চাচাতো ভাইকে গাছে বেঁধে বিধবা নারীকে গণধর্ষণ, গ্রেফতার ২

অনলাইন ডেস্ক

চাচাতো ভাইকে গাছে বেঁধে বিধবা নারীকে গণধর্ষণ, গ্রেফতার ২

কাজ শেষে এক বিধবা(২৩) তার এক চাচাতো ভাইকে সঙ্গে নিয়ে অটোরিকশাযোগে বাবার বাড়িতে যাচ্ছিলো।ওই সময়  ৪ দুর্বৃত্ত তাদের বহনকারী অটোরিকশার পথরোধ করে। এক পর্যায়ে ওই বিধবার চাচাতো ভাইকে সংঘবদ্ধ দুর্বৃত্তরা দেশীয় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে সড়কের পাশের একটি গাছে বেঁধে রেখে তারা ওই বিধবাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।

শুক্রবার রাতে শেরপুর সদর উপজেলার লছমনপুর ইউনিয়নের ইলশা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে দুইজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতাররা হলেন, শেরপুর সদর উপজেলার লছমনপুর ইউনিয়নের সজীব মিয়া (২১) ও বিল্লাল হোসেন (৪৫)।

শেরপুর সদর থানার ওসি তদন্ত বন্দে আলী জানান, গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে শনিবার বিকালে ৭ দিনের পুলিশ রিমান্ডের আবেদনসহ আদালতে সোপর্দ করা হলে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ফারিন ফারজানা ১৬ জুন ওই বিষয়ে শুনানির তারিখ নির্ধারণ করে তাদেরকে জেলা কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। 

এ দিন দুপুরে জেলা সদর হাসপাতালে ধর্ষণের শিকার ওই বিধবার ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে।

ওসি তদন্ত আরও জানান, শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে শেরপুর শহরে একটি কাজ শেষে ওই বিধবা তার এক চাচাতো ভাইকে সঙ্গে নিয়ে অটোরিকশাযোগে শেরপুর সদর উপজেলার ঘুঘুরাকান্দি-বেতমারী ইউনিয়নের হাড়ুয়াপাড়া গ্রামে তার বাবার বাড়িতে যাচ্ছিলেন। ওই সময় লছমনপুর ইউনিয়নের ইলশা পৌঁছামাত্র ৪ দুর্বৃত্ত তাদের বহনকারী অটোরিকশার পথরোধ করে।

এক পর্যায়ে ওই বিধবার চাচাতো ভাইকে সংঘবদ্ধ দুর্বৃত্তরা দেশীয় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে সড়কের পাশের একটি গাছে বেঁধে রেখে তারা ওই বিধবাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। ওই সময় বিধবা ও তার ভাইয়ের ডাক-চিৎকারে আশপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে যায় এবং সজীব ও বিল্লাল নামে ২ জনকে আটক করে।

পরে খবর পেয়ে শেরপুর সদর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ধর্ষণের শিকার ওই বিধবাকে উদ্ধার করে এবং আটক ২ জনকে থানায় নিয়ে আসে। ওই ঘটনায় গণধর্ষণের শিকার ওই বিধবা নারী বাদী হয়ে ৪ জনকে আসামি করে সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। ওই ঘটনায় ২ জনকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেফতারের অভিযান চলছে।

news24bd.tv/আলী

পরবর্তী খবর

কুড়িগ্রাম সীমান্তে অনুপ্রবেশের দায়ে বাংলাদেশি আটক

অনলাইন ডেস্ক

কুড়িগ্রাম সীমান্তে অনুপ্রবেশের দায়ে বাংলাদেশি আটক

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী সীমান্তে অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে এক বাংলাদেশিকে আটক করেছে বিজিবি।

বিস্তারিত আসছে...

পরবর্তী খবর

মাদারীপুরে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে অচেতন করে স্বামীকে হত্যা, স্ত্রীর দায় স্বীকার

মাদারীপুর প্রতিনিধি:

মাদারীপুরে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে অচেতন করে স্বামীকে হত্যা, স্ত্রীর দায় স্বীকার

মাদারীপুরের কালকিনিতে স্বামীকে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে অচেতন করে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার একমাস ১১ দিন পর স্বামী হত্যার দায় স্বীকার করেছে নিহতের স্ত্রী রুবি বেগম (২৩)। ঘটনাটি ঘটেছে কালকিনি উপজেলার পূর্ব এনায়েতনগর এলাকার পূর্ব আলিপুর গ্রামে।

পুলিশ ও ভুক্তভোগী সুত্রে জানা যায়, কালকিনির পূর্ব এনায়েতনগর এলাকার পূর্ব আলিপুর গ্রামের মান্নান কাজীর ছেলে মো. নাজিমুদ্দিন কাজীর (২৫) সঙ্গে একই এলাকার মো. কামাল সিকদারের মেয়ে রুবি বেগমের পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। তাদের সংসারে চার বছর বয়সের একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। কিন্তু গত ২১ জুন রাতে স্বামী মো. নাজিমুদ্দিন স্ট্রোক করে মারা যায় বলে এলাকায় প্রচার করে স্ত্রী রুবি বেগম। 

করোনার প্রকোপের কারণে তরিঘরি করে তার লাশ স্বাভাবিক মৃত্যু হিসেবে দাফন করা হয়। নিহতের বাবা মা নেই। তবে নিহতের অন্য আত্মীয়দের সন্দেহ হয়। তাদের ধারণা পরকীয়ার জের ধরেই তাকে হত্যা করা হয়েছে। 

গত শনিবার নাজিমুদ্দিনের ফুফু মতি বেগম থানায় মামলা করার জন্য গেলে কালকিনি থানা পুলিশ মামলা না নিয়ে তাদের মাদারীপুর কোর্টে মামলা করতে বলেন।

রোববার বিকালে স্থানীয় এলাকাবাসির তোপের মুখে এ হত্যার দায় স্বীকার করেন ওই স্ত্রী। ইউপি চেয়ারম্যানের রেহানা নেয়ামুলের স্বামী নেয়ামুল আকন বিষয়টি কালকিনি থানা পুলিশকে অবহিত করেন। পুলিশ সন্ধ্যার পরে ঘটনা স্থালে গিয়ে ঘাতক স্ত্রী রুবি বেগমকে আটক করেন।

ঘাতক রুবি বেগম স্বীকারোক্তিতে জানান, আলিপুর মোল্লারহাট বাজারের ঔষধের দোকানের চিকিৎসক আব্দুল আলির কাজ থেকে ঘুমের ওষুধ এনে দুধের সাথে মিশিয়ে স্বামী মো. নাজিমুদ্দিনকে খাইয়ে অচেতন করে হত্যা করে।

নিহতের ভাই নাইম ও ফুফু মতি বেগম বলেন, আমাদের আগেই সন্দেহ হয়েছিল নাজিমুদ্দিন মারা যায়নি তাকে হত্যা করা হয়েছে। আমরা থানায় মামলা করতে গেলে থানা পুলিশ মামলা নেয়নি। আমাদের মাদারীপুর কোর্টে গিয়ে মামলা দিতে বলে। পরে এলাকার লোকজন নিয়ে রুবিকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে রুবি ঘুমের ওষুধ খাইয়ে হত্যা করেছে বলে স্বীকার করে।

এ ব্যাপারে কালকিনি থানার ওসি ইসতিয়াক আশফাক রাসেল বলেন, ভুক্তভোগী পরিবার রোববার রাতে থানায় হত্যা মামলা করেছে। জিজ্ঞাসাবাদের স্বামীকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। মামলার আসামী রুবিকে আটক শেষে সোমবার মাদারীপুর জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:


চট্টগ্রামে করেনা ও উপসর্গ নিয়ে ১১ জনের মৃত্যু

পিয়াসা ও মৌ উচ্চবিত্তদের বাসায় ডেকে ব্ল্যাকমেইল করত : হারুন

৯৯৯ এ ফোন কলেবারান্দার কার্নিশ আটকে পড়া কিশোরী উদ্ধার

পোশাকের নেমপ্লেট খুলে চাঁদাবাজির অভিযোগে এসআই স্ট্যান্ড রিলিজ


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

নোয়াখালীতে কিশোরীকে গণধর্ষণ, গ্রেপ্তার ১

নোয়াখালী প্রতিনিধি:

নোয়াখালীতে কিশোরীকে গণধর্ষণ, গ্রেপ্তার ১

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে (১৮) বছর বয়সী এক কিশোরীকে গণধর্ষণের ঘটনায় এক যুবককে আটক করে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় অভিযুক্ত আরও তিন যুবক পলাতক রয়েছে।

আটককৃত মো.রুবেল (২৬) সোনাইমুড়ী উপজেলার বাড্ডা এলাকার মৃত আবুল খায়েরের ছেলে ।

রোববার  আটককৃত আসামিকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। এর আগে, গত শনিবার দিবাগত রাতে তাকে উপজেলার সোনাইমুড়ী বাজার থেকে আটক করে পুলিশ।

পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা যায়, আটককৃত আসামি রুবেল প্রথমে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত (২৫ জুলাই) উপজেলার ছনগাঁও এলাকার রেললাইনের পূর্বে ছনখোলায় ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করে।

পরবর্তীতে গত (৩০ জুলাই) রাত পৌনে ১১টার দিকে রুবেলের ফুপাতো ভাই  জুয়েল (২৫) সহ অজ্ঞাত আরও ২ জন মিলে উপজেলার রশিদপুর গ্রামের অজ্ঞাত জায়গায় নিয়ে তাকে পুণরায় ধর্ষণ করে। পরে এ ঘটনায় নির্যাতিত কিশোরী বাদী হয়ে গতকাল (১ আগস্ট) সোনাইমুড়ী থানায় নারীও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।

সোনাইমুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.তৌহিদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় নির্যাতিত কিশোরী নিজেই বাদী হয়ে নারীও শিশু নির্যাতন দমন আইনে সোনাইমুড়ী থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

পুলিশ মৌখিক ভাবে অভিযোগ পেয়েই অভিযুক্ত আসামিকে আটক করে। আদালতে অভিযুক্ত আসামি ১৬৪ ধারায় নিজের দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দেয়। অভিযুক্ত অপর আসামিদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।

আরও পড়ুন:


চট্টগ্রামে করেনা ও উপসর্গ নিয়ে ১১ জনের মৃত্যু

পিয়াসা ও মৌ উচ্চবিত্তদের বাসায় ডেকে ব্ল্যাকমেইল করত : হারুন

৯৯৯ এ ফোন কলেবারান্দার কার্নিশ আটকে পড়া কিশোরী উদ্ধার

পোশাকের নেমপ্লেট খুলে চাঁদাবাজির অভিযোগে এসআই স্ট্যান্ড রিলিজ


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

মতিঝিলে আবাসিক হোটেলে তরুণীর লাশ

অনলাইন ডেস্ক

মতিঝিলে আবাসিক হোটেলে তরুণীর লাশ

মতিঝিলে আবাসিক হোটেল থেকে এক তরুণীর লাশ উদ্ধার।

বিস্তারিত আসছে...

পরবর্তী খবর

ঘরে ফিরতেই মাকে জড়িয়ে হাউমাউ করে কেঁদে উঠল মেয়ে

অনলাইন ডেস্ক

ঘরে ফিরতেই মাকে জড়িয়ে হাউমাউ করে কেঁদে উঠল মেয়ে

চাঁদপুর হাজীগঞ্জে ভাতিজিকে ধর্ষণের অভিযোগে চাচাকে আটক করেছে পুলিশ। শনিবার (৩১ জুলাই) দুপরে উপজেলার ৬নং বড়কূল পূর্ব ইউনিয়নের মোল্লাডহর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আটক মোল্লাডহর নোয়াবাড়ীর আব্দুস সোবাহানের ছেলে আ. রশিদ (৩৫)।

ওই তরুণীর মা বলেন, আমাদের নতুন বাড়ির চারপাশে বর্ষার পানি। শনিবার (৩১ জুলাই) দুপুরের দিকে ঘরে আমার মেয়েকে রেখে নৌকা যোগে গ্রামের দোকানে বাজার করতে যাই। এ সুযোগে আমার মেয়েকে একা পেয়ে ধর্ষণ করে দেবর রশিদ।

ঘরে ফিরে মেয়ের দিকে তাকালে আমাকে জড়িয়ে হাউমাউ করে কেঁদে ওঠে। ঘটনা খুলে বলে। পরে তার বাবাকে খবর দিয়ে গ্রামবাসীকে জানাই।

স্থানীয়রা বলেন, আমরা শুনে ঘটনাস্থলে যাই এবং ধর্ষককে আটকে রাখি। মেয়েটির বাবা ৯৯৯ ফোন করলে পুলিশ রাত ৯টার দিকে অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে।

হাজীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক জয়নাল আবেদীন বলেন, সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে সত্যতা পাই। পরে অভিযুক্তসহ ভিকটিমকে রাত সাড়ে ১০টার দিকে থানায় নিয়ে আসি।

হাজীগঞ্জ থানার ওসি মো. হারুনুর রশিদ জানান, ঘটনার সত্যতা পেয়েছি। আসামিকে আটক করা হয়েছে।

 news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর