‘তারা আমাকে উলঙ্গ করে ফেললো এবং চামড়ার বেল্ট আর লাঠি দিয়ে মারতে লাগলো’
‘তারা আমাকে উলঙ্গ করে ফেললো এবং চামড়ার বেল্ট আর লাঠি দিয়ে মারতে লাগলো’
বিবিসি বাংলার প্রতিবেদন

‘তারা আমাকে উলঙ্গ করে ফেললো এবং চামড়ার বেল্ট আর লাঠি দিয়ে মারতে লাগলো’

অনলাইন ডেস্ক

পাকিস্তানের আইনজীবী ও সামাজিক মাধ্যমকর্মী শফিক আহমদ ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে সন্ধ্যেবেলা হাঁটতে হাঁটতে চুল কাটার সেলুনে যাচ্ছিলেন, চলতে চলতেই হঠাৎ তার মনে হলো- কেউ যেন তাকে অনুসরণ করছে। তার ধারণা, হয়তো তাকে অপহরণ করা হতে পারে এবং তাই হলো।  

ঘটনার সময় কয়েক মুহূর্ত পরই একদল লোক এসে তাকে ধরে ফেললো, এবং কাছেই রাখা একটি গাড়ির পেছনের সিটে তাকে জোর করে তুলে বসিয়ে দিল। পাকিস্তানের পূর্বাঞ্চলীয় ওকারা শহরের রাস্তায় বসানো সিসিটিভিতে পুরো ঘটনাটি ধরা পড়েছে।

সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, ৩৭-বছর বয়স্ক শফিক আহমদ প্রাণপণে ধস্তাধস্তি করছেন নিজেকে ছাড়িযে নেবার জন্য, আর আক্রমণকারীরা আশপাশের পথচারীদের সতর্ক করছে যেন তারা ব্যাপারটাতে নাক না গলায়। আহমেদকে তুলে নিয়ে গাড়িটা অদৃশ্য হয়ে যাবার পর কয়েক সপ্তাহ পর্যন্ত তার কোন খবরই কেউ জানতে পারেনি।  

শফিক আহমদের বিশ্বাস, যে লোকেরা তাকে অপহরণ করেছিল- তারা পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থার লোক।

আহমেদ ছিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সরকার এবং দেশটির শক্তিশালী সামরিক বাহিনীর একজন কড়া সমালোচক।  

শফিক আহমদের অন্তর্ধান এবং তার ওপর যে অত্যাচার করা হয়, তা অনেকের মতে ছিল এক বৃহত্তর 'ক্র্যাকডাউনের' অংশ- যার লক্ষ্য ছিল ভিন্নমতাবলম্বীরা।  

এর উদ্দেশ্য ছিল, পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী যে রাজনৈতিক ব্যবস্থায় হস্তক্ষেপ করছে এবং ২০১৮ সালের নির্বাচনকে ইমরান খানের পক্ষে নিয়ে আসার পেছনে সহায়ক ভুমিকা পালন করেছে - এমন অভিযোগ যারাই করছেন, তাদের কণ্ঠ রোধ করা। সামরিক বাহিনী এবং ইমরান খান উভয়েই এসব অভিযোগ অস্বীকার করে থাকেন।

আহমদ বিবিসির সাথে কথা বলছিলেন তার হাসপাতালের শয্যা থেকে - যেখানে তিনি সেরে উঠছেন। ওকারা শহরের সিসিটিভি ফুটেজের ফ্রেম থেকে অদৃশ্য হয়ে যাবার পর কি ঘটেছিল - সেটাই বলছিলেন তিনি। "তারা আমাকে হাতকড়া পরিয়ে দিল, চোখ বেঁধে ফেললো। "

তার পর তাকে নিয়ে যাওয়া হলো অজ্ঞাত একটি জায়গায়। "তারা আমাকে টেনে হিঁচড়ে গাড়ি থেকে নামালো, এবং একটা ঘরে নিয়ে গিয়ে আমাকে ফেলে দিল। তার পর শুরু হলো নির্যাতন। " "ওরা আমাকে কিছু জিজ্ঞেস করেনি। তারা আমার কাপড়চোপড় খুলে উলঙ্গ করে ফেললো, এবং চামড়ার বেল্ট আর লাঠি দিয়ে আমাকে মারতে লাগলো। অব্যাহতভাবে আমার পিঠে এবং পায়ের পাতায় পেটানো হলো। "

একটা জানালাবিহীন ছোট ঘরের মধ্যে এই প্রহার চললো পাঁচ-ছয় দিন ধরে। আহমদের মনে হয়েছিল তিনি মারা যাবেন। "ওরা আমাকে বলেছিল, তোমার মৃতদেহ আমরা নদীতে ফেলে দেবো। " আহমদ মুক্তির পাবার পর তার সারা গায়ের নির্যাতনের অসংখ্য ক্ষতচিহ্নের ভিডিও করে রেখেছেন।

শফিক আহমদের অপহৃত হবার পর থেকে এই অভিযান ক্রমান্বয়ে আরো ব্যাপক হয়েছে। গত সপ্তাহে একজন সাংবাদিককে বন্দুকের মুখে বেঁধে পেটানো হয়। নির্যাতনকারীরা নিজেদেরকে পাকিস্তানের গুপ্তচর সংস্থা আইএসআইয়ের লোক বলে পরিচয় দেয়।

এপ্রিল মাসে একজন ভাষ্যকার পার্কে হাঁটার সময় তাকে গুলি করে আহত করা হয়। রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার্স নামে একটি দাতব্য প্রতিষ্ঠান সংবাদপত্রের স্বাধীনতার যে আন্তর্জাতিক সূচক প্রকাশ করে- তাতে পাকিস্তানের অবস্থান ১৮০টি দেশের মধ্যে ১৪৫তম।

news24bd.tv/আলী

;