শান্তিনিকেতনে একটুকরো বাংলাদেশ

জাফর ওয়াজেদ

শান্তিনিকেতনে একটুকরো বাংলাদেশ

জাফর ওয়াজেদ

সেই কবে ১৯০৯ সাল তথা ১৩১৬ বাংলা সনে রবীন্দ্রনাথ লিখেছিলেন ‘বর্তমান যুগ’ প্রবন্ধে, ‘হাজার হাজার শতাব্দীর মধ্যে পৃথিবীতে এমন শতাব্দী খুব অল্পই এসেছে। কেবল আমাদের দেশে নয়, পৃথিবীজুড়ে এক উত্তাল তরঙ্গ উঠেছে। বিশ্বমানব প্রকৃতির মধ্যে একটা চাঞ্চল্য প্রকাশ পেয়েছে সবাই আজ জাগ্রত। 

পুরাতন জীর্ণ সংস্কার ত্যাগ করার জন্য, সকল প্রকার অন্যায়কে চূর্ণ করার জন্য, মানবমাত্রেই উঠে পড়ে লেগেছে নতুনভাবে জীবনকে দেশকে গড়ে তুলবে। ... মানবপ্রকৃতি পূর্ণতার আস্বাদ পেয়েছে। একে এখন কোনো মতেই বাইরের শক্তি দ্বারা চেপে ছোট করে রাখা চলবে না।’ 

রবীন্দ্রনাথের সেই শতাব্দী মূলত বিংশ শতাব্দী। যে সময়ে বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রটি রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে স্বাধীন সার্বভৌম হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। সেই নবীন দেশে নতুনভাবে জীবনকে গড়ে তুলতে চেয়েছিল বাঙালী। হাজার বছরের পরাধীন বাঙালী জাতি মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছিল সেই ১৯৭১ সালে। পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী বাঙালি নিধনে মত্ত হয়েছিল। 

এক কোটি বাঙালী সীমান্ত পাড়ি দিয়ে প্রতিবেশী ভারতে আশ্রয় নিয়েছিল শরণার্থী হিসেবে। বাঙালীর অস্তিত্বের লড়াইয়ে সর্বাত্মক সাহায্য ও সহযোগিতা দেয়ার মতো দুরূহ, ব্যয়বহুল ও প্রায় অসাধ্য কাজটিই ভারত করেছিল। সেই ভারতেরই পশ্চিমবঙ্গের শান্তিনিকেতনে বাঙালীর আত্মসাধনার মিলন কেন্দ্র গড়ে তুলেছিলেন রবীন্দ্রনাথ। 

ব্রহ্মচর্য আশ্রম থেকে আজ যা মহীরূহ হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে উন্নীত হয়েছে। শান্তিনিকেতন তাই শুধু পশ্চিমবঙ্গের নয়, বাংলাদেশেরও। রবীন্দ্রনাথ তার সৃষ্টির সেরা সময় অতিবাহিত করেছেন শাহজাদপুর, শিলাইদহে। পূর্ববঙ্গের আকাশ, বাতাস, নদ-নদী; সবুজ মাঠ কবিকে দিয়েছে প্রেরণা। সেই প্রেরণার বাতাবরণে বাংলা সাহিত্য পেয়েছে অমূল্য সম্পদ। উনিশ বছর আগে ১৯৯৯ সালে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রী ‘দেশিকোত্তম’ গ্রহণকালে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে দেশে কালে কালে মানুষের মধ্যে সম্প্রীতির ভাব গড়ে তোলার জন্য নিবেদিত হওয়ার কথা বলেছিলেন। 

বাংলার মাটি, বাংলার জল, বাংলার বায়ু, বাংলার ফল পূণ্য হয়ে যাতে ওঠে, রবীন্দ্রনাথকে সামনে রেখে সেই প্রার্থনাই করেছিলেন। রাষ্ট্রনায়কোচিত আচরণের বহির্প্রকাশ ঘটিয়ে তিনি দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিলেন, যে বিশ্ব নেতৃত্বের আসনে নিজেকে সমাসীন করার জন্য প্রস্তুতি পর্ব সমাপন করে সম্মুখে শান্তি পারাবার নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন। ভূগোলের গ-ি ছাড়িয়ে তিনি নিজেকে প্রসারিত করেছেন বিশ্বভাবনায়। দেশজ ভাবনার সীমারেখা ছাড়িয়ে আন্তর্জাতিক পরিম-লে বিশ্বভাবনাকে সামনে রেখে সিদ্ধান্ত জানাতেও পিছপা নন তিনি। আর উনিশ বছর পর একই স্থানে দাঁড়িয়ে শেখ হাসিনা উচ্চারণ করলেন; ‘পারিপার্শ্বিকতা আমাদের আলাদা করে রাখলেও বাঙালীরা মনে প্রাণে এক এবং অভিন্ন। 

অনেক সময় ক্ষুদ্র স্বার্থ আমাদের মনের মধ্যে দেয়াল তৈরি করে। আমরা ভুল পথে পরিচালিত হই। এই দেয়াল ভাঙতে হবে। মনের ভেতর অন্ধকার দানা বাঁধতে দেয়া যাবে না। ক্ষুদ্র স্বার্থ বিসর্জন দিতে পারলেই কেবল বৃহত্তর অর্জন সম্ভব।’ সঠিক কথাই বলেছেন শেখ হাসিনা। দু’দেশের মধ্যে অর্থনৈতিক যোগাযোগের পাশাপাশি সাংস্কৃতিক যোগাযোগও সুদৃঢ় করা সঙ্গত। শান্তিনিকেতনে বহুল আকাক্সিক্ষত ও নয়নাভিরাম ‘বাংলাদেশ ভবন’ উদ্বোধন হলো। 

বাংলাদেশ সরকারের আর্থিক অনুদানে নির্মিত বাংলাদেশ ভবনটি দুই বাংলার শিক্ষা, সংস্কৃতি, গবেষণা সর্বোপরি জ্ঞানচর্চায় সেতুবন্ধন হিসেবে কাজ করবে। দুই দেশের জ্ঞানপিপাসুদের তীর্থক্ষেত্রে পরিণত হোক বাংলাদেশ ভবন এই প্রত্যাশা শেখ হাসিনার মতো দুই বাংলার মানুষেরও। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও মনে করেন, দুদেশের বন্ধুত্বের প্রতীক এখন এই বাংলাদেশ ভবন। এটা দুদেশের সেই সম্পর্ক, যা ইংরেজরা দেশ ভাগ করেও ভাঙতে পারেনি।

শান্তিনিকেতন বাঙালীর জীবনে এক গুরুত্বপূর্ণ প্রসঙ্গ। রবীন্দ্রনাথ যাকে বলতেন, ‘মোদের প্রাণের সঙ্গে প্রাণে সে যে মিলিয়েছে এক তানে,/মোদের ভাইয়ের সঙ্গে ভাইকে সে যে করেছে এক-মন।’ আসলেই তাই। শান্তিনিকেতন রবীন্দ্রনাথের কাছে ছিল সব থেকে আপন। বাঙালীর কাছে আজও তাই। শেখ হাসিনা শান্তিনিকেতনের ছাত্রী না হলেও বিশ্বভারতী প্রদত্ত ‘দেশিকোত্তম’ তাকে বিশ্বভারতীর একজন হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছে। 

বাংলাদেশ ও ভারতের জাতীয় সঙ্গীত রচয়িতা রবীন্দ্রনাথ। কবির সার্ধশত জন্মবার্ষিকীর উদযাপন ঘিরে বাংলাদেশের অর্থায়নে শান্তিনিকেতনে যে ভবন নির্মাণ হয়েছে, তা ‘সম্প্রীতির প্রতীক’ হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে। ভবনের ফলক উন্মোচনকালে দুদেশের প্রধানমন্ত্রী সেভাবেই মূল্যায়ন করেছেন। 

জীবদ্দশায় রবীন্দ্রনাথ সারা এশিয়ার মধ্যে শান্তি ও সৌহার্দ্য স্থাপনের লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন চীনা ভবন। যা আজও মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে। আর শতবর্ষ পরে প্রতিষ্ঠিত হলো ‘বাংলাদেশ ভবন’। শেখ হাসিনার উপস্থিতি রবীন্দ্রনাথ অনন্তলোক থেকে হয়তো অবলোকন করেছেন। হয়তো কবিরও মনে পড়েছে ১৩২১ সালের মাঘ মাসে লেখা ‘আবির্ভাব’ নিবন্ধটির কথা। লিখেছিলেন তিনি, ‘তুমি যে এসেছ মোর ভবনে। রব উঠেছে ভুবনে।’

দূরদর্শী কবি হয়তো এমনটাই ভেবেছিলেন ভাবীকালকে নিয়ে, যে উচ্চতায় শেখ হাসিনা সমাসীন আজ। কবি লিখেছিলেন শতবর্ষেরও আগে, ‘যিনি বিশ্বভুবনের সব জায়গা জুড়ে বসে আছেন, তাকেই আমরা বলছি, ‘তুমি আমার ভবনে অতিথি।’ কারণ, আমার ভবনে তাকে ডাকবার এবং না ডাকবার অধিকার তিনিই আমাকে দিয়েছেন।’ রবীন্দ্রনাথ বাঙালীর আত্মার মধ্যে বসবাস করে আসছেন তার সর্বসত্তা দিয়ে। আর রবীন্দ্রনাথ এই বাংলায় স্থিতি পেয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতেই। ১৯৬৭ সালে পাকিস্তানী সামরিক জান্তা শাসকরা রবীন্দ্রসঙ্গীত প্রচার নিষিদ্ধ করেছিল। কবি সাহিত্যিক সাংবাদিকদের একটি অংশ এই নিষিদ্ধের পক্ষে অবস্থান নিয়েছিলেন। তারা রবীন্দ্রনাথ বিরোধিতায় গদ্যও লিখেছেন।

শেখ মুজিব তখন ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছিলেন। তিনি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের হুমকি দিয়ে বলেছিলেন, রবীন্দ্রনাথের গান আমরা শুনবই। তার কবিতা পাঠ করবো। কেউ তা রুখে দিতে পারবে না। সেই হুমকিতে শাসক গোষ্ঠী তাদের অবস্থান বদলাতে বাধ্য হয়েছিল। 

বঙ্গবন্ধুর হাত ধরে রবীন্দ্রনাথ আবার ফিরে এসেছিলেন এই বাংলায়। শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর রবীন্দ্র প্রীতির কথা ভবনের উদ্বোধনকালে বলেছেনও, ‘বঙ্গবন্ধু ঢাকা থেকে স্টিমারে যাওয়ার সময় ডেকে দাঁড়িয়ে কবিগুরুর কবিতা পড়তেন। তার রাজনৈতিক জীবনের প্রেরণা তিনি পেয়েছিলেন রবীন্দ্রনাথ থেকে।’ তাই দেখতে পাই আমরা কবিগুরুর ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি’ বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত করেছিলেন বঙ্গবন্ধু। 

সেই ১৯৫৪ সালে কার্জন হলে এক অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর অনুরোধে সন্জিদা খাতুন সেই গান গেয়েছিলেনও। বাঙালীর স্বাধিকার ও স্বাধীনতা আন্দোলনে রবীন্দ্রনাথের কবিতা ও গান প্রেরণা হয়ে সাহস যুগিয়েছে। এখনও রবীন্দ্রনাথ বাঙালীর জন্য প্রাসঙ্গিক হয়ে আছেন। রবীন্দ্রবিশ্বে পূর্ব বাংলার স্থানও অনন্য।

শান্তিনিকেতনে স্থাপিত বাংলাদেশ ভবনের চিত্র সরাসরি সম্প্রচারকালে মুগ্ধ হয়ে দেখেছি। ভবনটি যেন শান্তিনিকেতনে এক টুকরো বাংলাদেশ হয়ে আছে। আর তখন সেই গানটি মনে ভাসছিল, ‘আজি বাংলাদেশের হৃদয় হতে কখন আপনি/তুমি এই অপরূপ রূপে বাহির হলে জননী/ ওগো মা তোমায় দেখে দেখে আঁখি না ফিরে।’ ভবনটির দিকে তাকিয়ে থাকলে চোখ ফিরতে চায় না।

রবীন্দ্র ভুবনে বাংলাদেশের এই অবস্থান প্রাণে প্রাণ যোগ ঘটায় যেন। এই ভবন দু’দেশের মধ্যে সাংস্কৃতিক বিনিময় ও জনগণের মধ্যে যোগাযোগ বাড়াতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে। শাশ্বত বাংলার লোকায়ত সংস্কৃতি চর্চা ও গবেষণা যেমন হবে তেমনি রবীন্দ্রভাবনায় ভাবিত হওয়া, শান্তি ও মানবতার জন্য অর্জিত জ্ঞানকে ব্যবহার করার জন্য এই ভবন। 

শেখ হাসিনা অবশ্য জানান দিয়েছেন যে, এই ভবন হবে এমন একটি অনন্য কেন্দ্র, যেখানে শিক্ষার্থীরা বাংলাদেশের গৌরবোজ্জ্বল মুক্তিযুদ্ধ; জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান; রবীন্দ্রনাথ এবং বাংলাদেশের ইতিহাস ও সংস্কৃতি সম্পর্কে লেখাপড়া ও গবেষণা করতে পারবে।’ এমন ক্ষেত্র তৈরি হওয়া বাংলাভাষীদের জন্য অবশ্যই গৌরবের এবং আনন্দের। 

কবিগুরুর মতো শেখ হাসিনাও বিশ্বাস করেন, পৃথিবীজুড়ে একটি দেশ, পৃথিবীর সমস্ত মানুষ মিলে একটি জাতি। এবং এটি মেনে নিলে পৃথিবীর সকল মানুষই এক দেশের, এক জাতির মানুষ হবে। দেশে দেশে জাতিতে জাতিতে বৈরিতা থাকবে না। অবশ্য শেখ হাসিনা এটাও জানেন, এ কথা শুনতে যত সহজ, কাজে তত নয়। খুব উঁচু দরের শিক্ষা সংস্কৃতি থাকলে তবেই লোকে এ কথার মর্ম বুঝবে। প্রতিটি মানুষকে তার নিত্যদিনের অত্যাবশ্যক প্রয়োজন তথা অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা চিকিৎসা সম্পর্কে নিশ্চিত করতে হবে। 

নিজ দেশে শিক্ষার প্রসারে শেখ হাসিনা যুগান্তকারী নানা পদক্ষেপও নিয়েছেন। ১৯৯৯ সালে যখন দেশিকোত্তম পান বিশ্বভারতী হতে, তখন শেখ হাসিনা স্পষ্ট করেছিলেন, রবীন্দ্রনাথের প্রতি বাঙালীর অপরিসীম ঋণ। সেই ঋণ অপরিশোধ্য। কিন্তু সেই ঋণ যেন প্রতিটি বাঙালী স্বীকার করে। রবীন্দ্রনাথ বাংলা এবং উপমহাদেশ ছাড়িয়ে বিশ্ব কবিতে পরিণত হয়েছিলেন। বাঙালীর জীবন চর্চায় তিনি প্রাণ যুগিয়েছেন। তাই রবীন্দ্রনাথের চেতনাকে বাংলাদেশের মানুষ অন্তরে ধারণ করে রাখার জন্য সংগ্রাম করেছে। 

এই অনুষ্ঠানে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী বলেছেন, পশ্চিমবঙ্গে বঙ্গবন্ধু ভবন হবে। যা বাংলাদেশবাসী হিসেবে আমাদের গৌরবান্বিত করে। মোদিও বলেছেন শেখ হাসিনার উদ্দেশ্যে, বঙ্গবন্ধুকে আপনারা যা সম্মান দেন, আমরাও সেই সম্মান দেই। 

আসলেই তাই, বঙ্গবন্ধু এই উপমহাদেশের মানুষের কাছে সাহসী ও বলিষ্ঠ নেতা হিসেবে প্রতিভাত। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর বেঁচে যাওয়া বঙ্গবন্ধুর দু’কন্যাকে রাজনৈতিক আশ্রয় দিয়েছিল ভারত। বর্হিবিশ্বে বঙ্গবন্ধুর পর শেখ হাসিনা বাঙালীর অগ্রগতিকে যতখানি সামনে তুলে এনেছেন, তা অতুলনীয়। বাংলাদেশ সমৃদ্ধ দেশ এবং বাঙালীকে সমৃদ্ধ জাতি হিসেবে সামনে এগিয়ে নেয়ার প্রত্যাশী শেখ হাসিনা। রবীন্দ্রনাথের মতো শেখ হাসিনাও জানেন, যে গাছে সুগন্ধ ফুল ফোটে, সে গাছে আহার্য ফল না ফললেও চলে।’ 

 দেশে ১৩ জনের শরীরে পাওয়া গেল করোনার ভারতীয় ধরন

 জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদের প্রস্তাব লজ্জাজনক: নেতানিয়াহু

 জমি চাষের সময় মাটির নিচ থেকে বেরিয়ে এলো হীরা

 রেডিও-টিভিতে প্রচারিত আজানের উত্তর দিতে হবে কি?

শান্তিনিকেতনে একটুকরো বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে শেখ হাসিনা যুগান্তকারী পদক্ষেপ নিয়েছেন। রবীন্দ্রানুরাগী এবং রবীন্দ্র সাহিত্যের ছাত্রী শেখ হাসিনা জানেন এবং বিশ্বাস করেন, ক্ষুদ্র স্বার্থ বিসর্জন দিতে পারলেই কোন বৃহত্তর অর্জন সম্ভব। আসানসোলে কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় শেখ হাসিনাকে ডি লিট প্রদান করে যথাযথ সম্মান দিয়েছে বলা যায়। বাংলাদেশের জাতীয় কবি নজরুল ও বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধেও প্রেরণা হয়েছিলেন। এখনও তিনি প্রাণে প্রাণ যোগান। নজরুলের অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বাংলাদেশ গড়ে তোলার কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা নজরুলের স্বপ্নপূরণের দিকটি উন্মোচিত করেছেন। 

রবীন্দ্রনাথ থেকে নজরুল হচ্ছে বঙ্গবন্ধু থেকে শেখ হাসিনার প্রেরণার অপর নাম। হয়তো একদিন আসানসোলেও হবে বাংলাদেশ ভবন। কবি নজরুল ঝাঁকড়া চুলে দাঁড়িয়ে থাকবেন এক টুকরো বাংলাদেশে। দুই বাঙালী কবির জীবন চলার পথ খুব মসৃণ ছিল না।

শেখ হাসিনার ধাপে ধাপে সংগ্রাম, ত্যাগ তিতিক্ষার ভেতর দিয়ে এগিয়েছেন তিনি। মহাত্মা গান্ধী ও বঙ্গবন্ধুর প্রিয় গান, ‘যদি তোর ডাক শুনে কেউ না আসে’ গুনগুন করে শেখ হাসিনাও সুর তোলেন। কিংবা নজরুলের ‘একি অপরূপ রূপে মা তোমায় হেরিনু পল্লী জননী’ তাকেও আপ্লুত করে।

শান্তিনিকেতনের রবীন্দ্রবলয়ে বাংলাদেশ ভবন বাঙালীর জীবনে প্রেরণা হয়ে থাকবে। সেই সঙ্গে জ্বলজ্বল করে জ্বলবে শেখ হাসিনার নাম। আর বাংলাদেশের বাঙালী বিশ্বসভায় আসন করবে আরও মজবুত। প্রকাশিত : ২৮ মে ২০১৮ 

জাফর ওয়াজেদ-এর ফেসবুক থেকে নেওয়া

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

আমেরিকার নাগরিকদের হ্যান্ডগান কেনার অনুমতি থাকার ফল তারা পাচ্ছে

শওগাত আলী সাগর

আমেরিকার নাগরিকদের হ্যান্ডগান কেনার অনুমতি থাকার ফল তারা পাচ্ছে

পাঁচ বছরের, ১১ বছরের বাচ্চা যদি গুলিবিদ্ধ হয়, তাও আবার কোনো জন্মদিনের উৎসবে আনন্দ করত গিয়ে, কেমন লাগবে আপনার! আর যদি এক বছরের একটি শিশু গুলিবিদ্ধ হয়! শনিবার সন্ধ্যায় মর্মান্তিক এই ঘটনা ঘটেছে শহরের ইটোবিকো এলাকায়।

২৩ বছরের এক যুবক বাদে ওই ঘটনায় গুলিবিদ্ধ পাঁচজনের চারজনই বিভিন্ন বয়সের শিশু, যারা একটি জন্মদিনের পার্টিতে আনন্দমগ্ন ছিলো। জন্মদিনটা গুলিবিদ্ধ এক বছর বয়সীর শিশুরই ছিলো কী না তা এখনো জানা যায়নি। সত্যি বলতে কি পুলিশ এখন পর্যন্ত ঘটনার কারণ সম্পর্কে কোনো তথ্যই প্রকাশ করেনি।

আরও পড়ুন:


ইরানের নতুন প্রেসিডেন্টের সংবাদ সম্মেলন কাল

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল পরীক্ষা স্থগিত

‘ড্যাব’কে অনুরোধ জানাব ফখরুলের মানসিক পরীক্ষা করাতে: তথ্যমন্ত্রী


ইটোবিকো এবং তৎসংলগ্ন এলাকাসহ শহরের বেশ কিছু এলাকায় প্রায় প্রতিদিনই গুলি, ছুরিকাহতের ঘটনা ঘটে। এক বছরের কম সময় হাতে থাকা নির্বাচন নিয়ে প্রভিন্সিয়াল রাজনীতিকরা ভীষন ব্যস্ত, কিন্তু তাদের কেউ এই বিষয় নিয়ে তেমন কোনো কথা বলেন না। এখন পর্যন্ত কেউ শহরের এই উৎপাত নিয়ে কথা বলছেন বলে শোনা যায়নি। ‘এইগুলো শহরের অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে থাকা এলাকার ব্যাপার’- রাজনীতিকদের মনে এই ভাবনা কাজ করছে কী না জানি না। কিন্তু ‘অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে থাকা নেইবারহুডের সহিংসতা অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে থাকা নেইবারহুডে’ যেতে কতোক্ষণ!

ক্ষুব্দ মেয়র জন টরি প্রশ্ন তুলেছেন, এই শহরে মানুষের হাতে হ্যান্ডগান থাকার অনুমোদন কেন থাকতে হবে! এই প্রশ্নটা আমিও করি। প্রতিবেশী আমেরিকায় নাগরিকদের হ্যান্ডগান কেনার অনুমতি থাকার ফলাফল তারা পাচ্ছে। কানাডা কেন ভিন্নভাবে ভাববে না! কানাডার রাজনীতিকরা কেন মানুষ নিয়ে ভাববে না!

শওগাত আলী সাগর, প্রধান সম্পাদক, নতুনদেশ, কানাডা।

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

পুরুষেরা প্রেমিকাকে সব অঙ্গ স্পর্শ করতে দিলেও সম্পত্তি মোটেও স্পর্শ করতে দেয় না

তসলিমা নাসরিন

পুরুষেরা প্রেমিকাকে সব অঙ্গ স্পর্শ করতে দিলেও সম্পত্তি  মোটেও স্পর্শ করতে  দেয় না

কিছু খবর দেখতে না চাইলেও ফেসবুক দেখিয়ে ছাড়ে।  খবরগুলো, বলতেই হবে,   চোখের সামনে বড্ড  নাচানাচি করে।   শোভন-বৈশাখী-রত্না নিয়ে খবরের পর খবর। শোভনবাবু তাঁর প্রেমিকাকে নিজের সব সম্পত্তি লিখে দিয়েছেন!  পুরুষেরা  তো প্রেমিকাকে শরীরের সব অঙ্গ স্পর্শ করতে দিলেও নিজের  স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তি  মোটেও স্পর্শ করতে  দেয় না।

 প্রেমিকা নিয়ে দিন রাত পড়ে থাকলেও  নিজের যা আছে তা স্ত্রী পুত্রর জন্যই রাখে। এর অন্যথা তো হয়না।  কোনও লোক যদি অবিশ্বাস্য এবং অভিনব ঘটনা ঘটায়, ঘটাক না। আজকাল তো ব্যতিক্রম জিনিসটা উঠে গেছে। সবাই সবার মতো দেখতে। সবাই সবার মতো ভাবছে, কথা বলছে, কাজ করছে। একটু ভিন্ন কিছু দেখলে চোখ জুড়োয়।

তসলিমা নাসরিন

news24bd.tv/এমিজান্নাত 

 

পরবর্তী খবর

একজন মানুষ সবার কাছে কখনোই গ্রহণযোগ্য হবেন না

আশরাফুল আলম খোকন

একজন মানুষ সবার কাছে কখনোই গ্রহণযোগ্য হবেন না

যে কোনো একটা ভালো কাজ, সবার জন্য ভালো নাও হতে পারে। আপনার যেকোনো নেতিবাচক কাজও কারো জন্য উপকারী হতে পারে। যেকোনো ভালো কথার ১০ টা মন্দ ব্যাখ্যা দেয়া যায়। আবার যেকোনো মন্দ কাজের পক্ষেও ১০ টা ভালো যুক্তি দেয়া যায়।

বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (সা:)- একসময় ওনারও বিপক্ষ গ্রুপ অনেক শক্তিশালী ছিল। মহান সৃষ্টি কর্তায় বিশ্বাস করেন না-পৃথিবীতে এমন মানুষের সংখ্যাও কম না। অর্থাৎ সব কিছুরই পক্ষ বিপক্ষ থাকবে। 

মানুষ আপনার পক্ষে যদি বলতে পারে, বিপক্ষেও বলবে। এবং এটাই হওয়া উচিত। শুধু দেখবেন সমালোচক কত শতাংশ। বেশি হলে নিজেকে সংশোধন করুন। যেকোনো গঠনমূলক সমালোচনা আপনাকে সঠিক পথে রাখতে সহায়তা করবে। 

আর যারা আলতু ফালতু সমালোচক তারা একদিন নিজেরাই ছাগলে পরিণত হয়। শুধু কিছুদিন অপেক্ষা করতে হয়। মনে রাখবেন মানুষজন বাঘ-সিংহ নিয়েই কথা বলে। তেলাপোকারে কেউ গুরুত্ব দেয় না। 

এই সমালোচনা বন্ধ করার জন্য কোনো আইনের প্রয়োজন নেই।

news24bd.tv/এমিজান্নাত

পরবর্তী খবর

বসে বসে গল্প করতে পারবা আর তোমাকেও বুবু ডাকবে

কাজী শরীফ

বসে বসে গল্প করতে পারবা আর তোমাকেও বুবু ডাকবে

কিছুদিন ধরে বিভিন্ন ব্যক্তির একাধিক বিয়ের খবর গণমাধ্যমে ব্যাপকভাবে প্রচারিত হওয়ায় তাসিকে বললাম, চিন্তা করে দেখ। তোমারও উপকার হলো। দু'জনে মিলে কাজ করলে ঘরের কাজ দ্রুতই শেষ হয়ে যাবে। বসে বসে গল্প করতে পারবা আর তোমাকেও বুবু ডাকবে! ও প্রথমে বুঝতে পারেনি। 

এরপর চোখ বড় করে বলে, কী! তাহলে আমাকে আমার বাড়িতে দিয়ে আসেন?

আমি বললাম, তা কী করে হয়! তোমার গল্প করার মানুষ আনতে গিয়ে যদি তুমিই চলে যাও তাহলে বেচারি গল্প করবে কার সাথে? আমি এভাবে কয়জন আনব! আর সে বুবুই বা ডাকবে কাকে?
 
তাসি আমার প্রস্তাব সহজভাবে নিলো না। তাসিরই বা দোষ কী! 

মানবজন্মের গোড়া থেকেই এ চর্চা চলছে। বিবি হাওয়া যখন জানলেন তাকে আদম (আ) এর বাম পাঁজরের হাড় দিয়ে বানানো হয়েছে তখন থেকেই তিনি আদম (আ) ঘরে আসলে কপালে সতীন জুটে গেল কি না সে আশংকায় পাঁজর গুনে দেখতেন! 

নারী ও পুরুষের মধ্যে এ জায়গায় পার্থক্য প্রবল। কোন নারী বাসায় আসতে দেরি করলে স্বামী ভাবে রাস্তায় কোন বিপদ হলো কি না? 
আর স্ত্রী ভাবে, স্বামীর দেরি হচ্ছে মানে এর পেছনে নিশ্চয়ই কোন খারাপ মেয়ে আছে! 

অবশ্য নারীদের দোষ দিয়ে লাভ কী? পুরুষ নিয়ে আমার ভাবনাও প্রায় একইরকম৷ 

এই যে আমি বাসায় ওকে এসব ইসুতে রাগাই ও আমাকে বলে, আপনার বয়স হচ্ছেতো ভালো হবেন না?
আমি বললাম, পুরুষ মানুষ ভালো হয় মরলে। জীবিত পুরুষকে বিশ্বাস করো না! 

ও অবাক হয়ে বলে আপনিও এমন করতে পারেন?

জবাবে বললাম, আমাকে কী তোমার পুরুষ মনে হয় না ! 

আরও পড়ুন:


দুর্লভ আবাসিক পাখি ‘জল ময়ূর’

কাপুরুষোচিত হামলা চালিয়ে ইসরাইলি সেনাদের মনোবল চাঙ্গা হবে না: হামাস

বিবস্ত্র করা ছবি তুলে ফাঁদে ফেলে প্রবাসীর স্ত্রী, মামলায় আ.লীগ নেতাও আসামি

‘নিখিলকে আগেই বলেছিলাম, নুসরাত তোমাকে ঠকাবে’


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

বাঁচবো কিনা জানি না, সবাই ক্ষমা করে দিয়েন

সিদ্দিকী নাজমুল আলম

বাঁচবো কিনা জানি না, সবাই ক্ষমা করে দিয়েন

সিদ্দিকী নাজমুল আলম

শারীরিক অসুস্থতার কথা জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম। এসময় তিনি আবেগ প্রবণ হয়ে সবার ক্ষমা প্রার্থনাও করেন। 

শুক্রবার (১৮ জুন) এ স্ট্যাটাস দেন তিনি।

তার স্ট্যাটাসটি নিউজ টোয়েন্টিফোর বিডি ডট টিভি'র পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো।

তিনি লিখেছেন, ‌‘সবাই আমাকে আল্লাহর ওয়াস্তে ক্ষমা করে দিয়েন। বাঁচবো কি না জানি না, তবে এই চরম মুহূর্তে কিছু সত্য কথা বলে যাই। আমি রাজনীতিটা একমাত্র দেশরত্ন শেখ হাসিনাকে মেনেই করতাম এবং করি। কোনদিন তার বাইরে যাইনি।

সাবেক অনেক বড় ভাইদের কথায় আমি কখনও চলি নাই। বরং পেছনের সারির অনেককে নেতা বানাইছি নিজের ইচ্ছায়। আর প্রেম করেছিলাম কিন্তু মানিয়ে নিতে পারিনি তাই বিয়ে হয়নি। আর শেষ কথা হলো বাংলাদেশে কোনো ব্যাংকে আমার নামে এক পয়সাও লোন নাই এবং লোনের কোন টাকা বিদেশেও নিয়ে আসিনি।

তদবির, ঠিকাদারি, দালালি ও পদ বাণিজ্য কখনও করিনি। লন্ডনে গায়ে খাঁটি জীবনে যে কাজ করিনি তা করে জীবন যুদ্ধে লিপ্ত ছিলাম কিন্তু আমার কপাল ভালো না। কিছুক্ষণ আগেই আমার এনজিওগ্রাম সম্পন্ন হয়েছে অনেকগুলো ব্লক ধরা পড়েছে ওপেন হার্ট সার্জারি করতে হবে হয়তোবা, আজকালের মধ্যেই করবে।
 
সরকারি হাসপাতালেই করবে কারণ এইদেশে চিকিৎসা ফ্রি তাই আর কেউ কষ্ট কইরা ভুল তথ্য দিয়েন না- যে কোটি টাকার অপারেশন। যদি মরে যাই একটাই কষ্ট থাকবে নিজের দলের মানুষের প্রতিহিংসার স্বীকার হয়ে মিডিয়া ট্রায়াল হয়েছে বারবার আমার নামে।

আর আফসোস হয়তোবা বড় কোন ভাই আমার নামে অনেক মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে আমার নেত্রীর কান ভারী করে রেখেছে, সেই ভুলগুলো হয়তো ভাঙিয়ে যেতে পারলাম না। আপা আপনিই আমার মমতাময়ী জননী, স্নেহময়ী ভগিনী। 

আপনাকে অনেক ভালোবাসি ক্ষমা করে দিয়েন আমাকে। সবাই ভালো থাকবেন আপনাদের আর যন্ত্রণা দিবো না।’
 
এস এন আলম, বার্থ হাসপাতাল (এনএইচএস) লন্ডন ,১৮-০৬-২১

 (সিদ্দিকী নাজমুল আলম-এর ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর