ভারত থেকে হেঁটে নিজ আবাসস্থলে বাঘ, গলায় বাঁধা ছিলো স্যাটালাইট চিপস

শেখ আহসানুল করিম, বাগেরহাট

ভারত থেকে হেঁটে নিজ আবাসস্থলে বাঘ, গলায় বাঁধা ছিলো স্যাটালাইট চিপস

সুন্দরবনের সাতক্ষীরা রেঞ্জের একটি প্রাপ্ত বয়স্ক রয়েল বেঙ্গল টাইগার ভারতের পশ্চিমবঙ্গের সুন্দরবন পেরিয়ে ৩টি নদী ও ৩টি দ্বীপ পেরিয়ে ১০০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে আবারও ফিরে এসেছে নিজ আবাসস্থলে। নদী ও ম্যানগ্রোভ এই অরণ্যের দীর্ঘ এই পথ পাড়ি দিতে বাঘটির সময় লেগেছে সাড় ৪ মাস। তবে ভারত সফর করতে গিয়ে সে দেশের ওয়াইল্ড লাইফ বিভাগের ফাঁদে আটক হয়ে গলায় পরতে হয়েছে স্যাটালাইট চিপসযুক্ত রেডিও কলার। সুন্দরবন বিভাগ এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া ও আনন্দবাজার থেকে প্রাপ্ত তথ্যে বলা হয়েছে, ভারতের পশ্চিমবঙ্গের সুন্দরবনের বশিরহাট রেঞ্জের হরিখালী বন অফিস এলাকা থেকে সে দেশের ওয়াইল্ড লাইফ টিমের সদস্যরা ছাগল দিয়ে ফাঁদে ফেলে গত বছরের ২৭ ডিসেম্বর একটি বাঘ আটক করে। প্রায় ৯ বছরের  প্রাপ্তবয়স্ক আটক করা ওই বাঘটিকে চেতনানাশক ইনজেকশন পুশ করে বন অফিসে নিয়ে তার গলায় স্যাটালাইট চিপসযুক্ত রেডিও কলার পরিয়ে সুন্দরবনের ভারতীয় অংশে ছেড়ে দেয়া হয়। পরে ওই বাঘটির গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করতে থাকেন তারা।

কয়েকদিন পরে তারা দেখতে পান বাঘটি বাংলাদেশের সুন্দরবন অভিমুখে রয়েছে। পরে বাঘটি ভারতের পশ্চিমবঙ্গের ছোট হরিখালী, বড় হরিখালী নদী ও বাংলাদেশের রায়মঙ্গল নদীসহ ভারতের হরিণডাঙ্গা, খাতুয়াঝুঁড়ি ও বাংলাদেশের তালপট্টি দ্বীপ ঘুরে সাতক্ষীরা রেঞ্জ পৌঁছাতে পেরেছে। গত ১০ মে পর্যন্ত ভারতীয় বন বিভাগের ট্রেকিংয়ে থাকা ওই বাঘটি ১০০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে সময় নিয়েছে সাড়ে ৪ মাস। ভারতীয় বন বিভাগ বলছে, বাঘটি তাদের ট্রেকিংয়ে না থাকলেও এখনো নিরাপদে আাছে। কারণ ওই বাঘটি মারা গেলে তারা স্যাটালাইট চিপসের মাধ্যম সিগনাল পাওয়া যেতো।

সুন্দরবনের করমজল বণ্যপ্রাণী প্রজনন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আজাদ কবির বলেন, সুন্দরবনের একটি পুরুষ বাঘ ২শ থেকে ২৫০ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে তার এলাকা প্রতিষ্ঠা করে। এসময় পুরুষ বাঘটির সাথে ২ থেকে ৭টা পর্যন্ত নারী বাঘ ওই এলাকায় থাকতে পারে। বাঘ সব সময় তার এলাকা পাহারা দিয়ে থাকে। বাঘ খাদ্যের সন্ধানে বা অন্য কোন কারণে কখনও কখনও তার নিজ এলাকা ত্যাগ করে অন্য এলাকায় যেতে পারে।

কোন কারণে হয়তো বাঘটি নদী পেড়িয়ে ভারতের অংশে ঢুকে পড়ে। তখন তারা বাঘটিকে ধরে গলায় স্যাটালাইট চিপসযুক্ত রেডিও কলার পরিয়ে দেয়। এছাড়া সুন্দরবনের বাঘের বিষয়ে সব চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে তাকে আপনি যতদিনই আটকে রাখেন না কেন, ছাড়া পেলে সে ঠিকই তার এলাকায় ফিরে আসবে। সে হিসাবে যে বাঘটি ফিরে এসেছে সেটি সুন্দরবনের বাংলাদেশের অংশের বাঘ। পৃথিবীতে যত মানুষ আছে তাদের প্রত্যেক এর ফিঙ্গার প্রিন্ট যেমন আলাদা, ঠিক তেমনি প্রতিটি বাঘের ডোরাকাটা দাগ কিন্তু আলাদা হয়। এ কারণে সহজেই কিন্তু বাঘটি কোন অংশের সেটি সনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে।

আরও পড়ুন


এবারের বাজেটে কোনো দুর্বলতা নেই: অর্থমন্ত্রী

প্রতিটি দেশে ফেসবুক-টুইটার বন্ধ করা উচিত: ট্রাম্প

বিএনপি সংশ্লিষ্টতার কারণে ডিপজল ও এখলাস মোল্লাকে মনোনয়ন দেয়নি আ.লীগ: নুরজাহান

হুইপ শামসুল হক ও পুত্র শারুনের বিরুদ্ধে পুলিশি বাধা উপেক্ষা করে মুক্তিযোদ্ধা-জনতার মিছিল


ভারতের পশ্চিমবঙ্গে বন বিভাগের প্রধান ওয়াইল্ড লাইফ কর্মকর্তা ভি কে যাদব সে দেশের গণমাধ্যমে বলেছেন, ২৭ ডিসেম্বরে গলায় রেডিও কলার লাগানো বাঘটি ভারতের সুন্দরবনের নয়। বাঘটি বাংলাদেশের সুন্দরবনের। তারা এ বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছেন।

বাংলাদেশের সুন্দরবন পশ্চিম বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) আবু নাসের মোহসিন হোসেন বলেছেন, ভারতীয় সুন্দরবনের বশিরহাট রেঞ্জে গত বছরের ২৭ ডিসেম্বরে যে বাঘটির গলায় রেডিও কলার লাগানো হয় সেটি সুন্দরবনের বাংলাদেশ অংশের সাতক্ষীরা রেঞ্জের বাঘ। একটি বাঘের ডোরাকাটা চিহ্নের সাথে অন্য বাঘের ডোরাকাটা চিহ্নের কোনো মিল থাকে না। ২০১৭ সালে ক্যামেরা ট্রেকিং পদ্ধতিতে বাঘ শুমারিকালে এই বাঘটির ছবি সাতক্ষীরা রেঞ্জ থেকে তোলা হয়, যা বন বিভাগের কাছে সংরক্ষিত রয়েছে। সাতক্ষীরা রেঞ্জের নদীর ওপারে ভারতের সুন্দরবন। তাই নদী পেরিয়ে ওপারের সুন্দরবনে গিয়ে বাঘটি নিজ আবাসস্থল সাতক্ষীরা রেঞ্জে ফিরে আসার বিষয়টি ভারতীয় বন বিভাগের মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর

নেত্রকোনায় হাওরের পানিতে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক

নেত্রকোনায় হাওরের পানিতে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু

নেত্রকোনার খালিয়াজুরিতে হাওরের পানিতে ডুবে শ্রীয়োশ্রী সরকার (৩) ও তরিকুল ইসলাম (২) নামে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে।  আজ দুপুরে খালিয়াজুরি সদর ইউনিয়নের আদাউড়া ও মেন্দিপুর ইউনিয়নের নুরালীপুর গ্রামে পৃথক এ ঘটনা ঘটে।

মারা যাওয়া শিশুদের মধ্যে শ্রীয়োশ্রী সরকার আদাউড়া গ্রামের জীবন সরকারের মেয়ে। আর তরিকুল ইসলাম নুরালিপুর গ্রামের মো. জাহাঙ্গীর মিয়ার ছেলে।

পুলিশ জানায়, দুপুর ১টার দিকে শ্রীয়োশ্রী বাড়ির সামনে খেলা করছিল। একপর্যায়ে শিশুটিকে না পেয়ে পরিবারের লোকজন খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। পরে শিশুটির মা সোমা সরকার পাশে থাকা হাওরের পানিতে মেয়েকে ভাসতে দেখেন। স্থানীয় লোকজন শিশুটিকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মো. মাসুদুর রহমান মৃত ঘোষণা করেন।

অপরদিকে, দুপুর ২টার দিকে নুরালিপুর গ্রামের জাহাঙ্গীর মিয়ার পাশের বাড়িতে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়। এ নিয়ে সবাই ব্যস্ত থাকায় জাহাঙ্গীরের দুই বছরের ছেলে তরিকুল ইসলামের খোঁজখবর কেউ রাখেনি। কিছুক্ষণ পর শিশুটিকে না পেয়ে খোঁজাখুঁজি শুরু হয়। একপর্যায়ে তরিকুলের ভাসমান দেহ বাড়ির পেছনে হাওরের পানি থেকে উদ্ধার করা হয়। পরে তাকে নিয়ে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

আরও পড়ুন:


সঙ্কটে মানুষের পাশে দাঁড়ালে বঙ্গবন্ধুর আত্মা শান্তি পাবে: কাদের

৪১তম বিসিএস প্রিলিমিনারির ফল প্রকাশ

বিশ্বাস করতে হবে আমরা টি-টোয়েন্টিতেও ভালো দল: ডমিঙ্গো


খালিয়াজুরি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মজিবুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে মারা যাওয়া শিশু দুটির মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ নিয়ে থানায় পৃথক অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

ছিটমহল বিনিময়ের ৬ বছর পূর্তী আজ

হুমায়ন কবীর সুয্য:

ছিটমহল বিনিময়ের ৬ বছর পূর্তী আজ। ২০১৫ সালে ৩১ জুলাই ৬৮ বছরের গ্লানি থেকে মুক্তি পেয়েছিলেন বিলুপ্ত ছিটমহলবাসী। নাগরিক অধিকার ফিরে পাবার পাশাপাশি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, যোগাযোগসহ নানা খাতে অভূতপূর্ব উন্নয়নের সুফল পেয়ে খুশি বিলুপ্ত ছিটমহলবাসীরা। তবে করোনা পরিস্থিতির কারণে ৩১ জুলাই মধ্যরাতে  স্বল্প পরিসরে নানা কর্মসূচি আয়োজন করা হয়।

বাংলাদেশ-ভারত ছিটমহল বিনিময়ের ৬ বছরে বদলে গেছে দেশের সবচেয়ে বড় বিলুপ্ত ছিটমহল কুড়িগ্রাম জেলার ফুলবাড়ী উপজেলার দাসিয়ার ছড়ার দৃশ্যপট। সরকারের নানামুখী উন্নয়নে খুশি ৬৮ বছরের অবহেলিত জনপদ। সব ধরনের নাগরিক সুবিধা পেয়ে সামনের দিনগুলোতে আরও এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন তারা ।

তবে এতো প্রাপ্তির মাঝে কিছু অপ্রাপ্তি রয়েছে তাদের। ছিটমহলের বেকার যুবকদের কর্মসংস্থান ও শর্ত শিথিল করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিও ভুক্ত করার দাবি ও জানিয়েছেন কেউ কেউ।

সংশ্লিস্টরা বলছেন, দাসিয়ার ছড়ায় অভূতপূর্ব অবকাঠামো উন্নয়ন হয়েছে। এখন মানব সম্পদ উন্নয়ন ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির বিষয়টিকে অগ্রাধিকার দিয়ে নেয়া হচ্ছে কর্ম পরিকল্পনা।

দু’দেশের সরকারের সমঝোতায় ২০১৫ সালে ৩১ জুলাই মধ্যরাতে বিনিময় হয় বাংলাদেশের অভ্যন্তরে থাকা ১১১টি ও ভারতের অভ্যন্তরে থাকা ৫১টি ছিটমহল। করোনার কারণে এ বছর স্বাস্থ্যবিধি মেনে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা ও রাত ১২টা ১ মিনিটে ৬৮টি মোমবাতি প্রজ্জ্বলনসহ নানা  কর্মসূচি  পালন করা হয়।

আরও পড়ুন:


ইতিহাসের নিষ্ঠুরতম রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড ১৫ আগস্ট: কাদের

৬ কোটিতে অ্যাপার্টমেন্ট কিনলেন দিশা

বিভিন্ন অপরাধে জড়িত থাকায় ২ বছরে রোহিঙ্গা ২২০০ গ্রেপ্তার: আইজিপি

বিশ্বাস করতে হবে আমরা টি-টোয়েন্টিতেও ভালো দল: ডমিঙ্গো


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

প্রমাণ পেয়েছে তদন্ত কমিটি

টাকা লোপাটের তথ্য গোপন করতে অফিস কক্ষে আগুন

রাজশাহী থেকে কাজী শাহেদ:

বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের প্রায় অর্ধ কোটি টাকা লোপাটের তথ্য গোপন করতে আগুন দেয়া হয় অফিস কক্ষে। এনিয়ে গঠন করা কমিটির অনুসন্ধানে প্রমাণও মিলেছে। কিন্তু  বোর্ড সভার নামে ব্যবস্থা নেয়ার প্রক্রিয়া ঝুলে আছে। 

২০১৬ সালের ২৬ ডিসেম্বর, আগুন লাগে বিএমডিএ’র গোদাগাড়ী জোনের অফিসকক্ষে। আগুনের কারণ অনুসন্ধানে গঠন করা হয় কমিটি। সেই কমিটির তদন্তে বেড়িয়ে আসে চার বছর ধরে চেক টেম্পারিং করে অর্থ আত্মসাত করা হয়েছে।

৩০ জুলাই, ২০১২ থেকে ১৭ আগস্ট, ২০১৬

# ১৬৯টি চেক টেম্পারিংয়ের মাধ্যমে ৩৭ লাখ ৩৫ হাজার ২৩৮

# অপারেটরের ২৭টি চেকে ৪ লাখ ৯০ হাজার ৬৭৫

# কৃষকের নষ্ট কার্ডের ১৩টি চেকে ১ লাখ ৮১ হাজার ৯৮০

# বকেয়া বেতনের ৩টি চেক টেম্পারিং করে ৫২ হাজার ৬০

২০১২ সালের ৩০ জুলাই থেকে ২০১৬ সালের ১৭ আগস্ট পর্যন্ত চেক টেম্পারিংয়ের মাধ্যমে আত্মসাত করা হয়েছে ৪৯ লাখ ৩২ হাজার টাকা। এই জালিয়াতি ধামাচাপা দিতেই আগুন দেয়া হয়েছিল।

এ ঘটনায় সম্পৃক্ততা পাওয়া যায় বিএমডিএ’র সহকারী প্রকৌশলী জিএফএম হাসানুল ইসলাম ও আনোয়ার হোসেন, সহকারী কোষাধ্যক্ষ খবিরুদ্দিন, সহকারী হিসাব রক্ষক মতিউর রহমানের। তিন দফা তদন্ত কমিটির রিপোর্টেই তাদের অভিযুক্ত করা হয়। যদিও তারা জড়িত থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।

বিএমডিএ’র দুই দফা ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধিকতর তদন্তে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আগুন দেয়ার সম্পৃক্ততা পাওয়ায় মামলার সুপারিশ করা হয়। এছাড়া আত্মসাত করা টাকাও ফেরত নিতে বলা হয়। কিন্তু সেপথে হাঁটেনি কর্তৃপক্ষ।

একই ঘটনায় অভিযুক্ত হয়েও চার বছর ধরে সাসপেন্ড ক্যাশ শাখার দুজন। আর বহাল তবিয়তে স্বপদে বহাল দুই সহকারী প্রকৌশলী। (তদন্ত রিপোর্টের ছবি)

আরও পড়ুন:


ইতিহাসের নিষ্ঠুরতম রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড ১৫ আগস্ট: কাদের

৬ কোটিতে অ্যাপার্টমেন্ট কিনলেন দিশা

বিভিন্ন অপরাধে জড়িত থাকায় ২ বছরে রোহিঙ্গা ২২০০ গ্রেপ্তার: আইজিপি

বিশ্বাস করতে হবে আমরা টি-টোয়েন্টিতেও ভালো দল: ডমিঙ্গো


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

মাগুরায় বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক

মাগুরায় বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যু

মাগুরা সদর উপজেলায় বজ্রপাতে মোহাম্মদ শেখ (৩৫) নামে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে।  

আজ দুপুর ৩টার দিকে উপজেলা সদরের চাউলিয়া ইউনিয়নের নিশ্চিন্তপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। মোহাম্মদ শেখ নিশ্চিন্তপুর গ্রামের আব্দুল গণি শেখের ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে মাগুরা সদর থানার ওসি জয়নাল আবেদিন জানান, ঝড়ো বাতাসসহ বৃষ্টির মধ্যে অন্য কৃষকদের সঙ্গে বাড়ির পাশের বিলে পাট কাটছিলেন মোহাম্মদ শেখ। এসময় বজ্রপাত হলে মোহাম্মদ শেখের শরীরের কিছু অংশ ঝলসে যায়।

আরও পড়ুন:


সঙ্কটে মানুষের পাশে দাঁড়ালে বঙ্গবন্ধুর আত্মা শান্তি পাবে: কাদের

৪১তম বিসিএস প্রিলিমিনারির ফল প্রকাশ

বিশ্বাস করতে হবে আমরা টি-টোয়েন্টিতেও ভালো দল: ডমিঙ্গো


আশপাশের লোকজন তাৎক্ষণিক তাকে ২৫০ শয্যার মাগুরা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

জয়পুরহাটে এক হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছে বসুন্ধরা গ্রুপ

অনলাইন ডেস্ক

দেশজুড়ে অসহায় মানুষের মাঝে চলমান ত্রাণ কার্যক্রমের অংশ হিসেবে, জয়পুরহাটের এক হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছে দেশের শীর্ষ ব্যবসায়ী গ্রুপ বসুন্ধরা। 

রোববার তিন উপজেলায় এই সহায়তা কার্যক্রম চলে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সার্বিক ব্যবস্থাপনা করে দৈনিক কালেরকণ্ঠের পাঠক ফোরাম শুভ সংঘ। 

উত্তরাঞ্চলে রংপুর-বগুড়ার পর এবার জয়পুরহাটে খাদ্য সহায়তা কার্যক্রম শুরু করলো দেশের অন্যতম বড় ব্যবসায়ী গ্রুপ বসুন্ধরা। চাল-ডাল-তেলসহ বিভিন্ন নিত্যপণ্য জেলার আক্কেলপুর, ক্ষেতলাল ও কালাই উপজেলার মানুষদের মাঝে বিতরণ করা হয়। 

বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহানের এই উপহার দরিদ্রদের কাছে পৌঁছে দেয়ার সার্বিক কার্যক্রম পরিচালনা করে শুভ সংঘ।

বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যানের নির্দেশে সারা দেশে এই কার্যক্রম চলবে বলে জানান শুভ সংঘের পরিচালক।স্থানীয় প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিরা এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন।

জয়পুরহাটে মোট ২ হাজার পরিবারকে এই সহায়তা প্রদানের কথা জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

আরও পড়ুন:


ইতিহাসের নিষ্ঠুরতম রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড ১৫ আগস্ট: কাদের

৬ কোটিতে অ্যাপার্টমেন্ট কিনলেন দিশা

বিভিন্ন অপরাধে জড়িত থাকায় ২ বছরে রোহিঙ্গা ২২০০ গ্রেপ্তার: আইজিপি

বিশ্বাস করতে হবে আমরা টি-টোয়েন্টিতেও ভালো দল: ডমিঙ্গো


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর