এক ভেড়ার মৃত্যুর পর ৫ ভেড়ার আত্মহত্যা!

অনলাইন ডেস্ক

এক ভেড়ার মৃত্যুর পর ৫ ভেড়ার আত্মহত্যা!

ট্রেনের ইঞ্জিনে কাটা পড়ে মৃত্যু হয় এক ভেড়ার। কিন্তু সেই বেড়ার মৃত্যুর পর একে একে আরও পাঁচ ভেড়া চলন্ত ইঞ্জিনের নিচে কাটা পড়ে মারা গেছে। শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে দিনাজপুরের পার্বতীপুরে রেলওয়ে জংশন লোকো শেডের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। মৃত ভেড়ার মধ্যে দুইটি মা ভেড়ার পেটে বাচ্চা ছিল।

এই বিষয়ে প্রত্যক্ষদর্শী সংবাদকর্মী জাকির হোসেন জানান, ‘ প্রথমে একটি ভেড়া রেললাইনে ইঞ্জিনের নিচে পড়ে মারা যায়। পরে একসঙ্গে পাঁচ ভেড়া আত্মাহুতির মতো ইঞ্জিনের নিচে কাটা পড়ে। একটির দেখাদেখি পালের পাঁচ ভেড়াই একসঙ্গে রেল ইঞ্জিনের নিচে মাথা দিয়েছে। কী আজব বিষয়’!


পার্বতীপুর উপজেলা প্রাণী সম্পদ কমর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ভেড়া একতাবদ্ধ প্রাণী। তারা একসঙ্গে পাল হিসেবে বিচরণ করে থাকে। যার ফলে আজকের এ ঘটনা ঘটেছে। অন্যান্য প্রাণীর থেকে তারা আলাদা। ভেড়ার মালিক একটু সতর্ক হলে রেললাইনের ওপর ইঞ্জিনে কাটা পড়ার ঘটনা ঘটত না।

ভেড়াগুলো পার্বতীপুর শহরের ইসলামপুর কালিবাড়ী জনৈক আনোয়ার হোসেনের। তিনি এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

লিবিয়ায় ভূমধ্যসাগর থেকে ১৬৪ বাংলাদেশি উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক

লিবিয়ায় ভূমধ্যসাগর থেকে ১৬৪ বাংলাদেশি উদ্ধার

ভূমধ্যসাগর থেকে ৪৩৯ জন অভিবাসনপ্রত্যাশীকে উদ্ধার করেছে লিবিয়ার কোস্টগার্ড। তাদের মধ্যে ১৬৪ জন বাংলাদেশি রয়েছেন। লিবিয়ার বাংলাদেশ দূতাবাসের এক কর্মকর্তা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

লিবিয়া অবজারভার এক প্রতিবেদনে জানায়, গত বৃহস্পতিবার পৃথক দুটি উদ্ধার অভিযান চালায় দেশটির কোস্টগার্ড। এই অভিযানে ৪৩৯ জন অভিবাসনপ্রত্যাশী উদ্ধার হন। তাঁরা আফ্রিকা ও এশিয়ার বিভিন্ন দেশের নাগরিক। তাঁরা সমুদ্রপথে ইউরোপে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন।

নৌবাহিনী প্রধানের ওই মুখপাত্র জানান, সাহায্যের আবেদন পেয়েই সঙ্গে সঙ্গে দুটি উদ্ধারকারী জাহাজ ঘটনাস্থলে ছুটে যায়। উদ্ধার অভিযান পরিচালনার জন্য দুটি জাহাজই প্রয়োজনীয় সরঞ্জামে সজ্জিত হয়ে নেয়।

আরও পড়ুন:


ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ: মাঠে যাওয়ার সময় আম্পায়ারদের গাড়িতে হামলা

১০ বছরের জেল হতে পারে নেতানিয়াহুর: ইসরাইলি আইনজীবী

এবার ফিলিস্তিনি নারীকে গুলি করে হত্যা ইসরাইলি বাহিনীর

বিয়ের আসরে নকল গহনা, মারামারি পরে ক্ষতিপূরণ রেখে তালাক


 

তিনি আরও জানান, উদ্ধারের পর অভিবাসন-প্রত্যাশীদের ত্রিপোলি নৌ ঘাঁটির অবতরণস্থলে নিয়ে আসা হয়। এরপর তাদের অবৈধ-অভিবাসন প্রতিরোধ কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

গর্তে মিলল ৬ লাখ টাকা

অনলাইন ডেস্ক

গর্তে মিলল ৬ লাখ টাকা

একটি উঁচু জমির গর্তের মধ্যে পলিথিনে মোড়ানো অবস্থায় ৬ লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। শুক্রবার গভীর রাতে চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলা থেকে পুলিশ টাকাগুলো উদ্ধার করে। 

এর আগে গত বুধবার রাতের যে কোনো সময় উপজেলার ৫নং গুপ্টি পূর্ব ইউনিয়নের হাজীগঞ্জ-রামগঞ্জ সড়কের উপর অবস্থিত ফকির বাজারের ব্যাংক এশিয়া এজেন্ট ব্যাংকের টয়লেটের ভ্যান্টিলেটর ভেঙে চোর চক্র নগদ ৬ লাখ টাকা, ব্যাংকে গ্রাহকদের বিদ্যুৎ বিলের অর্থসহ সিসি ক্যামেরা ও সিসি ক্যামেরার ডিবিআর মেশিনটি খুলে নিয়ে যায়।

পরদিন এজেন্ট ব্যাংক খোলার পর অফিসের লোকজন অফিসের কাগজপত্র এলোমেলো ও ক্যাশের ড্রয়ার খোলা অবস্থায় দেখতে পান। পরে শুক্রবার গভীর রাতে উপজেলার ফকিরবাজার এলাকায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে এজেন্ট ব্যাংক শাখার প্রায় একশ' গজ পেছনে পূর্বদিকে উঁচু জমিতে গর্তের মধ্যে পলিথিনে মোড়ানো অবস্থায় ৬ লাখ টাকা উদ্ধার করে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

গণপূর্ত অফিসে আ’লীগ নেতাদের অস্ত্রের মহড়া (ভিডিও)

অনলাইন ডেস্ক

গণপূর্ত অফিসে আ’লীগ নেতাদের অস্ত্রের মহড়া (ভিডিও)

পাবনা গণপূর্ত অফিসে আওয়ামী লীগ নেতাদের অস্ত্র নিয়ে প্রবেশের ঘটনায় প্রশাসনে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। গত ৬ জুন এই ঘটনা ঘটলেও সিসি ক্যামেরায় ধারণ করা একটি ভিডিও ফুটেজ শনিবার জানাজানি হয়। 

নির্বাহী প্রকৌশলী বলেন, ঠিকাদাররা লাইসেন্স করা অস্ত্র নিয়ে অফিসে ঢুকলেও কারও সঙ্গে খারাপ আচরণ করেননি। তাই কোনো অভিযোগ দেওয়া হয়নি। 

অস্ত্র নিয়ে যাওয়া আওয়ামী লীগ নেতারা বলেন, আমরা ভুল করে লাইসেন্স করা অস্ত্র নিয়ে ওই অফিসে গিয়েছিলাম। তবে এটি আমাদের ভুল হয়েছে। 

জেলা গণপূর্ত অফিসের পক্ষ থেকে এ নিয়ে পুলিশে কোনো অভিযোগ করা হয়নি।  এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন কর্মীরা জানান, এ ঘটনায় তারা আতঙ্কিত। 

গত ৬ জুনের সিসিটিভির ওই ভিডিওতে দেখা যায়, দুপুর ১২টার দিকে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ফারুক হোসেন তার কর্মীদের নিয়ে জেলা গণপূর্ত ভবনে প্রবেশ করছেন। তার পেছনে শটগান হাতে পৌর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এ আর খান মামুন এবং জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য শেখ লালু। অস্ত্র নিয়েই তাদেরকে কার্যালয়ের বিভিন্ন কক্ষে ঢুকতে দেখা গেছে। ওই সময় তাদের অন্য সঙ্গীরা বাইরে অপেক্ষায় ছিলেন। বেলা ১২টা ১২ মিনিটে তারা ফিরে যান। 

অস্ত্র ও দলবল নিয়ে গণপূর্ত বিভাগে যাওয়ার বিষয়ে আওয়ামী লীগ নেতা ফারুক হোসেন বলেন, আমি গণপূর্ত বিভাগের ঠিকাদার নই। বিল সংক্রান্ত বিষয়ে কথা বলতে মামুন ও লালু আমাকে সেখানে নিয়ে গিয়েছিল।তবে এভাবে যাওয়া আমাদের উচিত হয়নি। 

সিসি ক্যামেরার ভিডিওতে দেখা পাবনা জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য শেখ লালু বলেন, ভুলবশত আমরা অস্ত্র নিয়ে অফিসে ঢুকে পড়েছিলাম। প্রভাব দেখিয়ে বিভিন্ন কাজ নিজেদের আয়ত্তে নেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তারা।

পাবনা গণপূর্ত বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান বলেন, নির্বাহী প্রকৌশলী স্যার অফিসে ছিলেন না। ঠিকাদাররা আমার কক্ষে এসেছিলেন। আমার টেবিলে অস্ত্র রেখে নির্বাহী প্রকৌশলী স্যারের কাছে এসেছেন বলে জানান তারা। তবে তারা কোনো খারাপ আচরণ বা অসৌজন্যমূলক আচরণ করেননি।

এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গণপূর্ত অফিসের এক কর্মী বলেন, এসব মহড়ায় তাদের আতঙ্কে থাকতে হচ্ছে। প্রভাব বলয় তৈরি করে বিভিন্ন কাজের দরপত্র নিজেদের আয়ত্তে নিতে চেষ্টা করেন ক্ষমতাসীন দলের বিভিন্ন ঠিকাদার নেতারা। তাদের দাপটে অনেক নিরীহ ঠিকাদাররা দরপত্র জমা দিতে পারেন না। 

শনিবার পাবনা গণপুর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আনোয়ারুল আজিম বলেন, ওইদিন আমি অফিসের বাইরে ছিলাম। তবে সিসিটিভি ফুটেজে অস্ত্র হাতে অনেকে এসেছে দেখেছি। পরে তাদের সঙ্গে কথাও হয়েছে। তারা বলেছেন, মহাসড়কের পাশে অফিস হওয়ায় তারা ওইদিক দিয়ে যাওয়ার সময় আমার অফিসে এমনিতে আমার সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলেন। তারা আমাকে সরাসরি বা ফোনে কোনো হুমকি দেয়নি। তাই আমরা লিখিত অভিযোগ করিনি। 

পাবনার পুলিশ সুপার (এসপি) মুহিবুল ইসলাম খান বলেন, বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে। অস্ত্র আইনের শর্ত ভঙ্গ হয়েছে কি না- আমরা তা খতিয়ে দেখছি। তদন্ত শেষে দোষী হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

পাবনার জেলা প্রশাসন (ডিসি) কবীর মাহমুদ বলেন, আমি ঘটনাটি শুনেছি। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বিষয়টি তদন্ত করছে। তাদের সুপারিশ অনুযায়ী আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

  ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন 

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

বসতবাড়ির আঙিনায় গুপ্তধন পেয়ে পরিবারের সবাই উধাও!

অনলাইন ডেস্ক

বসতবাড়ির আঙিনায় গুপ্তধন পেয়ে পরিবারের সবাই উধাও!

ইউনুস সরদারের (৫৫) নিজ বসতবাড়ির আঙিনায় বিশাল গর্ত খুঁড়ে গুপ্তধন খোঁজাখুঁজি কথা জানতে পারে এলাকাবাসী। এদিকে গুপ্তধন খোঁজাখুঁজির পর থেকে বাড়ির মালিক ইউনুস সরদার ও তার সহযোগীরা আত্মগোপন করেছেন বলে এলাকাবাসী ধারণা করছেন।

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার ভুরঘাটা গ্রামে  এই ঘটনা ঘটেছে। বিষয়টি নিয়ে এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়েছে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে বিভিন্ন এলাকা থেকে গুপ্তধনের গর্ত দেখতে উৎসুক জনতার পাশাপাশি পুলিশ ও জনপ্রতিনিধিরাও ভিড় করছেন। 

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বরিশাল-ঢাকা মহাসড়ক সংলগ্ন উপজেলার খাঞ্জাপুর ইউনিয়নের ভুরঘাটা গ্রামের মৃত মোসলেম সরদারের ছেলে ইউনুস সরদার (৫৫) তার কয়েকজন সহযোগীকে নিয়ে গত শনিবার (৫ জুন) থেকে নিজ বাড়ির আঙিনায় গুপ্তধনের জন্য গর্ত খোঁড়া শুরু করেন। 

গত সোমবার রাতে গর্ত খোঁড়ার কাজ শেষ করেন তারা। এরই মধ্যে গুপ্তধন পাওয়ার বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে রহস্যজনকভাবে গর্তটি ভরাট করে সহযোগীদের নিয়ে ইউনুস সরদার আত্মগোপন করেছেন। বিশাল গর্ত খুঁড়ে গুপ্তধন পেয়ে গৃহকর্তা ইউনুস সরদার ও তার সহযোগীরা আত্মগোপন করেছেন বলে এলাকাবাসীর ধারণা।

গৌরনদী মডেল থানার এসআই খাইরুল ইসলাম জানান, ঘটনাটি জানার পরপরই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। বসতবাড়ির মালিক ইউনুস সরদার পলাতক থাকায় বিস্তারিত কিছু জানা জায়নি। তবে তদন্তসাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

news24bd.tv/আলী 

পরবর্তী খবর

মোবাইলের জন্য স্কুলছাত্রের আত্মহত্যা

অনলাইন ডেস্ক

মোবাইলের জন্য স্কুলছাত্রের আত্মহত্যা

আর্থিক সচ্ছলতা না থাকায় কৃষক বাবা তার স্কুল পড়ুয়া সন্তানেকে মোবাইল কিনে দিতে পারেনি। বাবার ওপর অভিমান করে সে কারণে দশম শ্রেণির স্কুলছাত্র শফিকুল ইসলাম আত্মহত্যা করেছে।

শুক্রবার (১১ জুন) বিকেল ৪টায় মাদারীপুর সদরের ঘটমাঝি এলাকায় নিজ বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

সদর উপজেলার ঘটমাঝি গ্রামের কৃষক তালেব আকনের ছেলে শফিকুল ইসলাম স্থানীয় অ্যাডভোকেট দলিল উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র। কিছুদিন ধরে বাবা তালেব আকনের কাছে একটি মোবাইল ফোন কিনে দেয়ার দাবি করে আসছিল সে। কিন্তু আর্থিক সচ্ছলতা না থাকায় ছেলেকে মোবাইল কিনে দিতে পারেননি কৃষক বাবা।

এ নিয়ে শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে পরিবারে কথা কাটাকাটি হয়। এর একপর্যায়ে ছেলে ঘরের ভেতর থেকে দরজা আটকিয়ে দেয়। বিকেল ৪টা বেজে গেলেও শফিকুল বের না হলে পরিবারের লোকজন দরজা ভেঙে দেখে ঘরের ভেতরে ঢুকে দেখে দড়ি দিয়ে গলায় ফাঁস দিয়েছে শফিকুল।

শফিকুলের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে মাদারীপুর সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) চৌধুরী রেজাউল করিম জানান, এই ঘটনায় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

news24bd.tv/আলী 

পরবর্তী খবর