বাগেরহাটে কাঠের ব্রিজ ভেঙ্গে যাওয়ায় ১০ গ্রামের মানুষের দুর্ভোগ

শেখ আহসানুল করিম, বাগেরহাট

বাগেরহাটে কাঠের ব্রিজ ভেঙ্গে যাওয়ায় ১০ গ্রামের মানুষের দুর্ভোগ

বাগেরহাট সদর উপজেলার বেমরতা ইউনিয়নের কোন্ডলা ও সুলতানপুর গ্রামের কাটাখালের উপর নির্মিত কাঠের ব্রিজটি দীর্ঘ আট মাস ধরে ভেঙ্গে পড়ে রয়েছে। রাতের আধারে ইঞ্চিন চালিত ট্রলারের ধাক্কায় ব্রিজটি ভেঙ্গে যাওয়ার ফলে খালের দু’পাড়ের ১০ গ্রামের প্রায় ১৫ হাজার মানুষ পড়েছে চরম ভোগান্তির মধ্যে।

যাতায়াতের বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় কোন্ডলা ও সুলতানপুর গ্রামের সাধারণ মানুষ বাধ্য হয়ে ঝুঁকিপূর্ণ এ ব্রিজটির উপর দিয়ে পাড় হচ্ছেন। আর ফলে প্রায়ই দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে স্কুল ও মাদ্রাসাগামী শিক্ষার্থীসহ নারী ও শিশুরা। এমন অবস্থায় ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজটি  দ্রুত সংস্কারের দাবী জানিয়েছে গ্রামবাসী।

এলাকাবাসি জানায়, দীর্ঘ আট মাস ধরে খাটাখালের উপর নির্মিত এ ব্রিজটি ভেঙ্গে পড়ার কারণে যাতায়াতে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে রয়েছে কোন্ডলা ও সুলতানপুর গ্রামের বাসিন্দারা। এছাড়া খালের দু’পাড়ের কোন্ডলা, সুলতানপুর, নওয়াপাড়া, পাতিলাখালী, তালেশ্বর, নাটইখালী, খাসবাটি, ভাটশালা, বানিয়াগাতি ও চরগ্রামের প্রায় ১৫ হাজার মানুষ দুর্ভোগে পড়েছে।

স্কুল ও মাদ্রাসাগামী শিক্ষার্থীসহ বাগেরহাট শহরে যাতায়াতের জন্য ব্রিজটি সহজ মাধ্যম হওয়ায় অনেকেই ঝুঁকিপূর্ণ এ ব্রিজটি দিয়ে যাতায়াত করছে। এর ফলে প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। ভাঙ্গা এ ব্রিজটি পাড় হতে গিয়ে খালে পরে আহত হয়েছেন অনেকে।

সুলতানপুর গ্রামের বাসিন্দা আছমা বেগম বলেন, ‘এই সাত-আট মাস ধরে আমাগো এই ব্রিজটা ভাইঙ্গে পড়ে রইছে। এই সুলতানপুর ও কোন্ডলা মানুষ যাতায়াতে অনেক কষ্ট হয়, আমরা বাচ্চ-কাচ্চা নিয়ে যাতায়াত করতি পারি না। এইডা হচ্ছে মেইন রোড, এইখান দিয়ে অনেক লোক যাওয়-আসা করে। আপনারা যদি পারেন, দয়া করে এই পোলডা ভালো করে দেন। আমরা অনেকেরে জানাইছি, তারা সমাধান কিছু করে না’।

একই গ্রামের এনামুল কবির খান বলেন, ‘ট্রলারে ধাক্কা মেরে এই ব্রিজটা ভাইঙ্গে থুইয়ে যায়। আমরা মেম্বার-চেয়ারম্যান সবাইরে জানাইছি, কিন্তু কেউ কোন গুরুত্ব দিচ্ছে না। এই ব্রিজটির উপর দিয়ে স্কুলগামি বাচ্চারা যাতায়াত করে’।

আরও পড়ুন


চাকরির সুযোগ দিচ্ছে নাভানা ফার্মাসিউটিক্যাল

আওয়ামী লীগ কচুরিপানা নয়, যে বিএনপির হাঁক-ডাকে ভেসে যাবে: কাদের

সাকিবের শাস্তি মওকুফ করতে মোহামেডানের আবেদন

নিয়োগ দেবে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর


কোন্ডলা গ্রামের সালাম শেখ বলেন, ‘সাত-আট মাস ধইরে ভাইঙ্গে এই ব্রিজটা অকেজো হয়ে রইছে, আমরা যে কি কষ্টে যাতায়াত করতিছি। চেয়ারম্যান-মেম্বারদের এত অইরে বলিছি, তারা কোন কর্ণপাত করে না। আমাগো এই দশটা গ্রামের লোকজনের বাগেরহাট টাউনে যাতিপাছিনা । অনেক মানুষ এই ভাঙ্গা ব্রিজ থেকে পইড়ে হাত-পাও ভাঙ্গিছে।

বাগেরহাট বেমরতা ইউপি চেয়ারম্যান মনোয়ার হোসেন টগর বলেন, কোন্ডলা ও সুলতানপুরের মধ্যে সংযোগস্থাপনকারী ব্রীজটি দীর্ঘদিন ধরে ভাংগা অবস্থায় রয়েছে। আমাদের সদর আসনের এমপি শেখ তন্ময়কে বিষয়টি আমরা জানিয়েছি। তিনি আন্তরিকতার সাথে বিষয়টি গ্রহণ করেছেন। আমরা আশা করছি দ্রুতই বিষয়টি সমাধান হবে এবং ওইখানে একটি সুন্দর ব্রীজ নির্মাণ হবে।

বাগেরহাট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মোছাব্বেরুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি। ব্রিজটির জেলা পরিষদের। ইতি মধ্যেই বিষয়টি তাদের জানানো হয়েছে। আশা করছি দ্রুত ব্রিজটি সংস্কারের কাজ শুরু হবে।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর

নাটোরে করোনায় আরও চার জনের মৃত্যু

নাটোর প্রতিনিধি

নাটোরে করোনায় আরও চার জনের মৃত্যু

গত ২৪ ঘন্টায় নাটোর সদর হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত হয়ে আরও ৪ জন মারা গেছেন। মৃত চারজনই নাটোর শহরের বাসিন্দা ছিলেন। এদের মধ্যে ২ জন পুরুষ ২ জন নারী। তাদের বয়স পঞ্চাশোর্ধ।

এ পর্যন্ত এ জেলায় মোট মৃত্যু ১১০ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় ২৭৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে নতুন করে শনাক্ত হয়েছে ৮০ জন। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ২৮.৯৯ শতাংশ।

২৪ হাজার ৯০৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করে এ নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্ত ৬ হাজার ৬২৪ জন। চিকিৎসার জন্যে নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ৬৪ জন। 

এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ২ হাজার ৭৪২ জন। হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ৩৭৭৬ জন। সিনোভ্যাক্সের টিকা পেয়েছেন ৩৬৫৯ জন। এদিকে ভ্যাক্সিনের জন্যে প্রতিদিন ভীড় জমাচ্ছেন সাধারণ নাগরিকরা। অনেকে ভ্যাকসিন না পেয়ে ফিরে যাচ্ছেন।

আরও পড়ুন:


বিভিন্ন জেলায় করোনায় প্রায় দেড় শতাধিক মৃত্যুর

সিলেট বিভাগে করোনায় শনাক্ত ও মৃত্যু নতুন রেকর্ড

বগুড়ায় ৭০০ পরিবারের মাঝে বসুন্ধরা গ্রুপের ত্রাণ বিতরণ

মাহফুজ আনামের অনৈতিক কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদে সম্পাদক পরিষদ থেকে নঈম নিজামের পদত্যাগ


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় ৩০০ পরিবারের মাঝে বসুন্ধরা গ্রুপের ত্রাণ বিতরণ

অনলাইন ডেস্ক

বগুড়ার দুপচাঁচিয়ায় ৩০০ পরিবারের মাঝে বসুন্ধরা গ্রুপের ত্রাণ বিতরণ

বগুড়া জেলার দুপচাঁচিয়া উপজেলায় ৩০০ অসহায় ও অতিদরিদ্র পরিবারের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেছে দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপ। 

স্বাস্থ্যবিধি মেনে আজ বুধবার কালের কণ্ঠ শুভসংঘের সহযোগিতায় উপজেলার দুপচাঁচিয়া দারুস সুন্নাহ্ ফাজিল (ডিগ্রী) মাদরাসা মাঠে বসুন্ধরা গ্রুপের এই ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হয়। এছাড়া সকলের মাঝে মাস্ক বিতরণ ও করোনা সুরক্ষায় সচেতনতামূলক পরামর্শ দেওয়া হয়।

দুপচাঁচিয়া ধাপসুখানগাড়ীর বাসিন্দা সাহেরা খাতুন। দুই কুলে তার এক ছেলে সায়েদ ছাড়া কেউ নেই। তিনিও পঙ্গু হয়ে ঘরে বসে আছেন। তার স্ত্রী নাজমা খাতুন মানুষের বাড়ি কাজ করে মাসে ৩ হাজার টাকা আয় করেন। সাহেরার বয়স্ক ভাতা, ছেলের প্রতিবন্ধী ভাতা আর বউয়ের সামান্য উপার্জনেই চলে তাদের মানবেতর জীবনযাপন। বসুন্ধরা গ্রুপের খাদ্যসামগ্রী পেয়ে সাহেরা বলেন, 'আল্লাহ বসুন্ধরা গ্রুপকে হেদায়েত দান করুক, ভালোভাবে থুক। হায়াত দান করুক। বেধির হাত থেকে রক্ষা করুক। তার এই সাহায্য দিয়া হামরা ২০-২৫ খাতে পারমু।'

শ্বাসকষ্ট সমস্যা নিয়েই পথে পথে গান গেয়ে বেরান বাউল সন্তোষ মালি। এতেই মানুষের মন ভরে কিছু টাকা রোজগার করে সংসারের ঘানি টানেন। তার মতো বাউল হারান মহন্ত-জগদীশরাও পেয়েছেন বসুন্ধরা গ্রুপের ত্রাণসামগ্রী। সহায়তা পেয়ে আশীর্বাদ করেন তারা। বলেন, বসুন্ধরা গ্রুপের মালিকের মনের আশা পূরণ করুক। স্রষ্টা তার যেন ভালো রাখুক।

আরও পড়ুন


সানিয়া যে একা ছিলেন এমন না, ছিলেন সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা

এবার কঙ্গনাকে কড়া বার্তা দিলেন আদালত

করোনায় ইন্দোনেশিয়ায় রেকর্ড মৃত্যু, শনাক্ত ৪৫ হাজারের বেশি

দাঁড়িয়েছিলেন করোনা পরীক্ষার জন্য, সেখানেই যুবকের মর্মান্তিক মৃত্যু


এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মুহা. আবু তাহির। তিনি বলেন, আজকেও বসুন্ধরা গ্রুপের সহায়তায় আমাদের উপজেলার ৩০০ অসহায় পরিবারকে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছে। তারা করোনার এই ক্রান্তিকালেও দিনরাত অক্লান্ত পরিশ্রম করছে। তাই তাদের ধন্যবাদ জানাই। আর বসুন্ধরা গ্রুপকেও ধন্যবাদ জানাই আমাদের উপজেলার অসহায় মানুষকে ত্রাণ সহায়তা দেওয়ার জন্য। দেশে বর্তমানে প্রতিদিনই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে, মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। এই সময়ে আপনার কেউ অযথা ঘর থেকে বের হবেন না, সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবেন। করোনা মোকাবেলা করতে আমাদের সহযোগিতা করবেন।

এছাড়া ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমে আরো উপস্থিত ছিলেন দুপচাঁচিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাসান আলী, কালের কণ্ঠ শুভসংঘের পরিচালক জাকারিয়া জামান, কালের কণ্ঠের ব্যুরো প্রধান লিমন বাসার, শুভসংঘের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য শরীফ মাহ্দী আশরাফ জীবন, নিউজ টোয়েন্টিফোরের জেলা প্রতিনিধি আবদুস সালাম বাবু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আমিনুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক, মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা ইউসুফ আলী শুভসংঘের বগুড়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক শিশির মুস্তাফিজসহ অন্যান্যদের মধ্যে মশিউর রহমান জুয়েল, আদমদীঘি উপজেলা শাখার উপদেষ্টা নজরুল ইসলাম ও লায়ন ফরিদ আহমেদ, সভাপতি জিল্লুর রহমান কমল, আহসান হাবীব তুহিন, সাগর, উত্তরা ইউনিভার্সিটির সাবেক সভাপতি আলমগীর হোসেন রনি ও গণবিশ্ববিদ্যালয় শাখার অর্থ সম্পাদক মিম খান, দুপচাঁচিয়া উপজেলার প্রেসক্লাবের সভাপতি গোলাম ফারুক ও সেচ্ছাসেবী ডা. মোহাম্মদ আব্দুল মতিন, মোস্তাফিজুর রহমান, সজিব, রনি, সত্য ও রহিমা প্রমুখ।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

নাটোরে কঠোর লকাউন মানছে না কেউ

নাটোর প্রতিনিধি

নাটোরে কঠোর লকাউন মানছে না কেউ

নাটোরে কঠোর লকাউন মানছে না কেউ। লকডাউনের ষষ্ঠ দিনে শুধু মাত্র যাত্রীবাহী বাস বাদে মানুষ এবং অন্যান্য যানবাহন চলাচল ছিল অনেকটা স্বাভাবিক। শহরের বিভিন্ন মোড়ে আইন শৃংঙ্খলা বাহিনী চেক পোষ্ট বসিয়ে নানা ভাবে বাধা দিলেও তা কোন কাজে আসছে না।

জীবিকার প্রয়োজন ছাড়াও অনেকে নানা অযুহাতে অপ্রয়োজনে বের হয়ে আসছে বাড়ি থেকে। রিক্সা ও অটোরিক্সার সাথে সাথে সিএনজি চলাচল ছিল অনেক বেশি। ব্যক্তিগত গাড়িও চলাচল করতে দেখা গেছে। 

শুধুমাত্র প্রধান সড়কেই যেন লকডাউন মানা হচ্ছে। শুধু জেলা শহরে নয় জেলার প্রতিটি উপজেলাতে একই অবস্থা বিরাজ করছে। তবে স্বাস্থ্যবিধি অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে জেলা প্রশাসনের একাধিক ভ্রাম্যমাণ আদালত মাঠে রয়েছে।

আরও পড়ুন:


বিভিন্ন জেলায় করোনায় প্রায় দেড় শতাধিক মৃত্যুর

সিলেট বিভাগে করোনায় শনাক্ত ও মৃত্যু নতুন রেকর্ড

বগুড়ায় ৭০০ পরিবারের মাঝে বসুন্ধরা গ্রুপের ত্রাণ বিতরণ

মাহফুজ আনামের অনৈতিক কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদে সম্পাদক পরিষদ থেকে নঈম নিজামের পদত্যাগ


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

দাঁড়িয়েছিলেন করোনা পরীক্ষার জন্য, সেখানেই যুবকের মর্মান্তিক মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক

দাঁড়িয়েছিলেন করোনা পরীক্ষার জন্য, সেখানেই যুবকের মর্মান্তিক মৃত্যু

২৫০ শয্যা বিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে করোনা শনাক্তের নমুনা দিতে এসেছিলেন ইকবাল (৪৩) নামে এক যুবক। দাঁড়িয়েছিলেন লাইনে। হঠাৎ সেখানেই অচেতন হয়ে পড়ে যান ইকবাল। এরপর সেখানেই মৃত্যু হয় তার। 

বুধবার (২৮ জুলাই) সকাল পৌনে ৯টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে এই ঘটনা ঘটে। মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়া ইকবাল সদর উপজেলার নাটাই উত্তর ইউনিয়নের বিহাইর গ্রামের সহিদুল ইসলামের ছেলে।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, গত এক সপ্তাহ ধরে জ্বর, ঠান্ডাসহ নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে অসুস্থ ছিলেন ইকবাল। বুধবার তার করোনা পরীক্ষার জন্য হাসপাতালের বিএমএ ভবনে নিয়ে আসা হয়। সেখানে লাইনে দাঁড়িয়ে নমুনা দেওয়ার জন্য অপেক্ষায় ছিলেন তিনি। এ সময় তিনি অচেতন হয়ে মাটিতে ঢলে পড়েন। পরে তাকে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে চিকিৎসক ইসিজি করে মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

আরও পড়ুন


বরিশালে টিসিবি পণ্য কিনতে দীর্ঘ লাইন, ক্রেতাদের অভিযোগ

ডেঙ্গু চিকিৎসায় রাজধানীতে ৬ ডেডিকেটেড হাসপাতাল

জীবন রক্ষা না পেলে জীবিকা দিয়ে কী হবে: ওবায়দুল কাদের

সংকট সমাধানে তিউনিশিয়ার প্রেসিডেন্টকে সংলাপের আহ্বান আন-নাহদার


হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক সোলায়মান মিয়া বলেন, ইকবাল নামের ব্যক্তিটির করোনা সাসপেক্টেট ছিল। সকালে হাসপাতালে করোনা পরীক্ষা করার জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এই অবস্থা তিনি অচেতন হয়ে ঢলে পড়লে জরুরি বিভাগে নিয়ে আসা হয়। ইসিজি করার পর রিপোর্টে তাকে মৃত পাওয়া যায়।

এ পর্যন্ত জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৯০ জন। যার মধ্যে সদর উপজেলায় ২৮ জন, আখাউড়া উপজেলায় ১৩ জন, বিজয়নগর উপজেলায় ৩ জন, নাসিরনগর উপজেলায় ৫ জন, বাঞ্ছারামপুর উপজেলায় ৪ জন, নবীনগর উপজেলায় ১৮ জন, সরাইল উপজেলায় ৫ জন, আশুগঞ্জ উপজেলায় ১১ জন ও কসবা উপজেলায় ৩ জন মারা গেছেন।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

বরিশালে ঢিলেঢালা ভাবে পালিত হচ্ছে লকডাউন

রাহাত খান, বরিশাল :

বরিশালে ঢিলেঢালা ভাবে পালিত হচ্ছে লকডাউন

বরিশালে ঢিলেঢালা ভাবে পালিত হচ্ছে ৬ষ্ঠ দিনের লকডাউন। ব্যাংকিংকালীন সময়ে নগরীর রাস্তাঘাটে দেখা যায় প্রচুর মানুষ। লঞ্চ-বাস, থ্রি হুইলার এবং কিছু দোকানপাঠ বন্ধ থাকা ছাড়া নগরীর সব কিছু প্রায় স্বাভাবিক হয়ে গেছে। রাস্তাঘাটে দেখা গেছে প্রচুর সংখ্যক রিক্সা, মোটরসাইকেল, বাই সাইকেল এবং ব্যক্তিগত যানবাহন। 

এদিকে লকডাউন এবং স্বাস্থ্য বিধি বাস্তবায়নে আজও নগরীতে পৃথক ৩টি ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেছে জেলা প্রশাসন। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীও গা ছাড়াভাবে নগরীতে টহল অব্যাহত রেখেছে। 

ঈদের পর চলমান কঠোর লকডাউনের ৬ষ্ঠ দিন অতিবাহিত হচ্ছে আজ বুধবার। এদিন সকাল থেকে নগরীর প্রধান প্রধান রাস্তাঘাটে প্রচুর সংখ্যক মানুষ ও যানবাহন দেখা গেছে। 

বাজারঘাট, হাসপাতাল এবং ব্যাংক কেন্দ্রিক প্রয়োজনে রাস্তায় বের হওয়ার কথা বলেন বেশীরভাগ মানুষ। তবে কিছু মানুষ অজুহাত সৃষ্টি করে বেড়িয়েছেন রাস্তায়। 

সকালের দিকে নগরীর পোর্ট রোড ইলিশ মোকাম সহ সবগুলো বাজারে প্রচুর ভীর দেখা দেখা গেছে। বাজারে স্বাস্থ্য বিধি উপেক্ষিত হয়েছে। ক্রেতা-বিক্রেতাদের অধিকাংশের মাস্ক পড়ায় রয়েছে অনীহা। 

নগরীর প্রধান প্রধান সড়কগুলোতে সকালের দিকে প্রচুর সংখ্যক রিক্সা, মোটরসাইকেল, বাই সাইকেল এবং ব্যক্তিগত যানবাহন চলাচল করেছে। তবে দুপুরের পর ধীরে ধীরে রাস্তাঘাট অনেকটাই ফাঁকা হয়ে গেছে। 

এদিকে লকডাউন ও স্বাস্থ্য বিধি বাস্তবায়নে আজ সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত নগরীতে পৃথক ৩টি ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেছে জেলা প্রশাসন। আইনের ব্যতয় হলে তাদেরই শাস্তির আওতায় আনছে তারা। 

অপরদিকে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীও চেকপোস্টে যানবাহন চলাচল নিয়ন্ত্রন করা সহ নগরীতে টহল অব্যাহত রেখেছে। তবে তাদের মধ্যে কিছুটা গা ছাড়া ভাব পরিলক্ষিত হয়েছে। 

আরও পড়ুন:


বিভিন্ন জেলায় করোনায় প্রায় দেড় শতাধিক মৃত্যুর

সিলেট বিভাগে করোনায় শনাক্ত ও মৃত্যু নতুন রেকর্ড

বগুড়ায় ৭০০ পরিবারের মাঝে বসুন্ধরা গ্রুপের ত্রাণ বিতরণ

মাহফুজ আনামের অনৈতিক কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদে সম্পাদক পরিষদ থেকে নঈম নিজামের পদত্যাগ


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর