খরচের চেয়ে লাভের পরিমাণ প্রায় ৫ গুণ এই লেবু চাষে

সৈয়দ নোমান

বীজ বিহীন লেবু চাষ বাংলাদেশে নতুন নয়। এতোদিন চায়না সিডলেস লেবু একমাত্র ভরসা হলেও এখন বাংলাদেশ পরমানু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিনা-এক জাতের লেবু স্বপ্ন দেখাচ্ছে। খরচের চেয়ে লাভের পরিমাণ প্রায় ৫ গুণ এই লেবুতে। তাই অন্য জাতের চেয়ে দ্রুত এটি কৃষক পর্যায়ে জনপ্রিয় হবে বলে বিশ্বাস গবেষকদের।

পুরনো ব্রহ্মপুত্র নদের পাড় ঘেঁষে ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার কাশিয়ারচরে এই বাগানের অবস্থান। পাঁচ একরের লিজ নেয়া এই জমির পুরোটাই বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট বিনা উদ্ভাবিত বিনা-১ জাতের লেবু চাষের ক্ষেত্র। পরীক্ষামূলক এই বাগানে খুটিনাটি বিষয়ে গবেষণা করছেন বিনার গবেষকরা।

আরও পড়ুন:


মোংলা হাসপাতালে ১৫টি বেডসহ করোনা সুরক্ষা সামগ্রী দিল ভারতীয় কোম্পানি

লোকালয়ে হাঁস খেতে গিয়ে ধরা ৮ ফুট অজগর

মাত্র ৫ হাজার টাকা পেয়েই হত্যার মিশনে নামে খুনিরা

ময়মনসিংহে বাসচাপায় নিহত ২


বেশ কয়েক বছর গবেষণার পর ২০১৮ সালের শেষে বিনা লেবু-এক জাত চাষাবাদের জন্য নিবন্ধনের অনুমতি দেয় জাতীয় বীজ বোর্ড। লাভ কিছুটা কম হওয়ায় কৃষক পর্যায়ে এতোদিন জনপ্রিয়তা পায়নি নতুন জাত। তবে এখন ভরা মৌসুমে গাছ প্রতি ৩শ লেবু উৎপাদনে সফল হয়েছে বিজ্ঞানীরা।
ময়মনসিংহসহ আশপাশের কয়েকটি জেলায় কৃষক পর্যায়ে চাষ হচ্ছে বিনালেবু। বর্তমান ফলনে কেউ কেউ লাভের মুখও দেখেছেন।

বিনা মহাপরিচালকের দাবি, নতুন জাতে খরচের কয়েকগুণ লাভ হবে চাষিদের। নতুন উদ্যোক্তা তৈরির চেষ্টা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

গবেষণা সংশ্লিষ্টরা জানান, বিনালেবু রোপনের ১০ থেকে ১১ মাসের মধ্যে ফলন পাওয়া যায়। একটি গাছ গড়ে ১৫ বছর পর্যন্ত ফলন দিতে পারে।

news24bd.tv / তৌহিদ

পরবর্তী খবর

নৌকার চাহিদা কম, ডিঙি মিলছে দুই হাজার টাকায়

কাবুল খান

মানিকগঞ্জের ঘিওরে জমে উঠেছে ঐতিহ্যবাহী নৌকার হাট। বিক্রেতাদের অভিযোগ, চরাঞ্চল ছাড়া অন্য কোনো স্থানে পানি না বাড়ায় তেমন বাড়েনি নৌকা বিক্রি। ক্রেতা কম থাকায় নৌকার নায্য দাম পাচ্ছেন না তারা। এতে লোকসান গুনতে হচ্ছে তাদের।

এ চিত্র ঘিওর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী নৌকার হাটের। এভাবেই ক্রেতা-বিক্রেতাদের পদচারনায় মুখর হয়ে উঠেছে এ হাট।

তবে বিক্রেতাদের অভিযোগ, এবার বর্ষা মৌসুমে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি না পাওয়ায় নৌকার চাহিদা বাড়েনি। এ কারণে হাটে ক্রেতাও কম, নৌকাও বিক্রি হচ্ছে কম দামে। এ অবস্থায় আবার হাটে ইজারাদারদের খাজনাও দিতে হয়। সব মিলে লোকসান গুনতে হচ্ছে তাদের।

ইজারাদারের দাবি, অন্য হাটের চেয়ে এই হাটে খাজনা কম নেওয়া হয়।

আকার ও মানভেদে প্রতিটি ডিঙি নৌকা বিক্রি হচ্ছে ২ থেকে ৭ হাজার টাকায়। কম দামে নৌকা কিনতে পেরে খুশি ক্রেতারা।

মানিকগঞ্জের ঘিওর সরকারি কলেজ সংলগ্ন কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে প্রতি বুধবার বসে এ বিশাল নৌকার হাট।

আরও পড়ুন: 


বাংলাদেশকে টিকা দেওয়ার ব্যাপারে যা জানালেন ভারতীয় হাই কমিশনার

এদেশে সৎ মানুষ তৈরির সিস্টেমটাই নাই

গাজীপুরে পেট্রোল ঢেলে আগুন দিয়ে হত্যা চেষ্টা


news24bd.tv তৌহিদ

পরবর্তী খবর

করোনার ঈদে নিম্ন আয়ের মানুষের লড়াই চলছেই

লাকমিনা জেসমিন সোমা

দুই বছর ধরে মহামারির সাথে লড়াই করে টিকে থাকা নিম্ন আয়ের মানুষের জীবনে ঈদ মানেই বাড়তি কষ্ট। ঈদের দিন নতুন জামা তো দূরের কথা, ফিঁকে হওয়া পোশাকে লেগে আছে দুঃখের ছাপ। করোনার কারনে বিতরন করা কুরবানির মাংসও জোটেনি অনেকের। ভাসমান নিম্ন আয়ের মানুষের অন্য এক ঈদের চিত্র তুলে ধরছেন।

প্রায় চল্লিশ বছর ধরে রাজধানীতে রিক্সা চালান কাশেম আলী। অন্য ঈদের মতো এবার ঈদে বাড়তি আয়ের আশায় রাস্তায় নামেননি। নেমেই বা কী হবে। সুনশান রাস্তায় নেই কোন যাত্রী।

ফুটপাতে চাল-চুলোহীন ভাসমান জীবন। তারপরও এতোটা খারাপ সময় আগে কখনো আসেনি আবু হানিফের জীবনে। খালি পেটে দিনের অর্ধেক পার হয়েছে। চুলো জ্বলেনি ঘরে। অন্যের বাড়ী থেকে আসা এই খাবারই তাঁর জীবনে ঈদ।

সারাদিন ঘুরে মাত্র দু-টুকরো মাংস পেয়ে যেন আকাশের চাঁদ হাতে পেয়েছে চাঁদনী। মায়ের হাতে সেটুকুও আসেনি। জীবনের কাছে পরাজিত এই মায়ের কাছে একমাত্র সন্তানকে একটা নতুন জামা কিনে দিতে পারাই ঈদ।

মহামারী শুরুর পর এটি চতুর্থ ঈদ। তবে রাজধানীর হাজার হাজার ভাসমান দিনমজুর কিংবা নিম্ন আয়ের মানুষের জীবনে বাড়তি কোন মাত্রা যোগ করেনি এবারের ঈদ।

দুই বছর ধরে করোনার সাথে লড়া্ই করে পরাজিত এমন অনেকের জীবনেই ঈদ মানে যেন ব্যর্থতা-অচ্ছলতা উদযাপনের দিন।

আরও পড়ুন


দুটি গরু ও ৬ টি ছাগল কোরবানি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

একটি গরু ও একটি ছাগল কোরবানি দিলেন খালেদা জিয়া

ঈদের নামাজ পড়ে ৪৮ বাংলাদেশি আটক

ঝামেলা এড়াতে বাসার পাশেই কোরবানি


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

কোরবানির পরই শুরু বর্জ্য অপসারণ কাযক্রম চলছে

তালুকদার বিপ্লব

দক্ষিন সিটি বলছে ২৪ ঘন্টা আর উত্তর সিটি বলছে আজ রাত ১২টার মধ্যে কোরবানির বর্জ্য অপসারন করতে হবে। এমন ঘোষণায় পর পরই বেশ জোরেশোরে শুরু হয়েছে দুই সিটির বর্জ্য অপসারণ কাজ।

জানা যায়, হাটের বর্জ্য অপসারণের পাশাপাশি কোরবানির বজ্য দ্রুত অপসারনে এবার মাঠে কাজ করছে দুই সিটির সাড়ে ২১ হাজার পরিচ্ছন্ন কর্মী। তারপরও নগর কর্তারা, নগরবাসীর সহযোগিতা চেয়েছেন। 

প্রতি বছরই কোরবানির পশুর রক্ত হাড় সহ অন্য বজ্য সুষ্ঠ ব্যবস্থাপনায় হিমশিম খেতে হয় সিটি কর্পোরেশনকে। তাই  এবার আগে থেকে ২৪ ঘণটার মধ্যে বর্জ্য অপসারনের জন্য নানা প্রস্তুতি হাতে নেয় ঢাকার দুই সিটি কপোরেশন।

এমন ঘোষণা বাস্তবায়নে ঈদের দিন ঢাকার দুই সিটি মিলে মাঠে নামে সাড়ে ২১ হাজার পরিচ্ছন্নতা কর্মী।

পূব ঘোষনায় ঈদের দিন বেলা দুই টা থেকে দুই সিটি কপোরেশন অনুষ্ঠানিকভাবে বজ্য অপসারনে নামে। রাজধানীর একশ ফিট সড়কে এক্সকাভেটর চালিয়ে বজ্য অপসারন কাযক্রম উদ্ভধন করেন মেয়র আতিকুল ইসলাম। 

পরে বৃধবার রাত ১২ টার মধ্যে বর্জ্য অপসারণে মাঠে থাকবেন বলে জানান তিনি। এর আগে সকালে বায়তুল মোকারম মসজিদে ঈদুর আযহার নামজ আদায় করতে এসে দক্ষিন সিটির কর্তা জানান ২৪ ঘন্টার মধ্যে সরিয়ে ফেলা হবে ঈদের দিনের সব বর্জ্য।

এদিকে ঢাকার দুই সিটির কর্তারা মনে করেন আরো কম সময়ের মধ্যে সুষ্ঠভাবে বর্জ্য অপসারণ করা সম্ভব।তবে তার জন্য দরকার, রাজধানীবাসির সক্রিয় সমর্থণ।

আরও পড়ুন


দুটি গরু ও ৬ টি ছাগল কোরবানি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

একটি গরু ও একটি ছাগল কোরবানি দিলেন খালেদা জিয়া

ঈদের নামাজ পড়ে ৪৮ বাংলাদেশি আটক

ঝামেলা এড়াতে বাসার পাশেই কোরবানি


news24bd.tv / কামরুল 

পরবর্তী খবর

কান চলচ্চিত্র আসরে টপ মডেল বাংলাদেশি মেয়ে প্রিয়তি

চন্দ্রানী চন্দ্রা

কান চলচ্চিত্র আসরে টপ মডেল বাংলাদেশি মেয়ে প্রিয়তি

৭৪ তম কান চলচ্চিত্র আসরে টপ মডেল হলেন বাংলাদেশের মেয়ে মাকসুদা আক্তার প্রিয়তি। টপ মডেল এওয়ার্ড পেয়ে উচ্ছ্বসিত বাংলাদেশি-আইরিশ এই সুন্দরী।

বিশ্ব চলচ্চিত্রের অন্যতম জমজমাট আসর কান চলচ্চিত্র উৎসব। আসরে টপ মডেল নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশের মডেল-অভিনেত্রী মাকসুদা আক্তার প্রিয়তি। আর সেই আসর থেকে এমন প্রাপ্তিতে উচ্ছ্বসিত প্রিয়তি। জানান টপ মডেলের অ্যাওয়ার্ড পাওয়া স্বপ্নের মতো লাগছে। 

কান উৎসবের আয়োজক দেশটিতে ফ্রান্সসহ বিশ্বের নানা দেশের মডেলরা অংশ নিয়েছেন। উৎসবে ইন্টেগ্রিটি ম্যাগাজিন আয়োজিত প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে টপ মডেল এওয়ার্ড জয় করে নিয়েছেন আয়ারল্যান্ডের নাগরিক এই সুন্দরী। 

বাংলাদেশের মেয়ে প্রিয়তি৷ তার ঢাকায় শৈশব কাটলেও কৈশোরে চলে যান আয়ারল্যান্ডে। সেখানে মডেলিং শুরু করেন তিনি। পেশাগতভাবে বৈমানিক হিসেবে কাজ করেছেন তিনি।

বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত প্রিয়তি মিস আয়ারল্যান্ড ২০১৪ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীর মুকুট মাথায় তুলেছেন। শুধু তাই নয়, মিস আর্থ ২০১৬ প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হন।

আরও পড়ুন:

সৌদির সঙ্গে মিল রেখে দেশের বিভিন্ন এলাকায় আগামীকাল ঈদ

ফাঁস হলো বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের স্মার্টফোনে আড়িপাতার ঘটনা

যে বাঙালি আলেম হজের খুতবা অনুবাদ করবেন

এবার হোয়াটসঅ্যাপে যুক্ত হচ্ছে নতুন সিস্টেম

এরপর অংশ নেন বিভিন্ন প্রতিযোগিতায়। নানা দেশে নানা পুরস্কার ও স্বীকৃতি অর্জন করে নিয়েছেন তিনি৷ ২০২০ বইমেলায় লেখিকা হিসেবেও আত্মপ্রকাশ করেছেন প্রিয়তি৷ দুই সন্তানকে নিয়ে আয়ারল্যান্ডেই বাস করছেন৷

প্রিয়তি নাম লেখিয়েছেন চলচ্চিত্রে। পরিচালক কিয়ারন ডেভিস প্রিয়তিকে নিয়ে প্রথম নির্মাণ করেন ‘ওয়ান্ডারল্যান্ড’ শিরোনামে চলচ্চিত্র। প্রিয়তি অভিনীত দ্বিতীয় আইরিশ চলচ্চিত্র ‘কোকোলান’। এ সিনেমাটিও নির্মাণ করেছেন তিনি। এরপর কিয়ারন প্রিয়তিকে  নিয়ে নির্মাণ করেন ‘দ্য মাউন্টেন অব সেরেনিটি’ শিরোনামে চলচ্চিত্র।

news24bd.tv রিমু   

পরবর্তী খবর

ইন্টারনেট ডাটা প্যাকের নামে শুভঙ্করের ফাঁকি

রিশাদ হাসান

ইন্টারনেট ডাটা প্যাকের নামে শুভঙ্করের ফাঁকি

১২৯ টাকায় ১৭ জিবি ইন্টারনেট। তাও আবার মেয়াদ মাত্র ৭ দিন। এ যেন ইন্টারনেট ডেটা প্যাকের নামে শুভঙ্করের ফাঁকি। মাত্র ৭ দিনে ১৭ জিবি ইন্টারনেটের মত এমন চমকপ্রদ বহু ইন্টারনেট প্যাকেজ টেলিকম কোম্পানীগুলোর। তবে বাস্তবে দীর্ঘ মেয়াদী ইন্টারনেটের মূল্য কমছে না যেন কিছুতেই। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দুটো এনটিটিএন কোম্পানীর বাজার দখল করাই এর প্রধান কারণ। তবে বিটিআরসিকেও নিতে হবে মানহীন ইন্টারনেটের দায়ভার বলছে, মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশন।

মোবাইল ইন্টারনেটের মূল্য গ্রাহকের সাধ্যের মধ্যে রাখতে ২০১৭ সালে কস্ট মডেলিং কার্যক্রম হাতে নিয়েছিল বিটিআরসি। তবে সেটি আজও দেখেনি আলোর মুখ।

অথচ বিটিআরসির তথ্যই বলছে, দেশে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট গ্রাহকের সংখ্যা ৯ মিলিয়নের বেশী। যার অন্তত ১০ গুণ বেশী গ্রাহক মোবাইল ইন্টানেট ব্যবহারকারী ১০৭ মিলিয়ন। অর্থ্যাৎ দেশের মোট ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর ৯০ শতাংশই মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহার করছেন।

আরও পড়ুন


বাংলা একাডেমির সাথে থাকা মানে বাংলাদেশের সাথে থাকা: নূরুল হুদা

তিশা-ফারুকীর একসাথে চলার ১১ বছর

করোনায় রাঙ্গামাটির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আহসান হাবীবের মৃত্যু

খুলনায় করোনায় আরও ১৩ জনের মৃত্যু


টেলিকম শিল্প এখন বৈশ্বিক ব্যবসা, অথচ বিশ্ব বিচারেও এখনও পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ। যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক একটি সংগঠন বলছে, দেশে ১ জিবি ডেটা প্যাকের গড় মূল্য ৫৯ টাকা। যা পাশের দেশ ভারতে মাত্র ৭ টাকা ৬৫ পয়সা। এছাড়াও টেলিকম অপারেটরদের যেখানে প্রয়োজন ১০০ মেগাহার্জ স্পেক্ট্রাম সেখানে বাংলাদেশে রয়েছে গড়ে মাত্র ৩৯ মেগাহার্জ। বিশ্বের ১৪০টি দেশে ইন্টারনেট স্পিডের তালিকাতেও বাংলাদেশের অবস্থান ১৩৬তম। এই দায় কিছুতেই এড়াতে পারে না বিটিআরসি, এমনটাই বলছে মুঠোফোন গ্রাহক এসাসিয়েশনের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ।

টেলিযোগাযোগ বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, দেশের দুটি এনটিটিএন কোম্পানী বাজারা দখল করে থাকায় কমানো যাচ্ছেনা ইন্টারনেটের মূল্য।

২০০৮ সালে ১ জিবি ব্যান্ড উইথের মূল্য ছিল ১ লাখ ২৭ হাজার টাকা। ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের এক যুগের চেষ্টায় যা এখন মাত্র ২৮৫টাকা। এছাড়াও দেশব্যাপি ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের মূল্য এক রেট। তবে কেন কমানো যাচ্ছে না মোবাইল ইন্টারনেটের মূল্য সে প্রশ্ন এখনো থেকেই যাচ্ছে।

news24bd.tv এসএম

পরবর্তী খবর