সূরা ইয়াসিন: আয়াত ১০-১২, কাফিরদের শাস্তি

অনলাইন ডেস্ক

সূরা ইয়াসিন: আয়াত ১০-১২, কাফিরদের শাস্তি

পবিত্র কুরআনের মর্যাদাপূর্ণ একটি সূরা সূরা ইয়াসিন। এটি মক্কায় অবতীর্ণ। এই সূরার প্রথমে বর্ণিত দুই মুকাত্তায়াত হরফের নামে এটির নামকরণ করা হয়েছে। এই সূরায় রয়েছে ৮৩টি আয়াত। সূরা ইয়াসিনে বিশ্বাসগত বিষয়াদি নিয়ে আলোচনা রয়েছে। আজ এই সূরার ১০ থেকে ১২ নম্বর আয়াতের ব্যাখ্যা উপস্থাপন করা হবে। এই সূরার ১০ ও ১১ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে:

وَسَوَاءٌ عَلَيْهِمْ أَأَنْذَرْتَهُمْ أَمْ لَمْ تُنْذِرْهُمْ لَا يُؤْمِنُونَ (10) إِنَّمَا تُنْذِرُ مَنِ اتَّبَعَ الذِّكْرَ وَخَشِيَ الرَّحْمَنَ بِالْغَيْبِ فَبَشِّرْهُ بِمَغْفِرَةٍ وَأَجْرٍ كَرِيمٍ (11)  

১০. “আপনি তাদেরকে সতর্ক করুন বা না করুন, তাদের পক্ষে দুটিই সমান; তারা ঈমান আনবে না।”
১১. “আপনি কেবল তাকেই সতর্ক করতে পারেন, যে উপদেশ (অর্থাৎ কুরআন) অনুসরণ করে এবং দয়াময় আল্লাহকে গোপনে ভয় করে। অতএব আপনি তাকে সুসংবাদ দিয়ে দিন ক্ষমা ও সম্মানজনক পুরস্কারের।”

আগের আয়াতগুলোতে কিয়ামতের দিন কাফির ও মুশরিকদের ভয়াবহ শাস্তির কথা বর্ণনা করা হয়েছে। এই দুই আয়াতে বলা হচ্ছে, কাফিররা আল্লাহর প্রতি বিদ্বেষ ও গোঁয়ার্তুমির কারণে সত্য গ্রহণ করতে পারেনি। তারা হয় আল্লাহর রাসূলের যুক্তপূর্ণ কথা শুনতেই অস্বীকার করেছে অথবা যদিও বা শুনেছে তার প্রতি ভ্রুক্ষেপ করেনি। ভাবখানা এমন যেন কিছুই শুনতে পায়নি। কাজেই এ ধরনের লোকদের সতর্ক করা বা না করা দু’টিই সমান। কারণ, তারা আগে থেকেই সিদ্ধান্ত নিয়ে রেখেছে ঈমান আনবে না। তাদের অন্তর হচ্ছে সেই শক্ত মাটির মতো যার মধ্যে বৃষ্টির পানি প্রবেশ করে না। এ ধরনের মাটি স্বাভাবিকভাবে সতেজ হয় না এবং তাতে কোনো উদ্ভিদও গজায় না।

পরের আয়াতে বলা হচ্ছে, সেই ব্যক্তিকে সতর্ক করলে কাজ হয় যে উপদেশ গ্রহণ কোরে তা মেনে চলতে মানসিকভাবে প্রস্তুত। গোটা পবিত্র কুরআনই হচ্ছে উপদেশবাণী এবং এই মহাগ্রন্থের বহু আয়াতে বিশ্বনবী (সা.)কে মুযাক্কির বা উপদেশ প্রদানকারী হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে আল্লাহকে চেনা ও সত্য গ্রহণের ক্ষমতা মানুষের সহজাত প্রবৃত্তিতে দিয়ে দেয়া হয়েছে। নানা কারণে মানুষ নিজের ভেতরে থাকা সেই উপলব্ধি ক্ষমতাকে উপেক্ষা করে। সেই সহজাত প্রবৃত্তিকে জাগিয়ে তুলে মানুষকে সঠিক পথের দিশা দেয়ার জন্য আল্লাহ তায়ালা নবী-রাসূল ও আসমানি কিতাব পাঠিয়েছেন। যার অন্তর সত্য গ্রহণের জন্য প্রস্তুত সে অবশ্যই রাসূল ও কুরআনে কারিম থেকে উপকৃত হয়। এ ধরনের মানুষ প্রকাশ্যে ও গোপনে আল্লাহর কথা স্মরণে রাখে এবং গোনাহর কাজ থেকে যথাসম্ভব দূরে থাকার চেষ্টা করে। এধরনের মানুষের প্রতি আল্লাহ তায়ালা দয়ালু আচরণ করবেন। তাদের গোনাহগুলোকে ঢেকে রাখবেন এবং নেক কাজের জন্য তাদেরকে পুরস্কৃত করবেন।

এই দুই আয়াতের শিক্ষণীয় দিকগুলো হলো:

১. প্রতিটি মানুষকেই পরকালের ব্যাপারে সতর্ক করতে হবে।  এই সতর্কবাণী শুধুমাত্র উপদেশ গ্রহণে প্রস্তুত ব্যক্তিকেই সঠিক পথের দিশা দিতে পারে অন্য কাউকে নয়।
২. প্রকৃত ঈমান হচ্ছে গোপনে ও অন্তরে আল্লাহকে ভয় করা; শুধুমাত্র বাহ্যিক আচরণ ও পোশাক-আশাকে ঈমানদারি যথেষ্ট নয়।
৩. যারা আল্লাহর রাসূলের সতর্কবাণী গ্রহণ করে তারাই আল্লাহর রহমত লাভ করবে এবং তাদেরকেই জান্নাতের সুসংবাদ দেয়া হয়েছে।

সূরা ইয়াসিনের ১২ নম্বর আয়াতে মহান আল্লাহ বলেছেন:

إِنَّا نَحْنُ نُحْيِي الْمَوْتَى وَنَكْتُبُ مَا قَدَّمُوا وَآَثَارَهُمْ وَكُلَّ شَيْءٍ أحْصَيْنَاهُ فِي إِمَامٍ مُبِينٍ (12)

১২. “নিঃসন্দেহে আমি মৃতদেরকে জীবিত করি এবং তারা যা আগে পাঠিয়েছে ও যেসব কাজ করেছে তা লিপিবদ্ধ করি। আমি প্রত্যেক বস্তু স্পষ্ট কিতাবে সংরক্ষিত রেখেছি।”

নবী-রাসূলরা মানুষের প্রতি যেসব সতর্কবাণী উচ্চারণ করেছেন তার মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে কিয়ামত দিবসের হিসাব-নিকাশ। মৃত্যুর পর মানুষ কিয়ামতের দিন আবার জীবিত হবে এবং তাদেরকে পার্থিব জীবনের কৃতকর্মের জন্য জিজ্ঞাসাবাদ ও বিচার করা হবে। স্বাভাবিকভাবেই সেদিনের বিচারের জন্য দুনিয়ার কৃতকর্মগুলো লিখে রাখা বা সংরক্ষণ করা প্রয়োজন।

পৃথিবীর আদালতে শুধুমাত্র মানুষের খারাপ কাজের বিচার করা হয়। এ ধরনের আদালতে শুধুমাত্র ওই খারাপ কাজের বাহ্যিক ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে শাস্তি দেয়া হয়। কিন্তু কিয়ামতের বিচার দিবসে খারাপ কাজের জন্য যেমন মানুষকে শাস্তি পেতে হবে তেমনি ভালো কাজের জন্য তাদেরকে দেয়া হবে মহা পুরস্কার। সেই আদালতে মানুষের কৃতকর্মের বাহ্যিক ফলাফলকে যেমন বিবেচনা করা হবে তেমনি তার যেসব কাজের প্রভাব তার মৃত্যুর শত শত বছর পরও পৃথিবীতে পড়েছে সেটিও বিবেচনা করা হবে।

আরও পড়ুন


গোল করে মেসির রেকর্ড, তবুও জয়ের মুখ দেখলো না আর্জেন্টিনা (ভিডিও)

ওরা যখন পরীমনিকে গালাগাল করছিল তখন আমার হাত কাঁপছিল : জিমি

১৫ সেকেন্ডের ভিডিও শুনলে সহ্য করতে পারবেন না : পরীমণি

পরিস্থিতি সামাল দেওয়া কঠিন হয়ে পড়বে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী


উদাহরণস্বরূপ, দুনিয়ার আদালতে একজন খুনিকে মানুষ হত্যা করার অপরাধে শাস্তি দেয়া হয়। কিন্তু যাকে খুন করা হয়েছে দেখা যাবে তার স্ত্রী ও পরিবার তাদের অভিভাবক হারানোর কারণে বহু বছর ধরে অর্থনৈতিক ও সামাজিকভাবে অত্যন্ত কষ্টকর জীবনযাপনে বাধ্য হয়। পৃথিবীতে প্রচলিত বিচারব্যবস্থায় হত্যাকাণ্ডের শিকার ব্যক্তির পরিবারটির জন্য নেমে আসা সমূহ বিপদকে বিবেচনায় নেয়া হয় না। খুনি ব্যক্তিকে সর্বোচ্চ মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয় যাতে নিহত ব্যক্তির পরিবার মানসিক তৃপ্তি ছাড়া বাহ্যিকভাবে লাভবান হয় না। কিন্তু কিয়ামতের দিন আল্লাহর আদালতে ব্যক্তির কৃতকর্ম সেটা ভালো হোক কিংবা খারাপ, তার দীর্ঘমেয়াদী ও সুদূরপ্রসারি প্রভাবকে বিবেচনা করা হবে।

আয়াতের পরবর্তী অংশে মানুষের কৃতকর্ম লিপিবদ্ধ করার ব্যাপারে বলা হচ্ছে: লৌহে মাহফুজে সব কিছু হিসাব করে সংরক্ষণ করা হচ্ছে এবং কোনো কিছুই বাদ পড়ছে না। কিয়ামতের দিন যেহেতু এই লৌহে মাহফুজকে মানুষের ভালো ও মন্দ কাজের হিসাব নেয়ার জন্য মানদণ্ড হিসেবে বিবেচনা করা হবে তাই এই আয়াতে একে ‘ইমাম’ হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে।

এই আয়াতের শিক্ষণীয় দিকগুলো হলো:

১. মানুষের কৃতকর্মের হিসাবের খাতা তার মৃত্যুর পর কিয়ামত পর্যন্ত খোলা থাকে। তার কৃতকর্মের যেসব প্রভাব মৃত্যুর পরেও মানবজাতির উপর পড়তে থাকে সেসব তার আমলনামায় লিপিবদ্ধ করা হয়।
২. ইসলামে মানুষকে শুধুমাত্র তার কৃতকর্মের জন্য জবাবদিহী করতে হয় না সেইসঙ্গে পারিবারিক ও সামাজিক জীবনের ওপর তার কৃতকর্মের প্রভাবের জন্যও কৈফিয়ত দিতে হয়।
৩. কিয়ামত দিবসের কোনো বিচার অনুমান নির্ভর হবে না বা সেখানে সাক্ষ্যপ্রমাণের অভাবে ভুল বিচারেরও কোনো আশঙ্কা নেই। বরং সেদিনের বিচার হবে সুস্পষ্টভাবে লিপিবদ্ধ আমলনামার ভিত্তিতে যাতে কোনো ধরনের কমবেশি করা হবে না।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর

ইস্তেগফারের গুরুত্ব ও উপকারিতা

অনলাইন ডেস্ক

ইস্তেগফারের গুরুত্ব ও উপকারিতা

ইস্তেগফার মানুষের গোনাহখাতার কার্যকর প্রতিষেধক, ইস্তেগফারকারীর ওপর আল্লাহ সন্তুষ্ট থাকেন। কারণ সে নিজের গোনাহ ও অপরাধ স্বীকার করে সততার পরিচয় দিয়েছে।

ইস্তেগফারের গুরুত্ব 

রাসূল (সা.) ইস্তেগফারের প্রতি উৎসাহ প্রদান করে বলেন (অথচ তিনি মা’সুম-নিষ্পাপ), হে লোক সকল! তোমরা আল্লাহর কাছে ইস্তেগফার ও তাওবা করো। কারণ আমি নিজেও দৈনিক শতবার তাওবা-ইস্তেগফার করি। 

অন্য হাদীসে বর্ণিত আছে, রাসূল (সা.) বলেন, যার আমলনামায় ইস্তেগফার অধিক সংখ্যায় পাওয়া যাবে তার জন্য রইল সুসংবাদ।

হযরত লোকমান হাকীম তাঁর সন্তানকে উপদেশ দান করে বলেন, হে আমার পুত্র! ‘আল্লাহুম্মাগ ফিরলী’ বলাকে অভ্যাসে পরিণত করে নাও। কারণ এমন কিছু সময় আছে যখন আল্লাহ তা’আলা যেকোনো দু’আকারীর দু’আ কবুল করেন।

হযরত আবু মূসা (রা.) বলেন, আমাদের সুরক্ষাদানকারী দুটি জিনিস ছিল, তন্মধ্যে হতে একটি চিরদিনের জন্য হারিয়ে গেছে। সেটা হলো আমাদের মাঝে রাসূল (সা.)-এর উপস্থিতি। আর দ্বিতীয় জিনিস ইস্তেগফার যা এখনো আমাদের মাঝে রয়ে গেছে। যেদিন এটিও চলে যাবে (করার মতো কেউ থাকবে না) তখন আমাদের ধ্বংস অনিবার্য। 

হযরত হাসান (রহ.) বলেন, তোমরা ঘরে-দুয়ারে, দস্তরখানে, রাস্তা-ঘাটে, হাটে-বাজারে, সভা-সমাবেশে বেশি বেশি ইস্তেগফার করো। কারণ ইস্তেগফার কবুল হওয়ার সময় তোমাদের জানা নেই।

ইস্তেগফারের উপকারিতা :

ইস্তেগফারের উপকারিতা অনেক। কোরআন-হাদীসের আলোকে কিছু উপকারের কথা নিচে তুলে ধরা হলো।

এক. গোনাহখাতা মাফ হয়। 
কোরআনে ইরশাদ হচ্ছে : তোমরা তোমাদের রবের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করো। নিশ্চয়ই তিনি অতিশয় ক্ষমাশীল। (সূরা নূহ-১০)

দুই. অনাবৃষ্টি দূর হবে।
ইরশাদ হচ্ছে : তিনি (আল্লাহ) আকাশ থেকে প্রচুর বৃষ্টি বর্ষণ করবেন। (নূহ-১১)

তিন. সন্তান ও সম্পদ লাভ হবে।
ইরশাদ হচ্ছে :  তোমাদের ধন-সম্পদ ও সন্তান-সন্ততিতে উন্নতি দান করবেন। (নূহ-১২)

চার. সবুজ-শ্যামল পরিবেশ লাভ হবে।
ইরশাদ হচ্ছে : তোমাদের জন্য সৃষ্টি করবেন উদ্যান। (নূহ-১২)

পাঁচ. নদ-নদীর ব্যবস্থা হবে। 
ইরশাদ হচ্ছে : তোমাদের জন্য নদ-নদীর ব্যবস্থা করে দেবেন। (নূহ-১২)

ছয়. উপভোগ্য জীবন লাভ হবে।
ইরশাদ হচ্ছে : তোমরা তোমাদের রবের কাছে গোনাহের ক্ষমা প্রার্থনা করো। অতঃপর তাঁর অভিমুখী হও (ভবিষ্যতে গোনাহা না করার এবং আল্লাহর হুকুম-আহকাম পালন করার দৃঢ় সংকল্প করো)। তিনি তোমাদের নির্দিষ্ট কাল পর্যন্ত উত্তম জীবন উপভোগ করতে দেবেন। (সূরা হুদ-৩)

আরও পড়ুন:


নদীতে ভাসছিলো অজ্ঞাত যুবকের মরদেহ

ঝিনাইদহে করোনা ও উপসর্গ নিয়ে দুইজনের মৃত্যু

বাগেরহাটে পিকআপের ধাক্কায় ৬ ইজিবাইক যাত্রী নিহত

কে এই অভিষিক্ত শামীম পাটোয়ারী


সাত. শক্তি-সামর্থ্য বাড়বে।

ইরশাদ হচ্ছে : তোমাদের শক্তির সাথে বাড়তি আরো শক্তি জোগাবেন। (হুদ-৫২)

আট. আল্লাহর আযাব থেকে নিরাপত্তা দান করবে। 
ইরশাদ হচ্ছে : তারা ইস্তেগফারে রত থাকাবস্থায় আল্লাহ তা’আলা তাদের শাস্তি দেবেন না। (আনফাল-৩৩)

নয়. সংকট থেকে উত্তরণের পথ বের হবে। 
রাসূল (সা.) বলেন : যে ব্যক্তি নিয়মিত ইস্তেগফার করবে আল্লাহ তা’আলা তার সর্বপ্রকার সংকট থেকে উত্তরণের পথ খুলে দেবেন।

দশ. উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা, দুঃখ-চিন্তা দূর হবে। 
রাসূল (সা.) বলেন : সর্বপ্রকার উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা, দুঃখ-চিন্তা লাঘব করে স্বস্তি ও আনন্দ দান করবেন।

এগারো. অকল্পনীয় রিযিকের ব্যবস্থা হবে। 
রাসূল (সা.) বলেন :তাকে কল্পনাতীত রিযিকের ব্যবস্থা করে দেবেন। (আবু দাউদ)

বেশি বেশি উস্তেগফার করে সকলকেই এর উপকারিতা লাভের চেষ্টা করতে হবে। 

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

মৃত ব্যক্তির নামে কি কোরবানী দেওয়া যাবে?

অনলাইন ডেস্ক

মৃত ব্যক্তির নামে কি কোরবানী দেওয়া যাবে?

ইসলামে যত বিধান আছে, তার অন্যতম হলো কোরবানী। কোরবানী করা অত্যন্ত তাৎপর্যমণ্ডিত ও ফজিলতপূর্ণ ইবাদত। এতে আছে আত্মত্যাগের মহিমা ও আর্তের সেবার গৌরব। 

আদি পিতা হজরত আদম (আ.)-এর দুই পুত্র হাবিল ও কাবিল থেকে শুরু হওয়া এই কোরবানীর ইতিহাস মুসলিম জাতির পিতা হজরত ইব্রাহিম (আ.) ও তাঁর শিশুপুত্র ইসমাইল (আ.)–এর মহান আত্মবিসর্জনে উজ্জ্বল, যা কিয়ামত পর্যন্ত অম্লান থাকবে। 

উপরোক্ত আলোচনার মাধ্যমে এটা স্পষ্ট যে কোরবানী গুরুত্বপূর্ণ একটি ইবাদত। এখন প্রশ্ন হলো মৃত ব্যক্তির নামে কি কোরবানী দেওয়া যাবে? 

আরও পড়ুন:


হজে প্রথমবারের মতো নিরাপত্তার দায়িত্বে সৌদি নারী সেনা

ফরজ গোসল অবহেলার শাস্তি

আমেরিকাকে প্রতিহত করতেই রাশিয়া হাইপারসোনিক ক্ষেপণাস্ত্র নির্মাণ করছে: পেসকভ

৫০ হাজার টাকা বেতনে লোক নেবে আকিজ বিড়ি ফ্যাক্টরি


উত্তরটি জানতে এখানে ক্লিক করুন:

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

আজকের নামাজের সময়সূচি

অনলাইন ডেস্ক

আজকের নামাজের সময়সূচি

আজ বৃহস্পতিবার, ঢাকা ও তার পাশ্ববর্তী এলাকার জন্য নামাজের সময়সূচি তুলে ধরা হলো-

> জোহর- ১২:০৮ মিনিট।
> আসর- ৪:৪৩ মিনিট।
> মাগরিব- ৬:৫০ মিনিট।
> ইশা- ৮:১৪ মিনিট।
> ফজর (২৩ জুলাই)- ৩:৫৯ মিনিট।

> আজ সূর্যাস্ত- ৬:৪৭ মিনিট।
> আগামীকালের (২৩ জুলাই) সূর্যোদয়- ৫:২৩ মিনিট।

বিভাগীয় শহরের জন্য উল্লেখিত সময়ের সঙ্গে যেসব বিভাগে সময় যোগ-বিয়োগ করতে হবে, তাহলো-

বিয়োগ করতে হবে
> চট্টগ্রাম : -০৫ মিনিট
> সিলেট : -০৬ মিনিট

যোগ করতে হবে-
> খুলনা : +০৩ মিনিট
> রাজশাহী : +০৭ মিনিট
> রংপুর : +০৮ মিনিট
> বরিশাল : +০১ মিনিট

তথ্যসূত্র : ইসলামিক ফাউন্ডেশন

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

ফরজ গোসল অবহেলার শাস্তি

অনলাইন ডেস্ক

ফরজ গোসল অবহেলার শাস্তি

ফরজ গোসল ওই গোসলকে বলা হয়, যা করা অপরিহার্য। বালেগ বয়সে নাপাক হলে অর্থাৎ কারো স্বপ্নদোষ হলে বা স্বামী-স্ত্রীর মিলনে গোসল ফরজ হয়। আর তা থেকে পবিত্রতা অর্জনের তাগীদ দিয়ে আল্লাহ বলেন: যদি তোমরা নাপাক হয়ে থাক, তবে গোসল কর। [সূরা মায়েদাহ: ৬]।

হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) হতে বর্ণিত আছে, তিনি বলেন, একদা আমি আমার এক প্রতিবেশীর জানাযাতে যোগদান করি। তার লাশ কবরে নামানোর সময় বিড়ালের ন্যায় একটি অদ্ভুত জানোয়ার কবরের ভিতরে বাইরে লম্বঝম্প করে লাশ কবরে নামাতে বাধার সৃষ্টি করতে লাগল।

সেটিকে তাড়াবার জন্য সকলে মিলে চেষ্টা করলাম। কিন্তু কোন প্রকারই দূর করা গেল না। ব্যর্থ হয়ে অন্যত্র গিয়ে কবর খনন করা হল। সেখানে গিয়ে জন্তুটি ভয়ানক উৎপাত করতে লাগল। সেটিকে মারতে গিয়েও সর্ব প্রকার চেষ্টা ব্যর্থ হল।

অগত্য বাধ্য, হয়ে অন্যত্র গিয়ে তৃতীয় কবর খনন করা হল। সেখানে গিয়েও জন্তুটি আরও বেশী উপদ্রব শুরু করল। অনন্যোপায় হয়ে আমরা তাড়াতাড়ি তৃতীয় কবরেই তাকে দাফন করে সভয়ে দ্রুতপদে সেখানে হতে প্রস্থান করলাম। দফনান্তে কবর হতে বজ্রবৎ ভীষণ এক আওয়াজ বের হয়েছিল। আমি জানার জন্য তার স্ত্রীর কাছে জিজ্ঞেস করলাম, তার স্ত্রী উত্তর দিল, সহবাসের পর তিনি ফরয গোসল অবহেলা করতেন।

এতে তার ফজরের নামাজ কাযা হয়ে যেত। এছাড়া তার অন্য কোন পাপ আমি কখনো দেখি নাই।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

ইসলামে প্রতিবেশীর মর্যাদা ও অধিকার

অনলাইন ডেস্ক


ইসলামে প্রতিবেশীর মর্যাদা ও অধিকার

সাধারণভাবে বাড়ির আশপাশে যারা বসবাস করে, তাদের প্রতিবেশী বলা হয়। তবে কখনও কখনও সফর অথবা কাজের সঙ্গীকেও প্রতিবেশী বলা হয়। প্রতিবেশীই হচ্ছে মানুষের সবচেয়ে নিকটজন, যিনি তার খবরাখবর সম্পর্কে অন্যদের তুলনায় বেশি জানেন। তাই ইসলাম ধর্মে প্রতিবেশীর অত্যধিক গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে এবং তার অধিকারকে খুব বড় করে দেখা হয়েছে।

প্রতিবেশীর ধর্মীয় পরিচয় যাই হোক না কেন, ইসলাম ধর্মে মুসলমানদের তাদের প্রতিবেশীর সঙ্গে যথাসাধ্য বিনয় আচরণ প্রদর্শন করতে এবং তাদের অসুবিধা হতে পারে এমন কোনো কাজ সৃষ্টি না করার কথা বলা হয়েছে।

প্রতিবেশী কারা? কতদূর এর সীমা? এ প্রশ্নের জবাবে হজরত হাসান (রা.) বলেছেন, 'নিজের ঘর থেকে সামনে ৪০ ঘর, পেছনে ৪০ ঘর, ডানে ৪০ ঘর এবং বাঁয়ে ৪০ ঘরের অধিবাসী হচ্ছে প্রতিবেশী।'

আয়েশা (রা.) বলেন- রাসুল (সা.) বলেছেন, 'জিব্রাইল আমাকে সবসময় প্রতিবেশী সম্পর্কে অসিয়ত করে থাকেন। এমনকি আমার মনে হলো, তিনি প্রতিবেশীকে ওয়ারেস বানিয়ে দেবেন' (বুখারি ৬০১৪)। 

পবিত্র কোরআনে মুসলমানদের প্রতিবেশীর দৈনন্দিন সব প্রয়োজনে তাদের পাশে দাঁড়ানোর কথা বলা হয়েছে। রাসুল (সা.) এরশাদ করেন, সে ব্যক্তি মুমিন নয়, যে পেট ভরে খায় আর পাশেই তার প্রতিবেশী না খেয়ে থাকে (আদাবুল মুফরাদ)। 

আবু শুরাইহ থেকে আরেকটি হাদিসে প্রতিবেশীর অধিকার সম্পর্কে বলা হয়েছে- রাসুল (সা.) বলেন, 'আলল্গাহর নামে শপথ করে বলছি, সে ইমানদার নয়। আলল্গাহর নামে শপথ করে বলছি, সে ইমানদার নয়। আলল্গাহর নামে শপথ করে বলছি, সে ইমানদার নয়।' তখন হজরত মুহাম্মদকে (সা.) প্রশ্ন করা হলো, হে আলল্গাহর হাবিব, কে সে? তিনি বললেন, যে ব্যক্তির অনিষ্ট থেকে তার প্রতিবেশী নিরাপদবোধ করে না, সে ব্যক্তি ইমানদার নয় (বুখারি :৫৫৫৭)।

আল্লাহপাক ইরশাদ করেন, তোমরা আল্লাহর উপাসনা করো আর কোনো কিছুকে তাঁর অংশী করো না এবং পিতামাতা, আত্মীয়-স্বজন, পিতৃহীন, অভাবগ্রস্ত, আত্মীয় ও অনাত্মীয় প্রতিবেশী, সঙ্গী-সাথি, পথচারী এবং তোমাদের অধিকারভুক্ত দাস-দাসীর প্রতি সদ্ব্যবহার করো (নিসা :৩৬)। 

আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত- তিনি বলেন, 'হে আল্লাহর রাসুল, আমার দু'জন প্রতিবেশী আছে। আমি তাদের মধ্যে কার কাছে হাদিয়া পাঠাব?' তিনি বললেন, 'যার দরজা তোমার বেশি নিকটবর্তী, তার কাছে পাঠাও (বুখারি :৬০২০)। আবার রাসুলের (সা.) গর্বিত প্রতিবেশীরাও রাসুলের প্রতি অনেক উদার ছিলেন। 

আয়েশা (রা.) বলেন : দুই মাস আমাদের চুলায় আগুন জ্বলেনি; কয়েকটি আনসার পরিবার রাসুলের (সা.) প্রতিবেশী ছিলেন; তাদের কিছু দুধালো উটনি ও বকরি ছিল। তারা রাসুলের (সা.) জন্য দুধ হাদিয়া পাঠাত। তিনি আমাদের তা পান করতে দিতেন (বুখারি :২৫৬৭)।

তোমার ঘরের দেয়াল উঁচু করে তার বাতাস বন্ধ করবে না। ফল ক্রয় করলে তাকে পাঠিয়ে দাও, না পারলে গোপন রাখো এবং নিজ সন্তানদের ফল হাতে বের হতে দিয়ো না, যেন প্রতিবেশীর সন্তান দুঃখ না পায়। নিজের রান্নাঘরের ধোঁয়া দ্বারা প্রতিবেশীকে কষ্ট দিয়ো না। কিন্তু তাকে যদি খাদ্য দাও, তাহলে অসুবিধা নেই' (তাবারানি)।

আরও পড়ুন:


বৃষ্টির পূর্বাভাস দিল আবহাওয়া অফিস

পশু কোরবানীর আগে ও পরে কিছু সতর্কতা

ঈদুল আজহার নামাজের নিয়ত ও পড়ার নিয়ম


এ প্রসঙ্গে রাসুলুল্লাহ (সা.) আরও বলেন, কোনো প্রতিবেশী যেন তার প্রতিবেশীকে দেয়ালে কাঠ গাড়তে নিষেধ না করে। আবু হুরাইরাহ (রা.) বললেন, কী ব্যাপার, আমি তোমাদের রাসুলের (সা.) সুন্নাহ থেকে মুখ ফেরাতে দেখছি! আলল্গাহর কসম, নিশ্চয় আমি এ সুন্নাহকে তোমাদের ঘাড়ে নিক্ষেপ করব (অর্থাৎ এ কথা বলতে থাকব) (বুখারি :২৪৬৩)।

ইসলামে প্রতিবেশীর অধিকার বা কর্তব্যের বিশদভাবে আলোচনা করা হয়েছে। তার মধ্যে কয়েকটি বিষয় তুলে ধরা হলো:প্রতিবেশীকে সালাম দেওয়া, তার সালামের উত্তর দেওয়া, কেউ অসুস্থ হলে তাকে দেখতে যাওয়া এবং তার সেবা-শুশ্রূষা করা, বিভিন্ন উপলক্ষে তাকে দাওয়াত দেওয়া এবং তার দাওয়াতে অংশগ্রহণ করা।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর