সৎ মানুষের গল্প
সৎ মানুষের গল্প

সৎ মানুষের গল্প

Other

সাবেক প্রধান বিচারপতি সাহাবুদ্দীন আহমদ নিজের টাকার জন্য যেরুপ মায়া করতেন সেরুপই সরকারের টাকা বাঁচাবার চেষ্টা সবসময় করতেন। যিনি সরকারি অর্থ সাশ্রয় করার জন্য সবসময় চিন্তা করতেন এবং চেষ্টাও করতেন। বিচারপতি সাহাবুদ্দীন আহমদ সরকারি অর্থ খরচে যে মিতব্যয়িতা অবলম্বন করতেন তার উদাহরণ সাবেক প্রধান বিচারপতি লতিফুর রহমান দিয়েছেন।

তখন বিচারপতি লতিফুর রহমান মাত্রই আপীল বিভাগের বিচারপতি হয়েছেন।

তাঁর মেয়ে রূম্পা যুক্তরাষ্ট্র থেকে বেড়াতে এসেছেন। তিনি বললেন পর্দার কাপড় তিনি পছন্দ করবেন। তাঁর মেয়ে যে পর্দার কাপড় পছন্দ করল তার প্রতিগজ মূল্য ১১০ টাকা। তিনি তৎকালীন রেজিস্ট্রারকে ডেকে বললেন, আমার মেয়ে ১১০ টাকা গজের কাপড় পছন্দ করেছে এবং ঐ ঘরের পর্দার জন্য দশ হাজার টাকার উপরে লাগবে। সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার বললেন, এটা কোন ব্যাপার না। পর্দা সময়মত এসে গেল এবং লাগানো হলো।

অনেকদিন পর প্রধান বিচারপতি সাহাবুদ্দীন আহমদ বিচারপতি লতিফুর রহমানকে ডেকে বললেন, আপনার এক ঘরের পর্দার দাম এসেছে দশ হাজার টাকার ওপরে। অথচ প্রধান বিচারপতির বাসায় চল্লিশ টাকা গজের পর্দা লাগানো হয়।

বিচারপতি লতিফুর রহমান বললেন, আমি সৌখিন লোক। তাছাড়া আমার মেয়ে এটা পছন্দ করেছে। তিনি জানতে চাইলেন এখন তাকে কী করতে হবে।

তখন প্রধান বিচারপতি সাহাবুদ্দীন আহমদ বললেন, আপনি সাড়ে চার হাজার টাকা দিয়ে দিন। বাকিটা সরকার দেবে।

ঐভাবে নোট লেখা হলো। বিচারপতি লতিফুর রহমান টাকা দিয়ে দিলেন। টাকা দেয়ার পর প্রধান বিচারপতি সাহাবুদ্দীন আহমদের প্রতি তাঁর শ্রদ্ধা বেড়ে গেল।


আরও পড়ুন


বরফ গলে আয়তন কমছে আইসল্যান্ডের!

লাউডস্পিকারে আজান বন্ধের যে ব্যাখ্যা দিল সৌদি আরব

ইরানে জাহাজডুবি, কয়েক ঘন্টা পরেই তেল শোধনাগারে আগুন

তিন মাস বেতন পাবেন না মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রীসহ অন্যান্য মন্ত্রীরা


উল্লেখ করা প্রয়োজন সাহাবুদ্দীন আহমদ পরবর্তীতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন ও বিচারপতি লতিফুর রহমান বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি হয়েছিলেন।

news24bd.tv / নকিব

;