বিবিসি বাংলার প্রতিবেদন

যে কারণে রোহিঙ্গাদের স্বীকৃতি দিল মিয়ানমারের বিরোধী দলগুলো

অনলাইন ডেস্ক

যে কারণে রোহিঙ্গাদের স্বীকৃতি দিল মিয়ানমারের বিরোধী দলগুলো

হত্যা ও নির্যাতন করে রোহিঙ্গাদের বিতারিত করার পর আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের পক্ষ থেকে অনেক চাপ সত্ত্বেও মিয়ানমারের যে রাজনীতিকরা রোহিঙ্গাদের অধিকারের বিন্দুমাত্র স্বীকৃতি দিতে রাজী হয়নি, হঠাৎ করে তাদের অবস্থানে নাটকীয় পরিবর্তন বেশ বিস্ময়ের সৃষ্টি করেছে।

গত বৃহস্পতিবার রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে সামরিক অভ্যুত্থানে ক্ষমতা হারানো অং সান সুচির দল এনএলডি-সহ বিরোধী দলগুলোর একটি জাতীয় মোর্চা থেকে এই নাটকীয় ঘোষণাটি দেয়। এতে রোহিঙ্গাদের অধিকারের স্বীকৃতি শুধু নয়, ১৯৮২ সালের যে নাগরিকত্ব আইনের বলে তাদের অধিকার হরণ করা হয়, সেটি বিলোপের অঙ্গীকারও রয়েছে।

গণতন্ত্রের দাবিতে রক্তাক্ত সংগ্রামে লিপ্ত মিয়ানমারের বিরোধী দলগুলো এখন গড়ে তুলেছে একটি সমান্তরাল সরকার, যেটি ন্যাশনাল ইউনিটি গভর্নমেন্ট বা এনইউজি নামে পরিচিত। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছ থেকে স্বীকৃতি লাভের জন্য এই এনইউজি এখন সর্বাত্মক চেষ্টা চালাচ্ছে।

রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে ঘোষণাটি দেয়া হয়েছে এই এনইউজির তরফ থেকে। ঘোষণাটিকে বেশ ইতিবাচক একটি পদক্ষেপ হিসেবে দেখছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়। রোহিঙ্গাদের অধিকারের পক্ষে সোচ্চার বিভিন্ন সংগঠনও এটিকে স্বাগত জানিয়েছে। তবে তাদের অবস্থান কতটা আন্তরিক অথবা রোহিঙ্গাদের অধিকারের পূর্ণাঙ্গ স্বীকৃতি এই ঘোষণায় আছে কিনা- তা নিয়ে অনেক প্রশ্ন রয়ে গেছে।

যা আছে এনইউজি'র ঘোষণায়

গত ৩রা জুন এনইউজি রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে যে নীতি ঘোষণা করেছে, তাতে বেশ কয়েকটি অঙ্গীকার করেছে তারা।

প্রথমত: এতে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর হাতে রোহিঙ্গারা যে হত্যা-নির্যাতন-নিপীড়নের শিকার হয়েছে, তার স্বীকৃতির পাশাপাশি যারা এর জন্য দায়ী, তাদের বিচারের কথা বলা হয়েছে। প্রয়োজনে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতকে মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সংগঠিত অপরাধের বিচারের এখতিয়ার দেয়ার প্রক্রিয়া শুরুর অঙ্গীকার করা হয়েছে।

দ্বিতীয়ত: এতে ১৯৮২ সালের নাগরিকত্ব আইন সংশোধন/বিলোপের অঙ্গীকার করা হয়েছে। রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব হরণের ক্ষেত্রে এই আইনটিকে ব্যবহার করে মিয়ানমারের সামরিক কর্তৃপক্ষ।

তৃতীয়ত: এই ঘোষণায় মিয়ানমার থেকে পালিয়ে যাওয়া রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে আনার জন্য প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে করা চুক্তি মেনে চলার অঙ্গীকার আছে।

২০১৭ সালে সর্বশেষ রোহিঙ্গা শরণার্থী সংকট শুরু হওয়ার পর এতটা খোলাখুলি মিয়ানমারের রাজনীতিকদের এভাবে রোহিঙ্গাদের অধিকারের পক্ষে কথা বলতে দেখা যায়নি।

মিয়ামারের এই ঘোষণা কতটা গুরুত্বপূর্ণ

গত মাসে যুক্তরাষ্ট্রের হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসের ফরেন এফেয়ার্স কমিটির এক শুনানিতে বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল। সেই শুনানিতে এনইউজির এক দূতকে কংগ্রেসম্যান ব্রাড শেরম্যান প্রশ্ন করেছিলেন, রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে তাদের অবস্থান কী, যার কোনও সদুত্তর দিতে তিনি ব্যর্থ হন।

এনইউজি যে রোহিঙ্গা প্রশ্ন তাদের অবস্থান বদলেছে, আন্তর্জাতিক চাপ সেখানে বড় ভূমিকা রাখছে বলে অনেকে মনে করছেন।

ল্যারি জ্যাগান বলেন, “তারা নিজেরা যদি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছ থেকে স্বীকৃতি চায়, বিশেষ করে পশ্চিমা দেশগুলোর কাছ থেকে স্বীকৃতি পেতে হলে রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে অবস্থান বদল করতে হবে। নইলে তারা সহানুভূতি পাবে না।”

আরও পড়ুন

  পটিয়ায় হুইপ শামসুল হক ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে জুতা মিছিল (ভিডিও)

  ঢাবি ছাত্রী ইসরাত জাহানের মৃত্যুর কারণ জানালেন বন্ধু সাফায়েত

  অন্তরঙ্গতা মানে যৌনতা নয়, সততা: নুসরাত

  কাজ পাওয়ার জন্য কারও শয্যাসঙ্গিনী হতে পারব না: পূজা

 

তবে ল্যারি জ্যাগান বলেন, শুধু আন্তর্জাতিক চাপ নয়, সামরিক অভ্যুত্থানের পর রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে মিয়ানমারের রাজনীতিকদের চিন্তা-ভাবনায়ও একটা নাটকীয় পরিবর্তন এসেছে।

“সামরিক অভ্যুত্থান জনগণকে এটা উপলব্ধি করতে বাধ্য করেছে যে, সামরিক বাহিনীর নিপীড়ন যেটা রাখাইনে ঘটেছিল, সেটাই এখন অন্য সব জায়গায় ঘটছে। কাজেই দৃষ্টিভঙ্গিতে একটা মৌলিক পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে। আমার মতে এটা একটা আন্তরিক পরিবর্তন।”

ল্যারি জ্যাগানের মতে আরেকটি বিষয়ও এখানে কাজ করছে, সেটি হচ্ছে, মিয়ানমারের জেনারেলদের আন্তর্জাতিক আদালতে বিচারের মুখোমুখি করা।

“এনইউজি চায়, সামরিক সরকারের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আদালতে যে মামলা, তাতে সাহায্য করতে, যাতে মিয়ানমারে সামরিক বাহিনীর সংগঠিত অপরাধের বিচার করা যায়। কিন্তু রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে তারা নিজেদের নীতি পরিবর্তন না করে তো এটা করতে পারবে না। সেজন্যেই হয়তো তারা অবস্থান পরিবর্তন করেছে।”

মিয়ানমারের রাজনীতিকরা এবার যে তাদের অঙ্গীকার রক্ষা করবেন সে ভরসা কোথায়?

বার্মিজ রোহিঙ্গা অর্গানাইজেশনের প্রেসিডেন্ট টুন খিন অতটা নৈরাশ্যবাদী হতে চান না।

“আগের তুলনায় এবার তারা অনেক বেশি ইতিবাচক, এটাই আমি বিশ্বাস করতে চাই। এর আগেরবার আমরা কেবলমাত্র অং সান সুচির ওপর ভরসা করেছিলাম। কিন্তু এবার আমরা একটা পুরো জাতীয় ঐক্যের সরকারের ওপর এই আস্থা রাখছি। বার্মার মানুষের মধ্যে রোহিঙ্গা ইস্যুতে কিছু সমর্থন এবং সহানুভূতি আমরা দেখছি। কাজেই আমি আশাবাদী।”

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর

ইরানের নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত ইব্রাহিম রাইসি

অনলাইন ডেস্ক

ইরানের নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত ইব্রাহিম রাইসি

ইরানের প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন ইব্রাহিম রাইসি। এর আগে ১৩ তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অন্যান্য প্রতিদ্বন্দ্বীদের পেছনে ফেলে তিনি। ভোট গণনার সময় এগিয়ে থাকায় সম্ভাব্য প্রেসিডেন্ট হিসেবে তাকে অভিনন্দন জানান প্রতিদ্বন্দ্বীরা।

শনিবার (১৯ জুন) দুপুরে নিউইয়র্ক টাইমস’র এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায় এ তথ্য। যদিও এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশ করা হয়নি।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রাক্তন গভর্নর আবদুলনাসের হেমমতী জনাব রাইসিকে অভিনন্দন জানিয়ে ইনস্টাগ্রামে তাকে ‘ইসলামী প্রজাতন্ত্রের ১৩তম রাষ্ট্রপতি’ সম্বোধন করেছেন। এছাড়া অপর প্রার্থী ইসলামী বিপ্লবী গার্ড কর্পস-এর প্রাক্তন কমান্ডার ইন চিফ, মহসেন রেজায়িও জনাব ইব্রাহিম রাইসিকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

এবারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন- সাইয়্যেদ ইব্রাহিম রাইসি, মোহসেন রেজায়ি, আব্দুন নাসের হেম্মাতি এবং কাজিযাদে হাশেমি।

আরও পড়ুন:


দুর্লভ আবাসিক পাখি ‘জল ময়ূর’

কাপুরুষোচিত হামলা চালিয়ে ইসরাইলি সেনাদের মনোবল চাঙ্গা হবে না: হামাস

বিবস্ত্র করা ছবি তুলে ফাঁদে ফেলে প্রবাসীর স্ত্রী, মামলায় আ.লীগ নেতাও আসামি

‘নিখিলকে আগেই বলেছিলাম, নুসরাত তোমাকে ঠকাবে’


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

মধ্যপ্রাচ্যে সেনা সংখ্যা কমাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

অনলাইন ডেস্ক

মধ্যপ্রাচ্যে সেনা সংখ্যা কমাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

মধ্যপ্রাচ্য থেকে সেনা সদস্য সংখ্যা কমাতে চাইছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সরকার। চীন এবং রাশিয়ার সঙ্গে আমেরিকার দ্বন্দ্বের প্রেক্ষাপটে মধ্যপ্রাচ্য থেকে সেনা কমাচ্ছে মার্কিন সরকার।

এর অংশ হিসেবে ইরাক, কুয়েত, জর্দান ও সৌদি আরব  থেকে অন্তত আটটি পেট্রিয়ট ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার ব্যাটারি সরিয়ে নিচ্ছে পেন্টাগন। বাইডেন প্রশাসনের কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে মার্কিন দৈনিক ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল এ খবর দিয়েছে।
ওই কর্মকর্তারা আরো বলেন, সৌদি আরব থেকে একটি থাড ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা ও কয়েক স্কোয়াড্রন জঙ্গিবিমান  সরিয়ে নেয়া হচ্ছে।
ইরানের সঙ্গে সামরিক উত্তেজনা বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে যুক্তরাষ্ট্র মধ্যপ্রাচ্যে সেনা উপস্থিতি জোরদার করে। এছাড়া, ২০১৯ সালে সৌদি তেলক্ষেত্রে দফায় দফায় হামলার পর অনেকগুলো পেট্রিয়ট ও থাড ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েন করা হয়।

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর

দক্ষিণ-পশ্চিম সাইবেরিয়ান অঞ্চলে বিমান বিধ্বস্তে নিহত ৭

অনলাইন ডেস্ক

দক্ষিণ-পশ্চিম সাইবেরিয়ান অঞ্চলে বিমান বিধ্বস্তে নিহত ৭

রাশিয়ার দক্ষিণ-পশ্চিম সাইবেরিয়ান অঞ্চলের কেমেরোভো এলাকায় দুই ইঞ্জিন বিশিষ্ট এল-৪১০ মডেলের একটি বিমান বিধ্বস্ত হয়ে ৭ জন প্যারাসুটারের মৃত্যু হয়েছে। 

এ ঘটনায় ডজনখানেকের বেশি আহত হয়েছেন। তবে এদের মধ্যে চারজনের অবস্থা খুবই গুরুতর। বার্তা সংস্থা তাস’র বরাত দিয়ে শনিবার (১৯ জুন) এ তথ্য জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, একটি বনের ভেতরে বিমানটি বিধ্বস্ত হয়। দুর্ঘটনার আগে বিমানটির ক্রু ইঞ্জিন বিকল হয়ে যাওয়ার সংকেত পাঠিয়েছিলেন।

রাশিয়ান সিভিল এভিয়েশন এজেন্সির সাইবেরীয় শাখা রোসাভিয়াৎসা জানিয়েছেন, ঘটনার পর তল্লাশি ও উদ্ধার অভিযান চলছে। তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত কোনো তথ্য জানায়নি তারা। সূত্র : রয়টার্স, তাস

আরও পড়ুন:


দুর্লভ আবাসিক পাখি ‘জল ময়ূর’

কাপুরুষোচিত হামলা চালিয়ে ইসরাইলি সেনাদের মনোবল চাঙ্গা হবে না: হামাস

বিবস্ত্র করা ছবি তুলে ফাঁদে ফেলে প্রবাসীর স্ত্রী, মামলায় আ.লীগ নেতাও আসামি

‘নিখিলকে আগেই বলেছিলাম, নুসরাত তোমাকে ঠকাবে’


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

রাশিয়ায় বিমান বিধ্বস্ত হয়ে অন্তত সাতজন নিহত

অনলাইন ডেস্ক

রাশিয়ায় বিমান বিধ্বস্ত হয়ে অন্তত সাতজন নিহত

রাশিয়ার সাইবেরিয়ান অঞ্চলের কেমেরোভো এলাকায় একটি দুই ইঞ্জিন বিশিষ্ট এল-৪১০ বিমান বিধ্বস্ত হয়ে অন্তত সাতজন নিহত এবং ডজনখানেকের বেশি আহত হয়েছেন।

শনিবার (১৯ জুন) রুশ গণমাধ্যমের বরাত দিয়ে এক প্রতিবেদনে বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ তথ্য জানায়।

দেশটির জরুরি সেবা সংস্থা সূত্রের বরাতে বার্তা সংস্থা তাস জানিয়েছে, তানায় বিমানঘাঁটির কাছে একটি বনের ভেতরে বিমানটি বিধ্বস্ত হয়। দুর্ঘটনার আগে বিমানটির ক্রু ইঞ্জিন বিকল হয়ে যাওয়ার সঙ্কেত পাঠিয়েছিলেন। এই ঘটনায় ১৭ জন আহত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।


আরও পড়ুনঃ

বিবস্ত্র করা ছবি তুলে ফাঁদে ফেলে প্রবাসীর স্ত্রী, মামলায় আ.লীগ নেতাও আসামি

‘নিখিলকে আগেই বলেছিলাম, নুসরাত তোমাকে ঠকাবে’

বিয়ের পিঁড়িতে বসার আগ মূহুর্তে যে কারণে বিয়ে ভেঙে দিয়েছিলেন সালমান

চুরির দায়ে জেলে গেলেন ‘ক্রাইম পেট্রলের’ ২ অভিনেত্রী


রাশিয়ান সিভিল এভিয়েশন অ্যাজেন্সর সাইবেরীয় শাখা রোসাভিয়াৎসা রয়টার্সকে জানায়, ঘটনার পর তল্লাশি ও উদ্ধার অভিযান চলছে। তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত কোনো তথ্য জানায়নি তারা।

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর

চীনের রাস্তায়-গলিতে সরকারদলীয় প্রচারণামূলক বিলবোর্ড

অনলাইন ডেস্ক

চীনের রাস্তায়-গলিতে সরকারদলীয় প্রচারণামূলক বিলবোর্ড

চীনের কমিউনিস্ট পার্টির শতবর্ষ উদযাপনের পূর্বে নাগরিকদের উদ্দেশে রীতিমতো বিজ্ঞাপন দিয়েছে শাসক দল, ‘দলকে মেনে চলুন’, ‘ভদ্র আচরণ করুন’। সেই বার্তা নিয়েই এখন ব্যানারে আর বিলবোর্ডে ছাপিয়ে গলি থেকে রাজপথে।

১৯৮৯ সালের তিয়েনআনমেন স্কোয়ারের বিক্ষোভ থেকে শুরু করে সম্প্রতি উহানে করোনার খবর ফাঁসের ঘটনা— বজ্র আঁটুনির মধ্যেও বেসুরো হয়েছেন নাগরিকদের একাংশ। শক্তিধর রাষ্ট্রে আঞ্চলিক বৈষম্যের সুরও চিনের প্রাচীর ছাপিয়ে মাঝেমধ্যে বাইরে বেরিয়ে আসছে।

শতবার্ষিকীর এই সময়েই প্রশ্ন উঠেছে চিনা কমিউনিস্ট পার্টির বিভিন্ন নীতি নিয়েও। কখনও দমন নীতিতে তা সামলাতে হয়েছে কমিউনিস্ট নেতাদের, কখনও আবার ধুয়ো উঠেছে আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের। সঙ্গে কোভিড পরিস্থিতির উৎপত্তি ঘিরে দেশের প্রশাসনের উপর চাপ বাড়াচ্ছে বিশ্ব।

এই প্রেক্ষাপটেই কমিউনিস্ট পার্টির শতবর্ষে নাগরিকদের উদ্দেশে এই বার্তা দেওয়া হয়েছে। সংবাদমাধ্যমের পর্দায় বিজ্ঞাপনগুলি দেখে এমনটাই মনে করছেন কূটনীতিকদের একাংশ।

দেশের বিভিন্ন ব্যস্ত এলাকাতেই নজরে পড়ছে বিজ্ঞাপনগুলি। ব্যানার জুড়ে বড় করে লাল রঙে লেখা ‘১০০’। সঙ্গে কমিউনিস্ট দলের প্রতীক।

দলের শতবর্ষ পালন শুরু হলে যাতে কোনও রকমের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি না-হয়, তার জন্যেই সরকারের পক্ষ থেকে এই সতর্কতামূলক পদক্ষেপ করা হচ্ছে। এমনটাই মনে করছে এই সংক্রান্ত প্রতিবেদন তুলে ধরা সংবাদমাধ্যমগুলিও।


আরও পড়ুনঃ

বিবস্ত্র করা ছবি তুলে ফাঁদে ফেলে প্রবাসীর স্ত্রী, মামলায় আ.লীগ নেতাও আসামি

‘নিখিলকে আগেই বলেছিলাম, নুসরাত তোমাকে ঠকাবে’

বিয়ের পিঁড়িতে বসার আগ মূহুর্তে যে কারণে বিয়ে ভেঙে দিয়েছিলেন সালমান

চুরির দায়ে জেলে গেলেন ‘ক্রাইম পেট্রলের’ ২ অভিনেত্রী


যে সব জায়গায় বিলবোর্ডের দিকে সাধারণের নজর কাড়া সম্ভব নয়, সেখানে বিশাল ডিজিটাল স্ক্রিন লাগানো হয়েছে। তাতে ‘পিপল‌্‌স লিবারেশন আর্মি’র ছবি। সঙ্গে নাগরিকদের উদ্দেশে বার্তা, ‘তেজস্বী, যোগ্য, সাহসী এবং ন্যায়নিষ্ঠ বিপ্লবীদের নয়া প্রজন্ম গড়ে তুলুন।’

১ জুলাই থেকে শুরু হবে উদ্‌যাপন। তার আগে দলের এই প্রয়াস নজর কেড়েছে কূটনৈতিকদের। দলের প্রতিষ্ঠার কাহিনি নাগরিকদের সামনে তুলে ধরতে একটি ছায়াছবিও মুক্তির অপেক্ষায়। যেখানে দেখা যাবে চিনের বিনোদন জগতের পরিচিত মুখগুলিকে। আগামী মাসেই মুক্তি পেতে চলেছে এই ছবি।

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর