হাসপাতাল থেকে ফেরার পথে মেয়ের সামনে মাকে গণধর্ষণ
হাসপাতাল থেকে ফেরার পথে মেয়ের সামনে মাকে গণধর্ষণ

হাসপাতাল থেকে ফেরার পথে মেয়ের সামনে মাকে গণধর্ষণ

অনলাইন ডেস্ক

করোনায় সুস্থ  হয়ে  হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরছিলেন মা ও মেয়ে। কিন্তু পথেই মেয়ের সামনেই গণধর্ষণের শিকার হলেন মা। ভারতের আসামের চড়াইদেও জেলায় গত ২৭ মে এ ঘটনা ঘটেছে।  

পুলিশ জানিয়েছে, চা বাগানের কর্মী ওই নারীকে রাস্তা আটকে পাশের চা বাগানের ভেতর টেনে নিয়ে যায় দুই ব্যক্তি।

সেখানেই তাকে গণধর্ষণ করা হয়। হাসপাতাল থেকে করোনার নেগেটিভ রিপোর্ট নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন মা ও মেয়ে।  

ঘটনার দুদিন পর পুলিশের কাছে অভিযোগ জানান নিগৃহীতা নারী।  

ওই নারীর মেয়ে বলেন, কয়েকদিন আগে আমাদের পরিবারের সবাই করোনায় আক্রান্ত হয়েছিল। আমরা সবাই আইসোলেশনে ছিলাম। বাবা ও মায়ের শরীর খারাপ হওয়ায় তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। আমিও পরে হাসপাতালে ভর্তি হই। পরীক্ষার ফল নেগেটিভ হওয়ার পরই তাদের বাড়ি চলে যেতে বলা হয়।

মেয়ের আরও দাবি, আমরা বাড়ি ফেরার জন্য অ্যাম্বুলেন্সের খোঁজ করেছিলাম। কিন্তু হাসপাতাল তা দিতে রাজি হয়নি। আমাদের দুপুর ২টা ৩০ মিনিটের সময় হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেয়া হয়। আমরা জিজ্ঞেস করেছিলাম যে, যেহেতু করোনার কারণে কারফিউ চলছে, আমরা কি রাতটা হাসপাতালে কাটিয়ে কাল সকালে বেরোতে পারি? হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ না করে দেয়।

এরপরই আমরা হাঁটতে শুরু করি। এর কিছুক্ষণ পর দুই ব্যক্তি আমাদের ধাওয়া শুরু করে। পুলিশ জানিয়েছে, নিগৃহীতার মেয়ে কোনওমতে সেখান থেকে পালিয়ে গ্রামে গিয়ে খবর দেয়। হাসপাতাল থেকে তাদের বাড়ির দূরত্ব প্রায় ২৫ কিলোমিটার। প্রায় দুই ঘণ্টা পর মাকে খুঁজে পান তারা।

চড়াইদেওয়ের একজন সিনিয়র পুলিশ অফিসার জানিয়েছেন, আসামের এ ঘটনায় নড়চড়ে বসেছে প্রশাসন। রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী কোভিড-১৯ নেগেটিভ রোগীদের বাড়ি ফেরার পথে অ্যাম্বুলেন্স দেয়া বাধ্যতামূলক বলে ঘোষণা করেছেন।

news24bd.tv/আলী 

;