ওজন কমাতে খান কাঁচা কলা

অনলাইন ডেস্ক

ওজন কমাতে খান কাঁচা কলা

কলা সুস্বাদু ও পুষ্টিগুণে ভরপুর একটি ফল। তবে কলার একটি ভিন্ন বৈশিষ্ট্য আছে। এটি পাকা অবস্থায় ফল ও কাঁচা অবস্থায় সবজি হিসেবে খাওয়া যায়।

বাড়তি ওজন কমাতে চাইলে রোগীর পথ্য হিসেবে পরিচিত স্বাস্থ্যকর এই সবজিটি প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় রাখতে পারেন।

কাঁচা কলার আরও কিছু স্বাস্থ্য উপকারিতা জেনে নেয়া যাক-

ওজন কমায়

ওজন কমাতে চাইলে খাদ্য তালিকায় রাখুন কাঁচা কলা। কাঁচা কলার ফাইবার অনেকটা সময় পেট ভরিয়ে রাখে। এটি আঁশযুক্ত হওয়ায় তা মেদ কমাতেও সাহায্য করে।

হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস করে

পাকা কলার মতো কাঁচা কলাতেও প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম রয়েছে। বিভিন্ন গবেষণায় দাবি করা হয়েছে, প্রতিদিন ৪,৭০০ মিলিগ্রাম পটাসিয়াম গ্রহণে হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস হয়। তবে পটাসিয়াম সবার জন্য নিরাপদ নয়। উচ্চ রক্তচাপ অথবা কিডনির রোগে আক্রান্ত রোগীদের পক্ষে তাই কাঁচা কলা খাওয়ায় নিয়ন্ত্রণ থাকা উচিত।

রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণ করে

রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণের জন্যেও কাঁচা কলা উপকারী। এটি আঁশযুক্ত হওয়ায় রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে। ভিটামিন বি৬ গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণ করে টাইপ-টু ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।


আরও পড়ুন


জনসংখ্যা বাড়াতে চীনে তিন সন্তান নীতির অনুমোদন

লাউডস্পিকারে আজান বন্ধের যে ব্যাখ্যা দিল সৌদি আরব

সমালোচনার পরদিনই বরখাস্ত হামিদ মীর, স্ত্রী-কন্যাকে হুমকি

তিন মাস বেতন পাবেন না মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রীসহ অন্যান্য মন্ত্রীরা


পেটের খারাপ ব্যাকটেরিয়া দূর করে

কাঁচা কলা আঁশযুক্ত সবজি হওয়ায় এটি খুব সহজে হজম হয়। কাঁচা কলা পেটের ভেতরের খারাপ ব্যাকটেরিয়া দূর করে দেয়। তবে অতিরিক্ত পেট ফোলার সমস্যা থাকলে কাঁচা কলা না খাওয়াই ভালো। কোষ্ঠ্যকাঠিন্যের সমস্যাও অনেক সময়ে বাড়িয়ে দেয়।

ডায়রিয়ায় কাঁচা কলা

কাঁচা কলায় থাকে এনজাইম, যা ডায়রিয়া এবং পেটের নানা ইনফেকশন দূর করে। তাই ডায়রিয়া হলে চিকিৎসকেরা কাঁচা কলা খাওয়ার পরামর্শ দেন।

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর

রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল করে যেসব খাবার

অনলাইন ডেস্ক

রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল করে যেসব খাবার

কিছু খাবার যেমন আমাদের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতাকে বাড়িয়ে দেয়, তেমনি বেশ কিছু ক্ষতিকর খাবার রয়েছে যা আমাদের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতাকে কমিয়ে দেয়। অনেক সময় স্বাদের দিকে খেয়াল রাখতে গিয়ে আমরা ভুলে যাই কোন খাবারগুলো আমাদের শরীরের জন্য কতোটা ক্ষতিকর।

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী রাখতে আমাদের যেসব খাবার পরিহার করে চলা উচিত-

চিনি: সুস্বাস্থ্যের জন্য খাদ্যতালিকায় চিনির পরিমাণ কমিয়ে দিতে হবে। খাবারে উচ্চমাত্রায় চিনির ব্যবহার রক্তে সুগারের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। একই সঙ্গে রোগপ্রতিরোধ প্রক্রিয়ায় নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। রক্তে সুগারের মাত্রা বেড়ে গেলে অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়ার কার্যক্রমের ক্ষতি করতে পারে।

লবণ:  প্যাকেজজাত চিপস, বেকারি জাতীয় খাবার এবং হিমায়িত খাবারে লবণের পরিমাণ বেশি থাকে। অতিরিক্ত লবণ শরীরে প্রদাহ সৃষ্টি করতে পারে, রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দিতে পারে এমন রোগের ঝুঁকি বেড়ে যায়। স্বাভাবিক রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দিতে পারে এবং অন্ত্রের উপকারী ব্যাকটেরিয়ার জন্যও ক্ষতিকর। তাই যতটা পারা যায় লবণ জাতীয় খাবার গ্রহণ কমিয়ে দিতে হবে।

ভাজাপোড়া খাবার: এগুলোতে এজিইএস (অ্যাডভান্সড গ্লাইকেশন ইন্ড প্রোডাক্টস) নামে এক ধরনের মোলেকালস থাকে। তাই অতিরিক্ত ভাজাপোড়া খেলে প্রদাহ সৃষ্টিতে এবং স্যালুলার ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। উচ্চমাত্রায় এজিইএস দেহে প্রদাহ, অ্যান্টিঅক্সিডেন্টস এবং স্যালুলার কার্যক্রম ধ্বংস করে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দিতে পারে।

ভাজাপোড়া জাতীয় খাবার- ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, পটেটো চিপস, ফ্রাইড চিকেন, ফিশ এগুলো খাদ্যতালিকা থেকে কমাতে হবে।


আরও পড়ুনঃ

শনিবার থেকে সিনোফার্মের টিকাদান কার্যক্রম শুরু

ব্রাজিলের কাছে পাত্তাই পেল না পেরু

আবারও গাজায় বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরাইলি বাহিনী

নন্দীগ্রামের ভোটের ফলাফল নিয়ে হাইকোর্টে মমতা


অতিরিক্ত ক্যাফেইন: চা-কফিতে উচ্চমাত্রায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে যা স্বাস্থ্যকর। কিন্তু অতিরিক্ত ক্যাফেইন গ্রহণ ঘুমের ব্যাঘাত ঘটাতে পারে। যা প্রদাহ সৃষ্টি করে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা হ্রাস করে। রাতে ভালো ঘুমের জন্য ঘুমানোর ৬ ঘণ্টা আগে ক্যাফেইন গ্রহণ পরিহার করতে হতে।

অ্যালকোহল: অতিরিক্ত অ্যালকোহল পান শরীরে রোগপ্রতিরোধের ওপর প্রভাব ফেলে। ফিমোনিয়া এবং এ সংক্রান্ত অন্যান্য অসুখে সহজে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে।

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর

ভারতের নতুন আতঙ্ক ‘গ্রিন ফাঙ্গাস’

অনলাইন ডেস্ক

ভারতের নতুন আতঙ্ক ‘গ্রিন ফাঙ্গাস’

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস, হোয়াইট আর ইয়েলো এর পর এবার ভারতে নতুনভাবে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে ‘গ্রিন ফাঙ্গাস’। মধ্যপ্রদেশে ৩৪ বছর বয়সী একজন করোনা আক্রান্ত রোগীর শরীরে গ্রিন ফাঙ্গাসের উপস্থিতি শনাক্ত হয়েছে। ভারতে এটাই এই ফাঙ্গাসের শনাক্তের প্রথম ঘটনা। চিকিৎসকেরা বলছেন, করোনাকালে এই ফাঙ্গাস নতুন আতঙ্কের জন্ম দিতে পারে।


আরও পড়ুন

আবু ত্ব-হাকে খুঁজে বের করার দাবিতে সমাবেশ

ক্লাবে ঢুকে মদ না পেয়ে তারা ভাংচুর চালায় : ক্লাব কর্তৃপক্ষ (ভিডিও)

টিকা সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে: চীনের আশ্বাস

জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে পরীমণিকে


ইন্দোরের শ্রী অরবিন্দ ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্সের (এসএআইএমএস) বক্ষব্যাধি বিভাগের প্রধান চিকিৎসক রবি দোশি বলেন, এটা ছত্রাকজনিত সংক্রমণের নতুন একটি ঘটনা। এই ছত্রাকের বিষয়ে আরও বিস্তারিত গবেষণার প্রয়োজন রয়েছে। গ্রিন ফাঙ্গাসে সংক্রমিত হলে রোগীর ফুসফুস ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

রবি দোশি জানান, ‘দুই মাস আগে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন ওই রোগী। তবে তাঁর নাক থেকে রক্ত ঝরা, জ্বরের মতো উপসর্গ রয়ে গিয়েছিল। আমরা ভেবেছিলাম, তিনি ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তবে পরীক্ষার পরে দেখা যায়, ওই রোগী ব্ল্যাক নয়, বরং গ্রিন ফাঙ্গাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এটা তাঁর ফুসফুস, নসিকা গ্রন্থি ও রক্তে ছড়িয়েছে।

গ্রিন ফাঙ্গাস খুবই বিরল রঙের একটি ছত্রাক। ব্ল্যাক ফাঙ্গাসকে মহামারি হিসেবে ঘোষণা করা হলেও এটিকে সবথেকে মারাত্মক বলে ভাবা হচ্ছে।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

news24bd.tv/এমিজান্নাত

পরবর্তী খবর

জন্মনিরোধক পিল কবে খাবেন?

অনলাইন ডেস্ক

জন্মনিরোধক পিল কবে খাবেন?

অপরিকল্পিত যৌনসঙ্গমের কারণে অনেক সময় অনাকাঙ্ক্ষিত গর্ভধারণের ঝুঁকি রয়ে যায়। এই অনাকাঙ্ক্ষিত গর্ভধারণের ঝুঁকি এড়াতে আজকাল জরুরি গর্ভনিরোধক পিল খাওয়ার একটা বেশ চল হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে গর্ভধারণের ঝুঁকি এড়াতে জন্মনিয়ন্ত্রক ওষুধের সাহায্য নেন বেশিরভাগ নারী। গর্ভনিরোধক ওষুধ খেলে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বা কী কী প্রতিক্রিয়ার ঝুঁকি থাকে, এ বিষয়ে আমাদের অনেকেরই তেমন ধারণা নেই। আজ আপনাদের জানাবো , ইমারজেন্সি পিল আপনার জন্য কতটা নিরাপদ?

ইমারজেন্সি কনট্রাসেপটিভ পিলস ব্যবহারের কিছু নিয়ম রয়েছে। আসুন, জেনে নিই সে সম্পর্কে

গর্ভনিরোধক ওষুধকে অনেকে ‘মর্নিং আফটার পিল’ও বলে থাকেন। তবে এই ওষুধ সঙ্গমের পরের দিন সকালেই খেতে হবে এমন কোনো কথা নেই। রাতে সঙ্গমের পরও খেতে পারেন। যত তাড়াতাড়ি খাবেন, তত ভালো কাজ করবে গর্ভনিরোধক ওষুধ।


গর্ভনিরোধক ওষুধ গর্ভপাত করায় না, শুধু ডিম্বস্ফোটন বা ওভিউলেশনের সময় পিছিয়ে দিয়ে গর্ভধারণের ঝুঁকি এড়াতে সাহায্য করে। তাই গর্ভধারণের পর এই জাতীয় ওষুধ খেলে কোনো কাজ হবে না।

গর্ভনিরোধক ওষুধ খেলে ওজন বেড়ে যাবে ভেবে অনেকেই ভয় পান। যদিও এর সঙ্গে ওজন বাড়ার কোনো সম্পর্ক নেই।

কোনো গর্ভনিরোধক ওষুধই গর্ভধারণ রোধ করার শতভাগ প্রতিশ্রুতি দেয় না। তাই কিছু ক্ষেত্রে ওষুধ খাওয়ার পরও প্রেগন্যান্ট হওয়ার ঝুঁকি থাকে।

গর্ভনিরোধক ওষুধ খাওয়ার ফলে পিরিয়ড সাইকেল অনিয়মিত হতে পারে। এ ছাড়া মাথা ঘোরা, বমির মতো সমস্যা হতে পারে।

অপরিকল্পিত গর্ভধারণ রুখতে গর্ভনিরোধক ওষুধই শেষ কথা নয়। এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে কার্যকর হলো কপার আইইউডি। এটি ১০ বছর পর্যন্ত প্রেগন্যান্সি রুখতে সক্ষম।

সবশেষ কথা হলো, অপরিকল্পিতভাবে যৌন মিলনের পর প্রথমেই গর্ভনিরোধক ওষুধ না খেয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া জরুরি।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

যে কারণে তিনবেলা ডাল খাবেন

অনলাইন ডেস্ক

যে কারণে তিনবেলা ডাল খাবেন

খাবার হিসেবে ডাল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এতে থাকা প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকার কারনে একে গরীবের আমিষও বলা হয়ে থাকে। বিশ্বের অনেক দেশেই অধিকাংশ মানুষের দুপুর বা, রাতের খাবারে নিয়মিত ডাল থাকে। তবে পুষ্টিগুণের দিকে খেয়াল করলে প্রতিবেলা খাবারে ডাল রাখা যেতে পারে।

সুস্বাস্থ্য গড়ার জন্য খাদ্য তালিকায় তিনটি উপাদান খুবই গুরুত্বপূর্ণ- পুষ্টি, মানসম্পন্ন প্রোটিন ও ফাইবার। আর এই তিনটি উপাদানই একসঙ্গে ডালে পর্যাপ্ত পরিমাণে পাওয়া যায়।

পর্যাপ্ত পরিমাণে ফাইবার ক্ষুধা নিবারণ করে এবং আমাদের কোলেস্টেরলের মাত্রা হ্রাস করে। ক্যানসার বিরোধী উদ্ভিদ রাসায়নিকও ডাল। বিশেষ করে ডালে আইসোফ্লাভোনস এবং ফাইটোস্টেরলস নামক উপাদান রয়েছে। এসব উপাদান ক্যানসারের ঝুঁকি অনেক কমিয়ে আনে। কেননা, ডালে থাকা ভিটামিন-বি ফোলেট ক্ষতিগ্রস্ত কোষগুলোকে পুনরুজ্জীবিত করতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।

ডালের এসব পুষ্টি গুণাগুণ নিশ্চিতভাবে পাওয়ার জন্য অবশ্যই বিশ্বস্ত সূত্র থেকে ডাল ক্রয় বা সংগ্রহ করতে হবে। কেননা, শুধু অমসৃণ ডালের মধ্যেই সকল প্রকার পুষ্টিগুণ থাকে।


আরও পড়ুন:


হেফাজত নেতা আজহারুল ইসলাম গ্রেপ্তার

সিলেটের জকিগঞ্জে দেশের ২৮তম গ্যাসক্ষেত্রের সন্ধান!

পরীমণিকে বোট ক্লাবে নিয়ে যাওয়া কে সেই অমি?

আবারও চুপি চুপি ‘রোমাঞ্চকর’ ভ্রমণে নুসরাত-যশ


সপ্তাহে একেক দিন একেক রকম ডাল খাওয়ার অভ্যাস করুন। প্রতিদিন একই ডাল খেতে বিরক্তি লাগতে পারে। তবে উপকার পেতে অবশ্যই নিয়মিত ডাল খেতে হবে।

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর

হাড়ের ক্ষয়জনিত রোগের উপসর্গ ও চিকিৎসা

অনলাইন ডেস্ক

হাড়ের ক্ষয়জনিত রোগের উপসর্গ ও চিকিৎসা

হাড়ের ক্ষয়জনিত একটি রোগ অস্টিওপোরোসিস । এ সমস্যায় ঘনত্ব কমে গিয়ে হাড় হালকা ও ভঙ্গুর হয়ে যায় এবং হাড় ভাঙার ঝুঁকি বেড়ে যায়। প্রতিবছর বিশ্বে ৯০ লাখের বেশি মানুষের হাড় ভাঙে অস্টিওপোরোসিসের কারণে।  অস্টিওপেনিয়ার সময়ই হাড়কে দুর্বল করে ফেলে এবং হাড় ভাঙার ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। তেমন কোনো উপসর্গ ছাড়াই নীরবে এই রোগ শরীরে বাসা বাঁধতে থাকে। হাড় ভেঙে যাওয়ার আগে এই রোগের তেমন একটা লক্ষণ প্রকাশ পায় না।

পরিসংখ্যান মতে, বাংলাদেশে ৬০ লাখের মতো মানুষ হাড় ক্ষয়রোগে ভুগছে। পঞ্চাশোর্ধ্ব নারীদের এই রোগের ঝুঁকি ৫.১ শতাংশ, যেখানে পুরুষদের ক্ষেত্রে ৩.১ শতাংশ। নারীদের ক্ষেত্রে মেনোপজ-পরবর্তী হরমোনের অসামঞ্জস্যের (স্ট্রোজেন, প্রজেস্টেরন) কারণে হাড়ক্ষয়ের ঝুঁকি বেশি হয়।

কারণ
হাড়ক্ষয়ের পেছনে নানা ধরনের কারণ রয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম কারণগুলো হলো : খাদ্য : পর্যাপ্ত ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ‘ডি’, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, ভিটামিন ‘কে’, ভিটামিন ‘বি’, ভিটামিন ‘বি ১২’ ইত্যাদির অভাব হাড়ক্ষয়ের জন্য দায়ী। একজন ব্যক্তির প্রতিদিন গড়ে ১০০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম প্রয়োজন, সেখানে প্রতিদিন গড় ক্যালসিয়াম গ্রহণের পরিমাণ মাত্র ৩০৩ মিলিগ্রাম।

বংশগত : বংশে হাড়ক্ষয়জনিত রোগের ইতিহাস থাকলে।
হরমোনাল : কম বয়সে মেনোপজ হলে, হাড়ের ঘনত্ব কম থাকলে।

অন্যান্য রোগ : রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস, হাইপারথাইরয়েডিজম, ক্রনিক লিভার ডিজিজ থাকলে।

কিছু ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া : স্টেরয়েড (যেমন প্রেডনিসোলোন, ডেক্সামেথাসন, প্রটন পাম্প ইনহিবিটর ইত্যাদি সেবনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় হাড়ক্ষয় হতে পারে।

কায়িক শ্রম না করা : দৈনন্দিন জীবনে কায়িক শ্রম বা ব্যায়ামের অভ্যাস না গড়ে তোলা হাড় গঠনের জন্য বড় সমস্যা।

লক্ষণ

হাড়ক্ষয় একটি নীরব ঘাতক। তেমন কোনো উপসর্গ ছাড়াই মানুষ এই রোগে আক্রান্ত হয়। এরপরও কিছু লক্ষণ হলো, পিঠের পেছন দিকের অস্থিতে ব্যথা অনুভব হওয়া, হিপ, কোমর ও মেরুদণ্ডে ক্ষয় দেখা দেওয়া, উচ্চতা কিছুটা কমে যাওয়া, হাঁটা বা দাঁড়ানোর সময় ঝুঁকে থাকা, হঠাৎ পড়ে গেলে হার ভেঙে যাওয়া ইত্যাদি।

হাড়ক্ষয় প্রতিরোধে করণীয়
সঠিক খাদ্যাভ্যাস : হাড় ক্ষয়রোগীদের দুধ, দই, পনির, সয়াবিন, বাদাম, ঋতুকালীন সবুজ শাকসবজি, লেটুস, ব্রকলি, মাশরুম জাতীয় খাবার, মাছ খাওয়া উচিত।

ক্যালসিয়াম : দৈনিক ক্যালসিয়ামের চাহিদা বিভিন্ন বয়সে বিভিন্ন রকম থাকে। গড়ে তিন বছর বয়স পর্যন্ত প্রতিদিন ৫০০ মিলিগ্রাম, চার থেকে আট বছর পর্যন্ত ৮০০ মিলিগ্রাম, ৯ থেকে ১৮ বছর বয়সে ১৩০০ মিলিগ্রাম, ১৯ থেকে ৫০ বছরে ১০০০ মিলিগ্রাম এবং ৫১ বছর বা তদুর্ধ্বে ১২০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম খাবার থেকে গ্রহণ করা উচিত। দুধ ছাড়াও বাদাম, শাকসবজি, ছোট মাছে প্রচুর ক্যালসিয়াম রয়েছে।
প্রোটিন : কাঁটাসহ সার্ডিন মাছ, অ্যালমন্ড, ফুলকপি, বাঁধাকপি ইত্যাদি খাবার গ্রহণ।

ভিটামিন ‘ডি’ : একজন মানুষের ভিটামিন ‘ডি’র চাহিদা দৈনিক১০-১২ মাইক্রোগ্রাম। অথচ পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, বাংলাদেশে মাত্র ১ শতাংশ লোক যথেষ্ট পরিমাণ ভিটামিন ‘ডি’ গ্রহণ করে থাকে। ক্যালসিয়াম শোষণ, শক্তিশালী হাড় ও দাঁত গঠনে সাহায্য করে এই ভিটামিন ‘ডি’। কিন্তু শুধু খাদ্য গ্রহণের মাধ্যমে যথেষ্ট ভিটামিন ‘ডি’ পাওয়া কঠিন। সূর্যের আলো ভিটামিন ‘ডি’র সবচেয়ে ভালো উৎস। তাই প্রতিদিন ২৫-৩০ মিনিট রোদে থাকা ও প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শে ভিটামিন ‘ডি’ সাপ্লিমেন্ট গ্রহণ করা উচিত। এ ছাড়া চর্বিযুক্ত টুনা, স্যালমন মাছ, ডিমের কুসুম ইত্যাদি খাওয়া উচিত।

করণীয় : নিয়মিত কায়িক পরিশ্রম করা, পড়ে যাওয়ার মতো ঘটনা থেকে নিরাপদ থাকার ব্যবস্থা করা।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর