যে লক্ষ্য নিয়ে কাজ করার ঘোষণা দিল হেফাজত

অনলাইন ডেস্ক

যে লক্ষ্য নিয়ে কাজ করার ঘোষণা দিল হেফাজত

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ এর নতুন কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। আজ সোমবার (৭ জুন) সকাল ১১ টায় রাজধানীর খিলগাঁও চৌরাস্তায় মাখজানুল উলুম মাদ্রাসায় এক সংবাদ সম্মেলনে ৩৩ সদস্যবিশিষ্ট এ কমিটি ঘোষণা করা হয়।  

কমিটির আহ্বায়ক জুনায়েদ বাবুনগরীকে আমির এবং সদস্যসচিব নুরুল ইসলাম জিহাদীকে মহাসচিব ঘোষণা করা হয়ে। এ ছাড়া হেফাজতের প্রয়াত আমির শাহ আহমদ শফীর বড় ছেলে মো. ইউসুফকেও রাখা হয়েছে।

গত ২৬ মার্চ ২০২১ ও তৎপরবর্তী হেফাজতে ইসলামের সহিংস কর্মসূচির প্রেক্ষিতে দেশব্যাপী হেফাজতের নেতাদের গ্রেপ্তার ও নানামুখী চাপে গত ২৫ এপ্রিল হেফাজতের কেন্দ্রীয় কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। 

তারই ধারাবাহিকতায় সোমবার রাজধানীর জামিয়া ইসলামিয়া মাখজানুল উলুম মাদ্রাসায় (খিলগাঁও মাদ্রাসা) উপদেষ্টা কমিটি, খাস কমিটি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সমন্বয়ে হেফাজতে ইসলাম তাদের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করেছে।

উপদেষ্টা কমিটিতে ১৬ জন, খাস কমিটিতে ০৮ জন ও কেন্দ্রীয় কমিটিতে ৩৫ জন সদস্য নিয়ে এই কমিটি গঠন করা হয়। পূর্বের কমিটিতে খাস কমিটি অংশটি অনুপস্থিত ছিল যার ফলে নীতিনির্ধারণী সিদ্ধান্ত নিতে হেফাজত হিমশিম খাচ্ছিল, সে সুযোগে বিতর্কিত ও রাজনৈতিক সুযোগসন্ধানী ব্যক্তিরা হেফাজতকে নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করছিল।

আরও পড়ুন:


মহাখালীর সাততলা বস্তির আগুন নিয়ন্ত্রণে, সহস্রাধিক ঘর ভস্মীভূত

ঠাকুরগাঁওয়ে এবারও আমের বাম্পার ফলন

 যার জন্য বিয়ে করা ফরজ

 মহেশখালীতে পাহাড় ধসে প্রাণ গেল আড়াই বছরের শিশুর


কমিটি থেকে বাদ পড়েছেন- সদ্য বিলুপ্ত কমিটির যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক, নাছির উদ্দিন মুনির, সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক ইসলামাবাদী, কেন্দ্রীয় নেতা জাকারিয়া নোমান ফয়জী, খালিদ সাইফুল্লাহ আইয়ুবী, হাসান জামিল, মুফতি হারুন ইজহারসহ নানা ইস্যুতে বিতর্কে জড়িয়ে পড়া হেফাজতের নেতারা।

কমিটি ঘোষণা উপলক্ষে প্রেস ব্রিফিংয়ে সংগঠনটির মহাসচিব মাওলানা নুরুল ইসলাম জানান, আজ থেকে হেফাজতে ইসলামের অন্যতম প্রধান কাজ হবে সংগঠনের গঠনতন্ত্র তৈরি ও অরাজনৈতিক ব্যক্তিদের দিয়ে সাংগঠনিক কাঠামো পরিচালনা করা। তিনি দাবি করেন ভাঙচুর ও বিশৃঙ্খলায় হেফাজতের কোনো কর্মী জড়িত ছিল না বরং হেফাজতকে ব্যবহার করে একটি চক্র নিজেদের ফায়দা হাসিল করতে চেয়েছিল। 

যার জন্য তিনি দোষীদের শাস্তি প্রদানপূর্বক নির্দোষ ও নিরীহ আলেমদের হয়রানি না করে অতি দ্রুত মুক্তির দাবি জানান। কমিটি ঘোষণা উপলক্ষে কেন্দ্রীয় কমিটিতে স্থান পাওয়া প্রায় সব নেতা উপস্থিত ছিলেন। তবে আমির জুনায়েদ বাবুনগরী শারীরিক অসুস্থতার জন্য উপস্থিত হতে না পারলেও তার সম্মতি ও পরামর্শে কমিটি ঘোষিত হয়েছে বলে হেফাজতের মহাসচিব জানান।

news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

নির্বাচন ব্যবস্থাকে আরও কলঙ্কিত করল আওয়ামী লীগ: চরমোনাই পীর

অনলাইন ডেস্ক

নির্বাচন ব্যবস্থাকে আরও কলঙ্কিত করল আওয়ামী লীগ: চরমোনাই পীর

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম চরমোনাই পীর বলেছেন, তৃতীয় দফায় ইউপি নির্বাচনে ২০৪ টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন হয়েছে। ক্ষমতাসীনদের অতীত স্বভাবের প্রতিফলনে এই নির্বাচনেও কেন্দ্র দখল, ব্যালট ছিনিয়ে নেওয়া, ভোটদানে বাঁধা, এজেন্ট বের করে দেওয়া ও সশস্ত্র মাস্তানির মহড়া দিয়ে নির্বাচন ব্যবস্থাকে আরও একবার কলঙ্কিত করল আওয়ামী লীগ। মানুষের ভোটাধিকার প্রয়োগে ক্রমাগতই এই বাঁধা আওয়ামী লীগকে জনতার শত্রুতে পরিণত করেছে।

গতকাল নির্বাচনোত্তর পর্যালোচনায় এসব কথা বলেন চরমোনাই পীর।

ইসলামী আন্দোলনের আমির আরও বলেন, নির্বাচন কমিশনের নির্লজ্জ দালালি, নগ্ন পক্ষপাত দুষ্ট আচরণ ও সুষ্ঠু নির্বাচনে প্রমাণিত অক্ষমতা সত্বেও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ তৃতীয় দফার নির্বাচনের ২০৪ ইউনিয়নেই প্রার্থী দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। ক্ষমতাসীন দলের পক্ষ থেকে হুমকি-ধমকি, মনোনয়ন জমাদানে বাঁধা ও অব্যাহত ত্রাস অতিক্রম করে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ১৪০ ইউপিতে নির্বাচনী লড়াইয়ে অংশগ্রহণ করেছে।

আরও পড়ুন:


গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ৭৬ জনের মৃত্যু

শুভকে সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে ৬-৭জন খেলোয়াড়

মাদারীপুরে লকডাউনে রাস্তাঘাট জনসমাগম কম


 

পীর সাহেব বলেন, আমরা শান্তিপূর্ণ প্রচারণা ও জনতার ভোটাধিকার নিশ্চিত করতে বারংবার নির্বাচন কমিশন ও স্থানীয় প্রশাসনের কাছে দাবি জানিয়েছি। তারপরেও যা হয়েছে তা এই সরকারের পূর্বতন নোংরামির পুনরাবৃত্তি। শক্তি প্রয়োগ করে আক্ষরিক অর্থেই ভোট ডাকাতি করা হয়েছে। আমরা এই নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করছি এবং এই ভোট ডাকাতির তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

news24bd.tv / তৌহিদ

পরবর্তী খবর

দেশের সব মহৎ অর্জনের নেতৃত্ব দিয়েছে আওয়ামী লীগ: আমু

নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশের সব মহৎ অর্জনের নেতৃত্ব দিয়েছে আওয়ামী লীগ: আমু

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য, কেন্দ্রীয় ১৪ দলের সমন্বয়ক ও মুখপাত্র আমির হোসেন আমু বলেছেন, পাকিস্তান মুসলিম লীগ সরকারের দুঃশাসন, নির্যাতন, শোষণ ও বঞ্চনার বিরূদ্ধে বাঙালির অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষে আওয়ামী লীগের জন্ম। আর জন্মলগ্ন থেকেই গণমানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা ও তাদের অর্থনৈতিক মুক্তির সংগ্রামে কাজ করছে আওয়ামী লীগ। 

দেশের প্রাচীনতম রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭২ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে এক ভিডিও বার্তায় এসব কথা বলেন তিনি।

আমির হোসেন আমু বলেন, ইতিহাস ও ঐতিহ্যের অপর নাম বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। মহান ভাষা আন্দোলন, স্বাধীনতা সংগ্রামসহ দেশের সকল গণতান্ত্রিক অন্দোলন ও  মহৎ অর্জনের সাথে জড়িয়ে আছে আওয়ামী লীগ ও বঙ্গবন্ধুর নাম। শুধু আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে গণমানুষের রাজনৈতিক অধিকার প্রতিষ্ঠাই নয়, তাদের অর্থনৈতিক মুক্তি ও সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করাই দলটির মূল লক্ষ্য। 
 
আমির হোসেন আমু আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে অর্জিত বিভিন্ন সাফল্য তুলে ধরে বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের পথ ধরেই তাঁর কন্যা শেখ হাসিনা দেশকে নিয়ে যাচ্ছেন উন্নয়নের মহাসড়কে। ২১ ফেব্রুয়ারির  মাতৃভাষা দিবসের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি, স্বল্পোন্নত রাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল রাষ্ট্রে পরিণত করা, সমুদ্রসীমা জয়, ছিট মহল সমস্যার সমাধান, স্যাটলাইটের নিজস্ব মালিকানা, নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণসহ বহু মেঘা প্রকল্প বাস্তবায়ন, দারিদ্র বিমোচন, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমন, বিচারহীনতার সংস্কৃতি দূরীকরণসহ সুদূর প্রসারী সাহসী নেতৃত্বদানে বিশ্বের হাতেগোনা  কয়েকজন রাষ্ট্রনায়কের মধ্যে শেখ হাসিনা আজ অন্যতম।

তিনি বলেন, শুধু অর্থনৈতিক উন্নয়নই নয়, সাধারণ মানুষের জীবনের মান উন্নয়ন, তাদের মৌলিক চাহিদা পূরণ, অসহায় ও ছিন্নমূল মানুষকে সামাজিক বেষ্টনীর আওতায় আনতে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকারের গৃহীত সকল কর্মসূচি আজ দেশ ও আন্তর্জাতিক বিশ্বে স্বীকৃত।


লন্ডনে রানির বাড়ির সামনে থেকেও ফোন চুরি হয়: পরিকল্পনামন্ত্রী

ফরিদপুরে লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে ৩ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত শতাধিক

ফোনালাপে আড়িপাতা রোধের পদক্ষেপের বিষয়ে জানতে বিটিআরসিকে নোটিশ


আওয়ামী লীগের এই প্রবীণ নেতা বলেন, অনেক বাধা অতিক্রম করে সাধারণ জনগণের ভালোবাসায় অত্যন্ত দক্ষতা, সততা ও সফলতার সাথে দেশের সেবা করে যাচ্ছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দেশ পরিচালনায় বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রমাণ করেছেন আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলেই দেশের মানুষ নিরাপদে থাকে। আগামী দিনের পথ চলায় তাই জনগণকে আওয়ামী লীগের পাশে থাকার আহবান জানান তিনি।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

হিংস্রতা আর ষড়যন্ত্রের হোতা বিএনপি, আ.লীগ হিংস্র আচরণ করে না: কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক

হিংস্রতা আর ষড়যন্ত্রের হোতা বিএনপি, আ.লীগ হিংস্র আচরণ করে না: কাদের

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, এদেশের রাজনীতিতে হিংস্রতা আর ষড়যন্ত্রের হোতা বিএনপি। শেখ হাসিনা সরকার কর্তৃত্ববাদী নয়, কারো উপর হিংস্র আচরণও করেনি। বরং প্রধানমন্ত্রী বিরোধীদলের নানান উসকানির মুখে অত্যন্ত সহনশীলতা ও ধৈর্যের পরিচয় দিয়ে যাচ্ছেন। 

মঙ্গলবার (২২ জুন) সকালে ঢাকা যাবাহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষ - ডিটিসিএ’র বোর্ড সভায় সভাপতির বক্তব্যে এসব মন্তব্য করেন তিনি। মন্ত্রী তাঁর সরকারি বাসভবন থেকে সভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে সাথে নিয়ে বিএনপিই দানবীয় আচরণ করছে। শত উসকানির বিপরীতে শেখ হাসিনা সরকার অত্যন্ত সহনশীলতার সাথে পরিস্থিতি মোকাবেলা করছে।

‘আওয়ামী লীগ নাকি হিংস্র’ বিএনপি নেতাদের এমন বক্তব্যের জবাবে ওবায়দুল কাদের পাল্টা প্রশ্ন রেখে বলেন, যাদের হাতে ২১ হাজার আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী হত্যার শিকার হয়েছে, তারা আজ আওয়ামী লীগকে হিংস্রতার কথা বলে!

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপি দেশে স্থিতিশীলতা চায় না। তারা চায় দেশে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করতে। আন্দোলনের নামে জনগণ ও রাষ্ট্রের সম্পদ নষ্ট করাই বিএনপির রাজনীতি। জনগণের প্রতি রাজনৈতিক দল হিসেবে যে দায়িত্বশীলতা রয়েছে তা পালনে বিএনপি অনেক আগেই ব্যর্থ হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন ওবায়দুল কাদের। 

বিএনপি নেতাদের উদ্দেশ্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনার উদারতা দেখে ভাববেন না এটা আমাদের দুর্বলতা। নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় যেতে পারবে না বুঝতে পেরে বিএনপি যে নানামুখী ষড়যন্ত্র করছে, তা কারো অজানা নয়। নির্বাচন ছাড়া সরকার গঠনের আর কোনো বিকল্প পথ নেই, এটাই সংবিধান সম্মত পথ বলেও মত দেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বিএনপিকে মিথ্যাচার আর ষড়যন্ত্রের পথ ত্যাগ করে জনগণের জন্য রাজনীতি করার আহবান জানান। জনগণ চাইলেই নির্বাচিত হবেন এবং সরকার গঠন করবেন। আওয়ামী লীগ জনগণের ক্ষমতায়নে বিশ্বাস করে বলেই জনগণের প্রতি আস্থাশীল বলেও জানান তিনি।

ঢাকা মহানগরীতে ইজিবাইক,ব্যাটারীচালিত রিক্সা বন্ধে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ ও দুই সিটি করপোরেশনকে কঠোর হওয়ার আহ্বান জানান সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী।

আরও পড়ুন


ভারত থেকে কানাডা ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা ২১ জুলাই পর্যন্ত বাড়ল

ফোনালাপে আড়িপাতা রোধের পদক্ষেপের বিষয়ে জানতে বিটিআরসিকে নোটিশ

শিশু সাঈদ হত্যা: ৩ আসামির মৃত্যুদণ্ড হাইকোর্টেও বহাল

খুলনায় কঠোর লকডাউন, নানা অজুহাতে পথে নামছে মানুষ


ইনার রিং রোডের ইস্টার্ন বাইপাস এবং ওয়েস্টার্ন অংশের হালনাগাদকরণে ডিটিসিএ’র মাধ্যমে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের সাথে আলোচনা করে প্রকল্প প্রস্তাব চূড়ান্ত করার আহ্বান জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ডিটিসিএ প্রদত্ত বহুতল ভবনের জন্য ট্রাফিক ক্লিয়ারেন্স ছাড়পত্র গ্রহণের বিষয়টি আইনগত বিধি- বিধানের আওতায় রাজউকের সাথে আলোচনা করে নিষ্পত্তি করতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, সমন্বহীনভাবে ঢাকা সিটি করপোরেশন এলাকায় সড়ক খনন করা যাবে না।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানতে চান সারা বিশ্বকে উন্নয়ন -অর্জনে শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন কিন্তু  ঢাকা শহর কেনো পিছিয়ে থাকবে? মন্ত্রী এবিষয়ে ডিটিসিএ’কে ঢাকার দুই মেয়রকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করার আহবান জানান।

ডিটিসিএ’র বোর্ড সভায় এসময় ভার্চুয়ালি যুক্ত হন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম, দক্ষিণের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস, নারায়ণগঞ্জ সিটি মেয়র সেলিনা হায়াত আইভি, সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু, সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি, ডিটিসিএ’র নির্বাহী পরিচালক খন্দকার রাকিবুর রহমান বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিব ও ডিএমপি কমিশনার।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

প্রকৌশলীকে মারধর করলো দুই ছাত্রলীগ নেতা

অনলাইন ডেস্ক

প্রকৌশলীকে মারধর করলো দুই ছাত্রলীগ নেতা

মেহেরপুরে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী অনুজ কুমার দে কে ছাত্রলীগের সাবেক দুই নেতা মারধর করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। আজ সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে পৌর শহরের সড়ক ও জনপথ (সওজ) কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। ছাত্রলীগের দুই নেতা হলো, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বারিকুল ইসলাম এবং সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রাশেদুল ইসলাম।

অনুজ কুমার দে জানান, শহীদুল এন্টারপ্রাইজ নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সওজের একটি সড়ক সংস্কারের ঠিকাদারি কাজ পেয়েছে। ওই প্রতিষ্ঠানের কাজ দেখাশোনার দায়িত্বে রয়েছে স্থানীয় ছাত্রলীগের দুই নেতা বারিকুল ও রাশেদুল। আজ সকালে তারা দপ্তরে এসে কাজ শেষ না করেই বিল তুলতে চাপ প্রয়োগ দিতে থাাকে। রাজি না হওয়ায় একপর্যায়ে তাকে দুজন মারধর করে চলে যায়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সওজের দুজন কর্মকর্তা বলেন, সংস্কার কাজের জন্য সব উপকরণ কেনার জন্য শহীদুল এন্টারপ্রাইজ দরপত্র পায়। পরে সেই কাজ বারিকুল ইসলাম কিনে নেয়। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ২০ থেকে ৩০ ভাগ মালামাল সরবরাহ করে বারিকুল, যার মূল্য ১২-১৩ লাখ টাকা হতে পারে। কিন্তু সম্পূর্ণ মালামাল সরবরাহ করা হয়েছে বলে ৩৯ লাখ টাকার বিল জমা দেয়। প্রকৌশলী অনুজ কুমার সেই বিলে স্বাক্ষর না করায় দুজন ছাত্রলীগ নেতা মারধর করে চলে যায়।


আরও পড়ুনঃ

রাশিয়ার বিরুদ্ধে নতুন নিষেধাজ্ঞার পরিকল্পনা যুক্তরাষ্ট্রের

হোটেলে নারী এনে জরিমানার মুখে চিলির ফুটবলাররা

বেবি বাম্পের ছবি দিয়ে নুসরাতের লুকোচুরির ইতি

বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক কুমির ‘মুজা’র জন্মদিন পালন


news24bd.tv/এমিজান্নাত

পরবর্তী খবর

পাপুলের আসনে জয় পেলেন নৌকার নুরউদ্দিন

অনলাইন ডেস্ক

পাপুলের আসনে জয় পেলেন নৌকার নুরউদ্দিন

কুয়েতে দণ্ডিত কাজী শহিদ ইসলাম পাপুলের লক্ষ্মীপুর-২ আসনে উপ-নির্বাচনে উপ-নির্বাচনে এমপি পদে নৌকা প্রতীক নিয়ে বিপুল ভোটে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন। ​সোমবার (২১ জুন) সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত উপনির্বাচনে ইভিএমে ভোটগ্রহণ হয়।

ফলাফলে জানা গেছে, নৌকা প্রতীক নিয়ে নুরউদ্দিন চৌধুরী পেয়েছেন ১ লাখ ২২ হাজার ৫৪৭ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টির প্রার্থী শেখ মোহাম্মদ ফায়িজ উল্যাহ ওরফে শিপন লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১ হাজার ৮৮৬ ভোট।

উপনির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত রিটার্নিং কর্মকর্তা ও কুমিল্লা অঞ্চলের আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা দুলাল তালুকদার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। জাতীয় পার্টি প্রার্থী জামানত হারিয়েছেন বলে জানান তিনি।

একাদশ জাতীয় সংসদের নির্বাচনে স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য শহিদ ইসলাম পাপুল মানবপাচার ও অর্থপাচারের মামলায় কুয়েতের আদালতে সাজাপ্রাপ্ত হওয়ায় গত ২২ ফেব্রুয়ারি আসনটি শূন্য ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশ করে সংসদ সচিবালয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে ইভিএমে ভোটের আয়োজন করে নির্বাচন কমিশন। 

আসনটিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন দুই প্রার্থী। একজন হলেন নৌকা প্রতীকের আওয়ামী লীগ প্রার্থী নুরউদ্দীন চৌধুরী নয়ন, অন্যজন লাঙ্গল প্রতীকের জাতীয় পার্টির প্রার্থী শেখ মোহাম্মদ ফায়িজ উল্যাহ ওরফে শিপন। নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগের সুযোগ পেয়েছেন ৪ লাখ ২ হাজার ৯২৩ জন ভোটার।


সব মুছতে চান শ্রাবন্তী, কিন্তু কেন?

সারাদেশে মদ পানে ১৫ জনের মৃত্যু, বাড়ছে উৎকণ্ঠা

স্মার্টফোনের বহুমুখী ব্যবহারে কমছে মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা


 

এদের মধ্যে নারী ১ লাখ ৯৮ হাজার ৪৬৩ এবং পুরুষ ২ লাখ ৪ হাজার ৪৬০ জন। ১৩৫ কেন্দ্রের সবগুলোতে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।

news24bd.tv/আলী

 

পরবর্তী খবর