হেফাজতের নতুন কমিটিতে বাদ পড়লেন যারা

অনলাইন ডেস্ক

হেফাজতের নতুন কমিটিতে বাদ পড়লেন যারা

বাংলাদেশ হেফাজতে ইসলামের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়েছে। এতে আল্লামা হাফেজ জুনাইদ বাবুনগরীকে আমির ও মাওলানা হাফেজ নুরুল ইসলাম জিহাদীকে মহাসচিব করা হয়েছে। ৩৩ সদস্যর নতুন কেন্দ্রীয় কমিটি ছাড়াও ১৬ সদস্যর উপদেষ্টা কমিটি এবং ৯ সদস্যর কেন্দ্রীয় খাস কমিটি ঘোষণা করা হয়। 

আজ সকাল ১১টায় রাজধানীর খিলগাঁও চৌরাস্তায় মাখজানুল উলুম মাদ্রাসায় এক সংবাদ সম্মেলনে কওমি মাদ্রাসাভিত্তিক সংগঠনটি এ কমিটি ঘোষণা করে।

কমিটিতে প্রয়াত আমীর শাহ আহমদ শফীর বড় ছেলে মো. ইউসুফকেও কমিটিতে রাখা হয়েছে। আল্লামা শফীর ছোট ছেলে আনাস মাদানীকে কোনো পদ না দিলেও তার বড় ভাই মাওলানা ইউসুফ মাদানীকে সহকারি মহাসচিব করা হয়েছে।

বাদের তালিকায় উল্লেখযোগ্যদের মধ্যে রয়েছেন- সদ্য বিলুপ্ত কমিটির যুগ্ম-মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক, মাওলানা জুনায়েদ আল হাবিব, নাছির উদ্দিন মুনির, সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক ইসলামাবাদী, কেন্দ্রীয় নেতা জাকারিয়া নোমান ফয়জী, খালিদ সাইফুল্লাহ আইয়ুবী, হাসান জামিল, মুফতি হারুন ইজহার। 

আরও বাড় পড়েছেন- মুফতি মুনির হোসাইন কাসেমী, সহকারী অর্থ সম্পাদক- মাওলানা হাফেজ মুহাম্মদ ফয়সাল, মাওলানা লোকমান মাজহারী, মাওলানা মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ, মাওলানা মুহাম্মদ ইলিয়াস হামেদী।

আরও পড়ুন:


মহাখালীর সাততলা বস্তির আগুন নিয়ন্ত্রণে, সহস্রাধিক ঘর ভস্মীভূত

ঠাকুরগাঁওয়ে এবারও আমের বাম্পার ফলন

 যার জন্য বিয়ে করা ফরজ

 মহেশখালীতে পাহাড় ধসে প্রাণ গেল আড়াই বছরের শিশুর


একইভাবে আল্লামা আহমদ শফীর হত্যা মামলার অভিযুক্ত নেতাদেরও বাদ দেওয়া হয়েছে কমিটি থেকে। এছাড়া সদ্য বিলুপ্ত কমিটিতে একক আধিপত্য বিস্তারকারী ‘রাবেতা’ ও ‘জমিয়ত’ সিন্ডিকেটও ভেঙে দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ১৭ সেপ্টেম্বর হেফাজতে ইসলামের প্রতিষ্ঠাতা আমীর শাহ আহমদ শফী মারা যান। এরপর থেকেই সংগঠনটি দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে।  গত বছরের ১৫ নভেম্বর ১৫১ সদস্য বিশিষ্ট হেফাজতের কমিটি ঘোষণা করেন সাবেক মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগনী। সেখানে হেফাজতের প্রতিষ্ঠাতা আমির আহমদ শফীর ছেলে আনাস মাদানীসহ শফী অনুসারী কাউকে রাখা হয়নি।

গত ২৬ মার্চ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফর কেন্দ্র করে ঢাকা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও চট্টগ্রামের হাটহাজারীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সংগঠিত সহিংসতার মামলায় সারাদেশে টানা গ্রেপ্তার অভিযানসহ নানামুখী চাপে পড়ে কেন্দ্রীয় কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়।

হেফাজতের ৩৩ সদস্যের কমিটি ঘোষণা, যারা আছেন কমিটিতে

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

দোষী সাব্যস্ত হলে নাসিরের বিরুদ্ধে দলীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে: জি এম কাদের

অনলাইন ডেস্ক

দোষী সাব্যস্ত হলে নাসিরের বিরুদ্ধে দলীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে: জি এম কাদের

নাসির উদ্দিন মাহমুদ যদি দোষী সাব্যস্ত হন, তাহলে তার বিরুদ্ধে দলীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের।

গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যমকে এ কথা জানান তিনি। জিএম কাদের বলেন, নাসির উদ্দিন মাহমুদের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ উঠেছে, আমরা অনেক সারপ্রাইজড। আমরা দলীয়ভাবে এটা পর্যযালোচনা ও আলোচনা করব। দলের ফোরামে আলোচনার পরই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে তিনি দলে থাকবেন কি না।

জাপা চেয়ারম্যান আরও বলেন, ‘নাসির উদ্দিন মাহমুদ পরপর তিনবার উত্তরা ক্লাবের সভাপতি নির্বাচিত হন, যেখানে সবাই শিক্ষিত। সে কখনো এমন কিছু করেনি যে, তিনি দুর্নাম করতে পারে। কখনো তার নামে খারাপ কিছু শুনিনি। এ ঘটনাটি শুনে আমরা বিস্মিত।’

আরও পড়ুন


নাসির আমার বিভিন্ন স্পর্শকাতর স্থানে স্পর্শ করে: পরীমণি

জি-সেভেনের বিবৃতি চীনের অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে মারাত্মক হস্তক্ষেপ: বেইজিং

‘আটলান্টিক মহাসাগরে ইরানি নৌবহরের উপস্থিতিতে উদ্বিগ্ন শত্রুরা’

এমন ফ্রি-কিকে গোল মেসির দ্বারাই সম্ভব (ভিডিও)


তিনি বলেন, ‘নাসির উদ্দিন মাহমুদ জাতীয় পার্টির গঠন প্রক্রিয়ার সময় থেকেই দলের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। তার সংশ্রব দিনে-দিনে বৃদ্ধি পেয়েছে দলে। মাঝখানে তিনি দলে তেমন একটা সক্রিয় ছিলেন না। নিজের ব্যবসা নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। তার সামাজিক গ্রহণযোগ্যতা, প্রতিপত্তি বিবেচনায় নিয়ে সবশেষ কাউন্সিলে (২০২০ সালে) তাকে প্রেসিডিয়ামের সদস্য করা হয়।’

উল্লেখ্য, চিত্রনায়িকা পরীমণিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলার অভিযুক্ত নাসির উদ্দিন মাহমুদকে সোমবার দুপুরে রাজধানীর উত্তরা থেকে গ্রেপ্তার করে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। এসময় আরও চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর

পাঁচ-ছটি জন্মের তারিখ দিয়ে কেন ওনাকে বারবার জন্মালেন: তথ্যমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

পাঁচ-ছটি জন্মের তারিখ দিয়ে কেন ওনাকে বারবার জন্মালেন: তথ্যমন্ত্রী

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের কাছে এ প্রশ্ন রেখে বলেছেন, ‘আপনারা বেগম খালেদা জিয়াকে এভাবে পাঁচ-ছটি জন্মের তারিখ দিয়ে কেন বারবার জন্মগ্রহণ করালেন!’

আজ সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে মন্ত্রী এ প্রশ্ন রাখেন।

আরও পড়ুন:


ঢাকা বোট ক্লাবের সদস্য হতে লাগে ১৮ লাখ টাকা

নাসিরের বাসায় উঠতি বয়সী তরুণীদের দিয়ে চলত অনৈতিক কার্যকলাপ

মাত্র ৫ হাজার টাকা পেয়েই হত্যার মিশনে নামে খুনিরা

ময়মনসিংহে বাসচাপায় নিহত ২


 

খালেদা জিয়ার পাসপোর্ট ও করোনা টেস্ট রিপোর্টে তার জন্মতারিখের চিত্র নিজের আইপ্যাড থেকে সাংবাদিকদের কাছে তুলে ধরে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়ার প্রতি যথাযথ সম্মান রেখেই বলতে চাই, মেট্রিক পরীক্ষার ফরমে খালেদা জিয়ার জন্মতারিখ উল্লেখ করা হয়েছে ৫ সেপ্টেম্বর ১৯৪৬ সাল। আবার তার বিবাহ সনদে জন্মের তারিখ উল্লেখ আছে ৫ আগস্ট ১৯৪৪ সাল। ১৯৯১ সালে তিনি যখন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন তখন সরকারি নথিতে তার জন্মতারিখ উল্লেখ আছে ১৯ আগস্ট ১৯৪৭ সাল। আর বর্তমানে যে পাসপোর্ট তিনি ব্যবহার করছেন সেখানে তার জন্মতারিখ উল্লেখ আছে ৫ আগস্ট ১৯৪৬ সাল। এবং অতি সম্প্রতি তিনি যে করোনার টেস্ট করেছেন, সেখানে তার জন্মের তারিখ উল্লেখ আছে ৮ মে ১৯৪৬ সাল। কটি জন্ম তারিখ হলো?’

news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

হেফাজতিরা সবাই তালেবানের অনুসারী: সংসদে মেনন

অনলাইন ডেস্ক

হেফাজতিরা সবাই তালেবানের অনুসারী: সংসদে মেনন

হেফাজতে ইসলামের নেতারা  দেওবন্দের নয় তারা সবাই তালেবানের অনুসারী বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন। 

সোমবার জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত ২০২১-২০২২ অর্থ বছরের বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে রাশেদ খান মেনন হেফাজত দেওবন্দের অনুসারী’ প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্য খন্ডন করে তিনি এ কথা জানান। 

রাশেদ খান মেনন আরো বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে আমরা হেফাজতের তাণ্ডব দেখেছি। এই তাণ্ডবের সঙ্গে বিএনপি জড়িত ছিল সেটা বিএনপির মহাসচিবের বক্তব্য থেকেই স্পষ্ট। 

বিএনপির মহাসচিব বলছেন, হেফাজত তাণ্ডব করেনি, সরকার করেছে। কওমি মাদ্রাসার সনদকে যখন মূলধারা স্বীকৃতি হলো তখন আমি বলেছিলাম আমরা ভুল করলাম কিনা ভেবে দেখা দরকার। তখন বিরোধী দল জাতীয় পার্টির একজন সদস্য বলেছিলেন, আমি ‘ধান ভানতে শিবের গীত গেয়েছি’। 

প্রধানমন্ত্রীও বলেছিলেন, হেফাজতের নেতারা দেওবন্দের অনুসারী। কিন্তু আসলে হেফাজতের নেতা বাবুনগরী পাকিস্তানের মাদ্রাসায় পড়াশুনা করেছেন। বাস্তবে হেফাজতের সবাই তালেবানের অনুসারী।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

জাতীয় পরিচয়পত্র ইসি থেকে স্বরাষ্ট্রে নেওয়ার সিদ্ধান্তে বিএনপির উদ্বেগ

অনলাইন ডেস্ক

জাতীয় পরিচয়পত্র  ইসি থেকে স্বরাষ্ট্রে নেওয়ার সিদ্ধান্তে বিএনপির উদ্বেগ

জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্ত কার্যাবলীর কর্তৃত্ব নির্বাচন কমিশন থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে হস্তান্তরের প্রক্রিয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বিএনপি।

সোমবার (১৪ জুন) দুপুরে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ উদ্বেগ প্রকাশ করেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, বিএনপি মনে করে, জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্ত কার্যাবলি ইতিপূর্বে নির্বাচন কমিশন কর্তৃক পরিচালিত হয়েছে। নির্বাচন কমিশনে যারা কমিশনের দায়িত্ব পালন করছেন, তারা নির্বাচনের দায়িত্ব পালন করতে ব্যর্থ হলেও সংবিধান অনুযায়ী একটি স্বাধীন প্রতিষ্ঠান। স্বাভাবিক নিয়ম অনুযায়ী সম্পূর্ণ নিরপেক্ষতার সঙ্গেই দায়িত্ব পালন করার কথা।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সরকারের অধীনে মন্ত্রণালয়। বিগত এক যুগের অভিজ্ঞতায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সরকারের ক্রীড়নক হিসেবে কাজ করছে এবং নির্বাচন প্রক্রিয়াকে ধ্বংস করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে ব্যবহার করে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্ত কর্তৃত্ব হস্তান্তর করা হলে তা স্বাধীন, নিরপেক্ষ, অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের ন্যূনতম সম্ভাবনাটুকুও বিনষ্ট করবে।

তিনি বলেন, সভা মনে করে এই ধরনের সিদ্ধান্ত হীন রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে বাস্তবায়িত হলে তা ভবিষ্যতে গণতন্ত্রের ন্যূনতম পরিসরকেও ধ্বংস করবে এবং শান্তিপূর্ণ ভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রক্রিয়াকে চিরতরে ধ্বংস করবে।

অবিলম্বে এই ধরনের কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছে বিএনপি। অন্যথায় এর নেতিবাচক প্রভাবের জন্য সরকারকেই সকল দায় দায়িত্ব গ্রহণ করতে হবে বলে জানিয়েছে দলটি।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

ফুসফুস ও কিডনি জটিলতায় বারবার জ্বর হচ্ছে খালেদার: ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক

ফুসফুস ও কিডনি জটিলতায় বারবার জ্বর হচ্ছে খালেদার: ফখরুল

ফুসফুস ও কিডনি জটিলতার কারণে খালেদা জিয়া বারবার জ্বরে আক্রান্ত হচ্ছেন বলে জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলন এ কথা জানান তিনি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘চিকিৎসকদের কাছ থেকে যতটুকু জেনেছি, তার (খালেদা জিয়া) হার্টের সমস্যা আছে, সেই সমস্যা না গেলে তার ফুসফুসে যেভাবে পানি এসে যায়, সেটা বন্ধ হবে না। যেটা তারা (চিকিৎসক) মনে করছেন যে, কিডনি ইজ নট ফাংশনিং প্রোপারলি। তার লিভারও ঠিকভাবে কাজ করছে না। যে কারণে জ্বর চলে গেলে আবারও তার জ্বর আসছে। গতকাল তার জ্বর এসছিল।’

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া রাজধানীর এয়ারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ শাহাবুদ্দিন তালুকদারের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের মেডিকেল বোর্ডের তত্ত্বাবধানে বিএনপি চেয়ারপারসনের চিকিৎসায় চলছে।

চিকিৎসকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘তারা তাদের সর্বস্ব দিয়ে চেষ্টা করছেন। যেটা বারবার করে তারা বলছেন যে, আমাদের হাসপাতালগুলো ইকুইপ্ট না। তাকে অ্যাডভান্স সেন্টারে নিয়ে চিকিৎসা করানো উচিত।’

আরও পড়ুন:


করোনা: দেশে একদিনে মৃত্যু ছাড়াল অর্ধশতক, বেড়েছে শনাক্তও

পুলিশ বাহিনী আজ জনগণের ভালোবাসায় পরিণত হয়েছে: আইজিপি

পরীমণিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা: প্রধান আসামি নাসিরসহ পাঁচজন গ্রেপ্তার


 

করোনা পরবর্তী নানা জটিলতায় আক্রান্ত হয়ে খালেদা জিয়া গত ২৭ এপ্রিল বসুন্ধরায় এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হন। এর ৬ দিন পরে (৩ মে) তিনি শ্বাসকষ্ট অনুভব করলে সিসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। পরে অবস্থার উন্নতি হলে এক মাস পর গত ৩ জুন চিকিৎসকদের পরামর্শে খালেদা জিয়াকে কেবিনে ফিরিয়ে নেওয়া হয়।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর