সাল্ফ ন্যাশনাল চাপ্টারের ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হিসাবে তিনজন নির্বাচিত

অনলাইন ডেস্ক

সাল্ফ ন্যাশনাল চাপ্টারের ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হিসাবে তিনজন নির্বাচিত

সাউথ এশিয়ান ল’ইয়ার্স ফোরামের সাধারণ সভায় (সাল্ফ) ন্যাশনাল চ্যাপ্টারের ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হিসাবে পর্যায়ক্রমে প্যানেলে দায়িত্ব পালনের জন্য সর্বসম্মতিক্রমে তিনজনকে নির্বাচিত করা হয়েছে। তারা হলেন সংগঠনের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট অ্যাডভোকেট সুরাইয়া বেগম, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট অ্যাডভোকেট জেসমিন সুলতানা ও ভাইস প্রেসিডেন্ট অ্যাডভোকেট মোঃ গিয়াস উদ্দিন আহম্মেদ।

সাউথ এশিয়ান ল' ইয়ার্স ফোরাম (সাল্ফ) এর প্রেসিডেন্ট ও বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট শেখ সালাহউদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে ও ন্যাশনাল চ্যাপ্টারের সাধারণ সম্পাদক ও ডেপুটি এটর্নি জেনারেল শেখ সাইফুজ্জামানের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সম্পাদক ড. মোমতাজ উদ্দিন আহমেদ, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও সাবেক সম্পাদক প্রার্থী আবদুন নূর দুলাল, অ্যাডভোকেট জেসমিন সুলতানা, অ্যাডভোকেট ড. মোঃ ইকবাল করিম, অ্যাডভোকেট মোঃ আইয়ুবুর রহমান, অ্যাডভোকেট মোঃ জগলুল কবির, অ্যাডভোকেট মোঃ শাহ আলম ইকবাল, অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ সিরাজুল হক স্বপন, অ্যাডভোকেট ড. ইদ্রিস ও অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ হুমায়ুুন কবির প্রমুখ।

মঙ্গলবার সাউথ এশিয়ান ল' ইয়ার্স ফোরাম (সাল্ফ) এর প্রেসিডেন্ট অ্যাডভোকেট শেখ সালাহউদ্দিন আহমেদ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, সাউথ এশিয়ান ল' ইয়ার্স ফোরাম ইন্টারন্যাশনাল চ্যাপ্টারের ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হিসাবে দায়িত্ব পালনের জন্য প্যানেল সদস্য হিসাবে সংগঠনের ভাইস প্রেসিডেন্ট ডক্টর মোঃ ইকবাল করিমকে ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ জগলুল কবিরকে সর্বসম্মতিক্রমে নির্বাচিত করা হয়েছে।

এদিকে, অ্যাডভোকেট মোঃ শাহ আলম ইকবাল ও অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ সিরাজুল হকের নেতৃত্বে সাউথ এশিয়ান ল' ইয়ার্স ফোরাম সুপ্রিম কোর্ট চ্যাপ্টার এবং অ্যাডভোকেট মোঃ আইয়ুবুর রহমান ও মোঃ জাহাঙ্গীর আলম মোল্লার নেতৃত্বে সাউথ এশিয়ান ল' ইয়ার্স ফোরাম ঢাকা বার চ্যাপ্টার আগামী এক বছরের জন্য সাধারণ সভায় অনুমোদন দেয়া হয়।

news24bd.tv আহমেদ

পরবর্তী খবর

বিলীনের পথে রাজা লক্ষণ সেনের স্মৃতি বিজড়িত ষাঁড়বুরুজ

মো. রফিকুল আলম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ

বিলীনের পথে রাজা লক্ষণ সেনের স্মৃতি বিজড়িত ষাঁড়বুরুজ

চাঁপাইনবাবগঞ্জের সীমান্তবর্তী গোমস্তাপুর উপজেলা প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী স্থান হিসেবে পরিচিত। উপজেলার প্রাণকেন্দ্র রহনপুরসহ আশেপাশে রয়েছে অগণিত প্রাচীন ঐতিহ্যের নিদর্শন। ইতিহাসবিদদের মতে, রাজা লক্ষণ সেনের আমলে রহনপুর বাণিজ্য নগরী হিসেবে জনপ্রিয়তা লাভ করে এবং এর কারণে রহনপুরেই তিনি গড়ে তোলেন সুরম্য অট্টালিকা ষাঁড়বুরুজ, যা বর্তমানে অবৈধ দখলদারদের কারণে বিলীন হতে চলেছে।

জনশ্রুতি রয়েছে, ষাঁড়বুরুজ নামে খ্যাত এই অট্টালিকাটির প্রকৃত নাম শাহ্বুরুজ। শাহ্ শব্দের অর্থ বাদশা আর বরুজ শব্দের অর্থ অট্টালিকা বা বালাখানা। যা পরে লোকমুখে ষাঁড়বুরুজ নামে খ্যাতি লাভ করে। এ অট্টালিকার অদুরে গোলাকার গুম্বুজ আকৃতির একটি ভবন আছে। এটিই রাজা লক্ষণ সেনের বৈঠকখানা ছিল এবং এখানেই তিনি তার দরবার চালাতেন বলে জানা যায়। 

এছাড়াও জনশ্রুতি রয়েছে বাংলা বিজয়ী ইখতিয়ার উদ্দীন মুহাম্মদ বিন বখতিয়ার খিলজী এপথে বাংলায় আগমন করেন এবং এস্থানে কিছু সময় অবস্থান করেন। ইতিহাসে পরিচিত নদীয়া এ অট্টালিকার পার্শ্বেই অবস্থিত। যা পরে নওদা নামে পরিচিত লাভ করে। লোক মুখে শোনা যায় বখতিয়ার খিলজির আগমনের সংবাদে ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে রাজা লক্ষণসেন এ স্থান থেকে নদী পথে পলায়ন করেন। বর্তমানে রাজা লক্ষণ সেনের ঐতিহ্য মন্ডিত অট্টালিকাটি ভেঙ্গে একটি পাহাড়ের আকার ধারণ করেছে। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় এর চারপাশে বিভিন্ন বনজ গাছ লাগালেও বর্তমানে আশপাশে গড়ে তোলা হয়েছে অসংখ্য বসতবাড়ি। শুধু তাই নয় অবৈধ দখলদাররা পাহাড় কেটে অট্টালিকাটির ইট ও খোঁয়া নিয়ে যাচ্ছে। এ অট্টালিকাটির ভেতর মূল্যবান মূর্তি ও বিভিন্ন সম্পদ আছে এমন ধারণা থাকায় রাতের অন্ধকারে দুর্বৃত্তরা মাটি খোঁড়ার চেষ্টা করেছে এমন আলামতও পাওয়া যায়।

এলাকাবাসী জানান, রাতে এখানে মাদক সেবীদের নিয়মিত আসর বসে।

তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, গত আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয় এবং প্রত্নতাত্ত্বিক অধিদপ্তরের একটি অনুসন্ধানী দল এখানে এসে পরিদর্শন করে গেলেও পরে আর কোনো অগ্রগতি লক্ষ্য করা যায়নি। অন্যদিকে পার্শ্ববর্তী নওদাপাড়ায় নির্মিত ঐতিহ্যবাহী মন্দিরটি রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে বিলীন হতে চলেছে। বর্তমানে বিলীনের পথে এই ঐতিহ্যবাহী নিদর্শনটি অবৈধ দখল মুক্ত করে একটি পূর্ণাঙ্গ বিনোদন কেন্দ্র গড়ে তোলা যেতে পারে বলে মনে করেন অনেকেই।

পরবর্তী খবর

‘অ্যাওয়ারনেস ৩৬০’ এর উপদেষ্টা হলেন তিন প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব

অনলাইন ডেস্ক

‘অ্যাওয়ারনেস ৩৬০’ এর উপদেষ্টা হলেন তিন প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব

বৈশ্বিক অলাভজনক প্রতিষ্ঠান "অ্যাওয়ারনেস ৩৬০" এর উপদেষ্টা হিসেবে যুক্ত হয়েছেন কিংবদন্তি বাস্কেটবল রেফারি বব ডিলানি, রয়্যাল চ্যারিটি ডায়ানা অ্যাওয়ার্ডের প্রধান নির্বাহী টেসি ওজো এবং জনপ্রিয় ব্রিটিশ অভিনেতা কেল স্পেলম্যান।

শমী হাসান চৌধুরী ও রিজভী আরেফিন দুই বাংলাদেশীর হাত ধরে গড়ে ওঠা বৈশ্বিক অলাভজনক প্রতিষ্ঠান "অ্যাওয়ারনেস ৩৬০"কে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দিতে এবার বিশ্বব্যাপী কাজ করতে যাচ্ছেন বিশ্বজূড়ে জনপ্রিয় এই তিন প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব।

সম্প্রতি এমনটিই জানানো হয়েছে 'অ্যাওয়ারনেস ৩৬০' এর এক বিবৃতিতে। হাত ধোয়া, স্যানিটেশন সচেতনতা, স্বাস্থ্য ভালো রাখাসহ বস্তিতে থাকা যেসব মানুষের কাছে সাধারণত কেউ যেতে চায় না তাদের আচার, ব্যবহার, সচেতনতা বৃদ্ধির উদ্দেশ্যে কাজ করা এই অলাভজনক প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত হতে পেরে নিজেদের অনুভূতি প্রকাশ করেছেন যুক্ত হওয়া উপদেষ্টারা।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সির প্রাক্তন পুলিশ কর্মকর্তা ও কিংবদন্তি বাস্কেটবল রেফারি বব ডিলানি এক ভিডিও বার্তায় বলেছেন, "অ্যাওয়ারনেস ৩৬০ টিমের অংশ হওয়া দারুণ ব্যাপার। নেতৃত্ব আমার জন্য একটি সৌভাগ্যের ব্যাপার এবং এর সাথে বয়সের কোনো সম্পর্ক নেই। আমরা একজন আরেকজন থেকে শিখবো, জানবো। আমি কাজ করার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছি"।

অনুপ্রেরণীয় সিভিল সোসাইটির লিডার ও রয়্যাল চ্যারিটি ডায়ানা অ্যাওয়ার্ডের প্রধান নির্বাহী টেসি ওজো উপদেষ্টা হিসেবে যোগদান করে জানান, "আমি অবিশ্বাস্যভাবে খুশি এবং সম্মানিত হয়েছি এই প্রতিষ্ঠানের উপদেষ্টা হিসেবে যুক্ত হতে পেরে। আমার বিশ্বাস রয়েছে 'অ্যাওয়ারনেস ৩৬০' এর লিডারশীপ টিমের উপর। আমি বিশ্বাস করি তারা ভালো কাজ করবে। আমি শুধু এই যাত্রার অংশ হতে এসেছি। চলুন একসাথে পরিবর্তন করি"।

নিজের অনুভূতি প্রকাশ করেছেন ম্যানচেস্টারে জন্মগ্রহণ করা জনপ্রিয় ব্রিটিশ অভিনেতা কেল স্পেলম্যানও। তিনি জানান, "আমি তেমনটি কৃতজ্ঞ যেমনটি আপনারা আমাকে পেয়ে হয়েছেন। আমি অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছি আমরা একসাথে কি করতে পারি সেটা দেখার জন্য।  অ্যাওয়ারনেস ৩৬০ অনেক ভালো কাজ করছে এবং আমার বিশ্বাস আমরা বিশ্বকে বদলে দেবো"।

টিভি স্ক্রিন ছাড়াও তিনি জলবায়ু পরিবর্তন ও সামাজিক ন্যায়বিচার নিয়ে কাজ করা এই অভিনেতা আরো জানান, "অ্যাওয়ারনেস ৩৬০ সম্পর্কে তাদের কাজই তাদের হয়ে কথা বলছে। ধন্যবাদ অ্যাওয়ারনেস ৩৬০ এর সবার প্রতি। আমি বলতে পারি যে বিশ্বের একটি দারুন জায়গা এবং সব মেধাবী লোক এখানে যুক্ত রয়েছেন"।

উল্লেখ্য, দুই বাংলাদেশীর হাত ধরে গড়ে ওঠা এই বৈশ্বিক অলাভজনক প্রতিষ্ঠান শুরু থেকেই অত্যন্ত সুনামের সাথে কাজ করে আসছে। জাতিসংঘের এসডিজি নিয়ে বিশ্বের ২৩টি দেশে কাজ করা এই প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা ২৬ বছর বয়সী শমী এবং তার সহ-প্রতিষ্ঠাতা রিজভী উঠে এসেছেন মার্কিন প্রভাবশালী ম্যাগাজিন ফোর্সবের ৩০ বছরের কম বয়সী এশীয় অঞ্চলের ৩০০ তরুণের তালিকায়ও! এছাড়াও পূর্বে প্রতিষ্ঠাতা শমী পুরস্কার গ্রহণ করেছিলেন প্রিন্সেস ডায়ানার ভাই লর্ড স্পেন্সার থেকে। কেনসিংটন প্যালেসে প্রিন্স উইলিয়ামের সঙ্গে দেখা করার আমন্ত্রণ পেয়েছিলেন।

২০২০ সালে ডায়ানা অ্যাওয়ার্ডের বিচারক হিসেবে দায়িত্ব পালন পাশাপাশি আছে সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা থেকেও স্বীকৃতি পাওয়ার মতোও ঘটনা। অন্যদিকে সহ-প্রতিষ্ঠাতা রিজভী আরেফিন সম্প্রতি পুরস্কৃত হয়েছেন ডায়ানা অ্যাওয়ার্ডে, এছাড়া টার্গেট জেন্ডার ইক্যুয়ালিটি কোঅর্ডিনেটর হিসাবে যোগদান করেছেন জাতিসংঘের গ্লোবাল কমপ্যাক্টে।

news24bd.tv/ নকিব

পরবর্তী খবর

ইতিহাসে বিখ্যাত লোকদের ঘুম নিয়ে বিচিত্র স্বভাব

নিবিড় আমীন

শরীরের ক্লান্তি দূর করাই ঘুমের অন্যতম কাজ, এমনটা সকলেরই জানা। সাধারণত দৈনিক একজন প্রাপ্তবয়স্কের প্রয়োজন হয় আট ঘণ্টা ঘুম। তবে সভ্যতার ইতিহাসে বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য লোকেরই ছিল ঘুম নিয়ে অবাক করার মতো স্বভাব। 

ইতালীয় রেনেসাঁর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি লিওনার্দো দা ভিঞ্চির ঘুমের অভ্যাস ছিল বড়ই অদ্ভুত। একটানা কখনোই বেশিক্ষণ না ঘুমিয়ে সর্বোচ্চ দু ঘণ্টা ঘুমাতেন তিনি। তবে এমন ঘুম তার দেয়া হতো একদিনেই বেশ কয়েকবার। বলা হয়, বিচিত্র এই ঘুমের স্বভাবের কারণেই অনেক কাজ অসম্পূর্ণ থেকে গিয়েছিলো ভিঞ্চির।

বিখ্যাত ইংরেজ কবি-নাট্যকার উইলিয়াম শেক্সপিয়ারের ২৭ সংখক চতুর্দশপদীতে ইঙ্গিত পাওয়া গিয়েছিলো, অনিদ্রায় ভুগতেন তিনি। আর তাই এই সমস্যার কথা দেখা যেত তার অনেক নাটকের সংলাপেও।

ফরাসি সম্রাট নেপোলিয়ন বোনাপার্টের ঘুমও ছিল বিচিত্র। পুরো রাত কখনোই ঘুমাতেননা তিনি। দিনের কিছু সময়, এমনকি যুদ্ধযাত্রায় ঘোড়ার পিঠে বসে ঝিমিয়ে নেয়ার অভ্যাস ছিল তার। তবে কোনো কোনো অভিযান শেষ করার পর টানা ১৮ ঘণ্টাও ঘুমিয়েছেন নেপোলিয়ন।

১৯ শতকের ইংরেজি সাহিত্যিক চার্লস ডিকেন্সের ঘুম নিয়েও রয়েছে অবাক করা তথ্য। এক সময় তার ধারণা ছিল, উত্তর দিকে মুখ করে শুলেই ঘুম আসে মানুষের। তবে কোনো পদ্ধতিতেই কাজ না হওয়ায় অনিদ্রা বেড়ে যায় তার। রাতে ঘুরে বেড়াতেন লন্ডনের পথে পথে। শুধুমাত্র সূর্যোদয়ের পরেই ঘুমাতে পারতেন তিনি।

আরও পড়ুন:


করোনায় জাবি অধ্যাপকের মৃত্যু

মর্মান্তিক মৃত্যুর ঠিক আগ মুহূর্তে ছবি তোলেন তিনি

সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণ স্থগিত


বিবর্তনবাদের জনক চালর্স ডারউইনের ঘুমের অভ্যাসও সুবিধের ছিলো না। বিভিন্ন অসুখে ভুগার কারণে সারাটাজীবনই অনিদ্রায় ভুগতে হয়েছে তাকে। তবে সাধারণ মানুষের চেয়ে কিছুটা বেশিই ঘুমাতেন আলবার্ট আইনস্টাইন। অসামান্য মস্তিষ্ককে বিশ্রাম দিতে নিয়ম করেই প্রতি রাতে ১০ ঘণ্টা ঘুমাতেন কিংবদন্তি এই বিজ্ঞানী।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর

‘নগদ’-এ কোরবানির পশু কেনার পেমেন্ট হবে স্বচ্ছন্দে

নিজস্ব প্রতিবেদক

‘নগদ’-এ কোরবানির পশু কেনার পেমেন্ট হবে স্বচ্ছন্দে

করোনা মহামারির কঠিন সময়ে স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়ে গরুর হাটে ছোটাছুটির বদলে হাতের মুঠোয় কোরবানির সকল আয়োজন নিয়ে এসেছে ডাক বিভাগের মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস ‘নগদ’। দেশ সেরা অনলাইন পশুর হাটগুলো থেকে পছন্দের পশু কিনে সহজেই ‘নগদ’-এর মাধ্যমে পেমেন্ট করতে পারবেন গ্রাহকরা। আর এতে করে করোনার জরুরি সময়েও ঈদ-উল আজহা রাঙিয়ে দিতে পারে ‘নগদ’।

পশু কেনার পাশাপাশি হোম ডেলিভারি, মিট প্রসেসিং এবং প্রসেসিং পরবর্তী ডেলিভারির পেমেন্টও করা যাচ্ছে ‘নগদ’-এর মাধ্যমে। ফলে সম্পূর্ণ শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখেই কোরবানি করতে পারবেন যে কেউ।

এবারের কোরবানিতে ‘নগদ’ যে অনলাইন হাটের পেমেন্ট পার্টনার হিসেবে কাজ করছে তাদের মধ্যে সাদিক অ্যাগ্রো, বেঙ্গল মিট, বাংলা কাট, প্রিয়শপ, মেঘডুবি এগ্রো, চেক লিস্ট, বেলওয়েথার এগ্রো এবং হাংরিনাকিসহ আরো কয়েকটি নাম উল্লেখযোগ্য।

সাদিক অ্যাগ্রোতে ‘নগদ’-এর মাধ্যমে মিট প্রসেসিং ফি পেমেন্ট করলে পেমেন্টের এই অংশের ওপর ১০ শতাংশ হারে আনলিমিটেড ডিসকাউন্ট পাবেন গ্রাহক। অন্যসব অনলাইন কোবারবানির হাটগুলোতে নানান ধরনের পশু কেনার সুযোগ থাকলেও হাংরিনাকিতে শুধু ছাগল কিনে ‘নগদ’ পেমেন্ট করতে পারছেন গ্রাহক।

অনলাইন হাটগুলোর সংশ্লিষ্ট লিংক বা ওয়েবসাইটে গিয়ে পশু পছন্দ করার পর গ্রাহকেরা বিক্রেতার নম্বরে কথা বলা বা কিছু ক্ষেত্রে ভিডিওতে পশু দেখার সুযোগও পাচ্ছেন। যাচাই বাছাইয়ের পর পশু নির্বাচন করে প্রতিষ্ঠানটির ‘নগদ’ মার্চেন্ট অ্যাকাউন্টে পেমেন্ট করা যাবে।

আরও পড়ুন


আজ প্রকাশ করা হবে ৫৪ হাজার শিক্ষক নিয়োগের ফল

পরীক্ষা না হলে যেভাবে পাস করানো হবে এসএসসি ও এইচএসসি

খুলনার চার হাসপাতালে আরও ১৯ জনের মৃত্যু

ইরানের পরমাণু সমঝোতা না ফিরতে বাইডেনের প্রতি পম্পেও’র আহ্বান


‘নগদ’-এর এই আয়োজন সম্পর্কে ‘নগদ’-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর এ মিশুক বলেন, “আমরা সব সময়ই গ্রাহকদের জীবনকে আরো একটু সহজ করতে কাজ করছি। তার অংশ হিসেবেই নগদ-এর গ্রাহকদের ঈদের আয়োজনকে আরো একটু গুছিয়ে দিতে আমাদের সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা রয়েছে। তার অংশ হিসেবেই আমরা কোরবানির আয়োজনের সঙ্গে যুক্ত হয়েছি। আশা করছি, জরুরি এই সময়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখেই সহজে ও নিরাপদে পছন্দের পশু কেনার সুযোগ নেবেন গ্রাহক। সে কারণেই গতবছরের মতো এবারও সেবাটি গ্রাহকদের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে উঠেবে বলে আশা করি।”

বর্তমানে ‘নগদ’-এর পাঁচ কোটি ২০ লাখ গ্রাহক রয়েছে যারা প্রতিদিন গড়ে ৬৫০ কোটি টাকা লেনদেন করছে। সম্প্রতি- ‘দেশি নগদে বেশি লাভ’ স্লোগান নিয়ে কাজ করতে গিয়ে বাজারে চমৎকার সাড়া পেয়েছে, যেখানে মূলত ‘নগদ’ ব্যবহারে গ্রাহকের সার্বিক লাভের বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর

সুস্থ গরু চেনার উপায়

অনলাইন ডেস্ক

সুস্থ গরু চেনার উপায়

দরজায় কড়া নাড়ছে পবিত্র ঈদুল আজহা। এই ঈদকে আমরা অনেকেই কোরবানীর ঈদও বলে থাকি। কোরবানীকে কেন্দ্র করে দেশের বিভিন্ন স্থানে বসে পশুর হাট।

আমরা অনেকেই সুস্থ, সবল গরু কেনা নিয়ে বেশ চিন্তায় থাকি। কেননা কৃত্রিমভাবে নানা ওষুধ খাইয়ে মোটাতাজা গরুর ভিড়ে সত্যিকার স্বাস্থ্যবান ও সুস্থ গরু চেনা একটু কঠিনই বটে। তবে কিছু বিষয় খেয়াল করলে ভালো গরু চিনে নেয়া সম্ভব। তাহলে জেনে নিন সুস্থ গরু চেনার উপায় সম্পর্কে।

১. অতিরিক্ত মুনাফা লাভের আশায় কিছু কিছু অসাধু ব্যবসায়ী মোটাতাজাকরণ ওষুধ খাইয়ে স্বাভাবিকের চাইতে অতিরিক্ত মোটাতাজা করে হাটে নিয়ে আসেন। এসব গরু অন্যসব গরুর চাইতে অপ্রত্যাশিত ফোলা থাকে।  লক্ষ্য করুণ আপনার পছন্দের গরু চটপটে কি না? কারণ, স্টেরয়েড খাওয়ালে গরু নড়াচড়ার বদলে ঝিম মেরে থাকবে। এছাড়া স্টেরয়েড ট্যাবলেট খাওয়ানো গরুর ঊরুতে প্রচুর মাংস থাকে। 

২. শিং ভাঙা, লেজ কাটা, জিহ্বা, ক্ষুর, মুখ, গোড়ালি খত আছে কি না তা ভালো করে দেখে নিতে হবে। 

৩. সুস্থ গরু চিনতে হলে পাঁজরের হাড়েও খেয়াল করতে হবে। সুস্থ গরুর পাঁজরের হাড়ে উঁচু নিচু থাকে এবং চোখে নড়াচড়া করবে।

আরও পড়ুন:


বাবরের রেকর্ড গড়া সেঞ্চুরির পরও হোয়াইটওয়াশের লজ্জায় পাকিস্তান

ইসরাইলের নয়া প্রেসিডেন্টের সঙ্গে এরদোগানের ফোনালাপ

ঈদযাত্রা: আজ পাওয়া যাবে যে তারিখের টিকিট

যে কারণে এফডিসিতে এবার ছয়টি গরু কোরবানী দেবেন পরিমনি


৪. গরুর নাকের ওপরটা ভেজা ভেজা থাকে তাহলে বুঝতে হবে গরু সুস্থ। এছাড়া গরুর মুখের সামনে খাবার ধরলে যদি সঙ্গে সঙ্গে জিহ্বা দিয়ে টেনে নেয় তাহলেও বোঝা যায় গরুটি সুস্থ কারণ অসুস্থ পশু খাবার খেতে চায় না।

৫. গরুর কুঁজ মোটা ও টানটান থাকলে বুঝতে হবে গরুটি সুস্থ। 

৬. গরুর পাঁজরের হাড়ে যে তিন কোনা গর্ত থাকে, যাকে ফ্লায়েন্ট জয়েন্ট বলে। তাতে কোনা রয়েছে কিনা সেটি খেয়াল রাখতে হবে। যেসব গরুকে স্টেরয়েড জাতীয় খাবার খাওয়ানো হয় সেগুলোর পাঁজরের স্থান ফোলা থাকে এবং সেখানেও মাংস থাকে।

news24bd.tv নাজিম

পরবর্তী খবর