কার্টুনিস্ট কিশোরকে নির্যাতনের কোন চিহ্ন পাওয়া যায়নি

অনলাইন ডেস্ক

কার্টুনিস্ট কিশোরকে নির্যাতনের কোন চিহ্ন পাওয়া যায়নি

চিকিৎসকদের মতে, কার্টুনিস্ট আহমেদ কবীর কিশোরকে নির্যাতনের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি। তার শারীরিক পরীক্ষার জন্য গঠিত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তিন চিকিৎসকের মেডিকেল বোর্ড এ তথ্য জানায়। শারীরিক পরীক্ষা শেষে গত ২০ মার্চ এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করা হয়েছে।


আরও পড়ুনঃ

পিকনিক-বিয়ে-জন্মদিনের অনুষ্ঠানে মানা

চলমান বিধি-নিষেধ ‘লকডাউন’ বাড়ল ১৬ জুন পর্যন্ত

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত কমল

কেবিনে স্থানান্তর করা হয়েছে বেগম খালেদা জিয়াকে


প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কিশোরের শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে চূড়ান্তভাবে নিশ্চিত হতে এবং পরবর্তী মূল্যায়নের জন্য আরও তদন্ত প্রয়োজন রয়েছে।

ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পিপি তাপস কুমার পাল বলেন, তিন সদস্যের মেডিকেল বোর্ডের প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে। নিয়মিত আদালতের কার্যক্রম শুরু হলে প্রতিবেদন আদালতে উপস্থাপন করা হবে। এরপর আদালত এ বিষয়ে পরবর্তী আদেশ দেবেন বলে জানান তিনি।

গত ১০ মার্চ নির্যাতনের অভিযোগে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে একটি মামলা করেন কিশোর। মামলায় ২০১৩ সালের নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যু নিবারণ আইনে অভিযোগ আনা হয়। ওই দিন আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের কৌসুলি তাপস কুমার পাল জানান, আইনশৃংখলা বাহিনী পরিচয়ে তাকে নির্যাতন করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন। তবে মামলার আবেদনে কারও নাম উল্লেখ করেননি তিনি।

news24bd.tv/এমিজান্নাত

পরবর্তী খবর

বিএনপির ধ্বংসাত্মক রাজনীতি পরিবেশকে ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলছে: কাদের

অনলাইন ডেস্ক

বিএনপির ধ্বংসাত্মক রাজনীতি পরিবেশকে ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলছে: কাদের

বিএনপির ধ্বংসাত্মক রাজনীতি সহাবস্থানের পরিবেশকে ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে তার নিজ দফতরে ব্রিফিংকালে এ মন্তব্য করেন তিনি।

গণতন্ত্রের কথা বললেও বিএনপির অন্তরে ষড়যন্ত্র ও প্রতিহিংসা বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, ‘বিএনপি কথামালার আড়ালে জনবিরোধী এক ধ্বংসাত্মক অপশক্তির পৃষ্ঠপোষক। স্বাধীনতাবিরোধীদের গাড়িতে পতাকা তুলে দিয়ে তারা আজ চেতনার কথা বলে! নির্লজ্জতারও একটি সীমা থাকে।’


আরও পড়ুনঃ

আবু ত্ব-হা আদনানকে খুঁজে দিতে জাতীয় দলের ক্রিকেটার শুভর আহ্বান

গণপূর্ত ভবনে অস্ত্রের মহড়া: সেই আ.লীগ নেতাদের দল থেকে অব্যাহতি

আবারও মিয়ানমারের গ্রামে তাণ্ডব চালিয়েছে সেনাবাহিনী

সুইসদের হারিয়ে সবার আগে শেষ ষোল নিশ্চিত করল ইতালি


এর আগে সচিবালয়ে জার্মানির বিদায়ী রাষ্ট্রদূত ফারেন হোলজ সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন।

সাক্ষাৎ শেষে মন্ত্রী বলেন, ‘দুই দেশের বিদ্যমান অর্থনৈতিক ও বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক জোরদারে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে। ইউরোপিয়ান ইউনিয়নভুক্ত দেশ হিসেবে জার্মানির সঙ্গে বাণিজ্যিক সম্পর্ক রয়েছে।’

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর

রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে জাতিসংঘের স্পষ্ট রোডম্যাপ চায় বাংলাদেশ

অনলাইন ডেস্ক

রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে জাতিসংঘের স্পষ্ট রোডম্যাপ চায় বাংলাদেশ

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন বলেছেন, ‘মানবিক বিবেচনায় আমরা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছি। তবে এই সংকটটির সমাধান নিহিত রয়েছে মিয়ানমারে তাদের নিরাপদ ও টেকসই প্রত্যাবর্তনের ওপর, যা গত চার বছরে সম্ভব হয়নি। আমরা চাই প্রত্যাবর্তন বিষয়ে জাতিসংঘ স্পষ্ট একটি রোডম্যাপ তৈরি করুক।’

স্থানীয় সময় গতকাল বুধবার বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনের বঙ্গবন্ধু লাউঞ্জে জাতিসংঘ মহাসচিবের মিয়ানমার-বিষয়ক বিশেষ দূত ক্রিস্টিন এস বার্গনারের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠককালে এসব কথা বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুল মোমেন।

আবদুল মোমেন আরও বলেন, বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের কক্সবাজারে দীর্ঘ সময় ধরে অবস্থানের নেতিবাচক দিক বিশেষ করে ওই এলাকায় বসবাসরত মূল জনগোষ্ঠীর ওপর এর বিরূপ প্রভাব পড়েছে। যদি শিগগিরই প্রত্যাবাসন শুরু না হয়, তাহলে এটি কেবল এই এলাকারই সামগ্রিক পরিস্থিতির অবনতি ঘটাবে না, বরং তা ওই অঞ্চল এবং এর বাইরেও অস্থিরতা তৈরি করবে।

আরও পড়ুন


সুপার লিগে সাকিবের খেলা নিয়ে শঙ্কা!

বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে তেমন গদগদ হওয়ার মতো স্মৃতি আমার নাই

এবার আবু ত্ব-হা আদনানের সন্ধান চাইলেন আসিফ আকবর

সিলেটে মা ও ভাই-বোনকে হত্যা: নানাবাড়িতে থাকায় বেঁচে যায় আফসান


জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ দূতকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন ভাসানচর প্রকল্পের কথা অবহিত করেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এখানে রোহিঙ্গাদের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে নিয়োজিত হওয়ার সুযোগ রয়েছে। জাতিসংঘ যাতে ভাসানচরে মানবিক সহায়তা প্রদান করে সে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে তুলে ধরেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। কোভিড-১৯ পরিস্থিতির উন্নতি হলে জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ দূতকে ভাসানচর পরিদর্শনে যাওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানান ড. মোমেন।

এ ছাড়া জাতিসংঘ সদর দপ্তর ও মাঠ পর্যায়ের শান্তিরক্ষা সংশ্লিষ্ট উচ্চ পদগুলোতে আরও বেশি বাংলাদেশি সামরিক-বেসামরিক কর্মকর্তা নিয়োগের জন্য জেনারেল ল্যাক্রুয়াকে অনুরোধ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

সারাদেশে মোবাইল ফোনের গ্রাহক ১৬ কোটির বেশি

অনলাইন ডেস্ক

সারাদেশে মোবাইল ফোনের গ্রাহক ১৬ কোটির বেশি

দেশে মোবাইল ফোন গ্রাহকের সংখ্যা ১৬ কোটির বেশি বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। বুধবার (১৬ জুন) সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, বর্তমানে দেশে মোবাইল ফোন গ্রাহক সংখ্যা ১৬ কোটিরও বেশি। গ্রাহকদের চাহিদা পূরণের জন্য প্রতিবছর বিদেশ থেকে প্রায় দেড় কোটি হ্যান্ডসেট আমদানির পাশাপাশি কর ফাঁকি দিয়ে অবৈধভাবেও হ্যান্ডসেট আমদানির অভিযোগ রয়েছে।

মোবাইল হ্যান্ডসেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে সার্বিকভাবে শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য বিটিআরসি পহেলা জুলাই থেকে ন্যাশনাল ইকুইপমেন্ট আইডেনটিটি রেজিস্ট্রার (এনইআইআর) চালু করবে।

এর আগে গত বছরের ১৮ ফেব্রুয়ারি বিটিআরসি মুঠোফোন বৈধ না অবৈধ, তা যাচাই করতে এনইআইআর নামে এ ব্যবস্থা চালু ও পরিচালনার জন্য দরপত্র আহ্বান করে। প্রযুক্তিগত সমাধান পেতে সংস্থাটি সিনেসিস নামে একটি আইটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে গত নভেম্বরে চুক্তি করে।


আরও পড়ুনঃ

আবু ত্ব-হা আদনানকে খুঁজে দিতে জাতীয় দলের ক্রিকেটার শুভর আহ্বান

গণপূর্ত ভবনে অস্ত্রের মহড়া: সেই আ.লীগ নেতাদের দল থেকে অব্যাহতি

আবারও মিয়ানমারের গ্রামে তাণ্ডব চালিয়েছে সেনাবাহিনী

সুইসদের হারিয়ে সবার আগে শেষ ষোল নিশ্চিত করল ইতালি


এনইআইআর ব্যবস্থার মাধ্যমে দেশে বৈধভাবে আমদানি ও উৎপাদিত মুঠোফোনের তথ্যভাণ্ডারের সঙ্গে মোবাইল নেটওয়ার্কে চালু হওয়া ফোনের আইএমইআই (মুঠোফোন শনাক্তকরণ নম্বর) মিলিয়ে দেখা হবে। অবৈধ, চুরি যাওয়া ও নকল মুঠোফোন দেশের মোবাইল নেটওয়ার্কে চালু করা যাবে না।

এদিকে দেশে আগামী ১ জুলাই থেকে অবৈধ মোবাইল ফোন বন্ধের প্রযুক্তি কার্যক্রম শুরু হবে। এ ফোনগুলো আর চালু করা যাবে না। তবে যাদের কাছে ইতোমধ্যে অবৈধ ফোন চালু আছে তাদের সময় দেবে বিটিআরসি।

news24bd.tv / নকিব

পরবর্তী খবর

চাকুরীর প্রতিশ্রুতি দিয়ে গণধর্ষণ

অনলাইন ডেস্ক

চাকুরীর প্রতিশ্রুতি দিয়ে গণধর্ষণ

এক কিশোরীকে পোশাক কারখানায় চাকুরী দেয়ার গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে চার জনকে গ্রেফথার করেছে র‌্যাব। জড়িতরা হলেন জসিম উদ্দিন (২৭), নুরুল আজিম (২৮), জাবের আহাম্মদ (৪৮) এবং মোহাম্মদ নবী (২২)। মঙ্গলবার রাতে বাকলিয়া থানাধীন শাহ আমানত সেতু এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

র‌্যাব-৭ অধিনায়ক মশিউর রহমান জুয়েল জানান, চাকুরী দেয়ার কথা বলে ৭ জুন ওই কিশোরীকে বাড়ি থেকে নিয়ে আসার পর থেকে তার কোন খোঁজ না পেয়ে কিশোরীর বাবা র‌্যাবের কাছে অভিযোগ করে। পরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওই কিশোরীকে উদ্ধার ও চার জনকে গ্রেফতার করা হয়। উদ্ধারের পর মেয়েটি জানায়, একটি বাসায় বন্দি করে তাকে টানা ধর্ষণ করা হয়েছে।

news24bd.tv/এমিজান্নাত

পরবর্তী খবর

লাঞ্ছনার সাজা তিন থাপ্পড়!

অনলাইন ডেস্ক

লাঞ্ছনার সাজা তিন থাপ্পড়!

থানায় অভিযোগ করলে গ্রামে থাকতে না পারার ভয়ে মেয়ের শ্লীলতাহানির অভিযোগ নিয়ে গ্রামের মাতবরের কাছে যান নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার চেরাগপুর ইউনিয়নের একটি গ্রামের কৃষক। সেই সালিশে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে শাস্তি হিসেবে তিনটি থাপ্পড় ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। 

ভিক্টিমের স্বজনেরা অভিযোগ করেছেন, অভিযুক্ত ব্যক্তি ও তাঁর স্বজনেরা গ্রামের প্রভাবশালী। তাই এই বিচার মেনে নিতে হয়েছে তাদের।


আরও পড়ুন:

চলমান ‘বিধি নিষেধ’ আরও এক মাস বাড়ল

স্বাধীনতার মূল শর্ত হচ্ছে বাক, চিন্তা ও মত প্রকাশের স্বাধীনতা: ফখরুল

এখনও খোঁজ মেলেনি আবু ত্ব-হা আদনানের, যা বলছে পুলিশ

রোনালদোকাণ্ডের পর এবার টেবিল থেকে বিয়ারের বোতল সরালেন পগবা


অভিযুক্ত ব্যক্তির নাম খোদাবক্স (৪৪)। সালিস বৈঠকে বিচারের কাজ করেন তাঁর চাচাতো ভাই সেকেন্দারসহ গ্রামের মাতবর রাজ্জাক মণ্ডল। 
ভিক্টিমের স্বজনরা বলেন, শ্লীলতাহানির সত্যতা পাওয়ার পরও বৈঠকে দোষী ব্যক্তিকে উপযুক্ত সাজা দেওয়া হয়নি। বিচারের সিদ্ধান্ত মেনে নিতে জোর করে সাদা স্টাম্পে ছাত্রী ও বাবার স্বাক্ষর করে নেওয়া হয়েছে।

নবম শ্রেণির ছাত্রী ওই ভুক্তভোগীর  স্বজনেরা জানান, ১০ জুন বিকেলে কিশোরী বাড়িতে নিজের কক্ষে একাই ছিল। প্রতিবেশী খোদাবক্স ঘরে ঢুকে তার শ্লীলতাহানির চেষ্টা করেন। কিশোরীর চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এলে খোদাবক্স পালিয়ে যান।

এ ঘটনায় কিশোরীর বাবা গ্রামের মাতবরের কাছে বিচার দাবি করেন। বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মেয়েটির বাবাকে  বলা হয়, অভিযুক্তকে তিনটি থাপ্পড় মারতে পাশাপাশি তাকে ২০ হাজার টাকা জরিমানাও করা হয়।

news24bd.tv/এমিজান্নাত

পরবর্তী খবর