মৃত ব্যক্তিকে গোসল করানোর নিয়ম

অনলাইন ডেস্ক

মৃত ব্যক্তিকে গোসল করানোর নিয়ম

মৃত ব্যক্তিকে গোসল দেয়া ফরজে কিফায়া। এবং কেউ কেউ ওয়াজিব বলেছেন। যারা গোসল দিতে পারদর্শী তারাই মৃত ব্যক্তিকে গোসল দিবে। মৃত ব্যক্তিকে সঠিকভাবে গোসল দেয়ার পদ্ধতি তুলে ধরা হলো-

১. মৃত ব্যক্তিকে গোসল দেয়ার সময় গোসলের খাটে শোয়াতে হয়। তারপর পরনের কাপড় সরিয়ে পুরুষ হলে নাভি থেকে হাঁটু পর্যন্ত একটা কাপড় রাখতে হয়।
২. প্রায় বসার মত করে মৃত ব্যক্তির মাথাকে উঁচু করে আলতোভাবে মৃত ব্যক্তির পেটকে চাপ দিয়ে বেশি করে পানি ঢেলে ময়লা বের করা।
৩. গোসলদাতার হাতে একটি নেকড়া পেঁচিয়ে বা হাত মোজা পরিধান করে নেয়া।
৪. অতপর গোসলের নিয়ত করে প্রথমে নামাজের অজুর ন্যায় মৃত ব্যক্তিকে অজু করানো। তবে মুখে ও নাকে পানি প্রবেশ করানো যাবে না। বরং ভিজা আঙ্গুলদ্বয় নাকে ও মুখে প্রবেশ করানো।
৫. গোসল ফরজ অবস্থায় এবং ঋতুস্রাব ও সন্তান প্রসব করার পর মারা গেলে মুখ ও নাকে পানি পৌছানো জরুরি।
৬. তুলা দিয়ে দাঁতের মাড়ি পরিষ্কার করে দেয়া।
৭. অতপর কুল (বড়ই) পাতা ও সাবান মিশ্রিত হালকা গরম পানি দ্বারা প্রথমে মৃত ব্যক্তির মাথা ও দাড়ি ধৌত করা।
৮. তারপর ঘাড় থেকে পা পর্যন্ত ডান পার্শ্ব ধৌত করে বাম পার্শ্বের উপর রেখে পিঠের ডান অংশ ধৌত করা।
৯. অনুরুপভাবে ডান পাশের নেয় বাম পাশও ধৌত করা।
১০. এভাবে তিনবার ধৌত করা। তারপরও যদি ময়লা থাকে তবে ময়লা পরিষ্কার হওয়া পর্যন্ত বেজোড় করে ধৌত করা।

আরও পড়ুন:

 রামেকে করোনা ইউনিটে আরও ১৬ জনের মৃত্যু

ওমানে করোনায় ৭ ঘণ্টার ব্যবধানে বাংলাদেশি দুই ভাইয়ের মৃত্যু 

 যে কৌশলে পয়েন্ট পেল বাংলাদেশ

‘রাধে’ সিনেমা দেখে যা বললেন সালমানের বাবা

 

১১. গোসলের শেষ বারের পানির সঙ্গে কার্ফুর, আতর মিশিয়ে সমগ্র শরীরে পানি ঢেলে দেয়া।

১২. মৃত ব্যক্তির মোচ বা নখ বেশি লম্বা হয় তবে কেটে ফেলা। (তবে এ ব্যাপারে মতভেদ রয়েছে)
১৩. একটি পরিষ্কার কাপড় দ্বারা মৃত ব্যক্তির শরীরের পানি মুছে দেয়া।
১৪. মৃত ব্যক্তি মহিলা হলে চুলকে তিনটি বেণী করে পিছনের দিকে রাখা।
১৫. মৃত ব্যক্তিকে গোসল দেয়ার পর দেহ থেকে ময়লা বের হলে, বের হওয়ার স্থান ধৌত করে তুলা দ্বারা বন্ধ করে দেয়া। এক্ষেত্রে কেউ বলেছেন, অজু ও গোসল পুনরায় করানো লাগবে না। আবার কেউ কেউ বলেছেন, অজু করাতে হবে। তবে অজু করানোই উত্তম।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

প্রস্রাব-পায়খানার বেগ নিয়ে কি নামাজ পড়া যাবে?

অনলাইন ডেস্ক

প্রস্রাব-পায়খানার বেগ নিয়ে কি নামাজ পড়া যাবে?

প্রস্রাব-পায়খানা ও বায়ু চাপ রেখে অনেকেই নামাজ আদায় করে থাকেন। এটি রাসুল (সা.) পছন্দ করেননি, এ জন্য ওলামায়ে কেরাম এটাকে মাকরুহ বলেছেন। প্রস্রাব-পায়খানা ও বায়ু চাপ রেখে নামাজের একাগ্রতা বিঘ্নিত হয়। আর তাই হাদিস ও ফেকাহের কিতাবে এটি করতে নিষেধ করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে ইরশাদ হয়েছে, হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আরকাম রাযিয়াল্লাহু আনহু বলেন, আমি হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি যে, যখন নামাজ দাঁড়িয়ে যায়- আর তোমাদের কারও প্রস্রাব-পায়খানার প্রয়োজন দেখা দেয়; সে যেন প্রথমে প্রয়োজন সেরে নেয়। -জামে তিরমিজি, হাদিস- ১৪২

হজরত সাওবান রাযিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত এক হাদিসে এসেছে, হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, কোনো ব্যক্তির জন্য হালাল নয় কারও গৃহাভ্যন্তরে অনুমতি ব্যতীত দৃষ্টিপাত করা... এবং কেউ যেন প্রস্রাব-পায়খানার চাপ নিয়ে নামাজ না পড়ে। -জামে তিরমিজি, হাদিস- ৩৫৭; সুনানে আবু দাউদ, হাদিস- ৯১

হজরত নাফে রহমাতুল্লাহি আলাইহিকে জিজ্ঞাসা করা হল যে, এক ব্যক্তি পেটে বায়ুর চাপ বোধ করে। তিনি বললেন, বায়ুর চাপ বোধ করা অবস্থায় সে যেন নামাজ না পড়ে। -মুসান্নাফে ইবনে আবি শাইবা, হাদিস- ৮০২২

উপরোক্ত হাদিস ও বর্ণনার ওপর ভিত্তি করে ইসলামি স্কলাররা বলেছেন, প্রস্রাব-পায়খানা এবং বায়ুর চাপ নিয়ে নামাজ আরম্ভ করা মাকরূহে তাহরিমি। আর স্বাভাবিক অবস্থায় নামাজ শুরু করার পর নামাজের মাঝে এমন চাপ সৃষ্টি হলে নামাজের পর্যাপ্ত ওয়াক্ত বাকি থাকা সত্ত্বেও এ অবস্থায় নামাজ চালিয়ে যাওয়া মাকরূহ। এ ধরনের ক্ষেত্রে নামাজ ছেড়ে দিয়ে প্রয়োজন শেষ করে পূর্ণ চাপমুক্ত হয়ে নামাজ আদায় করা কর্তব্য।

তবে হ্যাঁ, নামাজের ওয়াক্ত যদি এত কম থাকে, যাতে প্রয়োজন সারতে গেলে নামাজ কাজা হয়ে যাবে; তাহলে সম্ভব হলে এ অবস্থায়ই নামাজ পড়ে নিবে।

অবশ্য পর্যাপ্ত ওয়াক্ত থাকার পরও কোনো ইমাম বা একাকী নামাজ আদায়কারী যদি এ অবস্থায় নামাজ পড়ে নেয় তবে এমনটি করা মাকরূহ হলেও তাদের নামাজ আদায় হয়ে যাবে। পুনরায় পড়া জরুরি নয়। তবে ভবিষ্যতে এরূপ করা থেকে বিরত থাকতে হবে। -রদ্দুল মুহতার: ১/৩৪১, ৬৪৪

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

মুমিনদের সম্পর্কের গুরুত্ব, ছয়টি গুরুত্বপূর্ণ হক

অনলাইন ডেস্ক

মুমিনদের সম্পর্কের গুরুত্ব, ছয়টি গুরুত্বপূর্ণ হক

‘আল-মুসলিমু মিল্লাতুন ওযাহেদা’ অর্থাৎ বিশ্ব মুসলিম এক জাতি এক দেহ।’ মুসলমান মুসলমানের আয়না স্বরূপ। কোনো মুমিন মুসলমানের মধ্যে কোনো দোষ বা অন্যায় দেখা দিলে অপর মুমিন মুসলমান তাকে সেটা দেখিয়ে দেবে, পরিশুদ্ধ করবে, এটা ঈমানি দায়িত্ব। যাতে সে দুনিয়া ও পরকালে সফলতা লাভ করতে পারে।

প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম হাদিসে পাকে মুমিন মুসলমানের পারস্পরিক দায়িত্ব কর্তব্য সম্পর্কে অনেক নসিহত পেশ করেছেন।

আরও পড়ুন:


বিপদটা এখানেই

ফ্রান্সের কাছে জার্মানির হার

ওমানের কাছে ৩-০ গোলে বিধ্বস্ত বাংলাদেশ


হজরত নোমান রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘(দুনিয়ার) সব মুমিন একটি ব্যক্তিসত্তার মতো। যখন তার চোখে ব্যাথ্যা শুরু হয়, তখন তার গোটা শরীরই ব্যাথা অনুভব করে। আর যদি তার মাথা ব্যথা হয় তাতে তার গোটা শরীরই বিচলিত হয়ে পড়ে।’ (মিশকাত)

বিস্তারিত ভিডিওতে

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

ইমামের আগে সালাম ফেরালে নামাজ হবে কী?

অনলাইন ডেস্ক

ইমামের আগে সালাম ফেরালে নামাজ হবে কী?

ঈমানের পর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল নামাজ। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আল্লাহর পক্ষ থেকে বার বার নামাজের তাগিদ পেয়েছেন। কুরআনে পাকে আল্লাহ তাআলা বিভিন্ন জায়গায় সরাসরি ৮২ বার সালাত শব্দ উল্লেখ করে নামাজের গুরুত্ব তুলে ধরেছেন। তাই প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নামাজকে ঈমানের পর স্থান দিয়েছেন। আজকে আমরা আলোচনা করবো ইমামের আগে সালাম ফেরালে নামাজ হবে কী না।

আরও পড়ুন:


আম্পায়ারের ওপর চড়াও হয়ে লাথি দিয়ে স্ট্যাম্প ভাঙলেন সাকিব (ভিডিও)

রাজশাহী মেডিকেলে করোনা ও উপসর্গ নিয়ে ১৫ জনের মৃত্যু

সুযোগ পেলে নায়ক হিসেবে অভিনয় করতে রাজি বেরোবি উপাচার্য কলিমউল্লাহ

পাওনা টাকা না দেওয়ায় প্রায় ৬ কোটি টাকার বাড়ি ভেঙে দিলেন মিস্ত্রি


 

এমন প্রশ্নের জবাবে ইসলামী চিন্তাবিদরা বলেছেন, ইমামের আগে একজন মুক্তাদি যদি ডানদিকে সালাম ফেরান, তাহলে তাঁর সালাত বাতিল হয়েছে। তিনি ইমামকে অনুসরণ করেননি। ইমামকে অনুসরণ করা তাঁর ওপর ওয়াজিব ছিল। 

যেহেতু তিনি ইমামের আগে সালাম ফিরিয়েছেন, সেহেতু তাঁর সালাত হয়নি। এটাই ওলামায়ে কেরামের বক্তব্য এবং এটাই বিশুদ্ধ বক্তব্য।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

ঋণ পরিশোধে বিশ্বনবীর মুজিজা

অনলাইন ডেস্ক

ঋণ পরিশোধে বিশ্বনবীর মুজিজা

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বিশ্ব মানবতার জন্য রহমতস্বরুপ। উম্মতের ব্যথায় তিনি ব্যথিত হতেন। তাদের সমস্যার সমাধানে থাকতেন সক্রিয়। উম্মতের সমস্যা সমাধানে রয়েছে প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের অসংখ্য মুজিজা। এমনই একটি মুজিজায় ঋণ থেকে মুক্তি পেল এক সাহাবি। হাদিসে পাকে এসেছে-

হজরত জাবির রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, আমার পিতা উহুদ যুদ্ধে শহীদ হন এবং অনেক ঋণ রেখে যান। এ ঋণ পরিশোধের মতো কোনো সামর্থ আমার ছিল না। আমার কাছে পিতার রেখে যাওয়া সামান্য খেজুর ছিল।

ঋণ পরিশোধের সময় হলে আমি রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে গিয়ে আমার অবস্থান তুলে ধরি। তিনি আমাকে বললেন, খেজুরগুলো পৃথক পৃথক স্থানে স্তুপ করে রাখ।

প্রিয়নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সবচেয়ে বড় খেজুরের স্তুপের চারদিকে ৩ বার প্রদক্ষিণ করলেন অতঃপর এক স্থানে বসে গেলেন। তিনি (প্রিয়নবি) বললেন, পাওনাদারদের ডাক।

এরপর পাওনাদাররা একের পর এক তাদের ঋণের পরিমাণ হিসাব করে বড় স্তুপ থেকে খেজুর নিয়ে গেল। আমি খুবই আনন্দিত ও সন্তুষ্ট হতে থাকলাম এই ভেবে যে, (আমার পিতার) সব ঋণ পরিশোধ হয়ে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন


সূরা ইয়াসিন: আয়াত ১০-১২, কাফিরদের শাস্তি

গোল করে মেসির রেকর্ড, তবুও জয়ের মুখ দেখলো না আর্জেন্টিনা (ভিডিও)

ওরা যখন পরীমনিকে গালাগাল করছিল তখন আমার হাত কাঁপছিল : জিমি

১৫ সেকেন্ডের ভিডিও শুনলে সহ্য করতে পারবেন না : পরীমণি


আল্লাহ তাআলার অসীম কৃপায় প্রিয়নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যে স্তুপের কাছে বসে ছিলেন; সে স্তুপের একটি খেজুরও হ্রাস পায়নি। (বুখারি)

এ ছিল প্রিয়নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নির্দেশ, দোয়া ও পবিত্র হাতের বরকত। এটি ছিল বিশ্বনবীর একটি অন্যতম মুজিজাও।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে প্রিয়নবীর আদর্শকে অনুসরণ ও অনুকরণ করার তাওফিক দান করুন। তাঁর প্রতি বেশি বেশি দরুদ পাঠের তাওফিক দান করুন। আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের রহমত ও বরকত লাভের তাওফিক দান করুন। আমিন।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর

সূরা ইয়াসিন: আয়াত ১০-১২, কাফিরদের শাস্তি

অনলাইন ডেস্ক

সূরা ইয়াসিন: আয়াত ১০-১২, কাফিরদের শাস্তি

পবিত্র কুরআনের মর্যাদাপূর্ণ একটি সূরা সূরা ইয়াসিন। এটি মক্কায় অবতীর্ণ। এই সূরার প্রথমে বর্ণিত দুই মুকাত্তায়াত হরফের নামে এটির নামকরণ করা হয়েছে। এই সূরায় রয়েছে ৮৩টি আয়াত। সূরা ইয়াসিনে বিশ্বাসগত বিষয়াদি নিয়ে আলোচনা রয়েছে। আজ এই সূরার ১০ থেকে ১২ নম্বর আয়াতের ব্যাখ্যা উপস্থাপন করা হবে। এই সূরার ১০ ও ১১ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে:

وَسَوَاءٌ عَلَيْهِمْ أَأَنْذَرْتَهُمْ أَمْ لَمْ تُنْذِرْهُمْ لَا يُؤْمِنُونَ (10) إِنَّمَا تُنْذِرُ مَنِ اتَّبَعَ الذِّكْرَ وَخَشِيَ الرَّحْمَنَ بِالْغَيْبِ فَبَشِّرْهُ بِمَغْفِرَةٍ وَأَجْرٍ كَرِيمٍ (11)  

১০. “আপনি তাদেরকে সতর্ক করুন বা না করুন, তাদের পক্ষে দুটিই সমান; তারা ঈমান আনবে না।”
১১. “আপনি কেবল তাকেই সতর্ক করতে পারেন, যে উপদেশ (অর্থাৎ কুরআন) অনুসরণ করে এবং দয়াময় আল্লাহকে গোপনে ভয় করে। অতএব আপনি তাকে সুসংবাদ দিয়ে দিন ক্ষমা ও সম্মানজনক পুরস্কারের।”

আগের আয়াতগুলোতে কিয়ামতের দিন কাফির ও মুশরিকদের ভয়াবহ শাস্তির কথা বর্ণনা করা হয়েছে। এই দুই আয়াতে বলা হচ্ছে, কাফিররা আল্লাহর প্রতি বিদ্বেষ ও গোঁয়ার্তুমির কারণে সত্য গ্রহণ করতে পারেনি। তারা হয় আল্লাহর রাসূলের যুক্তপূর্ণ কথা শুনতেই অস্বীকার করেছে অথবা যদিও বা শুনেছে তার প্রতি ভ্রুক্ষেপ করেনি। ভাবখানা এমন যেন কিছুই শুনতে পায়নি। কাজেই এ ধরনের লোকদের সতর্ক করা বা না করা দু’টিই সমান। কারণ, তারা আগে থেকেই সিদ্ধান্ত নিয়ে রেখেছে ঈমান আনবে না। তাদের অন্তর হচ্ছে সেই শক্ত মাটির মতো যার মধ্যে বৃষ্টির পানি প্রবেশ করে না। এ ধরনের মাটি স্বাভাবিকভাবে সতেজ হয় না এবং তাতে কোনো উদ্ভিদও গজায় না।

পরের আয়াতে বলা হচ্ছে, সেই ব্যক্তিকে সতর্ক করলে কাজ হয় যে উপদেশ গ্রহণ কোরে তা মেনে চলতে মানসিকভাবে প্রস্তুত। গোটা পবিত্র কুরআনই হচ্ছে উপদেশবাণী এবং এই মহাগ্রন্থের বহু আয়াতে বিশ্বনবী (সা.)কে মুযাক্কির বা উপদেশ প্রদানকারী হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে আল্লাহকে চেনা ও সত্য গ্রহণের ক্ষমতা মানুষের সহজাত প্রবৃত্তিতে দিয়ে দেয়া হয়েছে। নানা কারণে মানুষ নিজের ভেতরে থাকা সেই উপলব্ধি ক্ষমতাকে উপেক্ষা করে। সেই সহজাত প্রবৃত্তিকে জাগিয়ে তুলে মানুষকে সঠিক পথের দিশা দেয়ার জন্য আল্লাহ তায়ালা নবী-রাসূল ও আসমানি কিতাব পাঠিয়েছেন। যার অন্তর সত্য গ্রহণের জন্য প্রস্তুত সে অবশ্যই রাসূল ও কুরআনে কারিম থেকে উপকৃত হয়। এ ধরনের মানুষ প্রকাশ্যে ও গোপনে আল্লাহর কথা স্মরণে রাখে এবং গোনাহর কাজ থেকে যথাসম্ভব দূরে থাকার চেষ্টা করে। এধরনের মানুষের প্রতি আল্লাহ তায়ালা দয়ালু আচরণ করবেন। তাদের গোনাহগুলোকে ঢেকে রাখবেন এবং নেক কাজের জন্য তাদেরকে পুরস্কৃত করবেন।

এই দুই আয়াতের শিক্ষণীয় দিকগুলো হলো:

১. প্রতিটি মানুষকেই পরকালের ব্যাপারে সতর্ক করতে হবে।  এই সতর্কবাণী শুধুমাত্র উপদেশ গ্রহণে প্রস্তুত ব্যক্তিকেই সঠিক পথের দিশা দিতে পারে অন্য কাউকে নয়।
২. প্রকৃত ঈমান হচ্ছে গোপনে ও অন্তরে আল্লাহকে ভয় করা; শুধুমাত্র বাহ্যিক আচরণ ও পোশাক-আশাকে ঈমানদারি যথেষ্ট নয়।
৩. যারা আল্লাহর রাসূলের সতর্কবাণী গ্রহণ করে তারাই আল্লাহর রহমত লাভ করবে এবং তাদেরকেই জান্নাতের সুসংবাদ দেয়া হয়েছে।

সূরা ইয়াসিনের ১২ নম্বর আয়াতে মহান আল্লাহ বলেছেন:

إِنَّا نَحْنُ نُحْيِي الْمَوْتَى وَنَكْتُبُ مَا قَدَّمُوا وَآَثَارَهُمْ وَكُلَّ شَيْءٍ أحْصَيْنَاهُ فِي إِمَامٍ مُبِينٍ (12)

১২. “নিঃসন্দেহে আমি মৃতদেরকে জীবিত করি এবং তারা যা আগে পাঠিয়েছে ও যেসব কাজ করেছে তা লিপিবদ্ধ করি। আমি প্রত্যেক বস্তু স্পষ্ট কিতাবে সংরক্ষিত রেখেছি।”

নবী-রাসূলরা মানুষের প্রতি যেসব সতর্কবাণী উচ্চারণ করেছেন তার মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে কিয়ামত দিবসের হিসাব-নিকাশ। মৃত্যুর পর মানুষ কিয়ামতের দিন আবার জীবিত হবে এবং তাদেরকে পার্থিব জীবনের কৃতকর্মের জন্য জিজ্ঞাসাবাদ ও বিচার করা হবে। স্বাভাবিকভাবেই সেদিনের বিচারের জন্য দুনিয়ার কৃতকর্মগুলো লিখে রাখা বা সংরক্ষণ করা প্রয়োজন।

পৃথিবীর আদালতে শুধুমাত্র মানুষের খারাপ কাজের বিচার করা হয়। এ ধরনের আদালতে শুধুমাত্র ওই খারাপ কাজের বাহ্যিক ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে শাস্তি দেয়া হয়। কিন্তু কিয়ামতের বিচার দিবসে খারাপ কাজের জন্য যেমন মানুষকে শাস্তি পেতে হবে তেমনি ভালো কাজের জন্য তাদেরকে দেয়া হবে মহা পুরস্কার। সেই আদালতে মানুষের কৃতকর্মের বাহ্যিক ফলাফলকে যেমন বিবেচনা করা হবে তেমনি তার যেসব কাজের প্রভাব তার মৃত্যুর শত শত বছর পরও পৃথিবীতে পড়েছে সেটিও বিবেচনা করা হবে।

আরও পড়ুন


গোল করে মেসির রেকর্ড, তবুও জয়ের মুখ দেখলো না আর্জেন্টিনা (ভিডিও)

ওরা যখন পরীমনিকে গালাগাল করছিল তখন আমার হাত কাঁপছিল : জিমি

১৫ সেকেন্ডের ভিডিও শুনলে সহ্য করতে পারবেন না : পরীমণি

পরিস্থিতি সামাল দেওয়া কঠিন হয়ে পড়বে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী


উদাহরণস্বরূপ, দুনিয়ার আদালতে একজন খুনিকে মানুষ হত্যা করার অপরাধে শাস্তি দেয়া হয়। কিন্তু যাকে খুন করা হয়েছে দেখা যাবে তার স্ত্রী ও পরিবার তাদের অভিভাবক হারানোর কারণে বহু বছর ধরে অর্থনৈতিক ও সামাজিকভাবে অত্যন্ত কষ্টকর জীবনযাপনে বাধ্য হয়। পৃথিবীতে প্রচলিত বিচারব্যবস্থায় হত্যাকাণ্ডের শিকার ব্যক্তির পরিবারটির জন্য নেমে আসা সমূহ বিপদকে বিবেচনায় নেয়া হয় না। খুনি ব্যক্তিকে সর্বোচ্চ মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয় যাতে নিহত ব্যক্তির পরিবার মানসিক তৃপ্তি ছাড়া বাহ্যিকভাবে লাভবান হয় না। কিন্তু কিয়ামতের দিন আল্লাহর আদালতে ব্যক্তির কৃতকর্ম সেটা ভালো হোক কিংবা খারাপ, তার দীর্ঘমেয়াদী ও সুদূরপ্রসারি প্রভাবকে বিবেচনা করা হবে।

আয়াতের পরবর্তী অংশে মানুষের কৃতকর্ম লিপিবদ্ধ করার ব্যাপারে বলা হচ্ছে: লৌহে মাহফুজে সব কিছু হিসাব করে সংরক্ষণ করা হচ্ছে এবং কোনো কিছুই বাদ পড়ছে না। কিয়ামতের দিন যেহেতু এই লৌহে মাহফুজকে মানুষের ভালো ও মন্দ কাজের হিসাব নেয়ার জন্য মানদণ্ড হিসেবে বিবেচনা করা হবে তাই এই আয়াতে একে ‘ইমাম’ হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে।

এই আয়াতের শিক্ষণীয় দিকগুলো হলো:

১. মানুষের কৃতকর্মের হিসাবের খাতা তার মৃত্যুর পর কিয়ামত পর্যন্ত খোলা থাকে। তার কৃতকর্মের যেসব প্রভাব মৃত্যুর পরেও মানবজাতির উপর পড়তে থাকে সেসব তার আমলনামায় লিপিবদ্ধ করা হয়।
২. ইসলামে মানুষকে শুধুমাত্র তার কৃতকর্মের জন্য জবাবদিহী করতে হয় না সেইসঙ্গে পারিবারিক ও সামাজিক জীবনের ওপর তার কৃতকর্মের প্রভাবের জন্যও কৈফিয়ত দিতে হয়।
৩. কিয়ামত দিবসের কোনো বিচার অনুমান নির্ভর হবে না বা সেখানে সাক্ষ্যপ্রমাণের অভাবে ভুল বিচারেরও কোনো আশঙ্কা নেই। বরং সেদিনের বিচার হবে সুস্পষ্টভাবে লিপিবদ্ধ আমলনামার ভিত্তিতে যাতে কোনো ধরনের কমবেশি করা হবে না।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর