলোমিটার থাকলেও পরবর্তী ৬ ঘণ্টায় তা হয়েছিল ১৫ কিলোমিটার। এখনও সেই গতিই বজায় রেখেছে ইয়াস।

বুলেটিনে বলা হয়েছে, ইয়াস স্থলভাগে আছড়ে পড়ার আগে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে উত্তর বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড়ের গতিবেগ ১৩৫ থেকে ১৪৫ কিলোমিটার, সর্বোচ্চ (গাস্টিং) ১৬০ কিলোমিটার হতে পারে। বুধবার সকালে তা বেড়ে দাঁড়াতে পারে ১৫৫-১৬৫ কিলোমিটার, সর্বোচ্চ (গাস্টিং) ১৮৫ কিলোমিটার।

অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় ইয়াস ও পূর্ণিমার প্রভাবে খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, ঝালকাঠি, পিরোজপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, ভোলা, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর ও চট্টগ্রাম জেলার নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে তিন থেকে ছয় ফুটের বেশি উচ্চতার জোয়ারে প্লাবিত হতে পারে।

মঙ্গলবার (২৫ মে) আবহাওয়া অধিদপ্তরের এক বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে এমন খবর দেওয়া হয়েছে।

এদিকে উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত প্রবল ঘূর্ণিঝড় ইয়াস আরও উত্তর-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর ও ঘনীভূত হয়ে অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড় আকারে একই আলাকায় অবস্থান করছে।

আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, ঘূর্ণিঝড়টি মঙ্গলবার (২৫ মে) সন্ধ্যা ৬টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৫৩৫ কিমি দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৫০৫ কিমি দক্ষিণপশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৩৯০ কিমি দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে ও পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৩৯০ কিমি দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছিল।

অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড়টি আরও উত্তর-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে বুধবার দুপুর নাগাদ উড়িষ্যা-পশ্চিমবঙ্গ উপকূল অতিক্রম করতে পারে।

অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৭৪ কিমির মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১২০ কিমি, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ১৪০ কিমি পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের কাছের সাগর খুবই বিক্ষুব্ধ রয়েছে।

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে তিন নম্বর সতর্কসংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়া অফিস জানায়, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, চাঁদপুর,  কক্সবাজার, ঢাকা, ফরিদপুর, মাদারীপুর, কুষ্টিয়া ও যশোর অঞ্চলের উপর দিয়ে ঘণ্টায় ৬০ থেকে ৮০ কিলোমিটার বেগে বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টিসহ ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। তাই এসব এলাকার নদীবন্দরসমূহকে দুই নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

এছাড়া দেশের অন্যান্য স্থানে ৪০ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টিসহ ঝড় বয়ে যেতে পারে। তাই এসব এলাকার নদীবন্দরসমূহকে ১ নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

ইয়াস নামটি দিয়েছে ওমান, এটি একটি পার্সিয়ান শব্দ। ইংরেজি জেসমিন আর বাংলায় জুঁই ফুল বলা হয় একে।

news24bd.tv/আলী 

পরবর্তী খবর

টিকা আনতে সর্বাত্মক চেষ্টা চলছে : জয়

অনলাইন ডেস্ক

টিকা আনতে সর্বাত্মক চেষ্টা চলছে : জয়

যত দ্রুত সম্ভব দেশের প্রতিটি নাগরিককে করোনাভাইরাসের টিকা-করণের আওতায় আনতে সর্বাত্মক চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। তিনি বলেন, এই জন্য টিকা উৎপাদনকারী সকল দেশের সঙ্গে কূটনৈতিক তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

বৃহস্পতিবার ব্যক্তিগত ফেসবুক পাতায় এক স্ট্যাটাসে এসব কথা জানান  সজীব ওয়াজেদ জয়।

জয় স্ট্যাটাসে লিখেছেন, করোনার টিকা নিন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। অর্থনীতিকে সমুন্নত রাখুন। করোনা মোকাবিলায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা অনুমোদিত ভ্যাকসিন আমদানি করেছে সরকার। যত দ্রুত সম্ভব দেশের প্রতিটি নাগরিককে টিকার আওতায় আনতে সর্বাত্মক চেষ্টা চলছে।

আরও পড়ুন:


পরীমনি কাণ্ডে থমথমে ‘সুনসান এফডিসি’

প্রজ্ঞাপন জারি, রোববার ব্যাংক বন্ধ


মানুষের জীবন বাঁচাতে সরকার বিনা মূল্যে টিকা দিচ্ছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা লিখেছেন, পরিবারের সুরক্ষার জন্য নিজে টিকা নিন এবং পরিবারের সদস্যদের টিকা দিন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। জীবন বাঁচলে, পরিবার বাঁচবে, জীবিকা বাঁচবে। প্রতিটি পরিবার সুরক্ষিত হলে, সমাজ সুরক্ষিত হবে, সুরক্ষিত হবে পুরো দেশ, অব্যাহত থাকবে জীবন-জীবিকা ও অর্থনীতির চাকা। মানুষের জীবন বাঁচাতে বিনা মূল্যে টিকার ব্যবস্থা করেছে সরকার, এখন নিজের পরিবারকে বাঁচাতে টিকা নেওয়ায় দায়িত্ব আপনার।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ভোরে যানচলাচল বন্ধ থাকবে

অনলাইন ডেস্ক

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ভোরে যানচলাচল বন্ধ থাকবে

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ফুটওভার ব্রীজের নির্মাণ কাজের জন্য শনিবার ভোর সাড়ে ৫টা থেকে ৭টা পর্যন্ত সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ থাকবে। মহাসড়কের সীতাকুণ্ডের ‘টেরিয়াল’ নামক স্থানে স্টিল ফুটওভার ব্রীজের নির্মাণ কাজের জন্য  যান চলাচল দেড় ঘণ্টার জন্য বন্ধ থাকবে।

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সড়ক ও জনপদ অধিদফতরের (সওজ) সীতাকুণ্ড উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী রোকন উদ্দিন চৌধুরী।

সওজের চট্টগ্রাম সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী পিন্টু চাকমা স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, চট্টগ্রাম সড়ক বিভাগাধীন ঢাকা (যাত্রাবাড়ী)-কুমিল্লা (ময়নামতি)-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার-টেকনাফ জাতীয় মহাসড়কের ১৯৬ কিলোমিটারে টেরিয়াল নামক স্থানে স্টিলের ফুটওভার ব্রীজের নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। 

আরও পড়ুন:


পরীমনি কাণ্ডে থমথমে ‘সুনসান এফডিসি’

প্রজ্ঞাপন জারি, রোববার ব্যাংক বন্ধ


 

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ফুটওভার ব্রীজের ডেকবিম স্থাপনের জন্য শনিবার ভোর সাড়ে ৫টা থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত মোট দেড় ঘণ্টা সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ থাকবে। সাময়িক অসুবিধার জন্য চট্টগ্রাম সওজ আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

৭ তারিখ থেকে দেওয়া হচ্ছে না গণ টিকা

অনলাইন ডেস্ক

৭ তারিখ থেকে দেওয়া হচ্ছে না গণ টিকা

আগামী ৭ তারিখ থেকে প্রান্তিক পর্যায়ে  গণ টিকাদানের কথা থাকলেও তা শুরু হচ্ছে না সেদিন। এই দিন পরীক্ষামূলক ভাবে সারা দেশে টিকা দেয়া হলেও তা শুরু হবে ১৪ তারিখ থেকে বলে জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক।

এদিকে গণ টিকাদানের জন্য দেশের বিভিন্ন জেলায় শেষ হয়েছে চুড়ান্ত প্রস্তুতি। রিশাদ হাসান জানাচ্ছেন বিস্তারিত।

৭ তারিখ থেকে দেশের প্রান্তিক পর্যায়ে গণটিকা প্রয়োগের কথা মাথায় রেখেই এই প্রস্তুতি। দেশের বিভিন্ন জেলায় এরই মধ্যে প্রস্তুত হয়েছে কেন্দ্র ও টিকাদান বুথ। প্রতিটি ওয়ার্ডে ৩০০ জনকে টিকা প্রয়োগের লক্ষমাত্রায় প্রস্তুত রাখা হয়েছে বুথ। প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে এই বিশাল কর্মযজ্ঞে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সাথে কাজ করছে স্থানীয় সরকার, আইসিটিসহ বেশ কিছু সরকারী প্রতিষ্ঠান।

তবে আবারও টিকা প্রয়োগ নিয়ে সিদ্ধান্তহীনতা। লক ডাউন, যানচলাচলের কারণ দেখিয়ে আরও ৭ দিন পেছালো এই টিকা কর্মসূচি। তবে পরীক্ষামূলক ভাবে এই টিকা কার্যক্রম চলবে ৭ তারিখ বলে জানান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, আগামী ১৪ থেকে ১৯ আগষ্ট চলবে প্রান্তিক পর্যায়ের টিকাদান কার্যক্রম। যেখানে টিকা প্রয়োগ করা হবে সারাদেশের অন্তত ১ কোটি মানুষকে।

news24bd.tv/এমিজান্নাত

পরবর্তী খবর

মোদীর উপহারের ৩০ অ্যাম্বুলেন্স ঢাকা পৌঁছার অপেক্ষায়

অনলাইন ডেস্ক

মোদীর উপহারের ৩০ অ্যাম্বুলেন্স ঢাকা পৌঁছার অপেক্ষায়

স্বাস্থ্যসেবা উন্নয়নে, বিশেষ করে কোভিড-১৯ মোকাবিলার যৌথ প্রচেষ্টায় বাংলাদেশকে ১০৯টি লাইফ সাপোর্ট অ্যাম্বুলেন্স উপহার দেওয়ার কথা ছিল ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর।

এর মধ্যে ৩০টি অ্যাম্বুলেন্স ইতিমধ্যে পেট্রাপোলে পৌঁছেছে। বেনাপোল স্থল শুল্ক চেকপোস্টে ছাড়পত্র পাওয়ার পর এগুলো শীঘ্রই ঢাকার উদ্দেশে রওনা হবে।

বাকি অ্যাম্বুলেন্স সেপ্টেম্বরের শেষের দিকে পৌঁছাবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

এই অ্যাম্বুলেন্স কোভিড মহামারী মোকাবিলায় বাংলাদেশ সরকারের ব্যাপক প্রচেষ্টাকে সমর্থন করার উদ্দেশ্যে প্রদান করা হয়েছে।

এই উপহার বাংলাদেশের ভ্রাতৃত্বপূর্ণ জনগণের সহায়তার জন্য ভারতের অব্যাহত এবং দীর্ঘমেয়াদী অঙ্গীকারের প্রতিফলন করে।

পরবর্তী খবর

গাজীপুরে ২৪ ঘণ্টায় ৯ জনের মৃত্যু

মোহাম্মদ আল-আমীন, গাজীপুর

গাজীপুরে ২৪ ঘণ্টায় ৯ জনের মৃত্যু

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে শিল্পাঞ্চলখ্যাত গাজীপুরে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর নতুন করে ২১০ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

৯ জনসহ জেলায় এ পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩৬৪ জনে।

নতুন ২১০ জনসহ আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ হাজার ৬৩৪ জনে।

বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) সন্ধ্যায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো. খায়রুজ্জামান।

তিনি জানান, ২৪ ঘণ্টায় ৪৬৯ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। সংগ্রহ করা নমুনা পরীক্ষায় ২১০ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এদের মধ্যে গাজীপুর সদরে ৯০ জন, কালীগঞ্জে ২৫ জন, কালিয়াকৈরে ১৫ জন, কাপাসিয়ায় ৪৮ জন ও শ্রীপুরে ৩২ জন রয়েছেন।

তিনি আরও জানান, এ পর্যন্ত গাজীপুর জেলায় ১লাখ ৮ হাজার ৪১৮ নমুনা পরীক্ষায় ১৯ হাজার ৬৩৪ জনের শরীরে করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে। এর মধ্যে গাজীপুর সদরে ১১ হাজার ৯৫২ জন, কালীগঞ্জে ১৪৪৩ জন, কালিয়াকৈরে ১৯৯৭, কাপাসিয়ায় ১৭০৪ ও শ্রীপুরে ২৫৩৮ জন রয়েছেন।

ডা. মো. খাইরুজ্জামান জানান, নতুন ৯ জনসহ এ পর্যন্ত জেলায় ৩৬৪ জন মৃত্যুবরণ করলেও সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৫ হাজার ১৭৫ জন।

আরও পড়ুন:


পরীমনি কাণ্ডে থমথমে ‘সুনসান এফডিসি’

প্রজ্ঞাপন জারি, রোববার ব্যাংক বন্ধ


news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর